মায়ের ছেলে, মায়ের দাস পর্ব ৮ [ দেবীর প্রসাদ লাভ ও তার পায়ে অর্ঘ্য দান ]

পর্ব ৮

পরপর বেশ কয়েকটা ঘটনা ঘটে যাওয়ার ফলে, সত্যি বলতে কি আমার আর একা একা হস্তমৈথুন করে বীর্যপাত করতে ভালো লাগেনা । মায়ের স্পর্শ, তার শরীরের উষ্ণতা, ঘামের মিষ্টি গন্ধ আর বিশেষ করে তার বস্তি দেশের সেই উগ্র ঝাঝালো সুবাস আমার যৌন উদ্দীপনাকে কি বলি যেন চাগিয়ে তোলে ।
মারে কখনো আমার যৌনাঙ্গে চুমু খাবে আমি তার স্বপ্নেও কল্পনা করতে পারিনি, অবশ্য সেই চুমুতে কখনোই কোন যৌন আবেদন ছিল না, ছিল শুধু অবাধ স্নেহ ও মমতা । কিন্তু আমার কাছে সেই চুমু ছিল ভীষণ দামী ।

এরপরে প্রায় দু দিন মতো কেটে গেছে, সেদিন দোকানে যাইনি, বাড়িতেই চালাঘরে বসে কিছু কাজ করছিলাম, আর মাও রান্নার সাথে সাথে আমার কাজে বেশ যোগান দিয়ে যাচ্ছিল । একেই চালাঘর কোন পাখার ব্যবস্থা করা নেই গরমে আমি ঘামছিলাম কিন্তু আমার মা তার গা দিয়ে যেন কুল কুল করে জল বেরোচ্ছে ।

এদিকে মায়ের হাত কাটা ব্লাউজ টা একটু টাইট, ঘামে ভিজে একেবারে শরীরের সাথে চেপে রয়েছে, ঘাড় গোলা কপাল থেকে কুলকুল করে ঘাম ঝরছে । জমি মানুষ হলেও, যতই হোক মেয়ে মানুষ তো, অত ধকল নিতে পারে না….
মা ও অনেকক্ষণ আমারই সাথে ছিল, এক সময় মা বলে উঠলো, ” বিরূ বাবা একটু ফাঁক হলে আমাকে বলো, আমি একটু তলায় যাব বড্ড বাথরুম পেয়েছে।

আমি বললাম, ” মা, এখন তো একটূ লাগবে তোমাকে না হলে হবে না ”
মা বলল, ঠিক আছে ।
এরপরে আরো প্রায় ২০-২৫ মিনিট কেটে গেল , মা বলল, ” বাবু এবার যাই, জোড়ে পেয়েছে ”
আমি বললাম, ” এখন যাওয়া যাবে না, বেশী পেলে এখানেই করে দাও, আমি পরিষ্কার করে দেব ”
মা বলে, ” এ মা, ছি: ”
আমি বললাম, ” এতে ছি এর কী আছে? আমার অত ঘেন্না নেই, তারপরে তুমি তো আমার মা, তুমি চাইলে আমার গায়েও করতে পারো !! ”
মা নাক শিটকে বলে উঠল, ” ইশশশ…. বীরূ, কী সব নোংরা কথা বলছিস, তোর কি ঘেন্না পিত্তি একেবারেই নেই !! ”
আমি বললাম, ” আছে, কিন্তু তোমার ক্ষেত্রে নেই, তোমার কোন কিছুই আমার খারাপ লাগে না ”
মা বলল, ” সে তুমি আমাকে ভালোবাসো সে ভালো কথা, কিন্তু বিরু বাবা, পেচ্ছাপ – পায়খানা মানুষের ঘাম এগুলো শরীরের বর্জ্য… খারাপ জিনিস, এগুলোকে সব মানুষেই ঘেন্না করে ”

আমি বললাম, ” তোমার বিশ্বাস হচ্ছে না !! ”

বলে সোজা মায়ের দিকে এগিয়ে গেলাম, মা এমনিতেই গরমকালে হাত কাটা ব্লাউজ পরে, ডান হাতটা তুলে দেখলাম বগলে হাল্কা হাল্কা লোম, আর পুরো বগলটা ঘামে ভিজে জপজপে হয়ে রয়েছে,
বগলে জিভ দিয়ে ভালভাবে চেটে দিলাম ।

মা কিছু বুঝে ওঠার আগেই, আরেকটা হাতও তূলে একইভাবে বগলটা চেটে দিলাম । মা দূরে ছিটকে রেগে গিয়ে, বলল, ” বাবু, কী করছ এসব!! ইশশশ…. কী নোংরা তুমি, এসব জায়গায় কেউ মুখ দেয়… মা গো !! ”
আমি বললাম, ” মা, ছেলেবেলায় তো সবাই মায়ের দুধ খেয়েই বড় হয়, আমিও নিশ্চয়ই হয়েছি, সেটাও তো তোমার শরীরেরই একটা অংশ যেটা থেকে আমি ছোটবেলায় আমার খাদ্য সংগ্রহ করতাম, তখন তোমার কি একবারও এ কথা মনে হয়েছিল যে এটা নোংরা জিনিস ”

মা গম্ভীর স্বরে বলল, ” ছোটবেলাকার কথা আলাদা বিরূ, আর তাছাড়া সব বাচ্চাই মায়ের দুধ খেয়েই বড় হয় এটা নতুন কিছু নয়, তাই বলে তুমি আমার বগলে… ইশস… আমার ভাবতেই কীরম লাগছে… তোমার কী ঘেন্না করে না? অসভ্য নোংরা ছেলে একটা…. ”
আমি বললাম, ” মা, এইতো দু-তিন দিন আগে দোকানে যাওয়ার আগে আমি তোমার সাথে মশকরা করছিলাম মনে পড়ে… সেই দিন যাওয়ার আগে তুমিও কিন্তু আমার পুরুষাঙ্গে চুমু খেয়েছিলে, তুমি কী ঘেন্না পেয়েছিলে? ”

