মুন্নার জীবনের প্রথম অভিজ্ঞতা – ২

(Munnar Jiboner Prothom Ovigyota - 2)

This story is part of a series:

মধু সবিনার অভিজ্ঞতা

মধুর স্মৃতিকথা

মাস দুয়েক আগে রংপুর থেকে বড় আব্বু চাচু আব্বাকে ফোন করলেন যে দুমাসের জন্য মধু মানে আমাকে রংপুর যেতে হবে। আব্বু বললেনমধুর পরীক্ষা শেষ। এখন ওপর ক্লাশে ভর্তি হবে।বড় চাচু খুশি হলেন। বল্লেনতাহলে তো ভালোই হলো। রেজাল্ট হতে ভর্তি হতে দুমাস সময় আছে।আব্বা আমাকে চাচুর বাড়িতে রেখে চলে এলেন। চাচু বললেনমধু ! তুই দুমাস এখানে থাকবি। আমি অফিসের কাজে বাইরে যাবো। চাচীর অফিসেও এতো লম্বা ছুটি দিচ্ছে না। চাচীর বয়স হয়েছে। সেজন্য একা বাড়িতে থাকা ঠিক না। তুই এখন বেশ বড় হয়েছিস। চাচীর দেখাশোনা ভালোই পারবি।

বড় চাচু চাচী দুজনেই চাকরি করে। বাড়িতে মোট দুজন মানুষ। চাচুর দুই মেয়ে শাদি দিয়ে দিয়েছে। ওরা রাজসাহী বিক্রমপুরে থাকে। চাচু পরদিন সব বুঝিয়ে দিয়ে চলে গেলো। চাচীর বয়স পঞ্চাশ হবে। দেখতে সুশ্রী শ্যামবর্ণ। স্বাস্থ্যবতী। মাঝারি লম্বা।বয়েসের জন্য কোমরে মেদ জমেছে। লাবণ্যময়ী। সামান্য হাই ব্লাড প্রেসার ছাড়া কোন অসুখ নেই। মুখটা আকর্ষনীয় বাৎসল্যরসে ভরা। এখানেই কলেজে পড়ায়। কোনদিন সকালে ক্লাশে যায়, কোনদিন বিকালে। শুনেছি ছোটবেলায় আমাকে কোলে পিঠে করে মানুষ করেছে।

চাচী আমাকে চাচুর রুমে নিয়ে এলেন বল্লেনএটা তোর চাচার রুম। উনি গত দশ বছর থেকে এখানেই আলাদা ঘুমান। তুই সারাদিন এখানেই পড়াশোনা বিশ্রাম করবি।চাচীর সকালে ক্লাশ। তাই সকালের খাবার দিয়ে কলেজে যাবার আগে বললেনদুপুরে আমি ফিরলে একসাথে দুপুরের খাবার খাবো

আমি সকালের খাবার খেয়ে বাসন মেজে ধুয়ে রাখলাম। তারপর বই নিয়ে চাচার রুমে পড়তে বসলাম। কখন ঘুমিয়ে পড়েছিলাম জানি না। চাচীর ডাকে ঘুম ভাঙলো। চাচী বললোদেড়টা বাজে। স্নান করে খাবি আয়।আমি জল্দি বাথরুমে ঢুকে গেলাম। দেখি চাচী সাবান আর গামছা নিয়ে দাঁড়িয়ে আছে। বল্লেনগায়ে ময়লা জমে আছে। চল সাবান ঘষে স্নান করিয়ে দিই।চাচী মাষ্টারি করেন। আমার লজ্জা করলেও মানা করতে ভয় পেলাম। চাচীর কাছে গামছা নিয়ে তাড়াতাড়ি কোমরে জড়িয়ে পেন্ট খুলে রাখলাম। চাচী আমাকে নিয়ে বাথরুমে ঢুকলো। গায়ে জল ঢেলে সাবান মেখে দিলেন। বুকে, পিঠে, কোমরে, উরু তে সাবান মাখলেন। খোসা দিয়ে ঘষে ময়লা তুলে দিলেন।

