বেঙ্গলি সেক্স চটি – রাতের ট্রেন জার্নি – পর্ব ৫

বেঙ্গলি সেক্স চটি – রাতের ট্রেন জার্নি – পর্ব ৪

বুঝছে না কিছুই। …..

এদিকে আকাশ পরম শান্তিতে আশার শরীরের স্বাদ নিয়ে যাচ্ছে তার পুরা শরীর ও পুরুষাঙ্গ দিয়ে।

আশার মাংসল, ভরাট ও নরম তুলতুলে পাছা তার তলপেট ও উরুর সাথে লেগে দুলে দুলে উঠছে। আরামে সে আশার দুই স্তন চাপতে চাপতে সঙ্গম করছে।

কিন্তু আশার দুইজনকে একসাথে চাই। একটু আগে একসাথে নিয়ে সে বেশ মজা পাচ্ছিলো। আবার সে ওই মজা পেকে চাচ্ছে।

কিন্তু সেটা করতে হলে কোনো একটা ব্যাবস্থা করতে হবে। আকাশকে তার যোনি থেকে বের করে পাছায় নিতে হবে। কিভাবে সেটা?

হঠাৎ সে বুদ্ধি করে সামনের দিকে ঝুকে গেলো। আর একটু সামনে এগিয়ে গেলো। আকাশ হাতে একটু ঢিল দিয়ে সামনে বাড়তে দিলো। যেন সজিবকে সে চুমু দিতে যাচ্ছে।

যার ফলে আকাশের পুরুষাঙ্গ বেরিয়ে পড়লো।

এবার আশা দেরি না করে সজিবের পুরুষাঙ্গ ধরে তার যোনিতে নিয়ে নিলো। কিছুক্ষণ সজিবকে চুমু খেয়ে নিলো।

এবার সে নিতে পারবে দুইজনকেই।

“আবার ঢোকাও আকাশ! ” একটু উপরে উঠে সে বললো।

আকাশ এবার আশার পাছার ফুটো দেখে তার পুরুষাঙ্গ লাগিয়ে ঢুকিয়ে দিলো। এবারও কিছুক্ষণ আগের অনুভূতির চেয়ে একটু আলাদা লাগলো। এবার যেন আগেরটা ফিরে এসেছে। এটার কারণ সে বুঝতে পারলো না।

শুধু আশাই বুঝেছে ওইটা। তবে যোনিতে আকাশের পুরুষাঙ্গ যাওয়াতে একদিকে ভালোই হয়েছে।
তা হলো, ওইটা তার যোনির রসে পিচ্ছিল হয়ে গেছে। এখন তার পাছায় বেশ যাওয়া আসা করছে।

আকাশ আশাকে আবারও আগের মতো চেপে ধরে সঙ্গম করতে লাগলো।

দুই পুরুষের সুখে আবারও আশা কাঁপতে লাগলো। জল জমা হচ্ছে তার ভিতরে। কখন যেন বেড়িয়ে যাবে।
তার দুই ফুটোতে যেন সব সুখ এসে জমা হচ্ছে।
“ওওও.. আআআ.. “। করে সেই সুখকে সে নিজের ভিতরে টেনে টেনে নিতে লাগলো। দুই পুরুষাঙ্গ কামড়ে কামড়ে ধরছে সে।

আকাশ একেবারে শরীরের সাথে আশাকে পেয়ে প্রচন্ডভাবে উত্তেজিত হয়ে গেছে। আশার তুলতুলে ও গরম শরীরটা চেপে ধরে করতে করতে সে বুঝতে পারলো তার আর বেশিক্ষন থাকা সম্ভব না। তার পুরুষাঙ্গের সাথে সাথে তার হাত, মুখ সমান ভাবে আশার শরীরের মজা নিংড়ে নিয়ে খাচ্ছে।

“আহ ভাবী! মনে হয় আমার বেড়িয়ে যাবে..! ”
“হ্যাঁ, বের করে দাও! আমার ভিতরে..! ” আশা জবাব দিলো। এই সুখের বিন্দুমাত্রও সে ছাড়তে রাজি নয়। সবটুকু তার চাই।
সেটা পুরণ করতে আকাশের বীর্যের স্বাদ তার ফুটোতে নিতে হবে।

