বৌদি প্রেম – পর্ব ১

This story is part of a series:

দুদিন হল শিফট করেছি আমার নতুন ঠিকানায়। না বাড়ি থেকে তাড়িয়ে দেয়নি, এখানে থাকতে হচ্ছে পড়াশোনার জন্য। কলেজের পাশে মেস পাওয়া গিয়েছিল কিন্তু মেসে থাকলে ছেলেমেয়েরা খারাপ হয়ে যায় বদ সঙ্গে পড়ে, এই ভেবে বাবা মা মেসে দেননি। তবে এখানেও মেসের থেকে ভালই আছি আমি। বাড়ির তিনতলার একদিকে দুকামরা ঘর আর অ্যাটাচ বাথরুম। রান্নার ব্যবস্থা নেই, তাই পাশের পাইস হোটেল খাবার অনিয়ে নিই। দিব্যি ব্যবস্থা। মানিয়ে নিতে কোনো অসুবিধাই হয়নি। বাড়ির মালিক অনির্বাণদা ডাক্তার। যথেষ্ট হেল্পফুল। এর মধ্যে যতবার দেখা হয়েছে প্রত্যেকবার কুশল জিজ্ঞাসা করেছে। যাইহোক, নতুন জায়গা শুয়েবসে কাটাব না বলে জিন্সের ওপর কুর্তাটা চাপালাম বের হব বলে। উদ্দেশ্য জায়গাটা একটু ঘুরে দেখা।

দরজাটা লক করে নিচে নামছি, এমন সময় দোতলার কাছে সিড়িতে পায়ের শব্দ পেলাম। বৌদি মানে অনির্বাণদার স্ত্রীও দরজা লক করছে । আমাকে দেখেই পরিচিত কায়দায় হালকা হেসে জিজ্ঞেস করল, “বেরোচ্ছ নাকি? ”
ভদ্রতাসূচক হেসে আমি বললাম,“ হ্যা বেরোচ্ছি একটু, পড়া শুরু হয়নি এখনও, যাই এদিক ওদিক ঘুরে আসি। তুমিও বেরচ্ছ ?”
“হ্যা কয়েকটা শপিং বাকি আছে, করে নিয়ে আসি ”
“ একাই? ”
“তোমার দাদার আর সময় কোথায় বলো ? ”
“ ইফ ইউ ডোন্ট মাইন্ড আমি কি আসতে পারি তোমার সাথে ? আমার কাজ নেই তেমন, ফ্রিই আছি। ”
“ এবাবা মাইন্ড করবে কেন, চলো কোনো ব্যাপার না, বরং একটু সময় কাটানো যাবে তোমার সাথে। ”

বেরোলাম বৌদির সাথে। বৌদি টোটো নিচ্ছিল, আমি বললাম,“ খুব দুর না হলে হেঁটেই চলো না, সময় বেশি পাওয়া যাবে।” ফুটপাথ ধরে পাশাপাশি হাঁটছি আমরা। টুকটাক কথাবার্তা চলছে। সত্যি বলতে কি বৌদিকে পাশে নিয়ে হাটতে আমার খুব ইচ্ছা করছিল। গোলগাল সুশ্রী ফর্সা মুখে হালকা মেকাপ। স্বাস্থ্য ভাল, লম্বায় আমার থেকে প্রায় চার ইঞ্চি ছোট। সবথেকে আকর্ষনীয় হল বৌদির ফিগার। প্রায় 38 সাইজের ভরাট দুটো মাই। আর কোমর দুটো 40 হবে। সেই তুলনায় কোমরটা অনেক সরু, 28 কি 30 হবে। মেরুন কালারের শাড়িতে বৌদিকে যা লাগছিল কি বলব। এরকম বৌদি পেলে কে না সঙ্গে যেতে চায়।
ভিড় ফুটপাথে আমাদের শরীরে ছোয়া লাগছিল মাঝে মাঝে। বৌদির হাতের সাথে আমার হাতটাও লেগে যাচ্ছিল বারবার। খুব ইচ্ছা করছিল বৌদির হাতটা ধরতে। এইসব বিষয়ে আমি বরাবরই সাহসী। একটু সময় নিয়ে ধরলাম একটা হাত। বৌদি দেখলাম একটু চমকে উঠল। তারপর কাছে ঘেঁষে আসল আমার। হালকা করে কানে ফিসফিস করে বলল, “ লোকের বউএর দিকে এত নজর কেন।” আমি বৌদির দিকে তাকালাম। অন্যদিকে মুখ ঘুরিয়ে মুচকি মুচকি হাসছে। আড়চোখে একবার দেখে নিল আমাকে। তারপর নিজে থেকেই আলতো করে হাতটা বাড়িয়ে দিল আমার হাতের দিকে।

