মায়ের বান্ধবীর সাথে মায়ানমারে ভ্যাকেশন – পর্ব ১

This story is part of a series:

প্রায় তিন বছর পর লিখছি। আমার প্রথম গল্প “আমি, বান্ধবী ও অচেনা মধ্য বয়সী এক দম্পতির গ্রুপ সেক্স” যারা পড়েছেন তারা মোটামুটি জানেন আমার সম্পর্কে তাও একটু বলে রাখছি। আমি সামস বয়স ৩8 ( নাম পরিবর্তিত শুধু আমার না এই গল্পে সবার নাম পরিবর্তন করা হয়েছে) হংকং বেসড একটা আইটি ফার্মে কাজ করি বর্তমানে আমি মায়ানমার এর রাংগুন শহরে থাকি। ২০১৫ তে আমার বিয়ে হয় তার এক বছর পর আমাদের ছাড়াছাড়ি হয়ে যায় গত বছর আমার ডিভোর্স হয়ে গেছে এই গল্পের জন্য এর বেশি জানার দরকার নেই। আরেকটা কথা বলে রাখি আমার গল্পে সেক্স এর চাইতে এর আশে পাশের ঘটনার বর্ণনা বেসি থাকে তাই অনেকের পছন্দ না ও হতে পারে। আর আমার গল্প ৯০% ই সত্য। গল্পকে একটু আকর্শনীয় করার জন্য আমি কিছু পরিবর্তন করি।

এই গল্পটি আমার এক আন্টি কে নিয়ে। লিমা আন্টি। লিমা আন্টি আমার আম্মুর বান্ধবী। বান্ধবী হলেও বয়সে লিমা আন্টি আম্মুর অনেক ছোট। লিমা আন্টির সাথে পরিচয় আমার ছোট ভাইয়ের স্কুল থেকে। সেই ২০০৬ সালে আমার ছোট ভাই ও লিমা আন্টির একমাত্র ছেলে দিহান ক্লাস ২ তে ধানমন্ডি গভঃ বয়েস স্কুল ভর্তি হয় সেই থেকে আন্টি ও আরো কয়েকজনের সাথে আম্মুর পরিচয়। সেখান থেকেই আজ আমাদের দুই পরিবারের বন্ধুত্ব এত গভীর।

সোখনকে স্কুল থেকে আনতে গেলে আন্টির সাথে আমার প্রায়ই দেখা হোত। সালাম দেয়া ,কেমন আছেন, এই পর্যন্তই আলাপ এর বেশি কখনো কিছু নিয়ে আলাপ হয়েছে কিনা আমার মনে পরে না। কিন্তু আন্টিকে আমার বারাবরই ভালো লাগত। খুব ছিমছাম, কখন চোখে লাগে এমন পোষাক পরতে দেখি নাই, গারো লিপস্টিক দিতে দেখি নাই, এমন কি অনুষ্ঠানেও খুব সাজুগুজু করতে দেখি নাই। তাও ভালো লাগত কারণ আন্টি দেখতে অনেক কিউট। ৫ ফুট ২ ইঞ্চ লম্বা সাধারণ ছিপছিপে মেয়েদের মত ফিগার, এখন যে ৪০+ বয়স হয়ে গেছে তাও এই ফিগারটা ধরে রেখেছেন। তবে এখন একটু তলপেটের দিকে মেদ জমেছে, তাও কাপড়ের উপরে বুঝা যায় না।

আন্টি কে নিয়ে আমি কখনও খারাপ চিন্তা করি নাই। এমন মানুষের দিকে তাকালে আসলে খারাপ চিন্তা মাথায় আসে না। তবে তাকে দেখলেই আমার মনে হতো আমি এমন একটা বউ চাই? কিন্তু এর বদলে যাকে পেলাম তা আর বর্ণনা করার মত না। আন্টির সাথে সবচেয়ে বেশি সময় কাটিয়েছি ২০১১ তে। আমার ছোট বোনের বিয়ের সময়। আন্টি আমার বোনের গায়ে হলুদের সব কিছু নিজের হাতে করেছেন, স্টেজ সাজানো থেকে খাবার দাবার সব… সেই সুবাদে তার সাথে অনেক যায়গায় যেতে হয়েছে ঐ দুই দিন আমাদের মাঝে অনেক কথা বার্তাও হয়েছে, আমার এক্স তখন আমার গার্লফ্রেন্ড এটা সে কি করে যেন টের পেয়ে যায়। এটা নিয়ে আন্টি আমাকে টিজ করত। শুধু একটা ব্যাপার ছিলো, আমাদের মাঝে চোখে চোখে একটা কেমন ব্যপার ছিলো। আন্টি আমার চোখের দিকে তাকালেই চোখ সরিয়ে নিতেন আর মাঝে মাঝেই লক্ষ্য করতাম তার মুখে একটা দুষ্টু হাসি। আমি আগে কখনও এই সব বিষয়ে আমল দেই নাই। এখন ঘটনা বর্ণনা করতে গিয়ে আমি আসলে বুঝতে পেরেছি আমাদের মাঝে একটা রসায়ন সবসময় কাজ করত মনে হয়।

