রুপা আমার বউ -১

This story is part of a series:

আমার বউ রুপা। চেহারা সাধারণ, খুবই সাদা সিধে , লম্বা চুল, আর একটু বুদ্ধিটা খাটো। আমার সাথেই প্রথম প্রেম, আর আমার সাথেই বিয়ে, । আমি একটি প্রাইভেট কোম্পানিতে কাজ করি। আমার কাছের দুজন বন্ধু জয় ও রিকি। ওরা দুজন বিবাহিত ,কিন্তু আমার বিয়ের অনেক আগে।

এবার আমরা সমন্ধে কিছু বলি। আমরা এই বন্ধু কলেজ ফ্রেন্ড, শুধু আমরা নয় জয় আর রিকির বউ ও ছিল আমাদের একই ব্যাচ এর মেয়ে। তাই সবাইকে আমি খুব ভালো ভাবেই চিনতাম। আর আসল কথা হলো আমি ছিলাম আমাদের গ্রূপ এর হ্যান্ডসাম ছেলে। তাই আমি অনেকেরই ক্রাশ ছিলাম। আর সেই সুযোগ টা আমি নিতাম খুব। তাই আমাদের বান্ধবীরা কেউ আমার আদর থেকে বঞ্চিত হয়নি। প্রায় ছয় মাস রিকির বউ আমার গার্লফ্রেন্ড ছিল, আর তার পর দু মাস জয়ের বউ ছিল আমার গার্লফ্রেন্ড। যদিও রিকি আর জয় তখনো বিয়ে করেনি । কিন্তু ওরা সবই জানতো যে আমার গার্লফ্রেন্ড হলে আমি কিভাবে তাকে নিংড়ে নিংড়ে খাই।

যায় হোক ওদের বিয়ের পর আর কোনদিন আমি ওদের বউ এর দিকে ওই ভাবে তাকাইনি।

কিন্তু আমি বুঝেছি যে ওরা মনে মনে একটু হলেও আমার উপর রাগ রয়েছে।কারণ যতই হোক ওদের বউ এর শরীরের কোথায় কি জিনিস আছে , কার কেমন সেক্স ,কার কেমন আওয়াজ সবই আমার জানা। তাই আমার বিয়ের পর ওরা দুজন অনেকবার আমার বউকে পটানোর চেষ্টা করেছে। কিন্তু আমার বউ খুব শক্ত। কোনো ভাবেই গলে যায়নি ওদের কথায়। একদিন রুপা আমার আগের কথা জানতে পারে কোনো ভাবে,,,, আর কি। এর পর থেকে আমাকে সন্দেহ করতে থাকে। আর আমাকে চোখে চোখে রাখে।

হটাৎ একদিন ঘটে গেল এক আকস্মিক ঘটনা।

আমাদের কোম্পানির একটা রিসার্চ এর জন্য আমাদের তিনজনকে শহরের বাইরে একটি গ্রামে যেতে হয়েছিল। ওই গ্রামে তিন দিন থাকার কথা হয়েছিল, স্বভাবতই আমি রূপাকে বলে গ্রামে চলে আসলাম। একটা ছোট্ট বাংলো তে আমাদের থাকার ব্যবস্থা হল। রুপা তো কিছুক্ষণ বাদে বাদে ফোন করে আমার কথা শুনতে লাগলো। সারাদিন কাজ করে বিকালের দিকে আমরা একটু ঘুরতে বেরোলাম।

সন্ধ্যের দিকে বাংলোতে ফিরে আমিতো অবাক, এটা কি দেখছি,,,
রুপা দাঁড়িয়ে আছে বাংলোতে। কিন্তু ও আসলে কি করে এইখানে? এখানে আসার কারন কি? আর এই জায়গার খবর কে দিল ওকে।

আমার বউয়ের চোখ মুখ দেখে বুঝলাম যে ও আমাকে সন্দেহ করে এখানে এসেছে। ও কেন এসেছে এটা জিজ্ঞাসা করতে, ও কিছু বললনা , শুধু বললো আমিও থাকবো এইখানে তোমার সাথে। (আর ও কেন এসেছে একথা আমি পরে জানতে পারি)

আর এদিকে সমস্যা হল যে রুপা থাকবে কোথায়। কারণ এই ছোট্ট ঘরে একটাই মাত্র খাট। আর আমরা তিনজন ছেলে। ঠিক হলো আমি আর রুপা খাটের উপর ঘুমাবো, আর ওরা নিচে সোবে। আরও একটা সমস্যা দেখা দিল, রুপা তারাহুরো করে জামা কাপড় কিছুই আনেনি। তাই আমার একটা জামা একটা হাপ প্যান্ট পড়ে বসল । ওকে প্যান্ট পড়ে খুব সেক্সি লাগছিল, বিশেষ করে পরিষ্কার পা দুটো যেন সারা ঘর আলোকিত করে দিয়েছিল। আর বলতো আমার বউয়ের সারা শরীর যেন চোখ দিয়ে গিলে খাচ্ছিল। আজকে ওরা মনের মত করে আমার বউটাকে পেয়েছে।

