মায়ের পরপুরুষের সঙ্গলাভ – দশম পর্ব

This story is part of a series:

হোলি পার্টি তে রাই দির দেওয়া ঘোলের শরবত পান করে যে আমি ঘুমিয়ে পড়েছিলাম, প্রায় ১২ ঘন্টা পর আমার ঘুম ভেঙেছিল। তাও রাই দি এসে ডেকে তুলে দিয়েছিল। আমি যখন মাথায় একটা অল্প যন্ত্রণা আর শরীর জুড়ে একটা ক্লান্ত তৃপ্তি দায়ক অবসন্ন ভাব নিয়ে বিছানার উপর উঠে বসলাম, সেই সময় আমার পেনিস টা শর্টস এর ভেতর থেকে উচিয়ে খাড়া হয়ে দাড়িয়ে ছিলো। আমি রাই দি কে দেখে কোনরকমে একটা বালিশ চাপা দিয়ে ওটা ঢাকলাম। আমি চোখ খুলে দেখলাম, রাই দি বেরোবে বলে স্নান টান সব সেরে এসে একটা সুন্দর ড্রেস পরে রেডী হয়ে নিজের ভেজা চুল শুকাচ্ছিল। সে আমায় দেখে বললো, ” উঠে পর হ্যান্ডসাম, সকাল হয়ে গেছে, আর কত ঘুমাবে, তোমার মা খোজ করছিল এই ১০ মিনিট আগে এসে। উঠে ফ্রেশ হয়ে খেয়ে ডেয়ে নাও। আমাদের এক ঘণ্টার মধ্যে রিসোর্ট ছেড়ে বেরোতে হবে।

আমি আমতা আমতা করে ঢোক গিলে বললাম, আমার কী হয়েছিল, মাথা টা এরকম ভার ভার করছে কেনো, তুমি কি করছো এখানে?

রাই দি রিপ্লাই দিলো, ” তোমার মা পার্টিতে স্যার এর সঙ্গে অবাধ মেলামেশা দেখে তুমি একটু অসুস্থ্য বোধ করছিলে, তাই আমি তোমাকে এই রুমে এনে, তোমার শরবতে একটা ঘুমের ওষুধ দিয়ে খাইয়ে ঘুম পাড়িয়ে রেখেছিলাম। তুমি সেই থেকে আমার রুমেই আমার সঙ্গেই রয়েছ। অনেক্ষন টানা ঘুমিয়েছ। নাউ গেট আপ।আমি রেডি হয়ে রাই দির সঙ্গে একটা গাড়িতে ফিরলাম আর আমার মা আংকেল দের সঙ্গে অন্য গাড়িতে।

মা পার্টি তে হুল্লোড় করে তার পর সারা রাত আংকেল আর দুজন নতুন বন্ধু কে মনোরঞ্জন করে একটু অসুস্থ্য হয়ে পড়েছিল। তাই গাড়িতে ওঠার সময় আমার সাথে বিশেষ কথা বললো না। আরেক টা জিনিস আমি লক্ষ্য করলাম, পার্টি তে আংকেল দের সঙ্গে মস্তি করতে করতে মায়ের ব্লাউজ টা ছিড়ে গেছিলো। মা সঙ্গে করে এক সেট noodle straped bra এনেছিল, রাতে নাইট ড্রেসের নিচে পরবার জন্য, বাড়ি ফেরার সময় শাড়ির সঙ্গে বিশেষ স্ট্র্যাপ ব্রা তাই পরে নিতে বাধ্য হয়েছিল। ওটা পরা আর কিছু না পড়ার মধ্যে খুব বেশি তফাৎ ছিল না। শাড়ি তাও নেট এর স্বচ্ছ হওয়ায় মায়ের বুক পেট নাভি পিঠ সব কিছু পরিষ্কার দেখা যাচ্ছিল। আংকেল রা প্রাণ ভরে চোখের সুখ করে নিচ্ছিলো

