কালো টাইলস পড়া সেই মেয়েটি – ১

This story is part of a series:

মেহেতা সকালে দেরী করে উঠেও পার্লারের কথা ভুলল না, নিয়মিত না গেলে কেমন অস্বস্তি হয় ব্রু থেকে শুরু করে পা পর্যন্ত ওর নিট এন্ড ক্লিন দরকার আজ ওর প্রাইভেট সন্ধায় রেলস্টেশন হয়ে একটু গ্রামের দিকে ফিজিক্স স্যারের বাসা পার্লারে ভিড় ছিল না মালিক একজন মহিলা স্থানীয় হয়ায় ওকে দেখেই চিনল

মেহেতা ২০ হলেও ওর মধ্যে একটা চাপা পরিণত আছে কিন্তু দেখতে খুব কিশোরী মানে ওর দৈহিক গড়ন মহিলাটি আসলেই ওর চেহারা নিয়ে প্রশংসা করে আজকে মহিলা একটি বিশ্রী কটা রঙের সালোয়ার পড়েছে টাইট ফিটিং হওয়ায় বুক একদম পীনোন্নত মেহেতা খেয়াল করল যেটা সে নিয়মিত করে ওর নরনারীর দৈহিক আকারের প্রতি আলাদা একটি আগ্রহ আছে এটার সাথে যৌনতা বা যৌনপ্রবৃত্তির যোগসূত্র থাকায় হয়তো

মহিলা এই ওড়নাবিহীন বুক নিয়ে ওর ব্রু প্লাক আর ওর হলুদ মাখনের মত পিঠ মর্দন করে দিল, আরামে ওর ঘুম পাচ্ছিল মহিলা আবারো তারিফ ‘’এতো সুন্দর স্কিন তোমার উহহহ …… একদম বাচ্চাদের মত।।‘’

মেহেতার মেজাজ বিগড়ে যায় কেউ বেশি বকলে এসব ন্যাকামো তাও এমন ধূমসি টাইপ মহিলার কাছ থেকে যে এরকম বুড়ো বয়সে এই বুকের দুধ খাওয়ায় বাচ্চাকে যেখানে নাতীও হয়ে গেছে আরেক মেয়ের ঘরে যাইহোক মাসাজ শেষে ওর ব্লাক কটনের ব্রা টা টেনে পড়লো ওর ৩৪ বি শেপের স্তন ঢেকে টাইলসটা পাতলা সমান নিতম্বের উপরে নিয়ে জামা আর ওড়না দিয়ে ঢেকে বের হয়ে বাসায় আসলো

এসেই গোসল করলো ওর হলুদ নরম ঘর্মাক্ত সুন্দর শরীরটাকে ভিজিয়ে পানি যেন খেলছিল ওকে নিয়ে ওর স্তনের খাজ বেয়ে যোনিদেশের কালো ঘন কেশ হয়ে টিপটিপ করে ঝরছিল কোন অদৃশ্য চোখ হয়তো দেখে এখনি হস্তমৈথুন করে ফেলবে মেহেতা যোনিকেশ রেখে দেয় ওইটা ওরজন্য স্পর্শকাতর একটু ছেঁটে নেয় কাঁচি দিয়ে

আজকে আর করলো না বের হয়ে মেক্সি চাপিয়ে তার প্রসাধনী নিয়ে বসল সব শেষ করে ঘুমিয়ে নিল, উঠে বইপত্র গুছালো একটু মোবাইলটা নিয়ে সময় কিল করে সানি লিওনির নুতুন কোন গান এসেছে কিনা দেখল সময় হল প্রাইভেটে যাবার রেডি হল ড্রেস পড়ে টাইলসের সাথে ব্লাক টপস টাইপ কামিজ ভিতরে কটনের ব্রা শক্ত করে ওর দুই স্তনকে চেপে ধরল

পেন্টি পরল না আজ বের হয়ে গেলো বিকেল গড়ানোর সাথে সাথেই যেহেতু হাঁটতে হবে অনেকটা যাবার সময় ওর নিয়মিত সামগ্রী ব্যাগ আর সানগ্লাস নিল ছোট ভাইটা বারান্দাতেই খেলছিল ওকে দেখে একটু মজা করে নিল বাজার পার হতেই রেলস্টেশন তারপরের রাস্তা একটু নির্জন আর খোলামেলা

