দাম্পত্যের অচেনা শৃঙ্খল – পর্ব ০৫

দাম্পত্যের অচেনা শৃঙ্খল – পর্ব ০৪

বেসামাল গন্তব্যে তুলি
===============
টিপটা দুই বার উঠিয়ে বসালাম। দুই ভ্রুর মাঝখানে একবারও বসেছে বলে মনে হচ্ছে না। গোল টিপ হলে সহজেই বসানো যেত। কিন্তু কল্কির মত লাল টিপটা একটু আঁকাবাঁকা বলে বার বার মনে হচ্ছে ঠিক মাঝখানে বসেনি। এবারে একেবারে ড্রেসিং টেবিলের আয়নার কাছে গিয়ে বসানোর চেষ্টা করলাম। একটু দূর থেকে দেখে এবারে ঠিক হয়েছে মনে হচ্ছে। উঠে আরো একবার দাঁড়িয়ে দেখে নিলাম শাড়িতে কেমন লাগছে। শাড়ি আজ অনেকদিন পর পরলাম। আজ অফিসের একটা কনফারেন্স আছে। যতটুকু ধারণা করতে পারছি আজকে আমাদের এনজিও কিছু একটা সম্মাননা পাবে গ্লোবাল অফিস থেকে। নতুন কিছু ইনিশিয়েটিভ এর জন্যে সুরেন স্যার এর বেশ সুনাম করেছে ইউএন এর ডেলিগেটরা। যদিও আমরা কাজ করি সমাজের দুস্থ মানুষদের নিয়ে, কিন্তু আমাদের কনফারেন্স গুলো হয় সব ফাইভ স্টার হোটেলে। না হলে মনে হয় ডোনারদের ইজ্জত থাকে না। বা, হয়তো আমাদের এখানকার ফাইভ স্টার হোটেলের বলরুম গুলো পশ্চিমা দেশের সাধারণ মানের হোটেলের মতো। হবে কিছু একটা। আমার অত চিন্তায় কাজ নেই।

শাড়িতে নিজেকে জড়িয়ে কেমন লাগছে সেটা ঘুরে ঘুরে আয়নায় দেখলাম। মনিপুরী ডিজাইনের কালো পাড়ের মেরুন হাফ সিল্ক শাড়িটা বেশ মানিয়েছে আমাকে দেখছি। হাফ হাতা ব্লাউজ হলেও বুকের শেপটা ভালো করে বসেছে। নাভির একটু নিচে নামিয়ে আমি শাড়ি পড়তে পছন্দ করি। তাহলে পাশ থেকে ছেলেগুলোকে ছোকছোক করতে দেখলে ভালোই লাগে। আঁচলটা টেনে পরেছি বলে শাড়িতে পেছনটা একটু উঁচু লাগছে। তানপুরার মতো অতটা বেঢপ না লাগলেও, সেতার এর খোলের মতো উঁচু হয়ে আছে কোমরের নিচ থেকে। সুরেন স্যার আবার আমাকে আজ এই সাজে দেখে না জানি কি করেন। একটু বাঁচিয়ে চলতে হবে আজকে। শাড়িতে ভাঁজ পড়ে গেলে দেখতে ভালো লাগবে না। এছাড়াও যে কোনো দিন পিরিয়ড শুরু হতে পারে। পুরুষগুলা তো শুধু শুকনো জমিতেই লাঙ্গল চালাতে পছন্দ করে। কয়জনই বা আর মেয়েদের সেই চটচটে দিন গুলোতে আমাদের কাছে টেনে নেয়? তলপেটে অসহ্য ব্যাথা না থাকলে সেই ভিজে জবজবে দিনগুলোতে মনে হয় সারাদিন একটা কিছু ওখানটায় ঢুকিয়ে রাখি। আমাদের এদিকে তো আর ট্যাম্পুন পাওয়া যায় না। থাকলে বেশ হতো।

হিল স্যান্ডেল পরে দেখলাম শাড়ির কুচিটা একটু উঠে আছে। জয় এখনও ভোঁস ভোঁস করে ঘুমাচ্ছে। ওকে ডেকে তুলে একটু শাড়ির কুচিটা ঠিক করে নিতে হবে। কি সুন্দর লাগছে জয়ের মুখটা। একেবারে বাচ্চাদের মতো বালিশ বুকে জড়িয়ে মাথা কাত করে ঘুমাচ্ছে। জয়ের ঠোঁটে একটা চুমু দিয়ে গালে আদর করছি,
‘এই, ওঠো না একটু। আর কত ঘুমাবে?’
‘হু?’ ঘুম জড়িত কণ্ঠে উত্তর দেয় জয়।
‘আরে বাবা ওঠো! তোমার তো অফিসের দেরি হয়ে যাবে! ওঠো তো!’
‘হু? আপনি কে ম্যাডাম? আমার ঘরে এলেন কিভাবে?’ জয় অবাক চোখে দেখছে আমাকে।
‘হয়েছে বাবা হয়েছে, ওঠো এবার। একটু হেল্প করো।’

‘কি বলছেন? আপনাকে হেল্প করবো কেন? আমার বৌ কই?’ জয় উঠে বসেছে খাটে।
‘হাহাহা, কি সব আলতু ফালতু কথা বলছো? ওঠো, আমাদের কনফারেন্স আছে আজকে। আমার শাড়িটা একটু ঠিক করে দাও।’
‘বাপরে! তোমাকে তো পুরা অপ্সরী লাগছে! ঘুম থেকে উঠে চোখ খুলে মনে হচ্ছিল স্বপ্ন দেখছিলাম! জাস্ট ফাটাফাটি!’
জয় বিছানা থেকে উঠলো। ওর ট্রাউজারের উপর তাবু হয়ে আছে ওর জিনিসটা। ছেলেরা সকালেই এত হর্নি হয়ে থাকে কেন কে জানে? আমি মানে মানে কেটে পড়তে পারলেই বাঁচি। জয়কে বললাম,
‘একটু দাও না সোনা! প্লিজ।’
‘দিচ্ছি, দিচ্ছি।’ জয় গিয়ে ঘরের দরজা লক করে দিল!

আমি চেঁচিয়ে উঠি, ‘আরে সেই দেয়া না তো! আমার শাড়ির কুচিটা একটু নামিয়ে দাও। প্লিজ।’ আমার কথা মনে হয় যেন জয় শুনতেই পায়নি। আমাকে এসে জড়িয়ে ধরলো। বলছে,
‘প্রথমে যা বলেছো, তা-ই। দিতে বলেছ, এখন নিতে হবে। দেব আমি!’
‘উফ ছাড়ো! প্লিজ, লিপস্টিক নষ্ট হয়ে যাবে বেবি! এখন না। শাড়িতে ভাজ পরে যাবে।’
‘কিচ্ছু হবে না, আমি দূর থেকে দেব।’ আমার পিঠে আর কানের লতিতে আদর করছে জয়। ও ঠিক জানে আমাকে কিভাবে উত্তেজিত করতে হয়। গলায় চুমু দিচ্ছে আলতো করে, যাতে মেকাপ উঠে না যায়। আমি তাও শেষ চেষ্টা করি,
‘প্লিজ, সোনা, বাসায় এসেই হবে, যাও।’

‘তখন তো আর এত ফ্রেস থাকবে না। তখন অন্য ফিলিংস, ঘামে ভেজা ক্লান্ত দেহ। এখন তো একেবারে টগবগে।’ আমার শাড়ির ভেতর হাত চালিয়ে প্যান্টির উপর দিয়ে ভ্যাজাইনার উপরটা ঘষছে। আমি জয়কে বাধা দিতে পারলাম না। নিচে গাড়ি দাঁড়িয়ে আছে। কিন্তু জয়ের স্পর্শ আমাকে সকালেই উত্তেজিত করে ফেলেছে। এখন একটু না হলে হবে না। আমি তাড়া দিই জয়কে,
‘আচ্ছা, তাহলে, তাড়াতাড়ি দাও। ভেবে নাও আমরা পাবলিক প্লেসে, তুমি ব্যাংকের কোনো কাস্টমার কে আদর করছো। সময় নেই, নিচে গাড়ি দাঁড়িয়ে আছে।’

