অলৌকিক ক্ষমতার লৌকিক কাহিনী – প্রথম পর্ব

===========
অলৌকিক সুধা
===========
ওয়াহিদের মুখটা কেমন একটু ঝাপসা লাগছে আমার চোখে। কিন্তু স্পষ্ট টের পাচ্ছি আমার শিরদাঁড়া দিয়ে গরম একটা শিরশিরে স্রোত আমার উদ্বেলিত নিতম্বের দিকে ধীরে ধীরে নেমে যাচ্ছে। ওয়াহিদের উথিত লিঙ্গ আমার দেহে ধীরে ধীরে প্রবেশ করছে। প্রতিটি সেন্টিমিটার আমার যোনিদমুখ ভেদ করে ঢুকে যাচ্ছে আর আমি কামে আরও মাতাল হয়ে পড়ছি। অনেকটা সময় চলে যাচ্ছে কিন্তু ওয়াহিদের কোমর এখনো আমার থেকে বেশ খানিকটা দূরে। আমি চূড়ান্ত শৃঙ্গারে প্রানপণে ওর কাছে মিনতি করে যাচ্ছি। কিন্তু ওর এতবড় লিঙ্গ ঢুকতে কিছুটা সময় লাগতেই পারে। আমি যুগ যুগ অপেক্ষা করতে রাজি আছি ওর পুরো লিঙ্গটুকু আমার দেহে পুরোপুরো ভরে নিতে। জানালা দিয়ে দূরের পাহাড়ের উঁচু নিচু রেখা মনে করিয়ে দিচ্ছে যে, আমরা মনে হয় কোনো একটা পাহাড়ি কটেজে। কটেজের জানালাটা ধীরে ধীরে খুলে যাচ্ছে। দূর থেকে ভোরের প্রার্থনার আহ্বান কানে আসছে। বাইরে একটা টিয়া পাখি একটানা ‘টি টি’ করে ডেকেই যাচ্ছে।

ধড়মড় করে ঘুম ভাঙলো। ভোর ৫টা বাজে। আমার ফোনে এত রাতে কে ফোন দিতে পারে? ফোনটা এখনো ট্রিং ট্রিং করে বেজে যাচ্ছে। ভোর রাতে প্রার্থনার সময়ে কে ফোন দিতে পারে? ধরলাম ফোনটা,
-“হ্যালো”
-“সৃষ্টিকর্তা তোমার উপর রহমত বর্ষণ করুন। তোমার দোয়া সৃষ্টিকর্তার দরবারে কবুল হয়েছে মা। বলো সৃষ্টিকর্তা মহান।” অপার্থিব উচ্চ তরঙ্গের ঘোলাটে কণ্ঠে একজন কথা বলছে।
-“জ্বি, সৃষ্টিকর্তা মহান।” উত্তর দিলাম আমি। তখনও বুক ধড়ফড় করছে।
-“সমস্ত প্রশংসা সৃষ্টিকর্তার জন্য। মা, একটা প্রশ্ন, তোমাদের দুনিয়াবী সময়ের মতে এই সময়টা কি তোমার জন্য অসময়?”
-“জ্বি না। আমি এখনই উঠে সকালের প্রার্থনা করতে বসতাম।” ধরা গলায় বললাম আমি। এমন অপার্থিব কণ্ঠ আমাকে ভোরবেলাতেই আচ্ছন্ন করে ফেলেছে।
-“সৃষ্টিকর্তা মহান। মা, তোমার হাতের যে যন্ত্রখানির দ্বারা আমি তোমার সাথে কথা বলছি সেটা সৃষ্টিকর্তার মহানুভবতার বদৌলতে আজ তোমাদের হাতে হাতে। ওনার সমস্ত ইচ্ছায় জগতের প্রতিটি বস্তু আন্দোলিত হয়। মহান সৃষ্টিকর্তার অনিচ্ছায় একটি বস্তুও তার স্থান ত্যাগ করতে পারে না। বলো মা, সৃষ্টিকর্তা মহান।
-“সৃষ্টিকর্তা মহান” বললাম আমি। অবশ্যই আমি আমার জীবনে এমন অশরীরী কোনো কণ্ঠ শুনিনি। মাত্রই ঘুম ভেঙেছে, আমার গা হাত পা কাঁপতে লাগলো।
-“তোমার সাথে এই মুহূর্তে কি অন্য কোনো মানব আছে গো মা?”
-“না নাই। আমি একা, আপনি বলেন বাবা।”
-“তোমার প্রার্থনা সৃষ্টিকর্তার দরবার কবুল হয়েছে গো মা। তোমার দুনিয়াবী কোনো বিষয়ে প্রার্থনা থাকলে আমাকে বলতে পারো। আমার হাতে সময় স্বল্প।”

