সোহানের জীবনের পুরুষেরা – ৮

(Sohaner Jiboner Puruhera - 8)

This story is part of a series:

এতোদিন রাজুর সাথে সোহান যেখানে সেখানে সঙ্গমে লিপ্ত হয়ে নিজের বটম চরিত্রের গোপন খায়েশ মিটিয়েছে। একদিকে রাজুর বোনের সাথে প্রণয় অন্যদিকে রাজুর মোটা লম্বা শিশ্নের প্রেমে সে এতো মশগুলো ছিলো যে সে জানেই না তার বিয়ের বয়স হয়ে গেছে।

একসময় রাজুর মা সোহানকে ভীষন প্রশ্রয় দিয়েছেন মেয়েকে গছিয়ে দিতে তার কাছে। সোহান সেসব চেপে গেছে। রাজু সৌদি যাবার পর সোহানের জীবনে তানি গুরুত্বহীন হয়ে গেল। তারপর বলতে গেলে পায়ে পা লাগিয়ে তানির সাথে ঝগরা বাঁধিয়ে দিলো সোহান। তানির শরীরও সব ঘেঁটে নিয়েছে সোহান।

তখন তানির শরীর ভালও লেগেছিলো কেবল সে রাজুর বোন বলে। রাজু নেই মানে তানির কোন মূল্য নেই সোহানের কাছে। একটা অদ্ভুত বিষয় ছিলো রাজুর মধ্যে। সে তানির সাথে কিছু হলেই সোহানকে সব জিজ্ঞেস করত খুঁটিয়ে খুঁটিয়ে। সোহানের তখন মনে হত রাজুর মধ্যে গে সেক্স ছাড়াও ইনসেস্ট স্ট্রেইট সেক্সের তাড়না ছিলো।

তবে এসব নিয়ে সে কখনো সোহানের সামনে খোলসা করত না। তানির সাথে শেষ যেদিন ঝগরা হল সেদিন সৌদি থেকে রাজু ফোন দিয়েছিলো। পাড়ার ফোন দোকানে রাজুর সাথে কথা বলতে সোহান কি এক অজানা কারণে ঘন্টাখানেক অপেক্ষা করেছিলো।। রাজু সরদিন ফোনে বলল-ভাইয়া তুমি তো নারীর প্রতি আসক্ত নও। তোমার সুখ আমি দিবো তুমি বিয়ে করে নাও না তানিকে।

সোহান রাজী হল না। বলল-তুমি তানির সাথে প্রেমের অভিনয় করতে বলেছো তাই করেছি। এর বেশী আমার পক্ষে সম্ভব নয়। তবু বিবেচনা করতাম যদি তুমি দেশে থাকতে। রাজু কথা বাড়ায় নি। শেষে সে বলেছে যদি কখনো ভাবো তানিকে তোমার দরকার তাহলে আমাকে বোলো আমি তোমাদের বিয়ে করিয়ে দেবো।

সোহান বলে দিয়েছে সে হবে না।সোহান রাজুর মুখে সেদিন অশ্লীল কথা শুনতে চেয়েছিলো ফোনে। সোহানের চারপাশে মানুষ ছিলো তাই বলা হয় নি। কিন্তু বাসায় ততদিনে বাবা মা সোহানের বিয়ের জন্য উঠে পরে লেগেছে। মা ইশারায় বলেও দিলেন তুমি চাইলে তোমার পছন্দের কাউকে বিয়ে করতে পারো। কিন্তু তাড়াতাড়ি করতে হবো।

সোহান বিয়ের জন্য প্রস্তুত নয়। তবু বাবা তাকে ঢাকায় পাঠালেন একটা মেয়ে দেখতে। মাও তাগিদ দিলেন। মেয়ে ইউনিভার্সিটিতে পড়ে। তাকে দেখতে ঢাকার আজীমপুরে যেতে হবে সোহানদের সম্পর্কে নানা হয় এমন এক আত্মীয়ের বাসায়। অনেকদিন পুরুষ সঙ্গ নেই সোহানের। আজকালকার মত সামাজিক মিডিয়া তখন ছিলো না। কারো হাতেই মোবাইলও ছিলো না। তাই সমকামী খোঁজ করতে সরেজমিনে যাওয়া ছাড়া হবে না।

