কৌমার্য মোচনের কাহিনী – ল্যাংচা অর্জন – ২

(Koumarjo Mochoner Kahini - Langcha Orjon - 2)

This story is part of a series:

কৌমার্য মোচনের কাহিনী দ্বিতীয় পর্ব

লাইনে দাঁড়িয়ে থাকার সময় ঠেকাঠেকি ত হয়েই গেছে, তাই এখন আর কিসের লজ্জা?”

আমি ছেলেটির সাথে তার পোষাক রাখা যায়গার দিকে এগুলাম। আমি আড়চোখে লক্ষ করলাম, ছেলেটি মাঝেমাঝেই শাড়ির আঁচলের আড়ালে আমার উুঁচু হয়ে থাকা স্তনদুটির দিকে তাকাচ্ছে। আমি ইচ্ছে করেই আমার ডান স্তনের উপর থেকে আঁচলটা একটু সরিয়ে দিলাম, যাতে ছেলেটি ব্লাউজ এবং ব্রেসিয়ারের উপর দিয়েই আমার স্তনের কিছু অংশ এবং মাঝের খাঁজটা দেখতে পায়।

আমি ছেলেটির হাত ধরে বললাম, “আমি আরতি, আমার ২৪ বছর বয়স এবং যেহেতু আমার সিঁথিতে সিন্দুর নেই তাই বুঝতেই পারছেন আমি এখনও অবিবাহিতা। আচ্ছা দাদা, আপনার নাম কি?”

ছেলেটি বলল, “আমার নাম অর্ণব। বর্তমানে আমার ২৭ বছর বয়স, অর্থাৎ আমি আপনার চেয়ে তিন বছর বড়। আমি একটা মাল্টি ন্যাশানাল কোম্পানিতে চাকরি করি। আর বিয়ে, না সেটা এখনও হয়নি! আচ্ছা, আমরা দুজনেই ত বন্ধু এবং আমাদের বয়সেও ত বিশেষ একটা ফারাক নেই। আমরা দুজনেই যদি পরস্পরকে ‘আপনি’ না বলে, নাম ধরে ‘তুমি’ করে কথা বলি, তাতে কি আপনার আপত্তি আছে?”

বলতে গেলে প্রথম দেখাতেই আমি যেন ভীতর ভীতর ছেলেটির প্রেমেই পড়ে গেছিলাম। আমি হেসে বললাম, “না অর্ণব, আমার কোনও আপত্তি নেই। ‘তুমি’ করে বললে অনেক বেশী আপন মনে হয়, সেজন্য আমি নিজেই প্রথমে তোমার নাম ধরে সম্বোধন করলাম।”

অর্ণব মন্দির প্রাঙ্গন থেকে কিছুটা দুরে একটা ঘেরা যায়গায় দাঁড়ালো। সেখানে এক কোনে দাড়িয়ে সে পোষাক পাল্টাতে লাগল। আমি ইচ্ছে করেই অর্ণবের সামনে দাঁড়িয়ে তার হাতে একটি একটি করে পোষাক তুলে দিতে থাকলাম।

মাটি থেকে পোষাক তুলে দেবার ফলে আমার ডান স্তনের উপর থেকে আঁচল বারবার সরে যাচ্ছিল। আমি আঁচলটা ঠিক করে নেবার কোনও চেষ্টা করলাম না, যাতে আমার চোলিকাট ব্লাউজের উপর দিক থেকে অর্ণব আমার ফর্সা এবং পুরুষ্ট স্তনের বেশ কিছু অংশ দেখতে পায়। অবশ্য অর্ণব নিজেও প্রতিটা সুযোগের সদ্ব্যাবহার করছিল।

