গৃহবধূ যখন সেলিব্রিটি! পর্ব ১০

গৃহবধূ যখন সেলিব্রিটি! পর্ব ৯

দারুন লোভনীয় প্রস্তাব দেওয়া ছাড়াও, ঐ বিখ্যাত বহুজাতিক ফ্যাশন এন্ড ইভেন্ট অর্গানাইজার ব্র্যান্ড (এ আই টি পি) তাদের ওয়েবসাইট এর জন্য অ্যাড করবার বিনিময়ে অনেক টাকার অফার দিয়েছিল। পুরো বিষয় টা এমন ভাবে সেট করেছিল যে ঐ অ্যাড টা শুট করতে হলে আগে ঐ ব্র্যান্ড এর সঙ্গে কন্ট্রাক্ট সাইন করতে হবে। এবং তার জন্য অ্যাক্টিং মডেলিং এর পাশাপাশি ডান্সিং কেউ প্রফেশন হিসাবে মানতে হবে। মা অভিনয় এর পাশাপাশি মডেলিং করলেও ড্যান্স অ্যান্ড মডেলিং কে কোনোদিন তার জীবনে প্রফেশন হিসাবে যোগ করতে রাজি ছিল না।

কিন্তু ঐ ব্র্যান্ড এর সঙ্গে চুক্তি বদ্ধ হতে গেলে অভিনয় এর পাশাপাশি নাচ আর মডেলিং এও পারদর্শী হওয়া প্রয়োজন ছিল। প্রচুর টাকা রোজগারের সুযোগ থাকলেও কাজ টা ছিল খুব কঠিন। মা প্রথমে ওদের প্রস্তাব এ না করে দিয়েছিল। কিন্তু কিছু দিন যেতে না যেতেই রূচিকা আণ্টি রা মা কে কোনরকমে বুঝিয়ে বাঝিয়ে ব্রেইন ওয়াশ করে ঐ নামী অর্গানাইজার ব্র্যান্ড কোম্পানির সাথে দুই বছরের চুক্তিতে সই করিয়ে ছাড়লো। মা ওদের কথায় ঐ বিশেষ কোম্পানির প্রস্তাবে রাজি হতেই মোটা টাকা অ্যাডভান্স হিসাবে মার একটা অ্যাকাউন্টে এসে ঢুকলো।

মার কেরিয়ার ছবির মতন মসৃণ গতিতে এগোচ্ছিল, ঐ সময় এই অর্গানাইজার কোম্পানির সঙ্গে চুক্তির কোনো প্রয়োজন ই ছিল না। কিন্তু মা আরও অনেক বেশি টাকা কামানোর জন্য তার নতুন কাছের লোক দের কথায় এসে তার জীবনের আরো অন্যতম একটা ভুল ডিসিশন নিয়ে ফেললো। ঐ নতুন ফ্যাশন ইভেন্ট অর্গানাইজার কোম্পানি র সাথে এক বছরের চুক্তি সই হতেই ওরা আস্তে আস্তে মার স্বাভাবিক যে ঘরোয়া সাধারণ সরল মেয়ের লুক ছিল সেটাও কিছুদিনের মধ্যে রাতারাতি পাল্টে দিলো।

মা এমনি নরমাল সময়ে কোনো বন্ধুদের সাধারণ ঘরোয়া অনুষ্ঠান অথবা বাড়িতে থাকার সাধারণ ভারতীয় পোশাক পড়তে পছন্দ করত। স্নান সেরে প্রতিদিন কাজে বেরোনোর আগে ঠাকুর পুজো করতো। সাধারণ ভাবে খুব দরকার না পড়লে হট মডার্ন শরীর দেখানো পোশাক পড়তো না, নেহাত পার্টি না থাকলে বেশি রাত জাগতে পছন্দ করতো না।

