Bengali Hot Story – সন্তুর রঙ্গীন জীবন – ২

(Bengali Hot Story - Sontur Rongin Jibon - 2)

Bengali Hot Story – অদ্ভুত এই জাঙ্গিয়া নকশা ৷ এই জাঙ্গিয়া পড়লে শরীরের সমস্ত অংশই দেখা যাবে ৷ পাতলা ইলাস্টিকের কোমরবন্ধ ছাড়া সমস্ত জাঙ্গিয়াটাই ট্রানস্পারেন্ট ৷

মৃণালিনী যেন সন্তুকে গুগলি বল ছুড়ে দিলো ৷ কোনও কিছু বোঝার আগেই সন্তু যেন আউট হয়ে গেলো ৷ শুয়ে শুয়েই মৃণালিনী পাছার উপর জাঙ্গিয়াটা গলিয়ে নিয়ে গায়ের উপর থেকে গামছাটা একটানে সানে ফেলে দিলো ৷

মৃণালিনীর দেহে একটা জাঙ্গিয়া থাকলেও ব্যস্তবে মৃণালিনী এককথায় নগ্ন ৷ মৃণালিনী এক ঝটকায় চিৎ হয়ে শুয়ে সন্তুকে বুকের কাছে টেনে ধরতেই গোত্তা খাওয়া ঘুড়ির মতোন সন্তু গোত্তা খেয়ে মামীর বুকের উপরে পড়ল ৷

সন্তু কিছু বুঝে ওঠার আগেই মৃণালিনীর কামুক মন সন্তুর মুখটিকে তার স্তনের উপরে চেপে ধরলো ৷ মৃণালিনী এত জোরে সন্তুর মুখ তার নগ্ন স্তনযুগলের উপরে চেপে ধরেছে যে সন্তুর নিঃশ্বাস প্রশ্বাস নেওয়া দুষ্কর হয়ে উঠলো ৷

সন্তু বুঝতে পারছে যে আজ মামীর হাত থেকে তার নিস্তার নেই ৷ বহুদিনের উপোসী নরখাদক মামী তাকে আজ ভক্ষণ করে ছাড়বে ৷ মৃণালিনী আজ সন্তুর হাড়মাস চিবিয়ে চিবিয়ে খাবে ৷

সন্তুর লিঙ্গ দ্রুতগতিতে উত্থিত হোতে লাগলো ৷ মামীকে হাতের লাগালে পাওয়া সত্ত্বেও  সন্তু এইমূহুর্তে মামীর গুপ্ত ইচ্ছাকে পূরণ করার পক্ষপাতী নয় ৷ সন্তু মনে মনে ভাবে এত হুটোপাটির কি আছে , রসিয়ে রসিয়ে মামীকে আরও বেশী জালে ফাঁসিয়ে মামীর গুপ্তাঙ্গে এমন মজা দেবে যাতে মামীর কিছু বিষয় সম্পত্তি সন্তু হাতিয়ে নিতে পারে ৷

সন্তু বেশ ভালো মতোই জানে কাউকে একবার ঠিকমতো বাগে আনতে পারলে সে তার কাছে চিরজীবনের দাসী হয়ে যাবে যেমন তার মা রূপসী , তার মাসী বুলু , বুলুর প্রতিবেশী কাকি সঞ্জনা ও তার মেযে রঞ্জনা ইতিমধ্যেই তার দাসীতে পরিণত হয়েছে ৷

এই দাসীর তালিকায় তার বোন কামিনী ও তার দিদি কল্যাণীও আছে ৷ সন্তুর অনেকদিনের জমানো সুপ্ত ইচ্ছা যে এই তালিকায় আগামী কিছুদিনের মধ্যেই তার শ্বাশুড়ী ও তার বড় শালীকে ঢোকাবে ৷

পাড়ার মায়া কাকিমা তো সন্তু অন্ত প্রাণ ৷ কথায় কথায় হাঁ সন্তু জো সন্তু ৷ ইতিমধ্যেই সে বাড়ীর কাজের মেয়ে মোনাকে গর্ভবতী করে দিয়েছে ৷ মোনাকে আসলে সন্তু গর্ভবতী করলেও দোষটা কিন্তু সন্তুর বাবা কালীর উপরে গিয়ে পড়েছে ৷

সন্তুকে দোষের হাত থেকে বাঁচাতে সন্তুর মা রূপসীর চাল দেখার মতো ঘটনা ৷ সন্তুকে রূপসী যতটা প্রেম করে তার কিঞ্চিৎ মাত্র কালীকে করে না ৷ রূপসীর প্রকৃত স্বামী মনে হয় তার ছেলে সন্তুই ৷