ফার্ম হাউস রিসোর্ট থেকে শহরে ফেরবার পর রাই দি আমাকে আমাদের ফ্ল্যাটে ড্রপ না করে সোজা নিজের ফ্ল্যাটে নিয়ে গিয়েছিল। আমি জিজ্ঞেস করায় বললো, তোমার মা আজ বাড়ি ফিরবে না। স্যার আর তার এক বন্ধুর সঙ্গে ফাইভ স্টার হোটেল সুইট রাত কাটাবে। তাছাড়া তোমার কলেজ এখন ছুটি, একা একা বাড়ীতে কি করবে। আমার এখানে থাকো না আজকের দিন টা। কাছেই মাল্টিপ্লেক্স আছে। আমরা মুভি দেখবো। মজা করবো। আর কিভাবে স্যারের হাত থেকে তোমার মা কে উদ্ধার করা যায় তার প্ল্যান করবো।

আমি ওর প্রস্তাবে আর না করলাম না। আমার মনে অন্য একটা প্রশ্ন ঘুরপাক খাচ্ছিল, সেটা সাহস করে রাই দি কে করেই ফেললাম, ” আচ্ছা রাই দি, আমি যখন শরবত পান করে ঘুমাচ্ছিলাম। তুমি কি আমার সঙ্গে কিছু করেছিলে। আমার যখন ঘুম ভাঙ্গলো আমার গায়ে শার্ট ছিল না। রাই দি একটা মিষ্টি হাসি হেসে আমার কথা টা এড়িয়ে গেলো। রাই দি কে আমার তখন বেশ রহস্যময়ী মনে হলো। রেস্ট নিয়ে সত্যি সত্যি সন্ধ্যে বেলা আমাকে নিয়ে বেড়ালো। দুজনে মিলে পাশাপাশি বসে একটা ভালো অ্যাকশন মুভি দেখলাম।

সিনেমা চলা কালীন অন্ধকারে রাই বার বার আমার হাতে আর কাধে নিজের আঙ্গুল বোলাচ্ছিল। একবার তো আমার কানের কাছে নিজের ঠোঁট টা নিয়ে আসলো। আমি আমার কানের পাশে রাই দির গরম নিশ্বাস টের পেলাম। রাই দি আমার কানের পাশে কিস করবার জন্য যেই তার দুই ঠোঁট এর পাতা ফাঁক করেছে, আমি সাথে সাথে ভয় পেয়ে নিজের মাথা টা রাই দির সামনে থেকে সরিয়ে নিলাম। এতে রাই দি আমার উপর একটু রেগেই গেলো। আমার বা দিকের শার্টের কলার চেপে ধরে উত্তেজিত ভাবে আমাকে শুনিয়ে বললো,” আচ্ছা, খুব জেদ না তোমার, একটা কথা পরিষ্কার করে বলোতো, তোমার মা কে স্যার এর হাত থেকে বাঁচাতে চাও কী চাও না।আমি চুপ করে রইলাম।

আমার মৌনতা কে আমার সম্মতি হিসাবে ধরে নিয়ে রাই দি বললো, গুড, এবার থেকে আমি যা যা বলবো তাই করতে হবে। এটা মাথায় রেখে দিও। নাহলে আমার কোনো হেল্প এই বিষয়ে তুমি পাবে না। নাউ কাম অন। কাছে এসে বসো, তোমার বা হাত টা আমার কাধের উপর রাখো।এরপর রাই দি আমাকে যা যা করতে বলল আমাকে শুনতে হয়েছিল। যা যা করছিল সব কিছুই আমার কাছে একেবারে নতুন ছিল। আমি মায়ের বিষয়ে ভীষন নরম আর দুর্বল ছিলাম, রাই দি আমার সেই উইক পয়েন্ট ধরে ফেলেছিল। আর নিজের ব্যাক্তিগত মস্তির জন্য আমাকে ব্যাবহার করতে শুরু করলো।