সপ্তাহে দুদিন নিয়ম করে নিরামিষ খেত। কিন্তু ঐ ব্র্যান্ড অর্গানাইজার কোম্পানি র সাথে চুক্তি করার পর মার জীবনে যত গুলো ভালো অভ্যাস অবশিষ্ট ছিল। সব আস্তে আস্তে বন্ধ হয়ে গেলো। ওরা মা কে ঘরে বাইরে ওদের কাজের উপযোগী করে গড়ে তুলতে আরম্ভ করে দিয়েছিল। প্রথমেই মা কে ইন্ডিয়ান কস্টিউম ছেড়ে সব সময়ের জন্য মডার্ন আউটফিট পড়া অভ্যাস করতে হল।

সাধারণ জুতো ছেড়ে স্টিলীটো স্পোর্টস শু পড়া চল শুরু করতে হল। শুধুমাত্র মার লুক আর কাজের ধরন চেঞ্জ করে ওরা স্যাটিসফাই হল না। তার মুম্বাই এর বাসস্থান এর ভেতর কার ইন্তেরিও টাও পুরো পাল্টে ছাড়লো। টেম্পেল সরিয়ে মার জন্য নতুন ওয়ারড্রব বসলো, বসবার ঘরের এক পাশে বিশাল ড্রিঙ্কস বার ক্যাবিনেট, মাছ রাখার আকোয়ারিয়ম আসলো। ঘরোয়া পার্টি র সময় বন্ধুদের মনরঞ্জনের কথা ভেবে বসবার ঘরের আরেক পাসে বিলিয়ার্ড টেবিল ও বসলো।

মার অ্যাপার্টমেন্ট এর প্রতিটা ঘরের ইন্তেরিও ডেকোরেশন মডার্ন রূপে আপডেটেড এবং চেঞ্জ করে ফেলা হল। মার শোওয়ার ঘরে একটা দামী বিদেশি আর্টিস্ট এর আকা নুড মডেল এর পিকচার বসানো হলো। অরবিন্দ এর পছন্দের কথা মাথায় রেখে কিং সাইজ এর দামী বেড আসলো মার আগের বেড টা টে নাকি দুজন ভালো করে শোওয়া যায় না।

এছাড়া দামি ছবি , পর্দা, টুকটাক আসবাবপত্র দিয়ে ঘর নতুন ভাবে সাজানো হল। এর জন্য মা কে অনেক অনেক গুলো ক্রেডিট কার্ড ইউজ করতে হলো। মার বাসস্থানের রেনোভেশন শেষ হলে অরবিন্দ আর রূচিকা আণ্টি রা একটা ওয়েলকম পার্টি এরেঞ্জ করে। আর এই প্রথম বার কোনো বড়ো মাপের পার্টি আরেঞ্জ করা হয়েছিল মার বাড়িতে। রূচিকা আণ্টি দের কথায় বন্ধুদের তাক লাগাতে মা কে ঐ পার্টি টা এড়েঞ্জ করার পিছনে অনেক খরচ ও করতে হয়েছিল । পার্টির দিন মার একটু হলেও আমাদের কথা মনে পড়ছিল।

সামনেই ছিল আমার জন্মদিন, পার্টির আগের দিন আমার সঙ্গে মার ফোনে কথা হয়েছিল। আমি এবারের জন্মদিন এ মাকে একদিনের জন্য হলেও বাড়ি আসবার বায়না করছিলাম। আমার বায়না টা মার মাথায় ঘুরছিল। পার্টি টে মা সেই জন্য মনোযোগ দিতে পারছিল না। অরবিন্দ এটা নোটিশ করে মার সামনে এসে একটা লার্জ ভদকা পেগ বানিয়ে এনে মার হাতে ধরিয়ে দিয়ে বলেছিল, ” কম অন মোহিনী, হোয়াত রঙ উইথ ইউ? লেট ইঞ্জয় পার্টি…”

