হয়তো তোমারই জন্য – ৫

(Hoito Tomaori Jonyo - 5)

দিয়ার ইলেভেনের ক্লাস শুরু হয়ে গেছে। মাধ্যমিকে দারুন রেজাল্ট করার জন্য পিওর সায়েন্স পেতে কোন অসুবিধেই হয়নি।

স্কুল টিউশন নিয়মিত চলছে। আগের থেকে পড়ার চাপ যেমন বেড়েছে তেমনই বেড়েছে টিউশনের সংখ্যা। ম্যাথ, ফিজিক্স, কেমিস্ট্রি তিনটেরই আলাদা টিউশন।

সবকিছুর মাঝে অনিন্দ্যর সঙ্গে প্রেমটাও দিব্যি চলছে। তবে আগের মত আর রোজ দেখা হয়না এখন।

যদিও দিয়ার এখন রোজ সকালেই টিউশন থাকে। আর তিনদিন থাকে বিকেলেও। কিন্তু দিয়াই বলেছে ওকে না আসতে। কারন দিয়া এখন একা টিউশন যায়না। সাথে আরো দুই বান্ধবী থাকে। আর অনিন্দ্যরও ক্লাসের চাপ বেড়েছে। তাই দিয়ার স্কুল ছুটির সময়েও দেখা করতে আসতে পারেনা।

এখন ওদের যত কথা হয় ফোনে। রোজ রাতে শুয়ে পড়ার পর ফোন করে দিয়া। অনর্গল কথা বলে যায় দুজনে। কোন কোন দিন তো সারারাত ধরে কথা হয়। ফোনে ওরা আদরও করে একে অপরকে।

এখন ওদের দেখা হয় শুধুমাত্র যখন ওরা নদীর পাড়ে সেই হোগলা ঝোপে প্রেম করতে যায়। তবে সেটা খুবই কম হয় এখন। হয়তো মাসে একদিন। তার কারন দিয়ার টিউশন একদিন মিস হয়ে যাওয়া মানে অনেকটা পিছিয়ে যাওয়া। আর পড়াশোনার ব্যাপারে ওরা দুজনেই যথেষ্ট সিরিয়াস।

সেই দিনগুলোয় অনিন্দ্য বিকেলে আসে। সেদিন গল্প হয়না। হয় শুধু আদর। যেটুকু সময় ওরা পায় তা আদরেই কাটিয়ে দেয়।

ওদের শারীরিক ঘনিষ্ঠতাও আগের থেকে অনেক বেড়েছে। অনিন্দ্য এখন দিয়ার টপ তুলে খোলা স্তনে আদর করে। ইচ্ছেমত চটকায়। মুখ দেয়। প্যান্টির ভেতর হাত ঢুকিয়ে দিয়ার ত্রিকোণ গুপ্তধনকে আদরে আদরে ভিজিয়ে তোলে।

দিয়াও তাল মেলায় ওর সাথে। অনিন্দ্যর প্যান্টের জিপ খুলে ওর উত্থিত পুরুষাঙ্গ হাতে নিয়ে আদর করে। তারপর একসময় দুজনেই ঝরে যায়।

নদীর পাড়ে এর থেকে বেশি এগোতে পারেনা ওরা। তার কারণ একটাই। ওরকম খোলা জায়গায় ওরা মন খুলে নির্বিঘ্নে মিলিত হতে পারবেনা। আর তাড়াহুড়ো করে ওরা করতে চায়না।

ওরা চায় ওদের প্রথম মিলন যেন খুব রোম্যান্টিক ভাবে হয়। বন্ধ ঘরের মধ্যে। যেখানে ওরা ছাড়া আর কেও থাকবেনা।

মাসে এই একদিন আদরে দুজনের কারোরই মন ভরেনা। দুজনেই আরো পেতে চায়। পরিপূর্ন ভাবে। এক বিকেলে আদর শেষ হবার পর দিয়াই কথাটা তুলল।

