সাদিয়ার সত্য কাহিনী – ০৪

পরের দিন নতুন কেনা ব্রা দুইটা বাহির করে প্রথমে ডিজাইন করা ব্রাটা পরে নিজেকে আয়নায় দেখলাম। মনে হলো – ইস এভাবে যদি সুমন ভাইয়া আমাকে দেখতো। মোবাইলটা হাতে নিয়ে একটা সেলফি তুললাম। মাথা থেকে কোমর পর্যন্ত। তারপরে ডিজাইন করা ব্রাটা খুলে নেট এর ব্রাটা পড়লাম।

আয়নায় দেখলাম নেট এর ভিতর থেকে আমার দুধ পুরোটাই দেখা যাচ্ছে। শুধু নিপল দুইটার কাছে ফুল ডিজাইন করা আছে, তাই নিপল দুইটা দেখা যাচ্ছেনা। নেট এর ব্রাটা পরেও মাথা থেকে কোমর পর্যন্ত একটা সেলফি তুললাম। সারাদিন সুযোগ খুঁজতে থাকলাম, কখন সুমন ভাইয়াকে একা পাওয়া যাবে।

বিকেল চারটার দিকে খেয়াল করলাম সুমন ভাইয়া একটা বই হাতে নিয়ে ছাদে গেলো। একটু পরে আমিও মোবাইল হাতে নিয়ে ছাদে গেলাম। দেখলাম সুমন ভাইয়া একপাশে বসে বই পড়ছে। আমি গিয়ে ভাইয়ার পাশে বসলাম। ভাইয়া একবার আমার দিকে তাকিয়ে আবার বই পড়তে লাগলো। আমি কিছু না বলে মোবাইল এ আমার ডিজাইন করা ব্রা পড়া ছবিটা বাহির করে ভাইয়ার সামনে দিলাম।

ভাইয়া মোবাইল এ আমার ছবিটা দেখেই বলল ওয়াও। মোবাইলটা আমার হাত থেকে নিয়ে ভাইয়া জুম করে দেখতে লাগলো। জুম করে বড় করে প্রথমে আমার দুধ দুইটার কাছে দেখতে লাগলো। তারপরে ছবিটার নিচে আমার নাভিটা দেখে ভাইয়া বললো -সাদিয়া, তোর নাভিটা ভীষণ সুন্দর।
আমি বললাম -সত্যি ভাইয়া?

ভাইয়া বললো – সত্যি বলছি। তোর নাভিটা খুবিই সুন্দর। আচ্ছা, নেট এর ব্রাটা পরিসনি?
আমি বললাম – পড়েছি। এই ছবিটা পার করে দাও। পরে ছবিটা নেট এর ব্রা পড়া আছে।
ভাইয়া ডিজাইন করা ব্রা পড়া ছবিটা পার করে দিয়ে নেট এর ব্রা পড়া ছবিটা দেখে অবাক হয়ে গেলো। ভাইয়া মুখে কিছুই বলছে না। শুধু ছবিটা জুম করে বড় করে বিভিন্ন দিক থেকে আমার দুধ দুইটা দেখতে লাগলো। আমার ছবিটা থেকে ভাইয়ার চোখ সরছেইনা।
আমি বললাম – নেট এর ব্রাটাতে সব কিছুই দেখা যাচ্ছে ভাইয়া।
ভাইয়া বললো – না। নিপল দুইটা দেখা যাচ্ছে না।
আমি বললাম – হ্যা, নিপল দুইটার উপরে ফুল ডিজাইন করা আছে।
ঠিক সেসময় আমার ছোট ভাই সুজন এসে সুমন ভাইয়াকে বললো, ভাইয়া তোমাকে আম্মু ডাকছে। আমরা সবাই ছাদ থেকে বাসায় চলে গেলাম।

সেদিন রাত এগারোটার দিকে সুমন ভাইয়া আমার রুম এ আসলো।

আমি বললাম – কিছু বলবা ভাইয়া?
সুমন ভাইয়া বললো – যদি কিছু মনে না করিস তাহলে একটা কথা বলতাম।
আমি বললাম – বলো ভাইয়া, কি বলবা
সুমন ভাইয়া বললো – ছবিটা আর একবার দেখা যাবে কি?
আমি বললাম – কোন ছবিটা ভাইয়া? ডিজাইন করা ব্রা টা নাকি নেট এর ব্রা টা?
সুমন ভাইয়া বললো – দুটোই
আমি বললাম – সরি ভাইয়া। ছবি দুইটা ডিলিট করে দিয়েছি। কখন কে দেখে ফেলবে ঠিক নাই।
সুমন ভাইয়া বললো – ঠিক আছে। ভালো করেছিস। তুই থাক। আমি আমার রুম এ যাচ্ছি।

ভাইয়া আমার রুম এর দরজা পর্যন্ত যেতেই আমি ভাইয়াকে ডাক দিলাম।

আমি বললাম – ভাইয়া শুনো। তুমি কি নতুন ব্রা দুইটা দেখার জন্য ছবি গুলো দেখতে চেয়েছিলে নাকি আমাকে ব্রা পরে দেখার জন্য দেখতে চেয়েছিলে?

সুমন ভাইয়া বললো – না মানে, তোর নাভিটা খুব সুন্দর লাগছিলো। তাই আর একবার দেখতে চেয়েছিলাম।

আমি বললাম – সেটা ছবিতে দেখার দরকার কি, সরাসরিই তো দেখতে পারো।

সুমন ভাইয়া বললো – তুই আমাকে দেখাবি?

