কাজের মেয়ে রুপার সঙ্গে প্রেমের খেলা – পর্ব ১

(Kajer Meye Rupar Songe Premer Khela - 1)

আমি সঞ্জীব , আমার বয়স ৩০ আমার বৌ রিনা বয়স ২৮। আমি বিয়ে করে সুখী ছিলাম না কারণ আমার বৌ পুরো গ্রামের মেয়ে সেই জন্য সেই রকম ড্রেস করে থাকে। আমি চাই আমার বৌ হবে পুরো মডার্ন আর ভীষণ স্টাইলিশ। কিন্তু ও একদম উল্টো ছিল। মাথায় চপ চপে তেল লাগিয়ে চুল বেঁধে থাকে। আমি অনেকবার বলেছি যে শ্যাম্পু করে চুল খুলে রাখো বা বয়েজ কাট করিয়ে নাও কিন্তু ও সেটা পছন্দ করে না বলে লজ্জা লাগে।

আমি বারবার বলি শাড়ি ছেড়ে ফ্রক পরে থাকো বা জিন্স আর টি শার্ট পরে থাকো ও শোনে না। এই সবের জন্যে আমার ওকে একদম ভালো লাগে না আর আমার সেক্স জাগে না। আমাদের এক কাজের মেয়ে আছে ওর নাম রুপা। নামের সঙ্গে ভীষণ মিল তার চেহারার। খুব সুন্দরী মানে যাকে বলে আগুনে সুন্দরী। যার দিকে তাকায় তার প্যান্টের মধ্যে ধন দাঁড়িয়ে যায়। আমার রুপাকে আরো ভালো লাগে কারণ ও খুব স্টাইলিশ। ওর বয়স ২৪।

রুপা নিজের চুল পুরো বয়েজ কাট করে রেখেছে। এতো স্টাইলিশ কাজের মেয়ে আমি কোথাও দেখি নি। কিন্তু ও খুব রিজার্ভ থাকে মানে খুব গম্ভীর থাকে। ওর সঙ্গে কথা বলতে ভয় লাগে। ও আসে কাজ করতে জিন্স আর টি শার্ট পরে। টি শার্ট টা লো কাটের যার জন্যে ওর নাভি সব সময় দেখা যায়। আর স্লীভ লেস তাই স্পষ্ট বগলের চুল গুলো দেখতে পাই।

আমি ওর সঙ্গে কথা বলতে ভয় পাই কারণ ও সব সময় গম্ভীর থাকে কিন্তু আমার বৌ ও ওকে সমঝে চলে। আমি অনেকদিন দেখেছি রুপা আমার বৌ রিনাকে ঝাড় দিচ্ছে। আমি ভেবে পেতাম না বৌ এতো ভয় পায় কেন রুপা কে। আমি একদিন রিনাকে জিজ্ঞেস করেছিলাম তো ও বলেছিলো অরে কাজের লোক সব সময় পাওয়া যায় না।

আমি বললাম আরে আমি ওকে মাসে অনেক টাকা দিয়ে রেখেছি। তাতেও বৌ বোঝে নি বলেছিলো না বাবা একটু খাতির করেই চলতে হবে আর আমাকে বলে দিয়েছিলো তুমিও বেশি অর্ডার কোরো না ওকে আমাকে বোলো আমি করে দেব তোমার কাজ। আমি দেখলাম ওকে বোঝানো বেকার।

একদিন আমি দেখলাম রুপা আমার বৌ রিনাকে খুব বকছে বলছে একটা কাজ ঠিক মতন করতে পারিস না। দেখলাম আমার বৌ রিনা মাথা নিচু করে ওর বকা শুনছে। আমার কান গরম হয়ে গেলো যখন শুনলাম রুপা আমাদের কাজের মেয়ে সে আমার বৌ রিনাকে তুই করে আর নাম ধরে কথা বলছে।

আমি কাছে গিয়ে রুপাকে বললাম কি হয়েছে আমার কথা শুনে আমার দিকে আগুন চোখে তাকিয়ে বললো সনজু তুই নিজের কাজ কর আমাদের মধ্যে মাথা গলাতে আসিস না। আমি আবার চমকে উঠলাম এ মেয়ে তো আমাকে নাম ধরে আর তুই করে বলছে। আমি দেখলাম নিজের সম্মান নিজের কাছে তাই নরম গলা করে বললাম না মানে আমি তোমাকে বলছিলাম তুমি একটু ভালো করে বলো রিনাকে ও ঠিক তোমার কথা শুনে চলবে।

তখন রুপা আমাকে বললো শুধু রিনা না তোকেও আমার কথা শুনে চলতে হবে। আমি বললাম ঠিক আছে তাই হবে কিন্তু তুমি প্লিজ একটু শান্ত হও। এবার রুপা বুঝে গেলো যে আমরা ওর হাতের মুঠোয় চলে এসেছি। এবার ও রিনাকে বললো সব বাসন মেজে আমাকে এক কাপ চা করে দে মাথা ধরে গেছে তোর পেছনে চেঁচাতে চেঁচাতে।

দেখলাম রিনা বললো তুমি আরাম করে বিছানায় বসো আমি চা করে আনছি। এবার রুপা আমাদের বেড রুমে এসে আমাকে বললো তুই সোফাতে বস আমি একটু আরাম করবো বিছানাতে। আমি সম্মান বাঁচাতে বিছানার পাশে যে সফা রাখা আছে সেটাতে গিয়ে বসলাম। রুপা বিছানায় উঠে পা ছড়িয়ে বালিশে হেলান দিয়ে বসে পড়লো।

