আমার জীবনের কাহিনী পর্ব – ০৩

আমরা দুই ভাই বোন কথা বলতে বলতে একটা লেডিস আন্ডার গার্মেন্টস এর দোকানে ঢুকলাম। দোকানদার আমাদেরকে জিজ্ঞাসা করলো কি লাগবে? দোকানদারের কথা শুনে ভাইয়া আমার দিকে তাকালো। আমি ভাইয়াকে বলার জন্য ইসারা করলাম। ভাইয়া দোকানদারকে বলল, ভালো কোয়ালিটির এক সেট ৩২ সাইজ এর ব্রা আর পেনটি দেখান। দোকানদার অনেক রঙের অনেকগুলো ব্রা পেনটি বাহির করে দিলো। ভাইয়া আমার দিকে তাকিয়ে বলল,

বড় ভাইয়া বলল- পছন্দ করে নে।

আমি বললাম- তুমি পছন্দ কর।

ভাইয়া ব্রা আর পেনটি গুলো একটা একটা করে হাতে নিয়ে ভালো করে দেখতে লাগলো। আমি শুধু ভাইয়ার দিকেই দেখছিলাম। ভাইয়ার চেহারা লজ্জায় লাল হয়ে গিয়েছিলো। ভাইয়া একটা কালো রঙের ব্রা আর পেনটি পছন্দ করে দোকানদার এর হাতে দিয়ে বলল এইগুলো প্যাকেট করেন। দোকানদার ভাইয়ার পছন্দ করা ব্রা আর পেনটি প্যাকেট করছিলো। কিন্তু তখনো ভাইয়া একটা লাল রঙের ব্রা আর একটা লাল রঙের পেনটি হাতে নিয়ে বার বার দেখছিলো। আমি ভাইয়ার দিকে তাকিয়ে ছিলাম। লাল রঙের ব্রা আর পেনটিটা দোকানদার এর দিকে এগিয়ে দিয়ে ভাইয়া বলল, এগুলোও প্যাকেট করে দেন।

দোকান থেকে বাহির হয়ে আমি ভাইয়ার বাম হাতটা আমার বুকের সাথে জোরে চেপে ধরে বললাম,

আমি বললাম- থ্যাংক ইউ ভাইয়া।

বড় ভাইয়া বলল- তোর পছন্দ হয়েছে?

আমি বললাম- হ্যা ভাইয়া। খুব পছন্দ হয়েছে। লাল রঙের ব্রা আর পেনটিটা কেনো কিনে দিলে ভাইয়া?

বড় ভাইয়া বলল- দেখে ভালো লাগলো। মনে হলো তোকে এই লাল রঙের ব্রা আর পেনটিতে অনেক সুন্দর লাগবে।

আমি আর ভাইয়া সব কেনাকাটা করে রাত প্রায় নয়টার সময় বাসায় ফিরলাম। বাসায় ফিরে দেখি ছোট ভাই তার বই খাতা নিয়ে আমার জন্য অপেক্ষা করছে। বড় ভাইয়া তার নিজের রুমে চলে গেলো আর আমি ছোট ভাইকে সাথে নিয়ে আমার নিজের রুমে ঢুকে দরজা লক করে দিলাম। আমি বড় ভাইয়ার গিফট দেওয়া ব্রা পেনটির প্যাকেট বিছানার উপরে রেখে দিলাম আর আমার বুকের উপর থেকে ওড়নাটা খুলে রেখে দিলাম। আমি ছোট ভাইকে বললাম,

আমি বললাম- তুই পড়তে বস। আমি হাত মুখ ধুয়ে জামা কাপড় চেঞ্জ করে নেই।

ছোট ভাই বলল- ঠিক আছে আপু।

আমি বাথরুমে গিয়ে আমার হাত মুখ ধুয়ে আসলাম। দেখলাম ছোট ভাই বসে বই পড়ছে। আমি আমার ছোট ভাই এর সামনে গিয়ে কথা বলতে বলতে আমার জামা খুলতে শুরু করলাম। ছোট ভাই আমাকে বলল,

ছোট ভাই বলল- এটা কি করছো আপু?

আমি বললাম- কেনো, কি হয়েছে?

ছোট ভাই বলল- তুমি আমার সামনেই তোমার জামা খুলতেছো?

আমি বললাম- তুই তো আমার আপন ছোট ভাই। তোর সামনে জামা খুলে চেঞ্জ করলে সমস্যা কি?

