বোন হলো অবশেষে বউ পার্ট- ০১

(Bon Holo Oboseshe Bou - 1)

​​আমি অর্কো আমার বয়স ২৬ বছর ​​​,আমি পড়ালেখা  শেষ করে একটি কর্পোরেট অফিসে জব করছি।

আমার বাড়ি সিলেট আমি থাকি ঢাকা। আমার ফ্যামিলিতে আমি, বাবা,মা আর ছোট বোন অর্নি। ওর বয়স ১৭ ও এই বছর এইসএসসি দিবে। বাবা বিজনেস করেন আর মা গৃহিনি।

এইবার আসি আসল কথায়, আমার সামনে ইদের ছুটি তাই বাড়ি যাওয়ার প্রস্তুতি নিলাম,সবার জন্য কেনাকাটা করলাম, বোনের জন্য দুইটা থ্রি-পিস ও একটা সুন্দর বোরকা কিনলাম।

তো কেনা কাটা শেষ ট্রেনের টিকিট আগেই কাটা ছিল তাই ইদের ৩ দিন আগেই বাড়ি রওনা দিলাম।

ও একটা কথা আমি প্রায় ১ বছর পর বাড়ি যাচ্ছি, চাকরিতে জয়েন হওয়ার পর আর বাড়ি যাওয়া হয়নি।তাই সবার জন্যই কম বেশি কেনা কাটা করেছি,বিশেষ করে আমার আদরের ছোট বোন অর্নির জন্য।দির্ঘ ৫ ঘন্টা জার্নি করে অবশেষে বাড়ি পৌছালাম।কারন সিলেট শহর থেকে অনেক ভিতরে গ্রামে আমাদের বাড়ি।

বাড়ি পৌছাতে প্রায় রাত ১০ টা বেজে গেল,বাড়ি গিয়ে দেখি সবাই ঘুমিয়ে গেছে,আম্মুকে ডেকে তুল্লাম তারপর খাওয়া শেষ করে আমিও ঘুমিয়ে গেলাম,অনেক রাত তাই আর অর্নিকে ডাকলাম না।সকাল ৬ টায় দেখি ছোট বেন অর্নি ডাকাডাকি শুরু করছে, রুমের দরজা খোলায় ছিল তাই ও বিছানাট পাশে গিয়েই ডাকছে।

ও ডাকছে আর বলছে ভাইয়া আমার গিফ্ট কোথায়,আমি ঘুম ঘুম চোখে বলছি যা এখন পরে নিস এখন ঘুমাতে দেতো,কিন্তু ও নাছোরবান্দা ও গিফ্ট না নিয়ে যাবেইনা,তাই আমার গায়ের কাথা ধরে টান দিয়ে কাথা নিয়ে গেছে আমি লাফ দিয়ে উঠে দেখি আমার পড়নে লুংগি ও নাই,আমার তো লজ্জায় অবস্থা খারাপ,আর এদিকে ও খিলখিল করে হাসছে আমাকে নেংটু দেখে।

আমি তাড়াহুড়া করে বিছানার পাশ থেকে লুঙ্গি নিয়ে পড়লাম, আর ভাল করে ওর দিকে তাকালাম ওকে যেন আমি চিনতেই পরছিনা ও এই একবছরে এতে বড় হয়ে গেছে একেবারে অচেনা লাগছে,আর রুপ যৌবন যেন উপচে পড়ছে,আমি একদেনে আমার আদরের বোনকে দেখছি যেন অচেনা এক পরী আমার ঘরে এসেছে, শেষে ওর ডাকে আমার ধ্যান ভাংলো।

অর্নি – এই ভাইয়া কি দেখছিস অমন করে আমি অর্নি তোর বোন মনে হচ্ছে আমাকে কোনদিন দেখিসনি?
আমিঃ ওহ হ্যা আসলে তুই তো অনেক বড় হয়ে গেছিস তোকে তো চেনাই পাচ্ছেনা।
অর্নিঃ তুই আমাকে পরে মন ভরে দেখিস আগে আমর জন্য কি এনেছিস তাই দেখা।

আমিঃ ওহ দিচ্চি দাড়া এই বলে আলমারি থেকে ওর জামা আর বোরকাটা ওকে দিলাম,ও তো মহা খুশি খুশি তে আমাকে জড়িয়ে ধরলো ওর বুকের স্পর্শে আমার তো অবস্থা খারাপ।
ওকে তাড়াতাড়ি ছেড়ে দিয়ে বাথরুমে গেলাম ফ্রেশ হতে।

