কলেজের দাদার কাছে হাতেখড়ি

(Kolejer Dadar Kache Hatekhori - 1)

এইচ এস দিয়ে সবে কলেজে উঠেছি আমি। কলেজটা আমার বাড়ির থেকে একটু দূরে বাসে করে যেতে হয়। বাড়ির কারোর মত ছিল না দূরে পড়াশোনা করার। কিন্তু আমিই জোর করে পড়াশোনার জন্য এখানে এসেছিলাম। কিন্তু কলেজে প্রতিদিন যাতায়াত করা আমার জন্য ভীষণ প্রবলেমের ছিল। তাছাড়া কলেজে গেলেও ভিড় বাসে সিট পাওয়া যেত না রোজ। আর দাড়িয়ে গেলে পাশ থেকে লোকজনের চাপাচাপিতে আমার পার্সোনাল জায়গাগুলোতেও অন্য লোকের ছোঁয়া পড়ত।

কিন্তু এসবের কিছু বলা যেত না কাউকে। যাইহোক কোনরকমে কলেজ লাইফ চলছিল আমার। বাইরে থেকে আসার জন্য তেমন কোনো বান্ধবীও হয়নি তখন। তবে কলেজের বিষয়গুলোতে আমাকে একটা দাদা খুব হেল্প করত। হঠাৎ কোনো নোটিশে কলেজ বন্ধ থাকলে বা ফ্রম ফিলাপ থাকলে আমার খুব সমস্যা হতো। তখন দাদা আগে থেকে আমাকে ফোন করে জানিয়ে দিত।

তো একদিন কলেজে গিয়ে দেখলাম আমার একটা ফর্মের স্পেলিং ভুল এসেছে। আমি একবার অফিসে ঠিক করতে গেলাম কিন্তু ওরা বলল পড়ে দেখা করতে। তাই আমি অফিস থেকে বেরিয়ে আসছিলাম। তখন হঠাৎ আমার দাদার সাথে দেখা হয়ে গেল। দাদা আমাকে বলল কিরে এখানে কি করছিস। আমি বললাম দেখ অাসাদদা (দাদার নাম) আমার ফর্মে একটা ভুল আছে কিন্তু এরা ঠিক করে দিতে চাইছে না। দাদা ইউনিইনের সাথে যুক্ত ছিল আর হাতেও মনে হয় ভালো ক্ষমতা ছিল। দাদা আমাকে হেসে বলল এগুলো কোনো ব্যাপার না এরা এমনি বললে ঠিক করবে না বিকেলে ছুটির আগে আমার সাথে দেখা করিস আমি করে দেব। আমি সম্মতি জানিয়ে ক্লাসে চলে গেলাম।

বিকেলে লাস্ট দুটো পিরিওড অফ ছিল তাই আমি দাদাকে কল দিলাম। দাদা একটু পর এসে আমার সাথে দেখা করল। তারপর বলল তুই ডকুমেন্টসগুলো নিয়ে আমার একটা কাজ আছে ওটা করে তোকে করে দিচ্ছি। আমি দাদার পেছন পেছন ওর সাথে গেলাম। ও কলেজের পেছন দিকের একটা বিল্ডিং এ ঢুকে দোতলায় উঠল। বস্তুত এই ঘরগুলোয় কলেজের পুরনো বেঞ্চগুলো রাখা থাকত আর এদিকে তেমন কেউ আসত না। আমি ভাবছিলাম এখানে ওর কি কাজ থাকতে পারে। ও একটা ঘরের ভেতর ঢুকে একটা ভাঙ্গা বেঞ্চিতে বসল। তারপর একটা সিগারেট ধরিয়ে আমাকে জিজ্ঞেস করল কি ঠিক করতে হবে।

আমি ব্যাগ রেখে ফর্মের কপিটা বের করে দাদাকে দেখালাম। দাদা ফর্মটায় একবার চোখ বুলিয়ে নিয়ে আমাকে কাছে ডাকল। আমি কাছে গেলে আমার হাত ধরে একটা ঝটকা টান মারল আর আমি গিয়ে ওর কোলের ওপর পরলাম। দাদা আমাকে ওর কোলের সাথে শক্ত ধরে রেখে আমার মুখের ওপর একগাল সিগারেটের ধোঁয়া ছাড়ল।

আমি স্বপ্নেও ভাবিনি যে দাদা আমার সাথে এরকম ব্যবহার করবে। তার ওপর আমি মদ বিড়ি সিগারেটের গন্ধ একদম সহ্য করতে পারি না। সিগারেটের ধোঁয়ায় আমার কাশি পেতে লাগল। আমি দাদার হাত ছাড়িয়ে ওঠার চেষ্টা করে বললাম দাদা এসব তুমি কি করছ। দাদা আমার কথার উত্তর না দিয়ে আমার দিকে সিগারেট দেখিয়ে বলল খাবি ? আমি হাত ছাড়িয়ে ওঠার চেষ্টা করছিলাম কিন্তু ওর পেশীবহুল হাতের থেকে বেরোতে পারছিলাম না। দাদা এবার আমার মুখে সিগারেটটা জোর করে গুজে দিয়ে বলল একটু খাও বেবি। আমি না খেয়ে মুখ সরিয়ে আনলাম তাই ও নিজেই ওটাকে বের করে ওটাকে আমেজ করে টানতে লাগল।

