এক গৃহবধুর পার্সোনাল ডায়েরি – দ্বিতীয় পর্ব

This story is part of a series:

৩ রা ফেব্রুয়ারি

রাই এর অনুরোধে তিন ঘণ্টা একটা অভিজাত স্যালন পার্লারে গিয়ে নিজের রূপের পরিচর্যা করলাম। তিন ঘণ্টা তেই আমার লুক একেবারে ওরা চেঞ্জ করে ছেড়েছিল। অনেক নামী দামি বিদেশি কসমেটিকস ইউজ করে আমার লুক যত টা আকর্ষণীয় করা যায় সেটা ওরা করে দিয়েছিল। আমার লম্বা চুল ছেটে কাধের কাছে অবধি নিয়ে আসা হলো। চোখের ভুরু ও কেটে সরু করে সেটা ব্ল্যাক করা হলো। আমার চোখের মনির রং টাও পাল্টানো হলো। আমি বাড়িতে এসেও আমার ট্রান্সফর্ম রূপের জন্য বেশ সমাদর পেলাম। আমার ছেলে তো বলেই ফেললো, মম ইউ আর লুকিং হট লাইক অ্যাকট্রেস।” আমার ট্রান্সফর্ম হওয়া শুরু হতেই আমার ছেলে আমাকে মার বদলে মম বলে সম্মোধন করা আরম্ভ করেছিল।

৪ ই ফেব্রয়ারি

আজ আরো একটা ক্লিয়েন্ট মিটিং অ্যাটেন্ড করলাম। এই বারের মিটিং এর ভেনু ছিল একটা ফাইভ স্টার হোটেলে র আলিশান কামরা। এবারের ক্লায়েন্ট একজন বাঙ্গালী ছিল। আমি যখন ঐ পার্টির রুমে এসে উপস্থিত হই উনি বাথ সুইট পরে সোফায় গা এলিয়ে আধ শোয়া অবস্থায় সিগারেট স্মোকিং করছিলেন। আমাকে দেখে উনি ওনার সামনে থাকা সোফায় বসতে বললেন। তারপর আমি যখন ওনার দেওয়া প্রজেক্টের ডিটেইল আমার ফাইল দেখে পড়তে শুরু করলাম। উনি নিজের জায়গা থেকে উঠে এসে আমার ঘাড়ের খুব কাছে এসে আমার কথা শুনতে শুনতে আর ফাইল এর দেওয়া তথ্য মিলিয়ে নিচ্ছিলেন। আমার কানে ওনার গরম নিশ্বাস স্পষ্ট অনুভব হচ্ছিল।

উনি আমার কথা শুনতে শুনতে বার কয়েক আমার চুলের শাম্পুর সুগন্ধ শুকলেন। আমার অস্বস্তি মিনিটে মিনিটে বাড়ছিল। তাও আমি মনের সাহস অটুট রেখে নিজের কাজ করে যাচ্ছিলাম। মিনিট পাঁচ এই ভাবে চলার পর আমি যখন ফাইলের শেষ পাতা টি খুলেছি এমন সময় ঐ ক্লায়েন্ট আমার কাঁধে নিজের দুটো হাত রাখলেন। বেশ শক্ত করে আদর করবার ভঙ্গিতেই উনি আমার কাঁধ ধরেছিলেন। আমি চমকে উঠে হাতের ফাইল টা নিচে ফ্লোরে ফেলে দিলাম। আমার স্তম্ভিত শরীরী ভাষা দেখে ঐ ক্লায়েন্ট কিছুটা অনিচ্ছাকৃত ভাবেই আমার কাঁধ থেকে হাতটা সরিয়ে নিলেন।