দুজনে দুজনকে জড়িয়ে ধরে শুয়েছিল আদরের পর। অনিন্দ্যর মাথায় হাত বোলাতে বোলাতে দিয়া বলল আর যে পারছিনা অনিন্দ্য। এভাবে মাসে একদিন দেখা হওয়াতে আমার মন ভরছেনা।

মন তো আমারও ভরছেনা সোনা। কিন্তু কি করি বলো। দিয়াকে আরো কাছে টেনে নিয়ে বলল অনিন্দ্য।

আমি একটা কথা ভাবছি। দিয়া বলল।
কি বলো? সাগ্রহে বলল অনিন্দ্য।

উঠে বসে দিয়া বলল ধরো তুমি যদি আমাদের বাড়িতে আসো আমাকে পড়াতে?
মানে? কি পড়াব? অবাক হয়ে বলে অনিন্দ্য।

দিয়া বলল দেখো আমি ম্যাথের টিউশন পড়ি ঠিকই। কিন্তু প্র্যাকটিসের জন্য আরেকটা হলে ভালো হয়। তুমি যদি সেই দ্বায়িত্বটা নাও তাহলে কেমন হয়?

আমি যে কখনো কাওকে পড়াইনি দিয়া। ঘাবড়ে গিয়ে বলল অনিন্দ্য।

তাতে কি হয়েছে? ওকে আশ্বস্ত করে দিয়া। তুমিও তো সায়েন্স স্টুডেন্ট। ঠিকই পারবে। এই বাহানায় আমাদের দেখা হবে, কথা হবে আর সুযোগ পেলে আদরও হবে।

পড়ার টেবিলে বসে মন দিয়ে অঙ্ক করছে দিয়া। সামনে গম্ভীর মুখে বসে অনিন্দ্য। সাতটায় এসেছে অনিন্দ্য। এখন আটটা বাজে। একটু আগেই দিয়ার মা চা জলখাবার দিয়ে গেছেন। তারিয়ে তারিয়ে সেগুলোর সদ্ব্যবহার করে অনিন্দ্য এখন মনযোগ সহকারে দিয়ার অঙ্ক করা দেখছে। অঙ্ক করার ফাঁকে ফাঁকে অনিন্দ্যর দিকে তাকিয়ে মুচকি হাসছে দিয়া।

একমাস হল অনিন্দ্য পড়াতে শুরু করেছে। দুদিন আগেই দিয়ার বাবা মাইনে দিয়েছেন তাকে। এই নিয়ে প্রথমে ক্ষোভ ছিল অনিন্দ্যর। দিয়া যখন পড়ানোর কথা বলেছিল তখনই অনিন্দ্য আপত্তি জানিয়েছিল মাইনে নেওয়া নিয়ে। কিন্তু দিয়া বুঝিয়েছিল যে অনিন্দ্য যদি মাইনে না নেয় তাহলে সন্দেহ হবে দিয়ার বাবা মার। অগত্যা মেনে নিয়েছে অনিন্দ্য।

যথেষ্ট যত্ন নিয়েই পড়ায় অনিন্দ্য। সপ্তাহে তিনদিন। সন্ধ্যাবেলায়। পড়ানোর সময় কিন্তু সে দিয়ার প্রেমিক নয়। একজন কঠোর অঙ্ক স্যার। দিয়াও উপভোগ করে ব্যাপারটা। পড়ার ফাঁকে ফাঁকে ওদের নিজেদের কথাও হয়। আর অনিন্দ্যর যাবার সময় দিয়া যখন সদর দরজা বন্ধ করতে যায় তখন অন্ধকারে দুজনে দুজনকে গভীর ভাবে চুমু খেয়ে নেয়।