বাথরুম থেকে বের হয়ে সকালের নাস্তা করলাম,নাস্তা করে রুমে বসে মোবাইলে গেমস খেলছিলাম এমন সময় অর্নি এসে বলল ভাইয়া ইদে আমাকে নিয়ে চা বাগানে ঘুরতে যেতে হবে,আমি বল্লাম ওকে যাবো,তারপর ইদের আগের দুইদিন আমরা ভাইবোনে অনেক খুনছুটি করলাম।

ইদের দিন আমরা ভাই বোন মিলে ঘুরতে বের হলাম, অর্নি বল্ল অনেকদিন জাফলং যাওয়া হয়নি চল আমরা জাফলং যাই।

– জাফলং তো অনেকদুর আমরা একদিনে ফিরে আসতে পারবোনা।

অর্নিঃ আমি জানিনা আমাকে নিয়ে যেতে হবে,দরকার হলে ওখানে হোটেলে একরাত থাকবো সমস্যা কি?

আমিঃ আচ্ছা আম্মুকে বল যদি যেতে দেই তাহলে চল।

তারপর ও আম্মুকে মেনেজ করে ফেললো, তারপর ওইদিন আর যাওয়া হলো ইদের পরদিন আমরা ভাইবোন মিলে বেরিয়ে পড়লাম জাফলং এর উদ্দেশ্যে।

যেতে যেতে দুপুর হয়ে গেল, ওখানে গিয়ে আগে একটা গেস্ট হাউস এর ব্যাবস্থা করতে হবে, আমরা দুজনে মিলে হোটেল খুজতে লাগলাম অবশেষে একটা রুম পেলাম তাও সিঙ্গেল কি আর করা ইদের জন্য সবাই ঘুরতে এসেছে তাই সব বুকিং, তারপর ব্যাগগুছিয়ে কিছুখন রেস্ট নিয়ে বের হলাম ঘুরতে।

অর্নি এমন পোশাক পড়েছে যা দেখে সবাই শুধু ওর দিকে তাকাচ্ছে আমার খুব রাগ ও হচ্ছে কিন্তুু কাউকে কিছু বলতেও পারছিনা,এর মধ্যে এক ছেলে আর এক ছেলে কে বলছে, দেখ শালা মাল একখান পাইছে,শালার কপাল কি,এই শুনে আমি রেগে ওদের কাছে যেতে চাইলে অর্নি আমাকে বাধা দিল,তারপর আমরা ভাই বোন অনেক মজা করে ঘুরলাম ঘুরে হোটেলে ফিরলাম সন্ধ্যায়।

তারপর আমরা ভাই বোন মিলে রুমে গিয়ে ফ্রেশ হয়ে আবার হাটতে বের হলাম, আমাদের সাথে পাশের রুমের এক কাপল ও বের হলো, তারা আমাদের ডাক দিয়ে বল্ল আপনারা কি হাটতে বের হচ্ছেন অর্নি বল্ল হ্যা আপনারা? উনারা বল্ল হ্যা আমরাও বের হলাম ছেলেটা বল্ল চলুন না আমরা একসাথে হাটি এলাকাটা তো অপরিচিত লোক বেশি হলে ভয়ও লাগবেনা,আমরাও রাজি হলাম,তারপর গল্প করতে করতে তাদের সাথে পরিচয় হলাম ছেলেটার নাম হলো রাজ আর মেয়েটার নাম রুবি।

হঠাৎ করে রুবি বলে উঠলো আপনাদের না দুজনের খুব মানিয়ছে, আমি তো ভেবাচেকা খেয়ে গেলাম কি বলবো বুঝতে পারছিনা,তখন অর্নি বল্ল আপনাদের ও খুব মানিয়েছে কত মাস বিয়ে হয়েছে? তখন রাজ বল্ল ৩ মাস আপনাদের?

অামি কিছু বলতে যাবো তখনই অর্নি বল্ল এইতো কিছুদিন,আমি যেন আকাশ থেকে পড়লাম আমার বোন এইসব কি বলছে।

তখন রাজ বল্ল তাহলে তো আপনারা একদম পারফেক্ট টাইমে হানিমুনে এসেছেন কিন্তুু আমাদের একটু দেরি হয়ে গেল আসলে অফিস থেকে ছুটি মেনেজ করতে করতে ৩ মাস পেরিয়ে গেল।

তারপরে রুবি বলা শুরু করলো আপনাদের কি প্রেমের বিয়ে না এরেন্জ মেরেজ?
অর্নি বল্লো প্রেমের বিয়ে।
এদিকে আমার রাগেতে গা জ্বলছে অর্নি কেন সত্যি বলছেনা অর্নি কেনই বা ওদের সাথে এতো নাটক করছে??