আমি সোফা থেকে উঠে পরলাম। আমার ইতস্তত অপ্রস্তুত ভাব দেখে ঐ ক্লায়েন্ট বলে উঠলেন, ” হম্ কর্পোরেট দুনিয়ায় কাজ করবার অভিজ্ঞতা বিশেষ নেই বলে মনে হচ্ছে। রাই কে আমি অনেক বছর ধরেই চিনি। সে তোমার মতন একজন অনভিজ্ঞ কে কি করে এত বড় একটা প্রজেক্টের দায়িত্ব দিল সেটা ভেবে আমার অবাক লাগছে। অবশ্য রাই যখন তোমাকে নিয়েছে কিছু একটা ভেবে ই নিয়েছে। যাই হোক আজকের মিটিং এখানেই শেষ করছি। আমি যা বলবার রাই কে কল করে বলে দেব। তবে একটা কথা মাথায় রাখো, পরের বার যখন তুমি আসবে পুরো পুরি তৈরি হয়ে ই আসবে। ওকে?”

আমি মনে অদ্ভুত দোদুল্যমানতা নিয়ে ঐ ফাইভ স্টার হোটেল থেকে রাই এর অফিসে গেলাম। অফিসে গিয়ে অবাক কাণ্ড। রাই আমাকে কথা শোনানোর বদলে, আমি আসতেই জড়িয়ে ধরলো।

মল্লিকা , তুই আজ কামাল করে দিয়েছিস, মিস্টার চৌধুরী আমাদের এই প্রজেক্টে ইনভেস্ট করতে রাজি হয়ে গেছেন। ব্র্যান্ড প্রমশনের জন্য মোট চারটে ফোটো সিরিজ স্যুট করা হবে। মিস্টার চৌধুরী র ইচ্ছা তার মধ্যে অন্তত দুটো টে যেখানে আমরা স্টাইলিশ ডিজাইনার শাড়ী ব্লাউজ প্রমোট করছি সেখানে তুই মডেল হিসাবে কাস্ট হবি। আমিও এরকম ই একটা প্ল্যান ভেবে রেখেছিলাম। মিস্টার চৌধুরী যেনো আমার মনের কথা জানতে পেরে কল টা করেছিলেন। সত্যি তো তোর মতন ফ্রেশ এক জন বিউটি থাকতে বাইরের কাউকে নেওয়ার কোনো মানেই হয় না।

আমি ওর কথা বিন্দু বিসর্গ কিছু বুঝতে পারলাম না। আমি জিগ্গেস করলাম কি যা টা বলছিস, মাথা খারাপ হয়ে গেছে, আমি আর মডেলিং। অসম্ভব। রাই আমাকে হাগ করে আশ্বস্ত করে বললো, ইয়েশ মাই ফ্রেন্ড আমি ঠিক ই বলছি, তোর মতন ফ্রেশ ঘরোয়া সুন্দর মুখের বেশ ভালো ডিমান্ড আছে। শাড়ী তে তোর এই ফিগারে ফাটাফাটি মানাবে। এই প্রজেক্ট তোর থেকে ভালো অপশন এই মুহুর্তে খুঁজে পাওয়া মুশকিল আছে। মিস্টার চৌধুরী র তাড়া আছে। উনি এক মাসের মধ্যে চারটে ফোটো সিরিজ শুট কমপ্লিট করে প্রোজেক্ট টা মিটিয়ে নিতে চাইছেন। ড্রেস অ্যান্ড স্টাইল সেট আপ অলমোস্ট রেডী। এখন তুই হ্যা বললেই আমরা আসছে মঙ্গল বার থেকে শুটিং আরম্ভ করে দিতে পারি নি। তুই নিশ্চিত চাইবি না পেশাদার জগতে আমার দুর্নাম হোক। আমি এটা তিন দিনের মধ্যে ফাইনাল না করলে আমার রাইভাল কোম্পানি কাজ টা পেয়ে যাবে। আমার গত এক বছরের পরিশ্রম মাটি হয়ে যাবে।

আমি বললাম, ” কিন্তু আমি কি করে মডেলিং…আমি পারবো না …আমার বর জানলে কি ভাবে নেবে জানি না। আমি পারবো না…

রাই কিছুটা কড়া গলায় বলল, কম অন মল্লিকা ট্রাই তো করে দেখতে ক্ষতি কি। আমি জানি ভালো করে তুই কি পারবি আর কি পারবি না। নিখিলেশ দা কে আমি ঠিক ম্যানেজ করে নেব। তুই সব কিছু আমার উপর ছেড়ে দে।

