মায়ের ছেলে, মায়ের দাস পর্ব ৭

পর্ব ৭

এর পরের দিন, দোকানে বেরোনোর আগে রুটি তরকারি খাচ্ছি, আর মা একটা টুলের ওপর বসে রুটি সেঁকে সেকে আমাকে দিচ্ছে, এরই মধ্যে কথায় কথায় মা হঠাৎ আমাকে জিজ্ঞাসা করল, ” বীরূ, তোমার ওই সমস্যাটা এখন কেমন আছে? ”
মা কোন ঘটনাটার কথা জিজ্ঞাসা করছে সেটা মায়ের এই প্রশ্ন মাত্রই আমি বুঝে গেছিলাম, কিন্তু তাও আনারিপনা করে বললাম ” কোনটা বলো তো মা ”
মা বলল, ” আরে তুমি আমায় বলেছিলে না… যে তোমার পাতলা হয়ে গেছে, আমায় তো দেখালেও… আমি বললাম ডাক্তার দেখাতে… তো এখন কেমন আছো বাবা ? এখনও কী স্বপ্নদোষ হয়? ”
আমি বললাম, ” স্বপ্নদোষটা আগের মত অত হয় না, কিন্তু ওটা ঠিক হয়েছে কিনা সেটা তো আমি অতটা বুঝতে পারিনা, ওটা তো তোমার ডিপারমেন্ট… আমার না, তুমি তো আমার ডাক্তার, তুমি কবে দেখবে বল.. ”

মা বলল, ” বাবু, নিজেকেও তো বুঝতে হবে না… সব বিষয়ে মায়ের সাহায্য নিলে কীভাবে হবে? ”

আমি বললাম, ” দেখো মা বেরোয় কি না, জিজ্ঞাসা করলে বলতে পারবো… হ্যা বেরোয়, কিন্তু ঠিক আছে না ভুল আছে সেটা তো আমার থেকে তুমি ভাল বলতে পারবে তাই না… কারন তুমি আমার মা, আমি তোমার নই । আর তাছাড়া আমার সময়ও হয় না, ওসব করতে শুধু শুধু ভালও লাগে না, তোমার সামনে হলে সেটা আলাদা ব্যাপার ।

মা ভুরু কুচকে বলল, ” ও তাই !! তো এটা আলাদা ব্যাপার কেন শুনি… ”
আমি বললাম, ” জানি না, একা একা ওসব করতে ভাল লাগে না, মনে পাপ বোধ হয়, কিন্তু তোমার সামনে করলে মনে হয় মা তো দেখছে, তাহলে পাপ নেই…. এতে খারাপও নেই ”

মা খানিক অবাক হয়ে চেয়ে থেকে বলল, ” বাপড়ে… এতকাল তো জানতাম ছেলে পুলেরা তার মায়ের কাছে এসব বলতে লজ্জা পায়… এ তো দেখছি পুরো উলটো ব্যাপার, তোমার নাকী আবার আমার সামনে করলে ঠিক লাগে… একা ভাল লাগে না ”

আমি বললাম, ” হ্যা ঠিক তাই!! কারণ তুমি অন্য মায়েদের মতো না তাহলে আমিই বা অন্য ছেলেদের মতো হব কী করে? ”

” তোমার জায়গায় অন্য মা থাকলে, আমাকেই উলটে বকা দিত, কিন্তু তুমি নিয়মিত আমার শুশ্রষা করেছিলে … তাহলে? করলে তোমার সামনেই করব আর লজ্জা টজ্জা আমার নেই… আর তুমি তো আমার মা তোমার সামনে আর কী লোকাব? আমার কী এমন আছে যা তুমি আগে দেখোনি? ”

মা মুচকী হেসে বলল, ” বাব্বা !! খুব শখ না… মা কে দেখানোর… ” তারপর হাতটা মুঠো করে দেখিয়ে বলে ” দেব কেটে বুঝবে, রস বেরিয়ে যাবে ”

আমিও ব্যঙ্গ করে বললাম, ” রসই যদি লাগবে, তো এত কষ্ট কেন করবে, তুমি একবার শুধু আদেশ করো না তোমার পায়ে দেহের সব রস উৎসর্গ করে দেবো ”

মা বলল, ” ও তাই বুঝি, তা কত রস আছে তোমার? আর পায়ে বা করবে কেন শুনি…!! ”

আমি বললাম, ” পুরুষের এই বীর্য তার অহংকার, গর্ব ও বীরত্ব…. তুমি আমার দেবী মা, আমার আরাধ্যা, আর আমার দেবী চাইলে আমি অবশ্যই আমার বীর্যে তার পা ধুয়ে দেব ”

” ধরে নাও না যে, এটা আমার দেবীর চরণে আমার সমস্ত পাপ পূণ্য ভালো মন্দের অঞ্জলী, এসব থেকে মুক্ত হলে তবে না দেবীর সান্নিধ্য পাওয়া যায়… ”

মা এবার খানিক চুপ করে থেকে আবার হেসে বলল, ” ইশশশ… তোমার রসে পা ধুতে আমার বয়েই গেছে, ” তারপর হাত দিয়ে ইঙ্গিত করে বলে, ” এই টুকু তো, থলে তাতে না কী বাবু আমার পা ধুয়ে দেবেন…. ঢং ”

আমি বললাম, ” অবশ্যই পারব…. দেবীকে সন্তুষ্ট করতে একবার নয় বারেবারে আমার তপ্ত যৌবন রসে তার পা ধুয়ে দেব, যতক্ষন না পর্যন্ত তিনি তৃপ্ত হন ”