জাঙ্গিয়া পরার সময় সেটা পায়ের দিক দিয়ে গলিয়ে উপরে তোলার সময় অর্ণবের গামছাটা হঠাৎই ফাঁক হয়ে গেল এবং আমি সামনা সামনি তার কালো ঘন বালে ঘেরা জীবন্ত লিঙ্গ এবং তার তলায় অবস্থিত কালো লিচুদুটির দর্শন করে ফেললাম। সামান্য অবস্থাতেই অর্ণবের যন্ত্রটা প্রায় ৪” লম্বা, অর্থাৎ সেটা ঠাটয়ে উঠলে কি মুর্তি ধারণ করবে, সহজেই বোঝা যায়।

শিবরাত্রির দিন পুজা অর্চনা করার পর কোনও সুপরুষের লিঙ্গের দর্শন করে আমার খূবই আনন্দ হলো। অর্ণব মুচকি হেসে বলল, “এই আরতি, কি দেখছো?” আমিও হেসে বললাম, “এই যে, পুজার আগে জীবন্ত শিবলিঙ্গের স্পর্শ এবং পুজার পরে তার দর্শন পেয়ে গেলাম, তাই আমার পুজা সার্থক হয়ে গেলো! কোমল অবস্থাতেই তোমার যন্ত্রটা এত বড়, তাহলে শক্ত হলে সেটা কি বিকরাল রূপ ধারণ করে, গো!”

অর্ণব ইয়র্কি করে বলল, “একবার পরীক্ষা করে দেখেই নাও না ম্যাডাম, কি হয়!” অর্ণবের কথায় আমরা দুজনেই হেসে ফেললাম। আমিও ইয়র্কি করে বললাম, “ঠিক আছে, সুযোগ পেলেই আমি পরীক্ষা করে দেখবো!”

অর্ণব পোষাক পরে নেবার পর আমরা মন্দির প্রাঙ্গন থেকে বেশ কিছু দুরে একটা নিরিবিলি যায়গা দেখে একটা রেষ্টুরেন্টে ঢুকলাম এবং একটা কোনের সীটে বসে জল খাবার খেয়ে নিলাম। অর্ণব আবার ইয়ার্কি করে বলল, “এই আরতি, ল্যাংচা খাবে?” আমিও সাথে সাথে বললাম, “হ্যাঁ অবশ্যই, তুমি খাওয়ালেই খাবো! আজ ত ল্যাংচারই দিন!”

অর্ণব বেয়ারা কে বলে ল্যাংচা আনিয়ে দিল। আমি ইয়র্কি করে বললাম, “একি অর্ণব, এইটুকু ল্যাংচা? এত কিছু বুঝতেই পারলাম না!”
অর্ণব হেসে বলল, “আরতি, লাইনে দাঁড়ানোর সময় যে ল্যাংচা তোমার পাছায় খোঁচা মারছিল. সেই বড় ল্যাংচা খেতে হলে ত এই রেষ্টুরেন্টে খাওয়াতে পারবো না, তোমায় আমার বাড়ি যেতে হবে। ল্যাংচার সাথে দুটো লিচুও খাওয়াবো!”

আমিও হেসে বললাম, “ঠিক আছে, তাই যাবো! এই দশ টাকার ল্যাংচায় খিদে মেটেনা। অন্ততঃ ত্রিশ টাকার ল্যাংচা হলে মনঃপুত হয়! তোমার বাড়ি গেলে সেই রকম ল্যাংচা খাওয়াবে ত?”

অর্ণব আমার গাল টিপে বলল, “হ্যাঁ সোনা, তুমি আমার বাড়ি গেলে আমি তোমায় তিরিশ টাকার কেন, পঞ্চাশ টাকার সাইজের ল্যাংচা খাওয়াবো! তার বিনিময়ে তুমি আমায় দুটো বড় এবং রসালো হিমসাগর আম খাওয়াবে, ঠিক ত? এই শোনো, আজ আমার বাড়ি একদম ফাঁকা! আজই তুমি আমার সাথে আমার বাড়ি চলো। খূব মজা হবে!”

