এক যে ছিল সুখপিয়াসী নারী – দ্বিতীয় এপিসোড

(Ek Je Chilo Sukhbilashi Nari - 2)

তিন ~

রবিবারের সকাল। ন টা বাজতে চলল। পরমাসুন্দরী ষোড়শী এক কিশোরী উপুড় হয়ে বিছানায় শুয়ে আছে। জানালা দিয়ে আলো এসে পড়ছে সেই সুন্দরী কিশোরীর উন্মুক্ত গোলাপি দেহে । অপরুপা সেই কন্যার পরনে কালো রঙের ট্রান্সপারেন্ট প্যান্টি এবং কালো রং এর ম্যাক্সি। বিছানার কাছে ফ্লোরে হাটু মুড়ে বসে রয়েছে কাঁচা পাকা চুলের এক “বৃদ্ধ” যার জীভ লেহন করে চলেছে উর্বশীর পায়ের তলা।

ঘুম ভেঙ্গে গেল কিশোরীর “উমম’ … ‘হুমম” শব্দ করে পার্শ্ব পরিবর্তন করে “বুড়ো” পুরুষ টা পা চাটা উপভোগ করল কিছুক্ষন। অপ্সরা সম সেই “teen” এর পা নারীদেহের মতোই নরম তুলতুলে যেন কোনো বাচ্চার পা।

“ক্লিক” শব্দে বাথরুমের দরজা খুলে বের হলো আরেক সুন্দরী তন্বী কটি রূপসী , তার পরনে শুধু নীল রঙা প্যান্টি.দুজনেই ডানাকাটা পরি। সদ্য উঠতি খোলা স্তন কমলালেবুর মতই গোল যেন বাটি উপুড় করে রাখা খয়েরি বৃন্ত যুগল যেন দেবরাজ্যের কোনো বালিকা দেবী।। কোমর দুলিয়ে এগিয়ে এলো উন্মুক্ত বক্ষের এবং নিতম্বের সৌন্দর্য প্রদর্শন দেখিয়ে পুরুষ টার দিকে…. বিছানায় শোয়া সুন্দরীর পা চেটে চলেছে হতভাগ্য পুরুষ টি। আচমকা পেছন থেকে সজোরে একটা লাথি খেলো “”পুরুষ সিংহ”” টি দুই পায়ের মাঝে ।

“উফফফফ” শব্দ করে মেঝেতে লুটিয়ে পড়ল বৃদ্ধ । কোমরে হাত দিয়ে দাঁড়িয়ে থাকা বালিকা দেবী বলল ” গুড মর্নিং পাপা,হ্যাভ আ নাইস ডে”
পুরুষ টি কোনরকমে দাঁড়িয়ে থাকা কিশোরীর পায়ে গভীর চুম্বন করে বলল ” গুড মর্নিং গডেস। এন্ড থ্যাঙ্কস ফর কিকিং মি।”
“গডেস ! গডেস হোয়াট?” হাত উলটে জানতে চাইল সুন্দরী ষোড়শী।
“আ আ মিন ভেরি ভেরি গুড মর্নিং গডেস শীবাঙ্গী।” পুরুষটি বলল।
হোহোহো করে হেসে উঠলো সুন্দরী শিবাঙ্গী ।।

“সকালে পা চেটে আমার ঘুম ভাঙ্গালে না, গৌরাঙ্গীর পা চেটে দিলে! আমি পচা হয়ে গেছি না! আমার ডিউ পা চাটা এক্ষুনি চাই পাপা” আদুরে গলায় বাচ্চা মেয়ের মতো বলল শিবাঙ্গী।
গৌরাঙ্গী বিছানায় উঠে বসে হাত বাকিয়ে হাই তুলে আড়মোড়া ভাংলো।
ইশারায় ডাকলো গৌরাঙ্গী, শিবাঙ্গীর পা চাটতে থাকা মানুষ টিকে।
শিবাঙ্গী হতভাগ্য পুরুষ টার মাথায় পা রেখে আশীর্বাদ দিয়ে বলল ” গো পাপ্পি, গট ইউর বেড টি। ইয়াক!! ”

এর পরের দৃশ্য টি আরো করুন, ‘পাপা’ নামক পুরুষ টি চার পেয়ে কুকুরের মতো করে বেডের সামনে গিয়ে দাড়ালো।। তারপর মুখ হাঁ করল।।
“থুউউউউউউউহ”…. একদলা বাসি ঘুম থেকে ওঠা দুর্গন্ধযুক্ত থুতু ফেলল গৌরাঙ্গী বাবার মুখে।

ঘরে ঢুকলো রীনা।

“বেড টি” নামক তরল টি গলা দিয়ে তখনো পুরো নামে নি রীনার স্বামীর ।। বিষম খেল অসহায় পুরুষ টি।।

রীনার পরনে মখমল কাপড়ের সোনা রঙা শাড়ি , স্লিভলেস ব্ল্যাক কালার ব্লাউজ, ফর্শা ধবধবে মাসল যেন মাখন দিয়ে তৈরি। সুগভীর নাভী আর ফর্শা পেট। মেকআপ এর দরুন রীনাকে মর্ত্যের মানুষ নয় যেন স্বর্গের কোনো দেবী মনে হচ্ছিল ।