কি বলবো বুঝতে পারছি না। প্রতি প্রার্থনার শেষে আমার একটাই চাওয়া থাকে যেন ওয়াহিদের মুখে যেন একটু হাসি আমি ফোটাতে পারি। বিয়ের পাঁচ বছরেও আমাদের কোনো বাচ্চা নেই। এমন কোনো চিকিৎসা নেই যা করাইনি। এমন কোনো মাজার বা বুজুর্গ নেই যার কাছে আমরা যাইনি। ওয়াহিদের ব্যবসা-বাণিজ্য, অর্থকড়ি সবই আছে, শুধু মনে কোনো সুখ নেই। আমাদের চিরন্তন প্রার্থনা তো ঐ একটাই, সেটাই মুখে বললাম,
-“আমাদের ঘরে কোনো সন্তানাদি নাই বাবা।”
-“সৃষ্টিকর্তা মহান। তোমাদের মনোবাসনা পূরণ করার জন্য সৃষ্টিকর্তা আমাকে নির্দেশিত করেছেন। তোমার কোনো এক বিকালের প্রার্থনা সৃষ্টিকর্তার দরবারে কবুল ও মঞ্জুর হয়েছে। বলো মা, সৃষ্টিকর্তা মহান।”
-“সৃষ্টিকর্তা মহান।” যন্ত্রের মতো বললাম আমি। তাহলে কি আমি নাখালপাড়ায় যেই হুজুরের কাছে পড়া পানি পান করে প্রার্থনা করেছিলাম, সেই প্রার্থনা কবুল হয়েছে? আমার চোখে পানি চলে আসলো।
-“মা, তোমাদের মনোবাসনা পূরণ করার জন্য আমি দামাত-আল-ফিক্‌র শহর থেকে তোমাদের শহরে এসেছি। আমাকে ভোরের প্রার্থনার আগেই ফিরে যেতে হবে উপাসনালয়ের প্রার্থনা পরিচালনা করতে। সৃষ্টিকর্তার যে কোনো সৃষ্টির রূপ আমরা ধারণ করতে পারি। আমাদের জবান তোমাদের কানে পৌঁছানোর জন্য সৃষ্টিকর্তা এই যন্ত্রখানা আবিষ্কার করে মানবের হাতে পাঠিয়েছেন। সৃষ্টিকর্তার দেয়া এই বস্তুর কারণেই আমি আজ একজন অশরীরী জ্বীন হয়েও তোমাদের মতো রক্তমাংসের মানবের কাছে আমার জবান পৌঁছে দিতে পারছি। তোমার যদি প্রশ্ন থাকে আমাকে করতে পারো, মা।” শেষে মা ডাকটা এতো সুন্দর করে টেনে বললেন, একেবারে কলিজায় গিয়ে লাগলো। আমি চোখের পানি ছেড়ে দিলাম।
-“আপনার কাছে আমার কোনো প্রশ্ন নাই বাবা। আপনি আমাদেরকে একটা সন্তান দেন।” আমি তখন কাঁদছি।
-“সৃষ্টিকর্তার কাছে ক্ষমা প্রার্থনা করছি। তুমি এখনই ক্ষমা প্রার্থনা করো,মা। আমাদের সন্তানাদি দেওয়ার কোনো ক্ষমতা নাই, আমরা শুধু একটা মাধ্যম। সমস্ত ক্ষমতার অধিকারী সৃষ্টিকর্তা। উনি তোমার এই কথায় তোমাকে পাপ দিবেন।”
-“সৃষ্টিকর্তা দয়ালু, আমাকে ক্ষমা করেন।”
-“সৃষ্টিকর্তা মহান। মা, তোমাদের এই যন্ত্রে যার সংকেত দেখতে পাবে, সে এই সম্পর্কে কিছু জানে না। তাকে মাধ্যম করে আমি এসেছি। আমি আগামীকাল তোমাকে এই সময়ে আবার স্বরণ করবো। তবে মনে রাখবা বেটি, সৃষ্টিকর্তার এই দয়ার কথা অন্য কোনো জীবিত মানবের সামনে উচ্চারণ করা যাবে না। তোমাদের দুইজনের উপর থেকে আশীর্বাদের ছায়া উঠে যাবে। তোমরা দুনিয়াতেই দোজখের শাস্তি দেখতে পাবে। তোমার জবান চিরতরে বন্ধ হয়ে যাবে! আমার প্রার্থনা পরিচালনার সময় হয়ে গেছে। সৃষ্টিকর্তা তোমার উপর শান্তি বর্ষণ করুন।”
-“সৃষ্টিকর্তা আপনার উপরও শান্তি বর্ষণ করুন।”