‘ম্যাডাম, তাহলে আপনার কি লোনটা লাগবেই?’ জয় মুডে চলে এসেছে। আমিও ভনিতা না করে উত্তর দিই।
‘হ্যাঁ, প্লিজ, আপনি যা চান আমি তাই দেব, শুধু একটু দ্রুত আমাকে জানান, লোনটা হবে নাকি, নিচে গাড়িতে আমার বর অপেক্ষা করছেন।’
জয় আমাকে ঘুরিয়ে দিয়ে খোলা পিঠে হাত বুলাচ্ছে, ‘হুম, ঠিক আছে, আপনার যখন এত তাড়া, তাহলে, আমি কুইক কিছু পেপারস চেক করে নিলে আপনার আপত্তি নেই তো?’
আমি শাড়িটা হাঁটুর কাছে উঠিয়েছি, ‘প্লিজ, এই ফোল্ডারে সব পেপার নিয়ে এসেছি, দেখুন না খুলে। কিন্তু ভাজ করবেন না কিছু। এগুলো সব অরিজিনাল পেপার।’

‘আমার তো অরিজিনাল পেপারস ই লাগবে।’ জয় আমার শাড়ি তুলে ফেলেছে কোমরের কাছে। ছেলেটা অনেক ভালো একটা হাজবেন্ড, শাড়িতে যাতে ভাঁজ না পড়ে সেভাবে শাড়িটা তুলেছে। দেরি না করে কালো পাতলা সুতির প্যান্টিটা পা গলিয়ে খুলে ফেলে আমাকে বাঁকা করে ধরে, মুখ দিল ভ্যাজাইনাতে। আমি বিছানার উপর দু’হাত রেখে ভারসাম্য ঠিক করলাম। উফ! নিচে যেন আগুন জ্বালিয়ে দিল এক মুহূর্তেই! আমার তখন মনে হচ্ছিল আমার লোনটা খুব প্রয়োজন! তাহলে আমার স্বপ্নের ব্যবসাটা শুরু করতে পারবো। এর জন্যে সব বিলিয়ে দিতেও আমি রাজি আছি। শরীরের রক্ত টগবগ করে ফুটতে শুরু করলো। সব রক্ত যেন খরস্রোতা নদীর মতো ছলাৎ ছলাৎ করে মাথার দিকে উঠে আসছে। জয়ের স্পর্শ মনে হতে লাগলো অপরিচিত কোনো পুরুষের হাত আর মুখ। কেমন করে যে জয় আমার ভ্যাজাইনার ক্লিটটা শক্ত জিভ দিয়ে ঘষে দিচ্ছিল! এক মিনিটেই মাথায় সেক্স উঠে গেল! আমি তখন বলছি,
‘প্লিজ, একটু কুইক করুন, আমার বর নাহলে রাগ করবে।’

‘এই তো, পেপার গুলো চেক করা শেষ, এখন শুধু Original Seen লিখে সাইন করে দেব সাদা কালি দিয়ে।’

জয়ের পিনাসটা তৈরী হয়েই ছিল। আমাকে খুব বেশি না রগড়ে আস্তে করে ওর কাঠের মতো শক্ত পুরুষাঙ্গটা আমার ভেতরে ঢুকিয়ে দিল। জয়কে বলে দিতে হলো না, ওর প্রথম থেকেই অসুরের শক্তি ওর পিনাসে জড়ো করে আমাকে পেছন থেকেই দিতে শুরু করলো। আমার শাড়ি তখন কিছুটা আলুথালু হয়ে কোমরের উপরে উঠে রয়েছে। জয় মনের সুখে ওর ক্লায়েন্ট এর ধবধবে ফর্সা হিপের মাংস দেখে একমনে দ্রুত গতিতে করে যাচ্ছে আমাকে। আমার যেন যৌবন সব গিয়ে জমা হয়েছে আমার দুই পায়ের মাঝে। জয়ের প্রবল গতির স্ট্রোকের কারণে কিছুক্ষনের মধ্যেই আমার হয়ে আসবে বলে টের পাচ্ছিলাম। জয়ের পিনাসটা আমার ইউটারেসের মুখে গিয়ে ধাক্কা মারছিল। জোরে শীৎকার ও করতে পারছি না, শুধু নিচু স্বরে ‘উউউউউ’ করে গুঙিয়ে যাচ্ছি। আমারও হয়ে আসছে দেখে জয়ের স্ট্রোকের গতি বেড়ে গেল।

বলছে,
‘নিন, ম্যাডাম। সিল মেরে দিয়েছি, এখন আমার কলমের সাদা কালি দিয়ে সিগনেচার করে দিচ্ছি।’ বলেই ক্রমাগত স্ট্রোক দিয়ে আমার ভেতরে ওর রস উগরে দিল। আমার তলপেটের নিচে মোচড় দিয়ে অর্গাজম হয়ে গেল। মাত্র তিন মিনিটেই জয় নিজেও সুখ নিল, আর আমাকেও সুখের সাগরে ভাসিয়ে দিল। ও নিজেই আমাকে ওভাবে রেখে ভ্যাজাইনার আশপাশ আর ভেতরটা টিস্যু দিয়ে মুছে আমাকে পরিষ্কার করে দিল।

জয় বাথরুমের দিকে যাচ্ছিল, আমি ডেকে থামালাম,
‘এই যে, এভাবেই কি তোমাদের ব্যাংকে লোন পাশ করো নাকি? দেখো আবার, কিছু করলে বোলো আমাকে।’
‘আহা, নিজে খুব সাধু, না?’

‘খুব হয়েছে, এখন যাচ্ছ কোথায়? আমার শাড়ির তো বারোটা বাজিয়ে দিয়ে গেছ। এখন কুচিটা ঠিক করে দাও।’ জয় বাধ্য ছেলের মতো শাড়ির নিচটা টেনে নামিয়ে ঠিক করে দিল। আমি তাড়াহুড়া করে বাসা থেকে বের হতেই মনে হলো প্যান্টি পরা হয় নি। আজকে প্যান্টি ছাড়া যাওয়া যাবে না। ব্যাগে প্যাড আছে, কিন্তু প্যান্টিটা রুমে গিয়ে নিয়ে আসলাম। পড়লাম না, ব্যাগে ঢুকিয়ে রাখলাম। দরকার হলে পরতে পারবো।

সকাল সকাল জয়ের আদর খেয়ে গাড়িতে ক্লান্তিতে চোখ বুজে ছিলাম। কখন যে সোনারগাঁ হোটেলের সামনে এসে পড়লাম, খেয়াল করিনি। পোর্চে দেখলাম সুরেন স্যার দাঁড়িয়ে আছেন, মোবাইলে কিছু একটা করছিলেন। আমি গাড়ি থেকে নামতেই মুচকি হাসি দিলেন। আমার কামুকি দেহটা ওনার চোখ দিয়ে চেটে বললেন,
‘কি ব্যাপার, আজকে কি আপনার কোনো স্পেশাল ইভেন্ট আছে নাকি সন্ধ্যায়? আপনার পাশে এই কনফারেন্সে তো অন্যদের সব বেমানান লাগবে!’
ঠিক ধরেছিলাম, বুড়োর আমাকে দেখেই মাথায় সেক্স উঠে গেছে, আজকে আর নিস্তার নেই। আমি বললাম, ‘তেমন আর কই, আজকে তো আমাদের অর্গানাইজেশনের জন্য একটা বিশেষ দিন। শত হলেও, আমরা তো সবাই আমাদের অর্গানাইজেশন রি-প্রেজেন্ট করছি আজকে। তাই একটু তৈরি হয়ে এসেছি আর কি।’

‘I see, তাহলে তো বেশ, আপনি যান ভেতরে। আমাদের গ্র্যান্ড বলরুমে আজকে প্রোগ্রাম। ভেতরে গেলেই দেখিয়ে দেবে। ভাবছি, এত গেস্ট, কয়জনের আজ মাথা খারাপ হয় কে জানে?’