আমার বোনের বিয়ের কয়েক মাস পরেই বদরুল আঙ্কেল (আন্টির জামাই) এর হিলি বর্ডারে পোস্টিং হয়ে যায় তারা সপরিবারে চলে যান ঢাকা থেকে। ২০১৫ তে দিহান এর এস এস সি পরীক্ষা শেষ হবার পর কলেজে ভর্তি করতে আন্টি দিহান কে নিয়ে ঢাকায় চলে আসেন। সেই বছর আমার বিয়েতেও আন্টি অনেক সাহায্য করেন। সব কিছুই তার নজর দারিতে ছিলো। সবচেয়ে মজার কথা মনে পরে, আমাদের বাসর রাত হয় হোটেলে। আন্টি আমাদের হোটেলে দিয়ে আসতে যান। আসার সময় আমার কানে কানে বলে দেন লাগেজের উপরের পকেটে আছে হাত দিলেই পাবা। আমি তখন ব্যাপারটা বুঝতে পারি নাই। লাগেজ খুলে পকেটে হাত দিয়ে দেখি ডিউরেক্স দুইটা প্যাকেট।

তারপর আমার ছাড়াছাড়ির পরে আন্টির সাথে অনেকবার কথা হয়। মেয়েদের মন মানসিকতা কেমন হয় কখন কি করতে হয় তা বুঝানোর চেষ্টা করতেন। সে সময় মানসিক ভাবে আমি তার উপর অনেকটাই নির্ভরশিল হয়ে যাই। আন্টির সাথে আমাদের দাম্পত্য সমস্যা নিয়ে অনেক আলোচনা করি। আম্মু ও অনেকটাই আস্বস্থ বোধ করত আন্টির সাথে আমার এসব সেয়ার করার বিষয়ে। কারণ আম্মু আন্টির কাছ থেকে জানতে পারত আমার মনে অবস্থা। আমি ছাড়াছাড়ির পর অনেক মেয়ের সাথে অনলাইনে কথা বা বাইরে দেখা করতাম এটারও অনেক অংশ জানতেন। উনি অনেকবার না করেছেন এসব থেকে যেন দূরে থাকি। এদের মাঝে আন্টির অন্য এক বান্ধবীর বোন ও ছিলো যার সাথে আমি কয়েকবার ডেট + রুম ডেট করেছি। গত বছর সেই মেয়ের বাসা থেকে বিয়ের জন্য প্রস্তাব দেয়ার একটা পায়তারা করা হয় কিন্তু আন্টি কি কি বলে যেন ফিরিয়ে দেন। এই হলো আন্টির সাথে আমার রিলেশন। এর বাইরে আমি কোনদিন কিছু ভাবি নাই কিছু হবার কোন সুযোগ ছিলো এমন আভাষ ও পাই নাই।

যাক অনেক ইতিহাস বলে ফেললাম এবার মূল গল্পে যাওয়া যাক। ২০১৭ তে আমি মায়ানমার চলে আসি। মায়ানমারেও আমাদের মত নববর্ষ পালন করে। তবে তাদের টা একটু ভিন্ন এবং আরো অনেক বড়। আমাদের ত একদিন পালন করি পহেলা বৈশাখ বা ১৪ই এপ্রিল কিন্তু মায়ানমার এই উৎসব ৫ দিন ব্যপি। ওদের টার নাম থিনজিয়ান। এই উৎসবের মূল আকর্শন পানি খেলা ঘিরে। আমাদের পাহাড়িরাও এভাবে নববর্ষ পালন করে। তো ২০১৮ এর এপ্রিলে আমি মায়ানমার ছিলাম তখন আমি আমার কলিগদের সাথে ম্যান্ডালে যাই এই পানি উৎসবে অংশ নিতে। সেখানে এই উৎসব সবচেয়ে আড়ম্বরতার সাথে পালিত হয়। আমি গত বছর দুই দিন ছিলাম এবং আম্মুকে প্রায়ই ভিডিও কল দিয়ে দেখাতাম। একদিন আন্টি আমাদের বাসায় আসে তখন আম্মু ভিডিও কল করে বলে নাও লিমা আন্টি দেখতে চায় তোমাদের উৎসব। তাকে অনেকক্ষন ঘুরে ঘুরে দেখাই। তখন আন্টি বলে যে আগামী বছর আমরাও যাব। আমি বললাম অবশ্যই। যদি সুযোগ হয় অবশ্যই আসবেন।

