গৃহবধূ যখন সেলিব্রিটি! পর্ব ১৮

গৃহবধূ যখন সেলিব্রিটি! পর্ব ১৭

জীবনে ভুল সময়ে এই ২য় বার প্রেগনেন্ট হাওয়ায় আমার যা সর্বনাশ হবার তাই হলো। আমার লিভ ইণ পার্টনারের আমাকে বাগে আনতে সুবিধা হয়ে গেল। আমাকে সম্পূর্ণ অন্ধকারে রেখে অরবিন্দ চুপিসারে আমাদের বিয়ের প্ল্যানিং আর প্রস্তুতি সারতে লাগছিল। আমার পেটে আসা অরবিন্দ এর বাচ্চা টা নষ্ট করার মতন পাপ থেকে বাঁচতে আমি চুপ চাপ অরবিন্দ কে ওর সব কাজে সাপোর্ট করছিলাম। অরবিন্দ আমাকে নতুন জীবনের স্বপ্ন দেখাচ্ছিল। বাচ্চা তার জন্য আমার সঙ্গে ভালোবাসার অভিনয় করছিল, আমি যত বড়ই সেলেব হয়ে যাই ভেতরে ভেতরে একজন সাধারণ নারী ই ছিলাম।

আমি ভালোবাসার অভিনয় কে সত্যি বলে বিশ্বাস করে নিলাম। মনের কোণে অরবিন্দ এর প্রতি দুর্বলতা ছিলই , অরবিন্দ স্বপ্ন দেখাতে শুরু করতেই, আমার পক্ষে নিজেকে সামলানো অনেক কঠিন হয়ে উঠলো। শেষে স্বামী পুত্র কে দূরে সরিয়ে দিয়ে অরবিন্দ কে নিয়েই ধীরে ধীরে ঘর বাঁধার স্বপ্ন দেখলাম। স্বীকার করতে বাধা নেই, অরবিন্দ কে আমি সত্যি সত্যি ভালো বেসে ফেলেছিলাম, নিজের শরীর, মন সর্বস্য উজাড় করে দিয়েছিলাম। কিন্তু যত দিন যাচ্ছিলো আমি বুঝতে পারলাম অরবিন্দ আদৌ সেই ভালোবাসার যোগ্য নয়।

প্রেগনেন্ট অবস্থাতেও অরবিন্দ আমার অ্যাডভান্টেজ নিতে ছাড়লো না। নেশা করা সাময়িক বন্ধ রাখলেও, ওদের দাবি মেনে সপ্তাহ শেষে farm house e যেতেই হচ্ছিল। ফলে পর্যাপ্ত বিশ্রাম পাচ্ছিলাম না। শরীরে স্ট্রেস পড়ছিল, মুড সুইং আর ছোট খাটো শারীরিক সমস্যায় ভুগছিলাম। তবুও ওর মধ্যে কিছু একটা ম্যাজিক ছিল যে ওর কোনো কথা আমি না করতে পারতাম না। নিজের শরীর মন কে কষ্ট দিয়ে হলেও ওর সব ছোট বড়ো আবদার আমি রাখতাম। যেকোনো চ্যালেঞ্জিং কাজ ও ভীষন অনায়াসে আমাকে দিয়ে করে ফেলতে পারত। আমার ভবিষ্যত কে শক্তিশালী করবার জন্য অরবিন্দ যা যা করছিল, সব মেনে নিচ্ছিলাম, কিন্তু আমার মন অদ্ভুত দোলাচলে ভুগছিল।

