একটি চাবুক, দুই মালকিন ও কয়েকটি যৌনদাসের গল্প – ৩

(Ekti Chabuk Dui Malkin O Jounodas - 3)

This story is part of a series:

যৌনদাসের গল্প – তৃতীয় পরিচ্ছেদ

একদিকে একটা ডিভান… অন্যদিকে একটা সিংহাসনের মতো দেখতে বিরাট চেয়ার…একটু দূরে একটা কাঠের ঘোড়া ..পাশে কয়েকটা বিভিন্ন আকৃতির বেঞ্চ…প্রতিটাতে কাউকে বাঁধার জন্য আংটা লাগানো…একদিকের দেয়াল জুড়ে কাচের আলমারী…তাতে বিভিন্ন আংটায় ঝুলছে বিভিন্ন ধরনের বেত,চাবুক…শাস্তি দেওয়ার আরো নানা জিনিষ…পাশের আরেকটা কাঠের আলমারীর পাল্লাটা একটু টানতেই ওটা খুলে গেল…জয় ভেতরে তাকিয়ে প্রায় আঁতকে উঠল…ওটার ভেতরে চামড়ার নানা পোষাক,মাথা আর গলা বন্ধ করা চামড়ার হুড আর বেশ কয়েকটা তলায় কাঁটা লাগানো চামড়ার বুট….

পেছন থেকে নীতার খিলখিল হাসি শুনতে পেল জয় |জয় ঘুরল নীতার দিকে | ইতিমধ্যেই পোষাক বদলে নিয়েছে নীতা |নীতার পরণে আগুন-রঙা টপ আর জিন্সের স্কার্ট | জয়ের কথা জডিয়ে যাচ্ছিল …অস্ফুটস্বরে জয় শুধু বলল,”এগুলো…এগুলো সব…’নীতা একটু হেসে বলে,’এতেই চমকে গেলে জয় , এখানের সবকটা আলমারীই ভরা আছে বেয়াড়া মানুষকে শাস্তি দেওয়ার ওইরকম নানা জিনিষে ; অনেকবছর ওগুলোর আর ব্যবহার হয় নি ;আমি প্রয়োজনে ওগুলো আবার ব্যবহার করব আমার যৌন-দাসের জন্য |” জয় হঠাত প্রচণ্ড উত্তেজিত হয়ে ওঠে, চেঁচিয়ে বলে ,” এসবের মানে কি , আমি ভেবেছিলাম…”

নীতা হঠাত অসাধারণ ক্ষিপ্রতায় পাশের দেওয়ালে ঝুলতে থাকা একটা হ্যাণ্ডকাপ নিয়ে জয়ের দুহাতে গলিয়ে চাবিটা আটকে দেয়,তারপর সিংহাসনের মতো চেয়ারটার পাশে লাগানো লম্বা শিকলটায় আংটায় আটকে দেয় হাতটা|ঘটনার আকস্মিকতায় চমকে যায় জয়; নীতা এবার টেনে জোর করে খুলে দেয় জয়ের প্যান্টটা|

চেঁচিয়ে ওঠে জয় , “এসব কি হচ্ছে কি ? কি চাও তুমি? ” চেয়ারটার পাশে লাগানো হাতলটা ঘোরাতে ঘোরাতে নীতা বলে , “আপাতত আমি চাই আমার বেয়াড়া গোলামটাকে একটু সহবত শেখাতে ,ওকে বুঝিয়ে দিতে চাই মালকিনের সামনে গলা তুলে কথা বলাটা বেয়াদবি…”জয় দ্যাখে নীতা হাতলটা ঘোরাতে ও ক্রমশ টানা হয়ে এগিয়ে আসছে | একসময় জয়ের মাথাটা গিয়ে ঠেকে বিশাল চেয়ারটার নীচে রাখা পাদানিটার কাছে ; জাঙিয়াটা মেঝেতে ঘষা লেগে সম্ভবত ছিঁড়ে গেছে , ওর দণ্ডটার গায়ে অল্প জ্বালা টের পায় জয় |

