পারিবারিক গ্রুপ খেলা পর্ব ৮

বাবু এইসব মেয়েরা দেয় না। ভালবেসে আদায় করে নিতে হয়। নিডি বানিয়ে করতে হয়। সবাইকি তোমার আম্মু নাকি। নিজের ছেলে বলে প্রথম দিন সব দিয়েছি। জ্ঞ্যান দিলাম আব্বু।

আমার টাপের গতি বেড়ে যায় আর আম্মু আমার দিকে চেয়ে চেয়ে বলে, কাম অন মাই বয়। ইয়েস ইয়েস শুনেই আমার সোনায় কম্পন ধরে যায়।আমি সাথে সাথে বাহির করে খেচতে থাকি আম্মুর মুখের সামনে আর আম্মু আমার বিচিতে হাতাতে থাকে হঠাৎ চড়াত করে আম্মুর গালে, গলায়, চোখে, মুখে ভাসিয়ে দেই। আম্মু হা করে কিছুটা মুখেও নিয়ে নেয়। শেষে আমার সোনা মুখে নিয়ে চুসে চসে বাকি মাল সব বাহির করে নেয়। আমি চরম সুখে হারিয়া যাই। আম্মু হাত দিয়ে চেহারায় ভাল করে ক্রিমের মত মাখিয়ে দেয়।
আমি পাশে শুয়ে আম্মুর মুখে চুমু দিয়ে বলি। ধন্যবাদ আম্মু।

আম্মু আমাকে জড়িয়ে ধরে আদর করে বলে, নিজের ঘরে মহাপুরুষ রেখে আমি কত জায়গায় খোযে বেড়াই। বহুদিন পর এত সুখ পাইলাম।তোরে ধন্যবাদ।
আম্মু উঠে গিয়ে ক্লিন করে বলে, চল নিচে গিয়ে কপি খেয়ে আসি।

নিচের কপি শপে বসে আম্মু বলে, নিলা লাকী তোর টাপ খেতে পারছে।

তুমি লাকী না আম্মু। তুর আব্বু সব সময় বলে নিলা খুব সেক্সি।

আম্মু আব্বু কি নিলা আপুর প্রতি দুর্বল নাকি।

জানি না। এমন কিছু বলেনা কিন্তু গঠন চেহারা নিয়ে কথা বলে, সেক্সি বলে। তুই এক কাজ কর‍তে পারিস। নিলাকে বলবি একটু বাজিয়ে দেখতে। তোর আব্বু কি করে।

ঠিক আছে আম্মু। আসলেই আমি বলবো। এই কথা বলতে বলতেই আব্বুরা চলে আসে। আম্মুকে বলে চল বিচে যাব। সুন্দর আবহাওয়া এখন ঘুরে আসি। আব্বু আর আম্মু চলে যায় আমি আর আপু কথা বলি।
আমি আপুকে বলি, আপু আব্বু মনে হয় আমাদের সন্দেহ করছে। আম্মুর কথায় বুঝলাম। এখন তুমি আব্বুকে এম্বারেস করতে হবে আর আমি আম্মুকে।
সেটা কি করে।
তুমি আব্বুকে দুধ দিয়ে ঘষাঘষি করে কিছুটা মজা দিবে। আর আমি আম্মুকে দিব। কিছুটা হালকা পাতলা সুখ সেক্সুয়ালি। দিতে পারলে তারা আমাদের নিয়ে আর কথা বলবে না।

আমরা বিচে চলে যাই। এমনিতেই আমাদের মাঝে ধরা ধরির সম্পর্ক আছে। নিলা আপু বিচে গিয়েই আব্বুর খুব কাছাকাছি থাকে। হাত ধরে আব্বু করে করে আহলাদি হয়ে যায়। আমি দেখছি একবার আব্বু তোমার বন্ধুর সাথে গিয়ে খুব ভাল সময় গেছে। থ্যাংক ইউ আব্বু হলিউডেতে নিয়ে আসার জন্য বলে দুধ দিয়ে জড়িয়ে ধরে আর আব্বু সরে যায়।

আম্মু পাশের একটা জংগলে অনেক মানুষ যাচ্ছে দেখে বলে, চল সেখানে কি দেখে আসি। কিন্তু আব্বু যেতে চায় না। আম্মু বলে আকাশ চল তুই আমার সাথে আর নিলা তুইও চল।

নিলা আপু বলে না আম্মু আমি যাবনা। তুমি যাও তোমার জায়গায় আমি আব্বুকে সময় দিব।

আম্মু হেসে বলে, যা আমার জায়গা তরে দিয়ে দিলাম। তুই বুইড়া নিয়ে থাক আর আমি জোয়ান বেটা নিয়ে যাই।
আপু আব্বুর হাত ধরে বলে, আব্বু আমার কাছে মাত্র ২৫ বছরের বুইড়া হবে কেন? সব চেয়ে হ্যান্ডসাম পুরুষ আমার আব্বু। যাও তোমরা।