সবাই একটা মদের বোতল নিয়ে বসলাম, তিনজনে ছোট ছোট করে খেতে লাগলাম, নেশা তেমন কিছু হলোনা, কিন্তু জয়ের মুখ খুলতে লাগল। ওরা দুজনে রুপা কে নিয়ে হাসি ঠাট্টা ইয়ার্কি করতে লাগলো। এক সময় কথা উঠলো মডার্ন মেয়ে নিয়ে। জয় রুপাকে ইঙ্গিত করে বলল বৌদি তুমি কিন্তু এতদিন শহরে থেকেও মডার্ন মেয়ে হতে পারলে না। রুপা হেসে বলল কেন আমার কোন দিকটায় মডার্ন ভাব নেই? জয় রুপার পা থেকে মাথা অব্দি ভালো করে দেখে নিয়ে তারপর বলল দেখো বৌদি আজকে তুমি যদি মর্ডান হতে তবে এই জামাটাই শুধু পড়তে নিচে এই প্যান্ট পরার কোন দরকারই ছিল না। এতে তোমাকে দেখতে আরো ভালো লাগতো আর তুমি নিজেকে মডার্ন মেয়ে বলতে পারতে।

আমি এমনিতে রুপাকে কোন জামাকাপড়ের নিষেধ দিয়নি। তাই রুপা একবার আমার দিকে তাকাল , তারপর জয়ের দিকে তাকিয়ে বলল দাঁড়াও আমি এক্ষুনি আসছি বলেই ঘর থেকে দৌড়ে বেরিয়ে গেল।

রুপা একটু পরে ঘরে ঢুকলো। সত্যি বলতে কি আমিও আমার নিজের বউকে চিনতে পারছিলাম না। আমার সাদা জামাটা রুপার কোমরের থেকে একটু নিচে নেমেছে । আর তারপরেই রুপার পরিষ্কার দুটি পা। জয় আর রিকি যেন রুপার পুরো শরীর চোখ দিয়ে ধর্ষণ করে দেবে। রুপা যখন খাটে এসে বসলো তখন ওর কালো প্যান্টিটা স্পষ্ট দেখতে পেলাম সবাই, সাথে পাহাড়ের মত পাছাটা, ওদের কথা বলতে পারবোনা কিন্তু রুপার এই সেক্সি ভাব দেখে আমার প্যান্ট এর ভিতর আমার সয়তানটা দাঁড়িয়ে গেল। বুঝলাম আমার অবস্থা যদি এমন হয় তবে জয় আর রিকির অবস্থা কী হবে।

জয় কিন্তু রুপা এর পিছন ছাড়লো না ,
রুপা যখন বললো আবার লাগছে তো আমাকে মর্ডান এন্ড সেক্সি। জয় মাথা নাড়িয়ে বললো হ্যা সে তো লাগছেই কিন্তু শুধু পোশাকেই সেক্সি আর মর্ডান লাগালে হবে না , সেটা বাইরে বের করে দেখাতে হবে। রুপা বললো আর সেটা কি করে ?

জয় বললো এটা খুবই সোজা তুমি একটু সেক্সি গানে নাচবে আমরা দেখবো। তবেই তো হবে মজা,
রুপা বললো ঠিক আছে। চলো এখন ডান্স হবে। আমি শুধু আমার বউ এর কাজকর্ম দেখছি আর মনে মনে ভাবছি আজকে আমরা বউকে এরা শেষ করেই ছাড়বে।

ডান্স করতে উঠবে ঠিক এমন সময় কারেন্ট অফ। ঘর পুরো অন্ধকার , আর আমরা চার জন খাটে, আর লাইট কোথায় কেউ জানে না। জয় বললো যে যেখানে আছো বসে থাকো চুপ চাপ। অন্ধকারে যে কিছু একটা হচ্ছে সেটা বুঝতে পাচ্ছি কারণ কারো কোনো কথা নেই, আর রুপা বড় বড় নিঃশাস নিচ্ছে। আমার পাশে যে রিকি ভদ্র ভাবে বসে আছে সেটা বুঝতে পারছি কিন্তু জয় যে কোনদিকে আছে কেউ জানেনা। হটাৎ কারেন্ট চলে এলো আর যেটা দেখলাম তা যেন বিশ্বাস করার মতো না।

কেমন লাগলো জানিও সবাই। আর সবাই আমাকে বলো যে কোনো তোমরা আমার গল্প গুলো তে কমেন্ট করছো না।আর সবাই ভালো থেকো , মাস্ক পরে থাকো, আর এই গল্প গুলো মন দিয়ে পড়ো

What did you think of this story??

Comments

Scroll To Top