বৃষ্টির দিনে বয়স্ক দম্পতির কাম জাগরণ – ২

(Bristior Raate Boyosko Dompotir Kam Jagoron - 2)

স্ত্রীর এমন কামুক লেহনে দরুন অনিলবাবু উন্মাদ হয়ে যেতে লাগলেন। স্ত্রীর মুখে ঘন ঘন মদন রস নির্গত করছিলেন অনিল বাবু।
রত্নার দেবির মুখ মদন রসে ভরে উঠলে স্বামীর পুরুষাঙ্গ বাহির করে, তা গিলে নিয়ে নিশ্বাস নেন।

এরপর রত্নাদেবি ঝোলা অন্ডথলিদ্বয় মুখে নিতেই অনিলবাবুর দেহ কম্পিত হলো। দ্রুত স্ত্রীর মুখ থেকে অঙ্গ বের করে নিলেন৷ আর কোনো মতে নিজের বীর্যপাত আটকালেন।

অনিলবাবু অর্ধ উন্মাদের মত দ্রুত নিজের ও স্ত্রীর দেহ থেকে কাপড় অপসারণ করতে লাগলেন।
দুজনেই যখন সম্পুর্ন উলঙ্গ, তখন অনিলবাবু স্ত্রীকে কোলে নিয়ে বিছানার মাঝে শুইয়ে দিলেন। স্ত্রীর মাথা আতলো করে বালিশের ওপর রেখে, কোমরের নিচে আরেক খানা বালিশ দিলেন।
অনিলবাবু আর দেরি না করে স্ত্রীর ওপর শুয়ে সনাতন আসন গ্রহন করলেন।

রত্না দেবি নিজ হাতে স্বামীর পুর্ন দন্ডায়মান পুরুষাঙ্গখানা মুঠোয় নিয়ে, ছালটা পেছনে টেনে বড় লালচে মুন্ডিখানা উন্মুক্ত করে নিজ যোনি দারে স্থাপন করলেন। যোনিপথ রস ক্ষরনে যথেষ্ট পিচ্ছিল ছিলো। অনিলবাবুর কোমর চাপ দিতেই সম্পুর্ন আট ইঞ্চি অঙ্গখানা প্রবেশ করিয়ে দিলেন স্ত্রীদেহে।
রত্না দেবি পিঠ বাকিয়ে চিৎকার দিয়ে উঠলেন। স্বামীর চওড়া পিঠ খামচে ধরলেন।

একই সময় ভয়ানক ভাবে মেঘ গর্জন করে উঠলো। বৃষ্টি আরো ঘন হতে লাগলো। ঝমঝম শব্দে কানে তালা লেগে যাচ্ছে।
তখন অনিলবাবু আরম্ভ করলেন মৈথুন, ঘন ঘন মৈথুন। প্রতি মৈথুনে রত্না দেবি চোখে শরষে ফুল দেখতে লাগলেন। এবং যোনিপথে প্রচুর রস ক্ষরন করতে লাগলেন।

এদিকে প্রচণ্ড উত্তেজনার বসে অনিলবাবুর কন্ডমের কথা খেয়ালই রইলো না। প্যাকেট দুটো প্যান্টের পকেটেই পরে লইলো।

খালি বাড়িতে ঝুম বৃষ্টি তে স্বামী-স্ত্রী সহবাস করছিলেন, এমন দরজা নক করলো তাদের বড় পুত্র, দেবু।
কিন্তু এদিকে ভিশন ঝুম বৃষ্টি ঝমঝম শব্দ আর মেঘের গর্জনের জন্য, চরম যৌনানন্দে মত্ত, সঙ্গমরত স্বামী-স্ত্রী, তাদের নিজ পুত্রের ডাক কেউই শুনতে পেলেন না।

