গৃহবধূ যখন সেলিব্রিটি! পর্ব ১৭

গৃহবধূ যখন সেলিব্রিটি! পর্ব ১৬

অরবিন্দ এর প্রস্তাবে রাজি হওয়ার পর প্রথম উইক এন্ড এই ও আমাকে একটা রেভ পার্টি টে নিয়ে আসলো। আমার ঐ পার্টি টে আসবার মোটেই ইচ্ছে ছিল না, কিন্তু পার্টি টা ছিল অরবিন্দ এর খুব কাছের এক ফ্যাশন ডিজাইনার বন্ধুর। অরবিন্দ ওর বন্ধুর কাছে প্রমিজ করেছিল আমাকে পার্টি টে নিয়ে আসবার ব্যাপারে । তাই ওর সন্মান রাখতে আমাকে ঐ পার্টি এটেন্দ করতে হলো। পার্টি টে এসেই, অরবিন্দ আমার সঙ্গে ওর সেই বন্ধুর পরিচয় করিয়ে দিল। ওর সেই বন্ধু গে ছিল, মুম্বাই আসার ওর পরিচালনায় বেশ কিছু প্রজেক্টে আমার মডেল হিসাবে কাজ করা পাকা হয়ে গেল।

ঐ পার্টি টে গিয়ে আমি নিজেকে সকলের সঙ্গে কিছুতেই ম্যাচ করতে পারছিলাম না। ওখানে ওপেন লি মাদক সেবন চলছিল নারী পুরুষ নির্বিশেষে। নারী রাও অনেক বেশি রিভেলিং পোশাক পরে শরীর দেখিয়ে ফিরছিল, বেশির ভাগ নারীরা অন্তর্বাস ছাড়াই হট পার্টি ওয়ার পোশাক পরে এসেছিল। আমি ওসব থেকে দুরে সরে এসে একটা কোনে দাড়িয়ে বেশ কয়েক দিন পর আমার হাসব্যান্ড এর সঙ্গে ফোনে কথা বলছিলাম ।

সেদিন ওর জন্মদিন ও ছিল। তবে বেশিক্ষণ ধরে কথা বলতে পারলাম না। অরবিন্দ এসে আমাকে অবাক করে পিছন দিক থেকে জাপটে ধরে জড়িয়ে ধরলো। ওর আকস্মিক জাপটে জড়িয়ে ধরার ফলে আমার হাত থেকে ফোন টা নিচে পড়ে গেছিল। কল টা তখনও অন ছিল, আর আমার সঙ্গে অরবিন্দ এর কিছু কথোকথন ডিরেক্ট আমার বর এর কানে চলে গেছিল। অরবিন্দ সেদিন আমাকে নতুন ধরনের এক মাদক টেস্ট করবার জন্য জোরাজুরি করছিল।

আমি ভয় পেয়ে বার বার পিছিয়ে আসছিলাম কিন্তু শেষ পর্যন্ত অরবিন্দ এর জেদ এরই জয় হল। ঐ পার্টি টে প্রথম বার হার্ড ড্রিংক এর সাথে মাদক নিয়ে আমি জাস্ট আউট হয়ে যাই, পাঁচ মিনিটের মধ্যে আমার চোখের দৃষ্টি ঝাপসা হয়ে যায়। নেশা করবার পরে ওদের সবাই কে অর্ধ নগ্ন অবস্থায় মনে হচ্ছিল। সাথে মাথাও ঘুরছিল, হুল্লোড় বাজি না করে আমি একটা কোনে বসে ছিলাম, ওরা সেখানে এসেও আমাকে টাচ করে করে পাগল করে তুলল।

দুই দিক থেকে দুজনের আক্রমন আমি কিছুতেই সামলাতে পারলাম না। আমার নেশায় টোটাল আউট হবার সুযোগ নিয়ে অরবিন্দ ও তার এক বন্ধু আমার বাড়ি ফেরা সেদিন রাতে সফল ভাবে আটকে দিয়েছিল। ওরা সময় নষ্ট না করে, আমাকে নিয়ে ঐ ক্লাবের একটা প্রাইভেসি সুইটের ভেতর প্রবেশ করে। যখন আমি ওদের সাথে ঐ নাইট ক্লাবের প্রাইভেসি সুইট এর ভেতর প্রবেশ করলাম তখন আমার পোশাক আশাক এর অবস্থা মোটেই স্বাভাবিক ছিল না। ঐ সুইট এর ভেতর পৌঁছে অরবিন্দ ওর বন্ধুর সামনেই আমার স্কার্ট টা টান মেরে খুলে দিয়েছিল।