অরবিন্দ আমাকে একটা বিরাট মাপের তারকা জীবনের স্বপ্ন দেখাচ্ছিল। সেখানে বড়ো গাড়ি, অনেক টাকা, ফার্ম হাউস, বিলাস বহুল ম্যানশন সব কিছু ছিল কিন্তু আমার প্রকৃত আপন জন আমার স্বামী পুত্রের কোনো জায়গা ছিল না। আমাদের বিয়ের প্রস্তুতি বেশ জোর কদমে এগোচ্ছিল। ও বেছে বেছে ওর পছন্দের লোক দের ই রিসেপশন পার্টি টে নিমন্ত্রণের কার্ড পাঠিয়েছিল। আমার পুরোনো পরিচিত কিছু শুভানুধ্যায়ী বন্ধু বিয়ের গ্র্যান্ড রিসেপশন পার্টির আমন্ত্রিত অতিথিদের তালিকা থেকে বাদ পড়েছিল বিশেষত তারাই বাদ গেল যারা আমাকে বিয়ে না করবার পরামর্শ দিয়েছিল। তাতে হর্ষ এর মতন লোকেদের নাম বাদ গেছিল।

আমাকে এই সব মুখ বুজে মেনে নিতে হয়েছিল। খবরের কাগজে বিনোদন বিভাগে আমার সাথে অরবিন্দ এর আসন্ন বিয়ের খবর এবং আমাদের বাচ্চার ব্যাপারে প্রতিবেদন প্রকাশিত হতেই টিনসেল টাউনে হই চই লেগে যায়। এই খবর পেয়ে আমার থেকে মুখ ফিরিয়ে নেওয়া আমার স্বামী মিস্টার অরুণ মালাকার সব কিছু ফেলে আমার কাছে ছুটে এসেছিল, আমি আগের দিন এক টা পার্টি সেরে, অরবিন্দের সঙ্গে বিছানায় অবাধ যৌনতায় মেতে উঠে, সকাল সকাল দুটো বড়ো কমার্শিয়াল অ্যাড কনফার্ম করে বেশ মেজাজে ছিলাম। কোনো অন্তর্বাস ছাড়াই সেফ একটা পাতলা সতীন নাইট সুট পড়ে আমি আমার হাসব্যান্ড এর সঙ্গে দেখা করেছিলাম।

অরুণ আমার এই বিয়ের ডিসিসন শুনে শক পেয়েছিল। সে আমাকে বার বার বোঝানোর চেষ্টা করলো আমি যা করতে যাচ্ছি, সেটা ভুল। এটে কারোর ভালো হবে না। বিয়ের কার্ড ছাপা হয়ে গেছিলো। আমার পেটে অরবিন্দ এর বাচ্চা আসায় আমার পক্ষে এই বিয়ে টা করা ছাড়া আর অন্য কোনো উপায় ছিল না। আসল কারণ না বলে অরুণ কে আমি আমার ভবিষ্যত কে শক্তিশালী করতে এই সিদ্ধান্ত নিয়েছিলাম বললে ওর মুখে আধার নেমে আসে।

ও ইমোশনাল হয়ে পড়ে। আগের রাতের হাং অভার তখনও আমার ঠিক করে কাটে নি। অরবিন্দ তখনও আমার জন্য বিছানায় অপেক্ষা করে ছিল। তাই বেশি সময় ধরে ওর মেলোড্রামা আমার পছন্দ হল না। আমি বুঝিয়ে দিতে বাধ্য হলাম, আমার নতুন জীবনে তার জায়গা নেই। আমি আর আগের সুপ্রিয়া নেই।

সেই দিন এ ফিরে যেতেও চাই না।আমি অরবিন্দ এর সঙ্গে নিজেকে নতুন ভাবে গুছিয়ে নিয়েছি, সেও যেন আমাকে ভুলে নতুন করে সব শুরু করে। আমাদের সন্তানের ভবিষ্যত এর জন্য প্রতি মাসে একটা বড় অঙ্কের টাকা ওর একাউন্টে জমা হবে প্রতি মাসে। বুকে পাথর রেখে এই সিদ্ধান্ত নিয়েছিলাম। আসলে আমি সেসময় চাই নি আমার সেলেব লাইফের অন্ধকার ছায়া আমার স্বামী আর আমার ছেলের জীবন এ কখনো পড়ুক। আমার কলঙ্কের দাগ নিয়ে ওদের জীবন টা বিষাক্ত হয়ে উঠুক। তাই ওদের জীবন থেকে সেপারেট হয়ে আস্তে আস্তে সরে যাওয়াই ছিল একমাত্র solution। আমার স্বামী এসব কথা বুঝতে চাইলেন না।

