বিরাজের নতুন অধ্যায় – ০৭

বিরাজের নতুন অধ্যায় – ০৬

রিনি – কি হয়েছে এত দুঃখ কিসের?😀

দরজার পাশে হেলান দিয়ে থাকা একটা রূপের রাণী জিজ্ঞেস করে উঠলো তাকে।

বিরাজ দরজায় দাঁড়িয়ে থাকা মুখটা দেখে এক ফোঁটা হাসি ফিরলো মুখে। ওর চোখে মুখে হাসি বুঝা যাচ্ছে।

রিনি- ওরে বাবা! সেকেন্ড আগে কষ্ট ভরা নিঃশ্বাস পড়ছে আর এখন এত খুশি! কারণটা কি বাবা?😀

বিরাজ শুধু মাথা নাড়িয়ে “কিছুনা” উওর দিলাে।

রিনি খুব ভালো করে জানে কার জন্য এত খুশি। রিনি এসে ওর পাশে বিছানায় উঠে বসলাে। একদম কিউট স্টাইলে।

” কি খেলছো আব্বু? ”

” আব্বু! শুনে বিরাজ একটু প্রশ্ন সূচক মাথা তুললো।

” কেন আমি বুঝি আব্বু ডাকতে পারিনা?😊” রিনি আবদার সুরে কথাটা বললো।

বিরাজ মাথা নেড়ে “হ্যাঁ😊” সূচক জবাব দিলো।

” এইতো আমার লাভলি আব্বু, কি খেলছো? ”

” Call Of Duty: Advance Warfare ”

” আমিও খেলবো ”

” খেলতে পারবেন? ”

” দেখি ট্রাই করে ”

বিরাজ আন্টিকে একটা কন্ট্রোলার দিয়ে নতুন ম্যাচ চালু করলো, কিন্তু রিনি পারেই না। পারবেই বা কিভাবে!

রিনি – নাহ আমার দ্বারা হবে না, এক কাজ করি আমি তোমার ট্যাবটায় ছবি দেখি আর তুমি গেম খেল।

বিরাজ এতেও খুশি। আন্টির উপস্থিতি তার দরকার।

রিনি শুয়ে ট্যাবটা দেখতে লাগলাে। রিনি বারবার বিরাজকে বিভিন্ন ছবি সম্পর্কে জানতে চাইছে তাই বিরাজকে বারবার পিছনে ফিরে বাঁকা হয়ে ছবিটা দেখে উওর দিতে হচ্ছে।

” বাবা অনেক হয়েছে খেলাধুলা, এবার শুয়ে পড় ”

বিরাজ কন্ট্রোলারটা পাশের টেবিলে রেখে আন্টির দিকে ফিরে শুয়ে গেল।

রিনি ট্যাবে ছবি দেখছে- বিরাজ আন্টিকে দেখছে। রিনি ট্যাবে ছবি দেখছে- বিরাজ আন্টিকে দেখছে। খুব সুন্দর একটা মোমেন্ট তৈরি হয়েছে।

রিনি ব্যাপারটা লক্ষ্য করলো। ট্যাবটা রেখে বিরাজের দিকে এক হাত মুখের নিচে দিয়ে শুলো।

” কি দেখছো এমন করে আব্বু? ” রিনি খুব কিউট করে কথা বলতে লাগলো মানো যেন নিজের ছেলের সাথে সাধারণ কথা বলছে।

” আপনাকে!😊 ”

” কেন? ”

” এমনি! দেখতে খুব ভালো লাগছে ”

রিনিও বিরাজের মতো প্রায় দুই মিনিট পর্যন্ত একে অপরের দিকে তাকিয়ে আছে। রিনির কাছে খুব ভালো লাগছে ছেলেটা তার চোখে চোখে একনজরে তাকিয়েই আছে। বিরাজও আন্টির বড় বড় নিয়ন কালারের চোখ গুলোকে বুঝার চেষ্টা করছে। কি চমৎকার চোখ আন্টির। রিনিও তার চোখের কথায় হারিয়ে গেলো।

বিরাজ – একটা প্রশ্ন করবো?