ছোট ভাই বলল- আমার কোন সমস্যা নাই আপু। তুমি আগে কখনো এভাবে আমার সামনে জামা খুলে চেঞ্জ করনি তো, তাই বললাম।

আমি বললাম- ঠিক আছে তাহলে। আমি বাথরুমে গিয়ে আমার জামা কাপড় চেঞ্জ করে আসছি।

ছোট ভাই বলল- না না আপু। বাথরুমে যাওয়ার দরকার নাই। তুমি এখানেই জামা কাপড় চেঞ্জ কর। আমি তোমার শরীরটা ভালো করে দেখি।

ছোট ভাই এর কথা শুনে আমি রেগে গিয়ে বললাম- কি বলছিস এসব? তোর মাথা ঠিক নাই নাকি? আমার শরীরটা ভালো করে দেখবি মানে কি? আমি তোর নিজের বড় বোন। সেটা ভুলে গেছিস নাকি?

ছোট ভাই বলল- আরে আপু। তুমি আমাকে ভুল বুঝতেছো। গতকালকে তোমার পীঠ আর শরীরে যেই চুলকানি হয়েছিলো, সেইটা কিসের জন্য হয়েছিলো? তোমার শরীরে ঘামাচি উঠেছে কিনা সেইটা ভালো করে দেখার কথা বলছিলাম আমি।

আমি বললাম- ওহ আচ্ছা। ঠিক আছে। ভালো করে দেখ তাহলে।

আমি আমার ছোট ভাই এর সামনেই আমার জামাটা খুলে দিলাম। তখন আমি ছোট ভাই এর সামনে শুধু একটা কালো রঙের ব্রা আর একটা কালো রঙের পায়জামা পরে দারিয়ে ছিলাম। ছোট ভাই অবাক দৃষ্টিতে আমার শরীরটা উপভোগ করছিলো। আরও ভালো করে দেখার জন্য ছোট ভাই একটু এগিয়ে আমার কাছে চলে আসলো। ছোট ভাইয়া আমার থেকে মাত্র এক ফুট দূরত্বে আমার সামনে দারিয়ে ছিল। আমি ঘুরে গিয়ে ছোট ভাই এর দিকে আমার পীঠ করে দারালাম।

আমি বললাম- ভালো করে দেখ, আমার পীঠে ঘামাচি উঠেছে কি না।

ছোট ভাই তার দুই হাত আমার নগ্ন পীঠে রাখলো আর আস্তে আস্তে পীঠে হাত বোলাতে লাগলো। আমার ঘাড় থেকে কোমর পর্যন্ত হাত বোলাতে বোলাতে ছোট ভাই বলল- পীঠে তো কোন ঘামাচি নাই আপু।

আমি বললাম- একটু থাম।

ছোট ভাইকে থামিয়ে দিয়ে ছোট ভাই এর দিকে পীঠ করেই আমি আমার পায়জামাটা খুলে দিলাম। দেখলাম, ছোট ভাই হা করে আমার পাছার দিকে তাকিয়ে দেখছে। আমি পড়ার টেবিলের উপরে আমার দুই হাতের কুনুই এর উপরে ভর দিয়ে ঝুকে দারালাম। আমি টেবিলের উপরে ঝুকে দারিয়ে ছোট ভাই এর দিকে আমার পাছাটা উঁচু করে দিয়ে বললাম- নে, ভালো করে দেখ।

ছোট ভাই এগিয়ে এসে আমার পাছার পিছনে হাটু গেড়ে বসে তার দুই হাত আমার পাছার উপরে রেখে আস্তে আস্তে টিপতে লাগলো। ছোট ভাই আমার পাছা টিপতে টিপতে দুই দিকে টেনে আমার পাছাটা ফাঁকা করার চেষ্টা করছিলো।

ছোট ভাই বলল- আপু, পা দুইটা একটু ফাঁকা করো।

আমি আমার দুই পা ফাঁকা করে দারালাম। ছোট ভাই তার দুই হাত আমার দুই পায়ের মাঝে ঢুকিয়ে দিয়ে বলল- আর একটু ফাঁকা কর আপু।
আমি আমার পা দুইটা আরও ফাঁকা করে দারালাম। ছোট ভাই তার হাত উপরে, ঠিক আমার দুই পায়ের সংযোগস্থলে যোনীর কাছে নিয়ে গেলো। ছোট ভাই এর আঙ্গুল পেনটির উপর দিয়ে আমার যোনীতে ঘসা খাচ্ছিলো। যোনীতে ছোট ভাই এর আঙ্গুল এর স্পর্শ পেয়ে নিজের অজান্তেই আমার মুখ দিয়ে শব্দ বেরিয়ে আসলো- আহহহহহহহহহহহহহ।

ছোট ভাই বলল- ব্যথা পেলে নাকি আপু?