তারপর বিছানায় এনে অরবিন্দ এর সেই ফ্যাশন ডিজাইনার বন্ধু, একটা স্মল পেগ হুইস্কি ড্রিংক বানিয়ে করে আমার হাতে ধরিয়ে দিল। আমি মাথা নাড়লাম, কিন্তু অরবিন্দ কিছুটা জোর করেই আমাকে ওটা খাইয়ে দিল। আমি র ড্রিংক তার আগে কখনো খাই নি। তার ফলে ওটা নেওয়ার পর পর ই আমার যতটুকু জ্ঞান ছিল সেটাও অবলুপ্ত হয়। আমি ওদের হাতের পুতুলে পরিনত হই। চোখ বুজে যাওয়ার আগে এই টুকু দেখতে পেরেছিলাম অরবিন্দ এর সেই বন্ধু আমার কাছে এগিয়ে এসে আমার বুকের উপর মুখ গুজে দিয়ে আদর করতে আরম্ভ করেছে।

তারপর সারারাত ধরে আমি ওদের সঙ্গে কি করলাম, পরের দিন কিছু মনে ছিল না। তবে আমার শরীরের কোন অংশ যে ওদের স্পর্শ থেকে বাদ যায় নি সেটা আমি জ্ঞান ফেরার পর ভাল করেই বুঝতে পেরেছিলাম। পর দিন দুপুর বেলা যখন জ্ঞান ফেরে আমি অরবিন্দ এর সঙ্গে ওর ম্যানশন এর একটা বেডরুমে শুয়ে আছি। চোখ খুলবার র সাথে সাথেই আমার যৌনাঙ্গে একটা তীব্র ব্যাথা অনুভব করছিলাম। মনে হচ্ছিলো, আমার শরীরের লোয়ার পার্ট যন্ত্রণায় ছিড়ে যাচ্ছিল, সে সময় আমার পরনে বুকে কেবল মাত্র কালো রঙের অন্তর্বাস ছিল।

নিচের দিক থেকে আমি সম্পূর্ণ নুড ছিলাম। ব্রার ক্যাস্প গুলো ভাঙ্গা ছিল। বাকি পোশাক টা বিছানায় আমার পাশে হাতরেও খুঁজে পেলাম না। মাথা তুলতে চেষ্টা করলাম, কিন্তু পারলাম না, বিছানায় পড়ে গেলাম, সাথে সাথে অরবিন্দ পাশের রুম থেকে এসে আমাকে জড়িয়ে ধরে গালে চুমু খেয়ে বললো, “good afternoon darling!” আমি কিছুটা সামলে নিয়ে ওকে জিজ্ঞেস করলাম, ” আমি কোথায়?” ও জবাব দিল, তুমি এখন আমার ম্যানশনে রয়েছ।

পার্টির পর আমি তোমাকে এখানে নিয়ে এসেছি,” আমি বললাম, আমি বাড়ি যাবো। যন্ত্রণায় ছিড়ে যাচ্ছে আমার শরীর।” অরবিন্দ আমার মাথায় হাত বুলিয়ে শান্ত করে বললো, ” আজকে তোমাকে ছাড়ছি না মোহিনী, কালকে পুরোপুরি পাই নি, আজকে সেটা উসুল করে ছাড়বো। তাছাড়া এখন তুমি যেতেও পারবে না। আজকের দিন টা আমার এখানেই কাটিয়ে দাও। কাল বাড়ি ফিরে যাবে।” এই বলে ও আমাকে জড়িয়ে আদর করতে শুরু করে, আমি ওকে ছাড়ানোর চেষ্টা করে বলি, আমার লাগছে অরবিন্দ প্লিজ লিভ মী, আমার কাল রাতের ড্রেস টা এনে দাও।

