বান্ধবীকে প্রথম চোষা

কলেজ শুরু হইলো। সাথে সাথে প্রাইভেট ও শুরু হইলো। অনেক নতুন নতুন মুখের দেখা, আবার একটা দুইটা চেনাও আছে। আমি আমার ব্যাচে বয়সে সবার বড়ো। বাড়ির কাছের আমার সমান সব মেঁয়ের বিয়া শেষ । যাই হোক এখানে এত নতুন মুখ, তাকাতেও লজ্জা লাগে, তাই একটু নিচু করে তাকাই। এভাবে একদিন ভাবলাম নিচু দেখলেই ভালো বুকটা ভালো করে দেখা যায় অনেকক্ষন। কিছু বলতেও পারবে না, ভাববে লজ্জা পায়। দেখলাম কিছুদিন। কত বড় বড় মেয়ে। পাছা বুক দেখলে মনে হয় কাকী। শহরের গুলা বেশিরভাগ এমনি হয়, কেমন কইরা এত বড় হয় কে জানে।

দেখতে দেখতে প্রথম সেমিস্টার কাইটা গেলো। তখন ভালোই কথা বার্তা হয়। Whatsaap এ কথা বলি অনেকের সাথে। ভালো লাগে খুব ( তখনো খেচা শিখি নাই)! একদিন কলেজ থেকে পিকনিক নিয়া যাবে। আমার শহর থেকে যাবো আমি আর একটা মেয়ে ( নাম বলবো না)। অনেক দূরে পাহাড়ে যাবো পিকনিক তাই সাড়ে ৬ টায় কলেজের সামনে বাস দাঁড়াবে। আমাদের শহর থেকে কলেজ দেড় ঘন্টার রাস্তা। তাহলে খুব ভোরে বের হতে হবে। আমি এখান থেকেই যাবো সকাল বেলা ।

বেছিলাম মেয়েটা ওখানেই কোথাও থাকবে গিয়ে আগেরদিন। কিন্তু হঠাৎ আগেরদিন রাত ১১ টায় ফোন করে আমাকে , তখন আমি গামছা পড়ে ঘুমাতে যাচ্ছি। শুয়ে শুয়েই কথা বললাম। ও বললো অপেক্ষা করতে, সকালে একসাথে যাবো। ভাবলাম ভালোই হবে গল্প করতে করতে যাবো। এটা ওটা ভাবতে ভাবতে ঘুমিয়ে পড়লাম। আমার ঘুম একটু ভারী । তাই চারটার দিকে অ্যালার্ম দিলেও উঠছিলাম না।

তার ৫ মিনিট পর ফোন আসলো, ওই মেয়েটার নম্বর থেকে। ঘুম গলায় কথা বললাম। উঠতে বললো , ও নাকি স্নান করে রেডী। আমিও হ্যাঁ হ্যাঁ করলাম । শেষে এমন একটা কথা বললো যেটা শুনে আমার পুরো খারাপ অবস্থা হয়ে গেলো। বললো তোর ঘুমন্ত স্বরটা টা দারুন সেক্সী, কালকে রাতেও শুনলাম, আজকেও। আমি আর কি করি, ফোন রেখে রেডী হলাম। জানুয়ারি মাস, কি দারুন কুয়াশা। বের হলাম ব্যাগ নিয়ে পিঠে করে। মোড়ের মাথায় দাড়িয়ে দেখলাম ওই মেয়েটা হেঁটে আসছে। সারা মুখ মেকআপ করে সাদা। চোখটা কালো কাজলে ভর্তি, মাঙ্কি টুপি। জিন্স পড়েছে একটা আর। উপরে একটা কালো কোর্ট। লম্বা লম্বা কানের দুল ঝুলছে। চোখ নামিয়ে কথা বললাম। বললো চল বাস ছাড়ার সময় হলো, ৪:৩০ টার বাস না পেলে ওই বাসে দেরি হবে। একটু একটু দৌড়ে যাচ্ছি আমি।