কথাটা শুনে যেন হঠাৎ করেই আরাম বেশি বেড়ে গেলো আকাশের। এতো সুন্দরী এক যুবতীর শরীরের ভিতর সে বীর্যপাত করতে যাচ্ছে। কনডম ছাড়াই। বীর্যপাতের সময় সরাসরি আশার স্বাদ পাবে সে।

ভাবতেই সহ্য করতে না পেরে শরীর কাঁপিয়ে বীর্যপাত করতে লাগলো আশার পাছার ভিতরে।

“আহহহ.. ভাবীইইই, আমার হচ্ছে..!
” হ্যাঁ দাও দাও, আমার ভিতরে দাও..!
“দিচ্ছি…ভাবীইই..! ”
বলতে বলতে আকাশ তার পুরুষাঙ্গ পুরাটা ঠেসে ধরলো আশার পাছায়। ছলকে ছলকে তার বীর্য বের হয়ে ঢুকে যাচ্ছে আশার শরীরে। এটা অনুভব করেই শরীরের সব বীর্য যেন চলে আসতে চাইছে।

অনেক সময় ধরে আকাশ বীর্যপাত করতে থাকলো। এই মজা যেন তার পুরুষাঙ্গ শেষ করতে চাচ্ছে না। ভিষন ভাবে লাফাচ্ছে আশার পাছার ভিতর। অনেক বীর্য বের হলো তার। এতো কখনও বের হয়নি।

” আহ আকাশ! দাও দাও… উফফ, এতো শান্তিইই.. উম্মমম। ”

একদিকে আকাশের গরম বীর্যের ছোঁয়া, লাফাতে থাকা পুরুষাঙ্গ। আরেক দিকে যোনিতে সজিবের পুরুষাঙ্গের যাতায়াত। পুরা শরীরের সমস্ত ভালো লাগা এখানে জমা হচ্ছে। কেঁপে উঠে আশা জল ছেড়ে দিলো সজিবের পুরুষাঙ্গের ওপর।

বীর্যপাত শেষ হওয়ার পরও কিছুক্ষণ আশাকে জরিয়ে ধরে রাখলো আকাশ। এতো মজা এই শরীরের ভিতর আছে, কল্পনাও করেনি সে।
তারপর ছেড়ে দিয়ে এলিয়ে পড়লো। স্বপ্নের ঘোরের মতো লাগছে তার।

আশাও পানি ঝড়িয়ে সজিবের গায়ে শুয়ে পড়লো। তার কামণা পূর্ণতা পেয়েছে। আকাশের বীর্য নিজের ভিতরে অনুভব করছে সে।

আকাশের বীর্য আশার পাছার ফুটো দিয়ে চুইয়ে চুইয়ে পড়তে লাগলো। কিন্তু আকাশের চোখ বুজে আসতে লাগলো।
দুর্বল লাগছে তার।
আশা তার শরীর থেকে যেন সবকিছু নিংড়ে বের করে নিয়েছে। তবে এভাবে আবারও নিংড়ে বের হওয়ার জন্য সে সব করতে রাজি।

কোনোমতে নিজের সিটে গিয়ে শুয়ে পড়লো সে।
আধবোজা চোখে সে দেখলো অন্য সিটে সজিব আশাকে নিচে শুইয়ে দিয়ে দুই স্তন মর্দন করতে করতে তার পুরুষাঙ্গ আশার যোনিতে ঢুকিয়ে আস্তে আস্তে উঠানামা করছে।

“উফফ সোনা! আজকে খুব মজা পেয়েছি। অনেক অনেক ধন্যবাদ তোমাকে। ” আশা বললো সজিবকে।
আকাশ ও সজিবকে একসাথে পাওয়ার সুখ, আকাশের বীর্য নিজের ভিতরে নেওয়ার মজা পাওয়ার জন্য পুরা ক্রেডিট সে সজিবকে দিতে চাচ্ছে।

” লাভ ইউ সোনা! ” সজিব বললো।
“লাভ ইউ টু ” বলে পরম ভালোবাসায় তাকে বুকে জরিয়ে নিলো আশা।

