জাকিয়া ও আজিজের যৌন জীবনযাপন ০৩

জাকিয়া ও আজিজের যৌন জীবনযাপন ০২

(আজিজের কথা)

পরদিন জাকিয়া সময়মতোই ল্যাবে এলো। ম্যাচিং করে সালোয়ার-কামিজ পরে এসেছে। ওর প্রতিটা জামাকাপড়েই একটু লালের ছোঁয়া থাকে। লালরং ওর খুব প্রিয় আর এই রঙে তাকে খুব সুন্দর মানায়। এতে ওর সেক্সি ভাব আরো প্রকট হয়। হাস্যোজ্জল মুখে হালকা পাউডারের প্রলেপ কিন্তু ঠোঁটে লিপষ্টিক লাগায়নি। আমাদের মধ্যে চুমু খাওয়ার প্রতিযোগীতা শুরুর পর থেকে সে ল্যাবে লিপিষ্টিক লাগিয়ে আস না। টেবিলে বই-খাতা রেখে জাকিয়া সামনে এসে দাঁড়ালো। আমি চুমা না খাওয়া পর্যন্ত সে কাজ শুরু করবে না। চুমুর পর্ব শেষ হলে সে কাজে মনোযোগ দিলো। নিয়মিত বিরতিতে নিজের কাজ রেখে আমি গিয়ে তাকে চোটখাটো চুমা খেলাম। হুমকী দিয়ে বলেছে এটা না করলে সে পরদিন থেকে ল্যাবে আসবেনা। তখন হবে আরেক জ্বালা!

প্রায় দুই ঘন্টা পর জাকিয়া টুল টেনে নিয়ে আমার পাশে বসলো। আমি ইচ্ছা করেই ওর দিকে তাকিয়ে প্রশ্নবোধক চিহ্ন ছুঁড়ে দিলাম। সেও মুখ ভ্যাংচিয়ে, চিমটি কেটে জবাব দিলো।
‘কালকের অসমাপ্ত কাজ শেষ করবো।’ সোজাসাপটা কথা ওর।
‘কোন কাজ?’ আমিও হেঁয়ালী করছি।
‘অসভ্য, যেন জানে না।’ প্যান্টের চেনে হাত বুলিয়ে আব্দার করলো, দেখবো।
আমাকে জিপারে হাত দিতে দেখে বললো,‘আমি বাহির করি?’
অনভ্যস্ত হাতে চেষ্টা করলো কিন্তু পারলো না। আমি পেনিসটা খাপমুক্ত করলাম।
‘ওয়াও! তোমার এটা তো দেখতে খুব সুন্দর! যাক বাবা বাঁচলাম। অন্ধকারে খারাপ জিনিষ চুষিনি।’ পেনিস নেড়েচেড়ে, টিপেটুপে মন্তব্য করলো।
‘তোমার তাহলে পছন্দ হয়েছে?’
‘হুঁউউউ, খুব পছন্দ হয়েছে। তোমার এটা দেখতে আসলেই খুব হ্যান্ডসাম। কাঠি লজেন্সের মতো..না না এটা একটা ললিপপ।’ মুঠিতে নিয়ে চাপতে চাপতে জাকিয়া বলতে থাকে। তার কন্ঠে উচ্ছাস। ‘দাড়াও একটা ছবি তুলি।’
মোবাইল হাতাতে দেখে আঁতকে উঠলাম। কেউ দেখলে বিপদ হবে। ‘আগে কখনো কারো পেনিস দেখেছো?’ ওর ভাবভঙ্গী দেখে মনে সন্দেহ জাগছে।
জাকিয়া ফিক করে হেসে ফেললো,‘দেখবো না কেনো? ছোটছোট বাবুদেরটা দেখেছিনা! তবে তোমার মতো দামড়া খোকাবাবুর পেনিস এই প্রথম দেখলাম।’