কোথায় মা একদম চুপ করে গেল, তারপর আরও রেগে গিয়ে বলল,
” বীরূ, তখন তুমি স্নান করেছিলে সদ্য আর তাছাড়া আমি তোমার মা, তোমার আমার মধ্যে একটা শ্রদ্ধার সম্পর্ক থাকা উচিত…. তোমার সাথে আমি যতটা পারা যায় বন্ধুর মত মিশতে চেষ্টা করি…. আর সেদিনও আমি চুমুটা একটা মাতৃত্বের বন্ধন হিসেবেই খেয়েছিলাম, সেটা তুমিও জান ”
” আমি তোমার সব কথা শুনি, তোমার যাতে অসুবিধা বা কষ্ট না হয, তার জন্য আমি তোমার এরকম অনেক জিনিস allow করি, যেটা হয়তো মা হিসেবে আমার করার কথা নয় ….
কিন্তু তাই বলে তুমি যখন যা ইচ্ছা আমার সাথে করতে পারো না বীরূ ”

আমি বললাম, ” তুমি আমায় কীসে allow করেছ যেটা করা উচিত ছিল না? আর আমি এমন কি করলাম যে তুমি আমার এই ছোট্ট একটা ভুলে এত রেগে যাচ্ছ? ”

মা আবার রেগে গিয়ে বলল, ” তুমি যখন তখন আমার সামনে বিনা কাপড়ে কেন থাকো? তুমি কি জানো না…. একজন ছেলে হিসেবে তোমার আমার সামনে এভাবে কখনোই থাকা ঠিক নয়, আমরা যে লোক সমাজে থাকি তারা এটা কি চোখে দেখবে কখনো ভেবে দেখেছো ? ”
আরও বলল, ” তোমাকে সেদিন বারবার বললাম যে তোমার শারীরিক অসুবিধার জন্য অবশ্যই একটা ডাক্তার দেখাতে…. কিন্তু তুমি এমন ভাবে জেদ ধরলে যে বাধ্য হয়ে আমাকে…. ইসসশ…. ছি ছি… কখনো শুনেছো কোন ছেলে তার মায়ের সামনে এগুলো করে? ”

মা হঠাৎ এরকম ভাবে রেগে যাওয়ায়, আমিও বেশ অপ্রস্তুত হয়ে গেছিলাম, কিভাবে মাকে শান্ত করব বুঝতে পারছিলাম না । আর তখনই মাকে শান্ত করতে গিয়ে আমি আরেকটি ভুল করে বসলাম ।
আমি বললাম, ” সেদিন তুমিও তো, মইয়ে উঠে বাসর নামাতে গিয়ে আমার মুখের ওপর বসে পড়েছিলে…. তাতে আমি কিছু বলেছি তোমাকে …!! কারণ আমি জানি সেটা দুর্ঘটনা ছিল, আর তুমি আমাকে অকারণে যা তা বলে যাচ্ছ ”

একথায়, মা রেগে গিয়ে আমার দিকে এগিয়ে এসে দু গালে ঠাস ঠাস করে চার পাঁচটা চড় মেরে দিল । বলল, ” অকাল কুষান্ড ছেলে বেরিয়ে যা আমার চোখের সামনে থেকে, তুই আমাকে এই জিনিসটা নিয়ে খোটা দিবি আমি কখনো ভাবতেও পারিনি ”

বলে রাগে গন গন করতে করতে ঘর থেকে বেড়িয়ে চলে গেল । মা চলে যেতেই আমি চালা ঘরেই বসে টুকটাক কাজগুলো সারতে থাকলাম, মোটামুটি কাজগুলি সেরে প্রায় ঘন্টা তিনেক পর চালা ঘর থেকে নিচে নেমে এলাম । এসে দেখি মা যথারীতি গরমে ঘামতে ঘামতে রান্নাবান্না করছে ।

আমিও লুঙ্গিটা খুলে গামছা পড়ে গায়ে তেল মাখতে মাখতে মায়ের সাথে দু একটা কথোপকথনের চেষ্টা করলাম, কিন্তু মা কোন উত্তরই দিল না । মা কে মজা করে বললাম, ” তোমাকে রাগ করে থাকলে আরোও সুন্দর লাগে ”

মা তাও কোন উত্তর দিচ্ছে না দেখে, একেবারে গিয়ে মায়ের পায়ের কাছে বসলাম, তারপর মায়ের পা দুখানি একেবারে কোলের উপর টেনে নিয়ে বললাম, ” মা, রাগ করে আছ এখনো? প্লিজ আমাকে ক্ষমা করে দাও মা, তুমি আমাকে মার বক যা ইচ্ছা করো কিন্তু আমার উপর এরকম রাগ করে থেকো না, তুমি ছাড়া আমার আরো কে আছে বলো !! ”

মা রেগে বললো, ” বীরূ ছাড় আমাকে বলছি, আমার এসব একদম ভালো লাগছে না কাজ করতে দে, না হলে লাথি খাবি ”
আমি বললাম, ” তা সে আমাকে লাথি মারো, তুমি আমার দেবী আমার বুকে পা রাখার অধিকার তোমার আছে, কিন্তু যতক্ষণ না তুমি আমাকে ক্ষমা করবে আমি তোমার পা ছাড়বো না ”

এ কথায় মা আমার দিকে কিছুক্ষণ তাকিয়ে থাকলো তারপর আবার নিজের কাজে মন দিল , আমি বুঝলাম মায়ের মন গলছে, আমার মা কিছুতেই আমার উপর বেশিক্ষণ রাগ করে থাকতে পারে না । কিন্তু তা সত্ত্বেও যতক্ষণ না পর্যন্ত মা হাসছে ততক্ষণ পর্যন্ত চেষ্টা চালিয়ে যেতে হবে ।

তারপর আমিও খানিক রাগ দেখিয়ে উঠে দাঁড়িয়ে পড়লাম, পাশ থেকে একটা ছুরি নিয়ে একটানে নিজের লুঙ্গিটা খুলে সটান মায়ের সামনে দাঁড়িয়ে পড়লাম… তারপর মায়ের হাতে ছুরিটা ধরিয়ে দিয়ে বললাম, ” এটার জন্যই তো এত কিছু…. দাও মা, তোমার দোষীকে তুমি নিজের হাতে শাস্তি দাও ”

আমার হঠাৎ এরূপ প্রতিক্রিয়া মা খানিকটা অপ্রস্তুত ও চমকে গেল । আমার মুখের দিকে একবার তাকিয়ে আড চোখে একবার আমার ধনের দিকে দেখে নিয়ে বলল, ” এতকিছু করার দরকার নেই, আমি তোমার উপর রেগে নেই আর রেগে থাকলেও তোমাকে সেটা নিয়ে ভাবার দরকার নেই ”