আমার কোনো কথা রাই আর শুনলো না। ওর পরবর্তী প্রজেক্টের জন্য মডেলিং করতে সেদিনই আমাকে এক প্রকার রাজি করিয়ে ফেললো।

৫ ই ফেব্রুয়ারি

আমার বাড়িতে এসে রাই আমার বরের সঙ্গে শেষ মেষ খুব ভাব জমিয়ে ফেললো। আমি ওকে ডিনারে ডেকেছিলাম। আমার স্বামী নিখিলেশ দামি বিদেশি ওয়াইন খুব পছন্দ করতো। বিভিন্ন অকেশন এলে অথবা উইকএন্ড পার্টি টে ড্রিংক করতো। রাই উপহার হিসেবে সব চেয়ে বেস্ট ওয়াইন এর একটা বোতল সাজিয়ে এনে নিখিলেশ এর হাতে দেয়। ওতো দামী ওয়াইন পেয়ে নিখিলেশ একেবারে খুশ হয়েগেছিল। এরপর মিষ্টি কথায় হেসে হেসে আমার স্বামীর কাছ থেকে আমার মডেলিং এর ব্যাপারে সম্মতি আদায় করে নিতে রাইয়ের মতন চাল বাজ মহিলার বিশেষ বেগ পেতে হয় না।

ডিনার সেরে ছেলে আমাদের কে গুড নাইট বলে শুতে নিজের ঘরে চলে যেতেই, রাই এর প্রচ্ছন্ন মদতে আমার স্বামী ঐ নতুন উপহার হিসেবে আনা ওয়াইন বোতল খুলে যথেষ্ট পরিমাণে ড্রিংক করে বোতল টা প্রায় খালি করে দিয়েছিল। সাথে আমরা দুজন এও নিখিলেশ কে সঙ্গত করেছিলাম। আমি একটা পেগ নিয়েছিলাম। আর রাই দুটো পেগ নিয়েছিল।

আমার চোখের সামনে রাই আমার বর কে সম্মোহন করে নিজের প্রতি আকৃষ্ট করে নিয়েছিল। আমি একটা ছোট কাজ ছাড়তে কিচেনে গেছিলাম। ফিরে এসে দেখি রাই নিজের জায়গা থেকে উঠে আমার বরের পাশে গিয়ে তার গায়ে গা লাগিয়ে বসেছে। সেই সময় নিখিলেশ মাতাল হয়ে সোজা হয়ে বসে থাকতে পারছিল না। সে কিছুটা রাই এর দিকেই হেলে পড়ে ছিল আর রাই ওর খালি হয়ে আসা গ্লাসে সূরা ঢালতে ঢালতে বললো , নিখিলেশ দা, তুমি আমার বেস্টি মলির বর বলে বলছি না। ভীষণ ভালো লাগে তোমাকে। তোমার মতন সাচ্চা মানুষ আজকাল কার দুনিয়ায় খুব একটা পাওয়া যায় না।” মলি কে নিয়ে আমার ফ্ল্যাটে মাঝে মাঝে আসতে পার তো, জানো তো আমি একাই থাকি।”

নিখিলেশ ওর হাত থেকে গ্লাস টা নিয়ে ঢক ঢক করে পুরো গ্লাস শেষ করে বললো, মলি খালি তোমার কথাই বলে। তুমি এক কাজ করো তোমাদের এই প্রোজেক্ট এর কাজ টা হয়ে গেলে আমাদের এখানে চলে এসে বেশ কয়েক দিন কাটিয়ে যাও। রাই নিখিলেশ এর শরীরের আরো একটু কাছে গিয়ে বললো, ” তুমি যখন বলছ আসবো। আসতেই হবে। তবে এখন আমায় ছারও, ঐ দেখ বউ এসে গেছে, আমাকে ছেড়ে ওকে ধরো।”