কোনো মেয়ে প্রথম পেনিস দর্শনে এমন উচ্ছসিত হয়েছে কি না আমার জানা নাই। আমার সাথে মেলামেশার সময় যৌনতা নিয়ে সবকিছুতেই জাকিয়ার প্রচন্ড উচ্ছাস দেখতে পাই। পেনিস, সেক্স, যৌনমিলন নিয়ে আগের সেই উচ্ছাস এখনো তার মধ্যে আছে। এদিকে নাড়াচাড়ার কারণে পেনিসের মাথা দিয়ে টলটলে স্বচ্ছ রস বেরিয়ে এসেছে আর ওর কৌতুহলও বাড়ছে।
‘এটা কি?’ আঙ্গুলের মাথায় নিয়ে আমাকে দেখালো।
‘কাম রস। ছেলেরা উত্তেজিত হলে বাহির হয়।’
‘বুঝেছি। পেনিস চুষার সময় এজন্যই কালকে নোনতা লাগছিলো।’ সে সবজান্তার মতো বললো।
‘হয়তো।’ বলেই বিপদে পড়লাম।
‘কি আশ্চর্য! তোমার জিনিষ আর তুমিই জানোনা।’
‘তোমারও কি এরকম রস বাহির হয়?’ ওর প্রশ্নের উত্তর আমারও জানা নাই তাই পাল্টা প্রশ্ন করলাম।
‘মনে হয়..প্রতিদিন রুমে ফিরার পর দেখি পেন্টি ভিজে থাকে।’ জাকিয়াও নির্দ্বিধায় উত্তর দিলো।
‘পেনিসের রসের আরেকটা নাম আছে..মদন জল বলে।’ আমি ওকে জ্ঞান দিলাম।
জাকিয়া ফিক করে হেসে দিলো। দুই আঙ্গুলে পেনিসের মাথায় আদর করে বললো,‘এই নামটাই সুন্দর। লক্ষèী সোনাটার নাম মদন আর এর মুখ দিয়ে বাহির হয় মদন জল।’ জাকিয়া যেভাবে আদর করছে আমি নিজেও কোনো দিন পেনিসকে এমন আদর করিনি। এরমাঝেই সে তার সিদ্ধান্ত জানিয়ে দিলো। ‘এবার আমি মদন সোনাকে মুখে নিয়ে আদর করবো..চুমাখাবো.. চুষবো..তারপর চুষে তোমার মাল বাহির করবো।’

জাকিয়া ওর কাজ শুরু করলো। সে শিখছে, চুষছে আর শিখছে। একটু চুষে মুখ থেকে পেনিস বাহির করছে তারপর আরো মনোযোগের সাথে চুষছে। যদিও এই ল্যাবে তেমন কারো আসার সম্ভাবনা নাই। তবুও আমি দরজার দিকে নজর রাখছি। কিন্তু জাকিয়ার পেনিস চুষার ষ্টাইল দেখে মনে হলো না যে, এই বিষয়ে তার তেমন কোনো মাথাব্যাথা আছে।

এতোক্ষণ আমার পাশে একটা চেয়ারে বসে উপুড় হয়ে পেনিস চুষছিলো। ওভাবে চুষতে অসুবিধা হচ্ছিলো তাই এবার সে মেঝেতে বসে পেনিস চুষতে লাগলো। নিজের মতো চুষছে। মুখ থেকে পেনিস বাহির করে আমার দিকে তাকিয়ে একটু হেসে আবার চুষছে। একটু একটু করে ওর অভিজ্ঞতা বাড়ছে। আমার পেনিসে তার দাঁতের অত্যাচার কমছে।

পেনিস চুষানোর সুখ অনুভব করতে করতে বিষয়টা হঠাৎ করেই ঘটলো। নিজের সুখে এতোই বিভোর ছিলাম যে জাকিয়ার মুখের ভিতর মাল বেরিয়ে গেলো। সেও মুখের ভিতর পেনিস নিয়ে এমন ভাবে আমার কোমর জড়িয়ে ধরে চুষছিলো যে, যন্ত্রটা বাহির করার সুযোগ পেলাম না। জাকিয়াও ওটা মুখ থেকে বাহির করলো না। আমি তখন যৌনসুখে সাগরে সাঁতার কাটছি। শরীর কাঁপানো সুখ নিয়ে বীর্যপাতের এক অসাধারন অভিজ্ঞতা অর্জন করলাম।

জাকিয়া আমাকে এখনো এমন সুখ দিয়ে থাকে। পেনিস চুষাতে ওর কোনো ক্লান্তি নাই। পেনিসের উপর ঠোঁট, মুখ জিভ, মুখের তালুর ব্যাবহার সে এতোটাই ভালো জানে যে, যতবার সে আমার পেনিস চুষে মাল বাহির করে- প্রতিবার আমি নতুন করে যৌনসুখ অনুভব করি। জাকিয়াকে সাথে নিয়ে আমি আরো দুই জন মেয়ের সাথে নিয়মিত সেক্স করি। তারাও পেনিস চুষে আমার মাল বাহির করে কিন্তু আমার জাকিয়া সবার চাইতে সেরা।

