সোহানের জীবনের পুরুষেরা – ৫

(Sohaner Jiboner Puruhera - 5)

This story is part of a series:

দীর্ঘদিন হোসন ভাই এর সাথে সঙ্গমের কল্পনা করে খেচা ছাড়া সোহানের কোন সঙ্গম হল না। মাঝে মাঝে এতো হট হয়ে যেতো সোহান যে তার ইচ্ছে হত কোন পুরুষকে গিয়ে সরাসরি বলতে। কিন্তু সোহান খুব লাজুক ছেলে। তার পক্ষে সরাসরি এই অফার দেয়া সম্ভব নয়।

একজন বটম ধনের গুতো না খেতে পারলে তার কি দশা হয় সেটা একজন বটম ছাড়া কারো পক্ষে অনুমান করা সম্ভব নয়। তখন সোহান থার্ড ইয়ারে পড়ে। প্রায় দেড়বছর কোন পুরুষ সোহানকে তার মধুরসে প্লাবিত করেনি। তার উপর নিজের শরীর চাপিয়ে ডলা দেয় নি। শরীর সারাক্ষন তেতে থাকে সোহানের।

তেমনি একদিন সোহান ভাবছিলো হোসেন ভাই এর বাসায় যাওয়ার কথা। তার পক্ষে পুরুষের ধনের গুতো না খেয়ে আর থাকা সম্ভব নয়। নিজের বাসা থেকে একটু দূরে সে একটা টিউশানি করত। নতুন জায়গায় এসে টিউশনি জোটাতে তার কষ্টই হয়েছিলো। তবু শেষমেষ সে তিনটা টিউশানি পেয়েছিলো। দুইটাতে মেয়ে পড়াতে হত। আরেকটাতে ভাইবোন দুইজন পড়ত।

ভাইটা পড়ে ইন্টার মিডিয়েটে ফার্ষ্ট ইয়ারে আর বোনটা সামনে ইন্টার দেবে। ঘটনাক্রমে সেই ভাইবোন দুজনেই সোহানকে খুব পছন্দ করত। বোন পরোক্ষভাবে সোহানকে অনেক প্রেমের অফার দিয়েছে। সোহান পাত্তা দেয় নি মোটেও। কারণ সোহান আসলে পুরুষপ্রেমি। নারী তার চাওয়া নয়।

একদিন সেই ছাত্রিকে সে ধমকেও দিয়েছে এজন্যে। তারপর আর মেয়েটা আগায় নি। কিন্তু তার ভাই এগিয়েছে। একটা ছোট ছেলে সোহানকে বশ করে ফেলেছে। মিষ্টি দেখতে ছেলেটা সোহানের চাইতে চার ইঞ্চি বড় ছিলো লম্বায়। তবে গায়ে গতরে তেমন শক্তপোক্ত ছিলো না। নাম রাজু।

একদিন পড়া শেষে রাজু সোহানের পিছু পিছু হাঁটছিলো। সোহান দাঁড়িয়ে গিয়ে বলল-কিছু বলবে রাজু? ছেলেটা মুচকি হেসে বলেছিলো-না না সোহান ভাইয়া তেমন কিছু না। সোহান মৃদু ধমকে বলেছিলো তাহলে ঘর থেকে বেরুলে কেনো? বাসায় যাও। পড়ো গিয়ে। তোমার পড়াশুনায় মনোযোগ কম। তোমার বোনেরও মনোযোগ কম।

রাজু সোহানকে বিস্মিত করে বলেছিলো-সোহান ভাইয়া তানি আপু কিন্তু আপনাকে সত্যি সত্যি খুব ভালবাসে।

সোহান বিরক্ত হল। কড়া গলায় বলল-তোমাদের বাসায় সম্ভবত আমার আর পড়ানো হবে না। ছেলেটা অসহায়ের মত সোহানের কাছাকাছি এসে সোহানের একটা হাত ধরল।