সোহান জানতো নিউমার্কেটে একটা নার্সারির কাছে গোল চত্বরে কিছু ছেলে দাঁড়িয়ে থাকে তাদের পুরুষ সঙ্গির জন্য। সোহান সেদিক দিয়ে গেলেই দেখতে পেতো ছেলেদের। কিন্তু নিজে গিয়ে কখনো সেখানে দাঁড়াতে সাহস করেনি। তার মত ইউনিভার্সিটি পাশ দেয়া চাকুরী করা একজনের পক্ষে বেটা খুঁজতে সেখানে দাঁড়ানো সম্ভব নয়।

এমনি ছটফট দিন কাটিয়ে একদিন বাবা তাকে হুকুম করলেন ঢাকা যেতে। সোহান তিনদিন ছুটি নিয়ে ঢাকায় রওয়ানা হল ট্রেনে করে। রাতের জার্নি। নোয়াখালি পর্যন্ত তার পাশে একটা কিশোর ছেলে বসেছিলো। নোয়াখালি আসতে সে নেমে গেল। তার জায়গায় একজন মাঝবয়েসী পুরুষ এসে সোহানের পাশে বসল।

ভদ্রলোক মাঝবয়েসী হলেও বেশ ফিটফাট। চুলে পাক ধরেছে লোকটার। সোহান বার বার উঠে সিগারেট খেতে যাচ্ছে দেখে ভদ্রলোক একবার বললেন-এতো সিগারেট খাচ্ছেন কেন? রাতের বেলা ঘুমানোর সময়, না ঘুমিয়ে সিগারেট খেলে শরীরের উপর চাপ পরবে। সোহান পাত্তা দেয়নি লোকটার কথায়।

অপরিচিত মানুষজন শাসন করলে সোহানের বিরক্ত লাগে। সেবার সিগারেট শেষ করে সিটে বসতেই লোকটা সোহানকে বলল-কিছু মনে করেন নাই তো আবার! আপনার বয়স কম। আমিও আপনার বয়সে থাকতে খুব সিগারেট খেতাম। কিন্তু সিগারেট যৌবন শেষ করে দেয়। তাই এখন খুব কম খাই। কমিয়ে দেন দেখবেন শরীর তরতাজা হয়ে যাবে। জ্বি ঠিক বলেছেন বলে সোহান চোখ বন্ধ করে একটু ঘুমানোর চেষ্টা করল।

কিন্তু লোকটা আবার কথা বলে উঠলো। কি ব্র্যান্ডের সিগারেট খান আপনি-জিজ্ঞেস করল লোকটা। সোহান চোখ খুলে বলল-গোল্ড লিফ। অহ্-বলে লোকটা হাত পেতে দিলো আর যোগ করল-আমাকে একটা দেয়া যাবে? আমি কিনে উঠিনি। আপনাকে খেতে দেখে নেশা চেপেছে। সোহান সিগারেট বের করে দিতেই লোকটা সিগারেট নিয়ে উঠে গেলো সেটা টানতে।

বিরক্ত লাগলো সোহানের। এতোক্ষন উপদেশ ঝেরে এখন নিজেই সিগারেট চেয়ে খাচ্ছে। লোকটা সিট থেকে উঠে যাবার বেশ কিছু সময় পেড়িয়ে গেলো। একটা সিগারেট খেতে এতো সময় লাগার কথা নয়। সোহানের কিওরিসিটি হল। সে নিজেও উঠে সিগারেট খাওয়ার স্থানে গিয়ে দেখলো লোকটা সিগারেট না ধরিয়েই জানালায় হেলান দিয়ে দাঁড়িয়ে আছে।