মুখে হাত চাপাদিয়ে জাকিয়া খুব স্বাভাবিক ভাবে উঠে গেলো। যাওয়ার সময় ওড়নার প্রান্তদিয়ে আমার পেনিস মুছে দিলো। বেসিনে কুলি করে, মুখ ধুয়ে আবার সামনে এসে দাঁড়ালো। চোখ-মুখ একদম স্বাভাবিক। মুখ থেকে খুশী উপচে পড়ছে।
‘এই তুমি খুশী হয়েছো?’ সে হাসছে।
‘খুউউউব। এমন সুখ কখনো পাইনি। তুমি একটা লক্ষèী মেয়ে।’
‘তাহলে চুমা খাচ্ছোনা কেনো? তোমার রাধাকে চুমাখাও।’ ওর আব্দারে অদ্ভুৎ এক আবেদন।
আমি মন উজাড় করে আমার রাধাকে চুমা খেলাম। আমার জিভ ওর মুখের ভিতর ভরে দিলাম। সে চুক চুক করে চুষলো। আমিও ওর নরম জিভ মুখের ভিতর নিয়ে চুষলাম। একটু আগেই সে মুখের ভিতর আমার মাল নিয়েছে। কিন্তু সেই মুখে চুমাখেতে, জিভ চুষতে আমার একটুও খারাপ লাগলো না। জাকিয়ার সাথে থেকে আমিও বদলে যাচ্ছি।

বিবাহিত জীবনের এতগুলি বছরে জাকিয়ার শরীরের এমন কোনো জায়গা নাই যেখানে আমার ঠোঁট-জিভের ছোঁয়া পড়েনি। এখনো ওর লোভনীয় কামুকী কোমল শরীরের সর্বত্র আমার ঠোঁট-মুখ বিচরণ করে। কোনো কোনো রাতে আমরা বিচিত্র ভাবে একে অপরকে আদর করি। এটা ওর নিজস্ব আবিষ্কার। এসময় সে একটু কাৎ হয়ে শোয়। এক পা একটু ভাঁজ হয়ে বিছানায় অলস ভাবে পরে থাকে। আরেক পা উর্দ্ধমুখী হাঁটু ভাঁজ করা। আমি অলস ভাবে পড়ে থাকা নগ্ন রানে, যোনী ফুলের খুব কাছে মাথা রেখে শুই। আমার পা দুইটা থাকে ওর মুখোমুখী। গল্প করতে করতে মাঝে মাঝে আমি ওর কোমল যোনী ফুলে চুমাখাই। একটু জিভ বুলিয়ে দেই। জাকিয়া হাত বাড়িয়ে আমার পেনিস নাড়ে। আমি কোমর এগিয়ে ধরলে সে পেনিসে চুমাখায় আবার চুষে।

আমি ওর তলপেট, কুসুম কোমল যোনী, নগ্ন রান আর পাছায় হাত বুলাই। আমার পায়ের পাতা, আঙ্গুল বুলিয়ে ওর মুখে আদর করি। জাকিয়া পায়ের পাতায় চুমাখায়, আঙ্গুল চুষে। আমিও ওর পায়ে চুমাখাই, আঙ্গুল চুষি। যেদিন সে খুব ক্লান্ত থাকে সেদিন তাকে এভাবে আদর করি। এভাবে আদর করলে তার নাকি ক্লান্তি দূর হয়। কখনো কখনো সে পেনিস চুষতে চুষতে ওটা মুখে নিয়েই ঘুমিয়ে পড়ে। কোনোকোনো সময় এসব করতে করতে কখন যে রাত পেরিয়ে যায় টেরও পাইনা।

যাইহোক ল্যাবে কাজের ফাঁকে ফাঁকে আমরা শরীর নিয়ে মেতে রইলাম। প্রতিদিন আমরা চুমাখাই। আমি দুধ টিপি আর জাকিয়া পেনিস চুষে। তাকে এসব বলতে হয়না। ২/১ দিন পর পর সে চুষে আমার মাল বাহির করে। ফলে আমিও হস্তমৈথুন করা বাদ দিয়েছি। এই ব্যাপারে সে কঠোর নিষেধাজ্ঞা আরোপ করেছে। মাঝে মাঝে অবশ্য আমার মাথার ভিতর বিভিন্ন প্রশ্ন কিলবিল করে। ও এতো স্বাভাবিক ভাবে এসব কেনো, কি ভাবে করে? মুখে মাল নিয়েও সে এতোটুকু অস্বস্থিবোধ করে না কেনো? জাকিয়া কি আগে থেকেই এসবে অভ্যস্ত? কিন্তু তাকে প্রশ্ন করতেও ভয়পাই! যদিও তার অতীত নিয়ে আমার কোনো মাথাব্যাথা নাই।