আমিও আংকেল এর হাত থেকে মা কে উদ্ধার করতে চুপ চাপ নিজেকে রাই দির হাতে সপে দিলাম। যা হচ্ছে ঠিক হচ্ছে না ভুল হচ্ছে সে চিন্তা করবার অবকাশ পেলাম না। রাই দির সঙ্গে বেরিয়েও দারুন সব জায়গায় ঘুরে ফিরেও মার চিন্তা মন থেকে কিছুতেই দুর করতে পারছিলাম না। সকালে গাড়িতে ওঠার সময় মার মুখ চোখ দেখে আমার খুব একটা ভালো লাগছিলো না। মা ফেরবার পথে বমি করেছিল। আমি ভালো করে জানতাম সে সমানে আংকেল দের সঙ্গে পাল্লা দিয়ে অনিয়ম করছে, রাত জাগছে, ছাই পাস খেয়ে নেশা করছে, কিন্তু তার শরীর ভেতরে ভেতরে মোটেই ভালো যাচ্ছে না।

মা টাকা রোজগার করার জন্য সকাল থেকে রাত অবধি সমানে দৌড়াচ্ছে, আর্থিক ভিত হয়তো মজবুত হচ্ছে। তবে মা পরিশ্রম অনুপাতে ঠিক মতন বিশ্রাম পাচ্ছে না। নিয়মিত কড়া ডোজের ওষুধ খেয়ে তার শরীরে নানা উপসর্গ দেখা দিয়েছিল তার মধ্যে প্রধান ছিল যখন তখন মেজাজ হারানো। মায়ের এই শরীর খারাপ নিয়ে বাড়ি না ফিরে, আংকেল দের সঙ্গে সোজা গিয়ে ফাইভ স্টার হোটেল সুইট রিপোর্ট করা তা আমি কিছুতেই মন থেকে মেনে নিতে পারছিলাম না।

মুভি দেখে আমরা একটা নামী রেস্তোরায় ডিনার সারতে গেছিলাম। ওখানে রাই দি আমার সঙ্গে অলমোস্ট বান্ধবীর মতন ব্যাবহার করছিল। অন্য পুরুষ রা রাই দির মতন সুন্দরীর সঙ্গে আসার কারণে আমার দিকে জেলাস চোখে তাকাচ্ছিলো কিন্তু আমি ঐসব দিকে মন দিতে পারছিলাম না। আমার মন মায়ের জন্য আনচান করছিল। এদিকে ডিনার সারার পর রাই দি রাত টা ওর কাছে কাটিয়ে যাওয়ার জন্য আমাকে জোর করছিল।

আমি ওকে কিছুতেই বুঝাতে পারছিলাম না। শেষে রাই দির কথাতেই ওর ফ্ল্যাটে সেই রাত টা কাটিয়ে দেবার ডিসিশন নিলাম। বলা ভালো রাই দি জোর করে আমাকে ডিসিশন নিতে বাধ্য করলো। রাই দির ফ্ল্যাটে এসে আমার বারণ সত্ত্বেও ওর নিজের বেড রুমে তেই আমার রাতে শোওয়ার ব্যাবস্থা করলো। আমাকে অপেক্ষা তে রেখে রাই দি ঘুমানোর আগে শাওয়ার নিতে গেলো। আমি সেই ফাঁকে নিজের স্মার্ট ফোন টা বার করে মার নম্বরে ডায়াল করলাম। প্রথম বারে রিং বেজে গেলো, মা ফোন রিসিভ করলো না।

২য় বার ডায়াল করলাম একটা অচেনা অবাঙালি কণ্ঠস্বর ফোন টা রিসিভ করলো। আমাকে অবাক করে, ইংরেজি টে জিগ্যেস করল আমি কে, কাকে চাইছি।

আমি আমার মার নাম বললাম। আমিও উল্টে জিগ্যেস করলাম উনি আমার মায়ের ফোন রিসিভ করছেন কেনো? মা কি এখনও বিজনেস মিটিং খুব ব্যস্ত আছে। জবাবে অচেনা ব্যাক্তি হো হো করে হেসে উঠলেন। তারপর বললেন, মিটিং শেষ হবে কি আসল মিটিং তো এখন শুরু হয়েছে, হা হা হা, সারা রাত চলবে। কাল আবার সিঙ্গাপুর থেকে আমাদের বিগ বস আসছেন ডিল ফাইনাল করতে, নন্দিনী জি কে সেইজন্য আগামী কাল অন ডিউটি লাগবে।
আমি তখন বললাম, ” মায়ের সঙ্গে এখন একটু কথা বলা যাবে actually গতকাল সকালের পর্ থেকে ঠিক করে কথা হয় নি। ব্যাক্তি আমার অনুরোধ শুনে সাথে সাথে ৩০ সেকেন্ডের মধ্যে মায়ের কানে ফোন টা ধরলো।