এদিকে দেবুরও কলেজে একটা ক্লাস বাতিল হওয়ায় আগেই চলে আসলো বাড়িতে। এই বৃষ্টিতে কিছু করারও নেই।
কিন্তু ৫ মিনিট হয়ে গেলো দরজা নক করছে কিন্তু মা খুলছে না কেনো দরজা, ভেবে বিচলিত হলো দেবু।
ভাবলো, হয়ত মা নিজের ঘরে ঘুমচ্ছে। তাই হয়ত শুনতে পাচ্ছে না, এত শব্দের মাঝে।

তাই দেবু ভাবলো, বাড়ি ঘুরে গিয়ে কোনের ঝোপের সাথে বাবা-মায়ের শোবার ঘরের জানালা। সেখান দিয়ে উকি দিয়ে মাকে ডাকলেই মা শুনতে পাবে।
যেই ভাবে সেই কাজ। বৃষ্টির মাঝে ঝোপ পেরিয়ে জানালার কাছে গেলো দেবু।

একটু উচুতে জানালা। দেয়ালের কার্নিশে পা দিয়ে উঠে জানালার গ্রিল ধরে ভেতরে তাকাতেই দেবু যা দেখলো তার জন্য একদমই প্রস্তুত ছিলো না। বুক টা ধ্বক করে উঠলো, গায়ের রক্ত হীম হয়ে গেলো, হাত পা কাপতে লাগলো।
দেবু তার ২২ বছরের জীবনে এ পর্যন্ত বাবা মাকে সঙ্গমরত অবস্থায় দেখেনি।

এই প্রথম, এমন অবেলায়, খালি বাড়িতে বাবা মাকে সম্পুর্ন উলঙ্গ হয়ে সহবাস করতে দেখে বেশ শকড খেয়ে গেলো দেবু।
একই সাহে লজ্জা পেয়ে, আর যাতে তাকে দেখে না ফেলে সেই ভয়ে দেবু দ্রুত নিচে নেমে গেলো।

কিন্তু মুহুর্তেই মায়ের নগ্ন ফর্শা লদলদে কামুক শরীরটা আরেকবার দেখার লোভ কিছুতেই সামলিয়ে উঠতে পারছিলো না দেবু। যদিও দেবু নিজেও তার গার্লফ্রেন্ডের সাথে একাধিকবার দৈহিক মিলন করেছে।

দেবু আসে পাশে তাকিয়ে নিলো, কোনো মানুষ নেই। তাছাড়া ঝোপের জন্য হঠাৎ কেউ আসলেও তাকে দেখতে পাবে না।

দেবু পুনরায় উঠে জানালা দিয়ে উকি দিলো। বাবা মা তার বরাবর বিপরিত দিকে মুখ করে আছে৷ অর্থাৎ, তার মায়ের রসালো যোনির মুখে বাবার শিশ্ন চালনার সম্পুর্ণ দৃশ্যটিই তার সামনে উন্মুক্ত। আর বাবা মা হঠাত ঘুরে পেছনে তাকাবেও না।

ওই মুহুর্তে অনিলবাবুর দ্রুত মৈথুন করছিলেন। অংক মাস্টার অনিলবাবুর ভিষন ঝোলা বৃহদাকার হর্ষ অন্ডথলিখানা বার বার আছরে পরছিলো স্ত্রীর ভরাট ও ফর্শা নিতম্বে।
দেবু দ্রুত তার স্মার্টফোনটি বের করে ক্যামেরায় ভিডিও করতে লাগলো। কেনো করছে সে নিজেও জানে না। কিন্তু বাবা যে এই বয়সে এখনো এত সুন্দর করে কোমর ওঠানামা করতে পারে তার ধারনাতেও ছিলো না, আর মায়েরও মেদযুক্ত থাইদ্বয় বেশ করে কম্পিত হচ্ছে বাবার প্রতিটি ধাক্কায়।