এবার নীতা সম্ভবত দেওয়ালের কাছে যায় ; ঘাড় ঘুরিয়েও কিছু দেখতে পায় না জয় ; কেটে যায় বেশ কয়েকটা মিনিট…হঠাত কাানের কাছে একটা তীব্র শিষের শব্দ…পরক্ষণেই পিঠের চামড়ায় আগুনের ছ্যঁকার মতো সুতীব্র এক জ্বালা, জয়ের মুখ দিয়ে একটা চিতকার বেরিয়ে আসে ….ঘাড়টা ঘুরিয়ে বিস্ময় আর ভয়ে নির্বাক হয়ে যায় জয় | জয়ের সামনে বেশ লম্বা একটা চাবুক নিয়ে নীতা দাঁড়িয়ে, নীতাকে আবার হাত তুলতে দেখেই ভয়ে চোখ বুজে ফেলে জয়…. এবার চাবুকটা গিয়ে পড়ে জয়ের নিতম্বে | আবার চাবুক….. জয় যন্ত্রণায় কাতরে ওঠে , আবার চাবকাতে থাকে নীতা |জয়ের প্রায় নগ্ন শরীরে চাবুক মারতে মারতে পুষিতে তীব্র আলোড়ন টের পায় ও…বুঝতে পারে ওর পুষি ক্রমশ বিন্দু বিন্দু রসে ভিজে উঠছে|

নীতা জানে এই চাবুকের তীব্র আঘাতগুলো জয়কে একজন সত্যিকারের গোলাম করে তুলবে ; ও ভয় পেতে শিখবে নীতাকে ; নীতার পায়ের শব্দ, ওর গলার আওয়াজ ,ওর উপস্থিতির সম্ভাবনা তীব্র আতংক জাগাবে জয়ের মনে – ওর কাছ থেকে খুব দ্রুত হারিযে যাবে ওর পরিচিত বান্ধবী নীতা….ওর মাথার প্রতিটি কোষে ,শরীরের শিথিল স্নায়ুগুলোয় ভয়ার্ত স্মৃতি নিয়ে জেগে উঠবে নীতা মালকিন….নীতা এগিয়ে যাবে তার স্বপ্নপূরণের লক্ষ্যে|

হঠাত জয়ের কাতর গোঙানিতে সম্বিত ফিরে পায় নীতা, শুনতে পায় জয় বলছে ,” প্লিজ আর মেরো না ,আমি তোমার যৌন-দাসত্ব করব সারাটা জীবন..প্লিজ… প্লিজ..” নীতা চাবুকটা ছুঁড়ে দেয় দূরে…খুলে দেয় হাতের শেকল ….বিশাল সিংহাসনাকৃতি চেয়ারটায় বসে তুলে ধরে জযের মুখটা….ঊন্মাদের মতো চুমু খেতে থাকে…জয়ের চোখে,গালে ,গলায় চুমু খাবার পর নীতা ওর জিভটা ঢুকিয়ে দেয় জযের মুখে,ডান হাতে জয়ের চুলগুলো শক্ত করে ধরে তীব্রভাবে চুমু খেতে খেতে বলতে থাকে ,” তুমি আমার জয়….তুমি আমার…” নীতার ইঙ্গিতে জয় নীতার পোষাক আর জুতো খুলে নীতাকে সম্পূর্ণ নগ্ন করে , মুখ রাখে নীতার পায়ে | এবার জিভটা ঠেকায় জয় নীতার মস্রণ সাদা সুডৌল পায়ের পেছন দিকে , ধীরে ধীরে উপর দিকে উঠতে থাকে…. নীতার অপূ্র্ব শরীরী-আকর্ষণ জয়কে সত্যই এক যৌনতার দেবীর বন্দী ক্রীতদাস হবার ইচ্ছা জাগিয়ে তোলে…ওর মনে হতে থাকে কেবল চাবুকের মার নয়,নীতার দেওয়া যে কোনোরকম শাস্তি ও নিতে পারে সারা শরীরে ; নিতে পারে ওর মায়াবী শরীরটাকে একবার ছোঁয়ার জন্য,ওকে একটু আনন্দিত করে তোলার জন্য….