জাকিয়া হাত মুছছে। আমি পিছন থেকে তাকে জড়িয়ে ধরলাম। চুলে নাক ঠেকিয়ে ঘ্রাণ নিলাম। পিঠ থেকে চুল সরিয়ে ঘাড়ে চুমা খেলাম। শরীরের ঘ্রাণ নিলাম। দুহাতে দুধ টিপলাম। জাকিয়া ঘাড় ঘুরিয়ে আমাকে চুমাখেলো।
ক্লাসের কয়েকজন বন্ধু মিলে দুধের সাইজ, চেহারা ও ফিগার অনুযায়ী মেয়েদের শ্রেণী বিন্যাস করেছি। সেখানে জাকিয়া যথেষ্ট এগিয়ে আছে। এসব শুনে জাকিয়া বললো,‘সবকয়টা একদম ফাজিল।’
‘তুমি কি টেরপাও যে অনেক ছেলেই তোমার বুকের দিকে তাকিয়ে থাকে?’ আমি হাত ঢুকিয়ে ওর স্তন মুঠিতে নিলাম। শরীরের মতো স্তন দুইটা অতোটা নরম না।
‘পাবোনা কেনো? ছেলেরা তাকালেই আমরা মেয়েরা না দেখেও বুঝতে পারি।’ জাকিয়া আমার দিকে ফিরে বললো,‘তুমিও নাকি মিলার দুধের দিকে ফ্যাল ফ্যাল করে তাকিয়ে থাকো। মিলা আমাকে বলেছে।’
‘ঠিক আছে বাবা আর তাকাবো না। তোমাকে ছুঁয়ে বলছি।’
‘আমি কি সেটা বলেছি? অসভ্যের মতো না তাকালেই হলো।’
‘ঠিক আছে। আমি ক্লাসের সব মেয়েকে আজ থেকে বোনের নজরে দেখবো।’ আমার কথা শুনে জাকিয়া হেসেদিলো। আমি ওর পাছায় হাত রাখলাম। পাছার নরম মাংস মুচড়ে ধরলাম। আঙ্গুলে ওর পেন্টির অস্তিত্ব অনুভব করছি। জাকিয়া আমার আরো কাছে এগিয়ে আসলো।
‘ক্লাসের কেউ যখন তোমার দুধের প্রশংসা করে আমার শুনতে খুব ভালোলাগে।’
‘তুমি আসলেই একটা অসভ্য আর পার্ভাট।’ জাকিয়া প্রাণ উজাড় করে চুমা খেলো আমাকে।
‘তবুও কতোইনা অভাগা আমি। তোমার স্তনের সৌন্দর্য আমার চোখের আড়ালেই থেকে গেলো।’
‘এই খচ্চর তোমার লোভ কিন্তু দিনে দিনে বাড়ছে!’ জাকিয়া আমার গালে চুমা দিলো।
‘লাল, নীল, হলুদ, গোলাপী, সাদা, কালো, ফ্লোরাল কতো রকমের ব্রা পরে আসো তুমি। এসব পরে কতাইনা মোহনীয় লাগে খেতে তোমাকে।’ আমি বলছি আর জামার উপর দিয়ে দুধে হাত বুলাচ্ছি।
‘বুঝেছি বাবা বুঝেছি..তোমার মতলব ঠিকই বুঝেছি।’ জাকিয়া আমার চুল মুঠিতে নিয়ে ঝাঁকুনি দিলো।
‘আজ নীল রংএর ব্রা পরেছো। প্যান্টিও কি নীল রংএর পরেছো?’
‘এই পাজি। খবরদার, আর নিচে নজর দিবা না বলেদিলাম।’ জাকিয়া এরপর কানের কাছে মুখ নিয়ে ফিস ফিস করে জানালো,‘কাল তোমাকে দুদু দেখতে দিবো।’
‘শুধু এইটুকু? দুদু চুষতে দিবা না?’
‘যদি নতুন ব্রা উপহার দাও তাহলে দুদু চুষতে দিবো। চোরাই মাল হলে চলবে না।’ জাকিয়া মুখ টিপে হাসছে।
‘বুঝেছি তোমার ইচ্ছা নাই তাই এমন কঠিন শর্ত দিচ্ছো।’ আমি কন্ঠে অভিমান ঢেলে দিলাম।
‘ওরে আমার সোনারে, রাগ করেছো? ঠিক আছে দশটা চকলেট এনে দিও তাহলেই হবে।’
এমন প্রস্তাব শুনে খুশিতে আমি নেচে উঠলাম। বোকার মতো প্রশ্ন করে বসলাম,‘দশটা চকলেট কেনো?’
‘বোকারাম সেটাও বুঝলানা? তোমাকে দুদু দেখাবো, এমন একটা স্মরনীয় ঘটনা বান্ধবীদের সাথে সেলিব্রেট করতে হবে না?’
ওর বলার ঢঙ্গে আমি বোকা বোকা হাসি দিলাম। জাকিয়া রসিকতা করতে পারেও বটে।

