মায়ের পরপুরুষের সঙ্গলাভ – সপ্তম পর্ব।

This story is part of a series:

এত বছরের নিজের হাতে সাজানো বাড়ি আর এত বছরের যত্নে গড়ে তোলা সংসার ছেড়ে এক লহমায় নিজেকে আলাদা করে সবকিছু ছেড়ে চলে আসা মায়ের পক্ষে সহজ ছিল না। বাড়ি ছেড়ে আমাকে নিয়ে অন্য নতুন ফ্ল্যাটে শিফট করবার পর থেকেই মা ভিতরে ভিতরে মানষিক অস্থিরতায় ভুগছিল। মা মনে মনে জানতো যে সে যা করছে ঠিক কাজ করছে না। তবুও আংকেল দের সঙ্গে এমন ভাবে সব নোংরা বিষয়ে জড়িয়ে গেছিলো যে মার এসব ছেড়ে বেরিয়ে আসবার কোনো উপায় ছিল না। তার এই মানষিক অস্থিরতার কথা কেবল মাত্র আমি ই বুঝেছিলাম।

কিন্তু বুঝেও কিছুই করে উঠতে পারি নি। মা নতুন ফ্ল্যাটে উঠে আসার পর থেকে পা থেকে মাথা অবধি নিজেকে সম্পূর্ণ বিলাসে ডুবিয়ে রেখেছিল। প্রায়শই রাত করে বাড়ি ফিরত। কাজের বাহানায় আংকেল রা মা কে নানা ভাবে ব্যাস্ত রেখে তার শরীরের যাবতীয় জীবন শক্তি এমন ভাবে নিংরে নিতো যে মা যখন দিনের শেষে বাড়ি ফিরতো তার শরীরে বিন্দু মাত্র এনার্জি অবশিষ্ঠ থাকতো না। শর্মা আনকেল দের পার্টনারশিপ বিজনেস টায় তাকে আরো বেশি সময় দিতে হতো। সপ্তাহে দু থেকে তিন দিন অফিস ও যেতে হতো।

বাইরে থেকে যতই মডার্ন বিজনেস উইমেন সাজুক ভেতরে ভেতরে মা এক সাধারণ গৃহবধূ ই ছিল। লুকিয়ে বাবার মঙ্গল কামনা করে সিদূর ও পড়তো। এমন কি শর্মা আংকেল এর বদান্যতায় বাবা মায়ের ডিভোর্স এর প্রসেস শুরু হওয়ার পরেও মা লুকিয়ে বাবার জন্য সিদূর পড়তো। শর্মা আংকেল এর ইচ্ছে ছিল মা কে নিজের আলিশান অ্যাপার্টমেন্টে নিয়ে গিয়ে তোলা। কিন্তু মা সেটা তে কিছুতেই রাজি হচ্ছিল না। যে নতুন ৩ bhk ফ্ল্যাটে আমরা এসে উঠলাম। তাতে রুমের সংখ্যা আমাদের আগের বাড়ির মতন ছিল না।

মনোজ আর কেয়ামত এর মধ্যে মা একজন কেই থাকতে দিতে পারতো। আমার পছন্দ ছিল মনোজ, কিন্তু মা আমাকে অবাক করে শেষ পর্যন্ত কেয়ামত কে বেছে নিলো। শেষ কয়েক মাসে মা মনোজের তুলনায় কেয়ামত এর সঙ্গেই বেশি ঘনিষ্ঠ হয়েছিল এটা আমি দেখেছিলাম। তাছাড়া তাকে মনোজের এর বদলে ওকে বেছে নেওয়ার জন্য অন্য কারণ ও ছিল। কেয়ামত মায়ের জীবনের এমন কিছু গোপন তথ্য জেনে গেছিলো, এমন সব অবৈধ কারবারে মা কে জড়িয়ে ফেলেছিল। ঐ তথ্য গুলো বাইরে লিক হয়ে গেলে পর মা অনেক বড়ো বিপদে পড়ে যেত। কাজেই কেয়ামত কে সন্তুষ্ট রাখা মায়ের পক্ষে একান্ত জরুরি হয়ে পড়েছিল। মনোজ বিদায় নিতে কেয়ামত মায়ের আরো বেশি ঘনিষ্ট হয়ে মা কে দিয়ে আরো বেশি করে নেশায় আর অন্ধকার কাজ কর্মে জড়িয়ে ফেলা শুরু করে।