‘ওকে, সেগুলো আপনার না ভাবলেও চলবে স্যার। দিন শেষে তো আপনিই আমার বস।’ একটা মুচকি হাসি দিয়ে ভেতরে ঢুকে গেলাম।

প্রায় হাজার খানেক লোকের আয়োজন। বেশ সুন্দর করেই সাজিয়েছে ভেতরটা। এই টাকার কিছু গরিবদের না দিয়ে এখানেই ঢেলে দিচ্ছে সব জৌলুসের আড়ালে। আমাদের রিসিপশনিস্ট অপর্ণা আমাকে দেখে এগিয়ে এলো। রেজিস্ট্রেশন বুথে নিয়ে গিয়ে আমার রেজিস্ট্রেশন করিয়ে দিয়ে আমাদের অফিসের সবাই যেদিকে বসেছে সেদিকে দেখিয়ে দিল। আমি কনফারেন্সের ফোল্ডারটা বগলদাবা করে হাতে শাড়ির কুচি ধরে দৃপ্ত পায়ে এগিয়ে যাচ্ছি। বেশ লাগছিল তখন। এরই মধ্যে অনেকে এসে পড়েছে। সবাই কেমন লোলুপ দৃষ্টিতে আমাকে দেখছে। সেসব পাত্তা না দিয়ে এগিয়ে গেলাম আমাদের জায়গাটার দিকে। আমি সামনের সারিতে বসবো, শাড়িটা একটু গুছিয়ে নিচ্ছিলাম। এরই মধ্যে জাফর এসে পাশে দাঁড়ালো। সালাম দিয়ে বললো,
‘ম্যাডাম, কেমন আছেন? দিন ফোল্ডারটা আমার হাতে দিন।’

আমি ফোল্ডারটা জাফরের হাতে দিয়ে চেয়ারে বসে দেখি জাফর ফোল্ডারটা নাকের কাছে ধরে আমার আর্মপিটের ঘাম আর পারফিউম মেশানো গন্ধ শুঁকছে লুকিয়ে। আমি তাকাতেই ইতস্ততঃ করে ফোল্ডারটা আমার হাতে ফিরিয়ে দিতে দিতে বললো,
‘আপনার জন্যে সুখবর আছে।’
‘কি খবর আপনাদের? কি সুখবর আছে আমার?’

‘আমরা ভালো আছি ম্যাডাম। আমাদের এলাকায় তো একেবারে ভরিয়ে দিয়েছি ক্লায়েন্টে। পুরো কিশোরগঞ্জে যেন ঝড় বয়ে গেছে। এখন হুজুরেরা ফতোয়া দিচ্ছে, এতে নাকি ঘরের মেয়েরা আরও অবাধ্য হয়ে যাবে। কিন্তু চেয়ারম্যান গুলাকে সব সেটিং করে দিয়েছি। তারা সবাই এখন আমাদেরকে পুরোদমে সাহায্য করে যাচ্ছে। এই কয়দিনেই প্রায় ৭০০ ক্লায়েন্ট এসেছে।’

‘গুড! ভেরি গুড! খুবই ভালো খবর! আমাকে তাহলে মেইল করে ডিটেইল পাঠিয়ে দিবেন। আমি সামারি করছি সবার পারফরম্যান্স।’ এতক্ষন স্বাভাবিক থাকলেও এবারে আসল রূপে ফিরে আসলো জাফর,
‘ম্যাডাম, তাহলে কবে ভিজিট আসছেন আবার? বলেছিলেন আমি ভালো পারফর্ম করলে আপনি আমাদের সাইট ভিজিট যাবেন।’
‘আচ্ছা, এত তাড়াহুড়ার কি আছে, আগে তো সব রিপোর্ট হাতে আসুক। আপনি ভালো করলে নিশ্চয়ই যাবো। আগেরবার তো আপনার প্রস্তুতি ছিল না। এর পরেরবার সব রেডি রাখবেন। মনে থাকবে?’

‘ম্যাডাম, আপনি যেমনটা বলবেন, ঠিক তেমন হবে। আমি রিপোর্টটা পাঠিয়ে দেব কাল সাইটে গিয়েই।’
জাফর সরে গেল কারণ তখন সুরেন স্যার এগিয়ে আসছিলেন। জাফরের সাথে সেই উদ্দাম ফেমডমের কল্পনাটা আর এগুতে পারলাম না। সুরেন স্যার এসে পাশে বসলেন,
‘নিশ্চয়ই এলিজাবেথ আর্ডেন? গ্রিন টি?’

ওনার এক্কেবারে মেয়েদের পারফিউম মুখস্ত সেটা আগেই বুঝেছিলাম, কিন্তু একদম গন্ধ শুঁকেই বলে দেবেন, সেটা বুঝিনি। বললাম, ‘খুব কাছাকাছি গিয়েছেন, গ্রিন টি, না হোয়াইট টি। হাহাহা। আপনার এই গুনের কথা তো এতদিন বুঝিনি!’
‘বুঝবেন আস্তে আস্তে।’ পাশে এসে আমাদের চট্টগ্রাম এর ডিভিশনাল এসে বসতেই প্রসঙ্গ পাল্টে ফেললেন সুরেন স্যার।
‘আমাদের রোল আউট কিন্তু ভালোই এগুচ্ছে। আপনি রিপোর্ট পাচ্ছেন?’
‘জ্বি স্যার, সেসব পাচ্ছি। এই মাত্রই জানলাম, কিশোরগঞ্জে বেশ ভালো রেসপন্স পাচ্ছি।’
‘Okay, that’s great! আপনি তাহলে খেয়াল রাখুন একটু প্রগ্রেসটা।’
‘অবশ্যই!’

অনুষ্ঠান শুরু হল কিছুক্ষনের মধ্যেই। একগাদা মানুষ বকবক করে আমার মাথা ধরিয়ে দিল। তবে, সব শেষে একটা ঘোষণা আমার সব মাথা ব্যাথা সারিয়ে দিল। প্রজেক্ট সাকসেস এর জন্যে আমার প্ল্যান গ্লোবালি বেস্ট হয়েছে। ক্রেস্ট আর সাথে একটা সম্মাননা পেলাম। সত্যি বলতে এটা আমাদের জন্যে অনেক বড় অর্জন। আর আমি যেহেতু সবচেয়ে নতুন ম্যানেজার, তাতে সবাই বেশ খুশি আমাকে নিয়ে। কারণ, আমি তো অফিসে শুধু সুরেন স্যারের সাথে ক্রিকেট ম্যাচই খেলিনা, কাজ ও সমান তালে করি। যদিও ছেলেদের ধারণা মেয়েদের প্রমোশন হয় দেহের বিনিময়ে। ওদের মুখে ছুড়ে দিতে ইচ্ছে হলো ভারী ক্রেস্টটা। ক্রেস্ট তুলে দিল আমাদের গ্লোবাল বোর্ড মেম্বার ড্যান মিগোম্বানো। লম্বায় প্রায় সাড়ে ছ’ফুট লম্বা। কৃষ্ণাঙ্গ, সেনেগালে জন্ম। ইউরোপে পড়াশোনা করেছেন। এখন দুবাইয়ে আমাদের গ্লোবাল অফিসে বসেন। ক্রেস্ট হাতে নিয়ে ফটোসেশন করার চাপে আমি ভুলেই গিয়েছিলাম হ্যান্ডশেক করার কথা। আমাকে আবার ডেকে নিয়ে হ্যান্ডশেক করলেন উনি। বছর পঞ্চাশের ড্যানের প্রকান্ড হাতের থাবায় হারিয়ে গেল আমার ছোট্ট কোমল হাত। এক মুহূর্তের জন্যে মনে হলো, এই উঁচু লম্বা লোকের যন্ত্রটা কত ভারী হতে পারে! পরমুহূর্তেই ভুলে গেলাম। কারণ দর্শক সারিতে ফিরে আসতেই সবাই কংগ্রেচুলেট করছিল। সবচেয়ে বেশি খুশি সুরেন স্যার। কারণ ওনার এতে গ্লোবাল টিমে মর্যাদা বেড়ে যাবে।