তারপর আমার দিকে তাকিয়ে বললো কিরে মলি আয় চল নিখিলেশ দা কে আমরা দুজনে মিলে বেডরুমে নিয়ে যাই। বড্ড বেশি খেয়ে ফেলেছে আজকে।”

আমি আর কথা না বাড়িয়ে রাই এর সঙ্গে ধরাধরি করে নিখিলেশ কে বেডরুমের ভেতর নিয়ে গেলাম। ওকে বিছানায় শুইয়ে দিয়ে আমাকে রুমের এক পাশে টেনে এনে বললো, ” পারমিশন পেয়ে গেছো এই বার তোর কাজ করতে কোনো বাধা নেই।,” আমি জবাবে চুপ করে ছিলাম। ও আমাকে উৎসাহ দিয়ে বললো। ” সেদিন যে নাইট ড্রেস টা কিনলাম পছন্দ করে, সেটা বার করে পর। নিখিলেশ দা আজ গরম হয়ে আছে। বিছানায় তোকে আজ পুরো ছিড়ে খাবার মুড এ আছে। আজকে রাতে র মত সুযোগ বার বার পাবি না। তোর রূপের আর ভালোবাসার বাঁধনে নিজের স্বামী কে এমন ভাবে বেঁধে ফেল। যা করতে চলেছিস সেই বিষয়ে কোনো প্রশ্ন করতে না পারে। আর তোর সেই বাঁধন আলগা পরলেই আমি তো আছি। হি হি হি… নে তোরা শুয়ে পর আমি বাড়ি যাচ্ছি।.”

বাইরে এসে রাই কে বিদায় জানিয়ে আমি যখন চেঞ্জ করে নাইট ড্রেস টা পড়ে বিছানা র পাশে ড্রেসিং টেবিলের সামনে এসে নিজের চুল টা ঠিক করে আছরে ক্লিপ টা আটকেছি। হটাৎ পিছন থেকে আমার স্বামী এসে আমাকে জাপটে জড়িয়ে ধরলো , ও রাই এর যাওয়ার আর আমার ওর কাছে আসবার অপেক্ষা তেই শুয়ে ছিল। আমি প্রথমে ওকে ” কি করছো ছাড়ো না, কি দুষ্টুমি হচ্ছে।”

নিখিলেশ: না ছাড়বো না, হট বন্ধু কে বাড়ি টে ডেকে নিয়ে এসে আমাকে গরম করে দিয়ে এখন বলা হচ্ছে, আমাকে ছাড় না।”

আমি বললাম উফফ আমার লাগছে…আমি পালিয়ে যাচ্ছি না। বিছানায় আসছি শুতে এখন তো ছাড়। নিখিলেশ, না ছাড়বো না আগে কথা দাও আমার কটা আবদার তুমি রাখবে। আমি: কি আবদার শুনি?

নিখিলেশ: প্রথমত এবার থেকে আমাকে বাড়িতে নিয়মিত ড্রিঙ্ক নিতে দেবে। আমি : ঠিক আছে তুমি যখন চাইছো খাবে। তবে ছেলের সামনে মদ খাওয়া চলবে না। নিখিলেশ: গুড, দ্বিতীয়ত এবার থেকে আমার পছন্দ মতো ড্রেস পড়বে, শোওয়ার আগে আমাকে ড্রিংক কোম্পানি দেবে।

আমি: ঠিক আছে, এবার তো ছাড়ো।

নিখিলেশ: আর শেষ আবদা র আমাকে প্রতিদিন আদর করতে দেবে। আমি ঠিক আছে বাবা ঠিক আছে বাড়িতে থাকলে ছেলে ঘুমিয়ে পড়লে আমি তোমাকে আর আটকাবো না , তোমার যা খুশী তাই করবে। হ্যাপি?

