মায়ের পরপুরুষের সঙ্গলাভ – একাদশ পর্ব

This story is part of a series:

আমি: তোমার গলার আওয়াজ শুনে আমার ভালো লাগছে না। রেস্ট নাও।

মা: আর রেস্ট, আহ্ আহ্উফফ মা গো.. হে মিস্টার প্লিজ ডু ইট স্লোলি, আর পারছি নাআহ্ আহ্, সুরো কি বলছিস রেস্ট নিতে। হু সেটাই তো নেওয়ার সময় নেই, এরা কখন ছাড়বে কে জানে। এরা চলে গেলে আবার শর্মা জি আসবে বলেছে। কাল বড়ো মিটিং, ইম্পর্ট্যান্ট ব্যাপার গুলো তার আগে সব জানিয়ে বুঝিয়ে দেবে, আজ রাতে ঘুম কপালে নেই মনে হচ্ছে।আমি: তোমার শরীর ভালো না। কেনো এভাবে কষ্ট পাচ্ছো। সবকিছু ছেড়ে ছুড়ে চলে আসো না। তোমাকে আটকে রেখেছে নাকি,?

মা: আহ্ আহ্ আহ্ আস্তে জী ….. থোড়া ধীরে সে আহ্ মা গো…. আহ্ আহ্ …. ইটনা জলদি মত করো, তাকলিফ হোতা হ্যায়…. মর জাওনগী মে ….

আমি: হিন্দিতে আবার কার সাথে কথা বলছ, মা হাপাচ্ছো কেনো? বলো না কখন বাড়ি ফিরবে?”

মা: কিছু না রে, আমি এখন আর আসতে পারবো না রে। এমন ভাবে এসবে জড়িয়ে পড়েছি, আমি চলে গেলে কয়েক কোটি টাকার বিজনেস ডিল সব পণ্ড হয়ে যাবে। আমার বিরাট আর্থিক ক্ষতি হবে কাল দুপুরে এদের বড়ো সাহেব আসছেন। সব কিছু ঠিক থাকলে কাল সন্ধ্যে বেলা ছুটি পাবো। তুই সাবধানে থাকিস। আমার কথা চিন্তা করিস না। আমি ফিরে এসে কদিন কমপ্লিট বাড়িতে বিশ্রাম নেবো।। আর শুধু তোকে কোম্পানি দেবো। আর দুজনে বসে, তোর সামনে যে জন্মদিন আসছে তার প্ল্যান টা করবো। আমি না ফেরা অবধি আমাকে আর কল করিস না। আমি রিসিভ করতে পারবো না। মার কল টা এন্ড করবার আগে কোনরকমে মা কে বলতে পারলাম, যে আমি আজ রাত টা রাই দির কাছেই থাকছি। মা রিপ্লাই দিল, ঠিক আছে সুরো, রাই মিত্র খুব ভালো মেয়ে, হ্যাভ ফান…, তোর তো অভ্যাস নেই, তাই বেশি রাত করিস না।

মার সঙ্গে ফোন টা ডিস কানেক্ট হয়ে যাবার পর রাই দি স্নান সেরে একটা পাতলা নাইট সুট পরে আমাকে বিছানায় মধ্য খানে রেখে আমার উপর এসে শুয়ে পড়লো। আমি বারণ করতে যেতেই, রাই দি আমার ঠোঁটে নিজের হাতের একটা আঙ্গুল রেখে চুপ করিয়ে দিয়ে বললো, উহু কোনো কথা না। কী প্রমিজ করেছো, এর মধ্যে ভুলে গেছো নাকি। স্যার কে তোমার মায়ের জীবন থেকে সরাতে চাও কী চাও না,? আমি উত্তর দিলাম, হ্যাঁ চাই। রাই দি আবার জিগ্যেস করলো, ” তুমি কি চাও তোমার মা এইভাবে দিনের পর দিন পর পুরুষের সঙ্গে বাড়ির বাইরে রাত কাটিয়ে বেরাক, শুধু বিজনেস এর প্রফিট অ্যান্ড লস এর হিসাব মেলাতে।

