তনু কাকিমা-আমার ক্রাশ- প্রথম পর্ব

আজ আমি আপনাদের বন্ধুর কাছে শোনা একটি সত্যি ঘটনা গল্পের মাধ্যমে বলার চেষ্টা করবো। ভালো লাগলে উৎসাহিত করবেন।

আমি রোহন, সদ্য কলেজ শেষ করে ইউনিভার্সিটিতে কিছুদিনের মধ্যেই এডমিশন নিয়ে নেবো। পড়াশোনা তে মোটামুটি খুব ভালো নয় আবার খুব খারাপও নয়। তবে আমি ছোট থেকেই খুব শান্ত ভদ্র ছেলে বলে অনেকেই বলে থাকে। উচ্চতা 5’7″ দেখতে খারাপ নয়। পাড়াতে সকলেই খুব ভালো চোখে দেখে।

শেষ কয়েক মাস হল আমি আমার পাড়াতে একজনের ওপর ক্রাশ খেয়েছি। নাম তনুশ্রী পাড়ার একটি কাকুকে বিয়ে করেছে দেড় বছর আগে কিন্তু আমি জানতাম না কারণ আমি কলেজে হস্টেলে থেকে পড়াশোনা করেছি।মাঝে মাঝে বাড়িতে আসলেও খুব বেশিদিন থাকতাম না তাই দুর্ভাগ্যবশত কোনোদিন তনু কাকিমাকে দেখার সৌভাগ্য হয়নি।

কলেজ শেষ করে যখন বাড়িতে এলাম কিছুদিন পর দেখেই ক্রাশ খেলাম। অনেকেই ভাবছেন সম্পর্কে কাকিমা যেহেতু তাই বয়সে হয়তো আমার থেকে অনেকটাই বেশি হবে। কিন্তু সেটা সত্যি নয়, কাকিমা আমার থেকে সাত বছরের বড়ো। যদিও এটা পরে জেনেছি। কাকিমার বয়স ২৯ এটা কেউ বুঝতে পারবে না,, কারণ কাকিমাকে দেখতে তেমন। না না কোনো জিম বা যোগা করে না। আসলে কাকিমার দেহ গঠন পুরোপুরি প্রকৃতির দান। কি সুন্দর দেহের গঠন। অপরূপ সৌন্দর্য।

তো ধীরে ধীরে বাড়িতে থাকতে থাকতে কাকিমার সঙ্গে আলাপ হয়ে গেল। কিন্তু এখনও ক্লোস বন্ধু হতে পারিনি। কাকিমার কাছাকাছি গেলেই যেন কেমন নার্ভাস হয়ে যাই। কাকিমা প্রায়ই মায়ের কাছে গল্প করতে আসতো। হ্যাঁ সর্বপ্রথম মায়ের কাছেই কাকিমার সম্পর্কে অনেক কিছু শুনেছি। কাকিমা স্নাতক পাশ করেছে ভূগোল বিষয় অনার্স কোর্সে। তারপর দূরশিক্ষণ এ স্নাতকোত্তর করেছে।
আরও কিছু দিন পর আমি কাকিমার সঙ্গে আরও বেশি বেশি কথা বলতে শুরু করলাম। কাকিমাও আমার সঙ্গে কথা বলত খুব উৎসাহের সঙ্গে।মাঝে মাঝে ইয়ার্কিও করতাম,আর কিছু কিছু কথা এমন বলতাম যেন দুজন দুজনের কাছে কিছু চাইছি,,সেগুলো মুখে না বললেও আমারা ঠিক বুঝতে পারতাম,,যেন এক অজানা টান তৈরি হচ্ছে।। যেমন একদিন। পাড়ার একজনকে কাকিমা বলছে “দিদি আমি না এখন তোমার সঙ্গে যেখানে যাবো বলছিলাম যেতে পারবো না। ” আমি সেখানে ছিলাম পাড়ার সেই কাকিমা জিজ্ঞাসা করল “কেন তনু কোনো সমস্যা হয়েছে? ” সঙ্গে সঙ্গে কাকিমার আগে আমি উত্তর দিলাম ” না না বাড়িতে অনেক দিন পর কাকু আসবে কাল,, এখন কি তনু কাকিমা বাড়ি ছেড়ে যাবে! ” দুজনেই বুঝতে পারল আমি কি বলতে চাইলাম।