রিনি – বলো

বিরাজ – তুমি কি মাঝে মাঝেই এমন পোশাক পরো?

” এমন পোশাক বলতে? ”

” না মানে, এত সুন্দর আর কিউট পোকিমনের টিশার্ট আর স্পোর্টস শর্টস ”

” না ”

” আর গলার এই বেল্ট টা?”

” ওইটাও না ”

” তাহলে আজকে পরলেন যে? ”

” কেন খারাপ লাগছি বুঝি ”

” না না! আপনাকে এতে ভীষণ কিউট লাগছে। ”

” শুধু কিউট বুঝি, আমিতো ভাবলাম তুমি অনেক বেশি করে আমার প্রশংসা করবে। ”

বিরাজ এর উওর দিতে পারলােনা!

আরো কিছুক্ষণ নীরবতার আধারে একে অপরের দিকে তাকিয়ে আছে।

রিনি আর পারলো না। সে বিরাজকে অপরদিকে ফিরে শুতে বললো।

রিনি আন্টিঃ ওকে তুমি ওদিক ফিরে ঘুমাও!

বিরাজের কাছে এটা খারাপ লাগলো। কিন্তু কিছু করার ছিলোনা। ও অপরদিকে মুড়ে গেল।

” ভালোইতো লাগছিলো। কি হতো দেখলে! ” বিরাজ মনে মনে ভাবতে লাগলো।

এদিকে রিনির খেয়াল ছিলো অন্যটা। রিনি বিরাজকে পিছন থেকে টেনে আগলিয়ে বুকে নিয়ে নিলো। যেমনটা মায়েরা সন্তানকে বুকে নিয়ে ঘুমায় তেমন করে।

মানে রিনির বুক এখন বিরাজের পিঠের সাথে লেপ্টে গেছে আর রিনি এক হাতে বিরাজকে বুকে রেখে জড়িয়ে নিলো।

বিরাজ এমনটা কল্পনায় ও ভাবেনি। ওর মন যে কতটা খুশি হলো তার বয়ান করার সামর্থ্য ও রাখেনা। শুধু বলতে পারবে, তার গায়ে চাঁদ জমেছে। আর কিউট এবং বোল্ড এনিমি গার্লসের মতো আন্টি হাত দিয়ে তাকে জড়িয়ে ধরে রেখেছে এটা যে কতটা গৌরবময় মুহুর্ত তাও বলা যাবে না।

ধকধক ধকধক ধকধক করতে লাগলো বিরাজের হৃদপিণ্ড। ধকধক… ধকধক….

রিনি খুব আন্দাজ করতে পারছে, ছেলেটার হার্টবিট বেড়ে গেছে। রিনির মন এতে চরম শান্তি পেল। তাই রিনি নরমাল কথাবার্তা শুরু করে দিলো ছেলেকে শান্ত করতে।

রিনি আন্টির সাথে মধুর সব কথা বলতে বলতে আর বিরাজের বুকে রিনির হাতের হালকা হালকা নড়াচড়ায় এবং রিনির গায়ের উষ্ণ গরমে চোখ বুঝে গেল। রিনিও কথাবার্তা না শুনে বুঝে গেল ছেলেটা ঘুমিয়ে গেছে।

রিনিও খুশি হলো। বিরাজের ব্যবহার, বিরাজের তার প্রতি সম্মান আর তার এমন শরীরের প্রতি লোভ কন্ট্রোলে রাখাটা রিনির হৃদয়ে রাখা soft corner টাকে অনেক বড় করে দিয়েছে। বিরাজের কাছে রিনির আবদার অনেক বেশি বেড়ে গেছে। রিনি মনেপ্রাণে বিরাজকে ছেলে মেনে নিয়েছে। এখন শুধু “আম্মি” ডাকটা শুনার বাকি। এককথায় ছেলের মুখে ” আম্মি ” ডাক শুনার অধির আগ্রহে রিনি।

