আমার জীবনের কাহিনী পর্ব – ০২

এভাবে কত সময় পার হয়ে গেছিলো বলতে পারবোনা। যখন রাতের খাবার এর জন্য আম্মু ডাকলো, তখন বুঝতে পারলাম অনেক রাত হয়ে গেছে। তারাতারি বিছানা থেকে উঠে নিজের জামা কাপড় ঠিক করে বুকের উপরে ওড়না দিয়ে নিলাম। দেখলাম ছোট ভাই এর মুখ পুরো লাল হয়ে গেছে। তাই ছোট ভাইকে বাথরুমে গিয়ে হাত মুখ ধুয়ে নিতে বললাম, আর আমি নিজেও আমার হাত মুখ ধুয়ে নিয়ে দুই ভাই বোন রাতের খাবার এর জন্য ডাইনিং রুমে গেলাম।

বাসার সবাই একসাথে রাতের খাবার খেতে বসলাম। খেতে খেতে আম্মু একটা কাগজের লিস্ট আমার বড় ভাইকে দিয়ে বলল,

আম্মু বলল- কালকে বিকালে তুমি সুমিকে সাথে করে নিয়ে মার্কেটে গিয়ে এই জিনিস গুলো কিনে আনবে।

বড় ভাইয়া বলল- ঠিক আছে আম্মু।

আমি মনে মনে ভাবলাম, ভালোই হলো। কালকে বড় ভাই এর সাথে কিছু সময় কাটানো যাবে। কালকে আমি আমার বড় ভাইকে আমার দিকে আকৃষ্ট করার সুযোগ পাবো। আমি এইসব ভাবতে ভাবতে খাবার খাচ্ছিলাম, ঠিক তখনি বড় ভাইয়া আমাকে বলল,

বড় ভাইয়া বলল- সুমি, কালকে বিকাল চারটায় রেডি থাকিস।

আমি বললাম- ঠিক আছে ভাইয়া। আমি রেডি থাকবো।

রাতের খাবার শেষ করে আমি আমার রুমে ফিরে আসলাম। আমার ছোট ভাইও আমার পিছনে পিছনে আমার রুমেই আসলো। ছোট ভাই আমার রুমের ভিতরে প্রবেশ করার পরেই আমি ভিতর থেকে রুমের দরজা লক করে দিলাম। রুমের ভিতরে ঢুকেই আমি পড়ার টেবিলে বসে পাশের চেয়ারটা টেনে নিয়ে ছোট ভাইকে বসতে বললাম। ছোট ভাই আমার পাশের চেয়ারে বসার পরে বার বার আমার বুকের দিকে তাকাচ্ছিলো। আমি দেখলাম তখন আমার বুকের উপরে ওড়না দিয়ে দুধ গুলো ঢেকে রাখা আছে। আমি বুঝতে পারলাম যে, ছোট ভাইয়া আশা করেছিলো যে, আমি আবারো আমার ওড়নাটা খুলে রাখবো।

আমি খেয়াল করলাম, ছোট ভাই বার বার আমার দুধের দিকে তাকাচ্ছিলো। আমি ছোট ভাইকে বললাম,
আমি বললাম- এখন একটু পড়ে নে ভাই। তার পরে তোর রুমে গিয়ে শুয়ে পরিস।

ছোট ভাই খুব মন খারাপ করে একটা বই খুলে পরতে লাগলো। কিন্তু, বই পড়তে পড়তে মাঝে মাঝে বার বার আমার দুধের দিকে তাকাচ্ছে। আমি ছোট ভাই এর দিকে তাকিয়ে আমার বুকের উপর থেকে ওড়নাটা খুলে বিছানার এক পাশে ছুরে ফেলে দিলাম। ওড়না খোলার সাথে সাথে ছোট ভাই এর মুখে একটা হাঁসি ফুটে উঠলো। ছোট ভাই আজকে প্রথম দিনেই আমার প্রতি এতোটা আকৃষ্ট হওয়াতে আমি মনে মনে অনেক খুশি ছিলাম। ছোট ভাই এতো তাড়াতাড়ি আমার প্রতি এতো আকৃষ্ট হবে সেটা আমি আগে ভাবতে পারিনাই।

কিছুক্ষণ পড়ার পরে ছোট ভাই আমার বুকের দিকে তাকিয়ে আমাকে বলল,

ছোট ভাই বলল- তোমার পীঠের চুলকানি ভালো হয়েছে কি আপু?

আমি বললাম- ভালো হয়নি, তবে কমেছে।

ছোট ভাই বলল- আবার আমি চুলকায়ে দিবো নাকি আপু?