নিখিলেশ: উহু ওভাবে হবে না। প্রমিজ করো।

আমি: প্রমিজ করছি, আজ থেকে বাড়িতেই ড্রিংক করতে পারবে, আমাকে তোমার পছন্দ মতন ড্রেস পড়াতে পারবে, আর রাতে ইচ্ছে মতন আদর করতে পারবে।

স্বামী আনন্দের সঙ্গে আমাকে ওখান থেকে কোলে তুলে নিয়ে বিছানায় নিয়ে গিয়ে শুইয়ে দিল। তারপর নিজের পাঞ্জাবি টা খুলে ফেলে আমার উপরে শুয়ে পরলো। মুহূর্তের মধ্যে আমাকে কমপ্লিট নগ্ন করে বিছানার উপর ফেলে পাগলের মত আদর করতে শুরু করলো। ওর প্রত্যেক চুমু টে আর জিভের ছোয়াতে হারিয়ে যেতে লাগলাম। সেই রাতে আমার বর সব কিছু ভুলে আদিম খেলায় মেতে উঠেছিল।

পাশের ঘরে ছেলে শুয়ে আছে একথা বেমালুম ভুলে গিয়ে আমিও স্বামীর ভালবাসায় শীৎকার দিতে শুরু করলাম। অনেক দিন বাদে যেন আমাদের বিবাহিত যৌনতা একটা। পরিপূর্ণতা লাভ করলো। রাই কে দেখে গরম হয়ে আমার স্বামী আমাকে পেয়ে নিজের মনের আর শরীরের চাহিদা ভালো করে মেটালো। আমার ব র যে বিছানায় এই ভাবে অন্য রূপে জেগে উঠবে আমি কল্পনা তে ভাবতে পারি নি।

৬ ই ফেব্রয়ারি

আগের রাত বেশ জম্পেশ সেক্স হওয়ায় আমার ঘুম থেকে উঠতে বেশ দেরি হয়ে গেলো। ঘুম ভাঙলো রাই এর ফোনে আমি রিসিভ করে হেলো বলতেই অপর প্রান্তে রাই এর টিপ্পনী ভেসে আসলো। ” কি মহারানী গুড মর্নিং। সারারাত বরের আদর খেয়েও পেট ভরে নি। এখনো বর কে জড়িয়ে বিছানায় শুয়ে সোহাগ খাওয়া হচ্ছে। এবার কাজের কথা টে আসা যাক। ” আমি বললাম এই কি জা তা বলছিস। ও শুনতে পাবে। এবার থেকে নেশা করবে আর আমার ঘুম হারাম করবে। সব শালী তোর জন্য।

রাই: হি হি হি, কি বলেছিলাম অল মেনস আর সেম। চুটিয়ে সেক্স লাইফ এঞ্জয় কর। এটা তো জাস্ট শুরু , ইন ফিউচার তোর জন্য আরো সারপ্রাইজ অপেক্ষা করছে। যাক গে আজ কে তুই বাড়িতেই থাকতে পারিস। এমনিতে এদিকে বিশেষ কোনো চাপ নেই। তবে তোর মেইল টা চেক করে নিস। তোর মডেলিং ইভেন্ট এর কস্টিউম রেডী হয়ে গেছে। তার ছবি পাঠিয়ে দিয়েছি। তোকে আইটেম গুলোয় যা মানাবে না। উফফ দারুন ফোটো শুট হবে।

আমি একঘন্টা পরে, স্নান সেরে ফ্রেশ হয়ে ল্যাপটপ অন করলাম। মেইল চেক করে শকড হয়ে গেলাম। এগুলো রাই কিসব ব্লাউজ পাঠিয়েছে। কোনো ভদ্র বাড়ির মেয়ে বউ ঐ ধরনের হট ডিপ লো কাট স্লিভলেস ব্লাউজ পরে বলে আমার জানা ছিল না। ওগুলো পড়লে আমার পিঠ বুক এর অনেক খানি পার্ট বাইরে এক্সপোজ হয়ে যাবে। রাই কে বলা সত্ত্বেও ও আমার ব্লাউজ এর ডিজাইন পাল্টালো না। ওর বক্তব্য হলো এখন চেঞ্জ করলে ফোটো শুট এর আগে ব্লাউজ রেডী করা যাবে না।

What did you think of this story??

Comments

Scroll To Top