ফ্যামিলি ডাইরি পর্ব ১৬

This story is part of a series:

অবশেষে বহু প্রতীক্ষিত মন্দারমনি ভ্রমণ সফল হতে চলেছে। সমুর সদ্য কেনা টয়োটা ইনোভা তে করে ওরা ছয় জন মিলে সকাল সাত টায় কলকাতা থেকে রওনা দিয়েছিল। বেলা দুটোর সময় ওরা মন্দারমনি গেস্টহাউসের পৌঁছালো। নিজেরা মস্তি করতে করতে করতে যাবে বলে বাইরের ড্রাইভার নেয় নি। ওদের ছয় জনের মধ্যে সীমা ছাড়া সবাই ড্রাইভিং করতে জানে। সবাই ঘুরিয়ে-ফিরিয়ে ড্রাইভ করেছে। অলরেডি সবার পেট এই চারটে করে বিয়ার ঢুকে গেছে। ওদের মধ্যে যে খুল্লামখুল্লা সেক্স হবে সেই জন্য গেস্ট হাউসের ফাস্ট ফ্লোরের পাঁচটা রুম ওরা বুক করে নিয়েছে।

সবাই একটু রেস্ট নেওয়ার পর বনি বলে আমরা সবাই জার্নি করে টায়ার্ড হয়ে গেছি তাই সবাই স্নান সেরে নাও তারপর খাওয়া-দাওয়া করে একটা লম্বা ঘুম দিয়ে সন্ধ্যায় আমাদের পার্টি শুরু হবে।
সন্ধে ছটায় ডাইনিং স্পেস ওদের পার্টি শুরু হয়। বিয়ার হুইস্কি ভদকা স্কচ সবকিছুই মজুত আছে যে যা খুশি দিতে পারে। সবাই নিজের নিজের পছন্দের ড্রিঙ্কস নিয়ে চিয়ার্স করে গ্লাসে চুমুক দেয়। সবার প্রথম পেগ শেষ হওয়ার পর
সীমা বলে ওঠে…. এবার আমি তোমাদের একটা সুখবর দেব।
কি সুখবর সীমা, রমা উন্মুখ হয়ে জানতে চায়।
আমাদের বনি মা হতে চলেছে…. সীমা খুশি খুশি মুখ করে বলে।

আনন্দে আটখানা হয়ে রমা পাশে বসা বনি কে বুকে জড়িয়ে ধরে। কনগ্রাচুলেশন মাই বেবি।
“কনগ্রাচুলেশন্স অন বিয়িং ফাস্ট ড্যাড ইন লাইফ”.. অনি সমুর দিকে হ্যান্ডশেক করার জন্য হাত বাড়ালে সীমা বলে ওঠে ওয়েট অনি এই বাচ্চার বাচ্চার বাবা কিন্তু সমু নয়।
কি বলছিস সীমা আমার তো মাথায় কিছুই ঢুকছে না, তাহলে বনির বাচ্চার বাবা কে?
পুরো পরিবেশ থমথমে হয়ে যায়, রমা কিছু বলতে গেলে ওর গলায় দলা পাকিয়ে যায়।

সব বলবো অনি, আজ অনেক গোপন কথা সবার সামনে প্রকাশ করবো। আমাদের সবার গ্লাস খালি হয়ে গেছে, বনি সবার গ্লাস রিফিল করে দে।
গ্লাসে সিপ নিয়ে সীমা শুরু করে, জানো দীপ একটা কথা তোমাকে এত বছর থেকে লুকিয়ে রেখে ছিলাম, কিন্তু আজ সেই কথাটা তোমার কাছে প্রকাশ করতে চাই। পারলে আমাকে ক্ষমা করে দিও দীপ।
সমু তোমার ঔরসে জন্ম গ্রহণ করেনি দীপ, সীমা এটুকুই বলে থেমে যায়।
কি বলছিস তুই সীমা, তাহলে সমু কার সন্তান… অনি জানতে চায়।

আমার মামাতো দাদা পল্লবের ঔরসে সমুর জন্ম হয়েছিল। এরপর সীমা ওর আর মামাতো দাদা গল্পটা পুরো তুলে ধরে। সীমার চোখ দিয়ে টপটপ করে জল গড়িয়ে পড়তে থাকে।