মা মদ ভর্তি গ্লাস টা এক পাশে সরিয়ে রেখে, নেহা আণ্টি কে ডেকে বললো, ” আমার জন্য কাল কলকাতার মর্নিং ফ্লাইটের টিকিট বুক করো তো। আমাকে বাড়ি যেতেই হবে। ছেলের জন্মদিন আমি থাকবো না এটা অসম্ভব” নেহা আণ্টি মার আদেশ মেনে চুপ চাপ চলে যাচ্ছিল, কিন্তু অরবিন্দ ওকে থামিয়ে দিয়ে বললো, নেহা স্টপ, কাল মোহিনী হারগিস নেহি জা পায়গা। কাল ফার্ম হাউস মে পুল পার্টি হে। বাহার সে মেরা কুচ দোস্ত আ রেহা হে। সায়াদ ঠিক সে ইয়াড নেহি। মোহিনী মুঝে প্রমিজ কার চুকি হে।”

এটা শুনে মা চমকে উঠলো। তারপর অরবিন্দ এর হাত ধরে, মিনতি করে বললো, ” প্লিজ অরবিন্দ, কাল একদিন কে লিয়ে তো মুঝে ছর দো। লট অনে কে বাদ তুম যাহা বলোগী উহ্যাপে জয়ুঙ্গি। মেরা বেটা বহুত আশা লেকার মেরে ইন্তেজার কারেগা। ” অরবিন্দ মার হাতে ফের ভদকা ভর্তি মদের গ্লাস টা ফের ধরিয়ে দিয়ে বললো ” কম অন মোহিনী, জাদা বেটা বেটা মত করো। মিডিয়া কো পাতা চল গয়া তো লেনেকা দেনা পার জয়েগা সমঝে? নিশা টিকিট মত বুক করো, কাল ইসস টাইম তুমারে ম্যাডাম কো ফার্ম হাউস জানা হে, আর ২ দিন সব আর কাম ক্যান্সেল করা দো। ও দো দিন সে পেহলে লট নেহি পায়গী।”

নেহা আণ্টি একবার মার মুখের দিকে তাকিয়ে মার থেকে মৌনং সম্মতি লক্ষণ বুঝতে পেরে মাথা নেড়ে ওদের কে একান্তে রেখে চলে গেলো। ভদকা র গ্লাসে চুমুক দিয়ে নিজের ফ্রাস্ট্রেশন লুকালো না। অরবিন্দ কে বলল, ” তোমরা আমাকে দিয়ে কী কী করাবে বোলো তো অরবিন্দ। আবার ফার্ম হাউস, আমি হাফিয়ে উঠছি এই ভাবে বার বার তোমার বন্ধুদের তোয়াজ করতে। দম বন্ধ লাগছে।”

অরবিন্দ এর পর মার দিকে এগিয়ে এসে তার ঠোঁটে ঠোঁট লাগিয়ে কিস করে, মার কাধে হাতে কানের পাসে হাতের আঙ্গুল বোলাতে বোলাতে বলল, ” অভি তঃ শীরফ সুরুয়াদ্ হে। আগে আগে দেখো হোতা হে ক্যা, চলো মেরে সাথ, উস রুম মে উহাঁপে কই অ্যালাগ হি পার্টি চল রহা হে। Anni chocolate layi he তুমারে লিয়ে, কম এন্ড টেস্ট ইট।”

মা এক চুমুকে পেগ টা শেষ করে মুখ টা একটু বিকৃত করে বললো নেহি অরবিন্দ, আজ মুঝে হ নেহি পায়েগা। বহুত আচ্ছে ইনসান পার্টি মে হে, উস্কে সামনে ওসব সমান নেহি আসমাও। টাবিয়েট ভি ঠিক নেহি হে। কাল ফিরসে ফার্ম হাউস জানা হে।” অরবিন্দ পকেট থেকে একটা চাইনিজ কাগজের মোরক বার করে একটা বড়ো ক্যান্ডি টাইপের ট্যাবলেট মার হাতে দিয়ে বললো, ” দারো মত জনেমান, এ তুমারে পার্টি হে, তুম নেশা নেহি করোগী তো ক্যুন কারেগা? এ চিজ পিছলে বার মিসেস দস্তুর কী পার্টি মে তুম লেয়া ঠা, আর লেনেকে বাদ সব ইনসান কো তুম নাঙ্গা দেখ রহি থে ইয়াড হে। E চিজ বহুত রেয়ার অ্যান্ড কিমটি হে। বহুত কৌসিস কে বাদ আকির মিলি। ”