আমার কথা শুনে বলল, ” ড্রেস টা নষ্ট হয়ে গেছিলো, পড়ার উপযুক্ত ছিল না। ওটা ক্লাবের ঐ সুটের ভেতর রয়ে গেছে, ব্রা প্যা ন্টি পরেই তোমাকে আমরা পিছনের দরজা দিয়ে বার করছি। এটা আমার বেডরুম এখানে তোমাকে পোশাক না পরলেও চলবে। কাল রাতে আমিও তোমার মতন ই নুড হয়ে তোমার পাশে শুইয়ে ছিলাম।” আমি: তোমার বন্ধু চলে গেছে।। ঐ আমার এই হাল করেছে তাই না।”

অরবিন্দ রিপ্লাই দিল,” হ্যা ও কালকে আমাকে তোমার কাছে ঘেঁষতে দেয় নি। তোমার জন্য একটা গুড নিউজ আছে, আমার বন্ধু তোমাকে তার পরবর্তী প্রজেক্টে প্রধান মুখ করবে বলে ঠিক করেছে, এইবারের ইন্ডিয়ান ফ্যাশন উইকে তুমি আমার বন্ধুর ব্র্যান্ড রিপ্রেজেন্ট করবে।” এটা খুব বড়ো কাজ ছিল, সেই কাজের সুযোগ করে দেওয়ার কৃতজ্ঞতা স্বরূপ আমি কষ্ট হলেও, নিজের শরীর টাকে। একঘন্টা মতন আমাকে ভোগ করে ও অবশ্য ছেড়ে দিয়েছিল।

তারপর বডি ম্যাসাজ নিয়ে , আর ব্যাথা কমাবার ওষুধ নিয়ে আমি বিছানা ছেড়ে উঠেছিলাম। যদিও সেই সময় আমার হাটটে খুব অসুবিধা হচ্ছিল, অরবিন্দ আমাকে কোলে তুলে নিয়ে ওয়াস রুমে নিয়ে গেছিল। ওয়াশ্ রুম থেকে ফিরে এসে ড্রিংক করে আবার অরবিন্দ এর হাতে নিজেকে সপে দিলাম। সেই রাত টা অরবিন্দের সঙ্গে ওর বেডরুমে কাটিয়ে পরের দিন বাড়ি ফিরে এসেছিলাম। এই ভাবে নিয়মিত ওর সাথে বিছানায় শুতে শুতে আমি অরবিন্দ কে আমার সঙ্গে এক ছাদের তলায় থাকবার পারমিশন টাও দিয়ে দি।

এই অরবিন্দ এর মতন সঙ্গীর সাথে লিভ ইন শুরু করার পর থেকে আমার ব্যাক্তিগত যৌন জীবন এক অন্য উচ্চতায় পৌঁছে যায়। আমি ধীরে ধীরে অরবিন্দ আর তার বন্ধুদের সঙ্গে বিছানায় অন্তরঙ্গ মুহূর্ত কাটাতে অভ্যস্ত হয়ে পড়ি। নিশা দেশাই আর রুচিকা সিনহা দের থেকে তো বেচে যাই কিন্তু অরবিন্দ এর খপ্পরে পরে আমার চরিত্র রাতারাতি পাল্টে যায়। ইন্ডাস্ট্রি টে যারা আমাকে ভদ্র মেয়ে বলে সন্মান করতো তারাও আমাকে নিচু নজরে দেখতে আরম্ভ করল, অবশ্য অরবিন্দের কথা মেনে চলতে চলতে আমার রোজগার এত তাই বেড়ে গেছিল কে কি ভাবছে টা নিয়ে ওতো আমল দিলাম না। সেই রেভ পার্টি র একটা প্রাইভেট পিস লিক হওয়া টে আমি অস্বস্তি টে পরে যাই, সেই বিতর্ক ঢাকতে গিয়ে আরো বড়ো কেলেঙ্কারিতে নিজেকে জড়িয়ে ফেলি।