মধ্যাহ্ন বিরতিতে গেলাম আমরা। বুফে খাবার সাজানো আছে। আমি একটা প্লেটে অল্প কিছু খাবার নিয়ে সুরেন স্যারের কাছে চলে গেলাম। তখন সুরেন স্যার ড্যান এর সাথে কথা বলছিলেন। আমি এগিয়ে যেতেই আমাকে আবারো কংগ্রেচুলেট করলেন ড্যান। আমাদের কথা বার্তা সব ইংরেজিতেই হলো। ড্যান বলছে,
‘তোমার রিপোর্টটা আমি দেখেছি। এশিয়ায় তোমার এপ্রোচটা সবচেয়ে কাজে দেবে বলে আমাদের অ্যানালিস্টরা বলেছে। তোমার কি অনেক দিনের কাজের অভিজ্ঞতা?’

‘আমি এর আগে আরেকটা প্রজেক্টে ছিলাম, সেটাও গভর্নমেন্ট ভালো প্রশংসা করেছিল।’
‘তা-তো হতেই হবে। তোমার ভেতরে আসলে মেধা আছে। আর তুমি তো দেখতেও বেশ সুন্দর। ভারতীয়দের পোশাকে তোমাকে আরও আকর্ষণীয় লাগছে।’
পশ্চিমা দেশে বড় হওয়া ড্যান স্বাভাবিক ভাবেই আমার প্রশংসা করলো। আমি ধন্যবাদ দিলাম ওকে। সুরেন স্যার এই জায়গাটা হাত ছাড়া করলো না, বললেন,
‘ওকে তো আমি অনেক খুঁজে পেয়েছি। পাবলিক হেল্থে মাস্টার্স করা সাথে এনজিও ম্যানেজমেন্ট-এর অভিজ্ঞতা। আমাদের দেশে এমনটা খুব একটা পাওয়া যায় না।’ চান্সে নিজের জারিজুরি ঝাড়তে লাগলেন সুরেন স্যার। ড্যান গ্লোবাল বর্ডার মেম্বার। ওনার রিকোমেন্ডশনে অনেক কিছু হওয়া সম্ভব। শুধু কান্ট্রি হেডের পজিশনটা সুরেন স্যারের আর পোষাচ্ছে না।

ড্যান বললো, ‘তাহলে তো খুবই ভালো। তুমিও তো বেশ ভালো করছ সুরেন। আর ভালো টিম মেট পেয়েছো, এবারে এশিয়ান গ্ৰুপে তোমাদের শ্রেষ্ঠ দেখতে চাই।’
আরও কিছু টুকটাক কথা বলার পরে ড্যান আমাদের রেখে চলে গেল। সুরেন স্যার আমাকে একা পেয়ে অন্য প্রসঙ্গে গেলেন। বলছেন,
‘আচ্ছা, তুলি আপনার গ্ৰুপ সেক্সে আপত্তি নেই তো, নাকি?’
‘মানে?’ হঠাৎ ভরা মজলিশে সুরেন স্যারের মুখে এমন সরাসরি কথা শুনে কান গরম হয়ে যাচ্ছিল।

‘মানে, আমার এক বন্ধু আছে। ওকে সুজয় নামে পরিচিত। বেশ টাকা কড়ির মালিক। ওদের একটা গ্ৰুপ আছে। উত্তরাতে ওরা আড্ডা দেয়। আমি ভাবছিলাম তোমাকে নিয়ে একদিন যাবো।’
‘স্যরি স্যার, কিছু মনে করবেন না। আমি আসলে তেমন করে কোথাও যেতে চাইছি না। আমরা অফিসেই বেশ আছি।’

‘আহা, আমি তাহলে বুঝিয়ে বলতে পারিনি। সেখানে তুমি যাবে আমার সাথে। ওখানে কেউ কারো পরিচয় জানে না। খুব দূরের মানুষদের সাথে দেখা হবে। তুমিও তোমার পরিচয় গোপন রাখবে। পরশু ওদের একটা পার্টি আছে। আমি চাইছি তোমাকে নিয়ে যেতে। তুমি তো আমাকে বিশ্বাস করো, নাকি?’
‘হ্যাঁ, আপনাকে আমি বিশ্বাস করি, কিন্তু অচেনা মানুষদের মধ্যে, আমি আসলে পারবো না। আমাকে ক্ষমা করবেন স্যার। আমি যেতে চাচ্ছি না।’
‘ওকে, তুমি যেতে না চাইলে তোমাকে জোরাজুরি করবো না, কিন্তু তোমার পার্মানেন্ট কন্ট্রাসেপ্টিভ এর জন্যে কিন্তু সেখানে তোমার প্রচুর ডিমান্ড থাকবে। যেমন, আমার সেখানে অনেক ডিমান্ড। ভেবে দেখো। অনেক মেয়েরাই সেখানে আড্ডা দিতে যায়, একেবারেই ঘরোয়া পরিবেশ। আমার তো বয়স হয়ে গেছে, তুমি গেলে দেখবে অনেক এনজয় করতে পারবে। ভেবে আমাকে কাল জানিয়ো।’

কথাটা সুরেন স্যার খারাপ বলেননি। একটা ব্যাপার হলো, উনি নিজে যেখানে যাচ্ছেন সেখানে অনেক ভেবেই যাচ্ছেন। তার মতো উঁচু পদের একজন মানুষের আমার থেকে মান সম্মানের ভয় অনেক বেশি থাকার কথা। এছাড়া এতো করে যখন বলছেন, সেখানে নিশ্চয়ই অনেক তাগড়া জোয়ান থাকবে। সেটা মন্দ হবে না। কিন্তু এখনই রাজি হতে হবে এমন নয়। আমি একটু চিন্তা করে জানাবো সেটা বললাম ওনাকে।

এরই মধ্যে কনফারেন্স এর দ্বিতীয় পর্ব শুরু হলো। শেষটায় কয়েকটা পেপার এর প্রেজেন্টেশন হলো। সেই বকবক শুনলাম বিকেল পর্যন্ত। কনফারেন্স শেষ হতেই আমরা বেরিয়ে যাবার জন্যে তৈরী লবির দিকে আগাচ্ছিলাম। আমি আর সুরেন স্যার প্রায় বেরিয়েই যাচ্ছিলাম। মাত্র পাঁচ মিনিটের ব্যবধানের জন্যে আমার জীবনে এক বড় অভিজ্ঞতা হলো। এর মধ্যে রবার্ট নামে একজন এসে জানালো আমাদের অর্গানাইজেশনের মিস তুলি-কে ড্যান খুঁজছেন। সুরেন স্যারের মুখটা পাংশু হয়ে গেল। আমাকে শাড়ি তুলে লাগানোর প্ল্যানটা ভেস্তে গেল। সুরেন স্যার এইসব লাইনে অভিজ্ঞ। আমাকে শুধু বললো,
‘গ্লোবালের কোনো প্রতিশ্রুতি বিশ্বাস করবেন না। সব ফালতু কথা। ঠিক আছে?’
‘ঠিক আছে স্যার। আপনি যা ভাবছেন, তেমন নাও হতে পারে। আপনি কি অপেক্ষা করবেন?’

