লাস্যময়ী তিশা – উবের ড্রাইভারের সাথে একরাত (পর্ব ১)

(Lasyomoyi Tisha - 1)

আমি তিশা। প্রাইভেট কোম্পানিতে জব করি। আমার বিয়ে হয়েছে দুবছর হলো। আমি আর আমার হাসব্যন্ড – আমরা ঢাকাতেই থাকি। হাসব্যন্ড একজন ব্যাংক কর্মকর্তা। আমার বয়স ২৭. আমার পরিবার খুব ফ্রেন্ডলি ও আধুনিক মনোভাবসম্পন্ন। যার জন্য আমাকে বাংলাদেশের ৮০% মেয়েদের মতো অল্প বয়সেই বিয়ে করার জন্য চাপ সহ্য করতে হয়নি।

আমার পরিবারের ইচ্ছা ছিলো আমি পড়ালেখা কমপ্লিট করবো, তাই তারা আমাকে বিয়ের জন্য জোর দেয়নি। পড়ালেখা শেষ করে আমি প্রাইভেট কোম্পানিতে চাকরির জন্য আবেদন করি, চাকরির পদ ছিলো বসের পিএস হওয়া। আমার ২৭ বছর বয়সী মিলফি ফিগার দেখে বস খুব সম্ভবত লোভ সামলাতে পারেনি, এদিকে পড়ালেখার ব্রাইট রেজাল্টের কথা ছেড়েই দিলাম!

আমরা বাচ্চাকাচ্চা নেয়ার প্ল্যান এখনো করিনি। কেননা আমরা ঠিক করেছি, অর্থ-সম্পত্তি গুছিয়ে সবকিছু Settle করে তারপর পরিবার পরিকল্পনা করবো। আমি ছোটবেলা থেকেই আধুনিক মানসিকতা সম্পন্ন হলেও এই না, যে আমি ধর্ম মানিনা। সকলের প্রতিই আমার শ্রদ্ধাভক্তি ছিলো। কখনো কোনো পাপবোধ মনের মধ্যে কাজ করতো না। তবে এও না যে আমি ধোয়া তুলসি পাতা। কলেজ ও ভার্সিটি লাইফে অনেক ছেলের সাথেই আমার অন্তরঙ্গতা ছিলো। যদিও আমার স্বামী ব্যতীত কখনো কারো সাথে ফিজিক্যাল রিলেশন করিনি। কিভাবে আমার পরপুরুষের সাথে ফিজিক্যাল রিলেশন হয়, আজ আমি সে ঘটনা বর্ণনা করবো।

গতবছরের বর্ষাকালের ঘটনা। আমার অফিস ওভারটাইম ছিলো। সাধারণত বিকেলে ছুটি হলেও সেদিন ছুটি হয় রাত দশটায়। সচরাচর বাসে যাতায়াত করাই আমার অভ্যাস, কিন্ত অতো রাতে বাস পাচ্ছিলাম না। ঢাকা শহরে বিষয়টা অদ্ভুত শোনালেও এটাই হয়েছিলো সেদিন। হাসব্যান্ড ফোন করে বললো, উবার ডাকতে। আমি সে বুদ্ধিমতোই কাজ করলাম।

উবার ড্রাইভার বয়সে ২৫-২৬ হবে, আমার বয়সীই। ভাবসাব দেখে বুঝলাম – সে এই গাড়ির মালিকই, ড্রাইভার নয়। গাড়িতে উঠার পরপরই শুরু হলো ঝুম বৃষ্টি। ড্রাইভার ছেলেটার সাথে টুকটাক আলাপও করলাম, কেন সে উবারে চাকরী করছে। সে বললো, সে নিজ খরচ নিজে বহন করতে চায়। শুনে আমিও খুশি হলাম। আজকালকার বড়োলোকের ছেলেগুলো একগ্লাস পানিও নিজ হাতে নিয়ে খেতে পারে না!

আগারগাঁও আসার পর গাড়ির ইঞ্জিন অফ হয়ে গেলো। রাত প্রায় সাড়ে এগারোটা। জ্যামের জন্য এত দেরী হলো। আমার পরামর্শেই ছেলেটা মেইনরোড ছেড়ে কলোনির ভিতর দিয়ে গাড়ি চালাচ্ছিলো, এতে করে জ্যাম অ্যাভয়েড করা যাবে। কিন্ত মাঝপথে এসে যখন গাড়ি থেমে গেলো, বুঝলাম যে বিপদ ঘনিয়ে এসেছে। ছেলেটি তখুনি নেমে ইঞ্জিন পরীক্ষা করতে গেলো, কিন্ত আমি থামিয়ে দিলাম। এই বৃষ্টির মধ্যে এটা নেহাত পাগলামী ছাড়া কিছু নয়।

আমি বললাম, “ তোমার বিল কত হয়েছে বলো। আমি নেমে যাছি। বাসা কাছাকাছিই আমার। রিকশা টিকশা পাই কিনা দেখি।“

ছেলেটি বললো, “সে কি, এই বৃষ্টির মধ্যে কিভাবে কি করবেন ?”