বল্লেনদেখ। গা থেকে কী বেরোচ্ছে? এগুলো নিয়ে ঘুমাবি কী করে? ‘ আমি লজ্জা পাচ্ছিলাম কারণ চাচীর সাবান লাগানো হাত আমার গালে, সদ্য গজানো হালকা কালো গোঁফের রেখায়,,তলপেটের হালকা লোমের উপর ঘোরা ফেরা করছিল। আমার নুনু উত্তেজিত বড় খাড়া হয়ে ভিজে গামছার ভিতর মাথা তুলছিল। চাচী ওসব দেখছিল কিনা জানি না, কিন্তু চাচীর চোখ আমার শরীরের ময়লা তন্ন তন্ন করে খুঁজে পরিস্কার করছিল। চাচী আমার পেছনের গামছা তুলে পাছা কোমরে সাবান ঘষে দিচ্ছিল।চাচীর হাত এক সময় পেছন থেকে আমার উরুর ভেতর দিয়ে আমার অণ্ডকোষ বা লিঙ্গের ঠিক নিচে ঘষে ঘষে সব ময়লা পরিস্কার করে দিচ্ছিল। শেষে চাচী আমাকে বকতে বকতে গামছা খুলে নিল। বললোএতো বড় হয়েছিস। তবু পরিস্কার পরিচ্ছন্ন থাকতে শিখিস নাই।আমি পুরো নেংটা। আমার নুনু শক্ত হয়ে খাড়া দাঁড়িয়ে আছে। আমি দুই হাতে ঢাকতে চেষ্টা করলাম। চাচীর ধমক খেয়ে হাতে সরিয়ে নিলাম

চাচীর ধমক খেয়ে হাতে সরিয়ে নিলাম। চাচী বললোথাক। লজ্জা করতে হবে না। ছোট থেকে তোকে কত নেংটা দেখেছি। কোলে নিয়ে দুধ খাইয়েছি। এখন আবার লজ্জা!’

চাচী বাঁ হাত দিয়ে আমার নুনু টা ধরলো। নুনু শক্ত হয়ে ইঞ্চি লম্বা দু ইঞ্চি মোটা হয়ে দাঁড়িয়ে আছে চাচী ভালো করে নুনুটা দেখলো। নুনুর ওপরে বেদীতে তখন কালো কালো চুল হয়েছে। চাচী ওখানের চুলে সাবান মেখে দিলো। জিগ্যেস করলোতোর হাইট কতো?” আমি কিছুদিন আগেই হাইস্কুলে ভর্তির ফর্মে উচ্চতা লিখেছিলাম। পাঁচ ফুট ইঞ্চি বল্লাম। চাচী বললোবয়সের তুলনায় লম্বা হয়েছিস। আমি তোর থেকে দুই ইঞ্চি কম। তোর নুনু টাও বয়সের তুলনায় সাইজে বড়। তোর চাচার থেকেও একটু বড়। বড় হবার পর কোনো মেয়ের সাথে শুয়েছিস? ‘

আমি ভয়ে ভয়ে উত্তর দিলামনা চাচী। নুনু টা ছেড়ে দাও। আমার অসুবিধা হচ্ছে চাচী বললোতোর এটা এখন আর নুনু নেই। এটা বড় হয়ে লিঙ্গ বা চেট হয়ে গেছে। এটাকে আর নুনু বলবি না।আমি বল্লামআচ্ছা চাচী।চাচী খুব আদর করে আমার লিঙ্গের মুণ্ডু সাফ করলেন। লিঙ্গে সাবান মাখলেন। তারপর জল ঢেলে স্নান করিয়ে দিলেন। গা মুছিয়ে বল্লেন চাচার ঘরে অপেক্ষা করতে উনিও স্নান করে এসে একসাথে খাবেন।

