উদীষার অসম্ভব উচ্চাকাঙ্খা – পর্ব ১

সবে দীর্ঘ মিটিং সেরে বাড়িতে ফিরেছি। রাত প্রায় ৯ টা হবে। বাড়িতেও আজ কেউ নেই। তাই ফোনটা নিয়েই বাথরুমে ঢুকেছি।

বাথরুমে ঢুকে টাওয়েলটা খুলে বাথটবের ফেনা জলে গা ডুবিয়ে শুয়ে মিনিট ২ কাটাতে না কাটাতেই ফোনটা ভাইব্রেট হয়ে উঠলো। ডিসপ্লেতে ভেসে উঠলো ‘কলিং উদীষা……..’

হাত বাড়িয়ে ফোনটা রিসিভ করলাম –
– হ্যালো…….
ওপার থেকে উদীষার কন্ঠ ভেসে এল-
– হ্যালোওও……. কি করছো?
– স্নান করছি………
– স্নান করতে করতে কল রিসিভ করছেন?
বিস্মিত হয়ে জানতে চাইলো উদীষা।
– স্নান মানে বাথটবে শুয়ে আছি।
– ও……… তাই বলুন। তা বাড়িতে কি আজ বৌদি নেই?
– কেন বলোতো?
– না, মানে এমনি।
– এমনি এমনিতো কিছু হয় না উদীষা। হঠাৎ এই কথা?

ফোনের ওপারে ক্ষণিকের নিস্তব্ধতা!

– আমার প্রোমোশানটা চাই স্যার। অ্যাট এনি কস্ট।
ওপার থেকে উদীষার প্রত্যয়ী কন্ঠ ভেসে এলো।
– এনি কস্ট? আর ইউ শিওর?
– ইয়া………

উদীষার এই আত্মবিশ্বাসটাই আমাকে সাহস জোগাল। আমি যেন এটাই চাইছিলাম!
– বেশ। তবে চলে এসো আমার ফ্ল্যাটে।
– আর ইউ শিওর স্যার? বৌদি……
– মেঘমিত্রা আজ নেই। ও বাপের বাড়িতে গেছে।
– ও কে স্যার। আই অ্যাম কামিং।
তাড়াহুড়ো করে ফোনটা নামিয়ে রাখলো উদীষা৷ বুঝলাম, ও এক্ষুণিই হয়তো রওনা দেবে।

সারা দিনের ক্লান্তির পর বাথটবে গা এলিয়ে কখন যে এক ঘন্টা কেটে গেল, জানিইনা! রাত তখন ১০টা বেজে গেছে। বাথটব থেকে উঠে একটা শাওয়ার নিয়ে টাওয়েলটা জড়িয়ে নিলাম।

আমি যে ফ্ল্যাটে থাকি সেটা একটা ৪২ তলা বিল্ডিং। আর তার ২৯ তলায় আমার ফ্ল্যাটটা। ৫ বিএইচকে। আমার ফ্ল্যাটের বিশেষত্ব হল বাথরুমের এ্যাকোমোডেশনটা। একটা দেওয়াল পুরো কাঁচে মোড়া ও এমন ভাবে বানানো যে সেখান থেকে বাথটবে শুয়ে শুয়েই কলকাতার একটা বড় অংশ দেখা যায়। রাতের অন্ধকারে পুরো ফ্ল্যাটের আলো নিভিয়ে বাথরুমের বাথটবে গা এলিয়ে শহরের গায়ে চলমান রং বেরংয়ের বিন্দু বিন্দু আলোগুলোকে সরতে দেখার মজাই আলাদা। আর ২৯ তলায় হওয়ায় এত ওপরে গাড়ি ঘোড়ার শব্দও তেমন আসেনা বলা যায়।

বাথরুম থেকে বেরিয়ে প্রথমেই জোম্যাটোতে ডিনারটা অর্ডার করে দিলাম। ২টো মটন বিরিয়ানি আর মেটে ফ্রাই। ভিআইপির আর্সালান থেকে আসতে বড়জোর মিনিট কুড়ি।

খাবারের অর্ডার করা হতেই মেঘমিত্রার ফোন।

– কোথায়? ফিরলে?
– হ্যাঁ। অনেকক্ষণ।
– কি খাবে রাতে?
– অর্ডার করলাম।
– ও। বেশ।
– তা তুমি কখন ফিরছো কাল?

মেঘমিত্রার কাছে জানতে চাইলাম আমি। ওদিকে উদীষাও আসছে!
– বিকেল হবে হয়তো।
– ও। ঠিক আছে। রাখলাম। বেশ টায়ার্ড লাগছে।
– আচ্ছা। রাখো। সাবধানে থেকো।

বহুদিন এক ছাদের তলায় দুটো শরীর থাকলে বোধহয় তাঁর আকর্ষণ এমনিই কমে আসে! এখন আর আমাদের ভিতর তেমন কথাও হয় না। যাস্ট ফর্মালিটি বলতে যা বোঝায়। এমনকি মাসে দু একবার যে শারীরিক সম্পর্ক হয়, সেটাও খুব ফর্মাল হয়ে গেছে আজকাল। এসব ভাবতে ভাবতেই ডোরবেল বাজে। দরজা খুললে দেখি জোম্যাটোর ডেলিভারি বয়।

তার থেকে খাবারটা নিয়ে পয়সা মিটিয়ে দরজাটা বন্ধ করতে না করতেই আবারও কলিং বেল বেজে উঠলো। বুঝলাম, এবার নিশ্চই উদীষাই হবে।

ফ্ল্যাটে একা থাকলে আমি একটু আধো অন্ধকার পরিবেশেই থাকতে পছন্দ করি। আধো অন্ধকার স্নিগ্ধ পরিবেশে নবাগতা কামোত্তেজক, যৌনবুভুক্ষু সুন্দরী ও কামাতুর অতিথির কথা মনে পড়তেই আমার শরীরে একটা উত্তেজনা খেলে গেল! বহুদিন হলো মেঘমিত্রার ক্ষেত্রে এরকম উত্তেজনা আর অনুভূত হয়না এখন আমার!