এবার ও ওর একটা হাত আমার দুদুর ওপর রাখল আর চুড়িদারের ওপর দিয়ে টিপতে লাগল। আমি এবার রেগে বললাম আমাকে ছার নয়ত আমি চিৎকার করব। দাদা বলল চিৎকার করে কোনো লাভ হবে না বরং এখানে আসলে তোকে ল্যাঙট দেখতে পাবে। আমার আর কিছু করার ক্ষমতা রইল না। ও জোর করে এবার আমার জামার ভেতর হাত ঢুকিয়ে জোরে জোরে দুদু টিপতে লাগল।

আমার খুব ব্যাথা লাগছিল কিন্তু ওর কোনো ভ্রুক্ষেপ ছিল না। ও এবার আমার জামাটা খুলতে লাগল। আমি বাধা দিচ্ছিলাম কিন্তু ও বলল যদি ডিস্টার্ব করিস জামা ছিড়ে ফেলব তখন বাড়ি যেতে পারবি না। আমি আর বাধা দিলাম না। ও জামাটা খুলে আমার বগল চাটতে লাগল। আমি বগল কামাই না তাই বগোলে হালকা লোম ছিল। ও সেগুলোকে ভালো করে চুষতে চুষতে ব্রা এর ওপর দিয়ে দুধ টিপছিল।

তারপর ও আমার ব্রা টাও খুলে নিল। আমি দুদুগুলো ওর সামনে পুরো অনাবৃত ছিল। ও আমাকে একটা বেঞ্চে ফেলে সেগুলোকে নিয়ে মুখে পুরে চুষতে লাগলো। আমার হাত পা অবশ হয়ে আসছিল আর মাথা ঘুরছিল। কিছুক্ষণ আমাকে ভোগ করে ও আমার লেগিংস আর প্যান্টিটা হাঁটু অবধি নামিয়ে দিল। তারপর আমার নিচে একটা আঙুল ঢুকিয়ে নাড়াতে লাগল।

আমি নিজে কোনোদিনও ওইসব জায়গায় হাত দিইনি কিন্তু ওর হাত পরতেই আমার সারা গা কাঁপতে লাগল। ও এবার ওর প্যান্টটা খুলে ওর নুনুটা বের করল। ওর নুনুর সাইজ দেখে আমি অবাক হয়ে গেলাম। বিশাল বড় কালো নুনুটার ওপরটা লাল আর মুখটা একটু চেরা। আমার সেক্স সম্বন্ধে ধারণা থাকলেও কোনোদিনও সামনে ওটা দেখিনি। ওটাযে এত বড় হয় আমার কল্পনাতেও ছিল না। ও ওটাকে নাড়াতে নাড়াতে আমার নিচে সেট করল। তারপর জোরে একটা চাপ মারল। ওর নুনুটা আমার ওটার ভেতর পচ করে ঢুকে গেল।

আমি ব্যথায় কোঁক করে শব্দ করে উঠলাম। ও এবার ওর মুখটা আমার কাছে এনে আমার ঠোঁটে ঠোঁট দিয়ে জোরে চাপ দিল। এবার ওর নুনু পুরোটা আমার ভেতরে ঢুকলো। তারপর ও ওর নুনুটা বের করল। আমি দেখলাম ওর নুনুতে আমার সতীচ্ছদ ফাটার রক্ত লেগে আছে। আমার চোখ ফেটে জল আসছিল কিন্তু আমার কিছু করার ছিলনা। এবার ও আমার দুদুদুটো দুহাতে টিপে ধরে আমার সাথে সেক্স করতে লাগল। প্রায় সঙ্গে সঙ্গেই আমার গা টা ঝিনঝিন করে উঠল আর যোনির ভেতর দিয়ে পেচ্ছাপের মত একটা তরল বেরিয়ে আসল। ও ওর নুনুতে ভালো করে ওটা মাখিয়ে আবার সেক্স করতে লাগল।

আরো দু বার ওরকম তরল বেরোনোর পর আমার মনে হল ওর নুনুটা আমার যোনির ভেতরে যেন ফুলে উঠেছে। মুহূর্তে আমি বুঝে গেলাম এরপর কি হতে চলেছে। বিপদের কথা ভেবে আমি আবার ধাক্কা মেরে ওকে সরিয়ে দিতে চাইলাম কিন্তু আবার ব্যর্থ হলাম। আমার শরীর ঠেসে ধরে ও আমার যোনির ভেতরে বীর্যপাত করল। আমরা দুজনেই তখন ঘামে ভিজে গেছি।

এরপর আসাদদা ওর সাদা সাদা রস মাখা নুনুটা বের করল। ওর নুনুটা অনেক ছোট হয়ে গিয়েছিল। আমি ফুপিয়ে কেঁদে বললাম যে এবার আমার বাচ্চা হলে কি হবে। দাদা তখন পকেট থেকে একটা ট্যাবলেট বের করে আমাকে বলল খেয়ে নিতে তাহলে কিছু হবে না। আমি ট্যাবলেটটা খেয়ে নিয়ে বেরিয়ে এলাম আর আসাদদা আমার ডকুমেন্টস গুলো নিয়ে গেল। পড়ে অবশ্য আমার কাজটা হয়ে গিয়েছিল।

এটা আমার লেখা প্রথম গল্প। ভুলত্রুটিগুলো ক্ষমা করে কেমন হয়েছে জানিও আমার hangout এ। [email protected]

What did you think of this story??

Comments

Scroll To Top