আমি মনে মনে অনেক খুশি হলাম। ছোট ভাই আমার শরীরটা নিয়ে খেলার চেষ্টা করছে। আমি ছোট ভাইকে বললাম,

আমি বললাম- আমার পীঠের চুলকানিটা অনেক কমে গেছে। শুধু আমার বুকে আর আমার পেটে একটু বেশি চুলকাচ্ছে।

ছোট ভাই বলল- তাহলে আমি কি তোমার বুকে আর পেটে চুলকায়ে দিবো আপু?

আমি বললাম- দিলে তো ভালোই হয়। কিন্তু এটা ঠিক হবেনা।

ছোট ভাই বলল- কেনো আপু? ঠিক হবেনা কেনো?

আমি বললাম- তুই আমার নিজের ছোট ভাই। আমরা আপন ভাই বোন। তুই তোর নিজের বড় বোন এর বুকে আর পেটে হাত দিয়ে টিপাটিপি করবি, সেটা মানুষ জানলে খারাপ বলবে। মানুষ তো আর বুঝবেনা যে তুই আমার বুকে আর পেটে চুলকায়ে দিচ্ছিস। আর আব্বু, আম্মু, বড় ভাইয়া জানলেও বকা দিবে।

ছোট ভাই বলল- মানুষ বা আব্বু, আম্মু আর ভাইয়া কিভাবে জানবে আপু? রুমের দরজা তো ভিতর থেকে লক করা আছে। আমরা দুই ভাই বোন ছাড়া তো অন্য কেউ এই রুমে নাই। আমি তো কখনো কাউকে কিছুই বলবোনা। তুমিও কাউকে কিছুই বলোনা আপু। তাহলে তো আর কেউ জানতে পারবেনা।

আমি বললাম- ঠিক আছে তাহলে। তুই যখন এতো জেদ করছিস।

ছোট ভাই বলল- তাহলে আপু তুমি বিছানায় শুয়ে পরো।

আমি চেয়ার থেকে উঠে বিছানায় গিয়ে উপুর হয়ে শুয়ে পরলাম। আমার পিছে পিছে ছোট ভাই চেয়ার থেকে উঠে বিছানায় এসে আমার পাশে বসে আমার পীঠের উপরে হাত বুলাতে বুলাতে বলল,

ছোট ভাই বলল- আপু, তুমি তো বললে যে, তোমার বুকে আর পেটে চুলকাচ্ছে। এভাবে উপুর হয়ে শুয়ে থাকলে আমি কিভাবে তোমার বুকে আর পেটে চুলকায়ে দিবো? তুমি উল্টায়ে চীত হয়ে শুয়ে থাকো।

আমি ছোট ভাই এর কথা শুনে মনে মনে হাসতে হাসতে চীত হয়ে শুলাম। অনুভব করলাম আমার গলাটা যেন শুকিয়ে গিয়েছে। আমার হৃৎপিণ্ডটা যেন দ্রুত গতিতে চলছিলো। ছোট ভাই আমার পেটের উপরে তার হাত বুলাতে লাগলো। অদ্ভুত একটা অনুভুতি আমার শরীরে হচ্ছিলো। আমি কি উত্তেজিত হয়ে পরছি?

এবার ছোট ভাই তার হাত দুটো আমার কোমর থেকে ধীরে ধীরে উপরে উঠাতে লাগলো। আমার দুধ দুটোকে কোন রকমে না ছুয়ে হাত দুটো আমার বগলে নিয়ে গেল। ছোট ভাই ধীরে ধীরে তার হাত দুটোকে উপরে তুলে আমার ব্রা ছুলো। ধীরে ধীরে ব্রা এর চারিদিকে হাত বুলালো। আমি চুপচাপ শুয়ে ছোট ভাইকে দেখছিলাম। আমি কিছু বলছিনা দেখে ছোট ভাই এর সাহস বেড়ে গেলো। ছোট ভাই তার একটা হাত ধীরে আমার ডান পাশের দুধের উপরে রাখলো আর আমার মুখের দিকে তাকিয়ে আমার জামা আর ব্রা এর উপর দিয়ে আমার দুধ এর চারি দিকে হাত বোলাতে লাগলো।

অদ্ভুত এক অনুভুতি পেলাম। আমার হৃৎপিণ্ডটি ঢাক ঢাক করে যেন বাজছিলো। আমি চুপচাপ শুয়ে ছোট ভাইকে দেখছিলাম। এবার ছোট ভাই তার দুই হাত দিয়ে আমার দুটো দুধ এর উপর গোল গোল করে হাত বোলাতে লাগলো। আমি খেয়াল করলাম, ছোট ভাই হাত বোলাতে বোলাতে জামার উপর দিয়েই আমার দুধ দুটোকে টিপতে শুরু করেছে।