যেতে একটা বড় মাঠ পড়ে সেটা হয়ে একটা পরিত্যাক্ত দোতলা বাড়ি এই রাস্তাটা আর কেউ নেয়ন কিন্তু ওরমত যেতে পছন্দ করে আজকে যাবার সময় এক অদ্ভুত লোকের সামনে পরতে হল ওকে মাঠের আইল পার হলেই বাড়ীটা সেখানেই লোকটি দাঁড়িয়ে সিগারেট ফুঁকছিল আর ওকে আপাদমস্তক দেখছিল ওর সরু পা দুটো টাইলসে চকচক করছিল লোকটি দেখছিল আর ওর হলুদ ঘর্মাক্ত মুখের সাথে চশমাটার সাথে চুলগুলো একটু সরে আসায় সত্যি অনেক মেসি আর অন্যরকম আবেদনময়ি লাগছিল ওকে

লোকটি যেন সার্থক ওকে গিলে খেল মেহেতা অবশ্য এসবে পরোয়া করেনা ক্রস করে গেলো লোকটি সিগারেট ফেলে অন্যমনস্ক হয়ে ‘’মাগি বলে গালি দিল আজক ফিজিক্স স্যার অনেকক্ষণ পড়াল আসলে একি চাপটার ভৌত বিজ্ঞনের প্রকারভেদ এই সেই নিয়ে আলাপ আগেও করিয়েছে মেহেতা বিরক্ত তবুও শুনছিল

আসলে লোকটা যে ওকে দেখার জন্য বসিয়ে রেখেছে এটা বুঝতে পেরেও মুখ টিপে বসে রইল আর ওই কালো লম্বা লোকটির কথা ভাবলো ব্যাটা এভাবে তাকালো কেন এতো বিশ্রী করে ওর দিকে কেউ তাকায়না স্পষ্ট লালসা থেকেই চাহনি এক আদিম লালসা যেখানে অত্যাচারিত আর্তনাদ আর প্রাচীন বাসনা যুক্ত

মেহেতার মাথা কাজ না করলেও ফিজিক্স স্যারের কথায় মাথা নেড়ে শুকনো হাসি দিয়ে পড়া শেষের অপেক্ষায় বসে রইল আজক পড়া শেষে স্যার ওকে বলল প্রতি উইকে শুক্রবার আসতে ওর পার্সোনালি বেশী কেয়ার নেয়ার জন্য মেহেতা বলল বাসায় আম্মুকে জানাই আগে স্যার তাও জোর দিল না ‘’তোমার আসা জরুরী’’

মেহেতা সন্ধ্যার অন্ধকারে ঝিঝির ডাকে মাঠ পেরোতে পেরোতে একটু ভয় পেল কেননা রাস্তাটা জনশূন্য। বাড়ীটা দূরে কেমন একটি অস্তিত্ব নিয়ে যেন দাঁড়িয়ে। ওর কেমন যেন অন্যরকম লাগলো রাস্তাটা সন্ধ্যার এই সময়টাতে। এগোতে এগোতে ওর ভীষণ প্রস্রাব পেল কিক করবে ভেবে পেলো না। এরকম সময়ে দেখল বাড়ীটার ভাঙা ফটকের ইটে বসে আছে লোকটা।

প্রস্রাব চেপে কোনমতে এগোতে লাগলো লোকটা এবার দেয়াল থেকে নেমে আসল কিছু বলার আগেই ওকে জাপটে পেছন থেকে কোমরে এক হাতে ধরে ওর মুখ চেপে শক্ত করে এমনভাবে যেন ওর প্রতিরোধশক্তি না থাকে। মেহেতা চিৎকার করতে গিয়ে কামড়াতে লাগলো লোকটার হাত রক্ত বের করে দিলে লোকটা ওকে এভাবেই তুলে বাড়ীটায় নিয়ে গেলো।

অন্ধকার গহীন এক বাসা কোন শব্দ নেই শুধু ধুলো আর মাকড়সার জাল মেঝে ভাঙা মাটি বের হয়ে এসেছে কেউ যেন প্রস্রাব করে রেখেছে এক কোনে গন্ধে সয়লাব। মেহেতা লোকটিকে তার সর্বাত্মক শক্তি দিয়ে আক্রমন করতে গিয়েও পারল না লোকটির বাহুবলের কাছে লোকটি ওকে চুল মুঠো করে ধরে কাছে আনল।

