হয়তো তোমারই জন্য – ৪

(Hoito Tomaori Jonyo - 4)

আজ দিয়ার মাধ্যমিক পরীক্ষা শেষ হল। হাঁপ ছেড়ে বাঁচল বেচারি। শেষ তিন মাস নাওয়া খাওয়ার কথাও ভুলে গেছিল মেয়েটা। খালি বইয়ে মুখ গুঁজে ছিল।

এই ক মাস অনিন্দ্যর সাথেও দেখা করা হয়নি। অনিন্দ্যই অবশ্য বারন করেছিল। দিয়ার পড়াশোনাতে বিন্দুমাত্র ক্ষতি হোক চায়নি অনিন্দ্য।

শেষ দেখা হয়েছিল পরীক্ষা শুরুর এক সপ্তাহ আগে। সেদিনই টিউশনির শেষ দিন ছিল। যাবার পথে নয় ফেরার পথে এসেছিল অনিন্দ্য। দিয়াকে পরীক্ষার শুভেচ্ছা জানিয়ে একটা দামি পেন উপহার দিয়েছিল।

সেই কলম দিয়েই পরীক্ষা দিয়েছে দিয়া। আর সেই জন্যই কিনা কে জানে দিয়ার পরীক্ষা অসম্ভব ভালো হয়েছে।

পরীক্ষার পরের দিন বিকেলে বান্ধবীর বাড়িতে যাবার নাম করে অনিন্দ্যর সাথে দেখা করল দিয়া। সেই নদীর পাড়ে। সেই হোগলার ঝোপে। এটাই ওদের প্রেম করার নির্দিষ্ট জায়গা হয়ে গেছে।

জায়গাটা খুব মিস করছিল দিয়া এতদিন। প্রথমবার এসে যেমন রোমাঞ্চ হয়েছিল আজও সেরকমই হচ্ছে।
মাঝে আরো কয়েকবার এসেছে ওরা এখানে।

প্রথমবার আসার প্রায় একমাস পরে এসেছিল। যদিও মাঝে একবার বলেছিল অনিন্দ্য কিন্তু দিয়া অজুহাত দিয়ে এড়িয়ে গিয়েছিল। ইচ্ছে করেই। মাঝে ওই একমাসের গ্যাপটা না থাকলে দিয়ার পক্ষে মুশকিল হয়ে যেত নিজেকে সামলানো।

একমাস পরে যেদিন এসেছিল সেদিন ছোট্ট করে চুমু দেওয়া নেওয়া করেছিল ওরা। অনিন্দ্য আর এগোয়নি। দিয়াও চায়নি।

অনিন্দ্যর এই স্বভাবটাই দিয়ার সব থেকে ভালো লাগে। দিয়ার ইচ্ছে অনিচ্ছেকে যথেষ্ট সম্মান দেয় অনিন্দ্য। কখনো জোর করেনা কোন কিছুতে। পরের বার গুলোতেও শুধু চুমুই হয়েছিল।

আজ যখন নদীর পাড়ে এসে বসল দুজনে তখন বিকেলের মধ্যসময়। নদীর বুকে সূর্যের অস্তরাগের খেলা চলছে। নদীর জলে মায়াবী আলোর ছটা। প্রথমে হলুদ, তারপর লাল, তারপর গোলাপী।
মুগ্ধ চোখে দুজনেই চেয়েছিল সেদিকে।

নীরবতা ভেঙে দিয়া বলল কি সুন্দর তাই না!
অনিন্দ্য বলল ঠিক তোমার মত।
ধ্যাত। লজ্জা পেল দিয়া। তোমার না খালি ওই।
ভুল বলেছি? জানতে চায় অনিন্দ্য।
জানিনা যাও। রহস্য করে বলে দিয়া।

