বিরাজের নতুন অধ্যায় – ১১

বিরাজের নতুন অধ্যায় – ১০

” আচ্ছা আম্মি ”

” বলো ”

বিরাজ আম্মির দিকে মুখ ফিরালো। রিনি সোজা উপরে তাকিয়ে থাকায় বিরাজের ঠোঁট রিনির গালে লাগলো।

” আম্মি তোমরা কয় ভাইবোন? ”

” তোমার শুধু একটা ছোট মামা আছে ”

” আর নানা নানু ”

” ওরা আকাশের তারা হয়ে গেছে ”

” সরি আম্মি ”

রিনি ওর দিকে হালকা বাঁকা হয়ে জিজ্ঞেস করল – ” কেন জিজ্ঞেস করছো এগুলো? ”

” জানতে চাইছিলাম, তোমার আম্মি বা কোন বোন থাকলে তারাও কি তোমার মতো এতো কিউট দেখতে। ”

রিনি আবার সোজা হয়ে ” হুম তোমার নানু প্রায় আমার মতো ছিলো। ”

বিরাজ আরও অনেকগুলো পারসোনাল প্রশ্ন করলো। রিনি তার সবগুলো উত্তর দিতে লাগলো।

কথা বলতে সময় রিনির গাল ছেলের ঠোঁটের কাছে থাকায় একবার দুবার কথা বলতে গিয়ে আমনা-আমনি লেগে গেল। রিনিও কয়েকবার নিজে থেকেই গালটা ছেলের ঠোঁটের সাথে লাগালো। রিনি ছেলেকে এতটুকু আদর দিতে চাইছে। মায়ের গালে ছেলে চুমুতো খেতেই পারবে। রিনিও কথা বলতে বলতে ছেলেকে শরীরের উপরে জড়িয়ে রেখে ফুলো গালে ঠোঁট লাগাতে মজা পাচ্ছে। এসব আদর খুবই রোমান্টিক হয়।

বিরাজও চার-পাঁচ বার গালে ঠোঁট লাগতে দেখে আস্তে আস্তে গালে ঠোঁট লাগিয়ে চুমু খেতে লাগলো।” উফ খুব মজা আম্মির গালে চুমু খাওয়া। ”

রিনিও ইচ্ছে করে আস্তে আস্তে ছেলের দিকে গাল নাড়াতে লাগলো। এতে বিরাজও মন ভরে কথা বলতে বলতে গলা জড়িয়ে আম্মির ফুলো গালে চুমু খেতে লাগলাে।

এই ছোট আলোচনায় বিরাজ আম্মি সম্পর্কে অনেক কিছু জানতে পারলো। রিনির পরিবার সম্পর্কে, রিনি আর মিলির ছোট বেলার বন্ধুত্বের সম্পর্কে, তাদের একটা করে সন্তান নেয়ার প্রতিজ্ঞা সম্পর্কে, কেন তিনি ওকে আপন সন্তানের জায়গা দিতে চায়, সবকিছু যা একটা সাধারণ মা ছেলেকে বলতে পারে।

দু-জনের মুখে মন খুলে কথা বলতে পারার আর মা ছেলের স্নেহের চুমু খাবার মিষ্টি মিষ্টি হাসি।

বিরাজ চুমু খেতে খেতে-
” তাহলে তো আমাকে আরো একটা সার্টিফিকেট বানাতে হবে ”

রিনি ওর দিকে ফিরে তাকালো- ” তা কেন! আম্মি আব্বুকে মন থেকে আব্বু বানিয়েছি, আব্বুও চাইলে আম্মিকে মন থেকে আম্মি মানবে! ”

” ওহ তাই বুঝি ” বিরাজ একটু নরম গলায় বললো যেন সে এটা আগে ভাবেনি। ( আসলে ও মজা নিচ্ছিলো )

রিনির মন খারাপ হয়ে গেল। রিনি ওকে বুকের উপর থেকে পাশে নিয়ে গেল কিন্তু বুক থেকে সরালো না, জড়িয়েই রাখলো। রিনির চোখ ভিতর থেকে একটু ভিজে গেছে। হটাৎ করে, ছেলে হারা শূন্য মায়ের বুকের মতো মনটা হাহাকার করে উঠলো। কিন্তু বাইরে প্রকাশ করলো না।

রিনির থেকে শুধু এই শব্দটা বের হলো। ” ওহ…. ”
বিরাজ বুঝে গেল আম্মি সিরিয়াসলি নিয়ে নিয়েছে। মজা বুঝেনি।