আমি এগিয়ে গিয়ে দরজা খুললাম।

দরজা খুলতেই দেখলাম উদীষা দাঁড়িয়ে। পরনে ডেনিম ব্লু শর্ট স্কার্ট। একটা হোয়াইট শার্ট আর হাই হিল জুতো। শার্টের ওপরের দুটো বটম খোলা, ফলে ভিতর থেকে গভীর বিভাজিকা স্পষ্ট দেখা যাচ্ছে।

অফিসে উদীষাকে দেখে আগে কখনও মনে হয়নি যে ওর বুক এত ভরাট, এত গভীর! হয়তো আজ পুশ আপ ব্রা পরে এসেছে!

ওকে এরকম আবেদনময়ী রূপে দেখে প্রথমে আমি কিছুটা হকচকিয়েই গিয়েছিলাম। ওর বুক, কোমর, জঙ্ঘা হয়ে পা আবার পা, জঙ্ঘা, কোমর পেরিয়ে বুকে এসেই আমার চোখ কখন যে কয়েক মুহূর্ত কাটিয়ে দিলো, তা খেয়ালও ছিলো না! সম্বিত ফিরলো উদীষার কন্ঠে!
– এখানেই সবটা করবে? না ভিতরেও কিছু বাকি রাখবে?

– ও সরি সরি। এসো…….
আমি কোনমতে নিজেকে সামলে ওকে অভ্যর্থনা জানালাম ঘরে।

এমনিতে উদীষা যথেষ্ট সুন্দরী। হট্। ৩৪-২৩-৩৩ এর আশেপাশে হবে। বয়স ২৭, এনার্জেটিক। সারা অফিসের সমস্ত পুরুষের আকাঙ্খিত এক নারী। এখনও অবিবাহিতা। ফলে বাজারে চাহিদা প্রবল। ওর সাহচর্যের জন্য বহু পুরুষ সর্বস্ব ত্যাগ করতে পারে যে কোনকিছুর মূল্যে।

উদীষা আমার ফ্ল্যাটে ঢুকতে আমি যেই দরজাটা দিলাম, সাথে সাথেই ও একটানে আমার টাওয়েলটা টেনে খুলে ফেললো! ওর এরকম আচরণে আমি প্রথমটা হকচকিয়ে গেলাম!
– আরে কি করছো!?
– আজ যা করতে এসেছি, সেটাই…..
বলেই উদীষা আমার বুকের ওপর ঝাঁপিয়ে পড়লো। আমি বুঝলাম যে আজ সত্যিই ও হর্নি হয়ে আছে। মানে যে কোন মূল্যে আজই ও প্রমোশান হাতিয়ে ছাড়বে।

উদীষার ঠোঁট আমার বুকে ঘুরে বেড়াচ্ছে। আমার সারা বুকে ওর জোরে জোরে চুমুর শব্দ ছাড়া এখন আর কিছুই যেন আমি শুনতে পাচ্ছি না। আর তার সাথে উদীষার ডান হাত আমার লিঙ্গে ঘুরছে তখন! আমিও ওর এই অতর্কিত আক্রমণ খানিক সামলে ওর বুকে হাত রাখলাম। ওর সাদা শার্টের ওপর দিয়েই আমি তখন ওর স্তন মর্দন করতে শুরু করেছি সবে!

উদীষার বুকে আমার হাত পড়তেই ও উত্তেজনায় আমার ঠোঁটের দিকে ওর ঠোঁট এগিয়ে দিলো। আমি জিভ বার করে প্রথমে ওর ঠোঁট দুটোকে চেটে দিতেই ও আমার লিঙ্গটাকে ছেড়ে দুহাতে আমাকে জাপ্টে ধরলো! আমিও সঙ্গে সঙ্গে টান মেরে ওর শার্টের সমস্ত বোতাম ছিঁড়ে ফেলতেই ওর ডিজাইনার পুশ আপ ব্রা পরিহিত সুডৌল স্তনদুটো বেরিয়ে এলো!

আমি ওর ঠোঁটের ভিতর আমার ঠোঁট আর জিভ চালান করে দিতে থাকলাম। আর উদীষাও আমাকে আরও জোরে জাপ্টে ধরলো! আমার হাত দুটো তখন ওর কোমড়ে খেলা করছে। আমি প্রবল আশ্লেষে ওকে চুম্বন করতে করতেই ওর স্কার্টটা কোমড় থেকে খুলে নীচে নামিয়ে দিতেই সেটা পড়ে গেল মাটিতে।

উদীষা নিজেই নিজের পায়ের চাপে জুতোটা খুলে ছুঁড়ে ফেললো পা দিয়ে।

স্কার্টটা খুলে ফেলে আমি তখন ওর পিঠে সুড়সুড়ি দিতে শুরু করেছি সবে। উদীষা উত্তেজনায় নিজের ডান পাটা প্রথমে উঠিয়ে আমার কোমড়ের পিছনে রাখতেই আমি ওর বাম পাটা ধরে তুলে নিলাম। তারপর ঐ অবস্থায় ওকে টোচেন করে নিয়ে গিয়ে সোজা ফেললাম আমার বিছানায়।

What did you think of this story??

Comments

Scroll To Top