প্লিজ সোহান ভাইয়া ভুল বুঝবেন না। সত্যি বলতে আমিও আপনাকে খুব পছন্দ করি। এবারে সোহান ওর হাতের স্পর্শে ভিন্ন কিছু পেলো। হোসেন ভাইয়ার শক্ত হাতের সাথে এই হাতের কোন মিল নেই। এটা কোমল আর থলথলে। কিন্তু কোথায় যেনো সোহান এই হাতের সাথে হোসেন ভাই এর হাতের খুব মিল পেলো। যদিও ছেলেটার চোখের দিকে তাকিয়ে সে কিছুই বুঝতে পারলো না।

ছাত্রের কাছে তার সমকামী রূপ ধরা পরুক সেটা সোহান চায় না। টিচার হিসাবে সোহান খুব স্ট্রিক্ট। তার লিঙ্গ প্যান্টের ভিতর মুচড়ে উঠলেও সে নিজেকে সামলে রাজুর কাছ থেকে নিজের হাত ছাড়িয়ে নিয়ে বলল-তোমার কি মাথা ঠিক আছে রাজু! তুমি ছেলে হয়ে বলছ তোমার আরেকটা ছেলেকে ভাল লাগে। আবার বলছো তোমার বোন সত্যি সত্যি আমাকে ভালবাসে। তুমি কি পাগল?

ছেলেটা সোহানের দিকে ফ্যালফ্যাল করে তাকিয়ে থেকে তারপর মাথা নিচু করে দিলো। সোহান কপট রাগ দেখিয়ে সেদিন সেখান থেকে বিদায় নিয়েছিলো। পরদিন সে বাসায় তার পড়ানোর কথা থাকলেও সে যায় নি পড়াতে। ভাইবোন দুজনই রহস্যজনক। মনে মনে সিদ্ধান্ত নিয়ে ফেলেছিলো টিউশনিটা ছেড়ে দেবে।

মেয়েমানুষের প্রেম নিয়ে সোহানের কোন আগ্রহ নেই। যদিও রাজুর ছোঁয়া তার মনে শিহরন জাগিয়েছে তবু ছেলেটা ছোট আর ছাত্রের সাথে শরীরের সম্পর্কে যাবে না এই কনসেপ্ট মনে নিয়েই সে সিদ্ধান্ত নিলো সে বাসায় আর পড়াতে যাবে না সোহান। কিন্তু প্রকৃতির ভিন্ন পরিকল্পনা আছে। সে পরিকল্পনায় বাঁধ সাধে কে?

গুড়ি গুড়ি বৃষ্টি হচ্ছিল সেদিন সন্ধায়। সোহান সিদ্ধান্ত নিয়েছে সে রাজু আর তানিকে পড়াতে যাবে না। তাই ঘরে বসে প্ল্যান করছিলো নতুন একটা টিউশনির। বাসা বদলের পর সোহান একটা একলা রুম পেয়েছে। ঘরের বড় ছেলে হিসাবে বাবা তাকে এই রুমটা দিয়েছেন।

তাছাড়া মেট্রিক ইন্টারে ভালো রেজাল্টের কারণে বাবা সোহানকে সমঝে চলে৷ বিশ্ববিদ্যালয়ে ভাল সাবজেক্টে পড়ে বলে বাবা তাকে এখন আর ঘাটান না। রুমটার বিশেষত্ব হল এটাতে ঢুকতে বা এটা থেকে বেরুতে মূল ঘরে যেতে হয় না। একেবারে স্বয়ংসম্পুর্ন রুমটা।

সোহান রাত দুটোও বাড়ি ফিরলেও বাবা সেটা জানতে পারেন না। সেই রুমের একটা দরজা দিয়ে মূল বাসায় ঢোকা যায় ঢুকলেই ডাইনিং রুম। তার রুমে একটা বাথরুমও আছে। ঠিক সন্ধা সাড়ে সাতটায় মা ভিতরের দরজায় দাড়িয়ে বললেন – সোহান বাবু তোর কাছে একটা ছেলে এসেছে। এখানে পাঠাবো না তুই ড্রয়িং রুমে আসবি? সোহান অবাক হল। সে কাউকে বাসায় আনে না। তার বন্ধুদের সাথে তার সম্পর্ক বাইরে। বাসায় আসার অনুমতি নাই কারো।

সোহান বলল – আম্মা কে ওটা?