সবাইকে অবাক করে দিয়ে দীপ বলে ওঠে…. তুমি কোন অন্যায় করোনি সীমা। মানুষের জীবনে অনেক ঘটনা ঘটে থাকে। সেদিন তুমি যদি তোমার বাচ্চাটা নষ্ট করে দিতে তাহলে আজ আমরা নিঃসন্তান দম্পতি হয়ে থাকতাম।
চরম আবেগে সীমা দীপ কে বুকে জড়িয়ে ধরে। সীমা আস্তে আস্তে শান্ত হয়।
এবার বল সীমা বনির সন্তানের বাবা কে? রমার প্রশ্নে সীমা চোখ মুছে মুচকি হাসে।

দীপ যোগ্যতা থাকা সত্ত্বেও বাবা হতে পারেনি এটা আমাকে সব সময় কষ্ট দিত। আমাদের মধ্যে এরকম একটা সম্পর্ক গড়ে না উঠলে আমার মনের কষ্ট কোনদিন দূর করতে পারতাম না। তাই আমি সমু ও বনির কাছে এই অনুরোধটুকু রেখেছিলাম, ওরা আমাকে ফেরায়নি। এখন নিশ্চয়ই কারো বুঝতে অসুবিধা নেই যে বনির সন্তানের বাবা কে।

দীপের মুখ খুশিতে উজ্জ্বল হয়ে ওঠে, সীমা কে জাপটে ধরে বলে অনেক ধন্যবাদ সীমা, আমাকে পিতৃত্বের স্বীকৃতি দেওয়ার জন্য। একটু আগের থমথমে পরিবেশ আবার খুশিতে ভরে ওঠে। রমা ও অনি এই সিদ্ধান্তকে বাহবা জানায়।
আমার একটা প্রস্তাব ছিল,বনি মাঝখান থেকে বলে ওঠে।
তোর আবার কি প্রস্তাব? সীমা মুচকি হাসে।

আমি যেমন দীপ কে পিতৃত্বের স্বাদ মিটিয়ে দেওয়ার জন্য ওর সন্তান পেটে নিয়েছি,আমি এও জানি আমার পরের সন্তানের বাবা নিশ্চয়ই সমূ হবে। কিন্তু আমি দীপকে এখনই পিতৃত্বের স্বাদ দিতে চাই। আমার খুব ইচ্ছে সমুর ঔরসে মায়ের পেটে সন্তান আসুক।
যাঃ কি যে বলিস না তুই, এই বয়সে পেটে বাচ্চা এলে লোকে কি বলবে রে, লজ্জায় রমার মুখ লাল হয়ে যায়।

রমা আমার কিন্তু ব্যাপারটা বেশ ইন্টারেস্টিং লাগছে। বনি যদি ওর শ্বশুরের বাচ্চা নিজের গর্ভে ধারণ করতে পারে তাহলে তুমি জামাইয়ের বাচ্চা নিতে পারবে না কেন? অনির কথায় বনি উচ্ছ্বসিত হয়ে ওঠে।
প্লিজ মা বাবা যখন রাজি আছে তখন তুমি আর অমত করো না।

সীমা বলে আমরা একটা সিদ্ধান্ত নিয়েছি, এরপর আমরা আর আলাদা আলাদা থাকবো না। আমাদের দুজনের বাড়ি বিক্রি করে একসঙ্গে একটা বাড়ি কেনা হবে। তোদের দুজনের বাচ্চা প্রসব হওয়ার পর আমি চাকরি ছেড়ে দেব। দুটো বাচ্চা মানুষ করার দায়িত্ব আমি নিলাম।
সবাই করতালি দিয়ে সীমার প্রস্তাবকে সমর্থন জানায়।

সীমা আবার বলতে শুরু করে, আজকের এনজয়মেন্ট টা একটু অন্যরকম ভাবে শুরু হবে। দীপ বনিকে, সমু রমা কে, এবং অনি আমাকে সিঁদুর পরিয়ে দেবে।
প্লিজ ওয়েট মা, প্রথম দুটো ঠিক আছে কিন্তু কাকু তোমাকে সিঁদুর পরাবে না। এখনো একটা সারপ্রাইজ বাকি আছে। তাহলে বুঝতে পারবে কেন আমি কথাটা বলছি।
আবার কি সারপ্রাইজ রে, সীমা অবাক কন্ঠে জানতে চায়।