দিয়ার হাতে হাত রাখল অনিন্দ্য। জিজ্ঞেস করল পরীক্ষা কেমন হল?
– দুর্দান্ত। খুব ভালো হয়েছে।
– তাহলে মিষ্টি মুখ করাবে না?
– সে তো রেজাল্ট বেরোলে।
– হুমম তখন তো করাবেই। আর এখন ভালো পরীক্ষার জন্যও মিষ্টিমুখ করাতে হবে।
– আচ্ছা। খাইয়ে দেব।
– খাওয়াও
– এখন কি সাথে নিয়ে এসেছি নাকি?
– মিষ্টি তো তোমার সাথেই আছে
– মানে? অবাক হয়ে জানতে চায় দিয়া।

দিয়ার শরীর ঘেঁষে অনিন্দ্য বলে তোমার ঠোঁটগুলোই তো মিষ্টি।

অনিন্দ্যর দুষ্টুমি বুঝে হেসে ফেলে দিয়া। চোখ পাকিয়ে বলে অসভ্য। খালি বদমাইশি বুদ্ধি।

অনিন্দ্য কোমর ধরে কাছে টানলো দিয়াকে। অনিন্দ্যর জামা খামচে ধরে ওর ঠোঁটে ঠোঁট ডুবিয়ে দিল দিয়া।

অনেকদিনের অভুক্ত ঠোঁট। অনিন্দ্য তৃষিত হয়ে ছিল। তৃষিত ছিল দিয়াও। আজ সব সুদে আসলে উশুল করে নিতে চায় দুজনেই।

দুহাতে অনিন্দ্যকে জড়িয়ে ধরে নিজের শরীরের ভর ছেড়ে দিল দিয়া। অনিন্দ্যর হাত দিয়াকে বেষ্টন করে আঁকড়ে ধরল। মিশিয়ে নিল নিজের শরীরের সাথে। দিয়ার শরীর থেকে মিষ্টি একটা গন্ধ আসছে। সে গন্ধ কোন সুগন্ধীর নয়। এ গন্ধ প্রেমের গন্ধ। ভালোবাসার গন্ধ। কাম উত্তেজনার গন্ধ।

অনিন্দ্যর শরীরের ওম দিয়াকে আরো উত্তেজিত করে তুলল। শরীরে শিহরন বয়ে যেতে লাগল। দিয়া কামড়ে ধরল অনিন্দ্যর ঠোঁট। ছিঁড়ে নেবে যেন।

নরম বুকটা অনিন্দ্যর কঠিন বুকে ঘষা খাচ্ছে। নিজেকে আরো ঠেসে ধরল দিয়া। অনিন্দ্যর হাত ঘুরছে দিয়ার পিঠে কোমরে। ভীষন ভালো লাগছে। শিরশির করছে। প্যান্টি ভিজে যাচ্ছে টের পেল দিয়া।

দিয়ার গালে, গলায়, ঘাড়ে, কানে চুমু খাচ্ছে অনিন্দ্য। আরামে দিয়ার মুখ থেকে উমম আওয়াজ বেরিয়ে আসে। অনিন্দ্যর ঠোঁটের স্পর্শ আরো বেশি করে পাবার জন্য মুখটা ওপরে তুলে দেয় দিয়া।

দিয়ার নরম শরীরের স্পর্শে অনিন্দ্যর পৌরুষ জেগে উঠছে। নিজের দুপায়ের ফাঁকে কাঠিন্য অনুভব করে অনিন্দ্য। নিজের বুকে দিয়ার বুকের ছোঁয়া ভীষন ভালো লাগছে। কি নরম। তুলতুলে।

থাকতে না পেরে বলেই ফেলল অনিন্দ্য। দিয়ার কানের লতিতে কামড় দিয়ে ফিসফিস করে বলল কি নরম তোমার বুকটা।
কেঁপে উঠল দিয়া। ভয়ে নয়, লজ্জায় নয়। উত্তেজনায়।

অনিন্দ্য চুমু খাচ্ছে গলায়। তারপর একটু নীচে। আরেকটু নীচে। এক মুহূর্তের জন্য থামল অনিন্দ্য। তারপর মুখ গুঁজে দিল দিয়ার স্তন বিভাজিকায়। কুর্তির ওপর দিয়েই ঘষতে লাগল মুখ।