অরবিন্দ এর এক প্রভাবশালী বন্ধুর উইক এন্ড পার্টির প্রধান আকর্ষণে রূপান্তর হই। অরবিন্দ আমাকে নিয়মিত ভাবে ওর বন্ধুর ফার্ম হাউসে ফুর্তি করতে নিয়ে যেতে আরম্ভ করলো। আমার জীবন যেন একটা অন্য মাত্রা পেল। এইসব পার্টি টে উপস্থিত হতে মোটা অঙ্কের পারিশ্রমিক নিতাম। ওখানে আমার মতন সুন্দরী নারী দের দারুন কদর ছিল। যেসব মডেল এয়ার হস্ট্রেস নারী রা ওদের রূপ লাবণ্য দেখিয়ে ওখানে প্রভাবশালী পুরুষ দের মনোরঞ্জন করতে যেত, তারা পয়সার জন্য বোধ হয় সব কিছু করতে পারতো।

প্রথম প্রথম ওদের মাঝে আমার নিজেকে ভীষন বেমানান লাগতো, অরবিন্দ আর তার বন্ধু আমাকেও ঐ রকম ভাবে তৈরি করেছিল। কিছু দিন বাদে আমিও ঐ সব পার্টিতে গিয়ে ওদের সঙ্গ উপভোগ করতে শুরু করি। ওখানে সব রকম নেশার ব্যাবস্থা থাকতো। এই সব পার্টিতে যেতে যেতেই আমার দিনে ৯-১০ টা সিগারেট খাবার বদ অভ্যাস হয়ে যায়। বেশির ভাগ দিনই এইসব পার্টির শেষে কারোর না কারোর বিছানায় যেতেই হতো প্রভাবশালী ব্যক্তির শরীরের জ্বালা মেটাতে। অরবিন্দ এর সব বন্ধুরাই ছিল ধনী আর নারী বিলাসী, তাই আমার মতন সুন্দরী সেলেব নারীর পিছনে ওরা বিস্তর টাকা ওরাতো। আমার ক্রেডিট কার্ডের বিল ও মেটাতো।

কিন্তু মাঝে মাঝে ওদের দুষ্টুমি মার্কা সব আবদার মেটাতে মেটাতে আমি ক্লান্ত হয়ে পড়তাম, আসলে ওরা রাতে আমাকে ঘুমাতে দিত না। যদিও কিছুদিন ফার্ম হাউসে যাতায়াত করতে করতে এদের সাথে রাত জাগার অভ্যাস হয়ে যায়। অরবিন্দ রা যেকোনো উপলক্ষ্য সেলিব্রেট করতে পার্টি এরেঞ্জ করতো। ওদের সাথে থাকতে থাকতে আমি আরো বেশি লেট নাইট পার্টি টে অংশগ্রহণ করতে শুরু করি। প্রতি সপ্তাহে অন্তত দুটো করে পার্টি আমাকে যেতেই হত। এই সব পার্টি টে মডার্ন আল্ট্রা ফ্যাশন ড্রেস কোড মানতে হতো, যার ফলে আমার পরনের পোশাক ও ক্রমাগত ছোটো হতে শুরু করে। অরবিন্দ এর সাথে লিভ ইন শুরু করার এক মাসের ভেতর আরো অনেক পুরুষ আমার বিছানা অবধি আসার সুযোগ পায়।

কখনো জেনে আবার কখনো নেশায় বুদ হয়ে ওদের কে বিছানায় নিয়ে এসে মেতে উঠতাম। অরবিন্দ এর সব চেয়ে প্রিয় বন্ধু যে ছিল তাকে মনোরঞ্জন করতে আমাকে প্রায়শই ফার্ম হাউস যেতে হতো, ওখানে গিয়ে রাত কাটালে আমার শরীরে ওদের নখ এর আঁচড় এর দাগে ভরে যেত। একবার নেশায় মত্ত হয়ে গেলে ওদের সঙ্গে জানোয়ার এর কোনো তফাত থাকতো না। অরবিন্দ এর ঐ ধনী বন্ধু কয়েক দিন এর মধ্যেই আমার নিয়মিত শয্যা সঙ্গী তে রুপান্তর হয়। আস্তে আস্তে অরবিন্দ দের সাথে এমন ভাবে জড়িয়ে ছেলের জন্মদিনে বাড়ি ফেরা পর্যন্ত ক্যান্সেল করতে হয়েছিল অরবিন্দ এর কথায় ওদের বন্ধুদের একটা পার্টির আমন্ত্রণ রাখতে।