আমি বললাম, ” আছে, দরকার আছে, আমার নির্বুদ্ধিতার জন্য আমার দেবী আমার উপর অসন্তুষ্ট হয়েছে…. কষ্ট পেয়েছে, তার জন্য আমার শাস্তি প্রাপ্য, আমার দেবী যার চরণে আমি নিজের সবটুকু উৎসর্গ করতে পারি সে আমার উপর রাগ করে আমার সাথে কথা বলবে না এই আমি সহ্য করতে পারবো না ”

মা এবার নরম গলায় বলল, ” ঠিক আছে, আমি রাগ করিনি যাও, স্নান করে এস ”
আমি তখনই আবার মায়ের পায়ের কাছে বসে পড়ে মায়ের পা দুখানি কোলে টেনে নিয়ে বললাম, ” এবারের মত আমায় ক্ষমা করে দাও মা ”

এদিকে আমি তখন সম্পূর্ণ উলঙ্গ থাকায় মায়ের ডান পায়ের পাতা আমার বাম থাই এর উপর থাকলেও মায়ের বাম পা খানি আংশিকভাবে আমার ধনের উপর ছিল । মা একটু বিচলিত না হয় যথারীতি নিজের কাজ করতে থাকলো, আমিও খানিকটা রাগ দেখিয়ে আর বাম পা টাকে জোরে আমার পুরুষাঙ্গের উপর বাড়ি মারলাম । আর তাতেই মা চমকে উঠে মায়ার দিকে ফিরে বলল, ” আ: বীরূ, পাগল হলে নাকি… ব্যথা পাবে তো ”

আমি বললাম, ” আমার লাগে লাগুক, তুমি আগে বলো আমাকে ক্ষমা করেছ কিনা..”
বলে আবারো একইভাবে মায়ের বাম পা টাকে হাতে ধরে জোরে নিজের পুরুষাঙ্গের ওপর আঘাত করলাম, এবার মা আবার খানিকটা রেগে গিয়ে, সপাটে আমার ডান গালে এক চড় কষিয়ে দিয়ে বলল, ” কী হচ্ছে টা কী? ”
আমি মায়ের পা দুটোকে আরো শক্তভাবে ধরে কোলের উপর রেখে বললাম, ” মা প্লিজ আর রাগ করে থেকো না, একবারটি হেসে দাও ”
এদিকে মায়ের নরম পায়ের চাপে আমার পুরুষাঙ্গে জান আসতে শুরু করেছে ।
মা বলল, ” আমার পা টা ছাড় ” আমিও নাছোড়বান্দার মতো বলে উঠলাম, ” আগে বল যে তুমি আমাকে ক্ষমা করেছ, না হলে আমি তোমার পা ছেড়ে উঠছি না ”

মা বলল, ” আ: বীরূ !! তুমি আবার শুরু করলে, আচ্ছা ঠিক আছে ওসব কথা পরে হবে তার আগে তোমার ওটার ওপর থেকে আমার পা টা সড়াও, ইশশশ…কতটা বড় হয়ে গেছে… আমার বড্ড অস্বস্তি হচ্ছে ”

আমি বললাম, ” ওটা তার যোগ্য স্থানেই রয়েছে ”
মা বলল, ” মানে? ”
আমি বললাম, ” একদমই তাই মা, তুমি আমায় একদিন বলেছিলে না এই পুরুষাঙ্গ পুরুষ মানুষের পৌরুষের প্রতীক, আর আজ আমি আমার এই পৌরুষকে দেবীর চরণে সমর্পন করলাম, আমি তোমার দাস কখনোই আর তোমার কথার অবাধ্য হবো না মা, আমার এই সমর্পণ স্বীকার কর ” বলে মায়ের পা থেকে হাত দুটো সরিয়ে নিলাম ।

এরপরে মা আর রাগ করে থাকতে পারলো না, আমার দিকে মুখ করে বসে স্মিত হেসে বলল, ” বীরূ, কটর কটর করে অনেক কথা বলতে শিখে গেছ দেখছি…. আমি বুঝতেই পারিনি যে আমার পেটের ছেলেটা কবে এত বড় হয়ে গেল ”
” আর তখন থেকে কি সব আবোল তাবোল বলে যাচ্ছ তুমি, তুমি আমার দাস কেন হতে যাবে বাবা… তুমি তো আমার নারী ছাড়া ধন, আমার মানিক, আমি কি তোমার উপর রাগ করে থাকতে পারি বাবা ”

মায়ের পা দু খানি তখন আমার দুই উরুতে চেপে বসে আছে, আর তার মাঝে আমার অর্ধ কঠিন পুরুষাঙ্গটি দেবীর কৃপা প্রার্থী হয়ে বৃদ্ধ বটবৃক্ষের ন্যায় ধুকছে ।

তারপর মা আমার গালে কপালে চুমুতে ভরিয়ে দিয়ে কাদো কাদো হয়ে বলল, ” তখন আমার মাথা ঠিক ছিল না সোনা আমার, তোমাকে অনেক মেরেছি, রাগ করোনা বাপ আমার ”

আমি শান্ত স্বরে বললাম, ” আমি কী আমার দেবীর ওপর রাগ করে থাকতে পারি? আমি একটুও রাগ করিনি মা, শুধু একটু ভয় পেয়েছিলাম যে আমার কোন ভুলে আমি তোমার ভালোবাসা আশীর্বাদ থেকে বঞ্চিত হবো না তো…. ”

মা এবার কান্না থামিয়ে মুখে খানিকটা হাসি এনে কৌতুক ভাবে আমার অর্ধ উত্থিত লিঙ্গের দিকে চোখ দিয়ে ইশারা করে বলল বলল, ” সে তো সবই বুঝলাম, কিন্তু এখনো কারোও একটা রাগ কমেনি বলে মনে হচ্ছে… ”
আমি বললাম, ” তাহলে দেবী হিসেবে তোমার উচিত এই দাস কে বশ্যতা স্বীকার করানো কারণ দাসের এই উদ্ধত আচরণ কখনোই কাম্য নয় ”

মা চোখ বড় বড় করে বলল, ” ও আচ্ছা !! তা কীভাবে? ”
আমি দীপ্ত কন্ঠে জবাব দিলাম, ” যে মাথা দেবীর সামনে তার উধ্যত ভাব প্রকাশ করেছে সেই মাথায় পা রেখে তাকে অবদমিত করাই একমাত্র করণীয়… ” বলে মায়ের ডান পা খানি হাতে ধরে তাতে গভীরভাবে এক চুম্বন করে সেটাকে আমার বুকে রাখলাম । ”