আমি বললাম- না, ব্যথা পাইনি। তুই কি দেখলি? পিছনে ঘামাচি উঠেছে নাকি?

ছোট ভাই বলল- না আপু। একটাও ঘামাচি উঠেনি।

আমি বললাম- তাহলে এবার সামনে ভালো করে দেখ।

এই কথা বলে আমি ছোট ভাই এর দিকে ঘুরে দারালাম। ছোট ভাই এগিয়ে এসে আমার পেটের উপরে হাত বোলাতে বোলাতে বলল- আপু, চলো বিছানায় যাই।

আমি বিছানায় যাবো, এমন সময় আমার মবাইল এ আম্মুর কল আসলো। আম্মু আমাদের দুই ভাই বোনকে রাতের খাবারের জন্য যেতে বলল। আমি ছোট ভাই এর দিকে তাকিয়ে দেখলাম সে মাথা নিচু করে বিছানায় পা ঝুলিয়ে বসে আছে। আমি জিজ্ঞাসা করলাম- তোর আবার কি হলো?

ছোট ভাই বলল- এতো তাড়াতাড়ি কেউ রাতের খাবার খায় নাকি।

আমি ছোট ভাইকে ঘড়ি দেখিয়ে বললাম- দেখ রাত সাড়ে দশটা বেজে গেছে।

আমি জামা কাপড় পরে ডাইনিং রুমে গেলাম। ছোট ভাই এর ইচ্ছা না থাকলেও আমার সাথে ডাইনিং রুমে গেলো।

পরের দিন শুক্রবার, তাই সবার বাসাতেই থাকার কথা ছিল। কিন্তু আব্বু বিজনেস এর কাজে সকালেই বাহিরে চলে গেলো। আম্মুর এনজিও’র একটা প্রোগ্রাম ছিল। সেই প্রোগ্রামে আম্মু আমার ছোট ভাইকে সাথে নিয়ে গেলো। যাওয়ার আগে আম্মু বলে গেলো যে বিকেলের মধ্যেই ফিরে আসবে। বাড়িতে শুধু আমি আর বড় ভাইয়া থেকে গেলাম।

সকাল এগারোটার দিকে আমি গোসল করে বড় ভাইয়ার গিফট দেওয়া কালো রঙের ব্রা আর পেনটি পরে নিজেকে ড্রেসিং টেবিল এর আয়নায় দেখতে লাগলাম। নিজেকে আয়নায় দেখতে দেখতে চিন্তা করলাম, আজকে বাড়িতে শুধু আমি আর আমার বড় ভাইয়া আছি। এই সুযোগে আমি বড় ভাইয়াকে আমার প্রতি আকৃষ্ট করার চেষ্টা করতে পারি।

আমি আমার মোবাইলটা হাতে নিয়ে কালো রঙের ব্রা আর পেনটি পরা অবস্থাতেই কয়েকটা ছবি উঠালাম। কোনটা আমার মাথা থেকে কোমর পর্যন্ত হাফ ছবি, আবার কোনটা আমার মাথা থেকে পা পর্যন্ত। কয়েকটা ছবি উঠানোর পরে আমি কালো রঙের ব্রা আর পেনটি খুলে লাল রঙের ব্রা আর পেনটি পরে কয়েকটা ছবি উঠালাম।

আমি জামা, পায়জামা আর ওড়না পরে মোবাইলটা হাতে নিয়ে বড় ভাইয়ার রুমে গেলাম। বড় ভাইয়ার রুমের দরজায় নক করতেই ভাইয়া দরজা খুলে আমাকে জিজ্ঞাসা করলো,

বড় ভাইয়া বলল- কিরে সুমি, কিছু বলবি?

আমি বললাম- হ্যা ভাইয়া।

বড় ভাইয়া বলল- রুমের ভিতরে আয়।

আমি বড় ভাইয়ার রুমের গিয়ে ভাইয়ার বিছানায় পা ঝুলিয়ে বসলাম। আমি বললাম- তুমি কি করছিলে ভাইয়া?

বড় ভাইয়া বলল- তেমন কিছু না। বই পরছিলাম।

আমি বললাম- আমি এসে কি তোমাকে বিরক্ত করলাম ভাইয়া?

বড় ভাইয়া বলল- আরে না না। কোন সমস্যা নাই। কি লাগবে তোর বল?

আমি বললাম- আমার কিছু লাগবেনা ভাইয়া। তোমাকে একটা জিনিস দেখাতে আসলাম।

বড় ভাইয়া বলল- কি জিনিস?