আমি উত্তর দিলাম, “না। কখনো না।তারপর রাই দি দুই হাত কাধের উপর দিয়ে আমার গলা পিছনে দিয়ে নিজের মুখ টা আমার মুখের সামনে এনে বললো, ” তাহলে আমি যা যা বলছি, ভালো ছেলের মতন তাই তাই কর। এতে তোমার ভালো, আর তোমার মায়েরও ভালো, নতুবা ফল ভালো হবে না। আমিও স্যার এর টিমে চলে যাবো। আর তোমাদের মা ছেলের জীবন আমি আরো দুর্বিসহ করে তুলবো।আমি বিস্ময়ে ওর চোখের দিকে তাকিয়ে বললাম, ” রাই দি প্লিজ, তুমিও ব্ল্যাকমেইল করছো। ছেড়ে দাও না আমায়। আমার এসব ভালো লাগে না।

রাই দি আমার নাক টা আলতো করে টিপে দিয়ে মিষ্টি করে হেসে বলল,” দূর পাগল, ব্লেক মেইল আবার কোথায়, তোকে আমার ভালো লেগে গেছে রে। তাছাড়া বড়ো হয়েছিস, মায়ের কচি ছেলেটি আর নেই তুমি। এখন এসব একটু আধটু করবি না বললে চলে। প্রথম প্রথম মনে হবে আমি তোর উপর টর্চার করছি, আস্তে আস্তে তোর ভালো লাগবে। এই জিনিস বার বার করার নেশা হয়ে যাবে ঠিক তোর মায়ের মতন। ওয়ে দেখ আমার দিকে, কোনো কমতি আছে নাকি রে আমার মধ্যে। তোর জায়গায় অন্য কেউ আমাকে নিয়ে যা খুশি তাই করবার এইরকম খোলা লাইসেন্স পেলে খুশি তে পাগল হয়ে এতক্ষন শুরু করে দিত। বিশ্বাস কর আমাকে, আমি তোকে ভালো রাখবো, আর তোর মা কেউ ঠিক স্যার এর খপ্পর থেকে বের করে আনব।

রাই দির কথা শুনে চুপ করে গেলাম। রাই দি নিজের নাইট সুট এর স্ট্রিপ খুলতে খুলতে বেড সাইড লাম্পের আলো টা ঝট করে নিভিয়ে দিলো। তারপর আমাকে বললো, ” ভয়ে কিছু নেই, কথা শুনলে সব কিছু স্বপ্নের মত সুন্দর হবে। লেটস ফান বেবিপর আমাকে সামলে ওঠার কোন সুযোগ না দিয়ে ঠোঁট ঠোঁট চেপে চুমু খেতে শুরু করলো। অল্প সময়ের মধ্যে রাই দি আমার ভেতরের পৌরুষত্ব জাগিয়ে তুলল।

আস্তে আস্তে রাই দির কাছে ওর বেডরুমের বিছানায় নিজেকে হারিয়ে ফেললাম। রাই দির কাছে আকস্মিক ভার্জিনিটি হারানোর পর দুদিন একটানা আমি রাই দির ফ্ল্যাটেই লাভ কাপল দের মতন ঘনিষ্ঠ ভাবে কাটালাম। রাই দি বেশ ভালবেসে আমার যত্ন আত্তি করলো। একাধিক বার বিছানায় আমাদের অন্তরঙ্গ যৌন মিলন হলো। আস্তে আস্তে রাই দির সামনে আমার জড়তা কাটছিল।