একটু অপেক্ষা করো এক্ষুনি রহস্যের উন্মোচন হবে। সমু ফোনে কারো সাথে কথা বলে। একটু পরেই সীমার মামাতো দাদা পল্লব ও ওর স্ত্রী মনিকা ওদের সামনে এসে উপস্থিত হয়। পল্লবকে দেখে সীমার বুক ধড়ফড় করতে শুরু করে। ওর চোখে আনন্দাশ্রু গড়িয়ে পড়ে।

সবার সাথে কুশল বিনিময়ের পর পল্লব বলে সুমি আমার সাথে যোগাযোগ করে সব ব্যাপার খুলে বলে। তোমরা যে এরকম একটা সম্পর্কে জুড়িয়ে পড়েছ সেটা ওর কাছ থেকে জানতে পারি। আমাকে ও মনিকাকে তোমাদের এই প্রোগ্রামে জয়েন করার কথা বলে। আমার মুখ থেকে সবকিছু শোনার পর মনিকা খুব এক্সাইটেড হয়ে পড়ে। ও নিজে যেহেতু মা হতে পারেনি, তাই আমার ঔরসজাত সন্তানকে চাক্ষুষ দেখার জন্য উদগ্রীব হয়ে উঠে। সেজন্য আমরা গত পরশু ব্যাঙ্গালোর থেকে কলকাতায় পৌঁছেছি।

অ্যাম রিয়েলি রিয়েলি সরি দীপ, আমার ভুলের জন্যই তোমার সন্তান সীমার পেটে আসতে পারেনি। পল্লব দীপের হাত দুটো চেপে ধরে।

ডোন্ট ওরি পল্লব, ওটা একটা অঘটন। সেদিন সীমা ভুল করে যদি বাচ্চাটা নষ্ট করে দিত তাহলে আজ আমরা নিঃসন্তান হয়ে থাকতাম। বাবা হওয়ার স্বাদ তো আমি পেয়ে গেছি তাই এই মুহূর্তে আমার মনে আর কোনো আক্ষেপ নেই। পল্লব তোমরা যখন সব জেনেই গেছো,তাহলে আশা করতেই পারি তোমরা আমাদের খেলায় অংশগ্রহণ করবে।

অফ কোর্স করবো! পল্লব আমাকে সব রকম ভাবে খুশি রাখার পর ও আমার নিজের অক্ষমতার জন্য ওকে সন্তান উপহার দিতে পারিনি। ও আমাকে অনেকবার ইন্সিস্ট করেছিল বাচ্চা অ্যাডাপ্ট করার জন্য কিন্তু আমি রাজী হইনি। কারণ আমার মনে হয়েছিল যে বাচ্চার সাথে আমার বা পল্লবের রক্তের কোন সম্পর্ক নেই তাকে আমি মেনে নিতে পারব না। তাই যেদিন পল্লবের মুখে শুনলাম ওর ওরসের সন্তান এই পৃথিবীতে আছে তাকে দেখার জন্য ভীষণ এক্সাইটেড হয়ে পড়েছিলাম। যেহেতু নিজেদের কোনো বাচ্চাকাচ্চা নেই তাই আমরা সবসময় আনন্দে থাকার চেষ্টা করি। আমাদের দু’তিনটে ভালো বন্ধু দম্পতি আছেতাদের সাথে আমরা উইকেন্ডে ওয়াইফ সোয়াপিং এর খেলা খেলি। তাই এ ব্যাপারে আমরা যথেষ্ট সরগর, আশা করি তোমাদের সাথে মানিয়ে নিতে পারব।পল্লব আমার কোন শখ-আহ্লাদ পূরণ করতে বাকি রাখেনি, কিন্তু একটা স্বাদ আমার আজ পর্যন্ত অপূর্ন রয়ে গেছে। আমি জীবনে মা ডাক শুনতে পাইনি, সমু আমাকে একবার মা বলে ডাকবি? মনিকার চোখ দিয়ে জল গড়িয়ে পড়ে।
শুধু একবার নয় বৌদি সমু সারাজীবন মা বলে ডাকবে। আজ থেকে সমুর দুটো মাও দুটো বাবা।