‘মিস তুলি, আপনি এত বড় প্ল্যাটফর্মে নতুন, নিজেই বুঝবেন সব। আমার অপেক্ষা করে কাজ নেই। Enjoy!’ বলে সুরেন স্যার বিদায় নিলেন।

আসলে ড্যান আমাকে কাজেই ডেকেছিলেন। ওনার বিশাল ইন্টারন্যাশনাল সুইটে ডেকে নিয়েছিলেন আমাকে একটা এশিয়ান ফোকাসড রিপোর্টে কাজ করার জন্যে। ডাইনিং টেবিলে বসে সব ঠিক ঠাকই চলছিল। আমাকে সব বুঝিয়ে দিয়ে ওনার বিজনেস কার্ড দিলেন। এছাড়া ইমেইলে যোগাযোগ রাখতে বললেন। আমি উঠে যাওয়ার প্রস্তুতি নিচ্ছিলাম। উনি ফোনে বিজি হয়ে গেলেন। এর মধ্যে আমার ফোন বেজে উঠলো। আমি ফোনটা ব্যাগ থেকে বের করে দেখলাম জয়ের ফোন। একটু দূরে গিয়ে জয়কে আপডেট দিয়ে ফোন রেখে যেই ঘুরেছি, দেখি সামনে ড্যান দাঁড়িয়ে। ওনার হাতে আমার কালো লেসের প্যান্টিটা। প্যান্টিটা সকালে পারিনি কিন্তু ব্যাগে রেখেছিলাম। ফোন বের করতে গিয়ে ঘড়িতে লেগে হয়তো বেরিয়ে পড়ে গেছে টের পাইনি। আমি তখন সেই মুহূর্তে ঠিক কি করবো বুঝতে পারছিলাম না। এমন উচা লম্বা কৃষ্ণাঙ্গ একজনের হাতে আমার একান্ত ব্যক্তিগত একটা জিনিস দেখে আমার নিজেরই লজ্জা লাগছিল। আমি বললাম,
‘ও, হ্যাঁ, ওটা আমারই। পড়ে গিয়েছিল।’

‘প্যান্টি তোমার ব্যাগে, তার মানে কি তুমি এখন…?’ ড্যানের লোভাতুর চোখ চকচক করছে।
‘হ্যাঁ, এটা সাধারণ একটা ব্যাপার। এমন কিছু না।’ দৃঢ় কণ্ঠে উত্তর দিলাম আমি। একা ওনার শরীরের নিচে পড়লে আমার কি হতে পারে ভেবে তলপেটটা মোচড় দিয়ে উঠলো। কি করবো, তখনও সিদ্ধান্ত নিতে পারছিলাম না। সুরেন স্যারের কথা মতো ড্যান তখন ঠিকই একটা টপ ফেললো,
‘তুমি কি দুবাইর গ্লোবাল অফিসে কাজ করতে চাও? এখান থেকে বেতন অনেকগুন বেশি। সম্পূর্ণ ভিন্ন লাইফস্টাইল’
‘তুমি কি আমাকে লোভ দেখাচ্ছ?’

‘লোভ দেখাচ্ছি না, সত্যি বলতে তুমি আমি দু’জনই এডাল্ট। শুধু জানতে চাইছিলাম, তোমার গ্লোবাল অফিসে কাজ করার ইচ্ছে আছে কিনা।’
‘ইচ্ছা আছে।’
‘তাহলে তুমি আমাকে বলছো, ভারতীয় পোশাকে তুমি আমার সাথে আজকে সন্ধ্যায় একটু সময় কাটাতে চাও?’ বলতে বলতে আমার প্যান্টিটা নাকের কাছে নিয়ে শুঁকলো ড্যান।
‘তুমি এত ভনিতা না করে বলো, কি চাও?’
‘আমার একটা ফ্যান্টাসি আছে, মেয়েদেরকে প্যান্টি ছাড়া চিন্তা করতে আমার ভালো লাগে। আর তুমি ভারতীয় স্টাইলে পোশাক পরে আছো, এর উপর তোমার নিচটা খালি, এটা ভেবেই আমি একটু উত্তেজিত, আশা করছি তুমি অন্যভাবে নিচ্ছ না বিষয়টা।’
‘অন্যভাবে নেয়ার কিছু নেই, শুধু বলো, তুমি গ্লোবাল অফিসের প্রস্তাবটা কি এমনিতেই দিলে, নাকি ওটা একটা টোপ?’

‘আমি বোর্ডের মেম্বার, আমি এতটুকু তোমার জন্যে করতেই পারি, তবে আগামী বছর। এখন নয়। আর সেটা তোমাকে বলেছি তোমার পারফর্মেন্সের কারণে, অন্য কিছুনা। এই জন্যেই তোমাকে এই কাজটা দিয়েছিলাম। কিন্তু আজ এই নিঃসঙ্গ লোকটাকে একটু সঙ্গ দিতে তুমি রাজি?’ ড্যান পারতো আমাকে বিছানায় ছুড়ে ফেলে আমাকে ভোগ করতে। এর কাছে আমি একটা খেলনা পুতুলের সমান। কিন্তু ও আমাকে সম্মান করছে দেখেই আমি নিজেকে ছেড়ে দিলাম ওর হাতে। ওর হাত থেকে প্যান্টিটা নিয়ে মেলে ধরলাম আমার মুখের সামনে। ড্যান আমার গ্রিন সিগন্যাল পেয়ে উন্মত্ত হয়ে উঠলো। এত বয়স, কিন্তু এখনও তাগড়া জোয়ানের মতো শক্তি দেহে। আর ওর দেহের তুলনায় আমি জাস্ট একটা বার্বি ডল ছাড়া কিছুই না।

আমার কাছে এসে আমাকে ওর মাঝে জড়িয়ে ধরে শাড়ির উপর দিয়ে আমার পাছা খামচে ধরলো। ওর হাতের থাবা এতই বড় যে অনায়াসেই আমার বিশাল পাছা ওর হাতে চলে আসলো। একটা মোটা আঙ্গুল পাছার খাজে ঢুকিয়ে দেখে নিচ্ছে, আসলেই নিচে আর কিছু পরেছি কিনা। ওর একেকটা আঙ্গুল প্রায় একটা আমাদের ছেলেদের পুরুষাঙ্গের সমান মোটা। ও তো শুধু আঙ্গুল দিয়েই আমার রস নিংড়ে বের করে ফেলতে পারবে। কৃষ্ণাঙ্গ ড্যান ওর মোটা ঠোঁট দিয়ে আমার নাক মুখ চেপে ধরলো। এটা কি কোনো টেকনিক? হঠাৎ শ্বাস নিতে না পেরে হাঁসফাঁস করে উঠলাম। নিজের অজান্তেই ভিভ বেরিয়ে গেল। তখনই আমার জিভটা ওর মোটা ঠোঁটের মাঝে নিয়ে চুষতে শুরু করলো। আমি ড্যানের বুক সমান লম্বা। আর ও এতই লম্বা যে ওকে একেবারে নিচু হয়ে আমাকে কিস করতে হচ্ছে। আমি বললাম,
‘তোমার সমস্যা হচ্ছে, না? চলো টেবিলে যাই।’

