সেক্সি আম্মুর ক্ষুধার্ত যৌবন: ১০ম পর্ব

সেক্সি আম্মুর ক্ষুধার্ত যৌবন: ৯ম পর্ব

আম্মু : তুই তন্ময়কে দিয়েই লাগিয়ে নে, মান সম্মানেরও ভয় নাই আর যখন ইচ্ছা তখনই লাগিয়ে নিতে পারবি।

পূজা আন্টি : ছি কি বলছিস তুই তাই বলে নিজের ছেলেকে দিয়ে?

আম্মু : বাহিরের পুরুষের কাছে না গিয়ে নিজের ছেলের কাছে সুখ পেলে সমস্যা কোথায়?

পূজা আন্টি : এটা কিভাবে সম্ভব আর আমি ওর মা হয়ে ওকে এই কথা বলবোই কিভাবে?

আম্মু : সে তোকে ভাবতে হবেনা আমিই তোকে সব শিখিয়ে দিবো।

পূজা আন্টি : এটা কি কখনো সম্ভব?

আম্মু : ব্রহ্মা ও তার কন্যা স্বরস্বতির কথা চিন্তা কর, দ্রৌপদীর কথা চিন্তা কর, পূষন তার বিধবা মাকে বিয়ে করেছিলোনা?

পূজা আন্টি : দেবতা আর আমরা কি এক?

আম্মু : আমার যা বলার বলেছি এখন তুই ভাব তুই কি করবি, সারাজীবন এভাবেই উপোষ করবি নাকি সুখের জীবনে প্রবেশ করবি।

পূজা আন্টি : কিন্তু তন্ময়কে আমি এসব কিভাবে বলবো তুই বল?

আম্মু : এসব তোকে ভাবতে হবেনা, আমি সব ঠিক করে দিবো কিন্তু আমার একটা শর্ত আছে।

পূজা আন্টি : বল কি শর্ত? আমি সব শর্ত মানতে রাজি আছি।

আম্মু : সেইটা পরে বলবো তুই একটা কাজ কর আজ অসুস্থতার অভিনয় করে তন্ময়কে রাতে তোর কাছে ঘুমোতে বল কিন্তু আজ যেনো কিছু করিস না।

পূজা আন্টি : ঠিক আছে, এখন রাখলাম তাহলে।

আম্মু আর পূজা আন্টির কথা শেষ হতেই আমি আম্মুর থেকে জানতে চাইলাম আম্মু কি শর্তের কথা বলতিছে কিন্তু আম্মু বল্লো পরে বলবে এখন না, আমাকে মানা করে দিলো আমি যেনো তন্ময়কে এসব বিষয়ে কিছু না বলি তারপর আমি উঠে ফ্রেশ হয়ে আমার রুমে চলে গেলাম।

রাতে পড়া শেষ করে আমি আর আম্মু ডাইনিংয়ে বসে টিভি দেখছিলাম তখন রাত প্রায় ১১ টা, আব্বু বাসায় আসলো দেখে মনে হচ্ছিলো আব্বু কোনো টেনশনে আছে আমরা জিজ্ঞাসা করলাম কি হয়েছে কিন্তু আব্বু কিছু বল্লোনা তারপর রাতের খাবার খেয়ে যে যার রুমে ঘুমাতে চলে গেলাম।

সকালে ঘুম থেকে উঠে ফ্রেশ হয়ে আম্মুর রুমে গিয়ে দেখি আম্মু নেই তারপর রান্না ঘরে গিয়ে দেখি আম্মু রান্না করছে তখন আমি আম্মুর থেকে জানতে চাইলাম আব্বুর কি হয়েছে আম্মু বল্লো আমাদের কম্পানির সবচেয়ে বড় ইনভেস্টর আর নাকি আমাদের কম্পানিতে ইনভেস্ট করতে রাজি হচ্ছেনা তাই আব্বু টেনশনে আছে। তখন আমার মাথায় একটা বুদ্ধি আসলো আমি আম্মুকে বললাম তুমি ওই ইনভেস্টরের নাম্বার নাও তারপর যা করার আমরা করবো কিন্তু তুমি আব্বুকে কিছু বলবেনা, তারপর আম্মু আমাদের অফিসে ফোন দিয়ে ওই ইনভেস্টরের নাম্বার নিলো।

আমি আম্মুকে বললাম এখন আমাদের কাজ একটা ফাইভ স্টার হোটেলে রুম বুকিং দিয়ে সেখানে ওই লোককে ডাকতে হবে আর সে যখন আসবে তখন আসল কাজ টা তোমাকেই করতে হবে। আম্মু জানতে চাইলো কি কাজ আমি বললাম তোমার রুপ আর যৌবনের ফাদে ফেলতে হবে তাকে কিন্তু ইনভেস্ট করার আগে সে কিছুই পাবেনা, শুধু দেখাবে আর লোভে ফালাবে তারপর যখন ইনভেস্ট করবে তখন তুমি চাইলে কিছু দিও আর না চাইলে কিছুই দিতে হবেনা।

তারপর আম্মু হোটেল রেডিসনে ফোন দিয়ে একটা রুম বুক করে ওই লোককে ফোন দিলো…

ইনভেস্টর : হ্যালো, কে বলছেন?