এদিকে দিলেওয়ার এর সঙ্গে চুক্তির দুই মাস পূর্ণ হয়ে গেছিলো। মা স্বভাবতই লাইভে আসা বন্ধ করে দিয়েছিল। কিন্তু দিলেওয়ার মা কে কিছুতেই ছাড়তে চাইছিল না। তাকে বার বার ফোন করে পাগল করে তুলছিল। জুয়া খেলা বন্ধ করার ফলে, মার টাকার প্রয়োজন মিটে গেছিলো, তাই মা সতর্ক ভাবে ওদের প্রপোজাল এড়িয়ে যাচ্ছিল। এক মাস ধরে ক্রমাগত মায়ের কাছে আবেদন নিবেদন করেও যখন কাজের কাজ হলো না তখন দিলওয়ার মা কে রাজি করাতে অন্য পন্থা নিল। কেয়ামত মার সঙ্গে বিট্রে করে এই বিষয়ে দিলেওয়ার কে সাহায্য করলো।

মায়ের কিছু লাইভ ফুটেজ দিলেওয়ার এর সিস্টেমে রেকর্ড করা ছিলো। যদিও সেই সব ভিডিও তে মার মুখে মাস্ক আর পর্দা ছিল, দিলেওয়ার সেটা থেকে একটা আলাদা ক্লিপ বানিয়ে রেখেছিল। কেয়ামত এর কাছ থেকে মায়ের একটা সেলফি নিয়েছিল তারপর ওটা নিয়ে এডিট করে ঐ ক্লিপের সঙ্গে ম্যাচ করে একদিনের ভিতর একটা ভিডিও বানিয়ে মার ফোনে শেয়ার করলো।

মা নিজের ফোনে দিলেওয়ার এর পাঠানো ঐ এমএমএস ভিডিও দেখে খুব ভয় পেয়ে গেলো। মা সাথে সাথে দিলেওয়ার কে জিজ্ঞেস করল, এসবের মানে কী? দিলেওয়ার বললো, তার কাছে নাকি এরকম অনেক ভিডিও আছে সেগুলো ও খুব যত্ন করে রাখা আছে। মা কে ঐগুলো দেখাতে চায়। আর ঐ ফুটেজ গুলো বাইরে লিক করে দিলে মার সমাজে সন্মানের কি হতে পারে সেটাও ও চিন্তা করে দেখছে। তখন শর্মা আংকেল কিছুদিনের জন্য শহরের বাইরে গেছিলো কাজেই মা কে এই বিষয়ে সাহায্য করার জন্য কিছু ছিল না। ওদের ক্রমাগত মেসেজ আর কলে মা ভয় পেয়ে চিন্তা শক্তি হারিয়ে ফেলছিলো।

মা বুঝে গেছিল সে কত বড় ফাদে সে পরে গেছে। এখন দিলেওয়ার তাকে নিয়ে খেলছে। ওদের এই আচরণে যদিও মা ভীষন রকম চটে গেছিলো ঐ দিলেওয়ার আর কেয়ামত এর উপর। ফোন রেখে টেবিলের সামনে রাখা সুন্দর দামি ফুলদানি ছুড়ে ভেঙে ফেললো। মার মতন শান্ত ভদ্র ভালো ঘরের নারীর পক্ষে এমন আচরণ একেবারেই অপ্রত্যাশিত ছিল।

ঐ দামি পর্সেলিনের ফুলদানি ভাঙবার শব্দ শুনে আমি আমার ঘর থেকে ছুটে এসে দেখলাম , মা বার ক্যাবিনেটের কাচের দেরাজ খুলে এক পেগ ভদকা খেতে খেতে কি একটা ভাবছে । একেবারে খুব ফ্রাস্ট্রেশন না হলে মা সাধারণত দিনের বেলা ওরকম মদ পান করে না। আমি তার মুখের দিকে তাকিয়ে ভয়ে কিছু জিজ্ঞেস করতে পারলাম না।

