নিষিদ্ধ নিকেতন – ১

(Nishiddho Niketon - 1)

This story is part of a series:

বাবার ছোট্ট ব্যবসাটা কিছুদিন ধরে খুবই মন্দা চলছিল | একদিন সকালে বাবা ঘুম থেকে উঠে খবরের কাগজ পড়ছিল | তখন সবে ক্লাস সিক্সে পড়ি | বাবার পাশে বসে পরীক্ষার পড়া করছিলাম | মা রাগী রাগী মুখে সামনে এসে দাঁড়ালো | বাবাকে বললো, “ঘরে দুধ চিনি কিছুই নেই | দোকান থেকে না আনালে চা করতে পারছি না |”

বাবা চশমার ফাঁক দিয়ে চোখ তুলে বললো, “দোকানে আমি যেতে পারব না | লোকটা অনেক টাকা পায় | আর বাকিতে দেবেনা |”…বলে আবার খবরের কাগজে মুখ ডোবালো |

“আমাকেই যেতে হবে | তোমার দ্বারা কিছুই হবে না ! চল বাবু আমার সাথে “…..বলে মা বাবার উপর রেগে আমার হাত ধরে টানতে টানতে তখনই বেরিয়ে গেল |

মা তখনো ঘুম থেকে উঠে রাতের নাইটিটা ছাড়েনি | রাগের মাথায় তাড়াহুড়ো করে বেরিয়ে এসেছে | দেখি পাতলা নাইটির আবরণ ভেদ করে স্পষ্ট ফুটে উঠেছে মায়ের অন্তর্বাসহীন শরীরটা ! পেটের সঙ্গে নাইটি লেপ্টে গিয়ে মায়ের বিশাল বড় নাভির ফুটোটার গভীরতা বোঝা যাচ্ছে | ব্রেসিয়ারমুক্ত বড় বড় নরম ভারী স্তন দুটো হাঁটার তালে তালে লাফাচ্ছে | মনে হচ্ছে ওগুলো এখনই নাইটি ছিঁড়ে বেরিয়ে আসবে আর সবার সামনে মাকে অপ্রস্তুত করে দেবে !

হাতকাটা নাইটির কাঁধের কাছ থেকে নেমে এসেছে মায়ের ফর্সা মসৃণ মাংসল বাহু দুটো | কিছুটা নাইটি মায়ের ভারী পাছার খাঁজে আটকে হাঁটার তালে তালে ঘষা খাচ্ছে | মা কোনরকমে এলেবেলে করে একটা খোঁপা বেধেছে | তাতে মায়ের ঢল ঢল ঘুম ভাঙ্গা মুখটা আরো সুন্দর লাগছে | সকালের আলোয় মাকে যেন মনে হচ্ছিল সিনেমার নায়িকা |

মা এক হাতে আমার হাত ধরে শিবু কাকুর দোকানে গিয়ে দাঁড়ালো | কাকু তখন একমনে ঠোঙায় করে আটা মাপছিলো | মাকে দেখে ঠাকুর হাত চলকে আটা বাইরে পড়ে গেল | মা কাকুকে ডেকে বলল, “শিবুদা আমাদের আর কত টাকা বাকি আছে ?”

শিবুকাকু বলল , “তা অনেক হয়েছে | খাতা দেখতে হবে | কেন বৌদি ? টাকা দিতে এসেছেন ?” মা অনুনয়ের সুরে বলল, “না না | আসলে ঘরে দুধ আর চিনি ফুরিয়ে গেছে | আপনি এটা একটু লিখে রাখুন না | যত তাড়াতাড়ি পারি আপনার টাকাটা দিয়ে দেব |”

শিবুকাকু বাঁকা হেসে বললো, “ওহ ! আবার বাকি ? সেইজন্য বুঝি দাদা নিজে না এসে আপনাকে পাঠিয়েছে ? ভালোই চাল চেলেছে !”