অরবিন্দের বন্ধু অবশ্য আমার বাড়ি না ফেরার ঘাটতি অর্থ আর দামী গয়না দিয়ে পুষিয়ে দিয়েছিল। আস্তে আস্তে নিজের অ্যাপার্টমেন্টে র ভিতরেও নানা নিষিদ্ধ মাদক এনে, নেশা করতে শুরু করলাম। এই নেশার ফাঁদে পা দিয়ে অরবিন্দ কথায় জীবনে প্রথম বার ছেলের জন্মদিন এ আমি ওর সাথে থাকতে পারলাম না, এর জন্য আমার পরিবার আমাকে ক্ষমা করলো না। আমাদের মাঝে দূরত্ব আরো বেড়ে গেছিল ছেলের জন্মদিনে বাড়ি না ফেরার ফলে। আমি মানষিক অস্থিরতায় ভুগতে শুরু করি।

মানষিক আক্ষেপ দুর করতে আমি অরবিন্দের পরামর্শে আরো বেশি করে নেশায় আর ব্যভিচারে নিজেকে ডুবিয়ে রাখা আরম্ভ করি, অরবিন্দ এর সঙ্গ আর এই নানাবিধ নেশা আর বিলাসিতার কারণে নিজের আপনজনদের থেকে এতটাই দূরে সরে যাই যে ছেলে আর স্বামীর কাছে ফিরে যাবার পথ ও ধীরে ধীরে বন্ধ হয়ে যায়। অরবিন্দ এর সঙ্গে থাকতে থাকতে আমি সম্পূর্ণ পাল্টে গেছিলাম। আমি যে ভাবে অবাধ যৌনতা, দুরন্ত তরল ও শুকনো নেশা, আর লাগামহীন বিলাসিতা টে অভ্যস্ত হয়ে পড়ছিলাম।

আমার পক্ষে যে স্বাভাবিক সুস্থ জীবনে ফেরা প্রায় অসম্ভব ছিল সেটা অরবিন্দ এর সঙ্গে থাকতে থাকতে ভালো মতন টের পেয়ে গেছিলাম। আমি মুম্বাই টে সেটেল করবার মতন সিদ্ধান্ত নিয়ে ফেলি। কন্ট্রাক্ট নবিকরণ করার পর, আমার কাজের নেচারে বদল এসেছিল, আমার সৌন্দর্য কে আরো বেশি এক্সপোজ করার সিদ্ধান্ত নেওয়া হয় প্রোডাকশন এর তরফে। আরো একটা টিভি সিরিজে আমি অভিনয় করা শুরু করি একটা অন্যরকম রঙিন আধুনিকা নারীর চরিত্রে। এই সময় থেকে, আমার পোশাকের ব্যাপারে, মডেলিং কন্টেন্ট বাছাই এর বিষয়ে অনেক টা সাহসী হয়ে উঠছিলাম।

অরবিন্দ এর পরিচিত সার্কেল এর বেশ কিছু অ্যাডাল্ট কমার্শিয়াল অ্যাডে কাজ করলাম, তার মধ্যে বিখ্যাত , নাইট ড্রেস প্রস্তুকারক সংস্থা, sensual Body oil, innerwear ছিল, পান মশলা ইত্যাদি ছিল। এই প্রত্যেক টা অ্যাডে আমাকে ক্যামেরার সামনে ভালো মতন শরীর দেখাতে হয়েছিল। দুইমাস অরবিন্দ এর সঙ্গে চুটিয়ে লিভ ইন করে আমি ওর আর ওর বন্ধু দের সঙ্গে ব্যাঙ্কক বেড়াতে গেছিলাম, স্বামী কে মিথ্যে কথা বলে অন্ধকারে রেখে, যদিও আমার বর আমার আর অরবিন্দ এর সম্পর্কের বিষয় টা রেভ পার্টির পিস লিক হয়ে যাওয়ার পরেই আন্দাজ করেছিল। আমিও ওকে এর বিষয়ে কোনো সাফাই দিয়ে আমাদের সম্পর্ক আগের মতন আছে এরকম মিথ্যে প্রতিশ্রুতি দি নি, বরংচ দূরে থাকতে থাকতে অনেক টাই যে মানষিক ভাবে বরের থেকে দূরে সরে গেছি এই সত্য টা না চাইতেই আমার ব্যাবহারে প্রকাশ পেয়েছে।