বিরাজ এখন সম্পূর্ণ ঘুমে। রিনি ওকে জড়িয়ে ধরে ভাবছে কথা গুলো। রিনি হালকা করে মাথা তুলে কানের পাশে চুমু খেল। মায়ের মমতা।

রিনি পাশে থাকা সুইচ অফ করে আরজিবি নীল লাইটগুলো জ্বালিয়ে রুমটা হালকা আলোকিত করলো। হালকা ঘুমনামা আলোয় বিরাজকে আগলে নিয়ে ঘুমানোর চেষ্টা করলো রিনি। রিনির এক হাত ছেলের বুকের উপরে ঘুরাতে লাগলো।

অনেকটা সময় ধরে বিরাজকে ধরে ঘুমানাের চেষ্টা চালিয়ে গেল রিনি। ওর ঘুম আসছে না। ভাবছে বিভিন্ন কথা, আজকে কি হলো, কেন এমন করলো সে, কেন পিচ্চির সামনে এত খুলে গেল সে, কি জন্য তার এত পরিবর্তন, কেন বিরাজকে তার ছেলের মতো দেখছে, কেন ছেলেটা তার এমন পোশাক পরার পরেও উল্টোপাল্টো কাজ করলো না, কেন ছেলেটাকে দেখলেই তার মন গলে যায়! এসব ভাবতে ভাবতে রিনির হাত বিরাজের গেঞ্জির ভিতরে ঢুকে গেলো। বিরাজের গায়ের চামড়ায় হাত পড়তেই রিনি একটু সজাগ হয়ে গেল। খুব গরম আর কাঠামো শরীর বিরাজের।

কিন্তু পরোক্ষনেই সব পাল্টে গেল। রিনির কাছে ভালোই লাগছে তবে তা নেগেটিভ ওয়েতে না, স্নেহের আদলে। ও আস্তে আস্তে হাত বুলিয়ে দিতে লাগলাে বিরাজের বুকে আর পেটে।

রিনির মনটা এতক্ষণে একটু আধটু গরম ফিল করতে চাইছে। প্রায় ১৬ মাস পরে রিনি কোন পুরুষের শরীর জড়িয়ে ধরে শুয়ে আছে। রিনি খুব কাডলার ওমেন। জড়িয়ে ধরে শুতে পছন্দ করে। রিনির হাত বিরাজের গায়ের উষ্ণতা ভীষণ অনুভব করছে। ওর হাত বারবার ঘুরতে লাগলো বিরাজের শরীরে।

গরম হয়ে থাকা বিরাজের শরীর অনেক ভালো লাগছে রিনির। গায়ের সাথে গা মিশে থাকায় রিনির নিঃশ্বাস বিরাজের গলার পিছনে ধাক্কা খেয়ে আবার তার নাকে এসে পড়ছে। রিনির কোমল হাত বিরাজের শরীরের মজা নিচ্ছে এটা বিরাজের হোশ নেই। কোমল হাতের ছোঁয়ায় বিরাজের ঘুম আরো গাড় হয়ে এলো। এমন গাড় ঘুম যার কারণে স্বপ্নে চলে গেল বিরাজ।

রিনির হাত ঘুরতে ঘুরতে অনেকটা নিচে চলে আসতে লাগলো৷ প্রথমে বুক, তারপর পেট, তারপর আস্তে আস্তে নাভীতে, আর নাভীর নিচে যেতে চাইলো না রিনি!