আমি আমার মোবাইলে ব্রা আর পেনটি পরা আমার একটা ছবি বাহির করে মোবাইলটা বড় ভাইয়ার হাতে দিয়ে বললাম- দেখো ভাইয়া।

বড় ভাইয়া আমার মোবাইলটা হাতে নিয়ে আমার ব্রা পেনটি পরা ছবিটা দেখেই চমকে উঠে বলল- এমন ছবি কেনো তুলেছিস?

আমি বললাম- তোমাকে দেখানোর জন্য তুলেছি ভাইয়া।

বড় ভাইয়া বলল- আমি তোর আপন বড় ভাই। তুই আমাকে এমন ছবি কেনো দেখাবি?

আমি বললাম- তুমিই তো আমাকে এই ব্রা পেনটি গুলো গিফট করেছো। তাই অন্য আর কেউ না দেখলেও, তোমার তো দেখার অধিকার আছে ভাইয়া।

বড় ভাইয়া মোবাইলে আমার ছবিটা আবার দেখতে দেখতে বলল- তুই যখন বলছিস, তখন একটু ভালো করেই দেখি।

আমি বড় ভাইয়ার দিকে দেখছিলাম আর বড় ভাইয়া মোবাইলে আমার ব্রা পেনটি পরা ছবিটা জুম করে আমার শরীরের প্রতিটা ইঞ্চি ভালো করে দেখছিলো। কিছুক্ষণ পরে বড় ভাইয়া বলল- লাল রঙের ব্রা পেনটি পরে কোন ছবি তুলিসনি?

আমি বললাম- আরো অনেক ছবি তুলেছি ভাইয়া। তুমি একটা একটা করে পার করে দিয়ে দেখো।

বড় ভাইয়া আমার প্রত্যেকটা ছবি জুম করে ভালো ভাবে দেখতে লাগলো। আমি যে বড় ভাইয়ার দিকে তাকিয়ে দেখছি, সেদিকে ভাইয়ার কোন খেয়াল নাই। ভাইয়ার পুরো মনোযোগ মোবাইলে আমার ছবিতে। প্রত্যেকটা ছবি ভাইয়া অনেক সময় নিয়ে দেখছিলো। সবগুলো ছবি দেখা হয়ে যাবার পরে আবার প্রথম থেকে দেখা শুরু করছিলো। আমার শরীর এর বড় ভাইয়ার আগ্রহ দেখে আমি মনে মনে অনেক অনেক খুশি হলাম।

সময় এর দিকে ভাইয়ার কোন খেয়াল ছিলনা। আমি ঘড়ির দিকে তাকিয়ে দেখলাম দুপুর দুইটা বেজে গেছে। ভাইয়ার দিকে তাকিয়ে দেখলাম, ভাইয়া মোবাইলে আমার ছবি জুম করে, বড় করে ব্রা তে ঢাকা আমার দুধ এর উপরে তার আঙ্গুল বোলাচ্ছে।

আমি ভাইয়াকে বললাম- খাবে নাকি ভাইয়া?

ভাইয়া মোবাইল থেকে তার চোখ তুলে আমার চোখের দিকে তাকিয়ে বলল- তুই সত্যিই আমাকে খেতে দিবি?

ভাইয়ার কথা শুনে আমি আমার হাঁসি আটকিয়ে রাখতে পারলামনা। আমি হো হো করে হাসতে হাসতে বললাম- ঘড়ির দিকে তাকিয়ে দেখো ভাইয়া, দুপুর দুইটা বেজে গেছে। তোমার খিদে লাগেনি? দুপুরের খাবার খাবেনা?

বড় ভাইয়া মাথা নিচু করে বলল- ওহ আচ্ছা। তুই যা, আমি আসছি।

আমরা দুই ভাই বোন একসাথে দুপুরের খাবার খেয়ে যার যার রুমে চলে গেলাম। আমি আমার রুমে এসে বিছানায় শুয়ে ইন্টারনেটে পর্ণ ভিডিও দেখছিলাম। তখন আমার রুম এর দরজায় কেউ নক করলো। আমি দরজা খুলে দেখি বড় ভাইয়া দারিয়ে আছে।

আমি বললাম- ভাইয়া তুমি?

বড় ভাইয়া বলল- ব্যস্ত ছিলি নাকি?