ব্যাংকক ট্রিপ থেকে ও আর আমার সাথে যৌনতা করার সময় প্রটেকশন নেওয়া বন্ধ করে দেয়। ওখানে গিয়ে আমি শালীনতার সমস্ত বাধা অতিক্রম করে সম্পূর্ণ নষ্ট নারীর মতন আচরণ করতে শুরু করি। অরবিন্দ এর কাছের বন্ধু দের ৭-৮ জনের একটা কোর গ্রুপ এই ব্যাঙ্কক ট্রিপে গেছিল। ওখানে গিয়ে পৌঁছানো মাত্র আকন্ঠ মদ পান করে অরবিন্দ ও তার বন্ধু দের সঙ্গে পালা করে আদিম ক্রীড়ায় মেতে উঠি। অবাধে গ্রুপ সেক্স ও করি, তারপর সকালে শরীরের ক্লান্ত মাসল গুলো কে একটু আরাম দিতে ওখানকার থাই ম্যাসাজ পার্লারে ফুল বডি ম্যাসাজ নি, অরবিন্দ এর আবদার মেনে আমার গোপন অঙ্গ টে সেই দিন ই একটা প্লে বয় ট্যাটু ও করাই, ব্যাংককে যে ফাইভ স্টার রিসোর্টে আমরা ছিলাম, সেখানে দুই বেলা অরবিন্দ এর সঙ্গে একসাথে শাওয়ার নেওয়া আমার রুটিন হয়ে যায়।

এছাড়া ওখানে গিয়ে প্রথম বার জাকুজির ভিতরে গরম জল করে তার মধ্যে অরবিন্দ ও তার এক বন্ধুর সঙ্গে যৌন সঙ্গমে লিপ্ত হই। ঐ ট্রিপে আমার হাজার বার বলা সত্ত্বেও অরবিন্দ আমার সাথে শোওয়ার সময় একটি বারের জন্য ও প্রটেকশন নিল না। যার ফল আমি দেড় মাস বাদে আমার জীবন দিয়ে মেটালাম। অরবিন্দ এর সাথে ব্যাংককে ছুটি কাটানোর কিছু প্রাইভেসি ছবিও কিভাবে যেনো লিক হয়ে, প্রিন্ট মিডিয়া টে ছাপা হয়েছিল। যা আমার বিরম্বনা কয়েক গুন বাড়িয়ে দিয়েছিল।

ব্যাংকক ট্রিপের শেষ দিন অরবিন্দ আমার সন্মান এ স্পেশাল ক্যান্ডেল লাইট ডিনার এর আয়োজন করে, সেখানে অরবিন্দ আমাকে অবাক করে ডিরেক্ট প্রপোজ করে ফেলে। আমি এই আকস্মিক প্রোপোজ এ সম্পূর্ণ হচকিত হয়ে যাই। অরবিন্দ আমাকে ভাবার বেশি সময় না দিয়ে, মুম্বাই ফিরে একটা পার্টি এরেঞ্জ করে হল ভর্তি লোকের সামনে আমাকে এনগেজমেন্ট রিং পরিয়ে দিয়ে আমাদের সম্পর্ক টা আস্তে আস্তে প্রকাশ্যে নিয়ে আসে। এই খবর আমার স্বামীর মতন ব্যাক্তি সহজ ভাবে সহ্য করতে পারে নি। যতই দূরে সরে থাকি বিশ্বস্ত লোক মারফৎ নিজের স্বামী পুত্রের খবর আমি রাখতাম।

