নিষিদ্ধ নিকেতন – ২

(Nishiddho Niketon - 2)

This story is part of a series:

সেদিনই সন্ধ্যায়……রাত তখন সাড়ে টা হবে | বাবা বাড়িতে বসে টিভিতে নিউজ দেখছিল | মা সারা সন্ধ্যা মাথা ধরেছে বলে শুয়ে কাটিয়েছে | রাত হচ্ছে দেখে বাবা জিজ্ঞেস করল, “কি হলো আজ রান্নাবাড়ি হবেনা নাকি ?”
মা শুয়ে শুয়েই উত্তর দিল, “রান্নাঘরে মশলাপাতি আনাজ সব বাড়ন্ত | রান্নাটা কি দিয়ে করবো ? যাও কিছু টাকা নিয়ে শিবুদার দোকান থেকে জিনিসগুলো নিয়ে এসো | শিবুদা আমি না গেলে তোমাকে আর বাকিতে মাল দেবে না বলেছে |” “তাহলে তুমিই যাও না ! আমার কাছে এখন টাকা পয়সা নেই“….বাবার এই কথার মায়ের চোখ দুটো যেন জ্বলে উঠলো | ঝাঁজিয়ে উঠে বলল, “লজ্জা করে না ? নিজের বউকে বারবার দোকানে পাঠাচ্ছো বাকিতে জিনিস আনতে !” বাবা মাকে ঠান্ডা করার জন্য নরম গলায় বলল, “রাগ কোরোনা | তুমি তো জানোই কন্ট্রাক্টটা পেলেই সব ঠিক হয়ে যাবে | সব বাকি মিটিয়ে দেবো | কটা দিন একটু ম্যানেজ করো লক্ষ্মীটি |” এই বলে বাবা গায়ে জামা চাপিয়ে আড্ডা মারতে বেরিয়ে গেল |

মা তখনো অবাক হয়ে বাবার যাওয়ার দিকে তাকিয়ে | সংসার নিয়ে কোনো হেলদোল নেই লোকটার ! এবার কি নিজের গায়ের সোনা বেচে সংসার চালাতে হবে ? নাকি রোজ রোজ আজ সকালের মত অপমান সইতে হবে ? নাহ্ ! এভাবে চলতে পারে না | মা মনে মনে কিছু একটা ঠিক করে নিয়ে উঠে দাঁড়ালো | আয়নার সামনে দাঁড়িয়ে নিজেকে একটু ঠিকঠাক করে নিয়ে আমাকে বললো, “আমি একটু দোকান থেকে আসছি | দুষ্টুমি না করে মন দিয়ে পড়াশুনা করো | এসে পড়া ধরবো কিন্তু !” মা বেরিয়ে গেলে আমি দরজাটা আটকে দিয়ে এসে পড়তে বসলাম | কিন্তু কিছুতেই পড়ায় মন বসছিল না | মন কেমন কু ডাকছিল | অস্বস্তি হচ্ছিল | মনে হচ্ছিল আজ আমার সাথে খুব খারাপ কিছু ঘটবে | 5 মিনিট পর দরজা বাইরে থেকে আটকে আমিও বেরিয়ে পড়লাম | কেন জানিনা মাকে ভীষণ দেখতে ইচ্ছে করছিল | মায়ের কাছে যেতে ইচ্ছে করছিল | রাস্তাঘাট তখন প্রায় ফাঁকা হয়ে এসেছে | আমি পা চালালাম শিবুকাকুর দোকানের দিকে |

দূর থেকে দেখলাম শিবুকাকুর দোকানের শাটার নামানো | তার মানে দোকান বন্ধ হয়ে গেছে | মা আবার কোনদিকে গেল তাহলে ? আরেকটু এগিয়ে দেখি দোকানের শাটার টা পুরোটা নামানো নেই | নিচ দিয়ে আলোর রেখা দেখা যাচ্ছে | এদিক ওদিক দেখতে দেখতে কি ভেবে আমি দোকানের সামনে গিয়ে নিচু হয়ে শাটারের ফাঁকে চোখ রাখলাম | সাথে সাথেই চাবুক খাওয়ার মত ছিটকে সোজা করে উঠলাম | আমি কি দেখলাম ! না না ! হতে পারে না | নিজের গায়ে একবার চিমটি কেটে দেখলাম | যা দেখলাম তা বাস্তব না স্বপ্ন বোঝার জন্য আবার নিচু হয়ে উঁকি দিলাম শাটারের ফাঁক দিয়ে | আমার মেরুদন্ড দিয়ে যেন একটা ঠান্ডা স্রোত নেমে গেল | চারপাশের চেনা পৃথিবীটা দুলে উঠলো |