উত্তেজনায় অনিন্দ্যর মাথার চুল খামচে ধরল দিয়া। দুপায়ের ফাঁকে শিরশির করে উঠল। মুখ দিয়ে অস্ফুটে আওয়াজ বেরোল ‘আহহ অনিন্দ্য’।

অনিন্দ্য এখন দিয়ার যৌবনপুষ্ট পদ্মফুলে মুখ চেপে ধরেছে। দিয়া চেপে ধরল ওর মাথাটা নিজের বুকে। আলতো করে কামড়াচ্ছে অনিন্দ্য। ভীষন সুখ হচ্ছে দিয়ার। পাল্টা পাল্টি করে স্তনদুটোকে কামড়াচ্ছে অনিন্দ্য। দিয়া আজ কোন বাধা দিচ্ছেনা।

পাগল প্রেমিকের আদরে গলে গিয়ে পেছনে হেলে পড়েছে দিয়া। অনিন্দ্যর একহাত দিয়ার কোমর জড়িয়ে ধরে আছে। নাহলে হয়তো শুয়েই পড়ত দিয়া।

অনিন্দ্যও সেটাই চাইছিল মনে হয়। দিয়ার কোমর থেকে হাত সরিয়ে বুকদুটো কামড়াতে কামড়াতে আলতো করে ঘাসের উপর শুইয়ে দিলো।

ঘাসের নরম বিছানায় শায়িত দিয়ার পাশে আধশোয়া হয়ে দিয়ার ঠোঁটে আবার ঠোঁট ডুবিয়ে দিল অনিন্দ্য।
দিয়া দুহাতে ধরল অনিন্দ্যর মাথা। চেপে রাখল নিজের ঠোঁটের ওপর।

অনিন্দ্যর একটা হাত ঘুরে বেড়াচ্ছে দিয়ার শরীরে। পেটে, কোমরে, জাং এ। নিজের শরীর সম্পূর্ন আলগা করে দিল দিয়া। গলায় চুমু খেতে খেতে হাতটা দিয়ার স্তনে রাখল অনিন্দ্য।

স্তনে হাত পড়তেই উত্তেজনায় দিয়ার পিঠ মাটি থেকে উঠে গেল সামান্য। বুকদুটো আরো উঁচিয়ে উঠল। জোরে শ্বাস নিতে লাগল দিয়া।
অনিন্দ্যর আর কোনদিকে হুঁশ নেই। পৃথিবীর অষ্টম আশ্চর্য এখন তার হাতে। নরম তুলতুলে তুলোর বলগুলো দলিত মথিত করছে। দিয়ার স্তন যত নিষ্পেষিত হচ্ছে ততই অনিন্দ্যর পুরুষ দন্ড কঠিন হয়ে যাচ্ছে।

অনিন্দ্যর ঘাড় দুহাতে জড়িয়ে ধরে রেখেছে দিয়া। সুখের আতিশয্যে গলে যাচ্ছে তার শরীর। প্যান্টির সাথে সাথে লেগিংসটাও ভিজছে।
দিয়ার পাশে শুয়ে পড়ল অনিন্দ্য। দুজনে পাশ ফিরে মুখোমুখি। দিয়ার চোখে চোখ রেখে স্তন খামচে ধরল অনিন্দ্য। সামান্য ব্যাথা পেল দিয়া। কিন্তু সেই ব্যথাতেও অসহ্য সুখ।

অনিন্দ্যর শরীরে হাত বোলাতে লাগল দিয়া। পিঠে, মাথায়, ঘাড়ে, গলায়। জামার দুটো বোতাম খুলে দিয়ে হাত বোলাতে লাগল বুকে।
দিয়ার ডান স্তন দাঁত দিয়ে আলতো করে কামড়ে ধরল অনিন্দ্য। নিজের বুকে ব্যস্ত দিয়ার হাতটা ধরে নামিয়ে আনল নীচে। রেখে দিল নিজের পুরুষাঙ্গের ওপর। আর নিজের হাত রাখল দিয়ার বাম স্তনে।