দেবু ভিষণ আশ্চর্য হলো পিতার পুরুষাঙ্গটির দৈর্ঘ দেখে। অন্ডথলিটাও একদম ষাড়ের মতন বড় আর ঝোলা। মায়ের ফর্শা পাছায় আছাড় খাচ্ছে প্রতিবার।
দেবুর নিজের লিঙ্গ সাড়ে ৫ ইঞ্চি। দেবু একটু মনখুন্ন হলো। সে যে আসলে বাবার দিক থেকে কিছুই পায়নি। না পেয়েছে বাবার মত লম্বা চওড়া দৈহিক গড়ন। না পেয়েছে বাবার মতন লিঙ্গ দৈর্ঘ। বাবার গালে ঘন চাপ দাড়ি, বুকে ভর্তি ঘন চুল। অথচ নিজের গালে বুকে একটা চুলও ওঠেনি এখনো।

দেবু দেখতে পেলো মায়ের যোনিদ্বার রসে চিকচিক করছে। ফর্শা বিশাল পাছার খাজ বেয়ে অনবরত রস গড়িয়ে পরছে। নিশ্চই মা ভিষন সুখ পাচ্ছে। এতটা রস দেবু তার জিএফ কেও কখনো ছাড়তে দেখেনি।

দেবু নিজের অজান্তেই কখন যে প্যান্টের ভেতর লিঙ্গটা দাড়িয়ে গেছে টেরই পায়নি। খুব ইচ্ছে করছে জিপার খুলে লিঙ্গটা বের করে মুঠোয় নিয়ে আচ্ছা করে খিচে নেয়ার। কিন্তু বাহিরে বসে এতটা করার সাহস পাচ্ছেনা দেবু৷ তার উপর এক হাতে ফোন, আরেক হাত দিয়ে রেলিং ধরে আছে।

তাই দেবু চোখেই উপভোগ করতে লাগলো নিজ জন্মদাতা আর জন্মদাত্রীর মধুর মিলন দৃশ্য।

সব মিলিয়ে প্রায় দেড় ঘন্টা হয়ে গেলো অনিল বাবু সঙ্গম করছেন স্ত্রীর সাথে, নিজ সজ্জায় সনাতন আসন পেতে। বাহিরে এখনো ঝুম বৃষ্টি, আর বজ্রপাতের শব্দ।
অনিলবাবু কিংবা রত্না দেবির কেউই জানেনা যে পেছনের জানালা দিয়ে তাদের একমাত্র পুত্র তাদেরই সঙ্গম দৃশ্য দেখছে।

অনিলবাবু টের পেলেন তার বীর্যপাতের সময় ঘনিয়ে এসেছেন। তিনি রত্না দেবিকে শক্ত করে জড়িয়ে ধরে, রসালো ঠোট জোড়া চুষে ধরলেন।
রত্না দেবির ডাসা স্তনযুগল স্বামীর চওড়া রোমশ বুকে থেতলে গেলো।

এমন সময় অনিলবাবুর মাথায় এলো তিনি যে আসলে কনডম ব্যাবহার করতে ভুলে গেছেন।
তিনি লিঙ্গচালনা থামিয়ে বললেন- কনডম তো নেয়া হয়নি। দাড়াও আমি একটু নিয়ে আসি, প্যান্টের পকেটেই আছে।

তিনি স্ত্রীর যোনি পথ হতে পুরুষাঙ্গ বাহির করতে গেলে টের পেলেন, স্ত্রী তার যোনির পেশী দিয়ে তার পুরুষাঙ্গ কামড়িয়ে ধরে আছে, বাহির করতে দিচ্ছে না।
রত্না দেবিও দুপা দিয়ে স্বামীর কোমর বন্ধনি করে চাপ দিয়ে স্বামীকে নিজের কাছে টেনে নিলেন, স্বামীঅঙ্গ আবার সম্পূর্ন প্রবেশ করিয়ে নিলেন। কাপা কাপা গলা বললেন- থাক লাগবে না। তুমি দাও।
অনিলবাবু- কি বলছো তুমি?

