কাকোল্ড চটি – নারী চরিত্র বড়োই জটিল ৪

(Nari Choritro Boroi Jotil - 4)

যে যার বেডরুমে ঢুকে ফ্রেশ হয়ে নিলাম| ফ্রেশ হয়ে বেরিয়ে আসতে আসতে  চারটে বেজে গেলো | আমি ক্যাজুয়াল টা শার্ট আর জিন্স পড়লাম | অঞ্জলী দেখলাম সালওয়াই পড়লো | হোটেলেই কিছু খাওয়াদাওয়া সেরে আমরা সবাই  বিকেলে  বিকেলে বিপ্লবীদের সেই বিভীষিকাময় জায়গা সেলুলার জেল। সেলুলার জেল এর বিভিন্ন দিক ঘুরে দেখতে দেখতে সন্ধ্যা নেমে গেলো |শুরু হলো সেলুলার জেলের লাইট এন্ড সাউন্ড শো | সেলুলার জেলে লাইট অ্যান্ড সাউন্ড শো দেখতে দেখতে পৌঁছে যাওয়া যায় সেই সময়ে, যখন এই জেলে বন্দি বিপ্লবীদের ওপরে অত্যাচারের কোনো সীমা ছিল না।

শো শেষ হতেই আমরা ওখান থেকে বেরিয়ে আসি | সোজা রিসোর্টে না গিয়ে আমরা রিসোর্ট এর সামনেই একটা বিচ এ হাঁটতে থাকি | পূর্ণিমার চাঁদের আলোয় অপূর্ব লাগছে সমুদ্র সৈকত |আমি রিমি কোলে নিয়ে একটু এগিয়ে যায়,  কিছুদূর গিয়ে পিছন ফিরে দেখি, ওরা খুব গা ঘেঁষা ঘেসি করে পাশে পাশে হাটছে | আমি যে কি বলবো বুঝতে পারলাম না | তাই আমিও একটু দাঁড়িয়ে গেলাম ওরা কাছে আসতেই আমরা একসাথে হাঁটা শুরু করলাম | কয়েক পা হেঁটেই ঘটলো বিপত্তি | অঞ্জলির একটা চটি গেলো ছিঁড়ে | ওখান থেকে রিসোর্ট প্রায় এক কিমি দূরে | এদিকে রিমিও খিদে পেয়েছে খিদে পেয়েছে করে বায়না ধরেছে | সামনেই একটা আইসক্রিম এর দোকান |

সেটা দেখেই আমি বলি “স্যার যদি কিছু না মনের করেন, আপনি একটু অঞ্জলীর সাথে যাবেন,  আমি তাহলে রিমি কে আইসক্রিম খাইযে আনতে পারি |”

ওদের দুজনের মধ্যে কিছুই যে একটা চলছে সেটা তো বুঝতেই পেরেছি | ওরা দুজন যেন এই সুযোগ টার জন্যই অপেক্ষা করছিলো

পবন বললো ” কিছুটা দূরেই একটা মার্কেট ছিল | আমি ওকে নিয়ে যাচ্ছি,  ইউ নো ওরি শেখর,  আই উইল টেক কেয়ার অফ হার “!

আমি রিমি কে আইস ক্রিম খাইয়ে,  বিচ এ একটু ঘুরে রিসোর্টে ফিরে যেতে যেতে নয়টা বেজে গেলো | রুমে ঢুকে দেখি অঞ্জলীরা আগেই ফিরেছে | নতুন একজোড়া জুতো ছাড়াও অঞ্জলী স্নানের জন্য বিকিনি কিনেছে | আরো জানাই পবন ওকে পছন্দ করে একটা নাইট ড্রেস কিনে দিয়েছে |
কথা টা শুনে আমার রিএক্ট করার কথা কিন্তু অঞ্জলীর রাগের কথা মনের পড়ে কিছুই বললাম না |

যাকগে রিসোর্টের রেস্টুরেন্ট এ আমরা সবাই একসাথে খেতে বসলাম | খেতে খেতেই পবন বললো “শেখর তাহলে প্রেসেন্টেশন এর বাকি কাজ টা আজ রাতে সেরে ফেলবো দুজনে,  বেশি সময় লাগবে না আসা করি ”

আমি বলি “হ্যাঁ স্যার, কমপ্লিট তো করতেই হবে !”
আমাদের এসব আলোচনা করতে দেখে অঞ্জলী আমাদের দুজনের দিকেই কেমন একটা দৃষ্টিতে তাকিয়ে ছিল | সেটা দেখে পবন বললো “আশাকরি অঞ্জলী তুমি কিছু মনে করবে না, শুধু আজকের রাতে টাই শেখর আমার বেডরুম এ থাকবে, মানে প্রেসেন্টেশন বানাবে তার পরের দিন গুলো ছেড়ে দেবো তোমাকেও  “!