“হুমম, করো সোনা। খুব করে খেয়ে দাও আমাকে। আমাকে পূর্ণ করে দাও …..।

আকাশ একটু ঘুমিয়ে পড়েছিলো। খুব ক্লান্তি লাগছিলো তার। শরীরের সব স্বাদ যেন সে উগড়ে দিয়েছে। একাধারে সুখ ও ক্লান্তিতে চোখ বন্ধ হয়ে গিয়েছে আপনাতেই।

কোনো আওয়াজে ঘুম ভেঙ্গে গেলো। ট্রেন ক্রসিংয়ের আওয়াজ।

মিটিমিটি চোখে বাইরে তাকালো। ভোরের আলো ফুটে উঠেছে বেশ। কিছুক্ষণ পরেই সকাল হয়ে যাবে। আড়মোড়া ভেঙ্গে তাকালো আশা ও সজিবের দিকে।

তারা জড়াজড়ি করে ঘুমিয়ে আছে। কারো গায়ে সম্ভবত কাপড় নেই। একটা চাদর ওপর দিয়ে দেওয়া।

আশা সজিবের ওপরে। চাদর থেকে শরীরের একপাশ কিছুটা বেরিয়ে গেছে।
ফর্সা উরু, পাছার একাংশ, ও একটা স্তন দেখা যাচ্ছে তার।

দেখতে থাকলো আকাশ। ঘুমন্ত মুখটাও খুব মায়াবী লাগছিলো। প্রচন্ড টান অনুভব করলো আকাশ।

উঠে গিয়ে ছুয়ে দেখতে থাকলো বেশ কিছুক্ষন। হাত ছোঁয়াতে ছোঁয়াতে আকাশ তার শরীর থেকে চাদর আলগা করে দিয়েছে। আশা যেন আরাম পেয়ে আরো ভালো করে ঘুমাচ্ছে।

আকাশ এবার সব জায়গায় হাত দিতে থাকলো। স্তনে চুমু দিতে থাকলো। টিপতে, কামড়াতে থাকলো। সে যেন নিজের আয়ত্তে নেই।

একহাত আশার যোনিতে দিয়ে নাড়তে থাকলো। ভেজা ভেজা লাগলো। হয়তো ঘুমের মধ্যেই আশা মজা পাচ্ছে। হালকা নড়ে উঠলো আশা। কিন্তু আকাশ তাতে থামলো না। চুষে কামড়ে আশার থেকে মজা নিতে থাকলো।

হঠাৎ আশা জেগে উঠলো।

“উম্মমম আকাশ! ঘুম ভেঙ্গে গিয়েছে? ”
আকাশের দিকে তাকিয়ে তার কামনা ভরা চোখ তার দিকে দেখে আশা জিজ্ঞেস করলো।

“হ্যাঁ ভাবী! ” জবাব দিয়ে আকাশ আশার ঠোটে নিজের ঠোট চেপে ধরলো।
হালকা “উম্মম ” শব্দে ঠোট মুখে নিয়ে চুষতে লাগলো!

“আবার তুমি প্রস্তুত দেখছি! ” মুচকি হেসে আশা বললো।
“তোমার সিটে চলো আকাশ। তোমার ভাইয়ার ডিস্টার্ব হবে। ”

“আচ্ছা চলেন ভাবী। ” বলে আকাশ সরে গেলো।
আশা আস্তে করে উঠে চাদর টা সজিবের গায়ে দিয়ে দিলো।
তারপর উঠে আকাশের সিটে গিয়ে চিত হয়ে শরীর এলিয়ে দিলো।
আকাশ আশার শরীরে উঠে গেলো। নির্দ্বিধায় সে আবার আশার মজা নিতে লাগলো।

“ঘুম কেমন হলো তোমার?
“ভালো ভাবী! ” আকাশের শরীর কাঁপছে।
বুঝতে পারছে সে এখন একা একা আশাকে ভোগ করতে যাচ্ছে। আর আশাও সেজন্য প্রস্তুত হয়ে পরেছে।