সোহানকে দেখেই লোকটা হেসে দিলো। বলল-সিগারেট দিলেন আগুন দিলেন না তাই ধরাতেও পারছিনা আবার না খেয়ে সীটে যেতেও মন চাচ্ছে না। সোহান হেসে দিয়ে লাইটার বাড়িয়ে দিলো লোকটার দিকে। লোকটা বেশ আর্ট করে সিগারেট ধরালো। সোহানও একটা সিগারেট ধরালো আবার। দুজন পুরুষ সামনা সামনি দাঁড়িয়ে সিগারেট টানছে।

ট্রেনের জানালায় পাছা ঠেকিয়ে লোকটা দাঁড়িয়ে আর তার দিকে মুখ করে সোহান দাঁড়িয়ে। সোহান ট্রেনের দুলুনি আটকাতে একটা হাত পাশের দেয়ালে ঠেক দিয়ে রেখেছে। লোকটা কথা বলতে শুরু করল। কি করেন আপনি? সোহান বলল একটা প্রাইভেট ফার্মে জব করি। বাহ্ বেশতো। চাকরি করেন বলে মনে হয় না আপনাকে দেখে লোকটা বলল।

তারপর সোহানের কাঁধে একটা হাত তুলে দিয়ে বলল-সাবধানে দাঁড়ান। পরে যাবেন কিন্তু। লোকটার হাতকে একটা পুতার মতন ভারী কিছু মনে হল। সেই শিমুল ভাই এর হাত এমন খরখরে ছিলো। সোহানের কাঁধে ধরে লোকটা একহাতেই সোহানকে ব্যালেন্স করতে যেভাবে ধরেছে সোহানের মনে হল লোকটার গায়ে অসুরের মতন শক্তি। নিজেকে লোকটার কাছে খেলনা মনে হল সোহানের।

সোহান মাঝারি গড়নের। লোকটার গড়ন এভারেজের চাইতে বেশী। কিন্তু শরীরটা থ্যাতা। একেকটা আঙ্গুল যেনো ভীম সাইজের। সোহান সিগারেট খেতে খেতেই বলল-আঙ্কেল কি ব্যায়াম করেন নাকি! লোকটা হেসে দিলো।

তারপর ফিসফিস করে বলল-আমি আসলে বডিবিল্ডার। ঢাকা স্টেডিয়ামে সবাই আমাকে চেনে। সেখানে একটা ইলেক্ট্রনিক্মের দোকান আছে আমার। দোকান চালাতে গিয়ে জিম করি। শখের বডি বিল্ডিং আরকি। ট্রেনটা একটা বাঁক নিচ্ছিলো। সোহান তাল সামলাতে নড়ে উঠতেই লোকটা বলল-আপনি নিশ্চিন্তে থাকেন, পরবেন না। এই পাঞ্জা থাকতে আপনার ভয় নেই। সত্যি লোকটা ওকে সামাল দিলো নিজে কোনরকম নড়াচড়া না করেই।

সোহান অবাক হল লোকটার শক্তি দেখে। এরকম মানুষ সোহান আগে কখনো দেখেনি। লোকটা সোহানকে টেনে নিজের দিকে নিয়ে নিলো একটু। তারপর ফিসফিস করে বলল-একটু কাছে থাকেন, বেশী দুলুনি হলে আমাকে ধরে সামলাতে পারবেন৷ সোহানের মনে হল লোকটা কিছু ইঙ্গিত করছে। যদিও লোকটা তেমন কিছু বলেনি। উত্তরে সোহান বলল-না না আঙ্কেল লাগবেনা আমি নিজেকে সামলাতে পারবো।

সোহানের কথায় লোকটা রহস্যের হাসি দিলো। কিছু না বলে সোহানকে আরো নিজের দিকে টেনে নিলো। দুজনের হাতেই সিগারেট। সোহান অবশ্য কিছু বলল না। লোকটা দ্রুত সিগারেট টানতে লাগলো।সোহানের মনে হচ্ছে লোকটা সোহানকে ডমিনেট করে যাচ্ছে। সে নিজের উপর নিজের কোন নিয়ন্ত্রন পাচ্ছে না। নিয়ন্ত্রন নিতে তার মনও যাচ্ছে না। লোকটার যাদুগরি ক্ষমতা আছে।

