বেঙ্গলি সেক্স চটি – রাতের ট্রেন জার্নি – পর্ব ২

(Bengali Sex Choti - Rater Train Journey - 2)

বেঙ্গলি সেক্স চটি – রাতের ট্রেন জার্নি – পর্ব ১

আকাশ আস্তে আস্তে হাত বাড়ালো আশার দিকে….।

কোন এক মোহে সে হাত এগিয়ে দিলো।
আস্তে করে স্পর্শ করলো আশার নিতম্বের উপরি ভাগে। পুরা শরীর কেঁপে উঠলো তার। এক আঙ্গুল দুই আঙ্গুল ..আস্তে আস্তে পুরা হাত দিয়ে সে ছুঁয়ে দিতে থাকলো আশার নিতম্ব।

আকাশের হাতের স্পর্শে একটু কেঁপে উঠেছিলো আশা। তারপরেই সে ব্যাপারটা বুঝতে পারলো। সে মুখ দিয়ে সজিবের পুরুষাঙ্গ চুসে দেওয়ার সাথে সাথে হাত দিয়ে নিচের থলেও আস্তে আস্তে টিপে দিচ্ছিলো। সে বুঝতে পারছে না এখন কী করবে! তবে সে এটাতে বেশ মজা পাচ্ছিলো। এরকম দ্বিধাদ্বন্দ্বে কিছুক্ষন কেটে গেলো।

এদিকে ট্রেন আপন গতিতে চলছে, মাঝে এক স্টেশনে থামলেও এদিকে কেউ আসেনি। রাতের ট্রেন। বাইরে অন্ধকার। কেবিনের ভিতরেও অন্ধকার আর কেবিনের দরজা লাগানো থাকায় কোনো ভয় ছিলো না।

আশা খুব করে চুষে যাচ্ছে সজিবের পুরুষাঙ্গ। সজিব আরামে চোখ বন্ধ করে আছে। তাই আকাশের দিকে খেয়াল করতে পারেনি যে, আকাশ আশার নিতম্ব কাঁপা হাতে ছুয়ে দিচ্ছে, হাল্কা টিপছে।
আরেক হাত থেমে গেছে আকাশের। আশার সুন্দর পাছার লোভে সে নিজের কথা ভুলে গেছে।

সজিবের মাথা পিছনের দিকে হেলান দেওয়া ছিলো। হঠাৎ সামনে নিলো।
কিন্তু সৌভাগ্যবশত আকাশের খেয়াল চলে যায় সেদিকে, ফলে দ্রুত হাত টেনে নেয় সে। সজিব আকাশের হাতের নড়াচড়া একটু দেখতে পায়। কিন্তু অতটা পাত্তা দেয়নি।

সজিবঃ উম্মম ” হয়েছে সোনা, এবার আসো।
আশার মাথা ধরে টেনে উঠালো সে, চুমু খেলো ঠোটে। আশা সজিবের কোলে উঠে বসলো, এক হাত দিয়ে তার পুরুষাঙ্গ নিজের যোনিতে লাগিয়ে আস্তে করে বসে পরলো। মুখ দিয়ে বের হয়ে আসলো “আহহ..।

আকাশ দম আটকে বসে থাকলো এটা দেখে। লাইভ টেলিকাস চলছে তার সামনে। পূর্ণ যৌবনের দুই নর নারী তার থেকে সামান্য একটু দুরে যৌবনের উদ্দাম খেলায় মত্ত। সম্পুর্ন নগ্ন যৌবনা এক মেয়ে লোভনীয় এক শরীর নিয়ে তার সামনে উঠানামা করছে। এক অভূতপূর্ব দৃশ্য।

আকাশ তার পুরা পুরুষাঙ্গ বের করে হাত দিতে নাড়াতে থাকলো, মুঠো করে ধরে আগপিছ করতে লাগলো। চোখ আটকে আছে যুবতি আশার শরীরে।

” আশা কি মুখ ঘুরিয়ে তাকে দেখলো?
হঠাৎ আকাশের তাই মনে হলো।
হ্যাঁ তাই তো। আকাশ দেখলো আশা তার দিকে তাকিয়ে আছে, আর সজিবের ওপরে উঠানামা করছে। সজিব আশার পাছা খামছে ধরে তাকে আরো জোড়ে নিজের সাথে ঠেসে ঠেসে ধরছে। ওঠানামা করাচ্ছে।

