ছোটবেলার আন্টি আমার কামদেবী-সেক্স থ্রিলার পর্ব-৮

This story is part of a series:

আন্টি, “তুই আমার কি সাহায্য করবি?”

আমি উঠে আন্টির সামনে গেলাম। আন্টির হাতটা নিচেই নামান ছিল। আন্টির হাতটা সাহস করে ধরে নিজের হাতের ওপর রাখলাম। আন্টি বাঁধা দিল না। আমি বললাম, “আমি তোমার একাকীত্ত দুর করব।”

আন্টি আমার চোখের দিকে একদৃষ্টে তাকিয়ে থাকল। নিজের হাতটা আমার হাত থেকে ছাড়িয়ে নিতে চাইল না। সেটাতেই আমি একটু মনে সাহস পেলাম। মনে হল মাছ টোপটা গিলে ফেলেছে। আন্টির হাতটা খুব নরম। আমি সুযোগ বুঝে হাতটা আরও শক্ত করে চেপে ধরলাম।

আন্টি আমার সামনে ব্লাউজ না পরে শুধু একটা ভেজা শারী জরিয়ে দাড়িয়ে। মনে মনে ইচ্ছা করছিল শাড়ীটা টেনে দুদু গুলো খুলে দি। কিন্তু এখনও সেই সময় হয়ত আসেনি। তবে খুব তারাতারি আসতে চলেছে। তবে সত্যি কথা বলছি আর সহ্য হচ্ছিল না। শরীরের খিদে ক্রমেই বেড়ে উঠছিল। প্যান্টের ভিতরটা শক্ত হয়ে উঠছিল।

আন্টি, “ছোটবেলার কথা মনে আছে? যেদিন তুই আমার কাছে চুম্বন মানে জিজ্ঞাসা করেছিলি?”
আমি একটু মনে করতেই মনে পরে গেল। ছোটবেলায় রবীন্দ্রনাথের ছোটগল্প ‘পুত্রযজ্ঞ’ পড়ার সময় একটি লাইন ছিল, “হঠাৎ একসময় তাহার উদ্দাম যৌবন বিনয়ের সমস্ত বাঁধ ভাঙিয়া ফেলিল, হঠাৎ বিনোদার হাত দুটি চাপিয়া ধরিয়া সবলে তাহাকে টানিয়া লইয়া চুম্বন করিল।”
এই লাইনটি আন্টি যখন পরে শোনাচ্ছিলেন আমি আন্টিকে ইচ্ছে করেই প্রশ্ন করেছিলাম, “আন্টি চুম্বন মানে কি?”

আন্টি তখন কিছুটা ইতস্তত করে আমায় বলেছিলেন, “চুম্বন একটি স্নেহ প্রকাশের মাধ্যম।”
আমি তখনও খুব দুষ্টু ছিলাম তাই জিজ্ঞাসা করেছিলাম, “কি হয় সেটা।”
আন্টি তখন আমার গালে একটা চুমু এঁকে বলেছিলেন, “এটা কে চুম্বন বলে।”
আমি, “হা মনে থাকবে না কেন! সেদিন তুমি আমায় চুমু খেয়েছিলে।”
আন্টি, “সেটা কিন্তু স্নেহের চুম্বন ছিল তাতে কোন কামনা ছিল না।”

আমি, “আমি ছোট থেকেই তোমায় বিয়ে করতে চেয়েছি। তোমার সাথে থাকতে চেয়েছি। তোমায় আদর করতে, তোমার আদর খেতে চেয়েছি। তখন কার সেই চিন্তাও কিন্তু ভালবাসাথেকেই কোন যৌন চাহিদা ছিল না।”
আন্টি, “আমি তোর শিক্ষিকা। আমার কি করা উচিত আমি ভুজতে পারছি না।”

আমি, “শিক্ষিকা হিসেবে তোমায় আমি স্রধা করি কিন্তু এই মুহূর্তে তুমি আমার শিক্ষিকা না। এই মুহূর্তে তুমি আর আমি দুজন আলাদা মানুষ যাদের নিজেদের জীবনের সিদ্ধান্ত নেওয়ার অধিকার নিজেদের আছে।“
আন্টি কিছুক্ষণ চুপ অরেই আমার দিকে তাকিয়ে রইলেন। আমিও আন্টির ঠোঁটের দিকে তাকিয়ে রইলাম।

আমি মনে মনে ভাবলাম যে এটাই হয়তো সুযোগ। আমি আন্টির ঠোঁটের দিকে তাকিয়ে মুখটা এগিয়ে নিয়ে গেলাম। আন্টি আমাকে খুবই আলতো করে বাঁধা দিলেন বললেন, “আজ না। আজ আমি তোর জন্য নিজের হাতে পায়েশ বানিয়েছি সেটা খেয়ে যা।”
এই বলে আন্টি আমার পাশ কেটে রান্না ঘরের দিকে যেতে গেলেন।
আমি, “তোমার শরীরের পায়েশ টুকুও খেতে চাই যে।”

আন্টি যেতে যেতে আমার দিকে পিছন ফিরে মৃদু হেসে ফেললেন। চলে গেলেন রান্না ঘরে। ২ মিনিট পর আন্টি একবারটি পায়েশ নিয়ে এলেন, আমার হাতে দিয়ে বললেন, “নে খেয়ে নে”
আমি আন্টির চোখের দিকে তাকিয়ে জিজ্ঞাসা করলাম, “আমি যেটা খেতে চাই সেটা?”
আন্টি বলল, “কাল পাবি তৈরি হয়ে আসিস”

