আদিম ৪

মিনিটের পর মিনিট কেটে যায়। কিন্তু সাথীর গোঙানির শব্দ থামে না। একটা সময় পর আমি সময় এর হিসাব হারিয়ে ফেললাম। একটু পর টিরো হঠাৎ কাপড়ের ওপর থেকে আমার লিঙ্গ চেপে ধরলো।

আদিম ৩

আজ আমি নিচে আর নিরো ওপরে। শুয়ে শুয়ে আমার লিঙ্গের ওপর নিরোর যোনির উত্থান পতন দুচোখ ভরে উপভোগ করলাম।

আদিম ২

আমি হাঁটু মুড়ে টিরো র সামনে বসে পড়লাম। দুহাতে ওর নিতম্ব খামচে ধরে নাক গুঁজে দিলাম ওর মধুভান্ডারে। প্রাণ ভরে ওর যোনির মিষ্টি সোঁদা গন্ধের ঘ্রাণ নিলাম।

আদিম ১

মহিলার হালকা তামাটে গায়ের রং, সুগঠিত শরীর, উন্নত নিতম্ব, ভারী সুডৌল বুক দেখে মনে হলো যেনো কোনো দেবী।

অর্ধজায়া-১০

আগের বার যখন ঈশানের সাথে সেক্স করেছিলাম তখন ঈশান একেবারে আনকোরা। তবে আজ যে ঈশান কে দেখলাম সে যেনো অন্য কেও। রেগুলার সেক্স না করলে এভাবে এতক্ষন ধরে করা সম্ভব না।

অর্ধজায়া-৯

কি হয়েছে রে? কাদছিস কেনো? রিয়া আরো একটু কেঁদে মুখ চাপা দিয়েই বললো.. আমি প্রেগন্যান্ট হয়ে গেছি।

অর্ধজায়া-৮

ঈশান একটা প্যাকেট ছিঁড়ে কনডম টা লিঙ্গে পরতে পরতে ওর দিকে তাকিয়ে হাসলো। বলল..
তোমাকে মন ভরে আদর করবো সোনা।

অর্ধজায়া-৭

ও নন্দিতার যোনির ভেতর লিঙ্গটা গেঁথে রেখে ওকে আদর করে চলেছিল। আজ অনেকদিন পর যেনো পুরনো নন্দিতা কে ফিরে পেয়েছে ও। সেই উদ্দামতা আবার ফিরে এসেছে।

অর্ধজায়া-৬

আমি ই হয়তো মনোজের চাহিদা মেটাতে পারিনি। মনোজ কাছে এলেও নিরুত্তাপ থেকেছি। তাই হয়তো মনোজ বোর হয়ে গেছে আমার ওপর।

অর্ধজায়া-৫

নাইটির ওপর থেকেই রিয়ার যোনি চেপে ধরলো। বলল.. কই দেখা। কতটা বড়ো হয়েছে ফুটো টা।
উফফ। ছাড় তো। এখন হবে না। রিয়া রাগ দেখলো।

অর্ধজায়া-৪

ঈশান লিঙ্গ বার করলো না। কিছুক্ষন ওভাবেই শুয়ে থেকে আবার কোমর নাড়াতে শুরু করলো। ও নিজের রুমে ফিরে অনুভব করলো ওর স্তন বৃন্ত শক্ত হয়েছে। আর দু পায়ের সংযোগস্থল ভিজে গেছে।

অর্ধজায়া-৩

রিয়া একবার এদিক ওদিক দেখে নিয়ে মুখ বাড়িয়ে ঈশানের ঠোঁটে একটা চুমু খেয়ে নেয়। ঈশান চমকে ওঠে।

অর্ধজায়া-২

নন্দিতার বাথরোব এর ওপর থেকেই নিতম্বের ওপর চাপ দিয়ে আরো গভীর ভাবে জড়িয়ে ধরলো মনোজ। পাজামার ভেতর লিঙ্গ টা নড়ে উঠলো।

অর্ধজায়া-১

বাথরুমের সামনে উপুড় হয়ে পড়ে আছে সুদীপা। কি করবে ভেবে পেলনা ঈশান। মদ খায় ঠিকই তবে এভাবে বেহুঁশ হতে দেখেনি এর আগে। গায়ে তোয়ালে টা কোনো রকমে জড়ানো।

কর্মফল (অষ্টম পর্ব)

লোকটা নিচু হয়ে একবার জিভ দিয়ে চেটে নিলো মহিলার মসৃণ যোনি। ছিদ্র লক্ষ করে মুখের লালা ফেলে দিলো। তারপর উঠে বসে আবার যোনির মুখে লিঙ্গ টা রেখে চাপ দিলো।