দ্রুত সিগারেট শেষ করে সিগারেটের পাছাটা দুজনের মধ্যখানে ফেলে দিয়ে সেটাকে জুতো দিয়ে পিশে দিলো লোকটা। তারপর বিড়বিড় করে বলল-আমার বয়স প্রায় পঞ্চাশ। নাম জামিল। তোমার নাম কি? সোহান সিগারেটে টান দিতে দিতে বলল-জ্বি আমার নাম সোহান। কিন্তু আপনার চুল ছাড়া শরীরের অন্য কোথাও বয়সের কোন ছাপ নেই।

জামিল মুচকি হেসে বলল- এখনো একটানা দুশো পুশ করতে পারি হেসে খেলে। সোহান অনেকটা গোপন কথা বলছে তেমন ভঙ্গিতে বলল-আঙ্কেল কি বিবাহিত? লোকটা হেসে দিলো। তারপর বলল তোমার বয়েসি না হলেও বেশ বড় একটা ছেলে আছে আমার। তবে বৌ নেই। সে একজনকে বিয়ে করে স্টেটস এ চলে গেছে। আমিও আর বিয়ে করিনি কখনো। ছেলে ওর মার সাথেই থাকে।

বাক্যগুলো শেষ করে লোকটা মাথা সামনে এনে সোহানের কানের পাশে নিয়ে এলো। কাজটা করতে লোকটা সোহানের ঘাড়ে রাখা হাতটায় একটি চাপ দিলো। সোহানের মনে হল সাতমন ওজনের কিছু তার কাঁধে পরেছে। সে বেঁকে গেলে রীতিমতো। লোকটা সেসবে পাত্তা দিলো না। ফিসফিস করে বলল-আমার ছেলেদের প্রতি আসক্তি আছে। তাই বৌ আমার সাথে থাকে নি।

সোহানের মুখ টকটকে লাল হয়ে গেলো। লোকটা শেষ বাক্যটা বলার সময় সোহানের শরীরটাকে অনেকটা দখল করে নিয়েছে। সোহান শুধু কোনমতে বলতে পারলো -ওহ্। জামিল সোহানের কাঁধে রাখা হাতটা সরিয়ে নিজেকে সোজা করে নিলো। সোহানের মনে হল লোকটা কামে ফেটে যাচ্ছে।

কিন্তু সোহান কোন পদক্ষেপ নিয়ে লোকটাকে হেল্প করার মত কোন প্রসঙ্গ পেলো না। সে আড়চোখে লোটার প্যান্টের দিকে তাকিয়ে সোনার বাল্জটা বোঝার চেষ্টা করল। কিন্তু তেমন কিছু পেলো না। জামিল সোহানকে বলল-তাহলে তুমি সীটে আসো সিগারেট শেষ করে, আমি যাই সেখানে। সোহানের মনে হল লোকটা তার হাতছাড়া হয়ে গেলো।

লোকটা সোহানের গা ঘেঁষে সীটে চলে যেতেই সোহানকে একটা দুঃখবোধ গ্রাস করল। এমন হ্যান্ডসাম একটা আঙ্কেলকে সে সাড়া দিতে পারলো না। খুব ধীরে সিগারেট শেষ করে সোহান বুঝলো প্যান্টের ভিতর তার ধনটা জামিল আঙ্কেলের হাতের স্পর্শ পেয়েই ভীষন ফুসে উঠেছে। সোহানের পুট্কির চিপায় একটা খা খা অনুভব হতে লাগলো।