আমি মার উপর এক নজর চোখ বুলিয়ে ঐ ড্রইং রুম ছেড়ে চলে যেতে যেতে শুনতে পেলাম, আমার মা আবার কার সাথে ফোনে কথা বলছে, আমি দাড়িয়ে শুনলাম, মা বলছে, “দিলেওয়ার জী আমি একবার আপনার সাথে দেখা করতে চাই, আপনি যা করছেন ঠিক কাজ করছেন না। ওকে, বলুন আজ কোথায় দেখা করতে বলছেন? —— হ্যাঁ চিনি জায়গা টা—-কী নাম বললেন, চাঁদনী বার?—- ওখানে তো শুনেছি সন্ধ্যের পর নাচ গান হয়, অন্য কোথাও যদি মিট করতে পারেন… না না ঠিক আছে, আমি আসছি।”

তারপর মা কাউকে কিছু না বলেই, ভালো করে সেজে গুজে একটা স্লিভলেস জিপার বডি সুট পরে সন্ধ্যে ৬ টা নাগাদ নিজেই গাড়ি চালিয়ে বেরিয়ে গেলো। নন্দিনী রায় সেই যে বেরিয়ে গেলো, ঐ দিন আর বাড়ি ফিরে আসলো না। তার ফোন টাও সমানে নট রিচেবেল বলছিল। মা রাতে বাড়ি না ফেরায় আমি চিন্তায় চিন্তায় অস্থির হয়ে গেছিলাম।

যদিও কেয়ামত ব্যাপার টা বেশ ভালো করে জানত। তাই সে আমাকে অহেতুক চিন্তা করতে বারণ ও করছিল। কেয়ামত মার সুস্থ্য স্বাভাবিক ভাবে ফিরে আসবার গ্যারান্টি দিলেও আমি কিছুতেই মনের আশঙ্কা দূর করতে পারছিলাম না। আগের দিন সন্ধ্যে ৬ টায় বেরিয়ে আমার মা শেষ মেষ বাড়ি ফিরে এসেছিল পরের দিন বেলা ১২ টা সময়ে। মা ফিরেছিল সম্পূর্ণ ক্লান্ত আর বিধ্বস্ত অবস্থায় একটা ট্যাক্সি করে। ড্রাইভিং করে ফেরার মতন শক্তি সে সময় মার শরীরে অবশিষ্ঠ ছিল না।

বাড়ি ফেরার পর মায়ের হাল দেখে আমি ভয় পেয়ে গেছিলাম। তার শরীরে অজস্র টাটকা কাটা ছেড়া দাত বসানোর দাগ ছড়িয়ে ছিল। এমন কি বডি সুটের তলায় পরা কালো রঙের নন ওয়ার্ড ব্রা টার ও ক্লাস্প ভাঙা। মার ঠোঁটের কোণে চামড়া ছড়ে গিয়ে রক্ত জমাট বাঁধা দাগ ও আমার চোখে পড়েছিল। মা এসে কোনো কথা না বলে কোনো রকমে কষ্ট করে নিজের পা দুটো টেনে কিছুটা খুড়িয়ে খুড়িয়ে নিজের রুমে ঢুকে দরজা টা ভেতর থেকে বন্ধ করে দিল। পরে জেনেছিলাম, মা দিলেওয়ার দের ঐ জঘন্য প্রফেশন থেকে মুক্তি পেয়েচে, কিন্তু আরো বেশি অসম্মানজনক শর্তে।