বিরাজঃ ” মন থেকেতো আম্মি আমি সেই কবে বানিয়ে ফেলেছি! ভাবলাম একটু মজা করে দেখি ” বিরাজ এগুলোও নরম গলায় বললো।

দুই সেকেন্ড পর মিটি মিটি হাসতে লাগলো।

রিনির চোখে টপটপ টপটপ করে অশ্রু ঝরতে লাগলো। রিনি ছেলের মজা বুঝতে পেরে ঠাস করে গালে একটা চড় বসিয়ে দিলো।

আসলেই বিরাজের অখাট মজা রিনির জন্য খুবই বাজে ছিল।

” আহহহহঃ আম্মি ব্যাঁথা পেলামতো! ” গাল ডলতে ডলতে বললো বিরাজ।

রিনি বিরাজকে বুক থেকে ছেড়ে দিয়ে শব্দহীন কাঁদতে লাগলো। রিনির চোখ দিয়ে টপটপ টপটপ করে বৃষ্টির মতো ফোয়ারা ঝরতে লাগলো।

বিরাজ মজাটা এত বাজে হবে ভাবেনি। আম্মি অনেক ফ্রেন্ডলি তার সাথে তাই মজা করেছিলো। কিন্তু আম্মিতো সত্যি সত্যি হার্ট হয়ে গেলো।

বিরাজ আম্মির গাল ধরে ” সরি সরি…. সরি আম্মি আমিতো শুধু মজা করার জন্য বলছিলাম। ”

রিনি ছেলের হাত সরিয়ে দিলো। রিনি ভীষণ কষ্ট পেয়েছে। ভালবাসার আদরে গড়ে তোলা মা ছেলের সম্পর্কে এমন কিছু শুনলে বুকে ব্যাথাতো লাগেই।

বিরাজ আবার আম্মিকে আগলে গাল ধরে সরি বলতে লাগলো। কিন্তু কে শুনে কার কথা। রিনির আর কথা বলবে না ওর সাথে।

বিরাজ পড়লো মহাবিপদে। ও যতবার আম্মিকে মানানোর চেষ্টা করছে ততবার আম্মি তাকে দূরে সরিয়ে দিচ্ছে।

” আম্মি প্লিজ, সরি! আর কখনো এমন কথা বলবো না ”

কিন্তু রিনি তাকে দূরে সরিয়ে দেয়, কোন কথাই বলবে না তার সাথে।

” ঠিক আছে কালকেই ফেনী চলে যাবো। আর আসবোনা কোন দিন! ” বলে, বিরাজ বিছানা থেকে নেমে যেতে চাইলো কিন্তু রিনি তাকে টেনে নিয়ে বুকে তুলে হাত দিয়ে শক্ত করে জড়িয়ে ধরলো। কাঁদতে কাঁদতে বলতে লাগলো ” কোথায় যাচ্ছো হ্যাঁ! আম্মিকে রেখে চলে যাবে। আম্মিতো কেউ না। যাও চলে যাও। ”

কিন্তু রিনি তাকে শক্ত করে জড়িয়ে আছে।

” ছেড়ে দাও চলে যাচ্ছি ” বিরাজ বললো।

রিনি ছোট মেয়ের মতো আবদার গলায় ” না! কোত্থাও যাবে না তুমি! কোত্থাও না! তুমি আম্মির কাছে থাকবে! সারাজীবন আম্মির বুকে থাকবে। কোত্থাও যেতে দিবো না তোমাকে। ”

বিরাজ চোখ মুছে দিতে দিতে ” আরে আমার লক্ষী আম্মি। আমার বোকা আম্মি। আমিতো মজা করছিলাম। ”

” রিনি ছেলের কান টেনে ধরে ” খুন করে ফেলবো আর কখনো এভাবে আমার সাথে মজা করলে। ” এভাবে বকে দিয়ে চড় বসিয়ে দেয়া গালে হাত বুলিয়ে দিতে দিতে –

” বেশি জোরে লেগেছে বুঝি? ”

” খুব ”

” সরি আব্বু! ” বলে রিনি ছেলের সেই গালে লম্বা লম্বা কিস করতে লাগলো।

” আহঃ আম্মি লাল হয়ে যাচ্ছে ”

” কথা বললে মরিচ করে দেব। ”

বিরাজ আম্মির স্নেহের চুমু খেতে লাগলো। রিনি চুমু খেতে খেতে বুঝতে পারলাে ছেলের নুনু ছোট হয়ে গেছে। তার তলপেটে গুতো মারছে না।