আমিঃ সে চিন্তা তোমার করতে হবে না।

বিল মিটিয়ে পিছনের দরজা খুলে নেমে পড়লাম। মুহূর্তের মধ্যে ভিজে চুপচুপে হয়ে গেলাম। ৫ মিনিট ধরে এদিক ওদিক রিকশা খুঁজে না পেয়ে চিন্তা করলাম ওই গাড়িতে বসেই অপেক্ষা করি। ভাগ্যকে ধন্যবাদ দিতে হয়, কারন গাড়িটি তখনো ওখানেই ছিলো। তবে ড্রাইভার ছেলেটা পিছনের সিটে আরাম করে শুয়ে আছে। গ্লাসে টোকা দিতেই সে সাথে সাথে দরজা খুলে ফেললো।

ছেলেঃ আরে আপনি! বলেছিলাম বের না হতে। কে শুনে কার কথা ? দেখলেন তো ভিজে এ কি হাল করেছেন নিজের! আসুন, ভিতরে এসে বসুন।

আমি ভিতরে এসে তাকে ধন্যবাদ দিলাম। আমরা দুজনই এখন পাশাপাশি বসে আছি। ছেলেটি আবারোও বললো, “আপনার তো দেখছি সারা শরীরই ভিজে গেছে। গামছা আছে সাথে? রুমাল দিয়ে তো সম্ভব নয়।“

আমি বললাম, “না, অফিসে কি কেউ গামছা নিয়ে যায় নাকি!”

ছেলেটি তাৎক্ষনিকভাবে আমাকে অবাক করে দিয়ে তার গায়ের গেঞ্জি খুলে ফেললো। বললো, “নিন, বৃষ্টির পানি খুবই ক্ষতিকর। ঠান্ডা লেগে যেতে পারে। শরীরটা মুছে নিন।”

আমি খুবই বিব্রতকর অবস্থায় পড়ে গেলাম। গাড়ি দুজন পাশাপাশি বসে আছি, চারিদেকে সুনসান নীরবতা। ছেলেটি বললো, “কি হলো, নিচ্ছেন না কেন? সংকোচ করার কোনো কারন নেই। খারাপ কিছু মনে করার মতো কোনো লোক নেই আশেপাশে।” ছেলেটির বন্ধুত্বসুলভ আচরণ দেখে গেঞ্জিটা দিয়েই আস্তে আস্তে শরীর মোছা শুরু করলাম।

প্রথমে চুল। এরপর হাত, আস্তে আস্তে দুধ, পেট, তলপেট ও পা মুছলাম। আড়চোখে তাকিয়ে দেখি, ছেলেটি জানালা দিয়ে বাহিরে তাকিয়ে আছে। তাই সাহস করে আধা দাঁড়িয়ে পাছা মোছা শুরু করলাম।

গেঞ্জিটা ফেরত দেয়ার সমইয় ছেলেটিকে বললাম, “তোমাকে অনেক কষ্ট দিচ্ছি।” ছেলেটি বললো, “আরে নাহ, কিসের কষ্ট!”

আমি বললাম, “আচ্ছা তোমাকে তুমি করে বলছি, অথচ তোমার নামটাই আমি জানিনা। কিছু মনে করছো না তো?” ও বললো, “আচ্ছা তাহলে আমিও তোমাকে তুমি করেই বলি, হাহাহা! আমার নাম রাব্বি। তোমার?” আমি নাম বললাম।

রাব্বি বললো, “কিছু মনে করো না, একটা কথা বলি।” আমি বললাম, “তুমি আমার এত উপকার করছো, মনে করার কি আছে! বলো।” রাব্বি বললো, “আমি খেয়াল করছি, তুমি শীতে কাপছো। তোমার জামাগুলো ভেজা। আমি হিটার টা অন করে দিচ্ছি, তোমার জামাগুলো যদি খুলে সামনে সিটে মেলে দাও, তাহলে তুমি ও জামা- দুইই শুকিয়ে যাবে।” আমি চট করে রাব্বির দিকে তাকালাম। কিন্ত দেখালাম ওর চোখে কোনো প্রকার কামোত্তজেনা নেই। ও সরল মনেই কথাগুলো বলছে।

আমি বললাম, “এ মা, আমার লজ্জা করবে না?” রাব্বি বললো, “আমি লাইট নিভিয়ে দিই। কোনো অসুবিধা হবে না।” রাব্বির কথায় আস্বস্ত হয়ে আমি আমার জামা ছাড়ানো শুরু করলাম। আমার নিজেরই এই জামা পরে থাকতে অস্বস্তি হচ্ছিলো। ভেজা জামা শরীরের সাথে লেপ্টে আছে। কোনো রকমে টেনেটুনে স্যালোয়ারটা খুললাম। কামিজটা পিঠের কাছে আটকে আছে।

রাব্বিকে বললাম, টেনে তুলে দিতে। ছেলেটা টান দিয়ে জামাটা তুলে দিলো। ঠিক তখুনি আমি আমার পাছায় শক্ত কিছু একটার গুতো খেলাম। ৩৮ সাইজের দুধ থেকে জামাটা খসানোর পর নিজেকে খুব হাল্কা লাগলো।

(To be continued)

What did you think of this story??

Comments

Scroll To Top