দোকানে তখন বেশ কয়েকজন খদ্দের দাঁড়িয়ে | সবাই পাড়ার মুখ চেনা কাকু জেঠু | দেখি সবাই হাঁ করে চোখ দিয়ে মায়ের শরীরটা গিলছে | ওরা এতদিন মাকে শুধু ভদ্র সভ্য ভাবে শাড়ি পরা অবস্থায় দেখেছে | পাড়ায় মা একজন ভদ্র বাড়ির বউ হিসেবেই পরিচিত ছিল | এভাবে রাতের ঘুমানোর নাইটিতে মাকে দেখে ওনাদের প্যান্টের তলায় আদিম রিপু সুড়সুড়িয়ে উঠলো ! মা ওদের সামনে শিবু কাকুর এই কথায় বেশ অপমানিত হয়ে বলল, “আপনিও জানেন আমরা আগে কখনো বাকি রাখিনি | বললাম তো দিয়ে দেব | আপনি আমার কথা আশা করি বিশ্বাস করতে পারেন ?”

“বিশ্বাস তো করতেই হবে | দাদা আজ টাকার বদলে আপনাকে পাঠিয়েছেন যখন !তা ভালো | বলুন কি দেবো বৌদি ?”

“১০০ গ্রাম গুড়ো দুধ আর ৫০ গ্রাম চিনি “…মা ভিতরে ঢুকে যাওয়া নাইটিটা পাছার খাঁজ থেকে বের করে ঠিক করতে করতে বলল |

কেননা কাকু জেঠুদের নজর দেখে মায়েরও ততক্ষনে অস্বস্তি লাগা শুরু হয়ে গেছে | শিবুকাকু প্লাস্টিকের প্যাকেটে দুধ মাপতে মাপতে জিজ্ঞেস করল, “চায়ের জন্য, নাকি ?”

মা মাথা নেড়ে সম্মতি জানাতে বলল, “গুঁড়ো দুধের থেকে লিকুইড দুধ কিন্তু বেশি টেস্টি | চা আরো ভাল হয় |” দেখি কথা বলতে বলতে শিবুকাকুর চোখ দুটো মায়ের সারা শরীরে ঘুরে বেড়াচ্ছে |

মা মাথা নেড়ে বলল, “আমাদের তো এটাই অভ্যেস হয়ে গেছে | আমার শ্বশুরবাড়িতে শুরু থেকেই গুঁড়ো দুধের চা খায় |”

মনে হলো শিবুকাকু যেন ইচ্ছে করেই বেশি দেরি করছে | মায়ের সাথে এই আলোচনা চালাবে বলে | বলল, “আমাদের গ্রামের বাড়ীতে একটা গরু আছে | আমিতো এখনো গেলে নিজের হাতে বাঁট দুইয়ে দুধ খাই | সকালবেলার তাজা দুধে পুষ্টিই আলাদা !” মা ওর কথায় তেমন উৎসাহ না দেখিয়ে বলল, “যার মুখে যেটা ভালো লাগে |” শিবু কাকু উল্টে আরো উৎসাহিত হয়ে বলল, “না বৌদি সত্যি বলছি | আমাদের গরুটার বাঁটগুলো না খুব বড় বড় ! একেকটা বাঁটে দু’লিটার করে দুধ হয় জানেন ? সেই দুধ যেমন ঘন তেমনি পুষ্টিকর |”

কাকুর এই আলোচনায় মা স্পষ্টতই অস্বস্তি বোধ করছিল | তাড়াতাড়ি করে বললো, “গরুর দুধ সত্যিই খুব ভালো জিনিস | কি করবো বলুন ? আমাদের বাড়িতেতো গরু নেই ! আর ৫০ গ্রাম চিনি দিন দাদা |”

শিবু কাকু এবার চিনি মাপতে মাপতে মা’কে বলল, “গরুর কথা ছাড়ুন | আপনি মানুষের দুধই দেখুন না | জন্মের পর বাচ্চাকে মায়ের দুধ খাওয়াতে হয় | কোনো ডাক্তার বলবেনা গুঁড়ো দুধ খাওয়াতে |” মা অল্প কথায় বলল , “তা ঠিকই বলেছেন | একটু তাড়াতাড়ি দিন না ? উনুনে জল চাপিয়ে এসেছি |”