হাতটা চেপে ধরে পাশাপাশি হাটতে লাগলাম। বৌদির হাতের উষ্ণ কোমল স্পর্শ পাচ্ছে আমার শক্ত পুরুষালি হাত। বৌদির কোনো আরষ্টটা নেই, বরং যেন এটাকে আরো এঞ্জয় করছে মনে হল।

আমরা প্রথমে একটা মলে ঢুকলাম। বৌদি কয়েকটা মাসকাবারি বাজার করল, আমি ঘুরে ঘুরে দেখছিলাম। যদিও অন্যান্য জিনিসের থেকে বৌদির দিকেই আমার নজর ছিল বেশি। পেছন থেকে বৌদির ফিগারটা সত্যি মাশাআল্লাহ লাগছিল। মলের অনেকেই বারবার তাকাচ্ছিল বৌদির দিকে। এমনকি বিল দেওয়ার সময় কাউন্টারেও দেখলাম ছেলেটা যেন চোখ দিয়ে গিলে খাচ্ছে বৌদিকে।

সেখান থেকে আমরা একটা কফিশপে গেলাম। কোনার দিকে একটা টেবিলে বসে দুটো কফি আর স্ন্যাকস অর্ডার দিলাম আমরা।
বৌদিই কথা শুরু করল, “তারপর বলো, অন্যের বউকে নিয়ে কফিশপে এসে কেমন লাগছে তোমার ? ”
আমি হেসে বললাম, “ তুমি শুধু অন্যের বউ অন্যের বউ করছ কেন? বৌদিও তো বলতে পার।”
বৌদি কপট রাগ দেখিয়ে বলল,“ আমি অন্যের বউ না তো কি তোমার বউ নাকি ? ”
“তোমার ইচ্ছে হলে হতেই পারো, আমার কোনো আপত্তি নেই। ”
“ ইসস তোমার বউ হতে যাব কেন? আমার বর নেই? ”

কফিতে চুমুক দিয়ে বললাম, “বউ না হতে চাইলে প্রেমিকাও হতে পারো, এখন তো আর অবৈধ সম্পর্ক ইললিগ্যাল নয়।”
“ শেষপর্যন্ত এই বুড়িটাকে প্রেমিকা বানাবে ? ”
“ তোমাকে দেখে কচি মেয়েরাও লজ্জা পেয়ে যাবে।”
“কি দেখে লজ্জা পাবে শুনি?কি গুণ আছে আমার?”
“ যদি বলি সৌন্দর্য আর অভিজ্ঞতার পারফেক্ট সংমিশ্রণ ?”
বৌদি চোখ পাকিয়ে বলল, “ অ্যাই, কিসের অভিজ্ঞতার কথা বলছ হ্যাঁ?”