এ কথায় মায়ের মুখে এক বিচিত্র হাসি ফুটে উঠলো, মা তার বাম পা দিয়ে লিঙ্গ মুন্ডীর চামড়াটায় নিচের দিকে চাপ দিতেই, চামড়াটা সরে গিয়ে কালচে লিঙ্গ মুন্ডীটা বেরিয়ে এল । তারপর মা আমার মুখের দিকে একবার তাকিয়ে নিয়ে বাম পা দিয়েই আমার উত্থিত লিঙ্গটাকে লিঙ্গ মুন্ডিতে চাপ দিয়ে একেবারে মাটির সাথে ঠেসে ধরলো ।

আমি একইসাথে সুখ ও যন্ত্রনায় দগ্ধ হতে হতে বললাম, ” মা আমি সত্যি বুঝতে পারিনি যে তুমি এতে এতটা আঘাত পাবে, আমি ভেবেছিলাম মা হিসেবে তুমি আমার কষ্টটা বুঝবে ও তুমি আমাকে সব থেকে ভালোভাবে সাহায্য করতে পারবে, বিশ্বাস করো মা তোমাকে অপদস্ত ও অপমানিত করার কোনরূপ ইচ্ছাই আমার মনে ছিল না…. ”

আমি বললাম, ” মা গো, আমিও তোমায় খুব ভালোবাসি, তোমারও শরীরের কোন বর্জ্য পদার্থ আমার কাছে খারাপ বা ঘেন্নার জিনিস নয়, তাই সেদিন একটা ওরম দুর্ঘটনার পরও তুমি কষ্ট পেলেও আমার কাছে সেটা কিছুই মনে হয়নি…. আর শুধু তাই না, তুমি চাইলে যেগুলোকে তুমি নিজের শরীরের বর্জ্য পদার্থ বলে মনে কর…. আমি শুধুমাত্র তোমাকে খুশি করার জন্য সেগুলো খেতেও পারি ”

মা কেমন করুন ভাবে আমার দিকে তাকিয়ে ছিল, লিঙ্গের উপর থেকে তার পায়ের চাপ বেশ শিথীল হল, তারপর বলল, ” বাবা, তুমি সেদিন সত্যিই ঘেন্না পাওনি? আমার তো লজ্জায় মাথা কাটা যাচ্ছিল… ”

আমি আর কিছু না ভুলের মাকে জড়িয়ে ধরে বললাম, ” আমাকে স্নান করিয়ে দেবে মা… ”
মা হেসে বলল, ” আমার পাগল ছেলে, যাও পুকুরপাড়ে গিয়ে বসো আমি আসছি ”

যথারীতি আমি পুকুর পাড়ে গিয়ে গায়ে তেল মাখতে থাকলাম, খানিকবাদে আমার নগ্ন কাঁদে মায়ের হাতে স্পর্শ পেলাম । এরপরে মা ধীরে ধীরে কোমল হাতে আমার বুক ও পিঠে সাবান ঘষতে থাকলো, সাথে দু একটা কথোপকথন চলতে থাকলো । ক্রমে বুকে পিঠে সাবান ঘষা হয়ে গেলে, আমায় দাঁড়াতে বলল । আমিও দাঁড়িয়ে মায়ের দিকে পিছন ফিরে গামছাটা কোমর থেকে খুলে দিলাম । মা অতীব যত্নে আমার পায়ের পাতা থাইয়ে ও পাছায় সাবান ঘষতে লাগলো, এমনকী পাছার খাজেও আঙুল ঢুকিয়ে সাবান লাগিয়ে দিল ।
মায়ের কোমল হাতের স্পর্শে ততক্ষণে আমার পুরুষাঙ্গটি তার সমুর্তি ধারণ করেছে, কিন্তু মায়ের তাতে কোন ভ্রুক্ষেপ নেই নিতান্ত অন্য দিনের মতোই আমার থলি উত্থিত লিঙ্গে সাবান বুলিয়ে দিল ।

তারপর মা আমায় বলল, ” হয়ে গেছে বীরূ বাবা, এবার গায়ে জল ঢেলে নাও, আমার অনেকক্ষণ থেকেই বাথরুম পেয়েছে, আমি যাই ”
আমি বললাম, ” না আমি একা একা স্নান করতে পারব না ” মা বলল, ” তাহলে একটু অপেক্ষা করো আমি চট করে হিসি করে আসছি ”
আমি তখন মজা করে বললাম, ” সেসব আমি জানিনা, আমাকে এখনই চান করাতে হবে আমি অপেক্ষা করতে পারব না, হিসি করতে হলে এখানেই কর, আমার গায়ে কর ”

মা আমার চুলের মুঠি ধরে ঝাঁকিয়ে দিয়ে বলল, ” আবার শয়তানি শুরু করেছ !! খালি নোংরা নোংরা কথা…. ঠিক আছে তোমাকে স্নান করিয়ে দিয়েই আমি যাব। ”

তারপর মা আমাকে সাবান লাগানো হয়ে গেলে জল দিয়ে ধুয়ে গা পরিস্কার করে দিল, আজ মাকে কেন যেন আরো মোহময়ী লাগছিল । মায়ের ফর্শা গোদাগোদা থাই আর পায়ের থোড় দুটো একেবারে আমার মুখের সম্মুখে, আমি দুহাত দিয়ে মায়ের দু পা জড়িয়ে ধরলাম । মা বলল, ” আবার কী হল, ছাড় সোনা, স্নান করিয়ে দিলাম তো এবার আমাকে ছাড়ো খুব জোরে বাথরুম পেয়েছে ”
আমি বললাম, ” না, আমার গায়ে কর ”
মা, ” ইশশশ বাবু তুমি আবার শুরু করেছো, এই না তোমাকে ভালোভাবে স্নান করিয়ে দিলাম… ”