“তোমার গায়ে এখনও কাপড় আছে! দেখো তো আমার গায়ে নেই! ” আশা বললো।
আকাশ একথা শুনে ঝটপট তার কাপড় খুলে ফেললো।
তার যেন তর সইছে না! আশাকে টিপতে টিপতে, চুষতে চুষতে দুই পা টেনে ফাকা করে সে তার গায়ের ওপর শুয়ে পরলো। ঘুম থেকে উঠে যেন সে আরো বেশি উত্তেজনা বোধ করছে।

এদিকে আশা ক্লান্ত শরীরে আকাশের এমন দুর্দান্ত আদর পেরে সুখে “উহ আহহ আকাশ..” বলে যাচ্ছে।

” একটু আস্তে আকাশ! তুমি তো পাগল হয়ে যাচ্ছো! ”
“হ্যাঁ ভাবী! আমি পাগল হয়ে যাচ্ছি.. এতো মজা তোমার..”
“সত্যি?
“হ্যাঁ সত্যি!
“উম্মমম, নাও ভালো করে মজা নাও! ”
“হুমমম, মনে হচ্ছে তোমাকে খেয়ে ফেলি! ”
আশাকে এখন সে “তুমি ” করে বলছে সে।

“নিষেধ করেছি নাকি! ”
“উফফ, ভাবীইহ! ”

আকাশ সহ্য করতে না পেরে এক হাতে তার পুরুষাঙ্গ ধরে আশার যোনিতে ঢুকাতে গেলো। কিন্তু ঠিক জায়গায় না যাওয়াতে ঢুকলো না। আশা একটু ককিয়ে উঠলো।

“থামো আকাশ ”
বলে আকাশকে থামিয়ে দিয়ে আশা হাত দিয়ে আকাশের পুরুষাঙ্গ ধরে নিজের যোনিতে ঘষতে লাগলো। কিছুটা ভিজলে আকাশকে বললো।

“এবার দাও আকাশ! আস্তে আস্তে!
তাড়াহুড়া করো না, তাহলে মজা পাবে না। ”
“আচ্ছা ভাবী! ”

তবুও একটু জোড়েই আকাশ আশার যোনিতে তার পুরুষাঙ্গ ঢুকিয়ে দিলো।

আশা “আহহ ” করে উঠে আকাশকে জরিয়ে ধরলো।
আকাশ একটু থেমে গেলো।

আশার একটু ব্যাথা লাগলেও সে প্রচন্ড উত্তেজিত হয়ে পড়েছিলো। সে কোমর নাড়িয়ে আকাশকে পুরাপুরি নিজের ভিতর নিয়ে নিলো। তারপর নিচ থেকে ধাক্কা দিতে লাগলো। মুখে “উম্মমম, আহহ.. ইশশ! ” জাতীয় শব্দ বের হচ্ছে তার।

আকাশ এবার কোমর উঠানামা শুরু করলো। সুখের আবেশে দুইজন দুইজনকে ঝাপটে ধরে আছে। তাই কোমর উঠানামায় বেশি জোর পাচ্ছে না আকাশ।

আশা বুঝতে পেরে একটু ঢিল দিলো। তারপর তার অভিজ্ঞতায় আকাশকে চার হাত পায়ে ধরলো।
এভাবে আকাশ ভালো ভাবে আরাম করে সঙ্গম করতে পারবে।

“করো আকাশ! তোমার ভাবীকে করো! আহ আহ.. হ্যাঁ এভাবে! জোরে জোরে! ”
নিচ থেকে আশা ধাক্কা দিতে দিতে বলছে।

“হ্যাঁ ভাবী! করছি! আহ!! কত সুন্দর আর নরম তোমার শরীর! তোমার যোনিটা খুব নরম! খুব মজা পাচ্ছি। ”

থপথপ আওয়াজে তাদের সঙ্গম চলতে থাকলো।
আশা আকাশ দুইজনই মুখে সুখের আওয়াজ করছে। আওয়াজকে কেউ আটকাচ্ছে না। হালকা কথা বলতে বলতে সঙ্গম চালাচ্ছে। উভয়ই ভালো লাগা অপরজনের কাছে প্রকাশ করছে।