মৃণালিনী যৌন কামড়ে বিছানায় ছটফট করছে আর সন্তু বুঝেও না বোঝার ভান করে মামীকে আরও খেলাচ্ছে ৷ মৃণালিনী কাটা কবুতরের মতো লাফাতে লেগেছে ৷ জাঙ্গিয়া ভিতর দিয়ে মৃণালিনীর গুপ্তাঙ্গ সম্পূর্ণ দেখা যাচ্ছে ৷

গুপ্তাঙ্গের কেশগুচ্ছ সেভ থাকায় গুপ্তাঙ্গের দুদিকের পর্দা সুন্দর দেখা যাচ্ছে ৷ মামীর গুপ্তাঙ্গ দেখতে সন্তুর খুব ভালো লাগছে ৷ ভালো লাগারই কথা ৷ এমন সুন্দর গুপ্তাঙ্গ দেখতে কার না ভালো লাগে , তাতে সেই গুপ্তাঙ্গ যদি নিজের সম্মানিতা কোনও আত্মীয়র হয় , যেমনটি সন্তুর ক্ষেত্রে লাগাতর ঘটে চলেছে ৷

সন্তুর জীবনটা রঙে রঙে ভরা ৷ এত রঙ্গীন জীবন পেতে গেলে সন্তুর মতো সাহসী না হলে কখনই সম্ভব নয় ৷ সধবা বিধবা কোন কিছুতেই সন্তুর না নেই ৷ যার প্রতি তার নজর গিয়েছে তাকে সে না ঢুঁকিয়ে ছেড়েছে না ৷

সন্তু যেন ধর্মের ষাঁড় ৷ বয়স্কা নারীদের সাথে সন্তু যতটা মেলামেশা করতে ভালোবাসে ততটা কম বয়সীদের মেয়ে বা যুবতীদের সাথে মেলামেশা পছন্দ করে না ৷ এটাই বুঝি সন্তুর বিশেষত্ব ৷ মৃণালিনী ঈশারায় সন্তুকে মৃণালিনীর ভ্যানিটি ব্যাগটা আনতে বলল ৷

সন্তু হাপ ছেড়ে বাঁচল ৷ মৃণালিনী মানে সন্তুর মামী নিজের দুই স্তনের খাচে এমনভাবে সন্তুর মুখ নাক ঠেঁসে ধরেছিলো যে আরেকটু হলেই সন্তুর দমবন্ধ হয়ে যাওয়ার উপক্রম হয়ে গেছিল ৷

সত্যি বলিহারি সন্তুর মামীর যৌনকামণা ৷ মৃণালিনীকে দোষ দিয়েও লাভ নেই কারণ সন্তর শা যৌন আবেদন তা দেখে যে কোনও বয়সের মেয়েমানুষই সন্তুর খপ্পরে পড়তে বাধ্য , সে যুবতীই হোক বা বয়স্কা অথবা কম বয়সী কিশোরী যাই হোক না কেন ৷

সন্তুর পাল্লায় যে পড়ে সন্তু তার খোলনলচে না বদলে নিঃশ্বাস নেয় না ৷ যে কোনও বয়সের নারীর কাছেই তাই সন্তু আদর্শ নায়ক ৷ তাই তো নিজের মা ছেলের প্রেমে পড়ে এমন ধরাশায়ী হয়েছে যে আজ সে সন্তুর দাসী হয়ে গেছে ৷

সন্তুর সাথে দাম্পত্য জীবন কাটাতেও সন্তুর মায়ের কোনও লাজলজ্জার বালাই নেই ৷ মৃণালিনীর ভ্যানিটি ব্যাগের ভিতরে রং বেংয়ের কন্ডোমের প্যাকেট , কেবল পুরুষ কন্ডোমই নয় নারী কন্ডোম ,সেক্স উত্তেজনাকারী ট্যাবলেট আরও কত কি সেক্স উপভোগকারী বস্তু সামগ্রীতে ভরা তার ইয়েত্তা নেই ৷

মনে হচ্ছে মৃণালিনী বাড়ীতে বসে বসেই বেশ্যাবৃত্তির কাজ করে ৷ মৃণালিনীর মা অবশ্য খানদানী বেশ্যা ছিল ৷ দোর্দণ্ডপ্রতাপ বেশ্যা হওয়াতে পাড়ার লোকজনেরা মৃণালিনীর মায়ের ভয়ে কাঁপত ৷ দারোয়ান থেকে মন্ত্রী , বেয়ারা থেকে অফিসার সকলেই মৃণালিনীর মায়ের খদ্দের ছিল ৷