আমি বললাম, ” তাতে কী? তোমার হিসিতে আমি আবার স্নান করে পবিত্র হতে চাই, এটা আমার আবদার মা ”
মা বলল, ” বাবু এসব কি ছেলে মানুষী শুরু করেছে বলতো, তোমার গায়ে আমি এসব কিভাবে করব… এটা তোমার কি ধরনের আবদার বল !! ”
আমি বললাম, ” জানি না, আমার ইচ্ছা হল তোমায় বললাম ”
মা, ” তাই বলে আমি আমার সন্তানের গায়ে পেচ্ছাপ করব, একজন মা হিসেবে আমি এটা কি করে করতে পারি ”
আমি, ” মা, তুমি শুধু আমার মা নও তুমি আমার দেবী সন্তান হিসেবে না পারো একজন দাস হিসেবে তো তুমি তা করতেই পারো ”
মা, ” ইসশশ বিরূ…. কি সব বলছো তুমি, তোমার সামনেই আমি এসব করতে পারবো না আর তুমি কিনা বলছো তোমার গায়ের উপর পেচ্ছাপ করতে.. বাবু তোমার ঘেন্না করবে না !! ”

আমি, ” আমার দেবীর পেচ্ছাপ আমার কাছে অমৃতের মত, তা আমি অঞ্জলি ভরে পানও করতে পারি আর তুমি সেখানে স্নান করার কথা বলছ? ”
মা বলল, ” অসম্ভব ”
আমি, ” কেন অসম্ভব, মা ”
মা, ” কারন তুমি আমার সন্তান বিরূ, তুমি এখানে বসে থাকবে আর আমি তোমার উপর দাঁড়িয়ে দাঁড়িয়ে পেচ্ছাপ করব এটা ভাবলেই আমার গা টা ঘিনঘিন করছে, পেচ্ছাপ একটা নোংড়া জিনিস বিরূ…

আর তোমার ওটা সরাও তো , তোমার ওটা আবার শক্ত হয়ে গেছে, এসব নোংরা কথা বলে কি এত মজা পাও তুমি…. ”

মা কিছুতেই রাজি হচ্ছে না দেখে আমি শেষ পর্যন্ত, বললাম, ” তোমার পেচ্ছাব আমার শরীরের উপর পড়লে তোমার খারাপ লাগবে তো, কারণ তোমার মনে হচ্ছে পেচ্ছাপটা একটা নোংরা জিনিস কিন্তু একটা নোংরা জিনিস যদি আরেকটা নোংরা জিনিসের উপর পড়ে তাহলে? ”
মা,” মানে?”
আমি আমার লৌহ কঠিন বাড়াটা হাতে ধরে মায়ের সামনেই মৈথুন করতে করতে বললাম , ” তুমি আমার শরীরে পেচ্ছাপ না করতে পারো, আমার পুরুষাঙ্গের উপর তো করতে পারো, এটা তো আর নোংরা হবে না, কারণ এটা দিয়ে আমিও পেচ্ছাপই করি ”

মা খানিকটা ভেবে নিয়ে বলল, ” আমরা এসব কেন করছি বিরূ, আর তুমি হাত দিয়ে ওটা করা বন্ধ কর তো… ”
আমি বললাম, ” এমনি মজার জন্য, আর তাছাড়া ধরতে পারো এটা আমার একটা অনুরোধ আরে এটা তোমার তো কোনো ক্ষতি হচ্ছে না বল মা ”

মা বলল, ” ঠিক আছে, যা করবে তাড়াতাড়ি কর ”
মায়ের এই কথায় আমার মনটা আনন্দে নেচে উঠলো, আমি মাকে পুকুরপাড়ে উঁচু পাথর খন্ডটার উপর বসিয়ে দিয়ে, মায়ের দু পায়ের ফাঁকে উলঙ্গ হয়ে শুয়ে পড়লাম আমার পুরুষাঙ্গটি তখন শানিত ফলার মত ফনা তুলে দাঁড়িয়ে আছে । মা খানিক বিরক্তিভরে ধীরে ধীরে কাপড় দুটো টেনে কোমরের উপর তুললো, তারপর নিজের যোণীদেশটাকে আমার লিঙ্গ এর দিকে নিশানা করে বসল, আমার চোখের সামনে নিমেষে হাল্কা হলুদ বর্ণের ধারা সশব্দে মায়ের দু পায়ের মাঝখান থেকে বেরিয়ে এলো ।

সেই পিতাভ মুক্তধারা আমার লিঙ্গ স্পর্শ করতেই আমার সারা শরীরে শিহরণ খেলে গেল, ক্রমে আমার বিচীতে কামদণ্ডে আমার মায়ের উষ্ণ প্রস্রাবের ধারা ঝড়ে পড়তে থাকলো, আমি চরম আবেশে ডান হাত দিয়ে সম্পূর্ণভাবে লিঙ্গ মুন্ডু থেকে চামড়াটিকে সরিয়ে মূন্ডটাকে অনাবৃত করলাম ।

ঠিক সেই সময়ে মায়ের প্রস্রাবের বেগ যেন দ্বিগুণ হয়ে গেল আর সেই হলুদ পেচ্ছাপ ছড়িয়ে না গিয়ে এক বিন্দুতে তীরের ফলার মত আমার লিঙ্গ মুন্ডের ঠিক তলার অংশটিকে বিদ্যুৎ বেগে বিদ্ধ করতে থাকলো । মায়ের পেচ্ছাপের ভীষণ বেগে আমার লিঙ্গটি থরথর করে কাঁপতে থাকলো । সেকি পেচ্ছাপের ধারা এ যেন শেষই হতে চায় না ।

এমতাবস্থায় আমি চরম সুখের জোয়ারে ভাসছি ঠিক যখন আমি বুঝতে পারলাম আমার সুখ অপরিসীম হয়ে গেছে, ঠিক তখনই আমার তলপেটে হাল্কা চাপ অনুভব করলাম আর সেই সাথে আমার সারা শরীরটা মোচড় দিয়ে উঠলো, চোখের নিমেষে অন্ডকোষ দুটি আমার কামদন্ডের গোড়ায় চেপে বসলো । আমি কোন মতে আবেশে বিভোর হয়ে চোখ খুলে দেখলাম, মা একদৃষ্টে আমার কম্পিত পুরুষাঙ্গের দিকে চেয়ে আছে, আর সেই সাথে আমার পুরুষাঙ্গটি থর থর করে কেঁপে উঠলো এক থোকা বীর্য আমার লিঙ্গ মুন্ডু থেকে ছিটকে বেরিয়ে এল । এরপর ক্রমাগত আট থেকে নয় বার দড়ির মতো আমার লিঙ্গ থেকে বীর্য উদগীরিত হতে থাকলো…. দলা দলা বীর্য আমার পেট ও বালে জমা হলেও মায়ের পেচ্ছাপের দাপটে সব ধুইয়ে গেল ।