কিন্তু শিবুকাকুর উনুনে তখন মায়ের শরীর দেখে অন্য আগুন উঠেছে ! “আরে দিচ্ছি দিচ্ছি ! এত তাড়াহুড়ো করলে হয় ? আচ্ছা বৌদি আপনিই বলুন, আপনি নিজেও তো ছেলেকে অনেক দিন অব্দি বুকের দুধ খাইয়েছেন নিশ্চয়ই | এজন্যই তো বাবুর চেহারা স্বাস্থ্য ভালো |” ….শিবু কাকু মায়ের বুকের দিকে স্থির দৃষ্টিতে তাকিয়ে চুলকানোর ভান করে লুঙ্গির উপর দিয়ে নিজের যৌনাঙ্গটা কচলাতে কচলাতে বলল | দেখি কাকুর লুঙ্গিটা ফুলে তাবুর মতো উঁচু হয়ে উঠেছে !!

শিবু আসলে আমার কাকু নয়, জেঠুর বয়সী একটা লোক | ৫৫-৬০ বছর বয়স | তাগড়াই চেহারা | বহুদিন হলো বউ মারা গেছে | পাড়ায় কাকুর চরিত্রের খুব একটা সুনাম নেই | নিয়মিত সোনাগাছি যায় বলে রটনা আছে | প্রায় রোজ রাতেই কাকুর দোকানে শাটার নামিয়ে মদ আর তাসের জুয়ার আসর বসে | যার হুল্লোড়ে পাশের বাড়ির লোকের কান পাতা দায় হয় | এহেন লোকের মুখে সবার সামনে নিজের বুকের দুধ নিয়ে আলোচনা শুনে মা স্পষ্টতই প্রচন্ড বিব্রত বোধ করলো | লজ্জায় মাথা নিচু করে বলল, “হ্যাঁ, তা খাইয়েছি | আপনি জিনিসগুলো তাড়াতাড়ি দিন দাদা |”

শিবু কাকু চোখটা ঘুরিয়ে একবার আমার দিকে তাকালো, আবার ফিরিয়ে মায়ের নাইটি ফাটানো ভারী বুক দুটোর উপর রাখল | ধীরেসুস্থে চিনি মাপতে মাপতে বলল, “আপনারও তো চেহারা স্বাস্থ্য খুব ভালো | বুকে প্রচুর দুধ আসার কথা | আমার তো মনে হয় শুধু বাচ্চা নয়, স্বামীদেরও উচিত বউয়ের বুকের দুধ খাওয়া | খুব পুষ্টি থাকে | আপনি কি বলেন বৌদি ?” মা আর কি বলবে !! সবার সামনে এই কথা শুনে মায়ের চোখ মুখ ততক্ষণে উত্তেজনায় লাল হয়ে উঠেছে | লজ্জা চেপে কোনরকমে বলল, “ওটা খুব বেশি মিষ্টি হয় দাদা | এমনি এমনি খাওয়া যায় না |” অশ্লীল আলোচনার অস্বস্তিতে মায়ের স্তনবৃন্ত দুটো তখন খাড়া হয়ে জেগে উঠেছে নাইটির উপর দিয়ে !!

মা’কে লজ্জা পেতে দেখে শিবুকাকু আরো নির্লজ্জ হয়ে উঠল ! মায়ের শক্ত বোঁটা দুটো যেন চোখ দিয়েই ছিঁড়ে খেতে খেতে বলল, “বাচ্চা হওয়ার পর একটা বৌদির দুধ খেতে যেতাম একসময় | বৌদি কোলে শুইয়ে একটা মাই আমার মুখে আর একটা বাচ্চাটার মুখে দিয়ে একসাথে আমাদের দুধ খাওয়াতো | কই ওরটা তো তেমন কিছু মিষ্টি ছিল না ! আপনারটাই তাহলে বেশি মিষ্টি | আর দেখে বোঝা যায় অনেক দুধও ধরে | বুকে দুধ থাকলে যদি এভাবে ব্রেসিয়ার ছাড়া বেরোতেন এতক্ষণে আপনার বুকদুটো দুধে ভেসে যেত !”…..