আমি আশ্চর্য হয়ে ছোট ভাই এর দিকে তাকিয়ে ছিলাম। ছোট ভাই আমার চোখের দিকে তাকিয়ে তাড়াতাড়ি তার হাত দুটোকে আমার দুধ এর উপর থেকে সরিয়ে আবার আমার পেট আর কোমর এর উপরে রাখলো। আমার গলা একদম শুকিয়ে গিয়েছিলো।

ছোট ভাই তার হাত দুটো আমার কোমর থেকে নিচে নামিয়ে আমার উরুতে রাখলো। ছোট ভাই এর হাতের আঙ্গুল গুলো আমার জাঙ্গের উপর রেখে আস্তে আস্তে চাপ দিয়ে হাত ঘোরাতে লাগলো। ছোট ভাই তার হাত ধীরে ধীরে আমার দুই পায়ের সংগম স্থল এর উপর আমার যোনির পাস দিয়ে নিয়ে গেলো। আমি একটা দীর্ঘ নিশ্বাস ছাড়লাম।

আমি ছোট ভাইকে বললাম,

আমি বললাম- আজকে এই পর্যন্তই থাক। এখন তুই তোর রুমে গিয়ে শুয়ে পর।

ছোট ভাই বলল- আর একটু সময় থাকি আপু।

আমি বিছানা থেকে উঠে ছোট ভাই এর মাথায় হাত বোলাতে বোলাতে বললাম,

আমি বললাম- আমি তো কোথাও হারিয়ে যাচ্ছিনা। আবার কালকে রাতে করিস। অনেক রাত হয়েছে। যা ঘুমিয়ে পর।

ছোট ভাই আর কিছু না বলে তার বই খাতা নিয়ে নিজের রুমে চলে গেল আর আমি বিছানায় শুয়ে শুয়ে ভাবতে লাগলাম, ছোট ভাইকে তো মোটামুটি আকৃষ্ট করতে পেরেছি। কালকে বিকালে বড় ভাইয়া কে কিভাবে আকৃষ্ট করা যায়।

পরের দিন বিকালে চারটা বাজার আগেই আমি রেডি হয়ে বড় ভাইয়ার জন্য অপেক্ষা করতে লাগলাম। কিছুক্ষণ পরেই বড় ভাইয়া এসে আমাকে ডাকলো। আমি আর বড় ভাইয়া একসাথে মার্কেটে গেলাম। মার্কেটে ঢুকেই আমি আর ভাইয়া পাশাপাশি হাঁটছিলাম। ভাইয়া আমার ডান পাশে ছিল আর আমি ভাইয়ার বাম পাশে হাঁটছিলাম। হাঁটতে হাঁটতে আমি আমার দুই হাত দিয়ে ভাইয়ার বাম হাতটা জড়িয়ে ধরে হাঁটতে লাগলাম। আমি এমন ভাবে ভাইয়ার বাম হাতটা জড়িয়ে ধরেছিলাম যে, ভাইয়ার বাম হাতের বাহুটা আমার ডান পাশের দুধ এর সাথে চেপে লেগে ছিল। ভাইয়ার হাতটা আমার দুধ এর সাথে লাগার সাথে সাথে ভাইয়া চমকে উঠে আমার দিকে তাকালো। আমি ভাইয়ার দিকে তাকিয়ে একটা মুচকি হাঁসি দিলাম। তখনো ভাইয়ার বাম হাতটা আমার ডান পাশের দুধ এর সাথে চেপে লেগে ছিল। ভাইয়া কিছু না বলে চুপচাপ হাঁটতে লাগলো।

আমি আর ভাইয়া মার্কেট এর বিভিন্ন দোকান ঘুরে ঘুরে আম্মুর দেওয়া লিস্ট অনুযায়ী জিনিসপত্র গুলো কেনাকাটা করছিলাম। কিন্তু আমি আমার বড় ভাই এর হাত ছারছিলামনা। ভাইয়ার হাত আমি আমার বুকের সাথে চেপে ধরে রেখেছিলাম। কখনো কখনো ভাইয়ার বাম হাতের বাহুটাতে আমি আমার ডান পাশের দুধটা চেপে ধরছিলাম। আবার কখনো কখনো আমি আমার ডান পাশের দুধটা ভাইয়ার বাম হাতের বাহুর সাথে ঘসাঘসি করছিলাম। আমি সম্পূর্ণভাবে সুযোগের সৎব্যাবহার করছিলাম।

বড় ভাইয়াকে কাছে পেয়ে আমি তো ইঞ্জয় করছিলাম ঠিকই, ভাইয়াও আমাকে কিছু বলছিলনা। তাই আমার সাহস আরো একটু বেড়ে গেলো। তাই আমি মনে মনে ভাইয়াকে আরো একটু বেশি আকৃষ্ট করার সিদ্ধান্ত নিলাম। আমি হটাত করেই বললাম,

আমি বললাম- আরে ভাই, আমি তো আমার পার্সটা আনতে ভুলে গেছি।

বড় ভাইয়া বলল- পার্স দিয়ে কি করবি?