আমি কিছু না বলে হাসতে লাগলাম। বৌদিও হাসছে। কফি শেষ করে উঠলাম আমরা। বিলটা আমিই পে করলাম। বৌদি আপত্তি করছিল, আমি বললাম এটা আমাদের ফার্স্ট ডেট, আমিই পে করব। বৌদি শুধু উম্মম করে একটা প্রশংসাসূচক আওয়াজ করল। বিল মিটিয়ে আমরা ক্যাবে উঠলাম।

ক্যাবে আমি আর বৌদি পাশাপাশি বসেছি। বেশিদূর যাব না। রাস্তায় জ্যাম না থাকলে দু-তিন মিনিট লাগবে পৌঁছতে। ক্যাবের ভেতরটা অন্ধকার। সরকারি লাইটের আলো পৌঁছচ্ছে না ক্যাবের কাচের জানালা ভেদ করে। এর মধ্যে আমার মাথায় একটা দুষ্টুবুদ্ধি এল। বৌদির শাড়ির আঁচল সরিয়ে হাতটা গলিয়ে দিলাম বৌদির মসৃণ পেটে। বৌদি অবাক হয়ে তাকাল আমার দিকে। বোধহয় এতটাও আশা করেনি আমার থেকে। আসতে করে আঁচল ঠিক করার ভান করে আমার হাতটা সরিয়ে নিল পেট থেকে।

আমি দমলাম না, আবার হাত দিলাম বৌদির পেটে। বৌদি আর বাধা দিল না, চোখ বন্ধ করে উপভোগ করতে লাগল আমার আদর। আসতে আসতে আমার আঙ্গুলগুলো খেলা করতে থাকল বৌদির পেটে, আর সুরসুড়ি দিতে লাগলাম বৌদির গভীর কুয়োর মত নাভির ভেতরে। মাঝবয়সী ক্যাব ড্রাইভার নিজের মত গাড়ী চালাচ্ছে। ওর এদিকে কোনো ভ্রুক্ষেপই নেই। বৌদির শ্বাস ভারী হয়ে উঠেছে। মনে হয় জল খসছে বৌদির। বৌদির পেট দিয়ে উঠে ব্লাউজের নিচ দিয়ে ভেতর হাত গলিয়ে দেব এমন সময় ড্রাইভার গাড়ী থামিয়ে বলল চলে এসেছি।

মেজাজটা খিচড়ে গেল। কত কষ্ট করে আস্তে আস্তে নিচের হুকটা খুলে একখানা আঙ্গুল ঢুকিয়েছিলাম ব্লাউজের ভেতর। আর কুড়ি সেকেন্ড পেলেই বৌদির স্তন এতক্ষণে থাকত আমার হাতের মুঠোয়। ভীষন রাগ হচ্ছে ড্রাইভারের ওপর। মনে মনে ওর চোদ্দো গুষ্টিকে খিস্তি দিয়ে নেমে এলাম ক্যাব থেকে। ক্যাব চলে গেল ভাড়া নিয়ে। সামনে দিয়ে ফিক ফিক করে হাসতে হাসতে বৌদি এগিয়ে গেল। আসলে বৌদিও বুঝতে পেরেছে আর একটু সময় পেলেই আমি কবজা করতে পারতাম বৌদির গোপন সম্পদ। আর পারিনি বলেই এখন পরাজয়ের পরিহাস। কি আর করা, এগিয়ে গেলাম বৌদির পেছন পেছন। আমার রুম দোতলায়, বৌদির তিনতলায়। দোতলার সিঁড়ি থেকে প্যাসেজ দিয়ে আমি আমার রুমে ঢুকতে এমন সময় হাত নাড়িয়ে বৌদি ডাকল আমাকে।

“ এই তোমার নামটাই তো জানা হল না। ”
“ সোহম ” হেসে বললাম আমি, “ তোমার? ”
“ অর্পিতা , তুমি নাহয় অর্পি বৌদি বলেই ডেকো।”
বলেই সিনেমার মত মুখ ঘুরিয়ে ঘরে ঢুকে গেল ভারী পাছা দোলাতে দোলাতে।

What did you think of this story??

Comments

Scroll To Top