আব্বু হেসে দিয়ে বলে, তুমি যাও তোমার ছেলে নিয়ে আমি যাই আমার বিউটিকুইন নিয়ে। আপু আব্বুর হাতটাকে বুকের কাছে টেনে নিয়ে দুধে লাগিয়ে বলে, থ্যাংক ইউ আব্বু। লাভ ইউ।
আমি নিলা হয়ে এখন কথা বলছি।
আকাশের কথা মত আমি আব্বুকে ট্রাই করছি। অনেক্ষন হাটতে গিয়ে কিছুটা টায়ার্ড। সমুদ্রের কলকল শব্দে খুব ভাল সময় কেটে যাচ্ছে। আব্বু খুব ফানি রসিক মানুষ। তাও জানি মাগীখোর। আমি চাই আব্বু যেন কিছুটা রেস্পন্স করে আমার কাছে ধরা খায় আর আকাশের সাথে সম্পর্ক নিয়ে খুব রাগ না কর‍তে পারে।কাইন্ড অব ব্লাক মেইল।

দাড়িয়ে আছি। একজন মহিলা আমাদের সাথে এমনিতেই কথা বলছে।কোথায় বাড়ি এই সব। কথা কথায় মেয়েটি বলে, আপনারা কি স্বামী স্ত্রী? আব্বু কিছু বলতে গিয়েছিল তার আগেই আমি বলি, জ্বী আমরা স্বামী স্ত্রী। আমি মেয়েটিকে এম্বারেসিং করতে গিয়ে আব্বুর গালে চুমু দিয়ে দেই। তাও আবার ভেজা চুমু। টুঠের ফাকে জিহভা দিয়ে হালকা লেহন দিয়ে বলি আমর খুব সুখি পরিবার। দোয়া করবেন বলে হাটতে থাকি। কিছুদুর আসার পর আব্বু বলে, এইটা কি বললে, বাবাকে স্বামী বানিয়ে দিলে।

একটু মজা নিলাম আব্বু, এই মেয়ে ভাবছে তুমি কত লাকী মানুষ। অল্প বয়সের সুন্দরী মেয়ে তোমার বউ। কেন তুমি মজা পাও নাই।

মজার কি আছে। সে যদি ভাবে যে আমার প্রচুর টাকার জোরে অল্প বয়সের মেয়েকে বিয়ে করেছি। আর চুমু দিতে হবে কেন?

আব্বু এই মেয়ে যাতে না বুঝে তুমি টাকার জোরে আমায় বিয়ে করেছ সেই জন্যই ভালবাসা দেখালাম। আমি তোমায় কত ভালবাসি। আশে পাশে চেয়ে দেখ সবাই আমাদের খুব সুখি কাপল ভাবছে।।

তোর মাথা খারাপ হয়ে গেছে। মানুষকে দেখাতে হবে কেন?

আব্বু কে জানে তোমার মত হ্যান্ডসাম স্বামী আমি পাই কিনা। তাই একটু মজা নিচ্ছে তুমি আমার ফানটাকে মাটি করে দিও না। আনন্দ করতে আসছি।

নিজের বাবাকে মানুষ হ্যান্ডসাম বলে নাকি।
আমার কাছে তুমি সুপুরুষ হ্যান্ডসাম। এই কথা বলেই ঝাপ্টিয়ে হাত ধরে মাথাটা টেকিয়ে দেই। আব্বু ইঞ্জয় দা ভিউ। ভাবতে থাক আমি তোমার বউ। কে আমাদের জানে।
তোর বউ হওয়ার রোগ ধরেছে। বিয়ে দিতে হবে।
তা দিও এখন তুমিই আমার স্বামী তুমিই আমার আব্বু বলে আরো শক্ত করে জড়িয়ে ধরি। আব্বু আমার দুধের চাপে কিছুটা এম্বারেসিং ফিল করছে নড়ে চড়ে ছাড়াতে চায়।

আব্বু আমি তোমাকে জড়িয়ে ধরি আর তুমি ছাড়িয়ে দিচ্ছ কেন?

বাবা মেয়ে এইভাবে ধরে না পাগল।

আমরা এখন বাবা মেয়ে না। স্বামী স্ত্রী রাইট। আমি আমার হ্যান্ডসাম স্বামীর সাথে রোমান্টিক সময় পার করছি। ডোন্ট স্পয়েল মাই কোয়ালিটি টাইম। আমি আবার আব্বুর গালে চুমু দেই ঠিক আগের মত।

আব্বু আমাকে ছাড়াতে না পেরে অসহায় অবস্তা। নার্ভাস হয়ে বলে আর চুমু দিবি না।
আব্বু চুমু হল ভালবাসার চরম প্রকাশ। তুমি একটাও আমাকে দাও নাই। আমি গাল পেতে দেই আর বলি দাও একটা চুমু দাও। সাহস করে এও বলি যদি চাও আমার টুঠেও দিতে পার যেহেতু আমি তোমার স্ত্রী এখন।
আব্বু আমার দিকে চেয়ে বলে তোর কি হয়েছে।
কিছু না আব্বু আই জাষ্ট লাভ ইউ। একটা চুমু দাও প্লিজ। আব্বু আমার গালে একটা চুমু দেয় আমি বলি আবার দাও হয় নাই। যখন আব্বু আবার দিতে যায় তখন আমি মুখ গুড়িয়ে ফেলি আর আব্বুর টুঠ আমার টুঠে লেগে যায়। আব্বু শুধু বলে সরি।

