বেঙ্গলি সেক্স চটি – খালার খেলা – ৪

বেঙ্গলি সেক্স চটি – খালার খেলা – ৩

সকাল বেলা আমি উঠে ক্লাসে চলে যাই। দুপুরে খালার সংগে একবার ফোন করে কথা হয়েছে। শুধু বললো আমি ব্যাস্ত। কথা বলা যাবেনা।
কাজ শেষ করে যখন বাসায় আসবো ঠিক তখনি খালার টেক্সট। কোথায় তুই।
রাস্তায় খালা।

বাসায় এসে সোজা গোছল করবি। যেন দেরী না হয়। ডিনার করবো। আমি ক্ষুধার্ত।
আমিও ক্ষুধার্ত। কিছুই খাইনাই সারাদিন।
কেন?
তোমাকে নিয়েই ভাবছি সারাদিন।
কেন?
তোমার দেয়াল ভাংগার টুলস নিয়ে।
আমার দেয়াল, আমি ভাংগবো, তুই ভাবছিস কেন?
ভাবছি কি সেই টূলস?
তারাতারি চলে আয়। আমি অপেক্ষা করছি।

বাসায় ডুকেই কেমন একটা আলাদা পরিবেশ লক্ষ্য করলাম। মিস্টি গন্ধে ঘর মউ মউ করছে। খালা নতুন একটা গুছি ব্রান্ডের পিংকিস নাইট গাউন পরে আছে। মনে হচ্ছে অন্য সাঝে এক সেক্স দেবী দাড়িয়ে আছে।
আমাকে কমান্ড করে বলে সোজা গোছল করে কাপড় পরে টেবিলে চলে আয়।

আমি বাধ্য ছেলের মত গোছল সেড়ে ভাল করে খালার পছন্দের পারফিউম ভাল করে দিয়ে। ডাইনিং টেবিলের সামনে চলে আসি। আমার মাথা ঘুড়ে গেল। টেবিল ক্যন্ডেললাইট দিয়ে সাজানো। দেখেই বোঝা যায় খাবার বাহির থেকে নেয়া। দামী অয়াইনের বোতল। রোমান্টিক ডিনার।
আমি তেমন কোন কথাই বলি নাই, শুধু বললাম, এত পরিপাটি আয়োজন।

হ্যা, আজ আমার স্পেশাল ডে।
তোমার স্পেশাল ডে অথচ আমি জানিনা?
আমার সব কিছু তুই জানিস।
তাইতো।
এখন থেকে জানার চেস্টা কর।

সুস্বাদু খাবার খেয়ে, অয়াইনের বোতল শেষ করে আমি বললাম আজ তোমার স্পেশাল ডে আর অয়াইন কই।
এই স্পেশাল ডেতে বেশী অয়াইন খেতে নাই নয়তো মনে থাকবেনা।
সবকিছু ক্লিন করে খালা তার রুমে চলে গেল। আমিও আমার রুমে গিয়ে ল্যাপটপে একটু কাজ করছি আর ভাবছি কি স্পেশাল ডে।
প্রায় ৩০ মিনিট পর খালার টেক্সট। কি রে, কি করিস।
বসে আছি ল্যাপটপ নিয়ে।

ডাইনিং টেবিলের উপর একটি প্যাকেট আছে সেটা নিয়ে একটু আমার রুমে আয়।
ডাইনিং টেবিলের উপর রাখা ছোট একটা প্যাকেট, সুন্দর করে কাগজ দিয়ে মোড়ানো এবং ব্লু কালের ফিতা দিয়ে বাধা।আমি হাতে নিয়ে খালার রোমের দরজায় নক করে বলি আসবো খালা।
আয়।

ভিতরে ডুকে আমার মাথা ঘুরে যাচ্ছে। খালার বেডের চারপাশে ভিবিন্ন কালারের মোমবাতি জলছে। পাশেই বিশাল বড় এক তোড়া ফুল রাখা। খালা খাটের উপর বসে নিজের পায়ে সুগন্ধি ক্রিম মাখছে।
কিরে ভয় ফেলি নাকি?
খালা তুমি কি ঠিক আছ?