ঘনঘন শ্বাস নিতে থাকে নীতা ,জয় এবার নীতার স্কার্টটা তুলে ওপরের দিকে এগোতে থাকে, হাঁটুর পেছন দিক দিয়ে,সুগঠিত উরুর উপর দিয়ে ক্রমাগত চলতে চলতে জয় হঠাত ওর জিভটা ঢুকিয়ে দেয় নীতার ভিজে ওঠা মধুভাণ্ডে..নীতার সারা শরীরটা থরথর করে কেঁপে ওঠে… ও হাত দিযে জয়ের চুলগুলো মুঠোয় ধরে মাথাটা আরো চেপে ধরে পুষিতে….ফিসফিসিয়ে বলে,”ঢোকাও.. আরো ভেতরে ঢোকাও তোমার জিভ,শুষে নাও ওখানে জমে ওঠা সমস্ত রস,তোমার মালকিনকে পাগল করে তোলো তুমি…আরো জোরে ..জয় ….আরো জোরে…”

নীতার পুষির রসে ক্রমশ ভিজে যেতে থাকে জয়ের মুখ, বেড়াল যেমন চুকচুক করে দুধ থায় পাত্র থেকে…প্রায় তেমন করেই জয় নীতার পুষি ক্ষুধার্তের মতো চেটে খেতে থাকে …. নীতা এবার সিংহাসনাকৃতি চেয়ারটার হাতলে সুদৃশ্য ক্লিপে আটকানো একটা লিকলিকে বেত টেনে নেয়..সজোরে মারে জয়ের খোলা পিঠটায়…নীতার শীতকার, জয়ের গোঙানী আর বেতের সপাং সপাং শব্দ মিলে একটা অদ্ভুত আওয়াজ সমস্ত ঘরটা জুড়ে ভেসে বেড়াতে থাকে….ক্রমাগত বেতটা আছড়াতে আছড়াতে হিসহিস স্বরে নীতা বলতে থাকে,”এই তো সবে তোমার যন্ত্রণার শুরু জয়… ওই চাবুক, এই বেত,এই ঘরের আলমারীতে জমে থাকা অজস্র শাস্তি দেওয়ার জিনিষগুলো তোমাকে এবার অনেক যন্ত্রণা দেবে…যন্ত্রণায় , ভয়ে শিউরে উঠবে তোমার শরীর,তোমার মন ভাববে শুধু আমারই কথা ;আমি হবো তোমার সব…তোমার মালকিন…তোমার ঈশ্বর , তোমার এই দীর্ঘ শরীরটার মালিক়….”

নীতা এবার আরো তীব্রভাবে জয়ের মাথাটা ঠেসে ধরে পুষিতে ;প্রায় দমবন্ধ হয়ে আসে জয়ের ; দুই পেলব ঊরু কঠিনবেষ্টনে চেপে ধরে ওর মাথাটাকে… চরম উত্তেজনায় নীতার হাতের বেত তীব্র হয়ে ওঠে …তারপর একসময় জয় যখন উত্তেজনার চরমে,ও জয়ের জাঙিয়াটা দ্রুতখুলে হাতের মুঠোয় নেয় জয়ের সুদৃঢ়় দণ্ডটা …তীব্র….আরো তীব্রভাবে মোচড়াতে থাকে ওটা…চকচকে পুরূষাঙ্গটার লাল মুখ থেকে চুঁইয়ে আসা কয়েকফোঁটা বীর্যপূর্ব-রস নীতার নরম হাতের পাতা ভিজিয়ে দেয়…

জয় যখন উত্তেজনার চরমে,হঠাত নীতা হাতের বেতটা সজোরে আছড়ায় জয়ের দণ্ডটার উপরে,প্রায় সাথে সাথে বাঁহাতে ওর কোষ দুটো চেপে ধরে,জয় যন্ত্রণায় কাতরে ওঠে …সাথে সাথেই ওর দণ্ডটা কাঠিন্য হারিয়ে ফেলে সংকুচিত হয়ে ছোট্টো আকৃতি নেয় ,নীতা জয়কে ঠেলে উঠে দাঁড়ায়… এগিয়ে গিয়ে মেঝেতে কালো সাপের মতো পড়ে থাকা লিকলিকে চাবুকটা হাতে নিয়ে জয়ের গলায় জড়িয়ে দেয়…পিছনে আসতে হুকুম করে |