ফোন রেখে হঠাৎ খেয়াল হলো, আমার তলপেটের নিচটায় পাতলা নাইটিটা আঠালো হয়ে যোনি কেশের সাথে সেঁটে আছে। এই অবস্থায় ওনার সাথে কথা বলাটা কি বেয়াদবি হলো কিনা ভাবতে ভাবতে তাড়াহুড়া করে বাথরুমে গেলাম। শেষ রাতে ওয়াহিদের সাথে কি সব বাজে স্বপ্ন দেখে শরীর ভিজিয়ে ফেলেছিলাম। আমাকে এখনই আবশ্যিক গোসল করে প্রার্থনায় বসতে হবে। বাথরুমে গিয়ে নাইটির উপর দিয়ে শরীরে পানি ঢালতেই শরীরের ভেতরের নগ্নতা অনুভত করতে পারছিলাম। আমাদের ধর্মে উলঙ্গ হয়ে গোসল করা বারণ। তাই নিজে কখনো আয়নায় নিজের দেহ উলঙ্গ দেখিনি। নাইটির গলার ভেতর দিয়ে স্তনে ভালো করে সাবান মাখছিলাম। আজকে স্তনদুটো একটু বেশি ঘষে পরিষ্কার করতে হবে। স্বপ্নদোষ হওয়া শারীরিক মিলনের মতোই খারাপ।

ধর্মমতে দুটোর ক্ষেত্রেই একই নিয়মে পবিত্র হতে হয়। আজকে ভালো করে সব ঘষে ঘষে পরিষ্কার করতে হবে। আমি বুঝি আমার শরীরের ভাঁজে ভাঁজে সৃষ্টিকর্তা মাদকতা লুকিয়ে রেখেছেন। তাইতো, অনেক ভালোভাবে শরীর ঢেকে বাইরে গেলেও পরপুরুষের লোলুপ চোখগুলো যেন আমাকে চেটে চেটে খায়। ওদের জিভের স্পর্শ যেন আমি পাই আমার ভরাট দেহের খাঁজে খাঁজে। চোখ নামিয়ে হেটে যাই আমি। আমার চির উন্নত বুক এখনো এই ২৫ বছর বয়সে এতটুকুও ঝুলে যায়নি। যাবেইবা কিভাবে, ওয়াহিদের সমস্ত মনোযোগ আমার নিতম্বে।

ওয়াহিদ এক হুজুরের কাছে শুনে এসেছিল, স্বামী চাইলে স্ত্রীর সাথে পায়ুপথে মিলিত হতে পারে। যদিও আমি ছোটকাল থেকে জানতাম পায়ুমেহন পরম বর্জনীয় এবং পাপের কাজ। কিন্তু আমার ভরাট নিতম্বের খাঁজে যেন ওয়াহিদ সমস্ত সুখ খুঁজে পায়। বছরে একবার কি দুইবার আমি ওয়াহিদের মুখ দেখে আমার রাগ মোচনের চেষ্টা করতে পারি মাত্র। কারণ আমাকে পেছন দিক থেকে নিতেই ওয়াহিদ বেশি পছন্দ করে। আমার এই দেহবল্লরী শুধু অকালে পড়ে কাতরায়, সেইসব যাতনা আমার স্বামীর কানে গিয়ে কখনো পৌঁছায় না। এযাবৎকালে আমার যোনীগর্ভে সবচেয়ে বেশি পেয়েছি শুধুই ওয়াহিদের দুটো কি তিনটে আঙ্গুল।