আমি বললাম- না ভাইয়া। এমনি শুয়ে ছিলাম। আসো, রুমের ভিতরে আসো।

রুমের ভিতরে এসে ভাইয়া বলল- আসলে আমি তোকে বলতে এসেছি যে, মনে করে তুই তোর মোবাইল এর ছবি গুলো ডিলিট করে দিস। ভুল করেও অন্য কারো কাছে ছবি গুলো চলে গেলে সমস্যা হবে।

আমি আমার মোবাইলটা ভাইয়ার দিকে এগিয়ে দিয়ে বললাম- তুমিই ডিলিট করে দাও ভাইয়া।

ভাইয়া আমার হাত থেকে মোবাইলটা নিয়ে সব গুলো ছবি ডিলিট করে দিয়ে বলল- এই নে তোর মোবাইল। এখন আমি যাই।

আমি বললাম- তোমার কি এখন কোন জরুরী কাজ আছে নাকি ভাইয়া?

বড় ভাইয়া বলল- না, কোন কাজ নাই। কেন জিজ্ঞাসা করছিস?

আমি বললাম- কোন কাজ না থাকলে এখানেই থাক ভাইয়া। দুই ভাই বোন একসাথে গল্প করি।

বড় ভাই বলল- ঠিক আছে।

আমি আমার বুকের উপর থেকে ওড়নাটা খুলে দিয়ে বিছানার উপরে উঠে শ্যে পরলাম, আর আমাএ ডান পাশে একটা বালিশ এগিয়ে দিয়ে ভাইয়াকে বললাম- আসো ভাইয়া, বিছানায় শুয়ে শুয়ে গল্প করি।

বড় ভাইয়া বিছানায় উঠে এসে আমার ডান পাশে শুয়ে পরলো। আমি আর ভাইয়া উভয়েই চিত হয়ে ছাদের দিকে মুখ করে শুয়ে ছিলাম। আমি বললাম- কোন রঙের ব্রা পেনটি পরে আমাকে বেশি ভালো মানিয়েছে ভাইয়া? লাল রঙের নাকি কালো রঙের?

বড় ভাই বলল- দুটোতেই তোকে খুব ভালো মানিয়েছে।

আমি বললাম- এখন আমি কোনটা পরে আছি বলতো ভাইয়া।

বড় ভাইয়া বলল- আমি কিভাবে বলবো? আমি তো দেখেনি।

আমি বললাম- তোমার ধারনা কি? আমি কোন রঙের টা পরে আছি এখন?

বড় ভাইয়া বলল- আমার মনে হয়, কালো রঙের ব্রা পেনটি পরে আছিস এখন।

আমি হাসতে হাসতে বললাম- ভুল, ভুল। তোমার ধারনা ভুল।

আমি হাসতে হাসতে শোয়া থেকে বিছানায় উঠে বসে আমার জামাটা খুলে বিছানার একপাশে রেখে দিয়ে ভাইয়ার দিকে আমার বুকটা এগিয়ে দিয়ে বললাম- দেখো ভাইয়া, আমি লাল রঙের ব্রা পরে আছি এখন।

বড় ভাইয়াও শোয়া থেকে উঠে বসে আমার দুধ এর দিকে তাকিয়ে বলল- ওয়াও। লাল ব্রা তে তোকে খুব সুন্দর লাগছে।

আমি বললাম- তোমার গিফট দেওয়া ব্রা। সুন্দর তো লেগবেই।

বড় ভাইয়া বলল- শুধু কি লাল ব্রা পরেছিস, নাকি পেনটিও লাল?

ভাইয়ার কথা শুনে আমি আমার পায়জামাটাও খুলে দিয়ে ভাইয়াকে বললাম- দেখো ভাইয়া, লাল পেনটি পরেছি।

বড় ভাইয়া বলল- যদি কিছু মনে না করিস তাহলে একটা কথা বলবো?

আমি বললাম- তোমার যা মনে হয় বলো ভাইয়া। কোন সমস্যা নাই।

বড় ভাইয়া বলল- যদি তোর কোন আপত্তি না থাকে তাহলে তুই তোর পিছোন দিকটা আমাকে একবার দেখাবি?

ভাইয়ার কথা শুনে আমি বিছানার উপরে উপুর হয়ে শুয়ে বললাম- নাও ভাইয়া দেখো।

ভাইয়া এগিয়ে এসে সোজা আমার পাছায় হাত বোলাতে লাগলো। ঠিক তখনি বাড়ির মেইন দরজার কলিং বেল বেজে উঠলো। আমি ধরফর করে উঠে বসে ভাইয়াকে বললাম- মনে হয় আম্মুরা চলে এসেছে।

বড় ভাইয়া তার দুই হাত দিয়ে আমার দুই গাল ধরে বলল- ভয় করিসনা। তুই তোর রুমের দরজা ভিতর থেকে লক করে দিয়ে জামা কাপড় পরে ফ্রেশ হয়ে আয়। আমি গিয়ে মেইন গেট খুলে দেখছি কে আসলো।

আরো কাহিনী বাকি আছে। সাথেই থাকুন_______