আম্মা বললেন – নাম জানি না।

সোহান একটা টি শার্ট গায়ে জড়িয়ে চলে এলো ড্রয়িং রুমে। রাজু বসে আছে সেখানে। সোহান মুখ গম্ভির করে বলল – কি চাই রাজু?

রাজু উঠে দাঁড়িয়ে সোহানের হাত ধরে বলল – প্লিজ সোহান ভাইয়া আমাদের পড়ানো ছেড়ে দেবেন না। তানি আপু সব টিচারের প্রেমে পরে যান। আব্বু অনেক রাগ করবেন যদি আপনি আমাদের না পড়ান। প্লিজ। তানি আপু আপনাকে আর ডিষ্টার্ব করবে না।

সোহান পিছনে দেখে নিশ্চিত হল আম্মু আশেপাশে নেই। তারপর বলল – আমি শুধু তানি কে নিয়ে চিন্তিত না। তোমাকে নিয়েও চিন্তিত।

এবারে রাজু ওর হাত ছেড়ে গম্ভীর হয়ে গেলো।

সোহান বলল – দ্যাখো রাজু তুমি কি মিন করে কাল কি বলেছো এসব গবেষণা করার সময় আমার নাই। তাছাড়া আমার থার্ড ইয়ার ফাইনালও খুব কাছে। সব মিলিয়েই আমি সিদ্ধান্ত নিয়েছি টিউশনি কমিয়ে ফেলতে হবে। বাক্যটা শেষ করেই সোহান একটা অদ্ভুত পরিস্থিতির সম্মুখীন হল।

রাজু ওকে রীতিমতো জড়িয়ে ধরল। তারপর বলল – সোহান ভাইয়া আমি জানি আপনার সবকিছু। হোসেন মামা আমাকে সব বলেছে। সোহানের বুকটা ধুক ধুক করে উঠলো। তার হৃতপিন্ড ঝাকি খেতে লাগলো। তার পায়ের নিচের মাটি সরে যেতে লাগলো। শরীর অবশ হয়ে যেতে লাগলো। সে বিস্ময় নিয়ে রাজুর দিকে তাকিয়ে থাকল কিছুক্ষন। রাজু ওকে ছেড়ে দিয়ে ঘর থেকে বেড়িয়ে দরজার কাছে দাঁড়ালো। তারপর অনেকটা ফিসফিস করে বলল-সোহান ভাইয়া এসব কোন বিষয় না। আপনি আমাদের পড়াইতে আইসেন।

সোহান রাজুর পিছু নিলো না। হোসেন ভাই রাজুর মামা হন। হোসেন ভাই রাজুকে তার সমকামীতা শেয়ার করেছেন। ছিহ্ হোসেন ভাই ছিহ্। বিড়বিড় করে বলল সে। সেরাতে তার ঘুম হল না। ছাত্রের কাছে তার বটম জীবন উন্মুক্ত হয়ে গেছে। সে প্রকারান্তরে হুমকি দিয়ে গেছে সোহানকে।

এই পরিস্থিতি কিভাবে মোকাবেলা করবে সোহান সেটা তার জানা নেই। রাজুকে আদ্যোপান্ত নিরিহ ছেলে মনে হয়েছে সোহানের। কিন্তু ছেলেটা অনেকটা ওকে ব্ল্যাকমেইল করে গেছে। হোসেন ভাই এর উপর রাগে তার শরীর কাঁপতে শুরু করল। সারারাত ছটফট করে ঘুম থেকে উঠলো পরদিন দুপুর বারোটায় সোহান।

তারপর ঠান্ডা মাথায় সবগুলো বিষয় ভেবে নিলো একবার। মনে পরল এই টিউশনিটা নিতে তাকে হেল্প করেছে তার আগের জায়গার একটা বন্ধু। সেই বন্ধুটা হোসেন ভাই আর তার সম্পর্কে কতটুকু জানে কে জানে। কিন্তু হোসেন ভাইকে সে বাদ দিয়ে দিলো জীবন থেকে। সিদ্ধান্ত নিলো আর কখনো হোসেন ভাই এর সাথে শরীরের সম্পর্ক করবে না সোহান। নাস্তা করে জামাকাপড় পরে সে বেড়িয়ে পরল বাসা থেকে।

What did you think of this story??

Comments

Scroll To Top