আমি মুম্বাই এ সেটেল করতে চাওয়ার আসল কারণ টা খোলাসা করলেও আমার স্বামী বার বার অবুঝের মতন অনুরোধ করতে লাগলেন। আমি যখন আমার সিদ্ধান্তে অনড় রইলাম। অরুনের দুচোখ দিয়ে জল গড়িয়ে পড়ছিল। আমি ওর চোখে চোখ রেখে তাকাতে পারছিলাম না। কিসের যেন একটা অপরাধবোধ মনের ভেতর টা জ্বালিয়ে পুড়িয়ে ছার খার করে দিচ্ছিল। শেষ বারের মত বিদায় জানানোর আগে স্বামী আমাকে আমার নতুন জীবনে র জন্য শুভেচ্ছা জানিয়ে গেছিল, আর। তার সঙ্গে এটাও জানিয়েছিল যে তার দরজা আমার জন্য খোলা থাকবে জীবনের শেষ দিন পর্যন্ত। স্বামী চোখের জল মুছতে মুছতে বেরিয়ে যাওয়ার পর আমার সম্বিত ফেরে, আমি এক ছুটে গিয়ে অরুণ কে আটকাতে যাই। অরবিন্দ এসে আমাকে ধরে নেয়।

নিজের স্বার্থ থেকেই আমাকে স্বামীর কাছে যাওয়া থেকে আটকায়। ও বলে,” কম অন হানি নাউ ইউ আর ফ্রী বার্ড, ডোন্ট চেস ইউর পাস্ট, লেটস লিভ ফর ফিউচার।” এই বলে অরবিন্দ আমাকে নিজের কোলে তুলে নেয়। তারপর ওখান থেকে সোজা বেডরুমের বিছানায় নিয়ে আসে। আমার নাইট সুটের লেস খুলে আমি রেসিস্ট করবার আগেই আমার নরম শরীরের উপর শুয়ে পড়ে। আমাকে চুমু খেতে খেতে অস্থির করে তোলে। আমার স্পর্শ কাতর জায়গা গুলোয় অরবিন্দ এর টাচ পেতেই আমি ও যৌনতার জন্য পাগল হয়ে উঠি।

ওর প্রতিটা উদ্দাম বন্য আদরের উত্তর দিতে দিতে আমি আমার স্বামীর চোখের জল এর কথাও খুব তাড়াতাড়ি ভুলে যাই। একটা দীর্ঘ যৌন সঙ্গমের শেষে , যখন বিছানা ছেড়ে যখন ওর কোলে চেপে এক সাথে শাওয়ার নিতে বাথরুমে ঢুকি তখন আমার চোখে মুখে একটা নতুন জীবনের স্বপ্ন। এরপর থেকে স্বাভাবিক ভাবেই আমি স্বামীর কথা ভুলে, অরবিন্দ কে বিছানায় সন্তুষ্ট করতে ব্যাস্ত হয়ে যাই। এই ঘটনার রেশ ভুলতে না ভুলতেই তিনদিনের মধ্যে আমাদের বিয়ে হয়ে যায়।মোহিনী ওয়েডস অরবিন্দ ট্যাগলাইন দিয়ে আমাদের রেজিস্ট্রির ফটো ও নিউজ পর্টালে পাবলিশ হয়।

আমার এক্স হাসব্যান্ড অরুণ আমার বিয়ের সেই ছবি দেখে সম্ভবত অনেক রাত অবধি মদ্য পান করেছিল। বিয়ের পর দিন আমার ছেলে রাহুল ও কল করেছিল, কিন্তু বিয়ের পর নানা রিটুয়াল পূরণ করতে করতে সেই কল রিসিভ করতে পারি নি। তারপর আর কোনোদিন আমার ছেলে আমাকে অভিমানে ফোন করে নি।অরবিন্দ বিয়ের ঠিক পরেই প্যারিস ট্রিপে নিয়ে যায়। ভালোবাসার শহরে আমাদের হনিমুন এর জন্য পুরো বন্দোবস্ত ও প্রায় একমাস আগে থেকেই করে রেখেছিল । ওখানে আমরা মোট ১০ দিন ছিলাম।