কিছুক্ষন এভাবে চললো। আকাশ আশাকে দেখে দেখে তার দন্ডটা মুঠো করে ধরে আগপিছ করতে লাগলো। আশা আকাশকে দেখতে দেখতে সজিবের পুরুষাঙ্গের ওপর ওঠবস করতে থাকলো।

আশা থেমে গেলো, তারপর উঠে ঘুরে গেলো। এবার সে নিচে দুই পা রেখে পিছন দিক দিয়ে সজিবের পুরুষাঙ্গ যোনিতে ঢুকিয়ে নিলো।

এখন আকাশ আশার শরীরের সবচেয়ে আকর্ষণীয় অঙ্গ তার দুধ জোড়া দেখতে পাচ্ছে। আশা এবার সরাসরি আকাশের দিকেই তাকিয়ে আছে। আকাশও ঘোর লাগা চোখে আশার দিকে তাকিয়ে তাকিয়ে নিজের পুরুষাঙ্গ মর্দন করে যাচ্ছে।

আশা “আহ ইশশ আরো জোরে.. বলে সঙ্গম চালাচ্ছে। আর সজিব পিছন থেকে তার দুধ জোড়া চাপতে চাপতে নিচ থেকে জোরে জোরে ধাক্কা মারছে। আকাশের দিকে তার অত খেয়াল নেই।

“দেখো সজিব! আকাশ বাবু খুব কষ্টে আছে মনে হচ্ছে। ” উঠানামা করতে করতে কোনোমতে বললো আশা। মুখে সঙ্গমের তৃপ্তির সাথে সাথে মুচকি হাসি।
সজিব ধার বেঁকিয়ে আকাশের দিকে তাকালো। সেও একটু হাসলো।

“তোমার অনুমতি হলে আকাশের কষ্ট একটু কম করে দিই? ” সজিবের দিকে ঘুরে বললো। চোখে দুষ্টুমি।

“আমার আপত্তি নেই, চাইলে দিতে পারো।

আকাশ সব শুনলো, কেঁপে উঠলো। কী হতে যাচ্ছে এখন!

” আকাশ বাবু একটু এদিকে সরে আসেন তো দেখি ” আশা বললো!

“হ্যাঁ… না.. মানে..।

” হ্যাঁ আসেন।

আকাশ সরে এসে আশার সামনে বসলো। আশা একটু সামনের দিকে ঝুকে গেলো। আকাশের এক হাত ধরে তার এক স্তনের সাথে লাগিয়ে দিলো।
” একটু টিপে দেখুন তো। ”

আকাশের হাত যেম থমকে গেলো আশার সুন্দর নরম স্তনের ছোয়া পেয়ে। পুরা শরীর কেঁপে উঠলো। পরক্ষণেই খামচে ধরে ফেললো স্তনটা। “আহহ..” দুইজনের মুখ থেকেই বেরিয়ে এলো।
মেয়েদের স্তন যে এতো নরম, ধরতে এতো মজা সেটা কখনোই আকাশ অনুভব করেনি। আস্তে আস্তে না, বেশ জোরেই টিপতে লাগলো সে। আশাও সেই সাথে “উম্মম, আহহ ” করে যেতে থাকলো।

এখন আশা লাফাচ্ছে না, পিছন থেকে সজিব জোরে জোরে তার পুরুষাঙ্গ দিয়ে আশার যোনিতে ধাক্কা দিচ্ছে, ঢুকাচ্ছে বের করছে। পাছা খামচে ধরে সে সঙ্গম চালাচ্ছে। আশা আকাশের দিকে ঝুকে আছে।

আশার আরেকটা স্তন এখন খালি। সজিবের ধাক্কায় সেটা আকর্ষণীয় ভাবে দুলছে। আকাশ লোভ সামলাতে না পেরে আরেক হাতে সেটা খামচে ধরলো।
একদিকে সজিবের পুরুষাঙ্গ যোনিতে আরেকদিকে আকাশের কাঁপা হাতের স্তন মর্দনে আশা “আহ আহ ” করতে করতে শরীর কাঁপিয়ে বাঁকা হয়ে গিয়ে রাগমোচন করে ফেললো।