সাড়ে আটটা বাজল এখন। দিয়ার মা রুমে এসে উঁকি দিয়ে বললেন দিয়া তাহলে আমরা বেরোচ্ছি। সদর দরজাটা বন্ধ করে দিবি আয়। আর পড়া হয়ে গেলে খেয়ে নিস ঠিক সময়ে।
অনিন্দ্য জিজ্ঞেস করল কোথায় গেলেন ওরা?
চেয়ার ছেড়ে উঠতে উঠতে দিয়া বলল বাবার অফিসের গেট টুগেদার পার্টি।

বাবা মা কে টা টা করে দরজা বন্ধ করে দৌড়ে ফিরে এসে অনিন্দ্যর ওপর ঝাঁপিয়ে পড়ল দিয়া। এরকমই একটা দিনের জন্য এতদিন অপেক্ষা করছিল সে। আজ সেই দিন।

অনিন্দ্যকে জাপটে ধরে এলোপাতাড়ি চুমুতে অস্থির করে তুলল দিয়া। অনিন্দ্য তাল সামলাতে পারছিলনা ওর সাথে।

চুমু খাওয়া বন্ধ করে অনিন্দ্যকে টেনে তুলল দিয়া। বিছানার কাছে নিয়ে গিয়ে ধাক্কা দিয়ে শুইয়ে দিল অনিন্দ্যকে। তারপর আবার ঝাঁপিয়ে পড়ল।

প্রাথমিক আকস্মিকতা কাটিয়ে এবার অনিন্দ্যও আঁকড়ে ধরল দিয়াকে। চুমুতে চুমুতে ভরিয়ে দিল ওর সারা মুখ।

অনিন্দ্যর আদরে শিহরিত দিয়া অস্ফুটে গুঙিয়ে বলল আহহ অনিন্দ্য। আজ শেষ করে দাও আমাকে। আদর কর। খুব আদর কর।
দিয়া আজ ভীষন গরম হয়ে আছে। যখন থেকে জেনেছে বাবা মা সন্ধ্যাবেলায় থাকবেনা তখন থেকেই গরম হয়ে আছে।
অনিন্দ্যর হাতটা নিয়ে নিজের বুকে রেখে দিল দিয়া। আর নিজের হাত রাখল অনিন্দ্যর গোপন স্থানে।

দুহাতে দিয়ার উদ্ধত বুকদুটো ভীষন ভাবে চটকাতে শুরু করল অনিন্দ্য। সাথে দিয়ার ঘাড়ে, গলায় অবিশ্রান্ত চুমুর বন্যা বইয়ে দিচ্ছিল।
দিয়া একহাতে অনিন্দ্যর গলা জড়িয়ে ধরে অন্যহাতে বেল্ট আলগা করে প্যান্টের জিপ খুলে দিল। অন্তর্বাসের ওপর দিয়েই হাতের মুঠোয় ধরল অনিন্দ্যর শক্ত হয়ে ওঠা কামদন্ড। আহহ কি সুখ।

অনিন্দ্য বুভুক্ষুর মত কামড়াচ্ছে দিয়ার স্তনদুটো। স্তনবৃন্ত শক্ত হয়ে গেছে। দিয়ার টিশার্ট তুলে দিল অনিন্দ্য। ব্রা খুলে দিয়ে হামলে পড়ল প্রেমিকার নরম বুকে। অস্থির করে তুলল দিয়াকে।

দিয়া পাগল হয়ে যাচ্ছে। আজ সেই দিন। দুজনে অনেক অপেক্ষা করছে এই দিনটার জন্য। খোলা আকাশের নীচে ঘাসের বিছানা থেকে আজ বন্ধ ঘরের বিছানায় শুধু ওরা দুজন।

দিয়ার নরম হাতগুলো অন্তর্বাসের ভেতর থেকে টেনে বার করে আনল অনিন্দ্যর অহংকার। দুহাতের মুঠোয় ধরে আরো জাগিয়ে তুলতে লাগল ওর পৌরুষ।

দুজনের ঠোঁট জোড়া লেগে গেছে। আর হাতগুলো একে অপরের শরীরে ঘুরছে। দিয়ার ট্রাউজার, প্যান্টি টেনে নামিয়ে দিল অনিন্দ্য। হাতের মুঠোয় ধরল দিয়ার নরম সুখ পাখিটাকে।