মা কে জোর করে খাওয়ানোর পর, স্বাভাবিক ভাবেই মা পার্টির রাতে পুরোপুরি ভাবে অরবিন্দ আর তার বন্ধুদের নিয়ন্ত্রণে চলে আসে। ওরা সবাই মিলে মার বাকি রাত টা রঙিন মেজাজে সাজিয়ে তোলে। ভরা পার্টির মাঝ পথ থেকেই ওরা আমার মা কে পাশের একটা বেডরুমে নিয়ে যায়। সেই সময় মার পরনের ওয়েষ্টার্ণ গাউন এর লেস স্ট্রিপ গুলো পিছন দিক থেকে খোলা অবস্থায় ঝুলছিল। একজন গেস্ট মায়ের অজান্তে সেই অবস্থায় একটা পিকচার তুলেছিল মার পিছন দিক ফেরা এঙ্গেল থেকে। ওটা কিছুদিনের মধ্যে লিক হয়ে যায়।

নটি বলিয়ুড নামের একটা বি গ্রেড অ্যাডাল্ট ম্যাগাজিন এই ছবিটা পাবলিশ করে আর সেটা নিয়ে বানিয়ে চড়িয়ে স্টোরি ও বানায়, যার অবশ্য পুরোটা মিথ্যা না। এই স্টোরি আর প্রমাণ হিসাবে মায়ের ঐ ছবি অনেক কন্ত্রভার্সির সৃষ্টি করেছিল। ছবিটা জুম করলে পরিষ্কার মায়ের পিঠে দুটো জায়গায় গোল গোল দাত বসানোর চাকা চাকা লাল দাগ স্পষ্ট বোঝা যাচ্ছিল। যেটা দেখে মার চরিত্র সম্পর্কে সবার কাছে ভুল বার্তা যেতে বাধ্য। এই কন্ত্রভার্সি সামনে আসার পর মা আমাদের সঙ্গে ফোনে যোগাযোগ রাখা ও বন্ধ করে দিল চক্ষু লজ্জা এড়াতে।

এদিকে নেশায় আর ফার্ম হাউস এর ভরপুর বিলাস আমোদ প্রমোদ নানাবিধ আকর্ষণে আটকে রেখে মার আমার জন্মদিনে আসা আটকে দিল। এটে বাবা মার উপর ভীষণ রকম ক্ষুব্ধ হয় সাথে আমার মন টা ভেঙে যায়। আগে থেকে বলা স্বত্ত্বেও মা আমার জন্মদিনে কেনো আসতে পারছে না সেই কৈফিয়ত ও আমাদের কে দেয় নি। অবশ্য মার প্রাইভেট সেলেব লাইফ যেভাবে বার বার এক্সপোজ হয়ে পড়ছিলো।

তার বিপরীতে বলার মতন কিছু ছিল না। অরবিন্দ মার সঙ্গে থাকার ফলে মার জীবনে নেশা বেশি রাত জাগা , তুমুল বিলাসিতা করা, পার্টি আর ফার্ম হাউস যাওয়া আগের তুলনায় অনেক পরিমাণে বেড়ে যায়। ব্যাস্ত জীবনযাত্রার স্ট্রেস কমাতে মা মদের পাশাপাশি প্রাত্যহিক জীবনে সিগারেট খাওয়া র অভ্যাস ও করে ফেলে। মা অনেক কাল যাবৎ পার্টি টে গিয়ে গিয়ে বন্ধুদের দৌলতে প্যাসিভ স্মোকিং করে আসছিল।