হাটতে হাটতে রাত সাড়ে ৯ টা বেজে গেল তখন আমরা সবাই আবার হোটেলে ফিরে আসলাম এসে খাওয়া দাওয়া করে রুমে যাচ্ছিলাম শুয়ার জন্য তখন রুবি বলে উঠলো গুড নাইট হেপি হানিমুন মজা করে টাইমগুলো কাটান এই টাইম আার ফেরত পাবেন না।

অর্নিও কম যায় না সেও বলে উঠলো আপনারাও মজা করুন আমরা তো আজ রাতভর মজা করবো।
আমি রুমেই ঢুকে অর্নিকে বলতে শুরু করলাম।
অর্নি তুই এইসব কি শুরু করেছিস আমরা ভাই বোন তুই কি সব ভুলে গেছিস।
অর্নি ঃ ভাইয়া কি করবো বল ওরা এমনভাবে কথা বলা শুরু করবে বুঝিনি ভাবলাম দু এক কথা বলে আলাদা হয়ে যাবো বাট এমন পর্যা পড়ে গেলাম যে আর বলার সুযোগই পেলাম না, এখন আর কি করা এখানের দুই তিনদিন না হয় আমরা স্বামী স্ত্রী হয়েই কাটিয়ে দেই।

আমিঃ মানে তুই কি বলছিস??
অর্নিঃ আরে ভইয়া সত্যি সত্যি তোকে আমার স্বামী হতে বলছিনা অভিনয় করতে বলছি ওদের সামনে।
আমিঃ ওহ তাহলে শেষ পর্যন্ত আপন বোনের স্বামী হতে হবে,আচ্ছা ঠিক আছে আজ থেকে তুই আমার বউ।
অর্নিঃ ছি ভাইয়া তুই কি বলছিস আমি অভিনয় করতে বলছি বাস্তবে হতে বলিনি।

আমিঃ ওই আরকি ঠিক আছে,অনেক রাত হয়েছে এখন ঘুমা,কালকে অভিনয় করবো।
তারপর আমরা ভাইবোন ঘুমিয়ে গেলাম সকালে ঘুম থেকে উঠে দেখি অর্নি গোছল করে ফ্রেশ হচ্ছে।আমি ওকে বল্লাম কিরে এতো সকালে গোসল করলি কেন?

অর্নিঃ রাতে স্বামী স্ত্রী একসাথে থাকলে গোসল করতে হয়।
আমিঃ তো আমরা কি স্বামী স্ত্রী নাকি?
অর্নিঃ ভাইয়া এখন নাস্তা করতে যেতে হবে তই উঠে গোসল করে ফ্রেশ হয়ে নে তারপর নাস্তা করতে যাবো।
আমিঃ না আমি পরে করবো।
অর্নিঃ ভাইয়া গোসল না করলে রুবিরা কি ভাববে বলোতো ওরা জানে আমরা স্বামী স্ত্রী একসাথে রাত কাটিয়েছি এখন গোসল না করে ওদের সাথে নাস্তা করা যাবে? প্লিজ ভাইয়া গোসল করে আয়।

আমিঃ ওকে দাড়া আমি আসছি বলেই বাথরুম থেকে ফ্রেশ হয়ে আমরা দুজন নাস্তা করতে গেলাম গিয়ে দেখি ওরা আমাদের জন্য ওয়েট করছে,
অর্নিঃ হাই কেমন আছো তোমরা রাত কেমন কাটলো?

রুবিঃ খুব ভালো, তোমাদের তো আরো ভাল কাটার কথা,এই বলে রুবি অর্নির কানে কানে জিজ্ঞেস করলো কতবার হলো রাতে?
অর্নিঃ এইতো ৪,৫ বার। তোমাদের?
রুবিঃ ১ বার ই হয়না আর কত হবে আমার ওনার এখন বেশি ভাল লাগেনা।
অর্নি বললো আমার ও তো প্রতিদিন ২ বার না করে ঘুমাতেই পারেনা।

আমার ওদের কথা শুনে গাঁ ঝিম ঝিম করা শুরু করলো কি করবো বুঝতে পারছিনা।কোন রকম দাতে দাত চেপে সহ্য করে নাস্তা করে রুমে আসলাম।
চলবে…..

What did you think of this story??

Comments

Scroll To Top