ক্লাসের অন্যান্য ছেলেমেয়েদের সাথে জাকিয়া আড্ডা দিলেও সে কথাবলে খুবই কম। কিন্তু আমার সাথে যতোক্ষণ থাকে ততোক্ষণ কথার ফুলঝুড়ি ছোটায়। নানান প্রশ্ন করে। আমি জানতে না চাইলেও মাঝে মাঝে সে তার খুব গোপন কথাটাও বলে দেয়।
‘সোনা তুমি কি কখনো কাউকে চুমা খেয়েছে?’ জাকিয়া একদিন জানতে চাইলো।
‘অনেক দিন আগে দাদার বাড়িতে বেড়াতে গিয়ে কাজের মেয়েকে চুমা খেয়েছিলাম। ওর সৌন্দর্য দেখে নিজেকে তখন সামলাতে পারিনি। আর রোজী নামের এক চাচাতো বোনকে মাঝে মাঝে চুমা খাই।’ জাকিয়াকে কেনো যে মিথ্যা বলতে পারি না নিজেও জানি না।
জাকিয়া মুখ থেকে পেনিস বাহির করে। এরপর ওটা ঝাঁকিয়ে প্রশ্ন করে,‘রোজী তোমার এটা চুষে?’
‘বলেছিলাম কিন্তু সে রাজি হয়নি।’
‘কেনো? এটা পছন্দ হয়নি?’ জাকিয়া আবার পেনিসে নাড়া দিলো।
‘তার নাকি এসবে ঘেন্না লাগে।’
‘রোজী একটা বোকা মেয়ে।’ মুঠোবন্দী পেনিস টিপাটিপি করে বললো,‘ওকে শুধু চুমা খেয়ো, আর কখনো অন্যকিছু করো না। তাহলে আমি ভীষণ রাগ করবো।’ জাকিয়া আবার পেনিস মুখে টেনে নিলো।
জাকিয়ার উত্তর শুনে আমি বেকুফ বনে গেলাম। আর এর পরে সে আমাকে আরো দুইটা কাহিনী শুনালো। কলেজে পড়ার সময় এক মামাতো দুলাভাই একদিন সুযোগ পেয়ে দুধ টিপতে টিপতে চুমা খেয়েছিলো। ভালো লাগছিলো তাই সে কোনো বাধা দেয়নি। কিন্তু পায়জামার ফিতা খুলতেই সে দুলাভাইকে বাধা দেয়। দুলাভাই তবুও জোর খাটালে জাকিয়া লাথি মেরে তাকে মেঝেতে ফেলে দেয়। ঘটনা ওখানেই শেষ।

দ্বিতীয় ঘটনা হলো ক্লাস সেভেনে পড়া চাচাতো ভাগনার পেনিস চুষেছে সে। কিছুদিন পেনিস চুষার পরে ওর মুখের ভিতরেই ভাগনার মাল বাহির হয়। এটাই তার প্রথম মাল বাহির হওয়া। তারপর থেকে বোনের ছেলে লজ্জায় আর পেনিস চুষতে দেয়না। জাকিয়া মাঝে মাঝে চিমটি কেটে তাকে উত্যক্ত করে। সেই ভাগনা এখন ক্লাস টেনে পড়ছে। তাকে নিয়ে সে নানান ধরনের পরিকল্পনা করছিলো। কিন্তু আমার সাথে সম্পর্কের পরে সেইসব খেয়াল বাদ দিয়েছে। এসব শুনে আমি খুব একটা বিষ্মিত হলাম না। কারণ ওর আর আমার মাঝে গোপণীয়তার দেয়াল অনেক আগেই ভেঙ্গে গেছে। (চলবে..)

What did you think of this story??

Comments

Scroll To Top