শিবাঙ্গী আর গৌরাঙ্গী ও মাকে খুব ভয় পায়। আর রীনার স্বামীর জন্য তো রীনা যমের ও অধিক।।

বজ্রাঘাত হলো রীনার স্বামীর বুকের ভিতর ।
“আহা! এতক্ষন ধরে মেয়েদের জাগানো হচ্ছে” _ইলেক্ট্রিকের মত ছুয়ে গেল রীনার কথা ।
মাথা নীচু করে দাড়িয়ে রইল “বুড়ো” ।

এবার পরমানু বোমা ফেটে উঠলো ” শুয়োরের বাচ্চা বুড়োচোদা, আজ কি বার? বুড়ো ভাম হয়েছে। কিছুই মনে থাকে না তাই না তোমার? হ্যান্ডিক্যাপড করে স্টেশানে ভিক্ষে করালে তবে ঠিক হয়ে যাবে। আদরে থাকা কুত্তার বাচ্চার বেরিয়ে যাবে। ” রীনার ফর্শা মুখ রাগে লাল গিয়েছে ।

ষোল বছরের দুই কন্যার এমন অপমান কোনো পুরুষ ই সইতে পারবে না। কিন্তু রীনার স্বামীকে চিরজীবন এই মহিলাদের হুকুমের দাস হয়ে থাকতেই হবে। রীনা চাইলে প্রধানমন্ত্রিকে ও গোলাম রাখতে পারে এমন ই লাস্যময়ী অদ্ভুত ক্ষমতাসম্পন্ন নারী সে।

“কথা কানে যাচ্ছে বোকাচোদা? নাকি এই বাচ্চা মেয়েগুলো কে দিয়ে কান ছেড়াবো? ভেবেছিলাম মুড খারাপ করব না। বুড়োচোদার ভীমরতি ধরেছে। জানে না ব্রেকফাস্ট তৈরি করতে হবে। ন্যাংটো করে গাড়ে লাথি মের রাস্তা তে বের করে দিলে তবে বুঝবে। বাড়িতে তোকে আর পোষার মত কারন দেখছি না তো? অ্যাই জানোয়ার,” চিবিয়ে চিবিয়ে বলল রীনা।

মুখ তুলল রীনার স্বামী। দুই যমজ সুন্দরী বোন মিটিমিটি হাসছিল বাবার হেনস্থা দেখে।

“এক্ষুনি আমার ফ্রেন্ড রা চলে আসবে , এখোনো ব্রেকফাস্ট হয়নি আমার । ওহ গড!…সাপের পাঁচ পা দেখেছিস না হারামজাদা! আজ তোর খাওয়া বন্ধ কুকুর ।। শিবা, গৌ, তোরা দেখবি যেন এটোঁকাঁটা চুরি করে না খেতে পারে। এটোঁকাঁটা বেড়াল কে খেতে দিবি নইলে ডাস্টবিনে ফেলে দিবি। আর একলিটার জল দিবি নজর রাখবি জল ও যেন চুরি করে বেশি না খায় । ভাগ্যে নইলে অনেক কস্ট আছে বলে দিস তোদের “ডার্লিং ড্যাডি” কে।”” রীনা নিষ্ঠুর কন্ঠে বলে বিশাল গামলার মত নিতম্ব দুলিয়ে ক্যাটওয়াক করে চলে গেল ।।

গৌরাঙ্গী এসে মাথায় হাত রাখল বাবার । চুকচুক করে মুখ দিয়ে শব্দ করল।
শিবাঙ্গী বলল ” ছো ছ্যাড ”

রীনার স্বামী দৌড়ে বেরিয়ে গেল ঘর থেকে । হাতে মাত্র ২৫ মিনিট মতো সময় আছে । আসলে রীনা রবিবার বন্ধুদের সাথে হ্যাংআউটে বেরোয়। ফেরে সেই রাত বারোটা/একটা কখোনো তিনটে/চারটেও হয়ে যায়। ওহ গড! দশটায় তারা প্রায় এলো বলে! , কিচেনে গিয়ে তড়িঘড়ি করে এগটোস্ট বানালো বউয়ের জন্য হতভাগ্য পুরুষ টি, তার পর বাটার টোস্ট। কফি বানালো। একটা ডাবল ডিমের অমলেট বানিয়ে কিছু সন্দেশ নিয়ে ট্রে তে করে রীনার ঘরে নিয়ে গেল রীনার স্বামী।

ওর ভাগ্য ভাল তখোনো রীনার ফ্রেন্ডস রা এসে পড়েনি কে জানে হয়ত রীনা গরম কফি মাথায় ঢেলে দিতো।
ব্রেকফাস্ট করছিল যতক্ষন রীনা, টি টেবিলের নীচে শুয়ে রীনার পা ম্যাসাজ করে দিচ্ছিল হতভাগ্য বর ।
তারপর ফ্রেন্ড রা এসে পড়লো রীনা কার নিয়ে বেরিয়ে পড়ল ।
এখন মা মেয়ের জামাকাপড় কাচতে হবে তাকে পেটে রাক্ষসের ক্ষিদে নিয়ে।

Comments

Scroll To Top