– ওই না না, দৌড়াইস না। আমি পারি না তোর সাথে এই বডি নিয়ে,
– বডি নিয়ে আবার কি ! ঠিকই তো আছিস , পারফেক্ট একদম…
– নাহ রে, একটা দুটো ছেলে পক্ষ আসে মাঝে মাঝে, বলে যে ওজন কমলে ভালো হবে…
– আর কমাইস না ওজন, এটাতে দারুন লাগে তোকে, একদম sexy…

এই শব্দটা ব্যবহার করতেই ঠান্ডার ভোরেও ওর মুখটা লজ্জায় লাল হয়ে উঠলো। জোরে জোরে হাটার নিশ্বাসের শব্দ ভেসে আসতে লাগলো।

কিছুক্ষন পর বাসের ওখানে আসলাম। বাসের দেখা নাই। শুনলাম ৪:৩০ টার বাস চলে গেছে। এখন আবার পাঁচটায় আসবে। আশাহত হয়ে বসে পড়লাম। ও বললো
– জল খাবি ?
– আমার কাছেও আছে , কিন্তু ব্যাগের ভিতরে। তোরটাই দে …
– কিন্তু আমারটা যে মুখ লাগানো। খাবি ?
– দে না, সবই চলে ?
– মানে ?
– আর কতকিছুই খেতে হয়, জল তো তবু ভালো ।
– বুঝলাম না…
– আরে না, আমি বললাম পিকনিকে আরো কত কি একসাথে খাবো সবাই…
– ওহ্ হ্যাঁ, দারুন মজা হবে…

মেয়েটা বোতলটা এগিয়ে দিল। ওর মুখের লাল লিপস্টিকের দাগ তখনো বোতলের মুখে লেগে আছে। আমি মুখটাকে ওর নিপল ভেবে চুষছিলাম অল্প করে, তারপর জল খেলাম। দেখলাম ওর হাত পা কাপছে । একটা দুটো বুড়ো লোক হেঁটে বেড়াচ্ছে, আর কেউ নেই রাস্তায়। অমনি বাস চলে এলো। খুব বড়ো একটা নতুন বাস। উচু উচু সিট। উঠলাম দুজনে। পিছনদিকে গিয়ে বসলাম আমি। দেখলাম ও এসে আমারই সিটে বসতে চাইছে। ওকে সরে জায়গা দিলাম। দুজনেই কোর্ট পরা, তাই দুজনের জায়গায় বসতে অসুবিধা হচ্ছিলো।

তারপর কষ্ট করে বসলাম। ও আয়না চিরুনি বার করে চুল ঠিক করছে। হঠাৎ করে চিরুনিটা হাত থেকে সামনের দিকে পড়ে গেলো। ও মোটা মানুষ ঝুঁকতে পারছিল না। আমি তুলতে চেষ্টা করলাম। ওর পায়ের কাছে পড়েছে। হেলে তোলার সময় ওর গায়ের গন্ধ আরো বেশি করে নাকে আসছিল। শেষে অব্দি ওর হাঁটুর ওখানে হাত লেগে গেলো আমার। আমি সরি বললাম , ও বললো ঠিক আছে। তুলে দিলাম চিরুনিটা। খানিক দূরে যাবার পর খুব গরম লাগছিল, আমি আমার কোর্ট খুলে রেখে দিলাম ব্যাগে। ও নিজেই খুলতে চেষ্টা করছে। কিন্তু উপরের বোতামগুলো খুললেও পেটের কাছের গুলো খুলতে পারছেনা। শেষে অব্দি আমাকে বলেই ফেললো,
– একটু খুলে দে না বোতাম গুলো…