তনু কাকিমা লজ্জা পেল একটু। পরের দিন আমি দোকানে গিয়েছিলাম ফিরছি হঠাৎ কাকিমা ডেকে বলল ” রোহন তুমি তোমার মায়ের টাকাটা নিয়ে যাও তো! ” আসলে মাঝে মাঝে কাকিমা আর মা প্রয়োজনে টাকা দেওয়া নেওয়া করে অনলাইনে কিছু কিনলে। আমি বললাম “ঠিক আছে দাও মাকে দিয়ে দেবো। ” বলে আমি কাকিমাদের বাড়িতে গেলাম। কাকিমা টাকা টা আমাকে দিল। তারপর বলল ” তুমি এতো পাজি ছেলে কেন? আমি তোমাকে কত ভালো ভাবতাম!” আমি বললাম “কেন আমি কি করেছি? ”

কাকিমা বলল ” তুমি গতকাল বললে কেন যে আমি যাবো না,যেখানে যাওয়ার কথা ছিল কারণ তোমার কাকু আসবে! ” আমি বললাম “সত্যি তো আজ কাকু আসবে! ” কাকিমা একটু অভিমানের সুরে বলল “আসবে কিন্তু তুমি যে কারণে বলছো,,, এটি সত্যি নয়। ” আমি বললাম “কেন তুমি খুশি নয় কাকু এতো দিন পর আসছে, কত ভালোবাসবে কত কিছু নিয়ে আসবে! ”
কাকিমা আস্তে করে বলল “ভালোবাসবে না ছাই,, সময় দেয় না শুধু কাজ নিয়ে পড়ে থাকে,,! ” আমি বুঝতে পারলাম “কাকিমা খুশি নয় কাকুর ব্যবহারে, তাই ওসব নিয়ে বেশি কথা বাড়ালাম না।

আমি সঙ্গে সঙ্গে প্রসঙ্গ পরিবর্তন করে দিলাম। আমি বললাম আচ্ছা তোমার কোথায় যাওয়ার কথা ছিল ” কাকিমা বলল “সপিং এ ” আমি বললাম “ভালো তো তাহলে ঘুরে এসো! ” । কাকিমা বলল “তোমার কাকু আসছে তাই এখন যাবো না পরে যাবো! ” আমি বললাম “তুমি কাকুকে নিয়ে যেতে পারো তো! ” সঙ্গে সঙ্গে কাকিমা রেগে গিয়ে বলল “থামো তো কাকু কাকু করো না,, বলছি সময় দেয় না,, আবার সপিং,, যাইহোক তুমি বুঝবে না আমার মনের অবস্থা! ”