এটা শুনেই সবাই হেসে ফেললাম,
অঞ্জলী বললো “আরে ইটস ওকে,  কাজ তো  শুধু আজকেই তারপর তো ফ্রি !”
পবন ও আমি সম্মতি সূচক মাথা নাড়ালাম |

খাওয়াদাওয়া শেষ করে পবন অঞ্জলী কে বললো, “তুমি তাহলে আজ রিমি কে নিয়ে ঘুমিয়ে পর, আমাদর কাজ শেষ করতে অনেক রাত হয়ে যাবে,  ওতো রাতে ডেকে শেখর নিশ্চয় তোমাদের ঘুম ভাঙাতে চাইবে না, ঠিক তো শেখর,!”
আমি বললাম হ্যাঁ স্যার |

“ঠিক আছে তুমি তোমার রুম থেকে এক্সেসরিষ নিয়ে এসো, আমি রুমে ওয়েটিং করছি “!

আমাদের রুমে ঢুকে অঞ্জলী চেঞ্জ করে রিমি কে ঘুম পাড়াতে লাগলো | বললাম “ঘর টা লাগিয়ে দিও আর কিছু লাগলে বলো “!
ও মাথা নারলো |
আমি পবন এর রুমে গেলাম | আমাদের কাজ শেষ হতে হতে প্রায় 2 তো বেজে গেলো | আমি রুমে যেতে চাইলে পবন বলে এতো রাতে আর রুমে গিয়ে বউ বাচ্চার ঘুম ভাঙাতে হবে না, যদি অসুবিধা না থাকে এখানেই শুয়ে পর, আর  কাল 9 তাই মিটিং,  এখন আবার বউ এর কাছে গেলে হয়তো সময় মতো উঠতে পারবে না |” বলেই মুচকি হাসলো | আমিও হেসে বললাম কি যে বলেন না স্যার |

কাজ শেষে সব গুছিয়ে আমি আর পবন শুয়ে পড়ি  |শুযে শুয়ে আমি ভাবছিলাম, প্রায় দেড়  ঘন্টা পবন অঞ্জলীর  সঙ্গে সময় কাটাল… শুধু কি
মার্কেটিং করেছিল… নাকি আরো কিছু|  এক সময় ক্লান্তিতে ঘুমিয়ে পরি।
মাঝরাতের পেচ্ছাবের বেগ পেয়ে আমার ঘুম ভাঙ্গে, দেখি পাশে খাটে পবন নেই। ভেবে ছিলাম ও হয়তো বাথরুমে গেছে। আমি খাটে বসে প্রায় ১০ মিনিট অপেক্ষা করার পরেও পবনের কোন পাত্তা নেই। উঠে গিয়ে
দেখি বাথরুম খালি। ওথানে মুতে আমি চাপ মুক্ত হই। এরপরে বাইরে যেতে গিয়ে দেখি, রুমের দরজা বাইরে থেকে বন্ধ। অবাক হই ভেবে, এর মধ্যেই কি পবন অঞ্জলিকে পটিযে ফেলেছে। এখন আর আমার কিচ্ছু করার নেই দেখে আমি ঘুমের ভান করে খাটে শুযে পরি। প্রায় ২০/২৫ মিনিট পর পবন রুমে আসে। বাখরুম ঢুকে পেচ্ছাব শেষে আবার আমার পাশে শুয়ে পরল। সাথে সাথে ওর নাক ডাকার শব্দ পাই। মনের মধ্যে অনেক
কৌতুহল নিয়ে আমিও ঘুমিয়ে পরি|

সকালে ঘুম ভাঙতেই আমার গতরাতের কথা মনে পরে গেলো | অঞ্জলীর আচার ব্যাবহারে কোন অসংগতি দেখলামনা। পবন  স্বাভাবিক। আমিও চেপে গেলাম।