প্রথমদিকেই ভাড়া দিয়ে দিয়েছি বাসে, আর কেউ নেই। বাস অনেকদূর যাবে তাই সকালে বের হয়। তাই আমি খুলতে চেষ্টা করলাম। কিন্তু ওর পেটের চাপে এমন ভাবে আটকে গেছে কি আর বলি। ওর মা খুব কষ্ট লাগিয়ে দিয়েছিল। ওর পেটে একটু করে চাপ দিতে লাগলাম। নিচের টা খুললো। আরেকটু অপরের টা খুলতে গিয়ে চাপ দিলাম, খুব নরম নরম লাগছে। বুঝলাম এটা দুধ হবে। নিপলটা একেবারে হাতে লাগলো। আস্তে আস্তে চাপ দিলেও খোলে না। একটু জোরে করে চাপ দিতে লাগলাম। দেখলাম ওর মুখ ফ্যাকাশে হয়ে গেছে। চোখ বন্ধ করে ঠোঁট কামড়ে ধরছে। ততক্ষণে আমারও প্যান্টের ভিতর খাড়া হয়ে উঠেছে। দুইহাতে চাপ দিতে লাগলাম। আস্তে আস্তে আহ্ আঃ করছে । এই সকালে বাসের শব্দে শোনা যায়না সামনে। তাছাড়া লম্বা লম্বা বাসের সিটের মধ্যে থাকলে দেখাও যায়না।

ঝট করে বোতাম টা খুলে ফেললাম। বুক থেকে কোর্টটা সরিয়ে দিলাম। সাদা চেক চেক করা একটা শার্ট পরে এসেছে। আমার দিকে কিভাবে তাকাচ্ছিলো। শার্টের ওপর দিয়ে দুহাতে দুটো কমললেবু চেপে ধরে বললাম,
– কিরে, খেতে দিবি না আমাকে ?
– নাহ নাহ, আজকে না, অনেক কষ্ট সেজে এসেছি রে, নষ্ট হবে,…
– নষ্ট করবো না, খালি চুষবো…
– নাহ নাহ আজকে নাহ, অন্যদিন…

আমার ভীষণ রাগ হচ্ছিল, তাহলে যে আমার প্যান্টের তলায় খাড়া হইছে ওটার কি করবো , তুই চুষবি ?
– নাহ আমি চুষি নাই কখনো ওসব…
– চুষতেই হবে এখনি চোষ…
– আচ্ছা ঠিক আছে, তুই আমার দুধ চোষ, তারাতারি কর…

আমার তো সেই চান্স হয়ে গেলো… সাদা শার্টের ওপরের দুটো বোতাম খুললাম। আহা কি সাদা ধবধবে দুটো দুধ। ওর পাছা আর ভুরি যেমন তেমন বড় না ঠিকই, কিন্তু তবুও ভালোই বড়। নিপলদুটি কমলা। ও একবার ওর দুধের দিকে দেখে আরেকবার আমার মুখের দিকে। দু তিনবার হাত দিয়ে ওর দুধকে ঠাসা দেওয়ার পর জিভ লাগালাম বাঁদিকের টাতে। আহা কি শান্তি। চোখ বন্ধ করে আহ্ করে উঠলো। ওর শরীর গরম তখন। বললো আগের সপ্তাহে মাসিক হয়েছে। ওসব ব্যাপার বুঝিনা অত। একটা একটা করে আধা ঘণ্টা ধরে চেটে ওকে ভিজিয়ে দিয়েছি। ওর খুব সে উঠে গেছিল। কথায় বলে মেয়েমানুষের sex একবার উঠলে সহজে থামেনা। সামনেই আমাদের কলেজ। নামতে হবে এবার। সব গুটিয়ে নিয়ে এবার নামবো আমরা। জীবনে প্রথমবার চাটার অনুভূতি হলো, খুব সুখের অনুভুতি।

এরপর পিকনিকে গিয়েও কি এমন হবে ?

অপেক্ষা করুন পরের পর্বের জন্য…

What did you think of this story??

Comments

Scroll To Top