রিনি মনের সুখ ছেলেকে জড়িয়ে নিয়ে নাভীতে হাত ঘুরাতে লাগল। রিনি মন থেকে আশা করা ছেলের নাভীর পথে হাত ঘুরাতে ঘুরাতে হালকা একটা লাইন ফিল করলো।

নাভীর নিচে থেকে খুব কোমল একটা চুলের লাইন তার হাতে ফিল হলো। বিরাজের সবে বাল( লোম) গজানো শুরু হয়েছে। তাই খুবই অল্প আর নরম বালের লাইনের উপরের হাত নাড়িয়ে রিনির খুব খুব ভালো লাগলো। ও প্রতিটা বাল আঙ্গুলের মাথা দিয়ে ছুঁয়ে দেখতে লাগলো আর অনুভব করতে লাগলো।

লাইন ক্রমশ নিচের দিকে বেড়েই চলেছে। এদিকে রিনির কাছে বালগুলোর চিকন লাইনটা নিয়ে খেলতে ভালো লাগছে, কিন্তু তার হাত আর সামনে নিয়ে যেতে তার হোশ তাকে সঙ্গ দিচ্ছে না।

রিনি থেমে গেল। রিনি আর এগোতে পারল না। রিনির কাছে আর শক্তি নেই সামনে আগানোর। রিনি ভাবলো কিছুক্ষণ কি করবে সে!

যাই হোক সে মন থেকে ছেলে মেনে নিয়েছে বিরাজকে। শুধু তার মুখে দুই অক্ষরের অপূর্ব শব্দ ” আম্মি ” শোনার জন্য অপেক্ষা করছে তার মন।

রিনির মনটা ধকধক করে উঠলো, কি করবে সে! সে জানে মানুষের মধ্যে নিষিদ্ধ জিনিসের প্রতি লোভ বেশি। কিন্তু রিনির মনটা ছোট ছোট বালগুলো ধরে দেখতে চায়, ওগুলোর সাথে খেলতে চায় আর টেনে একটা দুটো চিঁড়ে দেখতে চায়, নরম আর নতুন গজানো দুর্বাঘাসগুলোর ফিলটা নিতে মন টানছে রিনির, কিন্তু অপরদিকে তার মধ্যে একজন আদর্শ আর সম্মানি মা হওয়ার আশা।

রিনি কি করবে তা বুঝতে পারছে না। সে নাভীতে হাত ঘুরাতে ঘুরাতে একে একে সবকিছু ভাবতে লাগলো।

রিনির ভীষণ ইচ্ছে তার ছেলের ( কারণ রিনি বিরাজকে মন থেকে ছেলে মেনে নিয়েছে বিকেলেই )। রিনির ভীষণ ইচ্ছে তার ছেলের সদা গজানো দুর্বাঘাসগুলোর উপরে হাত রাখতে। কেমন কিউট হয় বাল্যবয়সী ছেলেদের সদা জগানো শুরু হওয়া বালের চুলগুলো তা বুঝতে। রিনি অনেক লম্বা সময় ধরে দোটানায় পড়ে রইলো। তার ভয় করছে। কারণ এটা অন্যায় সে জানে। আর ছেলের সামনে তার সম্মানও অনেক বেশি কিছু।

ছেলের সম্মুখে মায়ের মর্যাদায় কোন আঁচই, কোন মায়ের সহ্য নয় তা আমরা সবাই জানি।

রিনি নিজেকে কন্ট্রোল করে রাখলো। প্যান্টির উপরের অংশেই আঙ্গুল দিয়ে একটু আন্দাজ করে নিলো। রিনি চোখ বন্ধ করে জড়িয়ে ধরে রেখেছে বিরাজকে গত এক ঘন্টার চেয়ে বেশি। বিরাজ ক্ষনিকের জন্যও নড়েনি। নিঃশ্বাস অনেক আগেই জানান দিয়েছে ছেলেটা ঘুমিয়ে আছে। রিনি এখন হান্ড্রেড পারসেন্ট সিউর বিরাজ পুরো ঘুমের জগতে আচ্ছন্ন।

রিনি একটু রিলাক্স হয়ে হাতটা আস্তে আস্তে, আস্তে আস্তে করে থ্রি কোয়াটারের ভিতরে নিয়ে গেল।……..