দিলেওয়ার চাঁদনী বারে মা ডেকে দুজনের মধ্যে একটা রফা সূত্র বের করে। দিনের পর দিন যেমন ঐ মুখ ঢেকে লাইভে এসে নিজের শরীর অচেনা অজানা লোক দের খুলে দেখানো মার মতন সমাজে সন্মানীয়া নারীর পক্ষে কন্টিনিউ করা সম্ভব ছিল না, ঠিক তেমনি, দিলেওয়ার রাও মায়ের মতন একজন হট সুন্দরী পরিণত বয়স্কা নারী কে বাগে পেয়েও ছেড়ে দিতে রাজি নয়। শেষে মা আর কোনো উপায় নেই দেখে, তার কাছে থাকা শেষ অস্ত্র ভের করে। সে দিলওয়ার এর চোখে চোখ রেখে নরম আর মিষ্টি স্বরে অনুরোধ করলো এইবারের মত তাকে যেনো ছেড়ে দেওয়া হয়, তার বদলে মা ওদের ব্যাক্তিগত আনন্দের জন্য সব কিছু করতে রাজি। মার সেক্সী ক্লিভেজ আর মদ এর গ্লাসে চুমুক দেওয়া রসালো ঠোঁট টা দেখে দিলেওয়ার মার প্রস্তাবে রাজি হয়ে যায়।

আর কোনো সময় নষ্ট না করে মা কে সেই রাতেই নিজের বাইক এর পিছনে বসিয়ে দিলেওয়ার তাকে ওর এক বন্ধুর বাড়িতে নিয়ে যায়। ঐ বন্ধুর নাম ছিল ইমতিয়াজ। উনি ছিলেন বিশাল ধনী, ৪৭ বছর বয়স এর এক লৌহ ব্যাবসায়ী। মা বাইক এ চেপে রওনা দেওয়ার পর, দিলেওয়ার এর কথা মতন তার এক চেলা এসে মার গাড়ি তার জিম্মা নেয়। ওটাকে ড্রাইভ করে ইমতিয়াজ ভাইএর বাড়ি অবধি নিয়ে আসে। তারপর সারা রাত ধরে যা যা হয় মার হাতে কোনো কিছুর আর নিয়ন্ত্রণ থাকে না।

মা তার জীবনে প্রথম বার থ্রীসাম সেক্সের অভিজ্ঞতা পায় ঐ রাতে। দিলেওয়ার আর ইমতিয়াজ দুজনে মিলে আমার মার সুন্দর শরীর টা কে মনের সুখে ভোগ করে, ওদের মিলিত অত্যাচারে মা সারা রাত দু চোখের পাতা পর্যন্ত এক করতে পারে না। মা পরে একবার বাড়িতে ঘরোয়া আসরে বলেছিল “ঐ রাত টা আমি জীবনে কোনো দিন ভুলতে পারবো না।

ঐ রাতে নিজেকে প্রেয়সি না বেশ্যা মনে হচ্ছিলো। দুজন নরাধম যেনো একটা পছন্দের খেলনা পেয়ে মনের সুখে সেদিন খেলছিল।” দুজনের সঙ্গে একসাথে করার অভ্যেস না থাকায় মার আরো বেশি কষ্ট হচ্ছিলো। সকালে জ্ঞান ফিরে ব্যাথায় কাতরাতে কাতরাতে দুজনের মাঝ খান থেকে বিছানা ছেড়ে উঠতে গিয়ে মা উঠতে পারলো না। ইমতিয়াজ এর ঘুম ভেঙে গেছিলো, ও মায়ের হাত ধরে টেনে আবার বিছানায় শুইয়ে দিয়েছিল। আর তারপর মায়ের উপর ফের চড়ে বসলো।

আধ ঘন্টা পর ইমতিয়াজ শান্ত হতেই দিলওয়ার এর ঘুম ভেঙে গেছিলো। ইমতিয়াজ এর জায়গায় ও উঠে চড়ে বসলো। মা যন্ত্রণায় সারা শরীর ছিড়ে গেলেও দিলেওয়ার কে কোনো বাধা দিলো না। মা বুঝতে পেরেছিল বাধা দিলে কোনো কাজ হতো না। উল্টে মার ই সমস্যা বাড়ত বই কমত না। এই ভাবে রাতের পর পরের দিন সকালেও করে ওদের দুজন কে বিছানায় সন্তুষ্ট করতে গিয়ে আমার মার বাড়ি ফিরতে ১২ টা সাড়ে ১২ টা বেজে গেছিলো। ঐ দিন সন্ধ্যে বেলাতেই শর্মা আংকেল ফিরে এসেছিল।

What did you think of this story??

Comments

Scroll To Top