কিছুক্ষণ পর চাচী বাথরুম থেকে বাহির হলো। ভিজে শরীরে একটা পাতলা লাল পেড়ে শাড়ি জড়িয়ে আছে বোঝা যাচ্ছে উদলা গা। ব্লাউজ বা সায়া পড়েনি। পাতলা শাড়ির আড়ালে চাচীর বুক দেখা যাচ্ছে দুধের ওপর কালো চক্র বোঁটা ভিজে চোখা হয়ে আছে। পাছা কলসীর মতো উঁচু হয়ে আছে। আমি চাচীকে দু চোখ ভরে দেখতে থাকলাম। শাড়ির আঁচলের ফাঁকে চাচীর ফর্সা পরিস্কার দুধের অংশ দেখতে ভালো লাগছিল। উঁচু স্তন প্রায় আটত্রিশ ইঞ্চি হবে। ভারী বলে হেলে গেছে। চাচীর ঠোঁট একটু মোটা কিন্তু রসালো। মনে হচ্ছে রসে টস টস করছে। ঠোঁটে একটু মুচকি হাসি। মনে হয় আমি আসাতে খুব খুশি। চাচী ঘরে কিছু কাজ করছিলো।

শেষ হলে উঠে রান্নাঘরে এলেন। আমাকে খেতে দিয়ে নিজেও বসলেন খাবার পর বাসন পত্র গুছিয়ে আমাকে বললেন গিয়ে চাচীর ঘরে শুয়ে থাকতে। চাচী নিজের রুমে বিশ্রাম নিতে গেলেন। কাজের মাশি এসে বাসন ধুয়ে ঘর সাফ করে চলে গেলেন। প্রায় সাড়ে পাঁচটা বাজে। কলিং বেলের আওয়াজ শুনে দরজা খুলে দেখি তিনজন মহিলা এসেছেন। সকলেই বয়স্ক প্রায় চাচীর সমবয়সী চাচীকে খুঁজছেন। ওদের ডেকে চাচুর ঘরে সোফায় বসতে দিয়ে চাচীর ঘরে গিয়ে ডাকলাম। চাচী ওই শাড়ি পরেই ঘুমাচ্ছে আঁচল সরে গিয়ে এক দিকের স্তন বেরিয়ে আছে। কাত হয়ে শুয়েছে বলে একটা স্তনের ওপর আরেকটা স্তন হেলে আছে। দারুণ ভরাট সুন্দর ছোটবেলার মতো খেতে ইচ্ছে করছে। সামলে নিয়ে কপালে হাত দিয়ে ডাকলাম। বল্লাম মহিলা তিনজনের কথা। চাচী ধড়মড় করে উঠে শাড়ি ঠিক করলেন। বললেনযা। কাপড় পড়ে আসছি।

আমি চাচার রুমে গিয়ে মহিলাদের বল্লাম যে চাচী আসছেন। ওরা আমার সাথে গল্প আরম্ভ করলো। সকলেই চাচীর সাথেই কাজ করেন। আমার পরিচয় জিজ্ঞাসা করলো। আমি পরিচয় দিলাম ওদের নিজেদের মধ্যে কথা বলতে থাকলো। টুকরো টুকরো কথায় বুঝলাম ওরা খাবার কথা বলছে। কচি জিনিস। খেতে ভালো লাগবে। ওরা খেতে পেলে ভালো হতো। চাচীর নাম করে বলছে যে দারুণ ভাগ্য ভালো। এমন কচি জিনিস পেয়েছে। কথা শুনতে শুনতে দেখলাম চাচী এসেছে। ভালো করে সেজে গুজে এসেছে। ভালো শাড়ি, ব্লাউজ, সায়া পড়েছে। ভেতরে ব্রেসিয়ার পড়েছে। মহিলাদের তিনজন চাচীকে চোখ মেরে বললোকনগ্রাচুলেশন।