” ইমোশান কন্ট্রোল করতে পারো কিন্তু কেউ কাঁদলে তাকে থামাতে পারো না ” রিনি ছেলেকে বললো।

” তুমি আমাকে বোকা পেয়ে সোজা কথা বলোনা। কিচ্ছু বুঝিনা তোমার কথা। ”

” না কিচ্ছু বুঝা লাগবেনা তোমার। ”

” কেন? ”

” বেশি প্রশ্ন কর তুমি। আম্মির আদর খেতে ভালো লাগছে না? ” ধমক সুরে বললো।

” হুম ”

” তো চুপচাপ আদর খাও আর আম্মিকেও আদর করতে দাও ”

রিনি ছেলের গালে চুমু খেতে লাগলো। বিরাজও আম্মির বুকে বুক মিশিয়ে জড়িয়ে ধরে আদর খেতে লাগলো।

চুমু খেতে খেতে অনেকটা সময় ধরে চুমু খেল। অনেকক্ষণ চুমু খাওয়ার পর রিনি ছেলের গাল দাঁত দিয়ে টানতে লাগলাে।

” আহঃ আম্মি ”

” কি? ”

” নাহ কিছু না! আমিও খাব! ”

” কি খাবে? ”

” আমিও চুমু খাব ”

” কেন আম্মির আদর ভালো লাগছে না। আম্মি আরো চুমু খাবো। ”

” বাহরে! আমার গালতো লাল মরিচ হয়ে গেছে মনে হয়। এবার আমি খাবো। ”

” কই লাল হয়নি তো। আমি আরেকটু খাই, তুমি পরে খেও! ”

বিরাজ আর কিছু বললো না। শুধু আম্মির ঠোঁটের উপর গাল রেখে বুকে শুয়ে রইলো।

রিনি অনেক লম্বা সময় ধরে আদর করতে লাগলাে। প্রায় দশ মিনিটেরও বেশি।

রিনি চুমু বন্ধ করে দিতেই ছেলের গালে ঠোঁট লেপ্টে গেল। বিরাজ বুঝে গেল আম্মি ক্লান্ত হয়ে গেছে।

” আম্মি, আমি খাই এবার ”

” হুম ”

বিরাজ আম্মির গাল একদিক করে চুমু খেতে লাগলাে। ছোটদের চুমু খাওয়ার মতো। অনেকক্ষণ খেল আস্তে আস্তে।

” উফফ আব্বু! কি বলেছিলাম! বড়দের কিভাবে চুমু খেতে হয়! ”

বিরাজ আম্মিকে জড়িয়ে ধরেই উল্টে গিয়ে নিজের উপরে নিয়ে আসলো।

” আহঃ পারবেনা! ”

” কেন কালকে রাতে কোথায় ঘুমিয়েছো? ”

” আব্বুর বুকে মাথা রেখে! ”

” তাহলে আজ পারবোনা কেন?

” আদর করো! ”

বিরাজ আম্মির কথা মতো চুমু খেতে লাগলাে। রিনিও চুমু গুলো উপভোগ করতে লাগলো। রিনি একবার বাম গাল একবার ডান গাল পাল্টে দিতে লাগলো। বিরাজও আম্মিকে জড়িয়ে ধরে আদর করতে লাগলাে।

” তোমার গাল গুলো তুলতুলে নরম। খুব মিষ্টি চুমু খেতে। ”

” হুম! আর খেতে হবে না। এবার আমরা ঘুমাবো ”

” আরেকটু খাই না আম্মি। প্লিজ! ”

” না মিষ্টি কম খেতে হয়। ”

” প্লিজ আম্মি! অল্প আরেকটু। ”

” না বেশি মিষ্টি খেলে ডায়বেটিস হয়ে যাবে। কালকে আবার খেও ”

” প্লিজ আম্মি। ”

রিনি ছেলের দিকে তাকিয়ে বললো ” অনেক রাত হয়ে গেছে আব্বু। কালকে আবার আম্মিকে মন ভরে আদর করো। এখন ঘুমাই? ”

” বুঝেছি ” মুখ বাঁকা করে বললো।

” কি বুঝেছো? ” রিনি হাসতে হাসতে জিজ্ঞেস করল।

” বুঝেছি! তোমার বেলায় ষোল আনা আর আমার বেলায় এক আনাও না ”

” ওলে বাবালো! আমি বুঝি এত পারশিয়ালিটি করি? ”

” আর নয়তো কি? তুমি সেই কতক্ষণ মিষ্টি খেয়েছো, আর আমায় এত কম খেতে দিচ্ছো। ”