কিছুক্ষন পরে দেখলাম রিনা চা হাতে করে ঢুকলো। বিছানার পাশের টেবিল এ রেখে বললো তুমি কতটা চিনি নেবে রুপা ? রুপা বললো দুই চামচে। আমার গ্রাম্য বৌ দেখলাম সযত্নে চা বানিয়ে কাপ এ ঢেলে রুপার দিকে এগিয়ে দিলো। রুপা হাতে করে চা নিয়ে এক চুমুক দিয়ে বললো এবার তুই ঘর গুলো ঝাড়ু দিয়ে মুছে দে।

আমি তখন ভয়ে ভয়ে রুপাকে জিজ্ঞেস করলাম তোমার শরীর কি ভালো নেই তখন আমাকে রুপা বললো হ্যাঁ শরীর টা জুতের নেই এই বলে একটু মিচকি হাসলো। আমি ওর হাসি দেখে নিজেকে ধন্য মনে করলাম। খুশিতে গদো গদো হয়ে গেলাম। এবার সাহস পেয়ে বললাম তোমার কোনো প্রব্লেম হলে আমাকে বোলো আমি ব্যবস্থা করে দেব।

শুনে আমার দিকে তাকিয়ে বললো সেতো আমি তোকেই বলবো। এই দেখনা কদিন পরেই আমার ৫০ হাজার টাকার দরকার তুই কি পারবি জোগাড় করে দিতে ?

আমি দেখলাম এই সুযোগ ওর ঘনিষ্ঠ হওয়ার তাই বললাম কেন পারবো না তুমি যেদিন বলবে সেইদিনই দিয়ে দেব। আমার কথা শুনে রুপা বললো কালকেই জোগাড় করে দিস তাহলে ৫০ হাজার।

আমি বললাম ঠিক আছে কালকেই দিয়ে দেব তোমাকে। দেখলাম রুপা হাত দুটো ওপরে করে মাথার নিচে রেখে আয়েশ করে শুয়ে আছে তাই ওর বগলের চুলগুলো হাওয়ায় উড়ছে। আমি সেদিকে তাকিয়ে আছি আর আমার প্যান্টের ভেতর ধন ঠাঠিয়ে উঠছে। আমার অবস্থা রুপা বুঝতে পারছে তাই ও ইচ্ছে করে হাত দুটো উঠিয়ে রেখেছে।

এর মধ্যে আমার বৌ ঘর ঝাড়ু দিতে ঢুকলো। আমাকে রিনা বলল তুমি বিছানায় উঠে যাও আমি একটু ঝাড়ু টা দিয়ে নিই। আমি এক লাফে বিছানায় উঠে পড়লাম একদম রুপার পায়ের কাছে। আমি একদম রুপার পায়ের সঙ্গে ঘেঁষে বসে আছি রুপা একটু পা টা গুটিয়ে আছে আমাকে দেখে ও ইচ্ছে করে নিজের পা দুটো আমার ওপর চাপিয়ে দিলো।

আমি এতে খুব খুশি হয়ে গেলাম যে আস্তে আস্তে ওর ঘনিষ্ঠ হচ্ছি। এবার আমি সাহস পেয়ে রুপার পায়ের ওপর নিজের হাত রাখলাম দেখলাম ও কিছু বললো না। আমার বৌ রিনা ঘর ঝাড়ু দিয়ে মুছতে লাগলো। আমার বসার ধরণ দেখে বৌ দেখলাম কোনো আপত্তি করলো না।

আমার হাত রাখতে রুপা আমাকে বললো জানিস আমার পা দুটো খুব ব্যাথা করছে আমি এটা শুনে বললাম আমি কি একটু টিপে দেব রুপা ? ও বললো তোর অসুবিধে না হলে টিপে দে যদি একটু আরাম পাই। আমি মহা আনন্দে রুপার পা টিপতে লাগলাম। আমার টেপার ধরণ দেখে রুপা এক ধমক দিয়ে আমাকে বললো কিছু খাসনি নাকি আজকে ? ঠিক মতন না টিপতে না পারলে ছেড়ে দে।

আমি বললাম না গো এই ভাবে টিপতে একটু অসুবিধে হচ্ছে তুমি যদি বলো তো তোমার পা দুটো কাঁধে নিয়ে ভালো করে টিপে দিই। ও তখন বললো সেই ভাবেই টেপ বোকাচোদা। আমি সঙ্গে সঙ্গে রুপার পা দুটো নিজের কাঁধে নিয়ে টিপতে লাগলাম। এবার রুপা আমাকে বললো ভালো করে টেপ বোকাচোদা আরাম দিতে না পারলে এক লাঠি মারবো তোর মুখে। আমি বললাম ঠিক করেই টিপছি ম্যাডাম বলে খুব ভালো করে টিপতে লাগলাম রুপা ম্যাডামের পা দুটো।

এরপরে রুপার সঙ্গে সন্জুর সম্পর্ক কোথায় যায় সেটা জানতে অপেক্ষা করুন আর কমেন্ট করে জানান।

What did you think of this story??

Comments

Scroll To Top