ড্যান আমাকে পাছায় ধরে এক নিমিষে শূন্যে তুলে ফেললো। আসলেই ড্যানের কাছে আমি যেন একটা পুতুল। আমার দেহ শূন্যে তুলে নিয়ে আমাকে কিস করছে কিন্তু ওর একটুও কষ্ট হচ্ছে না। যেন ড্রিঙ্কের গ্লাস তুলে হুইস্কি খাচ্ছে। ড্যান তখনও শার্ট প্যান্ট পড়া ছিল। আমি আস্তে আস্তে ওর শার্টের উপরের বোতাম গুলো খুলে দিলাম। ভেতরে কোঁকড়ানো লোমে ভর্তি বুক। পেটানো চকচকে কালো শরীর। ও আমাকে তুলে এনে টেবিলে বসালো। আমার শাড়ির আঁচলটা অনভস্থ্য হাতে খুলতে চাইছে। কিন্তু শাড়িতে তো ড্যানের অভ্যাস নেই। তাই আমি কাঁধের সেফটিপিনটা খুলে আঁচলটা ফেলে দিলাম। ও আমার ব্লাউজের উপর দিয়ে খামচে আমার ব্রেস্ট ধরলো। আমার ৩৮ সাইজের ‘সি’ কাপের ব্রেস্ট ওর প্রকান্ড হাতের থাবায় হারিয়ে গেল। প্রচন্ড শক্তি দিয়ে আমার ব্রেস্টের নিপল সহ প্রায় পুরোটা ব্রেস্ট হাতে নিল। এমন অভিজ্ঞতা আমার জীবনে প্রথম। পুরো ব্রেস্ট একসাথে হাতে ধরলে কেমন উত্তেজনা আসে, সেটা হাড়ে হাড়ে টের পেলাম। আমার ব্লাউজের হুক খোলার চেষ্টা করছে দেখে, আমি নিজেই একটা একটা করে হুক খুলে দিলাম। ভেতরের কালো লেসের ব্রা বেরিয়ে এলো। আমার হাত গলিয়ে ব্লাউজটা খুলে ফেললো। দক্ষ হাতে চিমটি দিয়ে ব্রা-এর হুক আলগা করে আমার ব্রেস্ট উন্মুক্ত করে দিল। একটা ব্রেস্ট ওর বিশালাকার থাবায় চেপে ধরে আরেকটা নিপল মুখে নিয়ে চুষতে শুরু করলো। ওর মুখ গহ্বর এতই বড় যে, নিপল সহ আমার ব্রেস্টের প্রায় অর্ধেকটা ওর মুখে ঢুকে গেল। এর সাথে চলছে ওর চোঁচোঁ করে চোষা। আমার তখন প্রাণ যায় যায় অবস্থা। এই বিশালদেহী ড্যানের জিনিসটার লোভে পড়া আসলে ঠিক হয় নি। কত বড় হতে পারে সেটা ভেবেই আমার রস বেরোতে শুরু করলো।

ড্যান ততক্ষনে আমার উর্ধাঙ্গ নগ্ন করে দিয়েছে। আমার দুই হাত মাথার উপরে তুলে ধরে নাভি থেকে শুরু করে গলা পর্যন্ত চেটে দিচ্ছে। ড্যানের জিভটা যেন বাঘের জিভের মতো খরখরে। আমার নরম ত্বক একেবারে ঘষে হাড় থেকে মাংস আলাদা করে দিচ্ছে যেন। নাভিতে সুড়সুড়ি দিতেই আমি কেঁপে কেঁপে উঠতে লাগলাম। আমার পেটের তুলতুলে অংশটুকু ড্যানের খুব পছন্দ হয়েছে। বারবার চেটে দিচ্ছে সোহাগ করে। এত বিশাল একটা দেহ আমার দেহের উপর ঘুরে ঘুরে মধু খাচ্ছে দেখে আমার ভেতরে রসে জবজবে হয়ে গেল। কিন্তু ড্যান এখনও নিচে কিছু করছে না কেন? সেই প্রশ্নের উত্তর পেলাম প্রায় সাথে সাথেই,
‘তোমার নিচে আমি explore করতে একটু সময় নিচ্ছি। এই পোশাক তুলে তোমার সম্পদ দেখলে আমি নিজেকে ঠিক রাখতে পারবো কিনা জানিনা, তাই তোমাকে একটু তৈরী করে নিচ্ছি।’
‘আমি তো তৈরী হয়েই আছি, দেরি করছো কেন?’
‘তুমি দেখি ভীষণ স্বার্থপর! আমাকে একটু তৈরী করবে না?’

‘আচ্ছা, দাও দেখি, তোমাকে যখন এতোক্ষণেও তৈরী করতে পারলাম না। তখন আমি তোমাকে তৈরী করছি।’ বলে নিচে বসে গেলাম। ড্যানের প্যান্ট নামানোর সময় মনে হলো ওর প্যান্টের কাপড় দিয়ে আমার একটা নাইটি হয়ে যাবে। কলা গাছের মতো মোটা দুই পায়ের ফাঁকে ওর পিনাসটা আন্ডারওয়ারের নিচে নিজের অস্তিত্ব জানান দিচ্ছে। আমি ড্যানের আন্ডারওয়ার নামিয়ে মুখে হাত দিয়ে মাটিতে বসে পড়লাম। আমার নিজের চোখকে বিশ্বাস হচ্ছে না। এইটা কি পিনাস নাকি একটা কলাগাছ? একটুও বাড়িয়ে বলছি না, পিনাসটা যেমন লম্বা তেমনি মোটা। এটাতো আমি মুখেই নিতে পারবো না। ওখানে নেব কি? ড্যান আমার মনের কথাটা পড়তে পারলো। আমাকে দুই হাতে তুলে ঠোঁটে ঠোঁট ডুবিয়ে সাদা সোফার দিকে নিয়ে গেল। বললো,
‘আমি বুঝতে পারছি, তোমার এমন অভিজ্ঞতা নেই। কিন্তু বিশ্বাস করো, আমি দুবাইয়ে অনেক ভারতীয়কে আনন্দ দিয়েছি। তোমাকেও দেব। তোমার কষ্ট হবে না একটুও। শুধু আমাকে একটু আমার মতো করে তোমাকে তৈরী করতে দাও। দেখবে তুমি কখনোই আজকের সন্ধ্যাটা ভুলতে পারবে না। আমি ওয়াদা করছি।’

তখনও আমার চোখ মুখ থেকে বিস্ময়ের ভাবটা যায়নি। এত মোটা পিনাস রেখে রুম থেকে ছুটে বেরিয়ে যেতেও পারছি না। আবার কি করবো সেটাও বুঝতে পারছি না। ড্যান সোফায় বসে, আমাকে ওর মাঝে বসিয়ে দিল। আমি দুইহাত কি, পারলে চার হাত পা একত্র করে ওর দৈত্যাকৃতি পিনাসটা ধরলে হয়তো পুরোটা ধরতে পারতাম। সাহস করে ওর পিনাসের মাথাটাতে একটা চুমু দিলাম। আস্তে আস্তে জিভ দিয়ে সত্যি সত্যি টেনিস বলের মতো মুন্ডিটা জিভ ঘুরিয়ে ঘুরিয়ে চেটে দিতেই, সেটা আরও ফুলতে লাগলো। কি বিপদ! এতো আরও বড় হচ্ছে! আমার নিচের অবস্থা খুবই খারাপ। একেবারে পাছার ফুটো পর্যন্ত রস বেয়ে পড়ে নিচটা একদম চটচটে হয়ে আছে। আমি ধীরে ধীরে ড্যানের অন্ডকোষ দুটো একটু একটু করে চুষে ওকে তৈরী করছিলাম। ও যখন বলেছে আমাদের মতো মেয়েদের ও সুখ দিয়েছে, তাই আমিও চরম সুখ পাবো, সেই স্বপ্নে কুচকুচে কালো মোটা পিনাসটা জিভ দিয়ে চেটে দিচ্ছি। ড্যানের এতে কাজ হলো না, ও আমার মুখে চেপে ধরে পিনাসের মাথাটা ঢুকিয়ে দিল। দুইটা সাগর কলা মুখে নিলে যতটা হা করতে হয়, ততটা হা করে ওর পিনাসের মাথাটা মুখে নিলাম। পিনাসের চারিদিকে কোঁকড়ানো জঙ্গল ট্রিম করে ছাটা।