” আচ্ছা এটাতো আসলেই পারশিয়ালিটি হয়ে গেলো। তাহলে কি করা যায়? ” রিনি ভাবার অভিনয় করতে লাগলো।

” আরো চুমু খেতে দাও ”

” রাতের চারটা বাজে আব্বু। ঘুমাবে না? ”

” তুমি ঘুমাও আর আমি তোমায় আদর করি ”

” না তাতো হয়না। ঘুমাবো একসাথে! আচ্ছা একটু ভেবে দেখি কি করা যায়। “………….
……. পাঁচ সেকেন্ড পর……………………” একটা স্পেশাল মিষ্টি দিলে হবে? ”

” কেমন মিষ্টি? ”

” খুবই স্পেশাল। বলা যাবেনা, শুধু খেতে চাইলে দিতে পারি! ”

” তুমি দিলে আমার কি লাভ? তাও তুমি মিষ্টি খাবে. ”

” নাহ, এটা স্পেশাল মিষ্টি। শুধু একটাই! ”

” তাহলে দাও। তবে একটা শর্ত থাকবে…. ”

” কি শর্ত? ”

” মিষ্টির কোয়ালিটি ভালো হতে হবে, না হলে এই মিষ্টিগুলো ফেরত দেবে! ”

” হা হা হা ঠিক আছে। আম্মুর কোমরে হাত দাও ”

বিরাজ কোমরে হাত দিলো।

” চোখ বন্ধ করো ”

বিরাজ চোখ বন্ধ করলো।

রিনি তার মাথা আস্তে আস্তে ছেলের দিকে বাড়াতে লাগলাে। আস্তে আস্তে ঠোঁটের দিকে ঠোঁট আনতে লাগলো। রিনি খুব ধীরে ধীরে ছেলের ঠোঁটে ঠোঁট ছৌঁয়ালো আর আস্তে করে ঠোঁট একটা কিস দিলো। ঠোঁটে ঠোঁট মিলিয়ে চুমু খেল। ভিতরে গেলো না।

বিরাজ চোখ বন্ধ করে চুমুটার ফিল নিলো। বিরাজের ঠোঁটে আম্মির ঠোঁট লাগতেই বিরাজ ঠান্ডা হয়ে গেলো। উফফঃ ” কি মোলায়েম ঠোঁট ”

রিনিও চোখ বন্ধ করে চুমুটা দিলো। রিনি যেন অনেক জেনেশুনে চুমুটা দিলো ছেলেকে।

ক্লোজআপ শট নেয়ার চেষ্টা করো। ক্যামেরা একদম ছেলে মায়ের মাথার সামনে। একদম সেই রোমান্টিক মোমেন্ট – রিনি AKA আম্মি তার ছেলে বিরাজের শরীরের উপর শুয়ে ছেলেকে চোখ বন্ধ করতে বললো। রিনি তার ছেলেকে স্পেশাল মিষ্টি দিবে। রিনি খুব ধীরে ধীরে ছেলের ঠোঁটে ছোট্ট একটা চুমু দিলো।

চুমু শেষ হলে বিরাজ আস্তে আস্তে চোখ খুললাে।

রিনি তাকিয়ে আছে তার দিকে। উফঃ চোখে চোখ পড়লো আম্মির। কোন কথা নেই মুখে। আম্মি তাকে ঠোঁটে চুমু খাবে কল্পনাও করতে পারছে না।

মা ছেলের চোখে মুখে চুমুটার ফিল ঘুরছে। উফঃ বিরাজ ভিতর থেকে নড়ে গেলো।

বিরাজ যাষ্ট চিন্তা করছে, ” এখনই, আম্মি তার ঠোঁটে চুমু খেয়েছে? 😇?????????????????? ”

অনেকক্ষণ এভাবে থাকার পর রিনি আস্তে করে জিজ্ঞেস করল – ” হবে? ”

বিরাজ আম্মির ঠোঁটের ছোঁয়ায় এমনিতেই শেষ। বেশি কিছু বলতে পারলোনা। মাথা নাড়িয়ে জবাব দিলো- ” হুম ”

রিনি আর কোন কথা না বলে ছেলের বুকে মাথা রেখে শুয়ে গেলো। বিরাজও আস্তে করে আম্মিকে জড়িয়ে ধরলো।

চুমুর পরে কারো মুখে কথা বলার সাহস নেই। দুজন ঘুমিয়ে গেল।

এভাবেই শেষ হলো ঢাকা শহরের সপ্তম দিন।

What did you think of this story??

Comments

Scroll To Top