মায়ের পরপুরুষের সঙ্গলাভ – দ্বাদশ পর্ব

This story is part of a series:

এইভাবে দেখতে দেখতে আমার জন্মদিনের পার্টি টা এসে গেলো। এই বারের পার্টি টা শহরের একটা প্রথম সারির ক্লাবে রাখা হয়েছিল। ডিজে, পার্টি ড্যান্সার, বিদেশি মদ, হুকা সব কিছুর ব্যাবস্থা করা হয়েছিল। পার্টি তে কবিতা আন্টি দের গ্রুপ টা কে ফুল আমন্ত্রণ করা হয়েছিল। ওরা সবাই সেজে গুজে হট স্টাইলিশ পোশাক পরে পার্টি তে এসেছিলেন। মা অনেক কষ্টে তার ব্যস্ত শিডিউল থেকে আমার জন্মদিনের পার্টির জন্য সময় বার করেছিল। মা আমার অনুরোধে অনেকদিন পর শাড়ি পড়েছিল যদিও ব্লাউজ টা ছিল আংকেল এর পছন্দের। ব্লাউজ টা ছিল স্লিভলেস, একেবারে স্পোর্টস ব্রা এর সাইজের। বুকের বিভাজিকা, ব্রেস্টের উপরের অংশ স্পষ্ট দেখা যাচ্ছিল।

সবার চোখ পার্টি তে যথারীতি মায়ের দিকে আটকে গেছিল, সবাই তার কাছাকাছি আসবার চেষ্টা করছিল। ড্রিংক নেওয়ার জন্য পিড়াপিড়ি করছিল। কারণ মা যত তাড়াতাড়ি মাতাল হবে তত তাড়াতাড়ি তার নিজের উপর থেকে নিয়ন্ত্রণ হারাবে, আংকেল দের ততই সুবিধা হবে মার সুন্দর শরীরের আঁচ পেতে কিন্তু আংকেল মা কে পুরো এসকর্ট করে রাখছিলেন। মা পার্টি তে যেখানে যেখানে যাচ্ছিল, আংকেল তার পিছু ধাওয়া করছিল।

আমাদের মধ্যে যারা মায়ের শুভাকাঙ্খী তারা কেউ মায়ের কাছাকাছি ঘেঁষতে পারছিলাম না। সবার নজর মায়ের উপর থেকে না সরলেও এক জন বিশেষ অতিথির নজর আবার আমার উপর থেকে সরছিল না। আমি প্রথমে বুঝতে পারি নি। শেষে রাই দি এসে আমাকে বন্ধুদের মাঝ খান থেকে তুলে নিয়ে এক টা কর্নার নিয়ে গিয়ে ব্যাপারটা বুঝিয়ে দিল। আমিও বিষয় টা নিজের চোখে লক্ষ্য করলাম।

আমি দেখলাম, কবিতা আন্টি এক হাতে ড্রিঙ্কস ভর্তি গ্লাস নিয়ে খালি লোলুপ দৃষ্টিতে আমার দিকে তাকিয়ে কি যেন মাপছে। একবার চোখা চুখী হতেই মিষ্টি করে হেসে আমার দিকে হাত টা নাড়ালো, আমাকেও জবাবে হাত টা নাড়াতে হলো। রাই দি গলা নামিয়ে বললো, ” কাম অন সুরো, আমি জাস্ট ভাবতে পারছি না, এত মেঘ না চাইতেই জল। আমাদের সামনে একটা বড়ো সুযোগ এসে গেছে, স্যার কে টাইট দিয়ে তোমার মা কে সোজা রাস্তায় আনতে গেলে একমাত্র এই একটাই পথ খোলা আছে।আমি রিপ্লাই তে বললাম, ” তুমি কি বলছ আমি কিছু বুঝতে পারছি না।

রাই দি একটু হেসে বললো, শোনো যাও কবিতা আণ্টি সাথে কথা বলো, উনি অনেক ক্ষন ধরে তোমাকে দেখছেন। তোমার সঙ্গে কথা বলার জন্য উস খুস করছেন। আমি: ” আমি বুঝতে পারছি না উনি কেনো এরকম করে আমায় দেখছেন, তাছাড়া আমি ওনাকে ব্যাক্তিগত ভাবে পছন্দ করি না। কবিতা আন্টির প্রাইভেট পার্টি তে গিয়ে আমার মা প্রথম মদ খাওয়া ধরেছিল। কাজেই ওনার সাথে….”