থাই মেলে দিল দিয়া। সমর্পণ করল নিজেকে। শরীরের গরমে গলছে তার ত্রিভুজ। সে ত্রিভুজ এখন স্রোতস্বীনি। অনিন্দ্যর হাত ভিজে যাচ্ছে সেই স্রোতের ধারায়। তার হাত খুঁজে নিল স্রোতের উৎস। সিক্ত গলিপথে প্রবিষ্ট হল অনিন্দ্যর আঙ্গুল।

সুখে বেঁকে উঠল দিয়া। অনিন্দ্যর আদরে দিশেহারা হয়ে ছটফট করতে লাগল। অনিন্দ্যর মাথা নামিয়ে আনল নিজের বুকে। ঠেসে ধরল স্তনযুগলে।

দিয়ার নরম স্তনে মুখ ডুবিয়ে দিল অনিন্দ্য। চুষে লাল করে দিতে থাকল দিয়ার ঐশ্বর্য। অনিন্দ্যর আঙুলের জাদুতে দিয়ার কাম চরমে উঠে গেছে। সুখের আতিশয্যে এতটাই গলছে দিয়া যে বিছানার চাদর পর্যন্ত ভিজিয়ে ফেলেছে।

চুমু খেতে খেতে নীচে নামছে অনিন্দ্য। আর সুখে কেঁপে কেঁপে উঠছে দিয়ার শরীর। দিয়া এখন সম্পূর্ণ নগ্ন। নিজের যৌবনবতী শরীর প্রেমিকের কাছে নির্দ্বিধায় পুরোপুরি সঁপে দিয়েছে দিয়া।

দুহাতে দিয়ার থাইদুটো ধরে দু থাইয়ের মাঝে মুখ গুঁজে দিল অনিন্দ্য। খসখসে জিভ দিয়ে চাটতে থাকল দিয়ার গুপ্তধন। পা মেলে দিয়েছে দিয়া। আর অনিন্দ্যর মাথার চুল মুঠো করে ধরে আছে। ভীষন আদর করছে অনিন্দ্য। এত সুখ সহ্য করতে পারছেনা দিয়া।

উঠে বসল অনিন্দ্য। খুলে ফেলল নিজের সব আবরণ। দুজনেই এখন আদিম নর নারী। বিছানায় শায়িত নগ্ন দিয়ার শরীর ঢেকে দিল নিজের নগ্ন শরীর দিয়ে। দুহাতে আঁকড়ে ধরল দিয়াকে তারপর ধীরে ধীরে নিজেকে প্রবিষ্ট করতে থাকল দিয়ার মধ্যে।

প্রথম মিলনের যন্ত্রনা দাঁতে দাঁত চেপে সহ্য করতে লাগল দিয়া। যা হয় হোক। আজ শেষ না দেখে ছাড়বেনা সে। যন্ত্রনাবিদ্ধ দিয়াকে দুহাতে বুকে চেপে ধরে চুমু খেতে লাগল অনিন্দ্য। প্রেমিকের স্নেহময় আলিঙ্গন কিছুটা হলেও স্বস্তি দিল দিয়াকে।

জোড় খুলে উঠে বসল অনিন্দ্য। প্যান্টের পকেট থেকে রুমাল নিয়ে পরম যত্নে মুছিয়ে দিল দিয়ার রক্তাক্ত যোনি। হাত বুলিয়ে দিল কিছুক্ষণ। তারপর আবার প্রবেশ করল দিয়ার অভ্যন্তরে।

যতটা সম্ভব মোলায়েম ভাবেই আদর করছে অনিন্দ্য। ধীরে ধীরে ব্যথা সয়ে এল দিয়ার। এবার সুখ পাচ্ছে। ভীষণ সুখ। যত সময় যাচ্ছে সুখের মাত্রা ততই বাড়ছে। অনিন্দ্যকে নিবিড় ভাবে আলিঙ্গন করল দিয়া। উরুদুটো ছড়িয়ে দিল আরো ।