এমতাবস্থায় মা বিস্ফারিত নয়নে আমার কম্পিত পুরুষাঙ্গের দিকে চেয়ে রইল, যেন বিশ্বাসই করতে পারছিল না যে এভাবেও বীর্যপাত সম্ভব ।

অবশেষে মায়ের প্রস্রাবের ধারা শেষ হলো । মায়ের চোখে চোখ পড়তেই, দেখলাম মায়ের পা দুটি আমার লিঙ্গের গা বরাবর নেমে এলো ।

তারপর মা খুব ধীরে ধীরে দু পায়ের পাতার মাঝখানে বাড়াটাকে ধরে চেপে চেপে আগু পিছু করতে থাকল সেই সাথে পায়ের বৃদ্ধাঙ্গুষ্ঠ দুটি দিয়ে লিঙ্গ মুন্ডুটি পিষতে থাকল, একি স্বপ্ন না বাস্তব ঠাহর করতে পারলাম না । কিন্তু ক্রমে অনুভব করলাম আমার লিঙ্গ মুন্ডে মায়ের পায়ের পাতার চাপ বাড়ছে, মা তখন প্রবল ভাবে লিঙ্গ মুন্ডু দিকে পায়ের পাতার মাঝখানে নিয়ে পিসে চলেছে । নীচে এসে বারবার মায়ের পায়ের পাতা দুখানি থপ থপ শব্দ করে বিচীর ওপর বারি খাচ্ছে ।

ক্রমে বুঝতে পারলাম আমার অন্ডকোষে পুনরায় বীর্য পাকিয়ে উঠছে, আমি মায়ের দিকে আকুল নয়নে তাকাতেই… মা যেন কিছু একটা আঁচ করতে পেরে পায়ের গতি থামিয়ে দিল । তারপর ধীরে ধীরে চেপে চেপে কামদণ্ডটাকে ডগা থেকে গোরা পর্যন্ত সমানভাবে মৈথুন করতে থাকলো । আসন্ন বীর্যপাতের সম্ভাবনা খানিকটা স্থিমিত হলে পুনরায় শুরু হলো মায়ের পদ মৈথুন ক্রমে সেই মৈথুন নিষ্ঠুর পিষনের রূপ নিল, এক পর্যায়ে আমার সমগ্র কাম দ্বন্ডটি বীর্যপাতের আবশ্যিক তাড়নায় কেঁপে কেঁপে উঠলো কিন্তু ঠিক সেই সময় মা পা থামিয়ে এক হাতে কামদন্ডের গোড়ার দিকে কোথায় যেন তীব্রভাবে চেপে ধরল আর সেই সাথে অণ্ডকোষ দুটিকে মুঠিতে করে চেপে ধরল । এভাবে ঠিক তিরিশ চল্লিশ সেকেন্ড থাকার ফলে আমার তপ্ত লিঙ্গটি ব্যথায় টনটন করে উঠলো । কিন্তু মায়ের যেন তাতে কোন ভ্রুক্ষেপই নেই, বীর্যপাতের সম্ভাবনা আবার স্তিমিত হলে মা লিঙ্গ মুন্ডটাকে বার কয়েক জোরে জোরে মোচড় দিয়ে দিল । তারপর আবার ধীরে ধীরে পা দুটিকে নামিয়ে আনলো রক্তিম লিঙ্গ মণ্ডলটির গা বরাবর । আবার শুরু হল ধীরলয়ে লিঙ্গ পেশন ।

এভাবে মিনিট দুয়েক চলার পর, মায়ের পা দুটি আবার ভীষনভাবে আমার অহংকারী কামদন্ডটাকে দু পায়ের পাতার মাঝে করে পিষতে শুরু করল কয়েক সেকেন্ডের মধ্যেই
সারা শরীরে মোচড় দিয়ে দ্বিতীয়বারের জন্য আমার বীর্যপাত আরম্ভ হল, পুঞ্জিত বীর্যরসের তাজা ধারা মায়ের পা দুটিকে ধুয়ে দিতে থাকল ।

এদিকে বীর্যপাত আরম্ভ হতেই মা তার পা দুটি দিয়ে লিঙ্গের গোড়ায় অন্ডকোষ দুটি চেপে ধরল । আমার অন্ডকোষে মায়ের পদযুগলের চাপে চার পাচ শট কামরস ছিটকে মায়ের পায়ের থোড় ও হাটুতে গিয়ে পড়ল ।

ব্যথায় ককিয়ে উঠলাম, তাকিয়ে দেখি ততক্ষণে লিঙ্গ মুণ্ডটি টকটকে লাল বর্ণ ধারণ করেছে আর সেটি থেকে শেষ কয়েক থোকা ঘন বীর্য বাড়ার গা বেয়ে গড়িয়ে পড়ে মায়ের পায়ের এসে জমা হচ্ছে । এ এক অপূর্ব স্বপ্নময় মুহুর্ত, কিন্তু মা যেন সেদিন এক অন্যরূপে ছিল, মায়ের চোখে মুহূর্তের জন্য কামনার লেলিহান শিখা জ্বলে উঠল ।

দ্বিতীয়বারের জন্য বীর্যপাত বন্ধ হতেই মা পুনরায় পুরো কাম দন্ড টাকে দু পা দিয়ে চেপে ধরে আগুপিছু করে নিষ্ঠুর পিশাচিনির মত জোরে জোরে পিসতে থাকলো, আর দু পায়ের বুড়ো আঙ্গুল দিয়ে আর প্রত্যেকবার লিঙ্গমুন্ডটাকে মোক্ষমভাবে চিপে দিতে থাকল, একপর্যায়ে মায়ের এই পদমৈথুন আমার জন্য কষ্টকর ও বেদনাদায়ক হয়ে উঠল,

মা কে উদ্দেশ্য করে বললাম, ” মা গো, আর তো পারছি না, এবার থামো, খুব ব্যাথা লাগছে ”

কিন্তু আমার চোখে মুখে যন্ত্রণার অভিব্যক্তি দেখেও মা তাতে ভ্রুক্ষেপ করল না একই ভাবে নির্বিকার চিত্তে তার দু পায়ের মাঝখানে আমার কঠিন কামদন্ডটা তুমুল বিক্রমে পিশে যেতে থাকল । এদিকে আমার কামদন্ড দুটি তখনো শিথিল হচ্ছিল না ।