শক্তিমান জামিল আঙ্কেল সোহানকে নিয়ে আগ বাড়ালো না কেন সোহান জানতে পারলো তখন যখন সে ঘুরে দাঁড়িয়ে সীটের দিকে এগুতে চাইলো। একটা পুলিশ তার পিছনে কখন এসে দাঁড়িয়েছে সেটা সোহান জানেই। নিজের মনে মুচকি হেসে সোহান সিগারেটের শেষাংশ মাটিতে ফেলে সেটাকে জুতো দিয়ে পিশে নিজের সীটের দিকে রওয়ানা দিলো।

সীটে এসে বসতেই সোহান দেখলো জামিল আঙ্কেল পা চেগিয়ে তার সীট দখল করে বসে আছেন। সোহান কাছে যেতেই তিনি বললেন-এখানে বসতে অসুবিধা নেই তো? সোহান মুচকি হেসে জামিল আঙ্কেলের সীটে বসে পরল। বসার সাথে সাথেই জামিল আঙ্কেল সোহানের রানের উপর তার বাঁ হাতটা চাপিয়ে দিলো। সোহানের ধনটা হু হু করে ফুলে চুড়ান্ত রুপ নিলো কিছুক্ষণের মধ্যেই। লোকটার সত্যি যাদুগরি ক্ষমতা আছে ছেলে বশ করার। জামিল আঙ্কেলের রানের পাশে সোহানের নিজের রান পাখির রানের মত মনে হল। লোকটা শরীর গড়তে যথেষ্ট পরিশ্রম করে বুঝতে কষ্ট হল না সোহানের।

জামিল আঙ্কেল সারা ট্রেন জার্নিতে সোহানের উরুতে হাত রাখা ছাড়া কিছু করেনি। কিন্তু তাতেই সোহানের জাইঙ্গা ভিজে গেছে। সোহান শুধু ভেবেছে নিশ্চই জামিল আঙ্কেলের তাকে নিয়ে কোন প্ল্যান আছে। কিন্তু কি সেই প্ল্যান সেটা সোহানের জানা নেই। কয়েক দফায় সিগারেট খেতে সোহান উঠে গেলেও জামিল আঙ্কেল উঠেন নি। তিনি কেবল উরু থেকে হাত উঠিয়ে সোহানকে যেতে দিয়েছেন। আবার ফিরে আসার পর তিনি সোহানের উরুতে হাত রেখেছেন।

একটা প্রচ্ছন্ন ইশারা মনে হয়েছে সেটাকে সোহানের কাছে। সকালের দিকে ঘুমিয়ে পরেছিলো সোহান। গাঢ় ঘুম। কারো ধাক্কাতে তে সজাগ হল। দেখলে পাশে বসা জামিল আঙ্কেল ছাড়া চারপাশে কেউ নেই। জামিল আঙ্কেল সোহানের দিকে তাকিয়ে হাসছেন। বললেন-বেশ গভীর ঘুম তোমার। সোহান বলল-আঙ্কেল আমরা কি চলে এসেছি? জামিল আঙ্কেল বললেন প্রায় আধঘন্টা হল ট্রেন থেমেছে। তুমি ঘুমাচ্ছো তাই ডিস্টার্ব করিনি।

কিন্তু রেলের লোকজন এসে বলে গেল নেমে যেতে হবে কারণ এটা আবার চট্টগ্রাম যাবে। সোহান সরি সরি বলে নিজের ব্যাগ নামাতে দাঁড়িয়ে গেল। অনেকটা নিঃশব্দে জামিল আঙ্কেলও উঠে দাঁড়িয়ে নিজের ব্যাগ নামালেন সেই সাথে সোহানের ব্যাগটাও তিনি সোহানের হাতে দিয়ে বললেন-তারপর জেন্টেলম্যান তোমার নেক্সট প্রোগাম কি? সোহান সীট থেকে পা বাড়াতে বাড়াতে বলল-আঙ্কেল আমি যাবো আজীমপুর নানার বাসায়। ওকে চলো তাহলে ট্রেন থেকে নেমে পরি বললেন জামিল আঙ্কেল।

ট্রেন থেকে নেমে জামিল আঙ্কেল দ্রুত পা চালালেন।

What did you think of this story??

Comments

Scroll To Top