আমার কথা সম্পূর্ণ হলো না তার আগেই রাই দি আমাকে থামিয়ে দিয়ে বললো, ” দেখো এখন ব্যাক্তিগত পছন্দ অপছন্দ বিচার করার সময় না। স্যার কে টাইট দিতে একমাত্র এই একজন মহিলাই পারে, তাছাড়া কবিতা ম্যাডাম তোমার বয়সি ছেলেদের সঙ্গে সময় কাটাতে পছন্দ করে। ওর যে কারেন্ট বয় ফ্রেন্ড আছে তার বয়স হবে এই ধর মেরে কেটে ২১ বছর। উনি যখন তোমার প্রতি ইন্টারেস্ট দেখিয়েছেন। এই সুযোগ তোমাকে কাজে লাগাতেই হবে। তোমার মার জন্য এইটুকু ত্যাগ তো করতেই হবে।

আমি খানিক ক্ষন চুপ থেকে বলে উঠলাম, আমায় কি করতে হবে? রাই দি: গুড বয়, এই তো কথা শুনছো, ভালো। এখন ওনার কাছে যাও। হেসে কথা বলো। আর চেষ্টা করো কীভাবে তাড়াতাড়ি ওনার বাড়ির ভেতর ঢোকা যায়। বাড়িতে দেখা করতে আসতে বললে, রাজি হয়ে যাবে। ওকে? বাকি কখন কি করতে হবে সেটা আমি সময় মতো বলে দেবো।

রাই দির কথা মতন আমি কবিতা আন্টির কাছে নিজের থেকে গেলাম। উনি আমি সামনে এসে হেলো বলতেই, আমার হাত ধরে, ” এসো হ্যান্ডসাম, তোমাকেই এতক্ষন এক্সপেক্ট করেছিলাম। চলো আমরা বসে কথা বলি।আমাকে এক সাইড টেবিল আর সোফার কাছে নিয়ে গিয়ে বসালেন, আর নিজেও আমার পাশে আমার গায়ে গা লাগিয়ে বসলেন, যদিও সোফায় যথেষ্ট ফাঁকা জায়গা ছিল। কবিতা আণ্টি বেশ ব্যাক্তিত্বময়ী চরিত্র। এক সময় মার মতন অতি সুন্দরী ছিলেন, কিন্তু কিছুটা বয়সের ছাপে আর অনিয়ন্ত্রিত বোহেমিয়ান জীবন যাপন করার ফলে শরীর এর আবেদন বেশ খানিক টা কমেছে।

কবিতা আন্টির বয়স ৪৮+, কিছুটা মোটা দেহের গরন হওয়ার ফলে এখন যৌবন আগের মতন না থাকলেও পুরোপুরি শেষ যৌবনের রেশ এখনো দেহ থেকে দূরে চলে যায় নি। তার উপর স্বচ্ছ পাতলা শাড়ী পড়াতে বুক আর ভরাট নাভি পরিষ্কার দেখা যাচ্ছিল। বিশেষ করে বিরাট পুরুষ্ট বুক গুলো যেভাবে স্লিভ লেস ব্লাউজ এর উপর টাইট হয়ে ফুটে উঠেছিল, মনে হচ্ছিল যখন তখন ব্লাউজ ছিড়ে বাইরে বেরিয়ে আসবে। না চাইতেও ওনার ডবকা শরীর নিয়ে মনে অাজে বাজে চিন্তা এসে যাচ্ছিলো। কবিতা আন্টি ওখানে বসেই ক্লাবের ওর চেনা এক ওয়েটার কে ডেকে আমার আর ওনার ডিনার টা এই টেবিলে এনে দিতে বললেন, সাথে হার্ড ড্রিংক দিয়ে যেতে বললেন।।