দেখি, দাঁড়িপাল্লাটা টেবিল থেকে সরিয়ে নিচে নামিয়ে রাখা | টেবিলটার পাশে দাঁড়িয়ে আছে শিবুকাকু | কাকুর পরনে শুধু স্যান্ডো গেঞ্জি | লুঙ্গিটা খুলে নিচে লুটাচ্ছে | আর টেবিলটার উপর সম্পূর্ণ ল্যাংটো হয়ে চিৎ হয়ে শুয়ে আছে আমার আদরের মা !! মা এক একটা করে সংসারের প্রয়োজনীয় জিনিসের নাম বলছে | আর কাকু মায়ের পেটের উপর একটা খাতা খুলে ফর্দ লিখছে |

মা শুয়ে শুয়ে ডান হাতে পাশে দাঁড়ানো কাকুর নোংরা কাঁচাপাকা চুলে ভর্তি কালো শক্ত যৌনাঙ্গটাকে আদর করছে ! মা তখনো বলে চলেছে, “রিফাইন্ড তেল একটা, একটা সাবানের গুড়োর প্যাকেট , দুটো গায়ে মাখা সাবান , হলুদের প্যাকেট , জিরের প্যাকেট, ক্রিম বিস্কুট , চা পাতা , ওর বাবার জন্য একটা সিগারেটের প্যাকেট……….” বলতে বলতে মা কাকুর সাপের মতো ফণা তোলা উত্তেজিত যৌনাঙ্গটা শক্ত করে নিজের নরম মুঠোয় চেপে ধরে জোরে জোরে নাড়াচ্ছে |

চামড়াটা ধরে এতো জোরে আগুপিছু করছে যে লিখতে লিখতে কাকুর হাত নড়ে যাচ্ছে ! কাকু এক হাতে লিখছে আর একহাত মায়ের খোলা বুকে রেখে জোরে জোরে মায়ের নরম মাখনের তালের মত স্তন দুটো কচলাচ্ছে | বগলের চুলে হাত বুলাচ্ছে | মায়ের লাল রংয়ের নাইটিটা চিপসের প্যাকেটের পাশে এমনভাবে ঝুলছে যেন ওটাও বিক্রি হবে !

দোকানের হলুদ আলোর বাল্ব আর উপরে ক্যাঁচকোঁচ শব্দে ঘুরতে থাকা পাখা আবহাওয়াটা যেন আরও ভয়াবহ করে তুলেছে | মনে হলো দুঃস্বপ্নে কোন নরকের দৃশ্য দেখছি ! একছুটে পালিয়ে যেতে ইচ্ছে করছিল | কিন্তু পা দুটো যেন মাটির সাথে আঠার মত সেঁটে রইল |

ফর্দ লেখা শেষ করে কাকু খাতাটা সরিয়ে রাখল | মুখ থেকে খৈনিটা ফেলে হাতটা মায়ের নাইটিতে মুছে নিল | পরনের স্যাণ্ডোগেঞ্জিটা খুলে পাশে রাখল | আমার চোখের সামনে তখন দুটো আদিম উলঙ্গ নরনারী নিষিদ্ধ যৌনমিলনের জন্য প্রস্তুত হয়েছে | আর সেই নারী অন্য কেউ নয়, আমার নিজের গর্ভধারিনী মা ! অথচ পুরুষটা আমার বাবা নয় | মায়ের থেকে বয়সে অনেকটা বড় একটা কামাতুর চরিত্রহীন লম্পট লোক ! যে আজ সকালেই চোখ দিয়ে আমার মায়ের পবিত্র শরীরটা ছেনছিল |

তখনই আমার লোকটার উপর ভীষণ রাগ হয়েছিল | মনে হচ্ছিল মাকে বলি, “চলো মা, আমরা অন্য দোকানে যাই |” আর এখন মা তার সামনেই নিজের উলঙ্গ শরীরটা পুজোর নৈবিদ্যের মত সাজিয়ে দিয়েছে ! যে হাত দুটো দিয়ে স্বামীছেলের সেবা করে সেই হাতে ধরে আছে কাকুর কালো, সাপের মত লকলকে পুরুষাঙ্গটা !