জয় সম্মোহিতের মতো নীতাকে অনুসরণ করে সিঁড়ি দিয়ে উপরে উঠে বাইরে আসে ; এবার নীতা হঠাত জয়কে জড়িয়ে দীর্ঘ চুুমু খায়…গলা জড়িয়ে ধরে ভীষণ আদুরে গলায বলে,”আমাকে কোলে করে বাথরুমে নিযে চলো জয়…জয বিমূঢ় হযে দাঁড়িয়ে থাকে | নীতা বলে ,”আজ থেকে প্রতিদিন তোমার মালকিনকে স্নান করিয়ে দেওয়া হবে তোমার কাজ..”এই বলে নীতা হাত দুটো বাড়িয়ে দেয় জযের দিকে…কী কোমল মায়াবী হাতের পাতাদুটো …জয় অবাক হয়ে ভাবে এই কি সেই হাত যেহাতে একটু আগে ধরা ছিল ওই সাপের মতো হিংস্র চাবুকটা…এই কি সেই হাত যেহাত একটু আগে ওই বেতটা ওর শরীরে আছড়িয়ে তাকে কশা তাড়িত তীব্র মদের নেশার মতো এক কামনার আস্বাদ দিয়েছে ?

“কী এত ভাবছ জয়? তোমার মালকিনকে কোলে নেবে না ?” নীতার কথায় সম্বিত ফেরে জয়ের …নীতার বাড়িয়ে দেওয়া হাতটায় চুমু খায় জয়, তারপর পাঁজাকোলা করে নীতাকে কোলে নিয়ে নীতার নির্দেশমতো স্নানঘরের দিকে পা বাড়ায় ও|

নীতাকে নিয়ে সুবিশাল স্নানঘরটায় ঢুকে ওটার সৌন্দ্যর্যে চমকে যায় জয়..সম্পূর্ণ অত্যাধুনিক জিনিষে সাজানো…একদিকে একটা বিশাল ডিম্বাকৃতি বাথটাব..নীতা জয়ের কোল থেকে নেমে একটা শাওয়ারের নীচে দাঁড়ায়..জয়কে বলে বাথটাবটাতে ঈষত গরম জল ভর্তি করার জন্য | জয়ের গলায় জড়ানো চাবুকটা দেওয়ালের একটা আংটায় ঝুলিযে দেয়….এবার অল্প একটু খুলে দেয শাওয়ারটা….একটু দূরে দাঁড়িয়ে অবাক বিস্ময়ে জয় দেখে মুক্তোর মতো জলবিন্দুগুলো নীতার দুই নরম মসৃণ গাল বেয়ে ক্রমশ নীচে নামছে .. নীতার গ্রীক দেবীর মতো গ্রীবাদেশ ছুঁয়ে তা নেমে এল ওর সুগঠিত সাদা শাঁখের মতো দুটি স্তনের উপর..ক্রমশ আরো অনেকগুলি জলরেখা ওর নাভীর গভীর উপত্যকা ছুঁয়ে নেমে আসছে ক্রমশ নীচে…স্পর্শ করল ওর নির্লোম মস্রণ আদিম রহস্যে ঘেরা স্বর্ণ ত্রিভূজকে ..মসৃণ দুই উরু বেয়ে ওরা নামছে আরো নীচে ,ভিজিয়ে দিচ্ছে ওর দুটো পায়ের পাতা…..

“কী হল জয়..জল গরম হয়েছে ? ” নীতার ধমকে সম্বিত ফিরে পেল জয় .. ও বাথটাবের জলের উষ্ণতাটা দেখে স্যুইচটা বন্ধ করল ….এবার নীতার ইঙ্গিতে ওকে আবার পাঁজাকোলা করে তুলে নিল জয় ….ধীরে ধীরে শুইয়ে দিল বাথটাবের কবোষ্ণ জলে |এবার পাশ রাখা স্নিগ্ধ-চাঁপার সুগন্ধ ভরা সাবানটা তুলে নিল জয়,বুলোতে শুরু করল নীতার নগ্ন শরীরে |সুগভীর আবেশে চোখ বুজল নীতা …..