আমি ড্রিংক কি নেবো জিজ্ঞেস করাতে আমি মাথা নেড়ে, আমি খাই না বলতে, উনি মুচকি হেসে বললেন, ” তোমার মা একটা সময় খেত না জানো তো, এখন রেগুলার খায়, সময় এলে তুমিও খাবে কি তাই তো। তাছাড়া আমি নিচ্ছি তুমি আমায় কোম্পানি না দিলে খারাপ দেখাবে, তাই তোমার জন্য beer বলছি।এই বলে beer অর্ডার করলেন।

আমি কবিতা আন্টির ব্যাক্তিত্বের সামনে না করতে পারলাম না। ওর কথা মতো ডিনার এর আগে ড্রিঙ্কস আসলো। ড্রিঙ্কস নিতে নিতে আন্টির সঙ্গে নরমাল কথা বার্তা শুরু হলো, আমি গ্লাসে আন্টির কথা মত প্রথম বার চুমুক দিয়ে ধাতস্থ হতে না হতেই কবিতা আন্টি হটাৎ করে আমার কাঁধে হাতে আঙ্গুল বোলাতে শুরু করলো।

টেনশনে উত্তেজনায় এসি মধ্যেও আমার কপালে বিন্দু বিন্দু ঘাম ফুটে উঠল। রাই দির কথা মাথায় রেখে কবিতা আন্টির আচরণ সহ্য করতে লাগলাম। একথা সেকথার পর, কবিতা আন্টি আমাকে বলল, ” তুমি মডেলিং করবে? তোমার মতন ছেলে দের আমি বড়ো বড়ো জায়গায় চান্স দি, আমার নিজস্ব ফ্যাশন হাউস আছে। রাজি থাকলে কাল বিকেল পাঁচটায় আমার অ্যাড্রেসে চলে এসো। একাই আসবে। চান্স দেবার আগে তোমাকে একটু বাজিয়ে দেখে নেবো। তুমি নিচ্ছই শুনেছ আমার কিসে ইন্টারেস্ট, হা হা হা, কি আসবে তো?”

আমি ঢোক গিলে জবাব দিলাম, “ইয়েস আণ্টি।

আমার উত্তর শুনে খুশি হয়ে মদের গ্লাসে চুমুক দিয়ে আমার আরো কাছে আমার কাধের উপর একটা হাত রেখে বেশ অন্তরঙ্গ ভাবে বসলেন। আমি কাধের উপর কবিতা আন্টির নিশ্বাস অনুভব করছিলাম।

আমার জন্মদিনের পার্টি থেকে ফিরতে কবিতা আন্টির জন্য আমার বেশ রাত হয়েছিল। তবুও আমি মায়ের আগেই বাড়ি ফিরে আসতে পেরেছিলাম। মা সময় মতো বাড়ি ফিরতে পারলো না তার কারণ একটাই, জন্মদিনের রাতেও মা কে আংকেল এর সঙ্গে একান্তে প্রাইভেসি টাইম কাটাতে হয়েছিল। আমি যখন ক্লান্ত হয়ে বাড়ি ফিরে আসছিলাম আমার খুব ইচ্ছে ছিল মা কে সঙ্গে নিয়ে একসাথে বাড়ি ফেরবার। মা ক্লাবের যেদিক টায় আংকেল দের মধ্যমণি হয়ে বসে ছিল।

আমি সেদিক টা একবার গিয়েছিলাম, কিন্তু ওখানকার পরিবেশ টা আদৌ মার সঙ্গে সুস্থ ভাবে কথা বলার মতন ছিল না। বরংচ যে দৃশ্য দেখলাম তাতে আমার হাত পা ঠান্ডা হয়ে যাওয়ার যোগাড়। আমার মা খোলাখুলি এতটা বেশরম নির্লজ্জ ভাবে নিচে নামতে পারে, এটা আমার স্বপ্নেও ধারণা ছিল না। মা রা ক্লাবের যে জায়গা টা বেছে আসর বসিয়েছিল।