আমার তখন খুব রাগ হলো,, আমি বুঝবো না,,, আমি একটু রেগে গিয়ে বললাম “কেন বুঝবো না, সব বুঝবো”
কাকিমা – তাহলে বার বার বলছো কেন এমন?
আমি- আমি কি আগে জানতাম নাকি এসব!তুমি না বললে কিভাবে জানবো।
কাকিমা- তুমি কে?যে তোমাকে সব বলবো(তখন পুরো চোখ ছলছল অবস্থা)
আমি – ঠিক বলেছো,, আমি কে আমাকেই বা বলবে কেন? আমি তো কেউ নয়।(অভিমান করে বললাম রেগে গিয়ে,,)
কাকিমা – আমি ওটা বলিনি তুমি কেউ নও।।
আমি – ওটাই বলেছো,,, আমি তোমার কেউ নয়। (বলে বাড়ি আসবো,, ঘুরেছি সবে,, কাকিমা সঙ্গে সঙ্গে কাছে এসে আমার হাত ধরে ফেলল আর বলল)
কাকিমা – তুমি বিশ্বাস করো,, এমন বলতে চাইনি,, তুমি তো আমাকে চেনো,, আমি কি এমন বলতে পারি,, তাও আবার তোমাকে।
তখন আমি কাকিমার মুখের দুপাশে দু হাত দিয়ে বললাম।
আমি- তাহলে বলো,, তোমার আর কাকুর মধ্যে যত সমস্যা আছে বলো,,,, কেন তোমাকে সময় দেয়না,, ভালবাসে না।
কাকিমা – আমি সব বলতে পারবো না,,, প্লিজ জিজ্ঞাসা করোনা।
আমি – তুমি কি আমাকে বন্ধু ভাবো না? আমি যে তোমার সঙ্গে এতো কথা বলি,,, আমি যে কত কিছুই শেয়ার করি।
কাকিমা- বন্ধু ভাবি,, তাই তো তোমার সাথে এতো কথা বলি।
আমি- তাহলে বলো সব,, আমি তোমার সব কিছু জানতে চাই।
কাকিমা – তোমার কাকু আমাকে সময় দেয় না,, প্রথম থেকেই,,, আর বাড়িতে এলেও যখন আমরা আদর করি,, আমি কোনোদিন সন্তুষ্ট হতে পারি না,,,, ও নিজের হয়ে গেলে আর আমার দিকে ফিরেও দেখে না,,, আমার হলো না হলো না তার কোনো যায় আসে না! আমি কতবার বোঝানোর চেষ্টা করেছি আমার পরিস্থিতি কিন্তু আমার কথা সে গুরুত্ব দেয় না। (বলতে বলতে কেঁদে ফেলল)
আমি কাকিমাকে শান্তনা দেওয়ার জন্য কাছে গিয়ে মাথায় হাত বুলিয়ে দিলাম তারপর বুকে টেনে নিলাম আর মাথায় হাত বুলিয়ে দিলাম।কাকিমা পুরো ছোট্ট বাচ্চাদের মতো বুকে ফুপিয়ে ফুপিয়ে কাঁদছিল আমার বুকে।।হ্যাঁ বন্ধুরা তখন এমন সাহস চলে এসেছিল আপনা আপনি যে কাছে টেনে নিয়েছিলাম। এক মিনিট দুজনেই চুপচাপ তারপর আমি মাথায় হাত বোলাতে বোলাতে বললাম ” আমি তোমাকে শপিং করতে নিয়ে যাবো,,, যাবে? ”

কাকিমা সঙ্গে সঙ্গে আমার থেকে ছাড়িয়ে নিয়ে বলল “না,লোকে কি বলবে,,,,? ” আমি বললাম “কেউ জানবে না,,,, ” কাকিমা বলল ” না আমি ওভাব যেতে পারবো না ”
আমি – তাহলে কিভাবে যেতে পারবে?
কাকিমা – কোনোভাবেই তোমার সঙ্গে যেতে পারবো না,, এখন বাড়ি যাও। (একটু হাসতে হাসতে)
আমি – না আমি বাড়ি যাবো না,,, আগে বলো কিভাবে যেতে পারবে?
কাকিমা – যাও না প্লিজ,,, আচ্ছা পরে বলবো,, এখন যাও! (কাকিমা র মন যেন খুব আনন্দে ভরে গিয়েছিল)
আমি- যাবো,,, এখুনি যাবো,, আগে একটা চুমু দাও!
কাকিমা – আ্যাই বাড়াবাড়ি হচ্ছে কিন্তু!!! যাও আগে।
আমি -প্লিজ গো,,,, প্লিজ প্লিজ প্লিজ,, দাও বলে এগিয়ে গেলাম আর মুখ টা ধরে ঠোঁট ঠোঁট লাগিয়ে ডিপ কিস করলাম,কাকিমা বাঁধা দিল না, আমি প্রথমে কাকিমার ঠোঁট চুষছিলাম,, তারপর যখন কাকিমা আমার ঠোঁট চুষতে শুরু করল,, কাকিমা র মুখের লালা আমার মুখে আসছিল,,কি সুন্দর ফিলিং হচ্ছিল,,,, আর শেষের দিকে দম বন্ধ হয়ে আসছিল। দেড় মিনিট পর কাকিমা ছাড়িয়ে দিয়ে বলল ” এবার কোনো কথা না বলে বাড়ি যাও।” চুপচাপ হতভম্ভ হয়ে বাড়ি ফিরে এলাম,,,,,, কি যে হয়ে গেল কিছু বুঝতে পারছিলাম না,,,, শুধু ঐ মুহূর্ত মনে আসছিল,,,, আর আলাদা ফিলং কাজ করছিল শরীর মনে। সেগুলো শব্দ দ্বারা প্রকাশ করতে পারছি না।। শুধু এতোটাই চিন্তায় মগ্ন ছিলাম যে,,, কাকিমা র দেওয়া টাকা মাকে ফেরত দিতে মনে ছিল না পরে দিয়েছিলাম।