আজ আমার বাসর রাত দিবস। এইদিনে আমার বাসর হয়েছিল।
আমি যদি আগে জানতাম তুমি তা সেলিব্রিট কর আমি গিপ্ট নিয়ে আসতাম।
আমি এই রাতে গিপ্ট নেই না। দেই
আমার হাতের প্যাকেট দেখি বলি, এই টা কি আমার গিপ্ট।
হ্যা, কিন্তু খুলবিনা এখন।
কি আছে এখানে খালা।
অবশ্যই দেখতে পাবি। ব্যস্ত হওয়ার কি আছে।
তুমি এইভাবে সারারাত বসে থাকবে।

না, তুইও আমার সংগে থাকবি। গল্প করবি, আমার বাসর রাতের আধারে কলালক্ষ্মীর কোমল প্রেমে ভাসিয়ে দিবি। ভাল থাকার গল্প, সুখের গল্প, মিস্টি মধুর আমেজের গল্প, যে গল্প শুনে এক রাজকুমারী ভেলায় ভেসে চলে যাবে দেশ থেকে দেশান্তরে কিন্তু সে বুঝতেই পারবেনা। সে কোথায় যাচ্ছে। যত যায় ততই সে সুখের অন্ধকার কুপে ডুকে যাবে। যেন এই কুপ থেকে আর বাহির না হয়।
খালা আমি কিছুই বুঝতে পারছিনা।

রাজকুমারীকে ভেলায় ভাসাতে হলে বুঝা উচিত। বাসর রাতের সেলিবেট নাচ গান করে হয়।
আমার মাথায় ডুকেছে এইবার। খালা কি আমায় আজ আহবান করছে। বাসরতো আর একজনে হয়না? নিজের অজান্তেই আমি শব্দ করে বলে ফেললাম তাহলে, দেয়াল।

গতরাত্রে বলেছিলাম না। আমি টুলস নিয়ে আসবো। এই প্যাকেটে সেই টুলস। এই দেয়াল ভাংগতে হয় কোমল শীতল মস্রিন টুলস দিয়ে।
আমি প্যাকেট খুলে দেখি প্যাকেট অব কন্ডম এবং লুব্রিকেট ক্রিম।

আমি খালার খাটে গিয়ে বসে বললাম। খালা আমি যা দেখছি তা কি ঠীক? সপ্ন নয়তো?
চিমটি কেটে দেখ।
তুমি কি সিউড় খালা। আমাদের শ্রদ্ধাশীল সম্পর্ক কিন্তু থাকবেনা।

আমি যা করছি বুঝে শুনেই করছি। বাকিটা তোর উপর। আমি শ্রদ্ধার জায়গায় এক্স্রাটা যোগ করতে চাই। ভালবাসা।
একবার দেয়াল ভেংগে গেলে কিন্তু আর সেই দেয়াল তৈরি করা যায় না।

রাজিব আমি এই দেয়াল আরো মজবুত করতে চাই। আমি বহু চিন্তা করেছি। তোর শরির দেখলে আমার মাথা ঠিক থাকে না। আমার গায়ে আগুন ধরে যায়। ক্লাবে আমার দুধ তোর গায়ে লাগার পর থেকে আমি জলছি। মিনিটে মিনিটে ভিজে যাচ্ছে আমার পেন্টি। আমি চিন্তা করেছি যদি আমায় কেউ শান্তি দিতে পারে সেটা তুই। কারন তুই ছাড়া এখন আর কেও পারবেনা। আমি ক্যাজুয়াল সেক্স করতেও রাজি। সম্পর্ক নিয়ে পরে চিন্তা করবো। দুধ আর কলা আমায় পাগল করে দিয়েছে।

আমি খালার হাত ধরে চোখে চোখ রেখে বলি আমি তোমার দাস হয়ে থাকতেও পারি। আমি ক্যাজুয়াল নই। ভালবাসতে চাই, I Don\’t want to fuck you. I want to make love. আমি তোমার গভীরে যেতে চাই। তোমার ভিতরে ডুকে সুখের কবিতা আর গান গাইতে চাই।
রাজিব Me to. I also want to you inside me. I want you to make me fell honoured with and make me happy with the Real meaning of love and care.