এক মুহূর্ত ইতস্তত করল দিয়া। তারপর খামচে ধরল প্রেমিকের কঠিন দন্ড জিন্সের ওপর থেকে। আরো শক্ত হয়ে উঠল অনিন্দ্য। দিয়ার নরম হাতের প্রেমময় ছোঁয়ায় পূর্ন রূপ ধারণ করল তার পৌরুষ।

মুহুর্মুহু গলছে দিয়া। ক্ষণে ক্ষণে তার দুপায়ের ফাঁকে বিস্ফোরণ হচ্ছে। প্যান্টি লেগিংস ভিজে একাকার। এতটাই ভিজেছে যে তার যোনি নিঃসৃত কাম তরলের গন্ধ নিজেই পাচ্ছে দিয়া।

অনেকক্ষন ধরেই গরম হয়ে ছিল অনিন্দ্য। দিয়াকে আদর করতে করতে নিজেও উত্তেজনার চরম সীমায় পৌঁছে গেছিল। এখন দিয়ার নরম হাতের ছোঁয়া পেয়ে আর নিজেকে ধরে রাখতে পারলনা সে। অন্তর্বাসের ভেতরেই ফেলে দিল পুং বীজ । সেই মুহূর্তে দিয়াকে নিবিড় ভাবে আঁকড়ে ধরেছিল অনিন্দ্য। দিয়ার কোমর ধরে নিজের কোমরের সাথে মিশিয়ে নিয়েছিল। অনিন্দ্যর কাঠিন্য নিজের উরুসন্ধিতে অনুভব করে দিয়াও ঝরে গেল আবার।

এতক্ষন যেন উদ্দাম ঝড় বইছিল ওদের মধ্যে। এবার বৃষ্টি পড়ে শান্ত হল। চিৎ হয়ে শুয়ে হাঁপাতে লাগল দুজনেই। কিছুক্ষন পরে স্বাভাবিক হলে পাশ ফিরল অনিন্দ্য। আস্তে করে ডাকল – দিয়া

চোখ বন্ধ করে শুয়েছিল দিয়া। যৌবন সুখের আবেশে আজ সে মাতাল। পাশ ফিরল দিয়া। চোখে মুখে পরিতৃপ্তির ছাপ স্পষ্ট।
দিয়ার চুলে হাত বুলিয়ে অনিন্দ্য বলল ভালো লেগেছে তোমার?
অনিন্দ্যর খোলা বুকে হাত রেখে দিয়া বলল ভীষন।

দিয়াকে কাছে টেনে অনিন্দ্য জিজ্ঞেস করল তোমার হয়েছে??
কি? জানতে চাইল দিয়া।
ওই যে ওই সময় মেয়েদের যেটা হয়। অর্গ্যাজম। ফিসফিসিয়ে বলল অনিন্দ্য।
লাজুক হাসল দিয়া। তারপর অনিন্দ্যর গালে একটা চুমু দিয়ে বলল হ্যাঁ। তোমার?

আমারও। তোমার হাতের ছোঁয়ায় আর ধরে রাখতে পারিনি নিজেকে। অকপটে স্বীকার করল অনিন্দ্য।
আকাশের দিকে তাকিয়ে দিয়া বলল সন্ধ্যে হয়ে এসেছে। এবার ফিরতে হবে।
যেতে ইচ্ছে করছেনা একদম। দিয়ার গালে চুমু দিয়ে বলল অনিন্দ্য।
আমারও। আদুরে গলায় বলল দিয়া। ইচ্ছে তো করছে আরো কিছুক্ষন থাকি। কিন্তু অন্ধকার হয়ে গেছে যে।

ঠিক কথা। উঠে পড়ল অনিন্দ্য। হাত ধরে টেনে তুলল দিয়াকে। কোমর জড়িয়ে ধরে আজকের শেষবারের মত ঠোঁটে ঠোঁট রাখল। নিজের রসালো ঠোঁট দিয়ে অনিন্দ্যর ঠোঁট ভিজিয়ে দিল দিয়া।