এরপর জুন মাসে আমার ডিভোর্স এর ফর্মালিটি সম্পন্য হয়। তখনও আন্টি আমাকে দেনমোহরের টাকা পরিষোধের জন্য ধার দিয়ে সাহায্য করেন। সব মিলিয়ে আন্টির প্রতি আমার কৃতজ্ঞতার শেষ নেই। গত বছর মানে ২০১৯ এর ফেব্রুয়ারির শেষ দিকে প্রায় ৬ মাস পর আমি বাংলাদেশ এ যাই। একদিন সন্ধায় অফিস থেকে বাসায় এসে দেখি আন্টি এসেছেন। আমাকে দেখেই খুব মিষ্টি করে একটা হাসি দিয়ে বলেন……
কেমন আছো সামস।

ভালো আছি আন্টি, আপনি কেমন আছেন।
ভালো কি করে থাকি বলো দিহান মালয়সিয়া চলে গেলো পড়তে, তোমার আংকেল ও তার কাজে ঢাকার বাইরে থাকে। একা কি করব তাই তোমার আম্মুকে জ্বালাইতে চলে আসি।
এরপর নানান কথার মাঝে হঠাত জিজ্ঞেস করেন তুমি আবার কবে যাচ্ছ।
মার্চ এর ১১ তারিখ।
তাহলে ত নববর্ষের সময় সেখানে থাকবা।
জি আন্টি।
আন্টি সাথে সাথে বলে বসল এ বছর আমি যাব।
তাইলে ত খুবই ভালো হয়। যাইতে হইলে এখন থেকেই ভিসা প্রসেস করতে হবে কিন্তু।

সাথে সাথে আঙ্কেল কে ফোন দিলো। কিন্তু আঙ্কেল বলল তার নাকি এপ্রিলের মাঝামাঝিতে মন্ত্রনালয়ের কি কাজ আছে সে পারবে না। আন্টির মুখ গোমরা হয়ে গেলো। আমাকে বলল দেখ অবস্থা কতদিন কোথাও ঘুরতে যাই না, আর তার কাজের এমন একটা অবস্থা তাকে কিছু বলাও যায় না।

আমি বললাম আপনি চলেন, দিহান কে মালয়েশিয়া থেকে আসতে বলব সেখান থেকে মায়ানমার এর প্লেনের ভাড়া অনেক কম। তখন আমার ছোট ভাই এসে বলে তাহলে আমিও যাব। আমি ছোট খাটো একটা প্ল্যান করে ফেললাম তা শুনে আন্টির মুখ একটু উজ্জ্বল হলো আর বলল আচ্ছা তাইলে আমি তোমার আঙ্কেল কে বলে দেখি কি বলে।

প্রায় সপ্তাহ খানেক পর আম্মু আমাকে ফোন দিয়ে বলল “লিমা কে ফোন দিস ত ওর জানি কি কথা আছে।“ আমি অফিসের পর আন্টি কে ফোন দিলাম…
আন্টি জিজ্ঞেস করল ভিসা প্রসেস করতে কত লাগে? কত দিন সময় লাগে কি কি করতে হবে?

সব তথ্য শুনে বলল তাইলে কত খরচ হইতে পারে? আমি বললাম প্লেন ফেয়ার আর ভিসা প্রসেস করতে ৪০ হাজারের মত এছাড়া আর ৫০০ ডলার এর মত নিয়ে নিয়েন শপিং টপিং সহ হয়ে যাবে। আর থাকার সমস্যা হবে না আমার এপার্টমেন্ট ত আছে। তখন বললেন তোমার আঙ্কেল কে একটা ফোন দাও ত। আঙ্কেল কে ফোন দেয়ার পর ত রাজ্যের সব প্রশ্ন শুরু করলেন, কই যাবে কই থাকবে কি কি করবে কোন সমস্যা হবে নাকি। (কারণ রোহিঙ্গা নিয়ে বাংলাদেশ মায়ানমার এর মাঝে বেশ ঝামেলা চলছে তা ত সবাই জানেন) প্রায় আধা ঘন্টা বক বক করার পর ভিসা কারা প্রসেস করে তার কন্টাক্ট চাইলেন। আমি আমাদের অফিসে যে এজেন্ট আছে তার নাম্বার আর ঠিকানা দিয়ে দিলাম।

আমি চলে এলাম মার্চ এর ১১ তারিখ। অনেক নাটকীয়তার মধ্যে ভিসা ও টিকেট হলো। আমার ছোট ভাই তার পরীক্ষার কারণে আসতে পারবে না, এই সময় টিকেটের অনেক ক্রাইসি থাকে তাই টিকেট কাটা হলো ১০ তারিখ আসা আর ২২ তারিখ বাংলাদেশ ফিরে যাওয়া।

আমার কলিগদের জিজ্ঞেস করলাম কার কি প্ল্যান, কিন্তু এবার কেউই ম্যান্ডালে যাচ্ছে না। সবাই নাকি নিজের গ্রামের বাড়ি যাবে। কি আর করা অগত্য তাদের সাহায্য নিয়ে আমি বাসের টিকেট আর হোটেল বুক করে রাখলাম।

What did you think of this story??

Comments

Scroll To Top