বলেই আমার হাতে চাপ দেয় এবং বলে বাবু এই ভাবে সারারাত হাত ধরে থাকলে কি ভাবে ভিতর ডুকবে?
খালা, তোমার হাত ধরেই আমি সারাদিন বসে থাকতে পারি।

তোর হাত হয়ে আমার শরিরে যে ১০০০ ভোল্টের ইলেকট্রিক ফাছ হচ্ছে তুই টের পাচ্ছিস? কামনার তরংগে আমি বেহুশ হয়ে যাব। আমার মনে হচ্ছে তোর জন্যই আমি এতদিন অপেক্ষা করছি। আজ আমার বাসর। আমাকে ধন্য কর বাবা। প্লিজ টেইক মি।

খালা তুমি অস্তির হচ্ছ কেন? তুমি যদি চাও এই রাত শেষ হবেনা। তুমিই বলেছ আজ তোমার বাসর, আমারও আজ জিবনের প্রথম রাত। আমি যার কাছে নিজেকে সপে দিব তাকেতো আমার জানতে হবে।বুঝতে হবে। আমি জানি তুমি কি খাইতে পছন্দ কর, পড়তে পছন্দ কর কিন্তু জানিনা বিছানায় কি তোমার পছন্দ।

তুই খুব বুদ্ধিমান। বাসরে পুরুষরাই আগে আরম্ভ করে। ধীরে ধীরে আমি আমার আচরণ দিয়েই বলে দিব আমি কি চাই। না পাইলে চাইয়া নিব বাবা। ভিক্ষা চাইব তো কাছে। আমি জানি তুই উস্তাদ। সব বুঝে যাবি। তোর সব কিছুই আমার ভাল লাগে। বলে ফেল ফেল করে আমার দিকে চেয়ে থাকে।
আমি আমার মুখটা খালার কাছে নিতে থাকি। যতই খালার কাছে যাই ততই খালার চোখ বন্ধ হয়ে যাচ্ছে। লাল গোলাপের পাপড়ির মত ঠুট কাপতে থাকে। আমার ঠুট কাছে যেতে খালা ওহ বলে গোংগানী দেয়।

আলতো ছুঁয়ে দিলেই খালার সারাশরির শিহরিত হয়ে যায়। আমিও উৎসাহিত হয়ে ঠুটের উপর আস্তে করে কামর দেই। খালা পাগলের আমার গলায় জড়িয়ে ধরে জিভ আমার মুখে ডুকিয়ে দেয়।আমিও আয়েশ করে অনেকদিনের উপোস থাকা বাঘের মত জিভ চুসি খালাও আমার জিভ নিয়ে খেলতে থাকে। আমি এক হাতে খালার মাথায় গাড়ে বুলিয়ে দিচ্ছি অন্য হাতে পিঠে।

তখন বুঝতে পারলাম খালার ব্রা নাই।যখন বুঝলাম ব্রা নাই তখনই মনে পড়ে গেল মহিয়সির দুধের কথা। যে দুধের স্পর্শে আমার গায়ে আগুন ধরিয়েছে।ডান হাতটা আস্তে করে বুকের দিকে নিয়ে আসছি আর ভাবছি এখনি সেই অমুল্য সম্পদ আমি স্পর্শ করবো। খালার সবচেয়ে আকর্ষণীয় স্তান। বলেই আলতো করে হাত বুলাতে থাকি। খালা আমার ঠুট আর জিভ নিয়ে ব্যাস্ততম সময় পার করছে। এবং এক হাত আমার ক্রচে নিয়ে উপর থেকেই আমার মহারাজার অনুভূতি নিচ্ছে। আমি বুঝতে পারছি খালা আমার লিংগের সাইজ বুঝার চেস্টা করছে। আন্ডার ওয়ার খুব টাইট থাকায় ঠিক বুঝে উঠতে পারছে না।

আমি স্লোলি খালার নাইট ড্রেসটি উপরে উঠানোর চেস্টা করছি। খালা নড়ে চড়ে সাহায্য করছে খুলতে। খালাও আমার টিশার্ট খুলে নিল। আমাকে কোন চান্স না দিয়ে খালা আমাকে বুকে কামড়াতে আরম্ব করে দিল আর বললো অহ কতদিন এই টাইট মাছুলে কামড়াবো বলে অপেক্ষা করছ

Dril Deb