মা বলল, ” ঠিক আছে… সময় এলে দেখবো কত মুরোদ তোমার ”

আমি এই সুযোগে উঠে দাঁড়িয়ে পড়ে এক টানে লুঙ্গিটা খুলে ফেলে সম্পূর্ণ উলঙ্গ হয়ে মায়ের মুখের সামনে দাঁড়িয়ে গেলাম । এতক্ষণ উত্তেজক কথাবার্তা চালায়, ততক্ষণে আমার ধনটা বেশ লম্বা হয়ে গেছে । কোমড় দুলিয়ে দুলিয়ে বাড়াটা মায়ের মুখের সামনে নাচাতে লাগলাম, মা বড় বড় চোখ করে হেসে ফেলল তারপর, ” ইশশ… এত বড় ছেলে ল্যাংটো হয়ে থাকে…” বলে রাগ দেখিয়ে বাম হাত দিয়ে ঠেলে সরিয়ে দিতে চাইল ।

আমি ও মাকে উনুন থেকে আমার দিকে ঘুরিয়ে দু পাশে পা দিয়ে ল্যাংটো হয়েই মার কোলে বসে পরে মা কে দু হাত দিয়ে গলা জড়িয়ে ধরে মা র বাম গালে সশব্দে একটা চুমু খেলাম, মা বলল, ” ঠিক আছে, অনেক আদর হয়েছে… এবার আমায় কাজ করতে দাও বাবা ”

মায়ের নরম ঠান্ডা পেটে আমার তপ্ত পুরুষাঙ্গটা সেটে ছিল, মা কে বললাম, ” আমায় একটু আদর কর না ”
মা বলল, ” আমার হাতে আটা তো, এরম করলে কী করে হয়… ”
কিন্তু তখন আমিও নাছোড়বান্দা আদর না করলে কিছুতেই কোল থেকে উঠবো না, মা তখন পিঠে মাথায় হাত বুলিয়ে দিতে দিতে বলল, ” আমার সোনা বাবা ”

আমি কাধ থেকে মুখ তুলতেই মা বলে উঠল, ” বাব্বা!! মা কে এতো আদর!! ”
আমি বললাম, ” হ্যা ! তুমি আমার সোনা মা ” বলে গালটা টিপে দিলাম । তারপর মা আমার দিকে তাকিয়ে এক হাতে পুরুষাঙ্গটি ধরে বলল, ” বীরূ বাবা, এখন ঠিক আছ তো? সত্যি করে বল দেখি”

আমি বললাম, ” জানি না গো, আর দেখিনি ”
মা বলল, ” তাহলে একদিন সময় করে আমাকে দেখিয়ে নেবে বাবা, রস পাতলা হওয়া ভাল না ”
আমি বললাম, “এটা তো তোমারই জিনিস, তূমি দেখে নিও সময় করে… তুমি বললে আমি এটাকে ঘরে রেখে যাচ্ছি তুমি দেখে নিও… কী বল… ”

মা ও ঘুষী পাকিয়ে বলে,
” আবার মস্করা !! দেব ধরে ” বলে বাড়ার মুন্ডিটা বেশ জোড়ে একবার মুচড়ে দিল ।
আমি “আ:” করে দূরে সরে গেলাম , বললাম, “ওকে এরম ভাবে মারলে মা, ও তো দু:খ পেল ”

মা বলল, ” আহাহা : ঢং ওরও বুঝি মন আছে!! যা পালা… তোর দোকানে দেরি হয়ে যাচ্ছে আর আমার কাজেও দেরি হয়ে যাচ্ছে ”
আমি বললাম, ” ঠিক আছে চলে যাচ্ছি তার আগে ওকে একটু আদর করে দাও ”
মা আবার চোখ পাকিয়ে বলল, ” ওকে আবার কিভাবে আদর করবো !! ”

আমি বললাম, “কেন যেভাবে আমাকে আদর করো ”
মা বলল, ” ঠিক আছে, ” বলে, ” বাড়াটাকে টেনে নিজের কাছে এনে হাত বুলিয়ে বলল “শাট শাট ”

আমি বললাম এভাবে না, মা বলল আর কীভাবে?

একটা চুমু খাও, মা এবার চুপ করে গেল, বলল, ” বীরূ এবার কিন্তু বাড়াবাড়ি হচ্ছে ” আমি বললাম, ” ওসব জানি না, ওকে মেরেছ, ও রাগ করেছে, এখন চুমু দিতে হবে, আর যেখানে মেরেছ ওখানেই চুমু দিতে হবে, চামড়ার উপর দিলে হবে না কিন্তু ”

একথায় মা মুচকী হেসে হাতের আঙুল দিয়ে ধীরে ধীরে মুন্ডীর চামড়াটা নীচে সরিয়ে কালচে মুন্ডীটাকে উন্মুক্ত করল, তারপর আমার চোখের দিকে তাকিয়ে ধীরে ধীরে ঠোঁটটাকে নামিয়ে আনলো আমার লিঙ্গ মুন্ডের কাছে তারপর একটা চুমু খেতেই, মায়ের হাতেই আমার বাড়াটা কেপে কেপে উঠল কয়েকবার ।

মা বলল, ” মনে হয় ওর ভাল লেগেছে, তাই না? ” বলে মুন্ডীটায় একটা টোকা মেরে বলল, ” যাও এবার অনেক হয়েছে ”

আমার কেমন জানি লজ্জা লজ্জা করল, আমি তাড়াতাড়ি করে লুঙ্গিটা নিয়ে বাইরে বেরিয়ে গেলাম ।