পায়েস খাওয়ার সময় আন্টি আমার চোখের দিকে তাকিয়ে রইলেন। আমি ও আন্টির চোখের দিকে তাকিয়ে রইলাম। চোখে চোখেই বহু বাক্যবিনিময় হতে থাকলো। সেদিনকার মতন আনন্দ আমি এজীবনে হয়তো আর পাবো না। সেই আনন্দ নিয়েই বাড়ি গিয়েছিলাম।

পরেরদিন দুপুরে খাওয়া-দাওয়া করে শরীরে যথেষ্ট শক্তি নিয়ে আন্টির বাড়ি এসেছিলাম। আন্টি ঘরেই বসে ছিলেন, লাল পাড়ের শাড়ি, সাদা ব্লাউজ পরনে আন্টিকে একটি নতুন বউয়ের মতোই দেখাচ্ছিল। খোপা করে চুল বাধা, পায়ে আলতা পরা, আন্টিকে আমি ঠিক এই ভাবেই যেন দেখতে চেয়েছিলাম। নিজের মনে মনে এমন ভাবেই চিরকাল কল্পনা করে গেছি। আজ কেন জানিনা অন্তর্যামীর মত আন্টিও আমার সেই বাসনা শুনে ফেলেছেন। চোখের সামনে ঠিক যেন নিজের সার্থকতা দেখতে পাচ্ছিলাম।

চোখের সামনে যিনি বসে আছেন তিনি নিতান্তই আমার আন্টি নন, তিনি আমার কামদেবী। আমাকে দেখতে পেয়ে আন্টি উঠে দাঁড়ালেন বললেন, “আয় তোর জন্য অপেক্ষা করছিলাম।“ আমি ধীরে ধীরে ঘরের মধ্যে প্রবেশ করলাম। আন্টি চোখের দিকে তাকাতে সাহস হচ্ছে না কিন্তু এখন ভয় পাওয়ার সময় নয়। তাই নিজের মনকে অনেকটা শাসন করেই আন্টির চোখে চোখ রাখলাম। আন্টি চোখে একটা অদ্ভুত কামতাড়না। চোখের নিচে হালকা কাজল এবং চামড়ার হালকা ভাঁজ সবকিছুই বলে দিচ্ছে। নিজের আড়ষ্টতা কাটিয়ে উঠে আমি বললাম, “তোমাকে খুব সুন্দর লাগছে । তোমাকে এর আগে এরকম ভাবে সেজে কোনদিন দেখিনি।“

আন্টি ঠোটের কোনায় মৃদু হাসি নিয়ে বললো, “রুমার চেয়েও সুন্দর লাগছে?” আমি বললাম, “কোথায় তুমি আর কোথায় রমা! গোলাপের সাথে কুমড়ো ফুলের তুলনা?” আন্টি হেসে উঠলেন। আন্টির লাল শাড়ির ফাঁক দিয়ে অনাবৃত পেটের দিকে চোখ চলে গেল। আন্টিও বুঝলেন আমার দৃষ্টি কোন দিকে কিন্তু কোনোরকম ইতস্তত বোধ করলেন না।বরং আরও একটু সামনে এগিয়ে এসে শাড়ির আঁচলটা এমনভাবে কাঁধের ওপর তুললেন যাতে নাভি টুকুও দেখা যায়। আমার চোখ চলে গেল আন্টির খাদ নাভির উপর। নিজেকে আর সংযত রাখতে পারলাম না। আন্টির খোলা কোমরের উপর হাত দিয়ে চেপে ধরলাম।

আন্টিকে ওই অবস্থায় নিজের দিকে টেনে, আন্টির চোখে চোখ রেখে বললাম, “আমি তোমায় ভালোবাসি।” ঘটনাটা খুব দ্রুত ঘটলো। আন্টি নিজের হাত দিয়ে নিজের কোমর থেকে আমার হাত সরানোর চেষ্টা করলেই আমি আন্টিকে দুই হাত দিয়ে জড়িয়ে ধরলাম। তাতে আন্টির উত্থিত বক্ষ যুগল আমার বুকের উপর আছড়ে পড়ল। আন্টিকে জড়িয়ে ধরে যেন স্বর্গসুখ পেলাম। নিজের পছন্দের মানুষটিকে এইরকম ভাবে সর্বস্ব দিয়ে আঁকড়ে ধরার সুখ আলাদা।

আন্টিও আমাকে ছাড়ানোর চেষ্টা করলেন না, বরং দুই হাত দিয়ে আমাকে জড়িয়ে ধরলেন। আমাকে নিজের বক্ষে স্থান দিলেন। আমি বুঝলাম আন্টি আজকে তৈরি, আর আমাকে বাধা দেবেন না। নিজেকে উজাড় করে দেবেন, শুরু থেকেই ভেবে নিয়েছেন। নিজের কামদেবী সাথে কাম ক্রীড়া করার জন্য মনে মনে তৈরি হলাম। দীর্ঘ ১০ বৎসর এই দিনটার অপেক্ষায় ছিলাম, আজ সেই দিনটি আগত। এভাবেই শুরু হলো আমার আন্টির সাথে আমার শারীরিক সম্পর্ক। সেদিনের ঘটনা আলাদা করে বলার কিছু নেই কারণ সে দিনের ঘটনা দিয়েই এই সিরিজটি লেখা শুরু করেছিলাম। এতক্ষণ যা বললাম তা ছিল পূর্বপাঠ, আগের কথা, যা জানা দরকার ছিল পুরো সৃষ্টিটি বোঝার জন্য।

What did you think of this story??

Comments

Scroll To Top