অরবিন্দ এর জন্য এই ট্রিপে এক বারের বেশি নিজেদের হোটেল রুমে র বাইরে বেরোতে পারলাম না। অরবিন্দ এই সফরে বিছানায় আমাকে ড্রেস পড়তে অনুমতি দেয় নি। আর দিলেও যে সব পোশাক পড়তে দিচ্ছিলো সেগুলো পড়া না পড়া এক বিষয় ছিল। আমাদের সুইটের সামনে সব সময় অরবিন্দ এর নির্দেশে ডু নট ডিস্টার্ব ট্যাগ ঝুলত, টা সত্ত্বেও বেশ কিছু রুম বয় এর আমাকে রুমে খাবার আর ড্রিঙ্ক সার্ভ করতে আসার সময় আমাকে একাধিক বার নগ্ন অবস্থায় দেখে ফেলেছিল।

হানিমুনে জাস্ট মেরেড বোর্ড আটকানো একটা ডিলাক্স সুইটের ভেতরে আমরা দারুন ভাবে নিজেদের মধু চন্দ্রিমা কাটাচ্ছিলাম। অরবিন্দ এর সঙ্গে প্যারিসে কাটানো এই কটা দিনে আমার দীঘা টে হওয়া অরুনের সঙ্গে পুরোনো বিয়ের মধুচন্দ্রিমার সব স্মৃতি স্লান হয়ে গেছিলো এক লহমায়। আমার শরীরের কোনো অংশ বাকি ছিল না যে স্থানে অরবিন্দ ঠোঁট দাত আর জিভ ছোয়ায় নি। যৌনতার জোয়ারে ভাসিয়ে নিয়ে গেছিল। এই প্যারিস ট্রিপের পর পৃথিবীর শেষ হয়ে যাবে এরকম মনোভাব নিয়ে অরবিন্দ আমার সঙ্গে sex করছিল।

যৌনতার সব বাধন যেন ছিন্ন হয়ে গেছিল। অরবিন্দের চরম আদরে আমি চোখে অন্ধকার দেখছিলাম। তবুও আমার সবটুকু দিয়ে ওকে উজাড় করে দিচ্ছিলাম। অরবিন্দ এর সঙ্গে অবাধ যৌনতায় মেতে উঠে প্রেগনেন্সির জন্য সাধারণ সাবধানতা ও মানছিলাম না। একাধিক পোজ এ আমরা যৌন সঙ্গম করেছিলাম। তার মধ্যে অরবিন্দ সব থেকে বেশি সময় ধরে করেছিল মিশনারী স্টাইলে। প্যারিসে কাটানো শেষ দিন ও আমি বিশ্রাম পেলাম না। ওখানে ছুটি কাটাতে আসা এক আমেরিকান দম্পতির সঙ্গে আলাপ হয়।অরবিন্দ আমার সামনেই ঐ আমেরিকান মেম সাহেব এর রূপে পাগল হয়ে যান। ওর নাম ছিল সিয়েনা, ও ছিল প্রায় আমার বয়সী। উচ্চতায় আমার থেকে বেশ খানিক টা লম্বা।

আমার পতিদেব অরবিন্দ প্রথম বার দেখেই সিয়েনার লং লেগ এর প্রেমে পরে যায়। দিকে আমেরিকান সাহেব ও আমার রূপ এ পাগল হয়ে গেছিলেন। সেইদিন ডিনারের পর আমরা কেউ ই নিজেদের নরমাল পার্টনার এর কাছে ফিরলাম না। এক রাতের জন্য বেড পার্টনার এক্সচেঞ্জ করবার প্রপোজাল টা ঐ সাহেব দম্পতির থেকেই এসেছিল। আমার আপত্তি সত্ত্বেও অরবিন্দ এক কথায় রাজি হয়ে গেলো। ও আমাকে বোঝালো সুযোগ যখন এসেছে খাটি আমেরিকান এর শরীর টেস্ট করে নিতে, আমি রাজি হলাম।