আমার বাড়ি ফেরার তেমন কোনও তাড়া ছিলনা। আমি অর্ণবকে হাতছাড়া করতেও চাইছিলাম না, তাই আমি আমার নতুন প্রেমিক অর্ণবের সাথে তার বাড়ি যেতে রাজী হয়ে গেলাম।

আমরা দুজনে একটা অটোয় উঠলাম। আমি ‘one for Arnab’ হিসাবে আঁচলের ঢাকা থেকে একটা আম বার করেই রাখলাম। অটো চলাকালীন অর্ণব আমার আমের দিকে বারবার লোলুপ দৃষ্টিতে তাকাচ্ছিল।

আমরা দুজনে বাড়ির ভীতর ঢুকলাম। ছোকরা বিয়ে করেনি কিন্তু ঘরটা খূবই ছিমছাম ভাবে সাজিয়ে রেখেছে। সদর দরজা বন্ধ করেই অর্ণব আমায় পিছন থেকে জড়িয়ে ধরল এবং আমার পিঠের খোলা অংশে পরপর চুমু খেতে লাগল।

অর্ণবের দুটো হাত আমার রসালো এবং পুরষ্ট আমদুটির উপর বসে গেলো। এতক্ষণ অর্ণবের সাথে যত ইয়ার্কিই করে থাকি না কেন, জীবনে প্রথমবার নিজের স্তনের উপর পরপুরুষের হাতের চোবল খেতে আমার ভীষণ লজ্জা করছিল।

অর্ণব আমায় সামনের দিকে ঘুরিয়ে নিয়ে আমার শাড়ির আঁচল জোর করে সরিয়ে দিলো এবং ব্লাউজের উপর দিয়েই আমার অর্ধ উন্মুক্ত স্তনের উপর চুমু খেয়ে বলল, “আরতি, তোমার হিমসাগর আমদুটি ভারী সুন্দর! এখনও অবধি কোনও পুরুষের হাতের ছোঁওয়া না খাওয়ার ফলে এইগুলোর কি অসাধারণ হয়ে আছে, গো!”

আমি লজ্জায় চোখ বন্ধ করে চোখের উপর হাত চাপা দিলাম। পরমুহর্তেই আমি অনুভব করলাম আমার শরীর থেকে শাড়ি খুলে গেছে এবং আমি শুধুমাত্র সায়া এবং ব্লাউজ পরে অর্ণবের সামনে দাঁড়িয়ে আছি। আমার মুখ ফস্কে বেরিয়ে গেলো, “অর্ণব, আমায় ছেড়ে দাও, আমার ভীষণ লজ্জা করছে!”
অর্ণব হেসে বলল, “আরতি, বিয়ের পরে ত তোমাকে এই ভাবেই স্বামীর সামনে পোষাক খুলতে হবে। তখনও ত তোমার এ ভাবে লজ্জায় কুঁকড়ে যাওয়া চলবেনা! আমি এখনই তোমার সেই লজ্জা কাটিয়ে দিচ্ছি। আমি ত তোমার প্রেমিক এবং কিছুক্ষণ আগেই তুমি নিজে হাতে আমার জিনিষটা স্পর্শ করেছো! তখন ত আমায় চিনতেও না। তুমি ত নিজেই আমার বড় ল্যাংচা খেতে আমার বাড়িতে এসেছো। আজকের দিনে তুমি আমার সামনে পোষাক খুলতে আর দ্বিধা কোরোনা। আচ্ছা নাও, আমিই আগে তোমার সামনে নিজের সমস্ত পোষাক খুলে দিচ্ছি।”

আমি হাতের ফাঁক দিয়ে মিটিমিটি করে চেয়ে দেখলাম অর্ণব এক এক করে তার জামা, প্যান্ট, গেঞ্জি এবং সবশষে জাঙ্গিয়াটাও খুলে ফেলল এবং আমার হাতটা টেনে নিজের ঠাটিয়ে থাকা জিনিষের উপর দিয়ে বলল, “আরতি, চোখ খুলে ভাল করে দেখো, এই ল্যাংচাটা তোমার পছন্দসই কিনা!”

সঙ্গে থাকুন …

What did you think of this story??

Comments

Scroll To Top