মা কিন্তু এবারে কোনোভাবেই তার পা দুটিকে থামিয়ে দিচ্ছিল না, পরপর দুবার প্রবলভাবে মায়ের পায়ে বীর্য বর্ষনের পর নিজের শরীরে বড্ড ক্লান্তি অনুভব করছিলাম , পরিষ্কার বুঝতে পারছিলাম আমার পুরুষাঙ্গটিও ক্রমে শিথিল হতে চাইছিল বিচি দুটোতেও এক অদ্ভুত টান অনুভব করছিলাম, কিন্তু সেই দিন আমার ক্ষমাশীল মা দন্ডদাত্রী রূপে শুধুমাত্র লিঙ্গ মুণ্ডটিকে গা বরাবর প্রবলভাবে পিশতে থাকল । মনে মনে ভগবান কে ডাকছিলাম যেভাবে হোক বীর্যপাতটুকু ঘটুক ।

এরকম ভাবে সাত আট মিনিট চলার পর আমি আমার তলপেটে তীব্র ব্যথা অনুভব করলাম আর সেই সাথে অন্ডকোষ দুটিতে তীব্র ব্যথা সহ টান অনুভব করলাম । হঠাৎ করে আমার লৌহ কঠিন পুরুষাঙ্গটি থর থর করে কেঁপে উঠলো মনে ভাবলাম কোথায় বীর্যপাত হতে চলেছে, কিন্তু না…. কোথায় বীর্য… লিঙ্গ মুন্ডু থেকে দু-তিন ফোটা কাম রস বেয়ে পড়তে থাকলো…

মা তখন উন্মাদের মতো আমার লৌহ কঠিন তপ্ত পুরুষাঙ্গটিকে, তার ভারী দেবী পদযুগলের মাঝে নিয়ে পুরো শক্তিতে পেশন করে চলেছে ।

আমি আর সহ্য করতে না পেরে দুহাত দিয়ে কোন রকমে মায়ের পা দুখানি ধরে, তাকে থামাতে চেষ্টা করলাম, কিন্তু তাতে ফল হলো একদম উল্টো মা তো থামলই না, বরং তাকে বাধা দিতে চেষ্টা করায় আমার বুকে সজোরে এক লাথি বসিয়ে দিল । লাথির আঘাত সহ্য করতে না পেরে আমি আবার, ধরাশায়ী হলাম ।

আমি কাতর কণ্ঠে অনুরোধ করলাম, ” মা প্লিজ থামো, খুব লাগছে… আর বেরোবে না ”
মা ঠোট বেকিয়ে বলল,
” আহাহা… মা কে ধন খাড়া করে দেখাতে পার…
মায়ের মুতে মাল ঝড়াতে পার, আর মাত্র দু বার রস ঢেলে এখন বলছ আর বেরোবে না…. ঢং… বেরোবে না মানে !! ঠিকই বেরোবে, বেরোতেই হবে…, আমি বের করেই ছাড়ব… এই তো বেরোল বলে… ”

কিন্তু আমি তখনও বীর্যবাদের কোন সম্ভাবনাই শরীরে বুঝতে পারছিলাম না

সেই সাথে দেখলাম মা পাথরটি থেকে উঠে আমার পা দুটিকে আকাশের দিকে তুলে ধরে তাতে ভর দিয়ে আমার তলপেটের ওপর দেহের সমস্ত ভর দিয়ে দাঁড়িয়ে পড়ল ও একই সাথে আরেক পা দিয়ে অন্ডকোষ দুটি চেপে ধরলো, ব্যাথায় আমার সারা শরীরে যন্ত্রণা করে উঠলো । মনে হতে থাকলেই মা যেন আমার শরীর থেকে সব রস নিংড়ে নিতে চাইছে…. এ যেন আমার মা নয়, নির্ঘাত কোন কাম পিশাচিনির খপ্পরে পড়েছি আমি ।

ঠিক তখনই অনুভব করলাম অদ্ভুতভাবে তৃতীয়বারের জন্য আমার লিঙ্গ বীর্যপাতের অবশ্যম্ভাবী সম্ভাবনায় থরথর করে কেঁপে উঠলো, চোখের নিমেষে সেই রক্তাভ লিঙ্গমুন্ড থেকে গলিত লার্ভার নেয় বীর্য উদগীরণ শুরু হল,

এক… দুই… তিন…. চার….. ক্রমাগত পাচ বার বীর্য উৎক্ষেপণের পর প্রবল উত্তেজনায় আমার পুরুষাঙ্গটি তিরতির করে কাপতে কাপতে তার সকল গর্ব ও অহংকার হারিয়ে দেবীর চরণে লুটিয়ে পড়ল । এই দেখে অবশেষে মা আমার অন্ডকোষ থেকে নিজের ওজন সরিয়ে নিল, আর তার ফলে আমার রক্তিম লিঙ্গমুণ্ডটি থেকে শেষ কয়েক ফোটা সাদা কামরস গড়িয়ে মায়ের পায়ে পড়ল ৷।

তারপর মা বিজয়ীনী যক্ষীণীর মতো পাথরের ওপর গিয়ে বসল মুখে অবজ্ঞা মিশ্রিত শয়তানি মনমোহীনী হাসি ।
সেই পাথরে বসে পা দিয়েই আমার পেটে ও বুকে পড়ে থাকা ঘন বীর্য রাশি নিয়ে পা দিয়ে সদ্যযৌবনা তরুণীর কামকেলী করতে করতে বলল,

” তোমার রস তো দেখছি আগের থেকে অনেক মোটা আর ঘন হয়েছে, তা এত রস জমা ছিল আমার জন্য…!! ”

আমি ব্যঙ্গ করে বললাম, ” দেখ এসবই দেবীর প্রসাদের গুণ, আমার না ”
মা তখনও নিজ আবেশে আমার শায়িত বিদ্ধস্ত পুরুষাঙ্গের ওপর তার পায়ের পাতা দিয়ে বুলিয়ে যাচ্ছে…
আমার একথায় ভুরু খানিকটা কুচকে বলল, ” দেবীর প্রসাদ… সেটা আবার কী? ”
আমি বললাম, ” ওই যে, তোমার হলদেটে উষ্ণ প্রস্রাবের ধারা, আ: সে কী অপূর্ব অনুভূতি মা গো…. তোমায় বলে বোঝাতে পারবো না ”