সকালে ব্রেকফাস্ট খেযেই রেডি হয়ে আমি আর পবন মিটিং এটেন্ড করতে চলে গেলাম|অঞ্জলিকে বলে গেলাম ঘন্টা দুয়েক এর ব্যাপার একটু রিসোর্ট টা ঘুরে দেখতে | প্রায় ঘন্টা দুয়েক পর সাড়ে এগারোটা নাগাদ আমরা মিটিং সেরে ফিরলাম | মিটিং ইস সাকসেসফুল | রিসোর্টে পৌঁছে দেখি অঞ্জলি রিমি কে নিয়ে পার্ক এর দিকটাই আছে | আমাদের দেখে রুমে এলো | ওদিকে দেখি পবন কলকাতা ফিরবে বলে স্যুট কেস নিয়ে রেডি | সেটা দেখে আমি ভাবলাম যাক তাহলে আপদ বিদায় হবে |

কিন্তু অঞ্জলির মনের অন্য কিছুই ছিল, আমাকে পাশে ডেকে বললো পবন এর জন্যই আমাদের ঘুরতে আসা সম্ভব হয়েছে,  তুমি ওকে আটকাও নাহলে আমিও চলে যাবো | অঞ্জলির এরকম মনোভাবে আমি একটু ভয় পেলাম বৈকি | পরে আমি আর অঞ্জলি দুজনে রিকোয়েস্ট করায় পবন থেকে যায় |

যাক দুপুরে খাওয়াদাওয়া সেরে আমরা একটু রেস্টুরেন্ট নিয়ে রওনা দি করবিন্স কোভ বিচ এবং চিড়িয়া টাপুর উদ্দেশে | অঞ্জলি আজ একটা ডিপ নেক চুড়িদার আর লেগ্গিংস পড়েছে | দেরি করে বেরোনোয় আমাদের ঠিক মতো ঘোরায় হলো না | তাও ওই টুকু সময় এর মধ্যেই জায়গায় গুলোর অপরূপ সুন্দর দৃশ্য গুলো চাক্ষুস করে নিয়েছি | এদিকে অঞ্জলি ও পবন আরো কাছাকাছি আসতে শুরু করে | আমি রিমি কে নিয়ে একটু এগিয়ে গেলে দেখি বিচ এর মধ্যে ওরা হাত ধরাধরি করে ঘুরছে |

সন্ধ্যা  আটটা নাগাদ আমরা হোটেল এ  ফিরলাম | ফেরার পথে অঞ্জলি বললো ওর কিছুই কেনার আছে | এদিকে রিমিরও  ঘুম পাচ্ছে | তাই পবন নিজেই বললো আমি নিয়ে যাচ্ছি অঞ্জলি কে,  তুমি বরং রিমি কে রুমে নিয়ে যাও |

আমি রিমি কে রুমে নিয়ে গিয়ে ঘুম পাড়িয়ে আমি ব্যালকনি তে রাখা চেয়ার অ বসে সিগারেট টানছিলাম | যদিও সিগারেট অকেশনালী খাই, আজ কেন জানিনা খেতে মন হলো | ঘন্টা দুয়েক পর অঞ্জলি আর পবন হাসতে হাসতে  হাতে এক গাদা প্যাকেট নিয়ে রিসোর্টে ঢুকছে | ওদের আসতে দেখে আমি সিগারেট টা ফেলে দিয়ে রুমে বিছানায় বসলাম | হাতে মোবাইল টা থাকলেও মন পড়েছিল অঞ্জলি কি করছে তার দিকে |

মিনিট পাঁচেক পর অঞ্জলি বেশ হাসি মনেই ঘরে ঢুকলো | ঢুকেই আলমারি তে প্যাকেট গুলো রাখতে রাখতে আমাকে বললো ” রিমি কখন ঘুমিয়েছে? ”

আমি বললাম “অনেক ক্ষণ হয়েছে ”

ভালো মনেই বললো ” তুমি কিছুই খেয়েছো নাকি এভাবেই বসে আছো তখন থেকে? ”

বউ এর রাগী রাগী ভাব টা কেটেছে মনের হচ্ছে | কারণ টা যে পবন সেটা ভালোই বুঝতে পারলাম | ওর সঙ্গ অঞ্জলি কে অনেক  পাল্টে দিয়েছে | আগেই ও যেসব পোশাক পড়তোই না এখন সেসব বেশি করে পড়ছে | যাই হোক আমার প্রতি ওর যে রাগ টা কমে গেছে সেটাই অনেক, কারণ যায় হোক |

চলবে…

What did you think of this story??

Comments

Scroll To Top