সজিব আশাকে একটু সময় দিলো ধাতস্থ হওয়ার। কিন্তু এদিকে আকাশ প্রথম হাতে পাওয়া রেশম কোমল দুই স্তন ছাড়তেই পারছে না।
” কেমন লাগছে আকাশ বাবু?
কিছুক্ষণ পর আশা বলে উঠলো।

“খু..খুব ভালো লাগছে ভাবী। এমন ভাবে কাউকে পাইনি কখনো। আপনার ব্যাথা লাগছে না তো? ”
যেন হঠাৎ বুঝতে পারলো সে বেশ জোরেই আশার স্তন মর্দন করছে।

“না না, তোমার ভাবী খুব মজা পাচ্ছে। দেখো না কত তাড়াতাড়ি একবার হয়ে গোলো। ” সজিব বলে উঠলো।

“যাহ দুষ্টু! যেভাবে তোমরা শুরু করেছিলে কোন মেয়ে সেই আরাম সহ্য করতে পারবে বলো! আশা বললো।

” তুমি খুব সুন্দর আমার দুধ দুইটাতে আরাম দিয়েছো, খুব মজা পেয়েছি আমি ” আকাশকে আশা বললো।

” এবার উঠো দেখি। হামাগুড়ি দাও। ” সজিব বললো।

আশা উঠে নিচে সজিবের প্যান্ট বিছিয়ে নিলো। তারপর আকাশের সিট ধরে হামাগুড়ি দিয়ে বসলো। এই ভাবে আকাশের পুরুষাঙ্গ একেবারে আশার মুখের সামনে চলে আসলো। আশার গরম নিঃশ্বাস আকাশ তার পুরুষাঙ্গ অনুভব করলো। সজিব আশার পিছনে বসে তার পাছায় কয়েকটা চুমু খেলো, চাটলো। তাতে আশা কেঁপে উঠলো।
” হুমম দাও সজিব, জোরে জোরে দাও, তোমার পছন্দের স্টাইলে। ” আশা বললো।

আকাশ দেখলো সজিব কয়েকবার যোনিতে পুরুষাঙ্গ ঘষে এক ধাক্কায় ঢুকিয়ে দিলো। ধাক্কার কারণে আশার মুখ আকাশের তলপেটে এসে লাগলো। তার পুরুষাঙ্গ আশার লাল টুকটুকে গালে লেগে গেলো। আশার মুখ থেকে বেরিয়ে এলো ” আউ.. উহহ। ” আকাশ চমকে উঠে সজিবের দিকে তাকালো।

সজিব মুখ হালকা খুলে আস্তে আস্তে আশার যোনি থেকে তার দন্ড বের করে আবার জোরে ধাক্কা দিয়ে ঢুকিয়ে দিলো। আবারও একই ভাবে লাগলো। এভাবে কয়েকবার করে তারপর নিয়মিত ছন্দে সঙ্গম করতে থাকলো।

” দেখো তোমার ভাবী কে কাছ থেকে, এভাবে আর পাবা না। ” আকাশকে বললো সজিব।
” কি সোনা! আমাকে আরাম দেওয়ার সাথে সাথে তুমি আকাশকেও আরাম দিতে চাচ্ছো? ” আশাকে বললো সজিব।

“যাহ… তুমিও না..! ” মুখে বললেও সে ঠোট কামড়ে ধরে তাকিয়ে আছে আকাশের শক্ত হয়ে থাকা দন্ডের দিকে।

” তুমি চাইলে আমার সমস্যা নাই, তবে সাবধান….! বেশি করে চাইতে পারবা না। ”
আশাকে বললো সজিব।

আশা মুখ ঘুরিয়ে মুচকি হেসে সজিবের চোখ পড়ে নিলো। তারপর ঘুরে আকাশের পুরুষাঙ্গটি মুঠো করে ধরে নিলো।
আকাশ যেন শক খেলো।

“ওয়াও আকাশ বাবু! বেশ সুন্দর তো। ”

চোখ বড় করে তাকিয়ে আছে আশার দিকে। এ যেন মেঘ না চাইতেই বৃষ্টি। আশার নরম হাতে তার শক্ত পুরুষাঙ্গটি লাফিয়ে উঠলো যেন। “আহহ ” করে উঠলো অজান্তেই। আশা ও তার ভার্জিন পুরুষাঙ্গ পেয়ে খুব করে আদর করতে লাগলো।

“এভাবে কে কে আদর করেছে তোমাকে আকাশ? ” আশা বললো।

“কেউ না ভাবী। … আপনিই প্রথম।

“সত্যি?