এদিকে বিরাজ এই মুহুর্তে স্বপ্নে দেখছে-
( বিঃদ্রঃ স্বপ্ন আমার ১০-২০% মনে আছে! তাই এতে আমি তেমন কিছু নাও লিখতে পারি )

বিরাজ, বিরাজের আম্মু (আসল আম্মু মুন্নি), স্বর্ণা আপু আর মিশু ভাবি সহ পাশের বাড়ির মিঠুন কাকার কারে করে কোথাও বের হয়েছে। সবাই অনেক খুশি!

অপরদিক রিনি তার হাত খুব সাবধানে বিরাজের থ্রি কোয়াটারের ভিতরে ঢুকাতে সক্ষম হয়েছে। রিনি তার লিমিট ক্রস করলো না। বালগুলো পর্যন্তই আঙ্গুল নিয়ে গেল। খুব অল্প গজে উঠেছে মাত্র। কিন্তু খুব ভালো লাগছে বালগুলোয় হাত রেখে রিনির। যেন সে অসম্ভব কে সম্ভব করে নিয়েছে। খুব ভালো লাগছে হাত নাড়িয়ে নাড়িয়ে ছোট ছোট বালের চুলগুলোয় খেলতে।

রিনি অনেক লম্বা সময় ধরে এভাবেই রাখলো।ওর কাছে কেন জানি হাত সরাতেই ইচ্ছে করছে না। কারণ বিরাজ পুরো ঘুমে।

একটা কথা আছে- সুযোগের সৎ ব্যবহার করতে সবাই জানে। আর সেই সুযোগ মাথা চেপে ধরলো রিনির। কেন জানি রিনির মধ্যে একটা প্রশ্ন ভেসে এলো। যখন আমার হাতটা জিনিসটার একটু উপরের বালগুলো নিয়ে খেলছে তখন-……….. শুধু একবার ধরে দেখি!

” দুই দুই বার ছেলেটার জিনিসটা লুকিয়ে দেখে নিলাম। বয়সের তুলনায় অনেক ভালোই মনে হয় সকালে যা দেখলাম। আসলেই কি যতটা ভাবছি ততখানি হবে? নাকি আমার চোখের ভুল? না না! হবে হয়তো! কিন্তু কত বড়? কেমন গরম? এখনও কি আমার শরীরের কারণে গরম হয়ে আছে? বিকেলেতো লেংটাই দেখলাম দূরে থেকে। তখনতো নরমালই ছিলো! দু-চার হবে, কিন্তু সকালে? একবার ধরে নিয়ে দেখবো? না না না! দূর রিনি কি ভাবছিস তুই! ছেলেটা জেগে গেলে মান ইজ্জত সব যাবে।…… কিন্তু ওতো ঘুমোচ্ছে।……. হাতের নিচেইতো পড়ে আছে। একবার ধরে দেখি? টের পাবেনা! ”

আসলে এতক্ষণে রিনির একটু আধটু গরম হয়েছে। কারণ সে সহজে পটে না। মানে সে অতি সহজে হর্নি হয় না। প্রচুর সময় লাগে।

কিন্তু রিনি আর এগোতে চাইছে না, আবার চাইছেও। রিনি হাত একদম কাছে নিয়ে গেছে কিন্তু তার আগে বাড়ানোর সাহস তার নেই। রিনি ভাবতে ভাবতে সময় পার করছে।

P:S: রিনি যেন বাঁধ ভাঙা নিঃশ্বাস ফেললো। বা গোঙানির শীৎকারও বলা যায়। রিনির মুখের এক্সপ্রেশন দেখে বিরাজের অবস্থা এতটাই খারাপ হয়ে গেলে যে, বিরাজের সারা শরীর কাঁপতে লাগলো।

What did you think of this story??

Comments

Scroll To Top