রত্নাদেবী কাঁদো কাঁদো গলায় অনুনয় করলেন- তুমি দাও প্লিজ। আমার ভেতরে চাই। নাহলে আমি আজ মরে যাবো। প্লিইইইইজ!
গৃহস্ত নিজেই দরজা খুলে দিলে ডাকাত কেনই বা গৃহে ঢুকে ডাকাতি করবে না!

তাই আর না ভেবে, দেহের সব শক্তি দিয়ে কোমর চালনা করতে লাগলেন অনিলবাবু। লৌহশক্ত পুরুষাঙ্গ প্রবল গতিতে যোনি পথে যাওয়া আসা করতে লাগলো। প্রতিবার জরায়ু মুখে, লিঙ্গমুন্ডিখানা চুমু খাচ্ছিলো। ফলে রত্না দেবির দেহে প্রবলভাবে রাগমোচন ঘটলো। জারায়ুতে কয়েকটা বিস্ফোরণ অনুভব করলেন আর অমনি কলকল করে জল ছেড়ে দিলেন রত্না দেবি। স্বামীর অন্ডকোষ সমেত লিঙ্গ সম্পুর্ন ভিজিয়ে দিলেন।

অংক মাস্টার অনিলবাবু নিজেকে আর ধরে রাখতে পারলেন না। তার পুরুষালি দেহখানা কম্পিত হলো। পাছার পেশি সংকুচিত হলো। পুরুষাঙ্গখানা স্ত্রীর জরায়ু মুখে চেপে ধরে, জরায়ুর ভেতরে বীর্যস্খলন করতে লাগলেন অনিলবাবু।

স্বামীকে যথাসম্ভব নিজের সাথে চেপে ধরে উষ্ণ বীর্য অনুভব করতে লাগলেন নিজের জরায়ু তে।
অধিক পরিমাণে বীর্যস্খলন করলেন অনিলবাবু।

রত্না দেবী তার যোনির পেশি দিয়ে স্বামীর পুরুষাঙ্গ নিংড়িয়ে বীর্যের শেষ ফোটাটুকু বুঝে নিলেন নিজের ভেতরে।

টানা দেড়ে ঘন্টা সঙ্গম করে বেশ ক্লান্ত হয়ে পরলেন অনিলবাবু। বয়স বেড়েছে, এখন আর আগের শক্তি নেই।
কিছুক্ষনের মধ্যে ওভাবেই ঘুমিয়ে পড়লেন অনিলবাবু, স্ত্রীর বুকের ওপর শুয়ে, বীর্যে টইটুম্বুর যোনিতে লিঙ্গ প্রবেশরত অবস্থাতেই।

চরম তৃপ্ত রত্না দেবী স্বামীকে পরম যত্নে নিজের সাথে চেপে ধরে চোখ বুজে রইলেন। যেনো কতকাল পরে এমন যৌন সুখ পেয়েছেন। কত কত যুগ পরে জরায়ুতে স্বামীর গরম টাটকা বীর্যের ছোয়া পেয়েছেন।

এদিকে দেবু ক্যামেরা অফ করে দিলো। বৃষ্টি জল বেশ ভালো ভাবেই মাথা পরেছে। বৃষ্টিও এখন থেমে গেছে। তাই বেশ ঠান্ডা লাগতে আরম্ভ করেছে দেবুর।
দেবু ভেবেছিলো ঘন্টাখানেক ঘুরে আসবে। যাতে মা বাবা বিশ্রাম নিতে পারে আরাম করে। কিন্তু বেজা কাম্পড়ে আবার না জ্বর চলে আসে, তাই না চাইতেই দেবু দরজা নক করলো।

দরজার শব্দ শুনে রত্না দেবি চমকে উঠলো। নিজের ওপরে শুয়ে থাকা স্বামীকে ডাকলেন- এই ওঠো, মনে হয় দেবু চলে এসেছে। তারাতারি ওঠো। বুঝে গেলে কেলেঙ্কারি হয়ে যাবে।