মা শিউরে উঠে চমকে একবার আমার দিকে আর একবার শিবুকাকুর দিকে তাকালো | বাকিতে জিনিস নেওয়ার জন্য যে এই অভদ্র আলোচনা সহ্য করতে হবে মা ভাবতে পারেনি ! বাবার উপর মায়ের প্রচন্ড রাগ হচ্ছিল | কিন্তু শিবুকাকুর সঙ্গে বাজে ব্যবহার করা যাবে না | লোকটা অনেকগুলো টাকা পায় | মাল দেওয়া বন্ধ করলে সংসারে হাড়ি চড়বে না | কাকু তখন বারবার নিজের স্ফীত যৌনাঙ্গে হাত দিচ্ছে মাকে দেখিয়ে দেখিয়ে ! মা সেদিকে একবার তাকিয়ে চোখটা নামিয়ে নিল | লজ্জায় অধোবদনে বলল, “বুকে যখন দুধ ছিল আমি প্যাড-ব্রা না পরে বাইরে বেরোতাম না |”

মায়ের উত্তরে কাকু যেন আরো উত্তেজিত হয়ে উঠলো | দেখি কাকুর লুঙ্গিটা মদনরস বেরিয়ে হালকা ভিজে উঠেছে ! কাকু সেটা মায়ের কাছ থেকে লুকানোর কোন চেষ্টা না করেই বললো, “বুকে দুধ না থাকলেও ব্রা পড়া উচিত | তাতে বুকের শেপ ভালো থাকে | আপনার কত সাইজ লাগে বলুন | পরেরদিন দোকানে এনে রাখবো |”

মা প্রচন্ড বিব্রত হয়ে তাড়াতাড়ি বলল, “না না ঠিক আছে ! বাড়িতে আমার অনেকগুলো রয়েছে | ভিতরে কিছু না পড়ে আমি বাড়ির বাইরে বেরোই না | আজ তাড়াহুড়োয় ভুল হয়ে গেছে |” আমার নম্র শান্ত স্বভাবের মা দেখি অপ্রস্তুতের হাসি হেসে ব্যাপারটা সামলানোর চেষ্টা করছে | কেননা দোকানে দাঁড়ানো বাকি খদ্দেররাও কাকু আর মায়ের এই আলোচনা শুনছিল | আর অসভ্যের মত সবাই মিলে একদৃষ্টিতে মায়ের বুকের দিকে তাকিয়ে শক্ত স্তনবৃন্ত আর ব্রেসিয়ার মুক্ত ভারী বাতাবিলেবু দুটো দেখছিলো !

“মাঝে মাঝে এরকম ভুল হওয়া ভালো | একদিন আপনার বাড়িতে যাব | আপনার হাতের দুধ চা খেতে |” কাকু জিনিসগুলো মায়ের হাতে দিতে দিতে বলল | স্পষ্ট দেখলাম দেওয়ার সময় কাকু মায়ের চোখে চোখ রেখে হাতটা শক্ত করে চেপে ধরল | আমার বুকটা অজানা কোন আশঙ্কায় শিরশিরিয়ে উঠলো |

মোচড় দিয়ে হাতটা ছাড়িয়ে মা বলল, “কত হল লিখে রাখবেন | পরে সুবিধামতো ওর বাবা দিয়ে যাবে |” বলে মা তাড়াতাড়ি পিছন ফিরে আমায় নিয়ে বাড়ির দিকে রওনা দিল |

পিছন থেকে ডেকে শিবু কাকু বলল, “এরপর থেকে বাকিতে মাল নিতে হলে আপনাকেই আসতে হবে | দাদা এলে কিন্তু দেব না |”….…… অপমানে লাল থমথমে মুখে কিছু একটা চিন্তা করতে করতে মা বাড়ি ফিরে এলো | সারাদিনে বাবার সাথে একটাও কথা বললোনা |

What did you think of this story??

Comments

Scroll To Top