ড্যানকে কিছুক্ষন মুন্ডিতে ব্লোজব দিতেই ও আমাকে টেনে তুললো নিচ থেকে। ও সোফায় বসে আমাকে উল্টো করে আমার শাড়ি তুলতে লাগলো। শাড়ি সরিয়ে প্যান্টি বিহীন পাছাটা বেরিয়ে যেতেই ও ‘Oh my god! You’re a goddess!’ বলে আমার পাছার ফুটো থেকে ভ্যাজাইনার ফুটো পর্যন্ত ওর লকলকে জিভ চালাতে লাগলো। কিছুক্ষন ওর খরখরে জিভ চালাতেই আমার নিচটা মুচড়ে উঠতে লাগলো। আমি নরম শাড়িটা আস্তে আস্তে ঘুরিয়ে খুলে ফেললাম। পেটিকোটের বাঁধন খুলে আলগা করে দিতেই ঝপ করে সেটা নিচে পড়ে গেল। ড্যানের সামনে আমি তখন পুরোপুরি নগ্ন। আমার খোলা দেহ ড্যানের সেক্স বাড়িয়ে দিল হু হু করে। ও পাগলের মতো আমার কোমর খামচে ধরে আমার ভ্যাজাইনার বারোটা বাজিয়ে যাচ্ছে। কিছুক্ষন পরে ওর একটা মোটা আঙ্গুল ভেতরে ঢোকাতেই আমি গুঙিয়ে উঠলাম। শীৎকার বের হচ্ছে তখন মুখ থেকে অনবরত। অনেকদিন এভাবে শীৎকার দিই নি। হোটেলে সব শক্তি দিয়ে চিৎকার করে শীৎকার দিলেও কিছু হবে না ভেবে, আমি অনবরত ‘আঃ আঃ আঃ ওহ ইয়েস! ইয়েস! ইয়েস!’ করে শীৎকার দিচ্ছি। ড্যান আঙ্গুল আরেকটু দ্রুত চালাতেই আমি কেঁপে উঠলাম, কিছুটা আঠালো রস গড়িয়ে আমার ভ্যাজাইনার দেয়াল আরও পিচ্ছিল হয়ে গেল।

আমার একবার অর্গাজম হতে দেখে ড্যান আমাকে ওর দৈত্যের স্বাদ দিতে চাইলো। আমার কোমর ধরে ওর পিনাসের উপর আমার ভ্যাজাইনার মুখ ঘষতে লাগলো। কুচকুচে মোটা কালো পিনাসটা আমার ওখানটায় লাগছে চিন্তা করে আমি আরও হর্নি হয়ে গেলাম। কিছুটা শীৎকার দিতেই ড্যান যা করলো, তার জন্যে আমি প্রস্তুত ছিলাম না। আমার দুই পায়ে ধরে আমাকে উঁচু করে ফেললো। আমি তখন শূন্যে বসে আছি বিশাল দেহী ড্যানের প্রকান্ড হাতের থাবার উপরে। ও আস্তে আস্তে আমাকে নিচে নামিয়ে ওর পিনাসের উপর বসাতে লাগলো। বললো, ‘তুমি তোমার মতো করে নাও ডিকটা। যতটুকু পারো নাও, আমি তোমাকে সাহায্য করছি।’ আমি তীব্র সুখের নেশায় উত্তর দিলাম, ‘নামও আমাকে নামও তোমার ঐ সাবমেরিনের মতো মোটা জিনিসটার উপরে।’

ড্যান ওর দুই পা একত্র করে পিনাসটা শক্ত করে পায়ের মাঝে চেপে ধরে আমাকে বসাতেই আমি খুঁজে নিয়ে আমার ভ্যাজাইনার মুখে ওর বিশাল মুন্ডিটা ধরলাম। ড্যান আমাকে একটু চেপে ধরে নিচে নামিয়ে আনলো। আমার ভ্যাজাইনা ছিড়ে যেন ওর মুন্ডিটা ভেতরে ঢুকে গেল! আমি একটা গগন বিদারী চিৎকার দিলাম। ড্যান আর না নামিয়ে আমাকে ঐখানেই ধরে রাখলো। এক দিকে প্রচন্ড সুখের নেশায় আমার শরীরের রক্ত যেন আমার শিরা ধমনী ফেটে বের হয়ে আসতে চাইছে, আবার ভ্যাজাইনার দেয়াল এত বেশি প্রসারিত হওয়াতে অন্যদিকে মনে হচ্ছে, আমার জীবনে দ্বিতীয় বারের মতো ভার্জিনিটি ভাঙছে ড্যান। আমি মুখ বুঝে কিছুটা সহ্য করে নিয়ে ড্যানের উপর চেপে বসতে চাইতেই ও আরও একটু নামিয়ে আনলো আমাকে। আস্তে আস্তে ড্যানের বিশাল পিনাসটা গেথে যাচ্ছে আমার ভ্যাজাইনার দেয়াল বিদীর্ন করে দিয়ে। এখন একটু সুখ হচ্ছে। আমি একটু উপর উঠতে চাইতেই ড্যান আমাকে উপরে তুলে দিয়ে আবার নামিয়ে আনলো। এভাবে বেশ কয়েকবার খুব ধীরে স্ট্রোক দেয়ার পরে একবার আমার মনে হলো ড্যানের পিনাস আমার জরায়ুর মুখে দিয়ে ধাক্কা দিল। আমি নিচে তাকিয়ে হতভম্ভ। ড্যানের পিনাসের মাত্র অর্ধেক ঢুকেছে, তাতেই আমার ভ্যাজাইনার পুরোটা ভরে গেছে! ড্যানকে বললাম আর না। আমার ভেতরে লাগছে এবার। ড্যান মনে হয় আমার ভ্যাজাইনার দৈর্ঘ্য মেপে নিল মনে মনে।

এবারে আমাকে শূন্যে ভাসিয়ে ধীরে ধীরে উপর নিচ করে আলতো স্ট্রোক দেয়া শুরু করলো। আমার তখন ভ্যাজাইনার প্রতিটা কোষ প্রসারিত হয়ে গিয়ে ঘোড়ার মতো বিশাল পিনাসটার স্বাদ নিতে শুরু করলো। তীব্র ব্যাথার পরে এখন প্রচন্ড সুখে আমি আবার শীৎকার দেয়া শুরু করলাম। ড্যানও আস্তে আস্তে আমাকে দ্রু উপর নিচ করতে লাগলো। আমি তখন ঘুরে যেতে চাইলাম। ওর উপরে উঠে ওকে দিয়ে আমার ব্রেস্ট চোষাবো। আসল জিনিসটা তো ঢুকেই গেছে যতটুকু সম্ভব। ঘুরে ড্যানের দিকে ফিরতেই ও আমার ব্রেস্টের উপর হামলে পড়লো। আমি তখন সোফায় পা রেখে ধীরে ধীরে স্ট্রোকের গতি বাড়াচ্ছি। ও দাঁত দিয়ে আমার নিপল দুটো ছিন্ন ভিন্ন করে ফেলছে। আজকে জয়কে কি করবো আমি জানিনা। ড্যানের সাথে সেক্স করা মানে আমার দেহ ছিন্নভিন্ন হয়ে যাওয়া। এভাবে জয়কে বঞ্চিত করছি ভেবে খারাপ লাগলেও আমি তখনকার সময়টা প্রচন্ড উপভোগ করতে লাগলাম। শত হলেও জয় আজকে সকালে না করলে তো আর আমার জীবনে এই অভিজ্ঞতা হতো না!