হালকা স্বরে আশার কথা আকাশকে চুড়ান্ত পর্যায়ে নিয়ে যাচ্ছে।
আশাও সুখে প্রচণ্ডভাবে শরীর মোচড়াচ্ছে।

একবারও না থেমে তারা ছুটে যাচ্ছে চরম সিমার দিকে।

তবে এবারেরটা যেন শেষ হতে চাচ্ছে না। অনেক্ষণ হলো চলছেই।

মাঝে আশাই আকাশকে দুই একবার থামিয়ে দিয়ে বিশ্রাম দিয়েছে। তবে পুরুষাঙ্গ ভিতরে থাকতেই।
আগের সঙ্গমগুলোতে শরীরের অনেক রস বেরিয়ে যাওয়াতে এবার অনেক্ষণ তারা উভয়কে তাড়িয়ে তাড়িয়ে উপভোগ করলো।

একসময় বুঝতে পারলো তাদের চুড়ান্ত সময় উপস্থিত।

“আহ ভাবীইই! আমি শেষ হয়ে যাচ্ছি.. আমার হবে!
“হ্যাঁ দাও! আজকে আমার ভিতরে তুমি ঝরিয়ে দাও! তোমাকে নিতে চাই আমি! ”
“সত্যি ভাবী!
“হ্যাঁ সত্যি!
“কোনো সমস্যা হবে না তো?
“না হবে না! আমি পিল খাই! দাও তুমি!
আমারও হবে! আহ আহ ইশশ… আহহহ! ”
করতে করতে আশা জল ছেড়ে দিলো।

আকাশ আশার যোনির গরম ছোঁয়া আর কাঁপুনিতে “আহহহ… ভাবীইইই ” বলতে বলতে তার বীর্য আশার যোনিতে বের করে দিলো। ….

সুখের আবেশে আশাকে জড়িয়ে রাখলো। কতক্ষণ? জানে না। ছাড়তেই যেন ইচ্ছা করছে না।
আকাশের শরীরের ভারে আশা একটু নড়ে উঠলো অনেক্ষণ পর। আকাশ উঠে আশার মুখের দিকে তাকলো। স্পষ্ট তৃপ্তির ছাপ সেখানে।

মুগ্ধ হয়ে তাকিয়ে থাকলো দুইজন দুইজনের দিকে। আকাশের পুরুষাঙ্গ এখনও আশার যোনির ভিতরে..।
একটু পর বেরিয়ে আসলো। তারপর তারা আলাদা হয়ে গেলো।

বাইরে বেশ ফর্সা হয়ে গেছে। পনের বিশ মিনিটে তারা গন্তব্যে পৌছে যাবে।
আকাশ তার সবকিছু ঠিকঠাক করে নিলো।
ওদিকে আশা ও সজিবও তৈরি হয়ে নিচ্ছে।

পুরা সময়টা যেন আকাশের কাছে স্বপ্ন মনে হলো। স্মৃতিময় একটি রাত। এতো সুখের পরশ সে পাবে কোনোদিন আশা করেনি।
বারবার তার মন আশাকে নিজের করে পেতে চাচ্ছে। কেমন যেন মায়া লেগে যাচ্ছে তার প্রতি। নারীর প্রতি তার দূর্বলতা প্রচন্ডভাবে টেনে নিচ্ছে তাকে।
কিন্তু না। এটা তার না। অন্য কারো। ভাবতে খুব কষ্ট হচ্ছে যে তাকে ছেড়ে চলে যেতে হবে। কিন্তু যেতেই হবে। যার কাছে এতটা সুখ সে পেয়েছে, তার আপনজনের সাথে তাকে সুখি দেখতেই ভালো লাগবে। তার দ্বারা এমন কিছু যেন না হয়ে যায় যার কারণে তার সুখের মুহুর্তের মানুষটা আপন স্বামীর সাথে অসুখী না হয়, এটাই তার কাম্য।

আরো মায়া লাগার আগেই সে আশা ও সজিবের কাছ থেকে বিদায় নিয়ে দরজার দিকে এগিয়ে গেলো। ট্রেন থেকে নেমে নিজ গন্তব্যের দিকে চললো।

সমাপ্ত।

What did you think of this story??

Comments

Scroll To Top