হয়তো মায়ের গুণটা মৃণালিনী পেয়েছে ৷ মৃণালিনীকে একটা নাইটি এনে দিয়ে সন্তু তা মৃণালিনীকে পড়িয়ে দিলো ৷ নাইটির ভিতর দিয়ে মৃণালিনীর সমস্ত অবয়ব দেখা যাচ্ছে ৷ মৃণালিনী মনে হয় ট্রানস্পারেন্ট সব কিছু পড়তেই ভালোবাসে ৷

মৃণালিনীর শরীরে সন্তু হাত বুলিয়ে দিতে লাগলো ৷ মৃণালিনীর সারা  শরীরে রোম বলতে কিছু নেই ৷ বেশ্যাপাড়ার পরিবর্তে যদি বাড়ীটাই বেশ্যাবাড়ীতে পরিবর্তন হয়ে যায় তাহলে তো আরও মজা ৷ যথেচ্ছ যৌনসম্ভোগ উপভোগ করা যাবে আবার পয়সাও উপার্জন  করা যাবে ৷

আজ আধুনিক যুগে যখন পয়সা ছাড়া কোনও কিছু হয় না তখন ঘরে বসে বেশ্যাবৃত্তি করলে কি দোষ — তাই সন্তু মোটেই বেশ্যাবৃত্তির বিরোধী নয় ৷ প্রয়োজনে সে নিজের বউকে দিয়েও বেশ্যাবৃত্তি করাতে রাজী ৷ মৃণালিনীকে বুঝিয়ে পড়িয়ে সন্তু তাকে রান্না ঘরে পাঠালো নাহলে যে তাদের দক্ষিণ হস্ত মুখে উঠবে না ৷

মৃণালিনী রান্নাঘরে গিয়ে চা করতে লাগলো ৷ মামী যাতে রাগ না করে সেইজন্য সন্তু মামীর পশ্চাদ্‌গামী হয়ে রান্নাঘরে উদয় হোলো ৷ মামীর পশ্চাদ্ভাগ দেখে সন্তুর জিভ দিয়ে টপ্ টপ্ করে জল টপ্‌কাতে লাগলো ৷ মৃণালিনীর উচ্চ নিতম্ব দেখলে কার না লোভ লাগবে ৷

ভগবান যেন সূক্ষ্মাতিসূক্ষ্ম ধ্যানমন দিয়ে মৃণালিনীকে গড়েছে ৷ মৃণালিনীর শরীরের প্রতিটি অঙ্গ প্রতঙ্গ চেয়ে চেয়ে  দেখার মতো ৷  নিতম্বিনী মৃণালিনী যখন চলে তখন তার নিতম্ব যেভাবে উত্থান পতন হয় — আঃহাঃ তা না দেখলে বর্ণনার মাধ্যমে কখনই বুঝে ওঠা সম্ভবপর নয় ৷

মৃণালিনীর দেহসৌষ্ঠব  এক অনির্বচনীয় ঘটনা ৷ মৃণালিনীর দেহের যৌনাবেদন এক অভূতপূর্ব অসেতুসম্ভব ক্রিয়া ৷ সন্তুর তার মামীর ঠাঁট-বাঁট দেখে দিশাহারা হয়ে যাচ্ছে ৷ সন্তু কি করতে কি করবে বুঝে উঠতে পারছে না ৷ সন্তু কিন্তু মোটেই উজবুক নয় ৷ মা-মাসী তার ঠাঁপান খেয়ে বর্তে গেছে ৷

মৃণালিনীকে কেন সে খেলাচ্ছে তার সদুত্তর সন্তুই জানে ৷ মৃণালিনী জলের বোতলে কি জানি কি একটা মিলিয়ে দিলো ৷ সন্তু পিছন থেকে এসে নিজের মামীকে জাপ্‌টে ধরলো ৷ মৃণালিনীর দুই স্তন এখন সন্তুর হাতের মুঠোয় ৷ মৃণালিনী সন্তুকে কোনও বাঁধানিষেধ করার পরিবর্তে নিজের মুখ ঘুরিয়ে সন্তুর ঠোঁটে ঠোঁট লাগিয়ে তা চো চো করে চুষতে লাগলো ৷ সুযোগ বুঝে মৃণালিনী দাঁত দিয়ে  নিজের মুখে বিস্কুট ধরে তা সন্তুর মুখে তুলে দিল ৷

Bengali Hot Story by Prabir

What did you think of this story??

Comments

Scroll To Top