আমার ফর্সা পেলব দেহটা ড্যানের কাছে পুতুলের মতো নিষ্পেষিত হতে লাগলো। আমার গলা বুক ভরে গেল হিকি-তে। ড্যান চুষে চুষে রক্ত জমাট বাধিয়ে ফেলছে আমার উর্ধাঙ্গের জায়গায় জায়গায়। আমি তখন প্রচন্ড সুখে বিভোর, এর মধ্যে কতবার আমার অর্গাজম হয়েছে আমি বলতে পারিনা। প্রতিটা স্ট্রোকেই মনে হচ্ছে একবার করে আমার রস বেরিয়ে যাচ্ছে। ভ্যাজাইনার ভেতরের উষ্ণতা ছড়িয়ে পড়ছে শরীরের বাকি অংশে। এর পর ড্যান আমাকে সোফার উপর দুই হাতে ভর দিয়ে রেখে আমার পা দুটো শূন্যে তুলে নিল। আমাকে পেছন থেকে তখন ঢুকাতে ওর বেগ পেতে হলো না। আমার ভ্যাজাইনা তখন সদ্য বিয়ানো গভীর মতো ছড়িয়ে গেছে। এরপরে আর ছোট ছোট ধনে কোনো মজা পাবো কিনা সেটাই চিন্তা। আমাকে শূন্যে তুলে ফেলাতে আমার মনে হচ্ছিল আমি শূন্যে ভেসে ড্যানের সাতে সেক্স করছি। প্রায় আধা ঘন্টা পরেও ড্যানের কোনো ভাবান্তর নেই। একমনে আমাকে সুখ দিয়ে যাচ্ছে। আর এদিকে তো আমার রস বেরোতে বেরোতে এখন ভ্যাজাইনা প্রায় শুকিয়ে যাবার দশা।
ড্যান আমাকে জিজ্ঞেস করলো, এবার ও বের করতে পারবে কিনা? আমি তো খুশিতে উত্তর দিলাম, ‘আমার অনেকবার হয়েছে, এবার তুমি বের করতে পারো।’ ড্যানের তাহলে হয়ে যাবে এখনই।

পরে টের পেলাম, ও এখনো কিছু শুরুই করেনি ওর জন্যে, এতক্ষন আমাকে তৈরী করছিল! আমাকে দু’হাতে শূন্যে তুলে নিয়ে নরম উঁচু বিছানায় ছুড়ে ফেললো। আমার দেহটা স্প্রিং ম্যাট্রেসে কয়েকবার লাফিয়ে উঠে স্থির হয়ে গেল। ড্যান এবারে শুরু করলো ওর স্টাইলে সেক্স! আমাকে বিভিন্নভাবে বিছানায় ফেলে, কখনো শূন্যে তুলে স্ট্রোকের পরে স্ট্রোক দিতে লাগলো। আমার ভেতরটা তখন সুখের চেয়ে ব্যাথার তীব্রতায় কুঁকড়ে উঠছিল। কারণ ড্যান মাঝে মাঝে ওর পিনাসের অনেকটা ঢুকিয়ে ফেলছিল উত্তেজনায়। আমার ব্রেস্টের অবস্থা কাহিল। বেচারারা লাফাতে লাফাতে এখন মনে হচ্ছে আর বুকে থাকবে না। এত ভারী ব্রেস্ট, কিন্তু ড্যানের দেহের কাছে ওরা দুটো আপেলের মতো। আমার ব্রেস্টের দফারফা করে দিয়ে ড্যানের সেক্স প্রায় শেষ হতে চললো। বুঝতে পারলাম কারণ, তখন ড্যান ও কিছুটা জোরে শীৎকার দেয়া শুরু করেছে। আমাকে তখন ও শূন্যে তুলে ওর কোলে নিয়ে স্ট্রোক দিচ্ছিল একের পর এক। ওর অর্গাজম হবে দেখে আমাকে উপর থেকে বিছানায় ছুড়ে ফেললো। আমার মুখে ঠেসে ধরেছে ওর প্রকান্ড পিনাস। কালো কুচকুচে জিনিসটা এতক্ষন আমাকে সুখ দিয়েছে, ওকে ধরে আমি মুখে পুরে নেয়ার চেষ্টা করলাম। মুখে কি আর ঢোকে অত বড় জিনিস?

ড্যান আরো কিছুক্ষন ওর পিনাস আমার মুখে গালে ঠোঁটে রগড়ে ওর সাদা থকথকে সিমেন বের করতে থাকলো। ঘন বীর্য্যের ধারা যেন শেষই হচ্ছে না। আমার মুখ চোখ ঠোঁট ভরিয়ে দিয়ে আরো কিছুটা আমার ব্রেস্টের উপর ফেললো। এত বড় থলেতে এরকম পরিমানে বীর্য থাকবে সেটাই স্বাভাবিক। ও একটু ধাতস্থ হতেই আমি ওর পিনাসের মাঠে থেকে গোড়া পর্যন্ত চেটে পরিষ্কার করে দিলাম। তখনও আমার চোখ বন্ধ। কিছুই দেখছি না। শুধু অনুভব করতে পারছি, হাতের মতো মোটা একটা পিনাসের চারদিক অনুমান করে পরিষ্কার করছি। ড্যান কয়েকটা টিস্যু দিয়ে আমার চোখের উপর থেকে বীর্য পরিষ্কার করে আমাকে জড়িয়ে ধরে শুয়ে রইল। কিছুক্ষন পর বললো, ‘তুমি আর অন্য সবার মতো নও। তুমি কোনো অভিনয় করোনি, একদম ন্যাচারাল। তোমার যা ভালো লেগেছে সাড়া দিয়েছ। যা ভালো লাগেনি, তুমি চুপ করে ছিলে। তোমাকে আমার বেশ পছন্দ হয়েছে।’
‘সত্যি জানো, আমার মনে হয়েছে, আমি এতদিন ভার্জিন ছিলাম। অথচ আমার দুইটা বাচ্চা আছে। তোমার মতো এরকম অভিজ্ঞতা কারো সাথেই হয়নি।’
‘বেশ তো, তবে তোমাকে নিয়ে যাবো আগামী বছর। তখন দেখা হবে নিয়মিত।’
‘সে দেখা যাবে। ছাড়ো এখন, উঠতে হবে।’

ড্যানের হাত থেকে নিজেকে মুক্ত করে নিয়ে শাওয়ারে চলে গেলাম। ফ্রেস হয়ে শাড়ি পরে প্যান্টি পরতে যাচ্ছি, তখন ড্যান এসে বলে, ‘এটা আমি নিয়ে যাই? স্যুভেনির হিসেবে রেখে দেব?’
‘ঠিক আছে, নিতে চাইলে নাও। তোমার যখন এত ভালো লেগেছে।’
আমাকে দরজা পর্যন্ত এগিয়ে দিয়ে ড্যান শেষ বারের মতো জড়িয়ে ধরে একটা চুমু দিল। তারপর হঠাৎই নিচে নেমে শাড়ির ভেতরে মাথা ঢুকিয়ে ভ্যাজাইনার মুখে একটা চুমু দিল। ঘটনার আকস্মিকতায় আমি একটু হকচকিয়ে গেলাম। সাধারণত এমনটা কেউ করে না। সেক্স শেষ, এখন শুধু বিদায়। কিন্তু না, ড্যান আমাকে বেশ পছন্দ করেছে, বোঝাই যাচ্ছে। শাড়ির নিচ থেকে মাথা তুলে আমাকে আবারো জড়িয়ে ধরলো ড্যান। একেবারে ছাড়তেই চাইছে না। কোনোমতে ওর হাত থেকে ছাড়িয়ে রুম থেকে বেরিয়ে গেলাম।
অফিসের গাড়িতে নিজেকে এলিয়ে দিয়েছি। মাথাটা কেমন যেন হালকা লাগছে। কিন্তু নিচে তীব্র ব্যাথার সুখে বার বার কেঁপে উঠছিলাম। নির্ঘাত আজকে জ্বর টর কিছু একটা আসবে। জয়ের জন্যে মনটা একটু খারাপ লাগছে। নিজে সুখের সন্ধানে ছুটে চলেছি, আর ছেলেটা শুধু আমাতেই মজে আছে। আমারও খুব ইচ্ছে করে ও একটু নিজের মতো করে সুখ নিক, তাতে আমার এতটুকুও আপত্তি নেই। কারণ দিন শেষে তো জয় আমারই!

গল্প নিয়ে আপনাদের মতামত জানাতে আমার সাথে যোগাযোগ করতে পারেন। আপনার কোন সুপ্ত বাসনার প্লট নিয়ে গল্প লিখতে হলে জানান: জিমেইল/হ্যাংআউট: [email protected]

What did you think of this story??

Comments

Scroll To Top