আমি বললাম- আমি একটা জিনিস কিনতে চেয়েছিলাম। কিন্তু, আমার টাকা তো পার্সে আছে ভাইয়া। টাকা আনতেই ভুলে গেছি।

বড় ভাইয়া বলল- সমস্যা নাই। আমার কাছে টাকা আছে। তোর যা প্রয়োজন কিনে নে।

আমি বললাম- ওয়াও ভাইয়া। তুমি আমাকে গিফট কিনে দিতে চাচ্ছো নাকি?

বড় ভাইয়া বলল- আমি কি আমার একমাত্র বোনকে গিফট কিনে দিতে পারিনা?

আমি বললাম- অবশ্যই তুমি আমাকে গিফট কিনে দিতে পার ভাইয়া। কিন্তু, এখন আমি যেটা কিনতে চেয়েছিলাম সেটা তোমার কাছ থেকে গিফট হিসাবে নিতে আমার একটু লজ্জা করবে।

বড় ভাইয়া বলল- কি এমন জিনিস তুই কিনতে চেয়েছিলি যে নিজের বড় ভাই এর কাছ থেকে নিতে তোর লজ্জা লাগবে?

আমি বললাম- আসলে ভাইয়া, আমি এক সেট ব্রা পেনটি কিনতে চেয়েছিলাম।

বড় ভাইয়া বলল- ওহ। তাহলে আমি তোকে টাকা দিচ্ছি। তুই দোকানে গিয়ে কিনে নিয়ে আয়।

আমি বললাম- তাহলে তো সেটা গিফট হবেনা ভাইয়া। যদি গিফট দিতে চাও তাহলে তুমি নিজে পছন্দ করে কিনে দাও।

বড় ভাইয়া বলল- কি বলছিস তুই? আমি কিভাবে পছন্দ করে দিবো? ব্রা পেনটি সম্পর্কে আমার কোন ধারনাই নাই।

আমি বললাম- তোমার ধারনা থাকা লাগবেনা ভাইয়া। দোকানে যেটা তোমার পছন্দ হবে সেটাই কিনে দাও।

বড় ভাইয়া বলল- আমি পারবোনা। তুই নিজে কিনে নিয়ে আয়।

আমি আর বড় ভাইয়া কথা বলতে বলতে মার্কেটে হাঁটছিলাম। তখনো ভাইয়ার বাম হাতটা আমি আমার বুকের সাথে জড়িয়ে ধরে ছিলাম। আমি ভাইয়ার হাতটা ধরে আমার ডান পাশের দুধ এর সাথে কয়েকটা ঘসা দিয়ে বললাম,

আমি বললাম- প্লিজ ভাইয়া। এই প্রথম তুমি তোমার একমাত্র বোনকে এক সেট ব্রা পেনটি গিফট করছো। সেটা তুমি নিজে পছন্দ করে কিনে না দিলে কিভাবে হবে?

বড় ভাইয়া বলল- কি রঙের নিবি বল?

আমি খুশি হয়ে বললাম- কালো রঙের কিনো ভাইয়া।

বড় ভাইয়া বলল- কিন্তু ব্রা পেনটির তো বিভিন্ন সাইজ হয়। কোন সাইজ এর কিনবো?

আমি হো হো করে হাসতে হাসতে বললাম- এতো দিনেও তুমি তোমার একমাত্র বোন এর ফিগার এর সাইজ জানোনা ভাইয়া?

বড় ভাইয়া বলল- আমি কিভাবে জানবো?

আমি বললাম- তার মানে তুমি কখনই ভালো ভাবে আমার দিকে তাকিয়ে দেখনি, তাই না ভাইয়া?

বড় ভাইয়া বলল- তুই আমার নিজের বোন। আমি কিভাবে তাকিয়ে তাকিয়ে তোর ফিগার দেখবো, তুই বল।

আমি বললাম- সেটা অবশ্য তুমি ঠিক কথাই বলেছো ভাইয়া। আমার ফিগার এর সাইজ কত হতে পারে, তোমার ধারনা কি ভাইয়া?

ভাইয়া বলল- আমার কোন ধারনাই নাই।

সঙ্গে থাকুন …