তাই যদি হয় তাহলে আমি তো সতীন হলাম রে মা গী তাহলে আমাকে আবার বৌদি বলছিস কেন।
সবাই সমস্বরে হেসে ওঠে, এটা কিন্তু মনিকা ভুল বলেনি, অনি বলে।
আয় সমু একবার আমার বুকে আয় সোনা, মনিকা দুহাত বাড়িয়ে সম্মুখে আহ্বান জানায়।

সমু মা বলে মনিকার বুকে ঝাঁপিয়ে পড়ে। মনিকা ওকে জাপ্টে ধরে চুমু ও আদরে ভরিয়ে দেয়। সবাই খুব খুশি হয়।
এবার কি আমরা আমাদের খেলা শুরু করতে পারি? আমি বনি কে আমাদের এই খেলার ক্যাপ্টেন করার জন্য প্রস্তাব রাখছি।
সবাই টেবিল চাপড়ে সীমার প্রস্তাব সমর্থন করে।

বনি শুরু করে, আমাদের খেলার প্রথম শর্ত হল এখন থেকে আমাদের খেলা শেষ না হওয়া পর্যন্ত সবাই সবার নাম ধরে ডাকতে পারি।সব পুরনো সম্পর্ক আমরা এই কদিনের জন্য ভুলে যাব। এখন দীপ আমাকে, সমু রমাকে, অনি মনিকা কে, এবং পল্লব সীমা কে সিঁদুর পরিয়ে দেবে। তারপর প্রত্যেক দম্পতি আলাদা আলাদা ঘরে নিজেদের মতো করে এনজয় করবে। ডিনারের পর কেউ চাইলে পার্টনার চেঞ্জ করতে পারে। লেটস স্টার্ট… চলো আমরা সিঁদুর দান পর্ব শুরু করি।
আধ ঘন্টার মধ্যে সবাই রেডি হয়ে ডাইনিং স্পেসে চলে আসে। পুরুষ দের পরনে একই রকমের ঘিয়ে কালারের ধুতি পাঞ্জাবি ও মহিলাদের মেরুন রঙের জামদানি এবং ম্যাচিং ব্লাউজ। সবাই কে বেশ ঝকমকে লাগছে।

টেবিলে সিঁদুরের কৌটা ও আট টা রজনীগন্ধার মালা রাখা হয়েছে। বনি প্রথমে আসে, দীপ ওর সাদা সিঁথি সিঁদুর দিয়ে রাঙিয়ে দেয়। বনি ওকে প্রণাম করে । সবাই উলু ধ্বনি করে, একে অপরকে কে মালা বদল করে। তারপর সীমা ও পল্লবে,অনি ও মনিকা একই ভাবে নিয়ম পালন করে। সব শেষে সমু ও রমার পালা আসে। সিঁদুর দানের পর নিয়ম অনুযায়ী সমু কে প্রণাম করতে গিয়ে অস্বস্তিবোধ করে। বনি সেটা বুঝতে পেরে বলে ওঠে এখন ভুলে যাও রমা, সমু তোমার জামাই। খেলার নিয়ম অনুযায়ী এখন ওকে স্বামী ভেবে তোমাকে প্রণাম করতেই হবে। রমা বাধ্য হয়ে টুক করে প্রণাম করে নিয়ে মালা বদল করে নেয়।

বনি ঘোষণা করে, সব রুমেই সব রকম ড্রিংকসের ব্যবস্থা করা আছে সব কাপলরা নিজেদের রুমে গিয়ে এনজয় করা শুরু করো। ক সাড়ে এগারোটায় আবার আমরা ডিনারে মিট করছি।
একে একে সবাই নিজেদের রুমে ঢুকে পড়ে।

দরজা বন্ধ করেই সীমা পল্লবের বুকে ঝাঁপিয়ে পড়ে। বিশ্বাস করো সোনা আমি ভাবতে পারিনি তোমাকে আবার কিভাবে ফিরে পাবো।
পল্লব ওর চুলে বিলি কাটতে কাটতে বলে… এটা সমুর জন্য সম্ভব হয়েছে রে। ও তোর ইচ্ছে এবং কষ্ট টা খুব ভালো করে বোঝে। সেসব কথা পরে হবে, এতদিন পরে আমরা কাছাকাছি আসতে পেরেছি, আগে ভালোভাবে উপভোগ করি। পল্লব সীমার রসালো ঠোট দুটো নিজের ঠোঁট বন্দী করে নেয়।

What did you think of this story??

Comments

Scroll To Top