মায়ের নরম আদুরে ফর্সা শরীরের পাশে কাকুর ভুঁড়িওয়ালা মুশকো রোমশ শরীরটা ভীষণ বেমানান লাগছিল | কাঁচাপাকা চুলে ভর্তি চওড়া বুকটা দেখে মনে হচ্ছিল লোকটা ওখানে মাকে লুকিয়ে ফেললে বাবা কোনদিনও খুঁজে পাবে না ! মায়ের উপর ক্ষোভে অভিমানে আমার চোখে জল চলে এলো |

কাকু মায়ের একটা বুকে হাত রাখল | মায়ের লালচে খয়েরি রঙের স্তনবৃন্ত দুটো ততক্ষনে আবার সকালের মত শক্ত হয়ে উঠেছে | শুধু এখন আর নাইটিটা নেই বুকের লজ্জা আড়াল করার জন্য ! মনে হচ্ছিল যেন জলে ভেজানো বড় বড় দুটো কিসমিস অপেক্ষা করছে কাকুর কামড় খাওয়ার জন্য ! কাকু একদিকের স্তন সজোরে মুচড়ে ধরলো | আর বড় লকলকে জিভটা বের করে চাটতে লাগলো মায়ের আরেকটা দুদু |

কাকুর খৈনি খাওয়া মুখের লালায় ভিজে উঠল মায়ের পাকা বাতাবি লেবুর মত বড় দুদুটা | পরপুরুষের খসখসে ক্ষুধার্ত জিভের ঘষায় আর গরম নিঃশ্বাসে মায়ের সারা বুকের রোমকূপ জেগে উঠলো | কাকুর জীভ তখন মায়ের খাড়া হয়ে থাকা বোঁটা নিয়ে খেলা করছে | জিভটা সরু করে নাড়াচ্ছে মায়ের বোঁটার দানাটা | নাড়াতে নাড়াতে কাকু হঠাৎ দাঁত দিয়ে কামড়ে ধরল মায়ের বোঁটার ডগার কিসমিসটা | মাআউচ্আআআহহহ্হ্….আস্তেএএএ….” বলে চোখ উল্টে নিজের ঠোঁট কামড়ে ধরল | আদরের আরামে নিজের অজান্তেই মা এক হাতে কাকুর চুল খামচে আরেকটা হাত মাথার উপরে তুলে দিল |

মায়ের সারা বুকে ছোট্ট ছোট্ট চুমু খেতে খেতে কাকুর কালচে ঠোঁট টা এগিয়ে গেল বগলের দিকে | জিভ বের করে চাটতে লাগলো মায়ের কাঁচি দিয়ে ছোট ছোট করে কাটা চুলে ভরা বগলটা | চেটে চুষে কামড়ে কাকু মায়ের সারা বগলটা ভিজিয়ে দিল | মায়ের সারা শরীরটা তখন আরামের চোটে শিউরে শিউরে উঠছে | কাকু মায়ের একটা বুক খামচে ধরে আর একহাতে মায়ের গাল টিপে হাঁ করালো | তার পর জিভ বের করে উপর থেকে মায়ের মুখের মধ্যে লালা ফেলতে লাগল |

লালা ফেলতে ফেলতে মুখটা নামিয়ে আনলো মায়ের মুখের ভিতর | মোটা পুরুষালী ঠোঁট দিয়ে চেপে ধরল মায়ের নরম গোলাপি ঠোঁট দুটো | জীভ আর টাকরা দিয়ে মায়ের জিভটা চেপে চুষতে লাগলো তৃষ্ণার্ত পথিকের মত | মায়ের উপরের ঠোঁটটা ডুবে গেল কাকুর পুরুষ্টু গোঁফ এর মধ্যে | মা চোখ দুটো বড় বড় করে আঁকড়ে ধরল কাকুর পিঠটা | আর কাকু পাগলের মত নিজের পাড়ার এই সুন্দরী গৃহবধূর ঠোঁট জিভ চুষে কামড়ে লালা খেতে লাগলো | মনে হচ্ছিল যেন কাকু আজকেই মায়ের মুখের সব লালা শুষে শেষ করে দেবে ! ওদের দুজনের চুম্বনের চক্ চক্ আওয়াজে ঘরটা ভরে উঠলো |

What did you think of this story??

Comments

Scroll To Top