“হ্যাঁ ভাবী!

“বাহ বেশ তো, তোমারটা কিন্তু আমার বেশ ভালো লেগেছে।

ওদিকে পিছনে তার যোনিতে সজিবের পুরুষাঙ্গ যাওয়া আসা করছে।
“আহহ, ইশশ, ওহহ ” করতে করতে সে যোনির রস ছাড়তে লাগলো।

আকাশের অবস্থা খুবই সঙ্গীন, যেকোনো সময় তার বের হয়ে যেতে পারে। এমন অসহ্য আরাম তার বেশিক্ষন সইবে না।
এরই মধ্যে হঠাৎ আশা তার পুরুষাঙ্গে চুমা দিতে লাগলো। তারপর মুখে পুরে নিলো।
“আহহ… ভাবীইই…।” বলে গুঙ্গিয়ে উঠলো সে।
আশা পরম আনন্দে একজনের পুরুষাঙ্গ যোনিতে ও একজনেরটা মুখে নিয়ে চুষতে থাকলো।

“কি আকাশ বাবু? কেমন লাগছে? ” মুখ একটু সরিয়ে আশা জিজ্ঞেস করলো।

” আআআ… ভালো ” এতটুকুই বলতে পারলো সে।

” ইশশ, ভার্জিন ছেলেটা কত কষ্ট পাচ্ছে, তোমার কষ্ট চুষে বের করে দিচ্ছি ” বলেই আবার তার দন্ড মুখে নিয়ে এক হাত দিয়ে বিচির থলেটা হাল্কা চাপ দিতে দিতে খুব করে চুষতে লাগলো। এতো জোরে চোষন দিচ্ছে যে আকাশকে পুরা নিংড়ে নিতে চাইছে।

আকাশের শরীরে মোচড় দিয়ে উঠলো। আশার মুখের গরম, আর জিভের ছোঁয়ায় সে অসহ্য সুখে বাঁকা হয়ে সামনে ঝুকে গেলো। দুই হাতে আশার চুল খামচে ধরলো।
“ভাবীইই .. আমার হয়ে যাবো। ছেড়ে দাও..”
আশা না ছেড়ে “উম্মমম ” করে চুষতেই থাকলো। আকাশ বুঝে গেলো তাকে আশা ছাড়বে না।
গুঙ্গিয়ে উঠে “আহ আহ ” করতে করতে সে বীর্য বের করতে লাগলো। আর আশা তা চুষে চুষে মুখে নিতে লাগলো। গলা পার হলো না। কাঁপতে কাঁপতে অনেকগুলো বীর্য আকাশ আশার মুখে ছেড়ে দিলো। তা ঠোট দিয়ে গড়িয়ে পড়তে লাগলো। বীর্য ছেড়ে আকাশ নিস্তেজ হয়ে সিটে হেলান দিয়ে বসে গেলো। আশা এখন জিহ্বা দিয়ে তার পুরুষাঙ্গের মাথা হাল্কা করে আদর করছে..।

এদিকে সজিব বেশ জোরেই তার যৌন দন্ড আশার যোনিতে ঢুকাচ্ছে আর বের করছে। আশার এমন সেক্সি কাজ দেখে সেও চরম উত্তেজিত হয়ে পড়লো।
জোরে জোরে কয়েকটা ধাক্কা দিয়ে যোনির গভীরে তার পুরুষাঙ্গ ঠেসে ধরে চরম সুখে বীর্যপাত করতে লাগলো। বীর্যের গরম ফোটা যোনিতে পড়তেই আশাও গুঙ্গিয়ে উঠে দ্বিতীয় বারের মতো জল ছেড়ে দিয়ে এলিয়ে পড়লো।

তারপর ..।

What did you think of this story??

Comments

Scroll To Top