ঐ ঘটনার পর,, ঐ চিন্তা তে এতোটাই মগ্ন ছিলাম,, আর কেমন যেন নিজের মধ্যে হচ্ছিল,,, পরের দিন ঘর থেকেই বেরোই নি। পুরো একদিন ঘরে ছিলাম,, মোবাইল ফোন নিয়ে সময় কাটিয়েছি আর, ভেবেছি কাকিমার কথা। একদিন পর হঠাৎ দেখি একটা নম্বরে কল এলো,, আমি ধরতেই অবাক হয়ে গেলাম এটা তো কাকিমার কন্ঠ।

আমি – হ্যালো।
কাকিমা- রোহন তো?
আমি- হ্যাঁ,,, তুমি নম্বর কোথায় পেলে।
কাকিমা – পাড়ার একজনের কাছ থেকে।
আমি- তুমি আগে বলো,,,, ঘরে কি করছো,, বেরোওনি কেন?
আমি – তেমন কিছু নয়,,, ঐ দিনের পর কেমন যেন হচ্ছিল,,, আর কাকু তো আসছে,,,,
কাকিমা- কেমন যেন হচ্ছিল বলতে,, তুমি কি ভয় পেয়ে গেছো?? আর কাকু গতকাল এসে আজ সকালেই চলে গেছে।
আমি- না না ভয় পায়নি,,,, আসলে বুঝতে পারছি না,,, কি হয়েছে,, আমি তো এমন কোনোদিন কোনো মেয়ের সঙ্গে কিস করিনি,,,
কাকিমা – তুমি,, তোমার কথা রাখো,,,,, তুমি কি আগামী কাল আর আগামী পরশু ফ্রি আছো??
আমি – হ্যাঁ কেন?
কাকিমা- তুমি তো,,,,, ঐদিনের পর,,, ঘরে চলে গেলে আমি এদিকে দেহ জ্বালায় মরছি,,, খবর তো নাওনি,,,,, আমারও তোমাকে কিস করার পর কেমন যেন হচ্ছে,,, আর পারছি না,,, শুধু ওটা মনে পড়ছে,,,, তোমাকে ভীষণ পেতে ইচ্ছা করছে,, কিন্তু এখানে তো সম্ভব নয়,,,,,, তাই ভাবছি আমি তোমাকে নিয়ে আমার বাপের বাড়ি যাবো,,,, ওখানে বাপি কাজে থাকে, মা শুধু একা থাকে আর ভাই আর ভাইবৌ কর্মসূত্রে অন্যত্র থাকে,,, তোমার কোনো সমস্যা নেই তো?
আমি- না কোনো সমস্যা নেই! (কিন্তু প্রচুর নার্ভাস লাগছিল)
কাকিমা- ঠিক আছে কাল আমি তোমার মাকে বলবো,, তুমি যেন আমাদের স্কুটি টা নিয়ে আমাকে পৌচ্ছে দিয়ে আসো,,,, আমার শরীর টা ভালো নয়,,, স্কুটি চালাতে পারবো না,, এখন।
আমি- আচ্ছা ঠিক আছে,,, তাহলে কাল কখন যাবো আমরা?
কাকিমা- সকাল দলটা নাগাদ।
ক্রমশ চলবে,,,,,

(মতামত জানান [email protected] Com)