ওয়াহিদ গত মাসে যোনিতে একবার ওর লিঙ্গ ঢুকিয়েছিল। কিন্তু প্রায় অব্যবহৃত যোনির শক্ত দেয়ালের চাপে যোনিমুখ ভেদ করে আমার স্বামী লিঙ্গমুন্ডিটাই ভেতরে পৌঁছুতে পারেনি। এই সব ভাবতে ভাবতে ভিজে শরীরে আঁটোসাঁটো হয়ে লেগে থাকা সাবানমাখা নাইটির উপর দিয়ে স্তনবৃন্ত পরিষ্কার করার চেষ্টা করছিলাম। একইসাথে দ্রুত গতিতে ডলে ডলে যোনিদেশ পরিষ্কার করছিলাম। যাতে সব ময়লা পরিষ্কার হয়ে যায়, আর আমি পবিত্র হয়ে প্রার্থনায় বসতে পারি। আজ যোনিদেশের ময়লা হাত দিয়ে খানিকটা ডলতেই যোনি থেকে রহমতের নির্যাস বেরিয়ে এলো।

আমি থেমে গেলাম কয়েক সেকেন্ডের জন্য। দ্রুত নিঃশ্বাস নিচ্ছি। তলপেট মোচড় দিয়ে শরীরটা কুঁজো হয়ে এলো। আজ পরিষ্কার হতে একদমই সময় লাগেনি। মা বলেছেন, এই যোনি নিঃসৃত পানি সৃষ্টিকর্তার দয়ার পানি। গোসল করার সময় একই সাথে স্তনবৃন্ত আর যোনিদেশ ঘষে ঘষে পরিষ্কার করার অভ্যাস তাই আমার ছোটবেলা থেকেই। মাথায় কেন জানি জ্বীনের অপার্থিব কণ্ঠটা ঘুরপাক খাচ্ছিল। সৃষ্টিকর্তা মাফ করুন আমায়! কি যা-তা ভাবনা যে মাথায় আসে! গায়ে পানি ঢেলে গোসল শেষ করলাম। আজকে প্রার্থনায় বসে অনেক কান্নাকাটি করলাম সৃষ্টিকর্তার কাছে। আমার দোয়া উনি কবুল করেছেন, আমার জন্য উনি একটা ব্যবস্থা করে পাঠিয়েছেন উপর থেকে। হয়তো আর মাস দুয়েক গেলে ঘরে নতুন স্ত্রী নিয়ে আসতো ওয়াহিদ। তেমনই আমাকে বলেছিল। সৃষ্টিকর্তা আমায় ক্ষমা করেছেন ভেবে আমার মনটা সারাদিন ফুরফুরে রইলো।

ওয়াহিদ ফোন করেছিল সন্ধ্যার দিকে। ওকে আর অশরীরী ফোনের কথা বললাম না। মাছের ঘেরে কি নাকি অসুখ লেগেছে, সেই নিয়ে ছুটোছুটি করছে। বরিশালে ওর কমপক্ষে ২০ টার উপর মাছের ঘের আছে। মাসে এক সপ্তাহ বরিশাল থাকে সেসব দেখাশুনা করতে। আমাকে সব কথা ও বলেও না। স্ত্রীদের স্বামীর সব কথা জানতে নেই। এই বিষয়ে অতিরিক্ত কৌতূহল ধর্মে নিষেধ আছে। আমিও তাই আর ওকে ঘাটাই না। যদিও আমার বান্ধবী আল্পনার স্বামী নাকি ওয়াহিদকে বরিশালে দেখেছিল কোন একটা মেয়ের সাথে। আমি সেসব বিশ্বাস করিনি। আল্পনাদেরও বাচ্চা হচ্ছে না। কি দেখতে বেচারা কি দেখেছে কে জানে। আমার মনে হয় আল্পনা চাকরি করতে করতে ওর শরীরের বারোটা বাজিয়েছে। এই জন্যই ওর বাচ্চা হচ্ছে না। আজ ধর্ম মতো মুখ, হাত, পা ধুয়ে পবিত্র কাপড় পরে ঘুমাতে গেলাম। ফোনটা একেবারে আমার গালের সাথে লাগিয়ে রাখলাম। ওয়াহিদের মাছের ঘেরের সমস্যা কি হতে পারে সেসব চিন্তা করতে করতে ঘুমিয়ে গেলাম।

।। চলবে… ।।

পাঠকের কাছে প্রশ্নঃ Areola (স্তনবৃন্তের চারিদিকের গোলাকার ত্বক) ইংরেজি শব্দের কোনো সুন্দর বাংলা শব্দ আপনাদের জানা থাকলে কমেন্টে লিখে জানান। সবচেয়ে সুন্দর বাংলা শব্দ ও প্রতিশব্দের জন্য আপনার নির্বাচিত যৌন ফ্যান্টাসি নিয়ে লেখা গল্প উপহার হিসেবে পেতে পারেন।

What did you think of this story??

Comments

Scroll To Top