সরি বলছো কেন আব্বু।

আমি তোর গালে দিতে ছেয়েছিলাম।তুই ঘুরে গেলি আর ঠুটে লেগে গেছে।

তাতে কি হয়েছে।

নিলা তুই কি পাগল। ঠুট হল নিষিদ্ধ জায়গা।

নিষিদ্ধ হবে কেন? তোমার কাছে আমার আবার নিষিদ্ধ কি?

আরে পাগল আমি তোর বাবা।

আমি বলছি না এখন তুমি আমার স্বামীর চরিত্রে অভিনয় করছো। বাবা তুমি হোটেলে আর আমার কাছে তোমার কোন নিষিদ্ধ কোন কিছুই নাই। আমি আব্বুর গায়ে দুধ লাগিয়ে আটসাট হয়ে থাকি। আব্বু কি যেন ভাবছে। একটা ছোট মেয়ে ফুলের মালা নিয়ে এসে আব্বুকে বলে, স্যার একটা মালা কিনেন ম্যাডামের জন্য। ম্যাডামের গলায় দিবেন।।

আমিও মালা কিনে দিতে বলি, আব্বু মালার টাকা দিতেই মেয়েটা আমাকে মালা দিতে চায় আর আমি বলি তোমার স্যারকে দাও। আব্বু হাতে নিয়ে দাড়িয়ে থাকে। আমি বলি কই দাও আমার গলায় পরিয়ে দাও। আব্বু আমতা আমতা করতে করতে আমার গলায় পরিয়ে দেয়।

আমি আব্বুকে বলি, দেখছো এই বাচা মেয়েটা পর্যন্ত জানে আমি তুমার বউ বলে আমি হা হা হা করে হেসে উঠি।

আব্বু আমার দিকে চেয়ে বলে পরিচিত কেউ যদি দেখে তোর এই আচরন তাহলে আমার ইজ্জত শেষ।

তাহলে চল অই নিরিবিলি জায়গায় যাই। কেউ দেখবে না। ইজ্জতও যাবে না।

নিরিবিলি জায়গা যাব কেন?

বাহ তুমি যে বললে, কেউ দেখলে ইজ্জত যাবে, সেখানে গেলে কেউ দেখবে না। অন্তত তোমার আদরতো পাব। এখানে তুমি লজ্জা পাও আদর করতে।

তুই আমার মেয়ে। আমি কি তোরে কম আদর করি?

আমি আরো কাছে চেপে বলি, এখন তোমার বউ না আমি। যদি বউ…….

আব্বু ইতস্ত করে বলে, এখন ফিরে যাব। চল
আমি দুই হাত দুই দিকে দিয়ে সামনে দাড়াই আর বলি, আমি এখন যাবনা।এখানেই তোমার সাথে থাকবো। আশে পাশে চেয়ে দেখি কেউ নেই
তাই আমি আব্বুকে জড়িয়ে ধরি আর দুধের চাপ দিয়ে গলার কাছে মুখ নিয়ে চুমু দেই।

আব্বু আমাকে ছাড়িয়ে বলে, আমার মনে হচ্ছে তোর কিছু হয়েছে। নয়তো মতলব আছে।

না আব্বু আমার কিছুই হয়নাই। তোমার সাথে থাকতে আমার ভাল লাগছে। আমার কোন মতলব নাই তবে তোমার কোন মতলব থাকলে বলতে পার, চল ওই নিরিবিলি জায়গায় গিয়ে বসি। খারাপ ইংগিত দিয়ে কথাটা বলি।

আব্বু বলে, নিরিবিলি জায়গায় গিয়ে কি করবি?

আমার কিছু করার ইচ্ছা নাই কিন্তু তোমার যদি থাকে তাই বলছিলাম। আবার খারাপ ইংগিত। আমি এখন তোমার বউ না. বলে আমি সেই দিকে হাটতে থাকি।

আব্বু বেক্ষলের মত পিছু পিছু হাটতে থাকে আর বলে, নিলা দাড়া যাসনা। অনেক দেরি হয়ে যাচ্ছে ওরা আমাদের খোজবে।

সামনে ডাব দেখে আমার খেতে ইচ্ছা করে। লোকটাকে দুইটা ডাব দিতে বলে আমি দাড়াই আর আব্বু এসে দাম দেয়। আমি ডাবওয়ালাকে বলি ভাইয়া, এই জায়গাটা কি নিরাপদ। সামনে জংগলের পাশে।
ডাবওয়ালা বলে জ্বী আপা এখন তেমন মানুষ নেই।।

What did you think of this story??

Comments

Scroll To Top