বাড়ি ফেরার পথে অনিন্দ্য জিজ্ঞেস করল তুমি মোবাইল কবে নিচ্ছ? মাধ্যমিকের পর নেবে বলেছিলে যে?
আজকেই বলব বাবাকে। জানায় দিয়া। ফোন পেয়ে প্ৰথম কলটা তোমাকেই করব।

নিশ্চয়। অনিন্দ্য বলে। আমার নম্বর তো সেই কবেই দিয়ে রেখেছি তোমাকে আর দিন গুনছি কখন তোমার আসবে টেলিফোন।
অনিন্দ্যর কথায় মজা পেয়ে মুক্তোর মত হাসি ছড়িয়ে দেয় দিয়া।

সেদিকে তাকিয়ে অনিন্দ্য বলে তোমার এই হাসির জন্য আমি হাজারবার ফাঁসি যেতে রাজি।
ওই শুরু হল আবার। মুখ ভ্যাংচায় দিয়া।

বাড়ির কাছে এসে দিয়া বলল যাও এবার সোনা ছেলের মত হস্টেলে ফিরে গিয়ে পড়তে বোস। সামনেই তোমার পরীক্ষা।
বাধ্য ছেলের মত মাথা নেড়ে অনিন্দ্য বলল যে আজ্ঞে দিদিমণি। আজ আসি তাহলে। টা টা।
– এসো। টা টা।

বাড়িতে এসে পোশাক ছাড়ার সময় প্যান্টি আর লেগিংসটা দেখল ভালো করে দিয়া। ইসস কি বিশ্রী ভাবে ভিজেছে ওখানটা। এত অসভ্য কেন রে তুই? শুধুতেই ভিজে যাস? নিজের যোনীটাকে মনে মনে তিরস্কার করল দিয়া।
হাত রাখল ওটাতে। এখনো ভিজে ভিজে। ওখানের লোমগুলো ভিজে লেপ্টে আছে।

আয়নার সামনে দাঁড়িয়ে নগ্ন দিয়াকে দেখছিল দিয়া। ফর্সা স্তনদুটো লাল হয়ে আছে। হাত ছোঁয়াল দিয়া। ভীষন আদর পেয়েছে আজ এইদুটো। চটকে কামড়ে শেষ করে দিয়েছে অনিন্দ্য।

সেই মুহূর্তগুলো ভেসে উঠল চোখের সামনে। ইসস কি আদরটাই না আজ করল অনিন্দ্য। আদরে আদরে অস্থির করে তুলেছিল দিয়াকে। এত সুখ পাবে ভাবতেও পারেনি দিয়া। শরীরের খেলায় যে কত সুখ পাওয়া যায় সেটা আজ তাকে চিনিয়ে দিয়েছে অনিন্দ্য।

অনিন্দ্যর বজ্র কঠিন পুরুষদণ্ডের কথা মনে পড়তেই আবার ঘেমে ওঠে দিয়ার উরুসন্ধি। লোহার মত শক্ত ওটা হাতে ধরতেই বিদ্যুতের তরঙ্গ বয়ে গেছিল দিয়ার শরীরে এক অজানা নিষিদ্ধ সুখে।

মহা মুশকিলে পড়ে গেল দিয়া। অনিন্দ্যর আদর আজ তাকে পাগল করে দিয়েছে। আর অনিন্দ্য যখন শেষ মুহূর্তে ওর ওটা চেপে ধরেছিল দিয়ার যোনিতে তখন আর নিজেকে সামলাতে পারেনি দিয়া। সব থেকে বেশি ঝরেছিল ওই সময়েই।

আর যে মন বাঁধ মানছেনা। শরীরটা আরো আদর চাইছে। অনেক অনেক আদর। নিজের সবকিছু অনিন্দ্যকে উজাড় করে দিতে চায় দিয়া। আর বিনিময়ে চায় পাগল করা আদর।

না অনিন্দ্যর কাছে আর কোন লজ্জা নেই তার। নিজের সবটুকু দিয়েই ও ভালোবাসে অনিন্দ্যকে।

What did you think of this story??

Comments

Scroll To Top