কাজেই খুব সহজে স্মোকিং এর অভ্যাস এডপ্ট করে নেয়। কম করে প্রতিদিন কিছুদিনের মধ্যে সিগারেট এর ধোওয়া টানার এমন অভ্যাস মার হয়ে যায় যে প্রতিদিন তার এক প্যাকেট অর্থাৎ কম পক্ষে ২০ টা সিগারেট না হলে মার চলত না। মার অ্যাপার্টমেন্টে সব কিছু টিপ টপ রাখতে , বাড়ির সব কাজ করবার জন্য দু জন নতুন হাউস স্টাফ এই সময়ে মার অ্যাপার্টমেন্টে ২৪*৭ এর জন্য নিয়োগ করা হয়।

ঐ স্টাফ রা সব অরবিন্দ এর পছন্দ করা ছিলো। তাদের একজনের নাম ছিল আনোয়ার আর আরেকজনের নাম ছিল গিরিরাজ। মায়ের ইচ্ছাতে ওরা ম্যাসাজ করা থেকে শুরু করে ড্রাইভিং করা সব কাজ ভীষণ পারদর্শিতার সঙ্গে করতে পারতো। মা অল্প দিনের মধ্যে যেকোনো তুচ্ছ অতি তুচ্ছ কাজের জন্য ও ওদের উপর নির্ভরশীল হয়ে পরলো। এই টাকা এই ঐশ্বর্য মার জীবনে এমনি এমনি আসছিল না।

মা কে এর জন্য রীতিমত ঘাম ঝরিয়ে পরিশ্রম করে এই খরচ টা তুলতে হচ্ছিল। মডেলিং আর ডান্সিং কে অ্যাক্টিং এর পাশাপাশি প্রফেশন হিসাবে গ্রহণ করার মাত্র দুই মাসের ভেতর মার জীবন টা এত তাড়াতাড়ি পরিবর্তিত হয়ে গেলো যে মা কোনোকিছু টের পাওয়ার আগেই একটা ব্যাস্ত শিডিউল এর নাগ পাশে জড়িয়ে হাস ফাঁস করছিল।

কনস্ট্যান্ট টিভি সিরিজের কাজ সামলে ওরা ঐ দুই মাসের মধ্যে মা কে দিয়ে মোট এগারোটা ফটোশুট আর ১৮ টা গালা নাইট ইভেন্টে পারফর্ম করালো। এর পাশাপাশি মা কে চারটে হাই ক্লাস মেরেজ ফাংশান এতেন্ড করতে হলো। মার পক্ষে এই নতুন অবতারে এসেই মানিয়ে নেওয়া ভীষণ কঠিন ছিল। কিন্তু মা প্রথমে এসে অভিনয় এর মতই নাচ আর মডেলিং এও সবাইকে তাক লাগিয়ে দিল।

মার ড্যান্স শো ফটোশুট কন্টেন্ট গুলো তুমুল সাফল্য পেলো। অর্গানাইজার স্পন্সর রা মার সাফল্য খুশি হলেন, তারা চেক কেটে মার একাউন্টে ঢেলে ঢেলে টাকা পাঠাতে শুরু করলো। ফ্রেম নাম আর সেই পরিমাণে টাকা দুটোই আসতে থাকায় মার ছত্র ছায়ায় থাকা রুচিকা আণ্টি নিশা দেশাই দের টাকার খিদে গেলো বেড়ে। কন্ট্রাক্ট এর বাইরেও ওরা মা কে দিয়ে ইচ্ছে মতন একের পর এক কাজ করিয়ে নেওয়া আরম্ভ করলো মা ওদের বিশ্বাস করত। কাদের কাজ কিসের জন্য এই শো টে মা যাচ্ছে ওতো সব প্রশ্ন মা খুব একটা করতো না।