মা নাক সিটকে বলল, ” ইশশশশশ… তার মানে এর জন্য এত রস ঢাললে…!! ”

আমি বললাম, ” মা গো, তুমি চাইলে আমি তোমায় আমার রসে স্নান করিয়ে দেবো, আর তার বিনিময়ে এতোটুকু অনুগ্রহ আর অঞ্জলী ভরে তোমার প্রসাদ গ্রহন করতে চাই ”
মা বলল, ” এর মানে কী… বীরূ বাবা…? ”
আমি, ” তোমার পেচ্ছাপ পান করতে চাই মা গো, প্রতিদিন প্রতিটা ক্ষনে…, আজ থেকে তুমি আমার দেবী আর তোমার পেচ্ছাপ আমার কাছে অমৃতের সমান… তা পান করে নিজেকে শুদ্ধ করতে চাই ”

মা আবার হেয়ালী করে বলল,
” আহা ঢং…. এই তো বলছিলে আর নাকী বেরোবে না…
বললাম না বের করেই ছাড়ব…
দেখলে তো কেমন অন্ডকোষ নিংড়ে বের করে আনলাম দলা দলা উর্বর বীজ !!
…. আমি চাইবো আর বেরোবে না… হ্যা !! ”

বলে খিল খিল করে হেসে ফেলল ।

আমি তারপর মায়ের পা জড়িয়ে ধরে বললাম, ” মা… মা গো কথা দাও আজকের পর থেকে তোমার তোমার এই দাসকে তোমার প্রসাদ থেকে বঞ্চিত করবে না,… ”

এই কথায় মায়ের চোখ দুটি ছল ছল করে উঠলো, ” আমায় এত ভালবাসো তুমি বীরূ বাবা…!! কিন্তু বাবু যতই হোক পেচ্ছাপ শরীরের নোংরা জিনিস সোনা, আমি মা হয়ে তোমায় রোজ রোজ এসব খেতে দিতে পারব না…. অসম্ভব ”

আমি খানিক চুপ থেকে বললাম, ” ঠিক আছে, অন্তত দিনে তিনবার তো দিতে পারবে… বল ”
মা আমার দিকে চেয়ে থেকে বলল, ” ঠিক আছে, পাবে, আজ থেকে তুমি যখন চাইবে তখনই আমার প্রসাদ পাবে ”

আমি মৃদু হেসে কোনো রকমে উঠে বসে দেখলাম, মায়ের পা দুখানি সাদা থোকা থোকা বীর্যে আচ্ছাদিত । আমি বললাম, ” কিন্তু আজ বড় কষ্ট দিলে মা গো, আমার বিচি দুটো তো এখনো টনটন করছে ”

মা বলল, ” আমি এরকমই, যেটা ভাবি করবো, করেই ছাড়ি,…. আর মুরোদ যখন নেই তাহলে দুই বার করার পরেও দাড় করিয়ে রাখো কেন শুনি? আমারও রোখ চেপে গেছিল,… আর তাছাড়া মেয়ে মানুষের তেজ ঝেলতে পার না… কেমন পুরুষ মানুষ তুমি !! ”

মায়ের এই কথাগুলো আমার যেন একেবারে পুরুষত্বকে বিদ্ধ করল বললাম, ” মা… !! তুমিও না, আমি তো শুধু দাস হিসেবে তোমার অনুগ্রহ আশা করছিলাম ”

মা হেয়ালী করে বলল, ” বারে, আমাকেও তো দেখতে হবে যে আমার দাসের তার দেবীকে সন্তুষ্ট করার ক্ষমতা আছে কি না… দেবীকে সন্তুষ্ট করতে চাও আর এটুকু কষ্ট সহ্য করতে পারবে না তাই আবার হয় নাকি !!
তা দেবীকে নিজের পৌরুষ নিবেদন করার স্বাদ মিটেছে? ”

আমি বললাম, ” আমার দেবী কী খুশি হয়েছে আমার পৌরুষ নিবেদনে? ”
মা বলল, ” অবশ্যই, এরম নি:স্বার্থ পৌরুষ নিবেদনে কোন দেবী অসন্তুষ্ট থাকতে পারে…!! কিন্তু তুমি জানো তো, দেবীকে মাত্র একবার নিবেদন করলে হয় না, নিয়ম করে প্রতিদিন তাকে অর্ঘ্য দান করতে হয় ”

আমি হেসে বললাম, ” আমি অবশ্যই চেষ্টা করব, মা , নিজের সবটুকু দিয়ে চিরজীবন তোমায় খূশী রাখবো, আর রইল বাকি নিবেদনের কথা…” এই বলে মায়ের বাম পা টা আমার লিঙ্গের ওপর রেখে বললাম, ” এটা তো তোমারই আজ্ঞাবহ দাস, তোমার পায়ের তলায়েই এর স্থান,…. ”

” আর, সবশেষে এটুকুই বলতে চাই যে…. আপনাকে অজস্র ধন্যবাদ দেবী আমার পৌরূষ নিবেদন গ্রহন করার জন্য ”

মা মুচকী হেসে উঠে দাঁড়িয়ে ডান পা টা আমার বুকে রেখে ঠোট বেকিয়ে বলল,

” আহাহা: কতই না ঢং করতে পার… , আমার মুতের গন্ধেই তো গলগল করে মাল ঢেলে দিলে , আবার পৌরুষ…. ঢং দেখে আর বাচি না….
আর তাছাড়া আমার পা দুটো ঢাকতেই তো তিন তিন বার ঢালতে হল, আর উনি নাকী আমাকে ওনার রসে স্নান করাবেন…. দেখবো কত মুরোদ তোমার ”

এই বলে মা পুকুরে নেবে এক পা দিয়ে আরেক পা ঘষে ঘষে আমার শুকিয়ে আসা মাল গুলো তুলতে থাকলো ।

পা ধোয়া হয়ে গেলে আমার দিকে মুখ করে বলল
” বীরূ, গা ধুয়ে, তাড়াতাড়ি ঘরে এস খেতে দিচ্ছি, অনেক বেলা হয়ে গেছে… আশা করি আজ খিদে ভাল হবে… ” বলে হেসে চলে গেল ।

মা চলে যেতে আমি আরো কিছুক্ষন পুকুর পাড়ে চিত হয়ে শুয়ে থাকলাম, সমস্ত ঘটনাটা মনে হচ্ছিল এক লহমায় ঘটে গেল । স্বপ্ন সফল হল ।