অরবিন্দ আমাকে কনভিন্স করেই আমার সামনেই লাফাতে লাফাতে চলে গেল সিয়েনার সঙ্গে ওর রুমে রাতে এক বিছানায় শুতে আর আমেরিকান সাহেব চলে এলো আমার রুমে আমার সঙ্গে সেম বিছানায় শুতে। প্রথম প্রথম ঐ বিদেশীর সঙ্গে শুতে সমস্যা হলেও, যত সময় এগোয় আমি সাহেবের সামনে সহজ হয়ে উঠি। আমি প্রেগনেন্ট জেনেও ঐ সাহেব আমার প্রতি বিন্দু মাত্র দয়া দাখিন্য দেখালো না। আমাকে নগ্ন করে আমাকে মোস্ট সেক্সিয়েস্ট ওম্যান শিরোপা দিয়ে, আমার শরীর তাকে উথাল পাথাল করে ভোগ করলো।

আমার বারণ সত্ত্বেও নিজের ৮” লম্বা পুরুষ অঙ্গ টা আমার যোনীদেশের মধ্যে গেথে রাত ভোর anal sex করলেন। অরবিন্দ দের সাথে করে যতটুকু শিখেছিলাম সব তাই সেই রাতে উজাড় করে দিয়েছিলাম। আমার স্তন জোড়া সেই রাতে ঐ মার্কিন সাহেব এত জোরে মর্দন করছিলেন মনে হচ্ছিলো ওগুলো ছিড়ে ওনার হাতে চলে আসবে। সেই সাহেব কে বিছানায় তৃপ্ত করতে করতে আমি সেই রাতে জ্ঞান হারিয়ে ফেলেছিলাম।

প্যারিস থেকে ফিরে টিভি সিরিজের শুটিং এ ব্যাস্ত হয়ে পড়লেও, যৌন জীবন একই রকম রঙিন আর ঘটনা বহুল হয়ে উঠলো। এই ভাবে অরবিন্দ এর সঙ্গে আমার বিয়ের প্রথম কটা মাস কেটেছিল জাস্ট স্বপ্নের মতো। সেইসময় কাজের ক্ষেত্রেও যা করছিলাম তাতেই অপ্রত্যাশিত সাফল্য আসছিল। এই সময় পারিশ্রমিক তিন গুন বাড়িয়ে নিয়েছিলাম। তার জেরে পরিশ্রম করতে হচ্ছিল পাল্লা দিয়ে।

অনিয়ম এর মাশুল আমার শরীর চরম মূল্য মেটালো। প্রেগনেন্সির ৬ মাসের মাথায় শুটিং ফ্লোরে একদিন অসুস্থ হয়ে পরলাম। আমাকে তড়িঘড়ি হসপিটালে অ্যাডমিট করা হয়। আমি বেঁচে ফিরে আসি। কিন্তু আমার বাচ্চা টাকে বাঁচানো সম্ভব হয় নি। এই ঘটনায় আমি মানষিক ভাবে বিপর্যস্ত হয়ে পড়ি। কারণ টা শুধু বাচ্চা হারানো না, ডক্টর রা জানায় আমি আর নাকি কোনোদিন মা হতে পারবো না। অরবিন্দ এটা অ্যাকসেপ্ট করে নিলেও আমি মানতে পারলাম না কিছুদিনের জন্য সব কিছু ছেড়ে দক্ষিণ ভারতের এক হিল স্টেশন এ চলে গেছিলাম মন কে শান্ত করতে। এই সময় আমার পুত্র রাহুল এর অভাব টা আমার বিশেষ ভাবে অনুভূত হচ্ছিল।

মনের কোণে একটা আশা ছিল যদি রাহুল কে নিজের কাছে এনে রাখতে পারি তো বেশ হয়। সেই মর্মে রাহুল কে ফোন ও করি , তখন আমার ছেলে তার বাবা কে আমার জন্য যন্ত্রণা য় বিদ্ধ অবস্থায় মন আর শরীরের জ্বালা মেটাতে অন্য নারীর সঙ্গে বিছানায় যেতে দেখে দেখে খুব ই কষ্টে ছিল। আমাকে মনে মনে ঘৃণা করতে শুরু করেছিল। আমি ফোন করতে ও আমার সাথে কথা বলে না। উল্টে রাগে অভিমানে গজ গজ করতে করতে ” আমার মা নেই, আমাকে তুমি কোনদিন ফোন করবে না “এই বলে আমার মুখের উপর রেখে দেয়।