এই দুদিনে মা কে নিয়ে আমার মনের দুশ্চিন্তা বিন্দু মাত্র কমলো না। কারণ একটাই, এই দুদিন মায়ের থেকে কোনো কল বা মেসেজ আমি পেলাম না। পরের দিন সন্ধ্যের পর যত বার মার নম্বরে ট্রাই করলাম ততবার সুইচ অফ শোনালো। শেষে আংকেল কে ফোনে ট্রাই করলে মায়ের খবর পাওয়া গেলো। আঙ্কল মা কে নিয়ে চারদিনের জন্য স্পেশাল গোয়া টুরে বেরিয়ে গেছে। আসলে সিঙ্গাপুরের কোটিপতি ক্লায়েন্ট এর মা কে ফাইভ স্টার হোটেল সুইট দেখে তার সঙ্গ পেয়ে মা কে ভীষন পছন্দ হয়ে গেছে। তাই উনি কিছুতেই মা কে একবার করে ছাড়তে চাইলেন না। গোয়া তে তখন সামার বিচ ফেস্টিভ্যাল চলছিল। উনি মা আর আংকেল কে চারদিনের জন্য গোয়া তে ফুর্তি বিলাসিতায় ভরা একটা স্পেশাল টুরের জন্য আমন্ত্রণ জানালেন।

মা ভীষণ ক্লান্ত ছিল, মার যাওয়ার কোনো ইচ্ছে ছিল না কিন্তু শর্মা আংকেল রাজি হয়ে গেল। আসলে এই টুরে গেলে মা একটা মোটা অঙ্কের টাকা ক্লায়েন্টের থেকে পাবে, তা দিয়ে মার নতুন গাড়ির এম আই টা শোধ হয়ে যাবে। তাই মা বাড়ী না ফিরে, ওদের সঙ্গে ডাইরেক্ট এয়ারপর্ট এর উদ্দেশ্যে বেরিয়ে গেলো। আশ্চর্য্য লাগলো মা একবার আমাকে ফোন করে ব্যাপার টা জানালো না। আঙ্কল কে বলতে উনি মার আমাকে ফোন না করার পিছনে ক্লান্ত থাকবার রিজন দিলেন। সেটা আমার বিশ্বাস হল না।

গোয়া তে গিয়ে মা তার শরীর টা সম্পূর্ণ ভাবে আংকেল দের হাতে সপে দিয়েছিল। কে কখন কিভাবে তার সঙ্গে অন্তরঙ্গ মুহূর্ত কাটাবে সেটা আংকেল রাই নিয়ন্ত্রণ করছিল। এমনকি তার পোশাক আশাক কি পড়তে হবে সেটাও আংকেল রাই ঠিক করে দিচ্ছিল। এমনিতে মা সব সময় প্রটেকশন নিয়েই সেক্স করতে অভ্যস্ত কিন্তু পাঁচ দিন সব নিয়ম ওলোট পালোট হয়ে গেছিলো। সফরে গিয়ে মা তার সঙ্গে যাওয়া বড়ো মানুষ দের মনোরঞ্জন করতে গান গেয়েছিল। তবে তার সাবেকি রবীন্দ্র সংগীত না, চলতি জনপ্রিয় হিন্দি ছবির আইটেম সং। ওটার লাইভ ভিডিও রেকর্ড করা হয়েছিল। শর্মা আংকেল ওটা নিজের পার্সোনাল সোশাল নেটওয়ার্ক সাইট প্রোফাইলে আপলোড করে পোস্ট করেছিল। আমরা সবাই তার জন্য গানের ভিডিও দেখতে পেয়েছিলাম। ভিডিও টা বেশ পপুলারিটি পেয়েছিল।

ওখানে গানের সঙ্গে সঙ্গে মায়ের কস্টিউম আর শরীরী ভাষাও তারিফ করবার মতন ছিল। আমার তো দেখে মা বলে বিশ্বাস হচ্ছিল না প্রথমে। একটা ডীপ ভি কাট শর্ট নাভেল ভেস্ট পরে মা কে ভিডিও টায় দারুন হট লাগছিল। এক হাতে মাইক আর অন্য হাতে মদ ভর্তি সুদৃশ্য পেয়ালা নিয়ে মার গান গাওয়ার মিনিট এর ভিডিও টা প্রচুর মানুষ শেয়ার করেছিল। দিন গোয়া তে খুব রঙিন মেজাজে কাটানোর পর, ওখান থেকে ফিরে এসে মা আংকেল এর সঙ্গে নিজের দুনিয়ায় ব্যাস্ত হয়ে পড়ল।