মেহেতা থুতু দিল মুখে লোকটির লোকটি ওর থুতু খেয়ে নিল চেটে মেহেতা বাকশুন্য এসব দেখে। লোকটি মেহেতার ঘাম জিহ্বা দিয়ে চেটে নিল মেহতা এবার কামড়ে লোকটির মাংস তুলে নিলে লোকটি ওকে এলোপাথাড়ি কিল ঘুষি আর থাপ্পর দিয়ে মাটিতে ফেলে উপরে চরে বসে দুই হাত ধরে ওর পাতলা ঠোঁটে কামড় বসাল।

মেহেতা ক্লান্ত শরীরে কি করবে বুজতে পারল না একটা ঝড় গেলো ওর উপর দিয়ে যেন একটা যেভাবে এই দৈত্যর মত লোক ঝাপিয়ে পড়েছে ওরমত তন্বী একটি কচি মেয়ের উপর। এবার লোকটা সময় নিল না এক হাতে মেহেতার চুল ধরে ওকে উঠাল ওর মুখ দিয়ে ঘুষির রক্ত বেয়ে পড়ছে, ঘর্মাক্ত মুখ রক্ত আর চোখ লাল হয়ে ওর মাথা ভো ভো করছিল।

লোকটা ওকে দাঁরা করিয়ে ওর নিতম্বটাকে ঠেসে খামচে ধরল মেহেতা একটা চাপা আর্তনাদ ছারলেও কেউ শোনার নেই এই জনমানবহীন ডেরায়। ওর টাইলসটা ঘেমে গেছে ভ্যাঁপসা গরমে লোকটা কিছুতেই নিতম্বের খাঁজ ছারছে না এবার ওর ঠোঁটে লোকটা কালো মোটা ঠোঁট দিয়ে চুমু খেল এক তরফা। মেহেতা রেসপন্স না করলেও লোকটার লালা ওর মুখে চলে যায়।

লোকটা ওর পুরো মুখ লেয়ন দিচ্ছে জিভ দিয়ে কামড়ে কামড়ে ওর গলা গাল ঠোঁট দাগ করে দিচ্ছে মেহেতা অসাড় হয়ে সহ্য করছে শুধু ছাড়া নেই তা জেনে গেছে ইতিমধ্যে। চিল্লালেও বৃথা আর প্রতিরোধের শক্তি শেষ। লোকটা ওর রক্ত ঘাম সব চুষে নিচ্ছে মুখ দিয়ে যেন ওর ছুল পর্যন্ত লোকটা বাদ দিচ্ছে না।

এবার লোকটা ওর নিতম্বের খাঁজ থেকে নীচে মলদ্বারের ছিদ্রে আঙ্গুল দিল মেহেতা এবার ব্যাথায় চিৎকার করলো। এতে লোকটা আরো হিংস্র হয়ে গেলো ওর ওড়না ফেলে কামিজ এক টানে তুলে নিল। এখন ওর হলুদ শরীরটায় শুধু কটনের ব্রা তা দেখে দুই হাত দিয়ে ছিরে ফেলল লোকটা মেহেতা দুই হাত দিয়ে বুক ঢাকলে হাত সরিয়ে লোকটা যেন কোন ফল খাবে গ্রীষ্মের এমন করে চুষতে লাগলো ধিরে ধিরে সে দাঁত বসাল এক দিকে নিত্মবের খাঁজে আঙ্গুলের অত্যাচার এদিকে স্তন মুখ দিয়ে দলাই মলাইয়ে ভিজে চকচক হয়ে গেল।

মেহেতার নিজেকে লাগছিল হেরেমের দাসীর মত যেন কোন দীর্ঘ যুদ্ধ শেষে সৈনিক এসে ঝাপিয়ে পড়েছে। লোকটা ওর স্তন থেকে মুখ সরাচ্ছেই না মেহেতা না চাইলেও ওর মুখ থেকে চাপা গোঙানি বেরিয়ে এলো।

What did you think of this story??

Comments

Scroll To Top