কিন্তু অনিলবাবুর ওঠার কোনো নিশানা নেই। নাক ডেকে গভীর ঘুমে হারিয়ে গেছেন তিনি।

রত্না দেবি কোনো মতে স্বামীর বিশাল দেহতল থেকে নিজেকে মুক্ত করলেন। যোনি থেকে পুচ করে নেতানো লিঙ্গটা বেরিয়ে গেলো।

রত্না দেবি দ্রুত চিন্তা করলেন, আগে দরজা খুলতে হবে যত তারতারি হোক। কেননা, বাবা মাকে একয়ায়াথে ঘরে দেখলে, আবার দরজা খুলতে দেরি করলে ছেলে হয়ত টের অএয়ে যাবে।

তাই রত্না দেবি দ্রুত একটা ম্যাক্সি পরে নিলেন। আর স্বামীর রোমাল দিয়ে নিজের যোণি মুখে গুজে নিলেন। যাতে বীর্য ফোটা না পরে ফ্লোরে। স্বামী নাক ডেকে ঘুমুচ্ছে, তাকে উঠিয়ে এখন অন্তত একটা ধুতি পড়াতে গেলে অনেক দেড়ি হয়ে যাবে। তাই তিনি একটা কম্ভল দেয়া ঢেকে দিলেন।
ফ্লোরে পরে থাকা স্বামীর শার্ট প্যান্ট, নিজের শাড়ি ব্লাউজ সব সরিয়ে ফেল্লেন।

দ্রুত গিয়ে দরজা খুলে দিলেন। – একি দেবু তারতারি চলে এলি!

মা ছেলে দুজনই কিছুই জানে না এমন ভান ধরলেন। দেবু বলল- বৃষ্টি তো তাই, আজকের ক্লাস ক্যানসেল।
রত্না দেবি- ঠিক আছে তুই যা ফ্রেশ হ। আমি খাবার দিচ্ছি।
— ঠিক আছে মা।

দেবু দেখলো বাবা মার ঘরের দরজা খোলা। বাবাকে দেখা যাচ্ছে, কম্বল গায়ে বাবা নাক ডেকে ঘুমুচ্ছে।
দেবু জানতো বাবা বাড়িতেই আছে। তাও মা যাতে না বুঝতে পারে তাই বলল- একি মা, বাবা বাড়িতে। স্কুলে যায়নি।

মা ঘবড়ে গিয়ে- হ্যা গিয়েছিলো তো। স্কুলও আজ ছুটি দিয়ে দিয়েছে। এত ঝড়ের মধ্যে কোনো ছাত্রছাত্রী আসেনি তাই।
দেবু, ও আচ্ছা বলে চলে গেলো নিজের ঘরে।

রত্না দেবি হাফ ছেড়ে বাচলেন৷ যাক ছেলে টের পায়নি কিছু। তিনি দ্রুত বাথরুমে ঢুকে ফ্রেশ হয়ে নিলেন। নিজেকে খুব হাল্কা মনে হচ্ছিলো এতদিন পরে স্বামী-সঙ্গম করে।

এদিকে দেবু ঘরে ঢুকে এখনো ভাবতে লাগলো, কি দেখলো সে আজ। সে দ্রুত ফোন বের করে ভিডিওটা বার করে দেখতে লাগলো। মুহুর্তেই নিজের লিঙ্গখানা দাড়িয়ে গেলো। দেবু দরজা লাগিয়ে লিঙ্গ বার করে হস্ত মৈথুন করতে লাগলো।

সেদিনের ঘটনার পর থেকে অংক মাস্টার অনিলবাবু নিয়মিত স্ত্রী-সহবাস করতে লাগলেন।
কাজের হয়ত একটু চাপ থাকে। তারপরও হাতের ম্যানেজ করে রেখে, সপ্তাহে দুই তিনবার স্ত্রী রত্না দেবীর সাথে সঙ্গমে রত হন অনিলবাবু।

What did you think of this story??

Comments

Scroll To Top