আম্মু : আমি সুজানা ইয়াসমিন, সুজানা ইন্টারপ্রাইজের মালিকের ওয়াইফ।

ইনভেস্টর : আমি বেলাল হোসেইন, বলুন আপনাকে কিভাবে সাহায্য করতে পারি?

আম্মু : আসলে আমি আমার ব্যক্তিগত একটা ব্যাপারে আপনাকে ফোন দিয়েছি আপনি যদি আমার জন্য একটু সময় দিতে পারেন তাহলে অনেক উপকার হতো।

বেলাল : জি বলুন আমি শুনছি।

আম্মু : আপনি কি আমার সাথে আজ একটু দেখা করতে পারবেন?

বেলাল : কোথায় দেখা করতে হবে?

আম্মু : হোটেল রেডিসনের ১০১২ নম্বর রুমে, আপনি চাইলে আমরা একসাথে লাঞ্চ করতে পারি।

বেলাল : আচ্ছা ঠিক আছে আমি পৌছে যাবো, বাই।

ইনভেস্টর ফোন রেখে দিতেই আম্মু বল্লো এভাবে কি কাজ হবে? আমি বললাম হবেনা মানে অবশ্যই হবে তুমি যাও গোসল করে নাও আমিও গোসল করে তোমার রুমে আসছি তোমার ড্রেস আমি সিলেক্ট করে দিবো। তারপর আমি গোসল করে আম্মুর রুমে গেলাম আম্মু তখনো বাথরুমে।
আমি আলমারি থেকে আম্মুর জন্যে কাললো একটা সিল্কের শাড়ি বের করলাম তখন আম্মু বাথরুম থেকে একটা টাওয়েল জড়িয়ে বের হলো, আজ এমন একটা ব্লাউজ পরবা যেনো পুরো পিঠ ফাকা থাকে আর তোমার দুধ অর্ধেক বেড়িয়ে থাকে, আম্মু তখন ড্রয়ার থেকে একটা কালো ব্লাউজ বের করলো, আর একটা লাল পেন্টি বের করে আগে পেন্টিটা পরে টাওয়েল খুলে ফেল্লো আর আম্মুর বড় বড় দুধ জোড়া বেড়িয়ে আসলো।
আমি আম্মুকে বললাম তুমি একটু সেজে নাও যেনো লোকটা কোনোভাবেই তোমার থেকে চোখ সরাতে না পারে। আম্মু সেজেগুজে আমাকে বল্লো ব্লাউজের পিছনের ফিতা দুটো লাগিয়ে দিতে তারপর শাড়ি পরে নিলো।

আম্মু রেডি হওয়ার পর আমরা রেডিসনে উদ্দেশ্যে বের হলাম, আমি আর আম্মু কারের পিছনে বসা আর ড্রাইভার বারবার লুকিং গ্লাসে আম্মুর দিকে দেখছিলো, আর দেখবেই না কেনো! আম্মুর দুধ দুটো যেনো ব্লাউজ ফেটে বেড়িয়ে আসতে চাইছিলো। শাড়ির আচলও এমন ভাবে নেয়া ছিলো যে শুধু একটা দুধই কোনো ভাবে ঢাকা ছিলো। রেডিসনে পৌছিয়ে আমরা সরাসরি রুমে চলে গেলাম তখন ১টা বাজে।

আমি আম্মুকে বললাম ওই লোক আসলেই তুমি বাথরুমে ফ্রেশ হতে যাবা তারপর আমি তোমাকে ডাকতে গিয়ে ওখানেই থাকবো আর তুমি এসে প্রথমেই ওনার থেকে তোমার ব্লাউজের ফিতা লাগিয়ে নিবা আর আজ শুধু ওই লোকের প্রশংসা করবা আর একটু পরপরই গায়ের সাথে গা লাগাবা, ইচ্ছা করে বারবার আচল ফেলে দিবা আর আমরা যখন খেতে বসবো তখন কথা বলতে বলতে পা দিয়ে ওনার পায়ে ঘষা লাগাবা আর আমি অন্য রুমে গেলে তেলাপোকা দেখে ভয় পেয়েছ এমন ভাব করে তাকে জড়িয়ে ধরবা। ইনভেস্ট সম্পর্কিত কোনো কথাই বলবা না।

প্রায় ২০মিনিট পরে দরজায় কে যেনো নক করলো, আমি আম্মুকে বললাম তুমি বাথরুমে যাও আর আমি তোমাকে না ডাকা পর্যন্ত তুমি বের হবেনা, আম্মু বাথরুমে যাওয়ার পর আমি দরজা খুলে ওনাকে ভিতরে আসতে বললাম, উনি এসে সোফায় বসলো।

লোকটা লম্বায় প্রায় ৬ফিট আর বয়স প্রায় ৬০/৬৫ হবে, আমি লোকটাকে দেখেই মনে মনে বুঝে গেলাম আমাদের কাজ হয়ে যাবে। লোকটা আমাকে জিজ্ঞাসা করলো আমি কে? আমি বললাম, আপনি যার সাথে দেখা করতে এসেছেন আমি তার ছেলে, আম্মু ফ্রেশ হতে গেছে আমি ডেকে দিচ্ছি আপনি এখানেই বসুন তারপর আমি আম্মুকে ডাকতে ভিতরের রুমে গেলাম…..

What did you think of this story??

Comments

Scroll To Top