সেখানে আমাদের মতন কম বয়সি দের প্রবেশ নিষেধ ছিল। তার পরেও আমি গিয়ে মায়ের পরিচয় দিতে দরজায় সিকিউরিটি গার্ড আমাকে আটকালো না। মুচকি হেসে আমাকে বড়ো পার্টি রুমের ভেতরে প্রবেশ করতে দিলো। আমি ঘরের ভেতর প্রবেশ করে দেখলাম সিগারেট আর হুকাহ পাইপের ধোওয়া তে চারদিক ভরে আছে। ভেতরে চারদিক এতটাই ধোয়া ছিল প্রথমে পরিস্কার করে কিছুই দেখা যাচ্ছিল না।

আস্তে আস্তে ঘরের স্বল্প আলোতে চোখ সেট হবার পর আমি মা দের কীর্তি কলাপ পরিষ্কার দেখতে পেলাম। আমার মা শর্মা আঙ্কল এর কোলে বসে চোখ বন্ধ করে হুকাহ পাইপ ঠোঁটে লাগিয়ে ভুরুরুম ভুরুরুম শব্দ করে ধোয়া টানছিল আর পরক্ষণে নাক আর মুখ দিয়ে এক রাস ধোয়া বের করে তার চারপাশ ধোয়ায় ধোয়ায় ভরিয়ে দিচ্ছিল। সেই সময় সারা ঘর টা একটা মিষ্টি মিষ্টি গন্ধ তে মুখরিত ছিল, পরে জেনেছিলাম ওটা ছিল খুব ভালো জাতের অম্বুরি তামাকের গন্ধ। ধোওয়া টানতে টানতে মা সম্পূর্ণ অন্য জগতে হারিয়ে গেছিল।

চারদিকে যেসব মূর্তিমান বিপদ রা তাকে ঘিরে রেখেছে এই বিষয়ে মার কোনো হ্যুষ ছিল না। শর্মা আংকেল এর হাতের আঙ্গুল সেই সময় মায়ের ব্লাউজের হুক এর উপর ঘোরা ফেরা করছিল। আঙ্কল তখন এমন ভাব দেখাচ্ছিল, যখন ইচ্ছে তখন মার ব্লাউজ টা খুলে ফেলতে পারে। এছাড়া মার শাড়ি বুকের ব্লাউজের উপর যেখানে থাকবার সেখানে ছিল না। নিচে নেমে গেছিল। তার পুরুষ্ট স্তন ভিভাজীকা ফের একাধিক পর পুরুষের সামনে উন্মুক্ত হয়ে গেছিলো।

একটু একটু করে অনেক টা মদ নেওয়ার ফলে মা ভেতরে ভেতরে বেশ গরম হয়ে উঠেছিল। কাধ আর আর্মপিট বেয়ে চুইয়ে চুইয়ে বিন্দু বিন্দু ঘাম কোমরের নীচ অবধি গড়িয়ে পড়ছিল। আঙ্কল রাও মার অসাধারণ সৌন্দর্য্যে মোহিত হয়ে নিজেদের নিয়ন্ত্রণ হারিয়ে ফেলছিলো। নায়েক আঙ্কল এর একটা হাত মায়ের বুকের কাছে ঘোরা ফেরা করছিল। আর একজন অচেনা ব্যাক্তি যিনি আংকেল এর পরিচিত তিনি একটা হাত মায়ের থাই এর উপর রেখে দিয়েছিল। মা কে এইভাবে পরপুরুষের সানিধ্যে এসে নোংরামি তে ব্যাস্ত থাকতে দেখে আমার জন্মদিন এর সমস্ত আনন্দ মজা সব এক নিমেষে মাটি হয়ে গেছিলো।

শুকনো নেশা করে এতটাই নিজেকে অন্য লেভেলে নামিয়ে দিয়েছিল আর এদিকে যে রাত হয়েছে, বাড়ি ফিরতে হবে সেই খেয়াল মার তখন ছিল না বললেই চলে। আর বাকি আংকেল রা মা কে নিয়ে এতটাই মত্ত ছিলেন যে আমি যে ওদের সামনে মাত্র ১০ হাত দূরে এসে দাড়িয়ে আছি সেটা ওরা কেউ খেয়াল করলো না। রুমের যে জায়গায় আমি এসে দাঁড়িয়েছিল আমাকে অদৃশ্য রাখবার জন্য সেখানে যথেষ্ট অন্ধকার ছিল। যদিও আমি মা কে আমার সাথে নিয়ে যেতেই ওখানে এসেছিলাম কিন্তু পরিস্থিতি তে দাড়িয়ে কিছুতেই মা কে ডেকে ওখানে চরম অস্বস্তি তে ফেলতে পারলাম না।