সেই সুযোগ টা ওরা সুন্দর ভাবে সদ্ব্যবহার করতে শুরু করেছিল। সারাদিন টাকা রোজগারের জন্য দৌড়ে রাত দশটা র সময় এ্যাপার্টমেন্ট এ ফিরে মার শরীরে এনার্জি বলে কিছু অবশিষ্ট থাকতো না। দুই পেগ ওয়াইন খেয়ে শাওয়ার নিয়ে হট রাতের পোশাক গায়ে চাপিয়ে মা বিছানায় গিয়ে ঘুমের ওষুধ সেবন করে শুয়ে পড়ত। বিছানায় গিয়েও যে খুব একটা শান্তি মতন ঘুমাতে পারত তাই না। কো স্টার সেলেব অরবিন্দ এর সঙ্গে লিভ ইন করার ফল স্বরূপ মা কে ঐ ব্যাক্তির সঙ্গে এক ঘর এক বিছানা শেয়ার করতে হতো।

ক্লান্ত থাকলেও মা কে কখনো সখনো তার পার্টনারের এর ইচ্ছে পূরণ করতে যৌন সঙ্গম এ লিপ্ত হতে হতো। ঘুমের ওষুধ খাওয়ায় অধিকাংশ দিন মা বিছানায় শুয়ে পনের মিনিটের মধ্যে ঘুমিয়ে পড়ত। তারপর সারা রাত জুড়ে ঘুমে অচৈতন্য মার সাথে কী হচ্ছে, কে সঙ্গে এসে শুচ্ছে কিছু টের পেত না। অধিকাংশ দিন ই সকাল বেলা ঘুম থেকে উঠে তার রাতের পোশাক এর অবস্থা খুব সঙ্গীন থাকতো, অন্তর্বাস খোলা অবস্থায় থাকতো, শরীরে যৌন চাহিদা নিবারণের অনুভূতি আমেজ ভর্তি থাকতো, কিন্তু এসবের জন্য মা কাউকে দোষারোপ করতে পারত না। প্রতি রাতে ঘুমের ওষুধ সেবন করে ঘুমানো আর তারপর সকালে শরীর ভর্তি যৌন সঙ্গমের সাইন নিয়ে ঘুম থেকে ওঠা আস্তে আস্তে তার অভ্যাস হয়ে গেছিলো।

মুম্বাই থেকে মার জীবন যাপন সম্পর্কে যে সব খবর বাবার কাছে আসছিল সেগুলো সহ্য করা বাবার পক্ষে ছিল বেদনাদায়ক। মা আমাদের জীবন থেকে আলাদা হয়ে বেরিয়ে গেছে সেটা এক প্রকার ধরে নিয়ে বাবা র মধ্যে একটা বিরাট বড়ো মানষিক পরিবর্তন আসলো। সে হুট করে চাকরি ছেড়ে দিয়ে নতুন ব্যাবসা সেট আপ করে নিজের লাইফ টা আমার ফিউচার গোছানোর দিকে মনোযোগ দিল। রিয়েল এস্টেট লাইনে বাবার কিছু পুরনো জানা শোনা ছিল। বাবা র মতন সৎ কর্মঠ মানুষ কে সবাই বিশ্বাস করতো। বাবা মার পাঠানো টাকায় হাত দিল না। উল্টে এক বন্ধুর থেকে ২০ লাখ টাকা ধার নিয়ে ব্যাবসা শুরু করলো।

বাবার নিরলস পরিশ্রম আর বুদ্ধির জোরে মাত্র দুই মাসের ভেতর ব্যাবসা শক্ত ভিতের উপর দাড়িয়ে গেলো। বাবা বেশ দ্রুত উন্নতি শুরু করলো। প্রথম যাই হোক বাবার নিরলস পরিশ্রম এর জোরে ব্যাবসা শুরুর মাত্র তিন মাসের মধ্যে আমরা নতুন একটা ৩ bhk ফ্ল্যাটে উঠে আসলাম। বাবার ইচ্ছে ছিল মা কে ডেকে এনে তার কেনা নতুন ফ্ল্যাট টা দেখানোর কিন্তু সেটা আর বাস্তবে রূপায়ণ হলো না। টাকা রোজগারের নেশায় ছুটতে ছুটতে মার মতন ই আমার চোখের সামনে বাবার মূল্যবোধ, সংস্কার, সঙ্গীত চর্চা, সামাজিক কাজ এর অভ্যাস গেলো হারিয়ে।