চাচী হেসে বললোফাজলামি করিস না। আমার ভাতিজা মধু। গ্রাম থেকে এসেছে আমাকে পাহারা দিতে।চাচীর বান্ধবীরা সমস্বরে বললোহুঁ। মধু বটে। মিষ্টি কচি ছেলে। খাবার মতোই মিষ্টি।চাচী পরিচয় করিয়ে দিলেন তিন বান্ধবীর একজন জেনা, অন্যজন মাসুমা। আরেকজনের নাম কামিলা। চাচী বললোমিস্টার দু মাসের জন্য অফিসের কাজে বাইরে গেছে। তাই ভাতিজাকে রেখে গেছে চাচীকে দেখতে।কামিলা সোজাসুজি চাচীকে বললোতোর এখানে ওর থাকতে অসুবিধা হলে আমার কাছে রাখ। আমি ভালো করে খাইয়ে দাইয়ে মোটা বানিয়ে দেবো।জেনা মাসুমাও দুজনেই আমাকে ওদের বাড়ি নিতে চাইলো। চাচী তিন জনকেই মানা করে দিলেন। বললেনআমার ছেলে আমার কাছেই থাকবে। তোরা অনেক কিছু খেয়েছিস, আর খেতে হবে না।চাচী ওদের চা খাইয়ে বিদায় করলেন। ওরা যেতে যেতে চাচীকে আবার বলে গেলএমন জিনিস তুই যদি না খাস, আমাদের দিস।

ওরা চলে গেলো। সন্ধ্যা সাতটা বাজে। চাচী বললেনচল মধু। বাজার থেকে সবজি নিয়ে আসি।বাড়ির সামনেই রাস্তায় রিক্সা পেলাম চাচী আমি উঠে বসলাম। রিক্সায় গা ঘেঁষাঘেঁষি করে বসলাম। চাচীর শরীর বেশ নরম। রিক্সার ঝাঁকানিতে চাচী আমার গায়ে আমি চাচীর গায়ে ঠোকর খাচ্ছিলাম।

রিক্সার ঝাঁকানিতে চাচী আমার গায়ে আমি চাচীর গায়ে ঠোকর খাচ্ছিলাম চাচীর বড় বড় স্তন মাঝে মাঝেই আমার কনুই আর হাতে লাগছিল। রাস্তায় আলো নেই আমি চাচীকে বল্লামঝাঁকানিতে রিক্সা থেকে পড়ে যাবে। আমি তোমাকে ধরে থাকি।চাচীকে পিছনে সামনে থেকে দুই বাহু দিয়ে জড়িয়ে ধরলাম। চাচীর গালে আমার গাল ঠোঁট লেগে থাকলো। আমার হাতের তালুতে চাচীর স্তন লেগে থাকলো। আমি একটা স্তন হাতের মুঠিতে ধরে রাখলাম। চাচী আমাকে শক্ত করে জড়িয়ে ধরে বসলেন। আমার ঠোঁটে একটা চুমু খেয়ে বললেনভালো করে ধরে বস মধু।

আমি চাচীর ঠোঁটে ঠোঁট রাখলাম। একটা লম্বা চুমু খেলাম। একটু পরেই বাজারের লাইট দেখা গেলো। নেমে বাজার করলাম। চাচী সামান্য সবজি, বিস্কুট, ওষুধ কিনলো। আমরা আবার ফিরতি পথে রিকশা নিলাম। দুজনে জড়াজড়ি করে বসলাম। এবার চাচীর স্তন প্রথম থেকেই আমার হাতের মুঠিতে চলে এলো। ব্লাউজ ব্রেসিয়ারের জন্য ভালো করে ধরতে পারছিলাম না। ব্লাউজের উপরের গলার ফাঁকে হাত ঢুকিয়ে চাচীর স্তন ছুঁলাম। চাচী আমার পেন্টের চেন খুলে আমার লিঙ্গ ধরে রাখলেন। এমনি করেই ঘরে এসে পৌঁছলাম রিক্সা বিদায় করে তালা খুলে ঘরে ঢুকেই চাচীকে বুকে জড়িয়ে ধরলাম। চাচীও আমাকে জড়িয়ে ধরে চুমু খেল। বললোএখন আরাম করো। পরে হবে।

সঙ্গে থাকুন …

What did you think of this story??

Comments

Scroll To Top