আঙ্কল দের সামনে সে যতই কাপড় খুলুক না কেন আমার সামনে মার যথেষ্ট ইজ্জত আর সন্মান জ্ঞান ছিল। শেষে মিনিট ধরে মায়ের নোংরামি দেখে, দাতে দাঁত চেপে মনের মধ্যে শর্মা আংকেল এর প্রতি রাগ অভিমান এর মাত্রা আরো কয়েক গুণ বেশি বাড়িয়ে নিয়ে, আমি চুপ চাপ ওখান থেকে সরে গেলাম। তারপর রাই দি সঙ্গে এক গাড়িতে বাড়ি ফিরে আসলাম।

মা সেদিনও আঙ্কেল দের জন্য বাড়ি ফিরে আসতে পারলো না। তাকে ইচ্ছে করে ফিরতে দেওয়া হলো না। ক্লাব এর পিছনের অংশে একটা রিজার্ভ প্রাইভেসি সুইট মা কোনরকমে আরো একটা বিনিদ্র রাত কাটিয়ে দিল। আংকেল সহ আরো তিন জন পুরুষ সেই রাতে মার শরীর টা মজা করে উপভোগ করলো। অন্যদিন হলে মা তবুও প্রতিরোধ করার সুযোগ পায় কিন্তু রাতে নেশার ঘোরে তার কোন হুশ ছিল না। তার পুরো সুযোগ আংকেল এর মতন বদমাস রা বেশ রসিয়ে রসিয়ে নিল।

পরের দিন সকালে মা ক্লান্ত বিধ্বস্ত শরীর নিয়ে অনেক দিন পর নিজের বাড়ি ফিরলো, কিন্তু বাড়ি ফিরে মা আমার সাথে কোনো সেরকম কথা বলল না। তাড়াতাড়ি স্নান সেরে, কোনরকম কিছু মুখে দিয়েই, ঘুমের ট্যাবলেট খেয়ে নিয়ে ঘুমাতে গেলো। ক্রমাগত রাত জাগা, জার্নি করা, আর নিয়মিত হার্ড সেক্স করবার file মার শরীর ভালো ছিল না।

আমি তাই মা কে বিরক্ত করলাম না। অনেক কথা আমার মনে মধ্যে জমে ছিল। অনেক দিন হলো মা ছেলে তে দুজনে মিলে দুপুর বেলা খেয়ে ডেয়ে আড্ডা মারা হয় না। কিন্তু মা নন্দিনী সান্যাল কে ( ডিভোর্স এর পর আমার মা নন্দিনী রায় থেকে তার বিয়ের আগের পুরোনো পদবী নন্দিনী সান্যাল তে ফিরে গেছিলেন।) ক্লান্ত বিধ্বস্ত অবস্থায় দেখে আমার মায়া হল। মা প্রায় গোটা দিন টা পড়ে পড়ে ঘুমোলো। সন্ধ্যেবেলা জেগে উঠে কেয়ামত এর থেকে বডি ম্যাসাজ নিয়ে আবারো রাতের জন্য নিজেকে তৈরি করে ফেললো।

রাত ১০ টা নাগাদ শর্মা আঙ্কল আমাদের বাড়িতে আসলো। মা ওনাকে দেখে তার রাতের পোশাক পাল্টে আসলো। আঙ্কল এসেই সোজা মার বেড রুমের মধ্যে প্রবেশ করলো। রাত সাড়ে এগারোটা থেকে আবার মায়ের রুম থেকে তার চাপা গলায় যৌন শীৎকার এর আওয়াজ ভেসে আসতে শুরু করলো। আওয়াজ আমার মন কে আঘাত দিচ্ছিল। শেষে থাকতে না পেরে আমি কানে বালিশ চাপা দিয়ে ঘুমোতে চেষ্টা করলাম। আর কিছুক্ষণের মধ্যে ঘুমিয়েও পরলাম।

What did you think of this story??

Comments

Scroll To Top