অনিন্দ্য এখন গতিমান। বদ্ধ ঘরে শুধু শীৎকার আর মিলনের শব্দ। সুখে পাগল দিয়া আঁচড়ে কামড়ে অতিষ্ঠ করে তুলল অনিন্দ্যকে। দিয়ার নরম শরীর মথিত হতে লাগল অনিন্দ্যর নীচে।

স্বাভাবিক রমন তার স্বাভাবিক ছন্দেই শেষ হল একসময়। চরম মুহূর্তে দিয়ার শরীর থেকে নিজেকে বিযুক্ত করল অনিন্দ্য। দিয়ার শরীরে ছিটকে পড়তে লাগল অনিন্দ্যর ভালোবাসা।

ক্লান্ত শরীরে পাশাপাশি শুয়ে একে অপরকে জড়িয়ে ধরল দুজনে। বুকভরা ভালোবাসা নিয়ে চুমুর আদান প্রদান চলল কিছুক্ষন। মিলন তৃপ্ত দিয়া মাথা রাখল অনিন্দ্যর বুকে।

দিয়ার পিঠে হাত বোলাতে বোলাতে অনিন্দ্য জিজ্ঞেস করল কেমন লাগল দিয়া?
অনিন্দ্যর ঠোঁটে চুমু খেয়ে দিয়া বলল ভীষন ভালো লেগেছে সোনা। আমি পরিপূর্ণ।
তোমার ব্যথা লাগেনি তো বেশি? শঙ্কিত হয় অনিন্দ্য।
সুখ পেতে গেলে ওটুকু তো সহ্য করতেই হয়। অনিন্দ্যকে আশ্বস্ত করল দিয়া।

দুজনের প্রেমালাপ চলল আরো কিছুক্ষণ। তারপর একসময় দিয়াই বলল এবার ওঠো। তোমাকে ফিরতে হবে। রাত বাড়ছে।
অনিন্দ্য উঠে পোশাক পরতে লাগল। দিয়া উঠলনা। নগ্ন হয়ে শুয়ে থেকেই অনিন্দ্যকে দেখতে দেখতে বলল রুমালটা ফেলে দেবে রাস্তায় কোথাও।

অনিন্দ্য বলল মোটেও না। এটা আমি আর ব্যবহার করবনা। কিন্তু ফেলেও দেবনা। এরকম ভাবেই রেখে দেব আমার কাছে।
ইসস কি জঘন্য। ঘেন্নায় মুখ বেঁকাল দিয়া।

সে তুমি যাই বল। আমাদের প্রথম মিলনের স্মৃতিচিহ্ন হিসেবে এটা থাকবে আমার কাছে। সোজাসাপটা জানিয়ে দিল অনিন্দ্য।
যা খুশি কর। মুখ ঝামটাল দিয়া।

বিছানায় শায়িত দিয়াকে গভীর ভাবে চুমু খেল অনিন্দ্য। দিয়ার স্তনে যোনিতে হাত বুলিয়ে বলল এবার ওঠো সোনা। দরজা বন্ধ করতে হবে তো।

অনিচ্ছা স্বত্তেও উঠল দিয়া। ওভাবেই শুয়ে থাকতে ভালো লাগছিল ওর। তলপেটে চিনচিনে ব্যাথা হচ্ছে। আর ওখানেও যন্ত্রনা হচ্ছে একটু।
জামা কাপড় পরে অনিন্দ্যকে জড়িয়ে ধরে চুমুতে চুমুতে ভরিয়ে দিল দিয়া। তারপর অনিন্দ্যকে বিদায় জানিয়ে সদর দরজা বন্ধ করে এসে শুয়ে পড়ল আবার। সে রাতে ঋতুস্রাব হল দিয়ার।

What did you think of this story??

Comments

Scroll To Top