যদিও বাবা আমাকে যথা সম্ভব সময় দিত, আমার সব প্রয়োজন ও মেটাতো কিন্তু বাবার তাড়াতাড়ি উপরে ওঠার জন্য সমাজের উপরের শ্রেণীর পুরুষ ও মহিলা দের সঙ্গে অত্যধিক বেশি ওঠা বসা মাঝে মাঝে আমাকে বিব্রত করতো। বাবার গানের গলা অসাধারণ ছিল বলেই হয়তো মহিলা মহলে বাবার ভীষণ জনপ্রিয়তা ছিল। অনেকে বাবার সঙ্গে সম্পর্ক স্থাপন করতে উৎসাহী ছিল কিন্তু বাবা যেহেতু ভেতরে ভেতরে শুধুমাত্র মা কেই ভালোবাসত সেই কারণে কাউকে বিশেষ নিজের খুব কাছাকাছি আসতে দিত না। যেদিন একটু বেশি মদ খেতে ফেলত সেদিন বাবার রূপ যেত পাল্টে সে সারারাত ড্রিঙ্ক করতো মায়ের ছবি দেখতে দেখতে ছট পট করতো , বাবার একজন বন্ধু ছিল ত্রিদিব আংকেল।

সে আমাদের নতুন ফ্ল্যাট আর ব্যাবসার বিষয়ে অনেক সাহায্য করেছিল। সে বাবা কে ঐ অবস্থায় দেখে তাকে রিলিফ দেওয়ার জন্য নিষিদ্ধ পল্লী টে ওর একজন চেনা দেহ ব্যাবসায়ী নারীর বাড়িতে নিয়ে গেছিল। প্রথম প্রথম ত্রিদিব আঙ্কেল বাবাকে জোর করেই নিয়ে যাওয়া আরম্ভ করেছিল। তারপর থেকে বাবা নিজের প্রয়োজন মেটাতে নিজের থেকেই ওখানে যাওয়া আরম্ভ করে। আর কিছুদিন বাদে খুব সহজে ঐ নারীর মোহ মায়া টে এসে নিজের বিবেক শিক্ষা সংস্কৃতি নীতি আদর্শ সব জলাঞ্জ্বলি দিয়ে বসে। বাবা ঐ রত্না নামের ২৮ বছরের নারীর জন্য হাত খুলে খরচ করতে শুরু করে। ত্রিদিব আঙ্কেল এর সঙ্গে জোট বেধে এমন ব্যবস্থা করে যে ঐ রত্না আণ্টি বাবা ছাড়া আর কারোর জন্য সার্ভিস দিতে না পারে।

একদিন তো বাড়িতে পর্যন্ত নিয়ে আসলো,বাবার ধারণা ছিল আমি স্কুলে থাকবো, কিন্তু সেদিন স্কুল একজন প্রাক্তন টিচারের মৃত্যু র জন্য ছুটি হয়ে যাওয়ায় তাড়াতাড়ি বাড়ি ফিরে আসি। আর এসেই দৃশ্য দেখে চমকে যাই। রত্না আণ্টি বাবা ড্রইং রুমের ভেতর বসে প্রাইভেসি মোমেন্ট কাটাচ্ছিল। রত্না আণ্টি র শাড়ির আঁচল টা ছিল নামানো, আর বুক ছিল উম্মুক্ত। আর সেই সাথে বাবার শার্ট এর বোতাম গুলো ও ছিল সব খোলা। আমি কোনো শব্দ না করে আচমকাই ভেতরে চলে এসে ওদের কে আরো বিপাকে ফেলে দিই। বাবা আর আণ্টি কেউ ই আমি আসার আগে নিজেদের কাপড় ঠিক করার সুযোগ পায় না। উল্টে অসময়ে হটাত ই আমাকে বাড়িতে দেখে ওরা দুজনেই বিব্রত হয়ে যায়।

What did you think of this story??

Comments

Scroll To Top