এখন নীতার সারা শরীরে ফুলেল সাবানের মাতাল করা গন্ধ ; জয় তার হাত দিয়ে নীতার সারা শরীরে মিশিয়ে দিতে থাকে ফেনার কণাগুলোকে |নীতার দুই স্তনকে ছোঁয় জয়ের হাত ,স্তন দুটোর তীক্ষ্ণ অগ্রভাগ আরো তীক্ষ্ণ হয়ে ওঠে , শক্ত দুটি বোঁটা দুটি আঙুলে ধরে একটু চাপ দেয় জয়,নীতার মুখ থেকে শীতকার বেরিয়ে আসে ,এবার জয় ডানহাতের তর্জনী একটু ঢুকিয়ে দেয় নীতার নাভিতে ……আঙুলটা ঘোরাতে থাকে ..নীতার মুখ থেকে তীব্র আনন্দের গোঙানী বেরিয়ে আসে ..এবার জয় ছোঁয় নীতার দুই ঊরুর মাঝের অংশকে….ধীর ধীরে অসীম রহস্য-ঘেরা অঞ্চল পায় জয়ের হাতের পুরুষালী স্পর্শ..আর স্থির থাকতে পারে না নীতা …..হাত বাড়িয়ে সজোরে চেপে ধরে জয়ের শক্ত হয়ে ওঠা দীর্ঘ মোটা দণ্ডটাকে |

এবার নীতার বাঁহাতের চাঁপার কলি মতো আঙুলগুলো সজোরে চেপে ধরে জয়ের কোষদুটোকে…ক্রমশ চাপ দিতে থাকে…জয় তীব্র যন্ত্রণাময় রোমাঞ্চে কাতরে ওঠে..এবার নীতা তীব্রভাবে মোচড়াতে থাকে জয়ের দণ্ডটা | একসময় জয়কে সজোরে বাথটাবটায় টেনে নেয় নীতা |জয় এবার আঙুল ঢুকিয়ে দেয় নীতার মসৃণ পুষিতে ….ছোঁয় শক্ত হয়ে ওঠা নারীশরীরের সবচেয়ে উত্তেজনার উতসস্থল ভগাঙ্গুরটাকে..তীব্র চাপ দেয়…বিদ্যুতের মতো সুতীব্র সুখের যৌন অনুভূতি ছড়িয়ে যায় নীতার শরীরে..সারা শরীরটা কেঁপে ওঠে থরথর করে… নীতার শীতকার আরো তীব্র হয়…জয়ও চরম উত্তেজনায় পৌঁছোয়… ও আর সম্বরণ করতে পারে না নিজেকে…দণ্ডটা সুতীব্র বেগে কেঁপে ওঠে…বাথটাবের জলে বীর্য মিশে যায়| দীর্ঘ দণ্ডটা পরক্ষণেই কুঁকড়ে এতটুকু হয়ে ওঠে |

তীব্র রাগে নীতা ক্রমাগত চড় মারতে থাকে জয়ের গালে…তীক্ষ্ণ স্বরে বলে,”যাও,বেরিয়ে যাও এখান থেকে…তেরো নম্বর লেখা চাকরদের জন্য তৈরী বাথরুমটাতে স্নান করে,ওখানে রাখা পোষাক পরে ডাইনিংরুমে আমার খাবার গুলো সাজাও..ঠিক কুড়ি মিনিট পরে আমি লাঞ্চ করব…..”জয় চলে যাচ্ছিল…নীতা আরো কঠিন স্বরে বলে ,”চাবুকটা নিয়ে যাও জয়…ডাইনিং টেবিলের পাশে সিংহের মূর্তিটার গলায় ওটা ঝুলিয়ে রেখ…আমার মনে হয় ওটা ওখানেও লাগতে পারে….”

জয় বুঝতে পারে অপূর্ণ যৌন-মিলন নীতাকে আরো ক্রূদ্ধ করে তুলেছে…কিন্তু ও অপারগ…..ওই ভেনাসের মতো কামনার আগুনের শিখা নীতার নগ্নতা দেখে , তার শরীরের ছোঁযা পেয়ে নিজেকে ধরে রাখার ক্ষমতা ওর নেই……

লেখিকা-অরূণিমা

What did you think of this story??

Comments

Scroll To Top