আমি বললাম – কেন দেখাবোনা,,, তুমি দেখতে চাইলেই দেখাবো,,,, দাড়াও ভাইয়া,,, এখনই দেখো।

এই কথা বলে আমি ভাইয়ার সামনেই আমার বুকের উপর থেকে ওড়নাটা খুলে পাশের চেয়ার এর উপরে রেখে দিলাম। দেখি ভাইয়া আমার দিকে অবাক হয়ে তাকিয়ে আছে। আমি ভাইয়াকে আরো অবাক করে দিয়ে আমার জামাটাও খুলে পাশের চেয়ারে রেখে দিলাম। আমি শুধু কালো সালোয়ার আর কালো ব্রা পরে ভাইয়ার সামনে দাঁড়িয়ে থাকলাম। সালোয়ারটা নাভির নিচে পড়েছিলাম। তাই নাভিটা স্পষ্ট দেখা যাচ্ছিলো। আমি বললাম – নাও ভাইয়া ভালো করে দেখো। সুমন ভাইয়া অবাক হয়ে আমাকে উপর থেকে নিচে পর্যন্ত দেখতে লাগলো। ভাইয়া কিছু বলছেনা দেখে আমিই ভাইয়াকে বললাম – কি হলো ভাইয়া, কিছু বলছোনা যে।

সুমন ভাইয়া বললো – মনে হচ্ছে আমি স্বপ্ন দেখছি।

আমি সুমন ভাইয়ার হাত দুইটা ধরে আমার পেটের উপরে চেপে ধরে বললাম – দেখেছো ভাইয়া, এটা স্বপ্ন নয়, সত্যি।

সুমন ভাইয়া আমার কপালে একটা চুমা খেয়ে আমার সামনে হাটু গেড়ে বসে আমার নাভিতে ও পেটে কয়েকটা চুমা খেলো। আমার শরীরে মনে হলো বিদ্যুতের শক খেলাম। আমি ভাইয়ার মাথাটা আমার পেটের সাথে চেপে ধরলাম।

ঠিক তখনি মনে হলো আমার রুম এর দরজা ঠেলে কেউ ভিতরে ঢুকছে। আমি আর সুমন ভাইয়া দুজনেই দরজার দিকে তাকিয়ে চমকে উঠলাম। আমার ছোট ভাই সুজন দরজা ঠেলে ভেতরে ঢুকে আমাকে আর সুমন ভাইয়াকে দেখে অবাক হয়ে চুপচাপ দাঁড়িয়ে থাকলো। আমরা তিন ভাই বোন যেন পাথরের মূর্তি হয়ে গেলাম।

আমি শুধু কালো সালোয়ার আর কালো ব্রা পরে দাঁড়িয়ে আছি, সুমন ভাইয়া আমার সামনে হাটু গেড়ে দুই হাত দিয়ে আমার কোমর ধরে বসে আছে, আর ছোট ভাই সুজন দরজায় দাঁড়িয়ে আমাদের দিকে হা করে তাকিয়ে আছে। এমন পরিস্থিতিতে আমাদের সবার ভাষা হারিয়ে গেছে। কিন্তু আমি চিন্তা করলাম,, এখনই যদি এই পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণ না করা হয় তাহলে সর্বনাশ হয়ে যাবে। তাই আমি আমার ছোট ভাই সুজন বললাম – সুজন ভেতরে আয়। সুজন আমার পাশে এসে দাঁড়ালো। তখনো সুমন ভাইয়া আমার কোমর ধরে মাথা নিচু করে মূর্তির মতো বসে আছে।

আমি সুজনকে বললাম – কয়েকদিন ধরে আমার শরীর আর বুকে ব্যাথা করছে। ভাইয়া তো ডাক্তারি পড়ছে। তাই ভাইয়াকে দেখতে বলেছি কি জন্য ব্যাথা হচ্ছে।

সুজন আমাকে কিছু না বলে সুমন ভাইয়াকে বললো – ভাইয়া, কিজন্য আপুর ব্যাথা হচ্ছে কিছু বুঝতে পারছো?

সুমন ভাইয়া উঠে দাঁড়িয়ে বললো – হ্যা মানে……….

আমি বললাম – সুমন ভাইয়া বলছে গ্যাস এর কারণে ব্যাথা হচ্ছে।

সুমন ভাইয়া বললো – হ্যা তাই।

আমি আমার নিজের দুই ভাই এর সামনে শুধু ব্রা আর সালোয়ার পরে দাঁড়িয়ে আছি, বিষয়টা আমি দারুন এনজয় করছিলাম। আমি সুজন এর একটা হাত ধরে আমার পেট এর উপর চেপে ধরে বললাম – দেখেছিস, ব্যাথার কারণে আমার পেটটাও কেমন ফুলে গেছে। এজন্যই ভাইয়াকে দেখাচ্ছিলাম। তুই আব্বু আম্মু কে কিছু বলিসনা।

সুজন বললো – ঠিক আছে আপু। কাউকে বলবোনা।

সুমন ভাইয়া বললো -সাদিয়া তুই এখন ঘুমিয়ে পর। অনেক রাত হয়েছে। সুমন ভাইয়া সুজনকেও সাথে নিয়ে চলে গেলো।

পরের পর্বের জন্য সাথেই থাকুন…………..

What did you think of this story??

Comments

Scroll To Top