মার মধ্যে আরো কতগুলো চেঞ্জ লক্ষ্য করেছিলাম। নিয়মিত ভাবে রাত জাগার ফলে তার সুন্দর চোখের নিচে কালি পড়েছিল, সেটা মা সবসময় অ্যাডভান্সড মেক আপ ফিচার ব্যাবহার করে ঢেকে রাখতে শুরু করেছিল। এছাড়া বিগত দুই মাস স্ট্রিক ডায়েটে থাকার ফলে মার ফিগার অনেক টা পাতলা হয়েছিল। মা তিন মাসে কিলো ওজন কমিয়েছে। পেট আর কোমর থেকে বাড়তি মেদ সব উধাও হয়েগেছিল। বলাই বাহুল্য মা কে আরো বেশি সুন্দর আর আকর্ষণীয় লাগছিল। পরে জেনেছিলাম এই তাড়াতাড়ি বাড়তি মেদ ঝরানোর জন্য মা আংকেল এর উপদেশে কিছু ওষুধ নিচ্ছিলো।

মার সৌন্দর্য কে যত ভাবে ব্যাবহার করা সম্ভব আংকেল মা কে সেইভাবে যথেষ্ট ভাবে ব্যাবহার করে যাচ্ছিল। টাকার জন্য মা প্রতিবাদ করতেও ভুলে গেছিল। মনে স্বাধ থাকলেও আমার জন্মদিন নিয়ে প্ল্যান করবার তার সময় রইলো না। এমন কি এটাও স্থির ছিল না আমার জন্মদিনের দিন মা কাজ থেকে ছুটি পাবে কি না। আঙ্কল আমার জন্মদিনের পার্টির সব ব্যাবস্থা রাই দি হাতে ছেড়ে দিয়েছিল।

আমার জন্মদিনের পার্টি এমনিতে বেশ বড় করে ধুম ধাম করেই করা হয় প্রতিবার। এই বার রাই দি দায়িত্ব নিয়েছিল, সে আমার বিশ্বাস জিততে আরো দারুন ভাবে পার্টি প্ল্যানিং সেরেছিল। মা আমার থেকে যত বেশি তার কাজের সুত্রে দূরে সরে থাকছিল, আমি যেনো তত বেশি আস্তে আস্তে মিস রাই মিত্রর উপর নির্ভরশীল হয়ে পড়ছিলাম। সে আমাকে মায়ের বিষয়ে সাহায্য করবে কথা দিয়েছিল।

তার জন্য আমাকে রাই দির সাথে নিয়মিত ভাবে অন্তরঙ্গ মুহূর্ত শেয়ার করতে হতো। খুব অল্প সময়ের মধ্যে আমরা একে অপরের শরীর টা কে বেশ ভালো ভাবে চিনে নিয়েছিলাম। প্রথম প্রথম আমার এইসব বিষয়ে অগ্রসর হতে খুব অসুবিধা হলেও, আস্তে আস্তে রাই দির সঙ্গে থাকতে থাকতে সব কিছুর অভ্যাস হয়ে যায়। সেক্স এর বিষয়ে রাই দি ছিল একেবারে নির্মম। আমি ওর থেকে বয়েসে অনেক ছোট হলেও বিছানায় শোওয়ার সময় আমাকে বিন্দু মাত্র সহানুভূতি দেখাতো না। টা শর্মা আংকেল এর মতন একবার শুরু করলে পুরোপুরি সন্তুষ্ট না হওয়া অবধি কিছুতেই থামতে চাইতো না। আবার একবার সন্তুষ্ট হয়ে গেলে রাই দির সেই নির্মম কঠোর রূপ রাতারাতি পাল্টে যেতে সময় লাগতো না। নিজে সেক্সুয়ালি স্যাটিসফাইড হয়ে গেলেই তখন আদরে আদরে ভরিয়ে দিতো।

What did you think of this story??

Comments

Scroll To Top