অরবিন্দ আমাকে না জানিয়ে এনগেজমেন্ট রিং পোড়ানোর ফলে আমি যত না অবাক হয়েছিলাম, তত বেশি উদ্বেগে ছিলাম আমার স্বামী এই খবর টা শোনার পর কি ভাবে রিএক্ট করে সেটা নিয়ে। আমি আমার বিশ্বস্ত লোক মারফত যা খবর পাই সেটা আমার চিন্তা বাড়ানোর পক্ষে যথেষ্ট ছিল। আমার স্বামীর এই নিউজ শোনার পর থেকেই ওর মধ্যে একটা পরিবর্তন আসে। আমাকে হারিয়ে ফেলবার হতাশা ঢাকতে সেও ফাইনালি তার আদর্শ থেকে সরে আসে, চাকরি ছেড়ে ব্যাবসা আরম্ভ করে, শুধু তাই না, মদ্যপান শুরু করে আর এক বাজে বন্ধুর পাল্লায় পরে এক বেশ্যার সঙ্গে শারীরিক সম্পর্কে লিপ্ত হয়ে পড়ে।

আমার স্বামীর এই খবর টা শুনে আমি ভীষন দুঃখ পেয়েছি লাম, সব কিছু ছেড়ে ছুড়ে মুম্বাই থেকে আমার বরের কাছে আমার আগের জীবনে ফিরতে পর্যন্ত চেয়েছিলাম কিন্তু একটা অপ্রত্যাশিত ঘটনা আমার জীবন কে এমন ভাবে নাড়িয়ে দিল যে সেই সময় মুম্বাই ছেড়ে নিজের প্রকৃত আপনজন দের কাছে ফেরা সম্ভব হলো না।

মান্থলি হেলথ চেক আপ করতে ডাক্তারের কাছে গেলে, উনি আমার শরীরের কিছু লক্ষণ দেখে উদ্বেগ প্রকাশ করলেন। ওনার কথা মত কিছু টেস্ট করে জানা গেলো আমি এক মাসের প্রেগনেন্ট। এই খবরের জন্য আমি মানষিক ভাবে প্রস্তুত ছিলাম না। মুম্বাই টে আমার চেনা পরিসরে আমার ভালো যারা চাইতো রবি জী, রমেশ স্যার এরা আমাকে এবর্শন করে নিতে পরামর্শ দিচ্ছিল। অরবিন্দ মোটেই আমার জন্য আর ঐ বাচ্চার জন্য রাইট অপশন ছিল না।

কেরিয়ারের মধ্য গগনে বাচ্চা হওয়া মানে কাজের মূল ক্ষেত্র থেকে কয়েক মাসের জন্য সরে যাওয়া। এটে অরবিন্দ এর কোনো ক্ষতি হবে না কিন্তু আমার সেরা সময়ের থেকে গুরুত্বপূর্ণ কটা মাস বাদ চলে যাবে। তাছাড়া ঐ বাচ্চার জন্য আমি সেই সময় প্রস্তুত ও ছিলাম না। তাই সব কিছু ভালো মন্দ চিন্তা করে, নিজের মন কে শক্ত করে গর্ভ পাত এর জন্য প্রস্তুতি ও নিয়েছিলাম। কিন্তু আমার পেটে আমার যে লিভ ইন পার্টনার অরবিন্দ এর বাচ্চা এসেছিল।

সে এই বাচ্চাটা নিয়ে একটু বেশি ই পসেসিভ ছিল। আমার হাজার বোঝানো সত্ত্বেও অরবিন্দ কিছুতেই আমাকে এবরশন নিতে দিল না। ইমোশনাল ব্ল্যাকমেইল করে বাচ্চা টা নষ্ট করা আটকালো। একই সাথে অরবিন্দ আমাকে আমার পুরোনো বিবাহিত জীবনে ফেরত আসা স্থগিত করে দিল। আমার সাইন করা লং টার্ম কন্ট্রাক্ট আর এই বাচ্চাটা কে ঢাল করে মুম্বাইতে থেকে যাওয়া সুনিচ্ছিত করলো। এই ভাবে আমি মুম্বাই টে অনির্দিষ্ট কালের জন্য আটকা পড়ে গেলাম।

What did you think of this story??

Comments

Scroll To Top