এই ব্যাবহারে আমার কষ্ট হলেও রাহুলের উপর কিছুতেই রাগ করতে পারি না। আমি আমার সব সম্পত্তি রাহুলের নামে উইল করে দি, আর সাথে এই ব্যাবস্থাও করি যে ওর যখন ১৮ বছর বয়স হবে ও আমার সম্পত্তির সঙ্গে সঙ্গে আমার এই ডাইরি টিও হাতে পাবে। কোনোদিন পরলে হয়তো ও বুঝতে পারবে ওর মা কোন কষ্ট বুকে চেপে ওদের ছেড়ে একটা অজানা অচেনা শহরে কাটিয়েছে , নিজেকে পরিস্থিতির সঙ্গে মানাতে কিভাবে আধুনিকতার নামে ব্যভিচার এর স্বীকার হয়েছে। এই লেখা পরে ও যদি ভাবে ওর মা চরিত্রের দোষ আছে সে অসৎ তাহলে আমি সেই রায় মাথা পেতে নেব। রাহুলের নামে এই সব বন্দোবস্ত করে আমাকে কাজে যোগ দিতে আবার মুম্বাই ফিরে যেতে হয়েছিল।

দীর্ঘ দিন শান্তিতে ছুটি ভোগ আমার কপালে ছিল না। ১০ দিনের মধ্যে ফের মুম্বাই ফিরে নিজেকে অভিনয় মডেলিং আর নেশায় পুরোপুরি ডুবিয়ে দিলাম। সারাদিন কাজের পর রাত হলেই মদ আর সিগারেট ছাড়া আরও অনেক ধরনের নেশার উপকরণ আমাকে গ্রাস করতো। শেষে এমন অবস্থা হয়েছিল, নেশা না করলে ঘুম আসত না। প্রতি রাতে বিছানায় পুরুষের শরীর পাওয়ার জন্য ছট পট করতাম। নেশার ঘোরে এক এক করে অরবিন্দ এর সমস্ত বন্ধু এমন কি তার ২০ বছর বয়েসি ছোট ভাই কেও আমি বিছানায় ছাড়লাম না।

আমার ২য় স্বামী শুধু আমাকে অন্যের সাথে শুতে দেখতে পছন্দ করতো তাই না, আমার বেড পার্টনার নির্বাচন ও করতো, আর আমার সাথে অন্য পুরুষের সঙ্গম দৃশ্য নিজের ক্যামেরায় রেকর্ড ও করতো। ওর সঙ্গে কাটাতে কাটাতে আমার জীবন যাপন এর ধরন হয়ে গেলো ফুল হাই ক্লাস স্লাট দের মতন। ওর বন্ধুদের অবাধ বিচরণ ছিল আমার বেডরুম অবধি। মুখে ওরা আমাকে মোহিনী ভাবি বলে সম্বোধন করলেও বিছানায় নিজেদের বাধা বেশ্যা র মতন আচরণ করতো।

এই সব প্রভাবশালী ব্যাক্তিদের সঙ্গে নিয়মিত শোবার ফলে আমি একের পর এক বড় বড়ো কাজ পাচ্ছিলাম। শুধু তাই না আমার মার্কেট ভ্যালু ওরা সব সময় উপরে রাখতে সক্ষম হয়েছিল। এই ভাবে ব্যভিচারে ভরা যৌন জীবন কাটাতে কাটাতে আমার সব ভালো অভ্যাস গুলি গেলো হারিয়ে , নিয়মিত ডাইরি লেখাও একটা সময় পর বন্ধ করে দিলাম। তারপর আমার জীবন একটা নির্দিষ্ট গতিতে সামনের দিকে এগিয়ে চলল।

What did you think of this story??

Comments

Scroll To Top