আর মা কে বললো, জী লো বাত করো বাট কাম ভি করনা জারি রাখো।মার কাছে ফোন টা যেতেই আমি খুব জোরে বাক গ্রাউন্ডে টিভিতে মিউজিক চ্যানেল চলবার আওয়াজ পেলাম। আর টিভির মিউজিক এর আওয়াজ ছাপিয়ে মায়ের শীৎকার যৌন মিলনের মধুর আর্তনাদ ভেসে আসছিলো। মার কাছে ফোন টা দিতেই বুঝতে পারলাম ফাইভ স্টার হোটেল রুমে মা তাদের ব্যাবসার একটা ডিল কনফার্ম করার জন্য পর পুরুষের সঙ্গে যৌন মিলনে লিপ্ত রয়েছে। ফোনের মধ্যে দুটো আলাদা পুরুষের গলা শোনা যাচ্ছিল।

আমার শুনে মনে হলো। দুই জন অচেনা বহিরাগত পুরুষ মা কে দুই দিক থেকে চেপে ধরে স্যান্ডউইচ বানিয়ে রেখে, তাদের বিজনেস ডিল ফাইনাল করবার বিনিময়ে মায়ের সঙ্গে ফ্রি সেক্স করছিল। ওরা সেই সময় বেশ আবেগ ঘন চরম যৌন মুহূর্তের মধ্যে দিয়ে যাচ্ছিল সেটাও আমি ফোনে ওদের আওয়াজ আর কথা বার্তা শুনে বুঝতে পারলাম। শরীর খারাপ নিয়েও মা এত কষ্ট পাচ্ছে দেখে আমার মন খারাপ হয়ে গেছিলো। পরিস্থিতিতে মার সঙ্গে বেশিক্ষণ কথা বলা সম্ভব হলো না।

মা দুজন কে খুশি করতে ভীষন হাঁপাচ্ছিল। আমি মা ডিনার করেছো কিনা জিজ্ঞেস করাতে বললোআহ্ আহ্ সুরো, তুই তো জানিস আমি ডিয়েট আছি। আজ খালি সেদ্ধ মাশরুম আর সালাদ নিয়েছি, সাথে এক গ্লাস ওয়াইন। পেট না ভরলেও, ওতে যত টুকু পুষ্টি আর ভিটামিন পাওয়া গেছে সেটাই শরীর চালানোর পক্ষে অনেক, আহ্ মা আআস্তে আহ্… ” আমি: তুমি ঠিক আছো তো, কাল কখন ফিরবে?,” মা: আর ভালো। তোকে কি আর লুকাবো। তোর শর্মা আংকেল আমাকে এইভাবে প্যাকড শিডিউল দিয়ে মেরে ফেলবে জানিস তো, তিন তিনটে আধ দামড়া লোক কে আমার কাছে ছেড়ে দিয়ে চলে গেছে। তাদের আমি না পারছি ওদের সামলাতে আর না পারছি ছাড়তে।

আহ আহউফফ মা গো..আমার অবস্থা মেশিনের মতো করে ছেড়েছে। এদের সঙ্গে করতে করতে তলপেটের আবার ব্যাথা টা চাগার দিয়ে উঠেছে। আর হবেই না কেনো, কম ধকল তো আর যাচ্ছে না এই শরীর তার ওপর দিয়ে। তোর আংকেল শুরু করেছিল। তারপর ওর দোস্ত। আর এখন এরা তিনজন একসাথে। উফফআজ দুপুর থেকে দফায় দফায় এইভাবেই চলছে

What did you think of this story??

Comments

Scroll To Top